আক্ষেপ

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: শনি, ২৩/০৯/২০১৭ - ১১:১৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সাধারণত কাউকে আমরা যখন অমুকের আব্বা বা তমুকের মা সম্বোধনে ডাকি, সেটা বড় ছেলের বা বড় মেয়ের নামেই হয়।যেমন আমার বাবাকে অনেক আত্মীয় রাহাতের আব্বা নামে ডাকেন,এটা নিয়ে ছোট বেলায় আমার ছোট ভাইয়ের খানিকটা অনুযোগও ছিল।যাই হোক এখন যার কথা বলব তাকে আমার মা-বাবা বা আত্মীয়রা রিনার মা নামে ডাকতেন,মজার ব্যাপার হল রিনা সেই মহিলার তিন ছেলেমেয়ের সবচেয়ে ছোট। উনি আমাদের বাসায় কাজ করতেন,আমি আর আমার ছোটভাই উনাকে বুয়া না


অবনী,বাড়ি আছো?

তিথীডোর এর ছবি
লিখেছেন তিথীডোর (তারিখ: শনি, ২৩/০৯/২০১৭ - ৬:২২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]

“I may be the type who manages to grab all the pointless things in life, but lets the really important things slip away.”
― Haruki Murakami
_______________________

চাকরির বয়স প্রায় এক বছর ছুঁই ছুঁই। অ্যানুয়াল ইভ্যালুয়েশন দেখে টেখে খেদিয়ে দেয় কিনা সেই টেনশনে ডেইলি দু'বার করে কোমায় যাই। হিসেব করে দেখলাম, সচলেও শেষ লেখার বছর ঘুরতে চলেছে প্রায়। ছুটির দিন, জামাই-ও বিদ্যাশ, এলা একটু হুদাই গ্যাঁজাই তাইলে, কী কন? হাসি


হ্যাপি বার্থডে পাপুন্তুস

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি
লিখেছেন এস এম মাহবুব মুর্শেদ (তারিখ: বিষ্যুদ, ২১/০৯/২০১৭ - ৮:৫১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সাত বছর আগের এই দিন আমার জীবনটা আলো করে জীয়ন আমাদের কোলে এসেছে। এখনও কথা বলতে শিখেনি। কিন্তু এখনও সে আমাদের জানের টুকরা। তার বন্ধু নেই একজনও। কিন্তু সে আমাদের বেস্ট ফ্রেন্ড, আমাদের পৃথিবীর কেন্দ্রবিন্দু। আমাদের এই যাত্রা দীর্ঘ, আর পথ বন্ধুর। তবু আশা হারাবার কিছু নেই। কারণ আমরা জানি, সংসার সাগরে দুঃখ তরঙ্গের খেলা আশা তার একমাত্র ভেলা।


জাহাজীর দিনলিপি

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: সোম, ১৮/০৯/২০১৭ - ২:০০অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

জাহাজীর মত একা আর কেই বা আছে?
লোনা হাওয়া, পোর্টহোল, সরু বিছানা আর
ঢেউয়ের দুলুনি সঙ্গী কেবল।
জাহাজীর মত একা আর কেই বা আছে?
ছেড়ে আসা বন্দর, শুঁড়িখানার পেয়ালা,
ঘন্টা মেপে কেনা রক্ত-মাংস এবং অবসাদ,
সব, সব, সব বিগত রাতের চেয়েও বেশী মৃত এখন।
তবু জাহাজী দিগন্তে চোখ পাতে,
নতুন বন্দরের তৃষ্ণা বুকে চেপে ভাবে,
"নোঙরের মত উদ্বাস্তু আর কেই বা আছে?"

-ইকরাম ফরিদ চৌধুরী


তোমাকে বলার ছিলো--

অনিকেত এর ছবি
লিখেছেন অনিকেত (তারিখ: বিষ্যুদ, ১৪/০৯/২০১৭ - ১:০৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

জীবন এখনো আছে কষ্টের পাতালে বন্দী
কিন্তু অত কষ্ট নয় যে, তোমাকে ডেকে বলি
জানি, আমি অনেকের চেয়েই হয়ত খারাপ আছি
কিন্তু অতটা খারাপ নই যে, তোমায় ডেকে বলি!

