নতুন অতিথি সচলদের জন্য

সচলায়তন এর ছবি
লিখেছেন সচলায়তন (তারিখ: শনি, ০৫/০৭/২০০৮ - ২:০২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:
প্রিয় অতিথি, সচলায়তন আন্তর্জালিক লেখক সমাবেশে আপনাকে স্বাগতম। এই পাতায় আপনি সচলায়তনে লেখার, মন্তব্য করার এবং এর সদস্য হয়ে ওঠার প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে পারবেন।

সচলায়তনে অংশগ্রহণের উপায় কী?
আপনি যদি সচলায়তনে শুধু নীরব পাঠক হিসেবে না থেকে সরবভাবে অংশ নিতে চান তাহলে আপনার জন্য দুটি উপায় রয়েছে।

১. সরব পাঠক: আপনি নিবন্ধন না করেই লেখা দিতে পারেন এবং মন্তব্য করতে পারেন।
২. সদস্য: সচলায়তনের সদস্য হিসেবে লিখতে এবং মন্তব্য করতে পারেন।

সচলায়তনে অংশগ্রহণ করার সময় অবশ্যই নীতিমালাটি মেনে চলা জরুরি।

সরব পাঠক
সচলায়তনের সদস্য না হয়েও কেবল মন্তব্য করতে চাইলে অথবা মাঝে-মধ্যে দুয়েকটি লেখা দিতে চাইলে তা আপনি একজন সরব পাঠক হিসেবে করতে পারেন। এজন্য নিবন্ধন করার প্রয়োজন নেই। তবে একজন নিবন্ধিত অতিথি এবং ক্রমশ একজন পূর্ণ সদস্য হিসেবে সচলায়তনে আপনার অংশগ্রহণ আমাদের কাম্য।
সদস্য
আপনি যদি সচলায়তনের সদস্য হতে চান এবং একজন সদস্য হিসেবে এখানে লিখতে এবং মন্তব্য করতে চান তাহলে প্রথমেই আপনাকে নিবন্ধন করতে হবে। নিবন্ধনের প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে নিচে দেখুন।
মন্তব্য করব কী ভাবে?
সাধারণত মন্তব্যের মধ্যে দিয়েই নতুন অতিথিরা সচলায়তনে তাঁদের মিথষ্ক্রিয়া শুরু করেন। আপনি সচলায়তনের কোন লেখায় মন্তব্য করতে চাইলে তা দুটি উপায়ে করতে পারেন।

১) এক-আধটি লেখায় মন্তব্য করতে হলে সরাসরি লেখার নিচে “নতুন মন্তব্য করুন” অংশে চাপ দিন। তারপর নির্দিষ্ট ঘরে আপনার নাম অথবা নিক (পছন্দসই কোনো ছদ্মনাম) লিখুন, ইমেইল ঠিকানা দিন এবং মন্তব্যের ঘরে মন্তব্য লিখে “সংরক্ষণ” বোতাম টিপুন।

২) যদি নিয়মিত মন্তব্য করতে চান, তবে অতিথি লেখক হিসেবে লগ-ইন করে নিতে পারেন। নীড়পাতার ডানদিকে ‘সদস্য পরিচয়’ অংশে, অথবা লগ-ইন পাতায় গিয়ে, “সদস্য পরিচয়” অংশে guest_writer এবং “পাসওয়ার্ড” অংশে guest লিখে প্রবেশ করুন।
অতিথি লেখকের একাউন্টে লগইন করে যে কোন লেখার নিচে “নতুন মন্তব্য করুন”অংশে চাপ দিলেই মন্তব্য লেখার ঘর চলে আসবে। মন্তব্যের শেষে নিজের নাম অথবা নিক লিখতে ভুলবেন না। তারপর মন্তব্য সংরক্ষণ করুন।

সচলায়তনে মন্তব্য বা পোস্ট লেখার ক্ষেত্রে ডিফল্ট হিসেবে বাংলা কীবোর্ড চালু করাই থাকে। ইংরিজিতে লিখতে হলে Esc (এস্কেপ) চাপুন। বাংলা লেখার ফ্রী সফটওয়্যার অভ্র কীবোর্ডও ব্যবহার করতে পারেন। বাংলা লেখা এবং কম্পিউটারে বাংলা সেট-আপ সম্পর্কিত বিস্তারিত জেনে নিতে পারেন প্রায়শ জিজ্ঞাস্য অংশে।

