মধ্যরাতের টেলি প্রলাপ

নীড় সন্ধানী এর ছবি
লিখেছেন নীড় সন্ধানী (তারিখ: মঙ্গল, ১৩/০৮/২০১৩ - ৫:২২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

-মৃত্যু কয় প্রকার?
-দুই প্রকার
-কি কি?
-স্বাভাবিক মৃত্যু অস্বাভাবিক মৃত্যু
-ভুল...মৃত্যু চার প্রকার। দুর্ঘটনায় মৃত্যু, অসুস্থতার মৃত্যু, অপাঘাতে মৃত্যু, আত্মহত্যা মৃত্যু
-কথা তো আমার লাইনেই। দুর্ঘটনা আর অসুস্থতা হলো স্বাভাবিক মৃত্যু, অপাঘাত আর আত্মহত্যা হলো অস্বাভাবিক
-আরো একটা মৃত্যুর কথা বাদ গেছে
-কোনটা?
-শর্ট সার্কিট
-এটা কেমন?
-এটাকে ডাক্তারেরা বলে স্ট্রোক। অসুখ নাই বিসুখ নাই, দুর্ঘটনা নাই, দুম করে শর্ট সার্কিট হয়ে গেল মাথায়।
-ফাজলামি করো?
-ফাজলামি না, ইতরামি বলতে পারো
-মানুষকে নিয়ে ইতরামি?
-না... নিজেকে নিয়ে, আমার ধারণা আমি শর্ট সার্কিটে মরবো
-তুমি কি মানুষ না?
-আমি অমানুষ
-সেজন্যই মৃত্যু নিয়ে গবেষণা করছো?
-গবেষণা করছি না, কিন্তু বিশাল একটা ভাবনায় পড়ছি
-কিসের ভাবনা?
-মৃত্যুর পর মানুষ কোথায় যায়?
-তুমি সেদিন বললা মানুষ মাটির সাথে মিশে যায়
-সে তো আমি নাস্তিক বলেই, তুমিও কি মাটির সাথে মিশে যাবে?
-মাথা খারাপ? আমি নাস্তিক না। আমি ধার্মিক মানুষ, মাটির সাথে মিশবে আমার দেহ, আত্মা আমার ঘুরতে থাকবে জগতময়
-এই তো, দেখো তুমিও দার্শনিক বাতাসে নড়তে শুরু করেছো
-দার্শনিকেরা কি অধার্মিক?
-দার্শনিকেরাও ধার্মিক হতে পারে তোমার মতো। যারা গাছেরও খাবে তলারও কুড়োবে
-আমি মানছি না। ধর্ম নিয়ে আমার যে জ্ঞান তোমারও সেই জ্ঞান। কিন্তু আমার জ্ঞান নিয়ে আমি আস্তিক, তোমার জ্ঞান নিয়ে তুমি নাস্তিক
-আমি নাস্তিক, কারণ আমি মৃত্যু পরবর্তী কোন গন্তব্যে বিশ্বাস করি না
-তোমার এই অবিশ্বাসের জন্য তোমাকে কেয়ামত পর্যন্ত গজবের আগুন পোহাতে হবে
-আর তোমাকে কি বেহেশতের সুবাস দিয়ে ঢেকে রাখবে?
-তা কেন, কিন্তু আমার বিশ্বাসের জোর আমাকে যন্ত্রনা থেকে রক্ষা করবে।
-বিশ্বাসের জোর কতদিন থাকবে?
-সেটা নির্ভর করবে বিশ্বাসটা কতো মজবুত তার উপর
-তোমার বিশ্বাস কতোটা মজবুত?
-সেটা দিয়ে তোমার কাজ কি?
-জানতে চাইছি তুমি কতো বছর ঠেকিয়ে রাখতে পারবে
-অন্ততঃ কয়েকশো বছর
-হাসতে ইচ্ছে করছে
-কেন
-তুমি আমার উপর তিন মাসের একটা বিশ্বাস রাখতে পারোনি,
-তোমার কথা আলাদা
-আলাদা কেন
-তুমি একটা অমানুষ। নাস্তিকেরাই এরকম অমানুষ হয়
-আর যারা দীর্ঘকালের বন্ধুতাকে মুহুর্তের ভুলে উচ্ছেদ করতে বলে তারা
-তুমি কথা ঘুরিয়ে অন্য দিকে নেয়ার চেষ্টা কোরো না
-আচ্ছা ধরো তিনশো বছর তুমি বিশ্বাস দিয়ে ঠেকিয়ে রাখবে কবর যন্ত্রনা, এই তিনশো বছর পরে যদি কেয়ামত না হয়?
-তা তো হবেই না। কিন্তু তিনশো বছরে আমি পারিপার্শ্বিক অবস্থাগুলো সম্পর্কে ধারণা নিয়ে ফেলতে পারবো, মুর্দাপ্রহরীদের সাথে খাতির করে নিতে পারবো
-তোমার কথা শুনে মনে হচ্ছে কবর হলো থানা বা জেলখানার মতো যেখানে প্রহরীদের সাথে খাতির করলেই আরামে থাকা যায়
-শোনো তোমাদের ডারউইনই তো বলেছে অভিযোজনের কথা,
-তুমি এখন ডারউইনে বিশ্বাস করতে শুরু করেছো? বাহ উন্নতি হয়েছে তোমার
-ধুরো বিশ্বাস করবো কেন, একটা উদাহরণ দিলাম মাত্র
-উদাহরণ দেবার জন্য একজন মোল্লা মওলানার নাম পাইলা না?
-তা পাবো না কেন, কিন্তু তাদের কথা তো তুমি বিশ্বাস করবা না,
-আমি যাকে বিশ্বাস করবো তাকে দিয়ে আমাকে উদাহরণ দিলে আমি কি ধার্মিকতার দিকে অগ্রসর হবো
-তোমার মাথায় নিরেট পাথর, তোমাকে বোঝানো আমার কম্ম নয়।
-এই তো তুমি চট করে এক্সট্রিম হয়ে যাচ্ছো। আস্তিকতার এইটা একটা বড় সমস্যা। যাদের বিশ্বাস যত কঠিন, তারা তত বেশী এক্সট্রিম।
-আর অবিশ্বাসীরা বুঝি একেবারে জলের মতো তরল
-আমাকে দেখেও কি তা বোঝা যায় না?
-তুমি একটা থিউরিষ্ট এভিল...
-যে স্বর্গের যাত্রীদের নরকের টিকেট কেটে দেয়
-আমাকে নিয়ে তাই করোনি?
-তোমার উপর জোর খাটিয়েছি?
-জোর খাটাওনি কিন্তু দিনের পর দিন তোমার এভিল থিউরিগুলো আমার মগজে ঢুকিয়ে একটা যুদ্ধ বাঁধিয়ে দিয়েছো
-সেই যুদ্ধে কে জিতলো?
-জিতলো আমার বিশ্বাস
-যুক্তি জিতলো না কেন?
-বিশ্বাসের শক্তি বেশী ছিল বলে
-সংখ্যায় যুক্তিরা বেশী থেকেও শক্তিশালী বিশ্বাসের কাছে হেরে গেল। এটাকে রাজনীতির ভাষায় কি বলে জানো?
-কি বলে?
-তার আগে একটা প্রশ্নের জবাব দাও
-বলো
-মধ্যপ্রাচ্যে এক ইজরায়েলের বিরুদ্ধে দশটা আরব দেশ যুদ্ধ করে পারেনি, কেন জানো?
-জানি
-কেন?
-ইজরায়েলের অস্ত্রের জোর বেশী, পারমাণবিক অস্ত্রের মালিক ওরা
-তাই সংখ্যায় বেশী হয়েও আরব দেশগুলো হেরে গেছে,
-ঠিক তাই
-বিশাল আরবের বিরুদ্ধে ক্ষুদ্র ইজরায়েলের এই বিজয়কে তুমি সমর্থন করো?
-প্রশ্নই ওঠে না
-তাহলে তোমার বিশ্বাসের সাথে আমার যুক্তিরা হেরেছে ওটা কেন সমর্থন করছো?
-তুমি এটার সাথে ওটা মেলাবে? একটা হলো ধর্ম, আরেকটা রাজনীতি
-বন্ধু, এখানেই গোলমাল। ধর্মে বিশ্বাসের রাজত্ব আর রাজনীতিতে অবিশ্বাসের। তবু ধর্ম আর রাজনীতি মিলে রাষ্ট্রকে নিয়ন্ত্রণ করে।
-আমি তোমার সাথে এই বিষয়ে এখন আর তর্ক করতে চাই না
-কিন্তু আমার আরো কথা বলার ছিল
-তোমার বলার থাকলেও আমার শোনার সময় নাই। আমাকে এখন ঘুমাতে হবে.....কাল সকাল সকাল উঠতে হবে।
-ঠিক আছে আজকের মতো রাখছি।
-গুড নাইট!


