তুলিরেখা এর ব্লগ

ইস্কুলবেলার গল্প(২০)

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: বুধ, ১৯/১২/২০১২ - ৭:৩৪পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমাদের একদম ছোটোবেলার স্কুলটা মানে যে স্কুলে কেজি ওয়ান থেকে ক্লাস ফোর অবধি পড়েছিলাম, সেটা ছিল বেশ বিচিত্র। তিনটি স্কুলের সমাহার বলা যায় সেটাকে। একটা মস্ত চৌকো উঠানের পুবের দিকে ছোটো একতলা একটা দালানে ছিলো কিন্ডারগার্টেন স্কুল, সেখানে কেজি ওয়ান আর কেজি টু এর ক্লাস হতো। উঠানের পশ্চিমের দিকে দোতলা দালান, সেদিকে প্রাইমারি স্কুল, ক্লাস থ্রী ফোর। আর উঠানের উত্তর দিকে ছিল সেই বিচিত্র সমাহার, একটা বিশাল


বসন্তমঞ্জরী

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: বুধ, ১২/১২/২০১২ - ২:৪৪পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সে ছিলো অনেক আগের এক বসন্তকাল। তখন এক চওড়া নদীর তীরের ছোট্টো শহরে থাকতাম। বসন্ত এলেই চারিদিকে কেমন একটা উল্লাস জেগে উঠতো। প্রকৃতিতে আর মানুষের সদরে অন্দরে। শীতে সব চারিপাশ কেমন ধূসর আর নীরক্ত লাগতো, সব পত্রমোচী গাছেরা তখন পাতাহীন ন্যাড়া হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতো। যেই না আকাশের দক্ষিণে হেলে পড়া সূর্য সরে আসতো অনেকটা উত্তরে, ফুরফুরে দক্ষিণা হাওয়া বইতে থাকতো, শীত বিদায় নিতো। রংবাহারী ফুলে আর মনোহর সবুজ কিশল


প্রথম তুষার

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: শনি, ০১/১২/২০১২ - ৫:৪৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ঘোর শীতের দিনে ভ্রমণে বেরোতে হলো একবার, ঠিক মুক্ত ভ্রমণ নয়, মাধুকরীতে বেরোতে হলো বলা যায়। ঘটনাচক্রে থাকতে হলো উত্তরের এক শহরে, সেখানে তখন অবিরাম তুষার ঝরছে।


উৎসসূর্য

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: বিষ্যুদ, ২২/১১/২০১২ - ৯:৪৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১। একটা স্বপ্ন দেখছিলাম। স্বপ্ন , অথচ এত স্বাভাবিক ঘটনার মত আর এত স্পষ্ট যে স্বপ্ন বলে মনে হয় না প্রথমে। একটা কাহিনি, পরপর ঘটতে থাকা ঘটনামালা, ঠিক যেন একটা বহুমাত্রিক মুভি, ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে চরিত্র গুলোর মনের ভাবও যেন দেখা যাচ্ছে নানা রঙের আলোছায়ায়। গোলাপি-সোনালি আলোর আনন্দ, ধূসরাভ নীল আলোর বিষাদ, সবুজাভ আকাশি আলোর ভালোবাসা, গাঢ় লাল আলোর রাগ, লালচে বেগুনী আলোর অভিমান, কচিকলাপাতা রঙে শিশির দোলা


বর্ণমালাহীন

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: বিষ্যুদ, ০৮/১১/২০১২ - ৯:০৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

লিখনের ভাষা চুপ করে গেছে, সমস্ত বর্ণমালা মিলিয়ে গেছে তৃণে তৃণে। মিলিয়ে গেছে নিভে আসা দিনের আলোয়, মেঘাবৃত আকাশে। বৃষ্টির প্রতিটি বিন্দু এখন বাঙ্ময়, ঝড়ের মেঘে সমুদ্রের উড়ন্ত নাভি।এখানে মুক্তির খোঁজে কোন্‌দিকে যাবো? দিকদিশাহারা দিগন্তবিসারী মৃত্যুর দিকেই? নাকি তমিশ্রা পার হয়ে পুনর্জন্মের দিকে?