সচলের মডারেটররা যাচাইয়ের পর আপনার মন্তব্যটি প্রকাশ করবেন। সেই মুহূর্তে কোনো মডারেটর অনলাইনে না থাকলে মন্তব্য প্রকাশে সামান্য দেরি হতে পারে।

নীচের ভিডিওতে মন্তব্য করার প্রক্রিয়াটি দেখানো হয়েছে। ভিডিও দেখা না গেলে এখান থেকে দেখতে পারেন।

ব্লগ লিখব কী ভাবে?
সচলায়তনে পোস্ট লিখতে হলে আপনাকে অবশ্যই লগ-ইন করতে হবে। উপরে বলা পদ্ধতিতে অতিথি লেখক হিসেবে লগ-ইন করুন। তারপর নীড়পাতার উপরে “ব্লগ লিখুন”অংশে চাপ দিন, নতুন পোস্ট লেখার জায়গায় পৌঁছে যাবেন।
লেখা শেষ হলে লেখার নিচে নিজের নাম অথবা নিক দেবেন অবশ্যই। নিবন্ধন করে থাকলে লিখুন নিবন্ধিত নাম। তারপর লেখার ধরন নির্ধারণ করে এবং প্রয়োজনে ছবি যোগ করে “সংরক্ষণ” করুন। সংরক্ষণের পূর্বে “প্রিভিউ” চেপে দেখে নিতে পারেন আপনার লেখাটি প্রকাশিত হলে তা কীরকম দেখাবে।

মনে রাখবেন, আপনি সংরক্ষণ বোতামে চাপা মাত্রই আপনার লেখাটি প্রকাশিত হবে না; সচলায়তনের মডারেটরবৃন্দ যথাসম্ভব দ্রুত সময়ে আপনার লেখাটি যাচাই করে প্রকাশ করবেন, দয়া করে ধৈর্য্য ধরুন। ২৪ ঘন্টার মধ্যে লেখাটি প্রকাশিত না হলে ধরে নেবেন সেটি প্রকাশের জন্য মনোনীত হয়নি। সেক্ষেত্রে আরো ভালো মানের লেখা দিতে অনুরোধ রইল। সচলায়তনের লেখার মান সচলায়তনের অনন্য বৈশিষ্ট, মানোত্তীর্ণ না হলে সচলায়তনে লেখা প্রকাশিত হয় না।

নিবন্ধন করব কী ভাবে?
আপনি সচলায়তনে নিয়মিত অংশগ্রহণের মাধ্যমে সদস্য হয়ে উঠতে ইচ্ছুক হলে, নীড়পাতার ডানদিকে “সদস্য নিবন্ধন” বোতাম টিপে নিবন্ধন পাতায় গিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে নিবন্ধন করুন। সদস্য পরিচয় হিসেবে আপনি নিজের নাম অথবা কোনো নিক (পছন্দসই কোনো ছদ্মনাম) ব্যবহার করতে পারেন। বাংলা নাম ব্যবহার করাই শ্রেয়। নিয়মিত ব্যবহার করেন এমন একটি ইমেল ঠিকানা দিতে ভুলবেন না, কারণ নিবন্ধন ও পরবর্তীকালে সচলীকরণ সংক্রান্ত সব যোগাযোগ সেই ঠিকানাতেই আসবে।

মনে রাখবেন, সচলায়তনে নিবন্ধন করলেই আপনি নিজের একটি একাউন্ট পেয়ে যাবেন না। প্রাথমিকভাবে অতিথি লেখক হিসেবে লগ-ইন করে নিয়মিত লেখা এবং মন্তব্য করার মাধ্যমে সচলায়তনের অংশ হয়ে উঠলেই আপনার একাউন্টটি চালু করা হবে। এই প্রক্রিয়াটি জটিল মনে হতে পারে, কিন্তু এটি একটি পরীক্ষিত পদ্ধতি এবং সচলায়তনের সকল সদস্য এই প্রক্রিয়ার ভিতর দিয়ে এসেছেন। এই প্রক্রিয়ার পীড়ায় সচলায়তন আপনার সমব্যথী! এই লেখাটিতে সচলায়তনের সদস্য হওয়ার ধাপগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পাবেন, অবশ্যই একবার চোখ বুলিয়ে নিন।