মন্তব্য

অতিথি লেখক এর ছবি

বিশাল হাই থ্রটের লেখা, তবে ভালো লাগলো।

-এস এম নিয়াজ মাওলা

অতিথি লেখক এর ছবি

"ধর্মে বিশ্বাসের রাজত্ব আর রাজনীতিতে অবিশ্বাসের।তবু ধর্ম আর রাজনীতি মিলে রাষ্ট্রকে নিয়ন্ত্রণ করে।"
সরস।
৩০ বা তদূর্ধ্ব, কেন তা বুঝতে পারলাম না।
শাকিল অরিত

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

চলুক
খেলার সাথে রাজনীতি মেশান কেন? হাসি

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

অতিথি লেখক এর ছবি

চলুক
"ধর্ম আর রাজনীতি মিলে রাষ্ট্রকে নিয়ন্ত্রণ করে।"
হ। আর তাগ চালায় যিনি তেনারে সবসময় সহজে দেখা যায় না। কিন্তু সেই ছুপা রুস্তম-ই টপ ভুজঙ্গ। তিনি হইলেন গিয়া অর্থনীতি। খুব নজর না করলে ঝড় না উঠা তক বাণিজ্যবায়ু ধরা খায় না।
- একলহমা

অতিথি লেখক এর ছবি

বাপরে, পড়তে যেয়ে আমার মাথাতেই শর্ট সার্কিট হয়ে যাচ্ছিল দেঁতো হাসি , লেখা দারুন চলুক
ইসরাত

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

পড়তে পড়তে আউলায়া গেছি

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

প্রোফেসর হিজিবিজবিজ এর ছবি

চলুক

____________________________

অতিথি লেখক এর ছবি

ধর্ম আর রাজনীতিকে একেবারে গুল্লি করে দিলেন।

মাসুদ সজীব

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।