কবিতা বিষয়ে অনুরোধ

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: রবি, ২৮/১০/২০১২ - ৩:৩০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এখানে কবিতাপ্রেমী অনেক মানুষ নিত্য আসেন যান, তাই খুব ভরসা করে এই অনুরোধ রাখছি।
নিম্নলিখিত পংক্তি গুলো কোন কবিতার আর কবি কে, সেগুলো নিশ্চিতভাবে জানার আমার খুব দরকার। নিশ্চিতভাবে, কারণ রেফারেন্সে দিতে হবে। কেউ যদি জানেন, অনুগ্রহ করে বলবেন প্লীজ। আগাম ধন্যবাদ।


দেশবিদেশের উপকথা-চন্দ্রকুমারী (জাপান)

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: বুধ, ২৪/১০/২০১২ - ১:০২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

জাপানের এই উপকথাটা খুব আশ্চর্যরকমের সুন্দর। অনেকে বলে থাকেন আধুনিক কল্পবিজ্ঞানের গল্পের আদিরূপ এই উপকথাতেই প্রথম পাওয়া যায়। অনেকে আরো বলেন, উপন্যাস ইত্যাদির বীজও লুকানো ছিলো এই উপকথায়। এই উপকথাটির জন্য সচল ষষ্ঠ পান্ডবের কাছে ঋণী এই পুনর্কথক।


অনেক দূরে

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: রবি, ২৩/০৯/২০১২ - ১১:২২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

অনেক দূরে আমার দেশে এখন প্রথম শরৎ, মেঘের ভিতর থেকে হঠাৎ হঠাৎ এখন সেখানে উঁকি দেয় আশ্বিনের নীলখুশী দিন। বৃষ্টিধোয়া নীলকান্তমণির মতন নীল আকাশে ভেসে বেড়ায় কাশফুলের মতন শুভ্র মেঘের দল। হয়তো শিউলিরা একটু একটু করে মেলছে চোখ, হয়তো কাশফুল নদীতীরে লাজুক ডানা মেলেছে কোথাও। এবারও আমার সেইসব সঙ্গীতময় শিউলিভোর দেখা হবে না, সেইসব উৎসবময়ী সপ্তমীসন্ধ্যা অষ্টমীরাত্রি আর "নবমী নিশি গো পোহায়ো না ধরি পায়, তুই চলে গেল


দেশবিদেশের উপকথা- দুই ভাই (কঙ্গো)

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: মঙ্গল, ১৮/০৯/২০১২ - ৩:৫৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মুভাম্বা আর লুয়েম্বা ছিলো দুই যমজ ভাই, একদম একরকম দেখতে। একসাথে খেলাধূলা আর শিক্ষাদীক্ষা করে বড় হচ্ছিলো তারা। দুইজনে একরকম দেখতে হলে কী হয়, দুইজনের ভাগ্যচক্র ছিলো আলাদা। জন্মের পরে নামকরণের সময় তাদের ভাগ্যচক্র গণনা করেছিলো যে গুণিন, সে তাদের দুই ভাইয়ের গলায় পরিয়ে দিলো দুইরকম দুইখান লকেট, তার ভিতরে রইলো যার যার ভাগ্যচিহ্ন।


ঝিনুক-বেলা

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: বিষ্যুদ, ১৩/০৯/২০১২ - ৩:৩৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১।
ঘরের ভিতরে স্নিগ্ধ অন্ধকার। শোঁ শোঁ করে ফ্যান ঘুরছে। বাইরে তপতপে গ্রীষ্ম দুপুর। ইস্কুলে গরমের ছুটি। পুবের ঘরের খাটে মা ঘুমায় ছোটো ভাইটাকে বুকের কাছে নিয়ে, এই মাঝের ঘরে ঠাকুমার পাশে আমি, মাঝের খোলা দরজা দিয়ে ওঘরের হাওয়া এঘরে আসে, এঘরের হাওয়া ওঘরে যায়। কোণের বন্ধ জানালার সরু সরু সূক্ষ্ম রেখা ধরে কেমন আলোছায়ার জাফরি পড়েছে!