নিবন্ধন করার পর, আপনি সচলায়তনে লিখতে এবং মন্তব্য করতে শুরু করুন। নিবন্ধিত অতিথি অথবা অনিবন্ধিত অতিথির জন্য ব্লগ লেখার প্রক্রিয়ায় কোন ব্যতিক্রম নেই। দুই ক্ষেত্রেই আপনাকে অতিথি লেখক একাউন্টটি ব্যবহার করতে হবে।
আপনার সকল লেখা এবং মন্তব্যের শেষে যে নামে নিবন্ধন করেছেন সেই নামটি লিখে দিন। এর ফলে মডারেটরবৃন্দ জানতে পারবেন কোন লেখা এবং মন্তব্যগুলি আপনার। সচলায়তনের সদস্য হওয়ার জন্য কয়টি লেখা প্রকাশিত হতে হবে বা কয়টি মন্তব্য করতে হবে তা নির্দিষ্ট নয়। আপনার অংশগ্রহনের স্বতস্ফূর্ততা এবং মানের উপর আপনার সদস্যপদ প্রাপ্তি নির্ভর করবে।

নিবন্ধন করেছেন কেউ, কিন্তু লগইন করতে পারছেন না। অ্যাকাউন্ট এখনো সক্রিয় করা হয়নি, এমনটি বলছে। কারণ কী?
নিবন্ধনের পরপরই অ্যাকাউন্ট সক্রিয় করা হয় না। প্রথমে অতিথি হিসেবে, এবং পরে পূর্ণ সচল হিসেবে সক্রিয় করা হয়।

Reg01

অতিথি হিসেবে সক্রিয় হবার উপায় কী?
লিখতে হবে, পোস্ট বা মন্তব্য। লেখা প্রকাশ করতে চাইলে সদস্য নাম: guest_writer এবং পাসওয়ার্ড: guest ব্যবহার করে লগইন করুন।

Reg03

অতিথি হিসেবে পোস্ট ও মন্তব্য লেখা হচ্ছে, কিন্তু তা প্রকাশিত হচ্ছে না। কারণ কী?
অতিথিদের লেখা মডারেশন পার হয়ে আসে। তাই প্রকাশে বিলম্ব স্বাভাবিক। ২৪ ঘন্টার মধ্যে প্রকাশিত না হলে ধরে নিতে হবে, লেখাটি আর প্রকাশ করা হবে না।

Reg02

মডারেশন সম্পর্কে জবাবদিহি করতে সচলায়তন কর্তৃপক্ষ বাধ্য নন।

মডারেশনে কোনো লেখা কী প্রক্রিয়ায় যাচাই বাছাই করা হয়?

Reg06
অতিথি থেকে পূর্ণ সচল হিসেবে সক্রিয় হবার প্রক্রিয়াটি কী?
Reg04
তাহলে কি সচলায়তনের লেখক-পাঠকদের মধ্যে একটি সচেতন স্তরীভবন সৃষ্টি করা হচ্ছে না?
ঠিক তাই। সক্রিয়তার ভিত্তিতেই এই স্তরীভবন।

Reg05

তাহলে সমস্ত প্রক্রিয়াটি কেমন চেহারা নিলো?
ডায়াগ্রামে দেখুন।

Reg07

রেজিষ্ট্রেশন করব কিভাবে?
এখান থেকে রেজিষ্ট্রেশন করতে পারবেন।

একটি উদাহরণ নীচে দেখতে পারেন। সদস্য পরিচয় হিসেবে নিজের নাম অথবা অন্য যে কোনো একটি নিক বা ছদ্মনাম ব্যবহার করতে পারেন। Alternate Login এর ঘরে ইংরেজীতে সদস্য পরিচয় লিখুন। সদস্য পরিচয় এবং Alternate Login দুটো ব্যবহার করেই লগইন করা যাবে। মোবাইল বা যে কম্পিউটারে বাংলা নেই সেখানে লগইন করার জন্য Alternate Login টি ব্যবহার করতে পারেন।

