কবিতা

আত্মকথাগুলোকে কবিতা বলে ভ্রম হয়

সুমাদ্রী এর ছবি
লিখেছেন সুমাদ্রী (তারিখ: বুধ, ২৮/০১/২০১৫ - ২:১৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

// পাথরের মত শীতল হৃদয়হীন কেন বল,
আমি তো দিনের শেষে হাত রেখে দেখেছি পাথরে জমে আছে উত্তাপ...
বিবর্ণ কেন শীতকাল, ধূসর সুন্দর একটা রঙ...কুয়াশার রঙ সাদা...
বেঁচে থাকতেই হবে যেকোন প্রকারেই,
কারণ অন্ধ কিংবা খঞ্জরাও গান গায়,
বহুদূরের মরে যাওয়া তারারাও রাত হলে দপদপ করে জ্বলে ওঠে...//

// কোটি কোটি নক্ষত্ররা বহুদূরে মরে গেছে, অথচ আমাদের আকাশে তারা আজও কী দারুণ সহাস্য দীপ্যমান।


অভিলাষ

রোমেল চৌধুরী এর ছবি
লিখেছেন রোমেল চৌধুরী [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ১৪/০১/২০১৫ - ৩:২৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বনের কোলে একটি বেঞ্চি ফাঁকা
তুষার জমে আটকে আছে তাতে
নিকষ কালো রাতে।


অনুবন্ধী জীবন

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি
লিখেছেন ত্রিমাত্রিক কবি (তারিখ: মঙ্গল, ৩০/১২/২০১৪ - ৭:২৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

অথচ কোনো নিস্তরঙ্গ সময়ে এখনও স্মৃতির অবয়বে -
                 বিচ্যুত বিশ্বাস আর ফেরারী সময়।

কিছুটা বিস্মৃতি স্মৃতির জানালা খামচে ধরে নেমে আসে,
খুলে দিলে কিছুটা বিরহী সুবাস, কিছু বিবশ কামনা,
কিছুটা অলস গুমোট এখনও আঁকড়ে ধরে বিনিদ্র দেয়াল।

         কাঁটাতার পেরিয়ে এলেই ঘর।
         কাঁটাতার পেরিয়ে এলেই দেশ।
         কাঁটাতার পেরিয়ে এলেই ঘাস।


কৃষ্ণচূড়া

রণদীপম বসু এর ছবি
লিখেছেন রণদীপম বসু (তারিখ: শনি, ২০/১২/২০১৪ - ১০:৫৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


...


শেখ জলিল-এর কবিতা

শেখ জলিল এর ছবি
লিখেছেন শেখ জলিল (তারিখ: বিষ্যুদ, ২০/১১/২০১৪ - ১২:৫৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১।। সুন্দর চলে গেছে

সুন্দর চলে গেছে বৈরাগ্য ধ্যানে
পড়ে আছি মরা কুটিল বসতে!

টকের জ্বালায় ছিলাম অতিষ্ঠ
করি তেঁতুলতলায় বাস
হলো ভরা সর্বনাশ!

না টানে নিকটে আপনা স্বজন
না জিগায় সোদর ভাইয়ে
করি চণ্ডালে বিশ্বাস!

সুন্দর চলে গেছে পরের বাড়ি
জোস্নায় চাঁদ তাই সুখের আড়ি!!

শেখ জলিল ২৬.০৯.২০১৪

২।। নক্ষত্র চলে যায়

নক্ষত্র চলে যায় নক্ষত্রের কাছে


পদচিহ্নের শেষ ...

শাহীন হাসান এর ছবি
লিখেছেন শাহীন হাসান (তারিখ: রবি, ০২/১১/২০১৪ - ৫:২১অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মৃত্যু এসে নাম লেখাবে
এ বনের প্রতিটি ফুল
প্রতিটি পাখি
বুনো-গন্ধ
কীট-পতঙ্গ
প্রজাপতি আর তোমাদের মাঝে
পৃথিবীর কোন খানে আমি আর নেই

তারপর শিশির ধোয়া রাত
পাতায় পাতায় জোনাকি
পৃথিবীকে সাজাতে যেয়ে
সহসা সাজিয়ে ফেলবে তোমাকেই

সমস্ত দু:খের হাত খুলে খুলে
অতৃপ্তির বাঁধন ছিঁড়ে ছিঁড়ে
আমি উঠে বসেছি, পরিপূর্ণ-আনন্দে!