এখনো প্রতিদিন সন্ধ্যায় ক্লান্ত চরণে আমি ঘরে ফিরি
কিন্তু অতটা ক্লান্ত নই যে, তোমায় ডেকে বলি
জানি, অনেকেই এগিয়ে গেছে জীবন পথে-- আমাকে করে একাকী
কিন্তু অতটা একা নই যে, তোমায় ডেকে বলি!

এখনো প্রতিটা ভোর এসে শুরু করে নতুন আলোর দিন


বাক্স

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: বুধ, ১৩/০৯/২০১৭ - ৯:৩০অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ঘুম থেকে উঠে গুণে গুণে তিরিশটা বুকডন আর উনিশবার সিঁড়ি দিয়ে উঠানামা করার পর ভাদ্রমাসের তালপাকা গরমে হাঁপাতে থাকা ধাঙ্গড়দের তিনঠ্যাঙে নেড়ি কুকুরটার মতো আধা হাত জিব্বা বের করে দম নিতে নিতে বাম চোখের কোনা দিয়ে দেখলাম বাক্সটা এখনও মেঝের উপর পড়ে।


পাণ্ডুলিপি পোড়ে না

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি
লিখেছেন সাক্ষী সত্যানন্দ [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ১৩/০৯/২০১৭ - ১২:২২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

লেখার ফুরসৎ মিলতে মিলতে পেরিয়ে গেল গোটা দিনটাই।

তবু লেখা হোক। নাই মামার চেয়ে দেরী মামা নিশ্চয় ভাল।


হাওয়ায় মেয়ের চুল খেলে যায়

শাহীন হাসান এর ছবি
লিখেছেন শাহীন হাসান (তারিখ: মঙ্গল, ১২/০৯/২০১৭ - ২:৫৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আবার ভিজে মাটির গন্ধ আসে
পরশ লাগে গায়
হাওয়ায় হাওয়ায় চুল খেলে যায়
চুল খেলে যায়
সে মেয়ের চুল খেলে যায়

গ্রীবায় দুলে ওঠে সে মেয়ের লজ্জানম্রনদী
আঁধারের অধর ভাসিয়েছে যেন সেই সন্ধ্যা আবার

পথ তার চেনা ছিল এক আঙুর অন্ধকার
সে তো পথ নয় মাবীর ঠোঁট
সে তো চেনা নয় ছিল সম্মোহনী টান
সেই টান আবার টানছে আমায়


প্রতিদিনের রবীন্দ্রনাথ

কর্ণজয় এর ছবি
লিখেছেন কর্ণজয় (তারিখ: সোম, ১১/০৯/২০১৭ - ১০:১১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

তখন কৈশোর থেকে সদ্য তারুণ্যে পা দিয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয়ে খোলা হাওয়ায় দাঁড়িয়ে আছি ঠিকই কিন্তু ঘরের মধ্যে বেড়ে ওঠা কৈশোরের বাল্যভাবটা তখনও কাটেনি। তখনকার আমিকে মনে পড়লো রবীন্দ্রনাথের কবি-কাহিনী কবিতার কয়েকটি চরণের মধ্যে-
“নদীর মনের গান বালক যেমন
বুঝিত, এমন আর কেহ বুঝিত না।
বিহঙ্গ তাহার কাছে গাইতো যেমন
এমন কাহারো কাছে গাইতো না আর।
তর কাছে সমীরণ যেমন বহিত
এমন কাহারো কাছে বহিত না আর। ”


রামপাল প্রকল্পের নেপথ্যে দেশী-বিদেশী সংযোগ

তীরন্দাজ এর ছবি
লিখেছেন তীরন্দাজ (তারিখ: রবি, ১০/০৯/২০১৭ - ১:২৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আপাতদৃষ্টিতে জার্মানির স্টুটগার্টের ব্যাবসায়িক সংস্থা (Fichtner Group)কে মানুষ ও পরিবেশের মঙ্গলের কাজেই নিবেদিত বলেই মনে হবে। তাদের সুদক্ষ প্রকৌশলীরা ইকুয়েডরের রাজধানী কিওটোর এলোপাথাড়ি নদীপ্রবাহকে পরিকল্পিত পথে পরিচালনার কাজে ন্যস্ত। প্যালেষ্টাইনের গাজায় সমুদ্রের জল শোধন করে সুপেয় করায় নিয়োজিত তারা, যাতে যুদ্ধবিপন্ন গাজাবাসীরা পরিষ্কার সূপেয় জলে তৃষ্ণা মেটাতে পারে। মরক্কোর দক্ষিণাঞ্চলে ১৬০ মেগাওয়া