নীচের তথ্য গুলো অপশনাল। তথ্য গোপন রাখতে চাইলে এই অংশটি পূরণ না করলেও চলবে। জন্মতারিখটি ব্যবহার না করতে চাইলে জানুয়ারী ১, ১৯০০ বাছাই করুন।

নিবন্ধন করার পর লগইন করতে গেলে একাউন্ট এক্টিভেট হয়নি এই কথাটি বলছে কেনো?
আপনার একাউন্ট নিবন্ধনের পরপরই সক্রিয় করা হয় না। সচলায়তনের সদস্য হতে হলে আগে অতিথি হিসেবে মন্তব্য এবং লেখা প্রকাশ করতে হবে। আপনার মিথস্ক্রীয়ার ভিত্তিতে একাউন্ট সক্রিয় করা যেতে পারে।

নিবন্ধন করার পর পরই লগইন না করতে পারলেও, এতে করে আপনার পছন্দের নাম বা নিকটির অধীকর্তা হবেন। তাছাড়া অতিথি হিসেবে লেখা দেবার সময় ইমেইলের পরিবর্তে এই নিবন্ধিত নামটি ব্যবহার করতে পারেন। এতে আপনার ইমেইল ঠিকানায় অনাঙ্ক্ষিত ইমেইল আসার সুযোগ সীমিত হয়।

আরো কিছু কি জানার আছে?
সচলায়তনের নীতিমালা পড়ে দেখুন, এটি ফোরাম বা ব্লগ সার্ভিস নয়। অযথা কলহ থেকে বিরত থাকুন, সচলের অংশ হয়ে ওঠার চেষ্টা করুন।

এছাড়াও নানা তথ্য পাবেন প্রায়শ জিজ্ঞাস্য পাতাটিতে। আর কোনো প্রশ্ন থাকলে বা কোনো বার্তা দেওয়ার থাকলে নির্দ্বিধায় জানান ঠিকানায় ইমেইল করে বা এই যোগাযোগ পাতায়

বেশ। আর কিছু?
১. কোনো সমস্যা পড়লে contact অ্যাট sachalayatan.com এ যোগাযোগ করুন। মনে রাখবেন যোগাযোগ না করলে সমস্যাটি সম্পর্কে আমরাও অজ্ঞ থেকে যাব। সুতরাং সমস্যা জানাতে ভুলবেন না।

২. সচলের নিয়মসংক্রান্ত যে কোন জিজ্ঞাসায় মেইল করুন। পোস্ট করে কোন কিছু জানতে চাইলে সাধারণত তা প্রকাশিত হয় না। লেখা বা মন্তব্য না প্রকাশ হলে কৈফিয়ত তলব করে ইমেইল করলে তা প্রত্যুত্তরবিহীন রয়ে যাবে।

৩. বাংলা হরফে মন্তব্য করুন। বাংলা ব্লগে ইংরেজী মন্তব্য বেমানান এবং এটি সচলায়তনে কঠোর ভাবে নিরুৎসাহিত করা হয়।

এছাড়া সচলায়তনের পোস্ট প্রকাশ সম্পর্কে কিছু জিজ্ঞাস্যের জবাব পাওয়া যাবে লঘুচালের এই পোস্টটিতে

সচলায়তন সম্ভাব্য সহজতম উপায়ে আপনার অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে সচেষ্ট। আপনার প্রশ্ন, সমস্যা, অভিযোগ আমাদের জানাতে পারেন যে কোন সময়।