তখন সময়
নি:চিন্তে মুছে ফেলেছে আমাদের পদচিহ্ন ...

২৬.১০.২০১৪


পাথর

শাহীন হাসান এর ছবি
লিখেছেন শাহীন হাসান (তারিখ: শনি, ১৮/১০/২০১৪ - ৬:৩৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এই যে পাথর
শতাব্দীর পর শতাব্দী হয় তো পড়ে থাকবে কথাহীন
বসে কেউ জিরিয়ে নেবে
রোদ পোহাবে
আর কেউ কীটের কোলাহল আরতি লিখে
পাথরকে শোনাবে এক শ্বাসরুদ্ধকর কষ্ট, এবং
গল্প ।

এই যে পাতার ছায়া
আর বনের মধ্যে যে ছন্দে নাচছে অন্ধকার
এই নৃত্যে তুমি কি টের পাও, রাত আসছে ?

জীবনের কালি ফুরিয়ে যায়
লেখার শেষ আছে একদিন

এই তো পাথর জীবন ?


পাবলো নেরুদার ভালবাসার সনেট - ১৯

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: শনি, ০৪/১০/২০১৪ - ৩:১৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সমুদ্রের নীলাভ লবণ, বিপুল ফেনীল ঢেউ
আর সূর্যকিরণ, যখন তোমার ওপর ঝাপটে পড়ে
ইসলানেগ্রায়, তখন আমি চেয়ে দেখি কর্মব্যস্ত বোলতাটিকে,
স্বকীয় পৃথিবীর মধুর কাছে ওর আত্মসমর্পণ।

দেখি ওর নিয়ত আসা-যাওয়া; নিয়ন্ত্রিত, সোনালী উড়ান।
যেন কোনো অদৃশ্য, সরল তারে ও পিছলে যায়,
দৃপ্ত নাচে, নিপুণ ভঙ্গিমায়। দেখি ওর পিয়াসী কোমর,
একটি একটি করে ওর সূক্ষ্ম সুঁচ নিঃশেষিত হওয়া।

একটি অনচ্ছ কমলা রংধনুর ভেতর


ফেব্রুয়ারিবিকেল ও মার্চসন্ধে উপাখ্যান

সৈয়দ আফসার এর ছবি
লিখেছেন সৈয়দ আফসার (তারিখ: সোম, ২২/০৯/২০১৪ - ৫:৩৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এসব বললে তুমিও কুলকুলে হাসো, বলো না-হেসে
পারি না; তোমার মত কুলকুলিয়ে হাসে লাউপাতা,
কচুপাতা, সর্ষেদানা। লাউ-কুমড়ার পাশে অসহায়
আলু-পটল, সুপারি সহ পানপাতা
তারচে’ ভালো ছিল বালু-সিমেন্টের পাশাপাশি বাজুক
কম্পন, দেহসমর্পণ, দু’দণ্ড কথা বলার প্রেরণা
দূর্বল সম্পর্কের ভেতর জেগে থাকা অকৃতজ্ঞ হাতের
দু-একটি ছাপে কতখানি ছিটাবে জল ইচ্ছাগুলি চেপে?


পাবলো নেরুদার ভালবাসার সনেট - ৬১

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: রবি, ১৪/০৯/২০১৪ - ১১:২৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ভালবাসা তার লম্বা লাঙ্গুলে
একরাশ অদম্য, কর্কশ কাঁটার রেখাপথ রেখে যায়,
আর আমরা দু'জন চোখ মুদে পার হই এ বেভুল পথ,
যেন কোনো জখম আমাদের চিরে ফেলতে না পারে দু'খণ্ডে।

অপরাধী কোরো না তোমার জলভরা চোখ,
তোমার হাত তো বিদ্ধ করেনি তরবারি,
তোমার পদতল খোঁজেনি এ পথ,
এক ঘট শ্যামল বিষণ্ণ মধু, নিজেই এসে ভরেছে হৃদয় তোমার।

যখন বিপুল ঢেউ-তোলা প্রেম, আমাদের লুফে
আছড়ে ফেলে বিশালকায় পাথরের গায়, সে আঘাতে