সচলায়তনে আপনার উপস্থিতি আনন্দময় হোক।

সচল থাকুন, সচল রাখুন


  • সচলায়তনের নিয়ম একটু কঠিন লাগছে।আমি অতিথি লেখক হিসেবে লিখছি কিন্তু লিখা পোশ্রষ্ট করে পরে যখন লগ ইন করছি নিজের লিখা নিজে দেখতে পারছিনা ।কেউ ব্যাপারটা সম্পর্কে জানালে উপকৃত হব। - by Celina Bhuiyan Shumi on বুধ, 13/08/2014 - 12:46অপরাহ্ন
  • বন্ধুরা আপনাদের সাথে নতুন হিসাবে যোগ দিচ্ছি। আমার ভালোলাগা, পছন্দ, অনুভুতি সব কিছুই সবার সাথে শেয়ার করতে চাই। মোট কথা সবার সাথে থাকতে চাই...। - by Pronob Biswas on শনি, 14/09/2013 - 9:39অপরাহ্ন
  • sachalaytan besh valo laglo.vabisate pathak habar ichha thaklo. - by Debashis Konar on সোম, 22/07/2013 - 9:26পূর্বাহ্ন
  • আমি লিখতে চাই আমি আবোল-তাবোল লিখতে চাই আমি বগবগ করতে চাই আমি লিকতে চাই - by কবীর চৌধুরী তন্ময় on বিষ্যুদ, 04/04/2013 - 10:27পূর্বাহ্ন
  • নমস্কার নমস্কার, আমি নিবারন চক্রবর্তী , আপনাদের সভায় এই প্রথম এলাম , আমি ঘরের হাওয়া ঘরের মাঝেই. মুগ্ধবোধ গুপ্তপ্রাণ এক ।. আমি দু’হাতে কেটেছি মেঘ. পাখনায় কেটেছি সময়, চন্দ্রতারা নক্ষত্রের ভীরে. ধীরে ধীরে এতটা বছর. আপন মনে বেয়েছি জীবন সাম্পান ।. নিষ্পলক অনেক দেখেছি. নি:সীম আকাশে কত কবুতর ডিগবাজি খায় , এখানে গল্পেরা একুশে নারীর মতো. উনসত্তর একাত্তরের শক্তিমন্ত্রে. পূর্ণ করে দেয় জীবনের পাত্রখানি ।. এখানে দেখেছি কতো গুপ্তচর. অন্ধকার ভালোবাসে তারা, রৌদ্দুর জ্বালাময়, বিধাতাকে কাঁদতে দেখেছি. প্রতিকারহীন ,নিয়মের বেড়াজালে বাঁধা. এক মানবিক কেরানির মতো ।. (মানুষের পৃথিবী যে বেপোরোয়া আজ ). শেফালির মতো ইন্দ্রধনু ভালোবাসা. সারারাত জাগে ঘুম আর নির্ঘুম খেলায়. ডাহুকেরা সারারাত কেঁদে কেঁদে. রক্তবমি করে ভোরে , জীবনের মরুভূ চত্ত্বরে।. ( জীবন ভালোবাসে, ভালোবাসা বোঝেনা মানুষ ). নবান্নহীন হেমন্ত জঠরে অনন্ত ক্ষুধা লয়ে ঘুরে দিগ্বিদিক, দিগভ্রান্ত এক প্রাণান্ত অশান্ত নীল তিমি, আক্রোশে আছড়ে পড়ে তীরে, মরুভূ পিপাসা লয়ে কাঁদে অশান্ত গাংচিল ।. আমি আঁতুর ঘরের কান্না শুনি. শুনি আর ভাবি. এলো বুঝি ঐ ভাসানী আবার. আরো একবার বুঝি শেখ মুজিবুর রহমান, শত শত জন্মের আড়ালে. শুধু গোখ্ রারা জন্ম নেয়. যারা নক্ষত্র বোঝেনা,বোঝেনা জীবন ,স্বাধীনতা ।. বায়ান্নতে গড়া একটা আগ্নেয় নৌকা দেখেছি চৈতন্যে, একাত্তরের বন্যায় ভাসছিলো সে মুক্তির পাল তুলে।. একাত্তর গেলো, চলে গেলো পালের নৌকাখানি. ফিরল না আর কোনদিন, সেদিনের মন্ত্র আজ কেবল অচল জপমালা , একশ আটটা নীলপদ্ম নিয়ে আজকে এসেছি. দেবী খুশি হলে. ধ্বংস হবে চৈতন্যে জ্বালাময় কংসের সংসার।. - by Shyamal Saha on রবি, 03/03/2013 - 1:07পূর্বাহ্ন
  • ঠিক আছে। - by Hasan Mehedi on রবি, 31/03/2013 - 10:26পূর্বাহ্ন
  • নমস্কার নমস্কার, আমি নিবারন চক্রবর্তী , আপনাদের সভায় এই প্রথম এলাম , আমি ঘরের হাওয়া ঘরের মাঝেই. মুগ্ধবোধ গুপ্তপ্রাণ এক ।. আমি দু’হাতে কেটেছি মেঘ. পাখনায় কেটেছি সময়, চন্দ্রতারা নক্ষত্রের ভীরে. ধীরে ধীরে এতটা বছর. আপন মনে বেয়েছি জীবন সাম্পান ।. নিষ্পলক অনেক দেখেছি. নি:সীম আকাশে কত কবুতর ডিগবাজি খায় , এখানে গল্পেরা একুশে নারীর মতো. উনসত্তর একাত্তরের শক্তিমন্ত্রে. পূর্ণ করে দেয় জীবনের পাত্রখানি ।. এখানে দেখেছি কতো গুপ্তচর. অন্ধকার ভালোবাসে তারা, রৌদ্দুর জ্বালাময়, বিধাতাকে কাঁদতে দেখেছি. প্রতিকারহীন ,নিয়মের বেড়াজালে বাঁধা. এক মানবিক কেরানির মতো ।. (মানুষের পৃথিবী যে বেপোরোয়া আজ ). শেফালির মতো ইন্দ্রধনু ভালোবাসা. সারারাত জাগে ঘুম আর নির্ঘুম খেলায়. ডাহুকেরা সারারাত কেঁদে কেঁদে. রক্তবমি করে ভোরে , জীবনের মরুভূ চত্ত্বরে।. ( জীবন ভালোবাসে, ভালোবাসা বোঝেনা মানুষ ). নবান্নহীন হেমন্ত জঠরে অনন্ত ক্ষুধা লয়ে ঘুরে দিগ্বিদিক, দিগভ্রান্ত এক প্রাণান্ত অশান্ত নীল তিমি, আক্রোশে আছড়ে পড়ে তীরে, মরুভূ পিপাসা লয়ে কাঁদে অশান্ত গাংচিল ।. আমি আঁতুর ঘরের কান্না শুনি. শুনি আর ভাবি. এলো বুঝি ঐ ভাসানী আবার. আরো একবার বুঝি শেখ মুজিবুর রহমান, শত শত জন্মের আড়ালে. শুধু গোখ্ রারা জন্ম নেয়. যারা নক্ষত্র বোঝেনা,বোঝেনা জীবন ,স্বাধীনতা ।. বায়ান্নতে গড়া একটা আগ্নেয় নৌকা দেখেছি চৈতন্যে, একাত্তরের বন্যায় ভাসছিলো সে মুক্তির পাল তুলে।. একাত্তর গেলো, চলে গেলো পালের নৌকাখানি. ফিরল না আর কোনদিন, সেদিনের মন্ত্র আজ কেবল অচল জপমালা , একশ আটটা নীলপদ্ম নিয়ে আজকে এসেছি. দেবী খুশি হলে. ধ্বংস হবে চৈতন্যে জ্বালাময় কংসের সংসার।. - by Shyamal Saha on রবি, 03/03/2013 - 1:06পূর্বাহ্ন
  • আমি যদি স্বাধীনতার স্বপক্ষে কথা বলে আওয়ামী গুন্ডা বলে বিবেচিত হই...... তবে যারা বলল তারা কি??????? - by Classical Orphius on মঙ্গল, 16/04/2013 - 7:04অপরাহ্ন
  • আর রক্ত চাই না। যুধ্দ অপরাধীর িবচােরর সােথ দুৃরিনতী মুক্ত বাংলােদশ চাই ।রুহুল, - by Ruhul Amin on বিষ্যুদ, 07/03/2013 - 12:04পূর্বাহ্ন
  • আমার মন্তব্য টি সচল হোক ... :-) Tender Business Bangladesh. - by bdtender.com on সোম, 03/03/2014 - 10:54পূর্বাহ্ন