অপ বাক এর ব্লগ

সামপ্রদায়িক বাংলাদেশ লজ্জা আমাদের......

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: সোম, ১৩/০২/২০০৬ - ১১:২৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমরা কি দিন দিন অবুঝ হয়ে যাচ্ছি?
আড্ডা এবং হীরক লস্কর ভাই, জেনেভা ক্যাম্পের আটকে পড়া মানুষগুলো কিছু পাকিস্তানি কিছু বিহারের, তারা ভাষাগত ভাবে উর্দুভাষি, কিন্তু উর্দু ভাষি জনগন মানেই বাংলাদেশের শত্রু এমন অপপ্রচারনা আমি আপনাদের কাছে আশা করি নি।

যদি খবরটার চোখ এড়িয়ে যায় আবার পড়েন,
তারা জন্মেছে বাংলাদেশের মাটিতে, এখানেই 2য় শ্রেনীর নাগরিক হিসেবে বেড়ে ওঠা, তারা না ঘর কা না ঘাট কা অবস্থায় আছে,তাদের পিতা- মাতাদের মোহাজের হিসেবে পাকিস্তানে ফিরে যাওয়ার কথা ছিলো কিন্তু অবস্থানগত কারনে তাদের গ্রহন করতে পাকিস্তান নারাজ, তাদের বাংলাদেশ গ্রহন করে নি, জেনভা ক্যাম্পের ভেতরে যারা যান নি কিংবা সৈয়দপুরের বা অন্য আরও 2 3 জায়গায় জেনভা ক্যাম্প আছে, আমি


জন্মবিভ্রাট এবং আকবরের বোকামি

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: রবি, ১২/০২/২০০৬ - ৩:৪১অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আকবর একটা ভুল করেছিলেন তার রাজত্বকালে, অশিক্ষিত এই সম্রাট কি যেনো কুবুদ্ধি এসেছিলো ঘটে তাই সভাসদদের বললেন হিজরি মাস অনুযায়ি সৈর দিনপঞ্জি তৈয়ার করো, একজন হিসেব কষে তৈয়ার করলেন, সে মোতাবেক আমরা বাংলা সন পাইলাম, পাইলাম পহেলা বৈশাখ, তাহলে হিজরি সন আসিল কোথা থেকে, জানা যায়, কাফের আরব বাসি মোহাম্মদের উপর পিতৃপুরুষের ধর্ম নিয়ে ছিনিমিনি খেলার অপরাধে ক্ষিপ্ত ছিলেন, তারা হত্যা করতে পারেন এই আশংকায় রাতের অন্ধকারে মোহাম্মদ চুপিসারে, তার তৎকালিন ভ্রাতা, পরবর্তিতে জামাতা আলিকে আমানত রাখা জিনিষপত্র বুঝাইয়া দিয়া গৃহত্যাগ করেন, মোহাম্মদ চরম স্বদেশ প্রেমি ছিলেন তাই এই দেশত্যাগের ব্যাথ্যা ভুলিতে পারেন নি। তিনি লিপিবদ্ধ রাখেন , এি জালেন কাফেররা আমাকে কত দিন মক


বেড়ে ওঠো আপন শিকড়ে

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: শুক্র, ১০/০২/২০০৬ - ৮:২৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বিকল্প ধারার লোকজন আসছে কিন্তু মূলধারার লোকজনের খবর নেই।
ব্রাত্য, মাসুদা তপন অবনি, আরও হয়তো গোপন কেউ কেউ আছে যারা লিটলম্যাগে লিখছে, আশা করা যায় এ সুবাদে ভালো কিছু পড়া হবে,

স্বাগতম.................

আরও অনেক লোকজন আছে যারা লেখেন ভালো তাদের লেখা পড়া হয় নিয়মিত, আর দেখি কয়েকদিন পরে সাহিত্য সমালোছক হয়ে যাব ধর্মপ্রচার ছেড়ে।


যোগ্যতা

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: শুক্র, ১০/০২/২০০৬ - ২:৫৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মনে হয় শিবির নেতৃত্বের নতুন যোগ্যতার মাপকাঠি তৈরি করেছে, কয়েকটা খুনসংশ্লিষ্ঠ না হলে ঠিক শিবির নেতা হিসেবে মানায় না,
রাজশাহি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থা দেখে তাই মনে হয়, এ বিশ্ববিদ্যালয়ের আশেপাশের 4 ,5 গ্রামে শিবির ক্যাডারদের বৈবাহিক সম্পর্ক সেখান থেকে তেনারা নাঙ্গা তলোয়ার হাতে ছুটে ছুটে আসেন ইসলামি ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে,

নতুন শিক্ষক হত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত সালেহির বিচার হবে? সম্ভবনা ক্ষীন, হয়তো জেলের আশেপাশে ঘুরে , কয়েকদিন ফাটক খেটে তিনি ফিরে আসবেন, হামদ নাত গেয়ে তসবিহ হাতে তাকে বরণ করতে যাবেন শিবিরের ছোটো খুনিরা, দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে না,
চিটাগাং বিশ্ববিদ্যালয় চিটাগাং কলেজ, ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়, এখানে যতজন শিবিরের খুনি আছে তা


ভাষা আন্দোলনের মৃত দের প্রতি সম্মান প্রদর্শন

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: বিষ্যুদ, ০৯/০২/২০০৬ - ১:০২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


ওয়ালি ভাইয়ের লেখা পড়লাম, ভাষা আন্দোলনে নিহত ব্যাক্তিদের কিভাবে সম্মান প্রদর্শন করতে হবে এ বিষয়ে।
আমার আপত্তির কারন বস্তুতঃ 2টা।

প্রথমত ঃ ভাষা আন্দোলনের সম্পুর্ন মঞ্চ জুড়ে আছে বাঙ্গালি সংস্কৃতির জন্য ক্রমাগত সংগ্রাম। সংঘাত ,বিদ্্রোহ, প্রতিবাদ বাঙ্গালি সংস্কৃতিকে রক্ষার। এবং এর চালিকাশক্তি ধর্মপরিচয়বিহীন সেসব মানুষেরা যারা নিজের ভাষার জন্য লড়েছে, তারা ধর্ম নিরপেক্ষ একটা আন্দোলন করেছে, এবং এই আন্দোলনে নিহত ব্যাক্তিদের কিভাবে সম্মান দেখাতে


রসিকতা

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: বুধ, ০৮/০২/২০০৬ - ১০:৪৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ভালো একটা রসিকতা শুরু হয়েছে দেখা যায়, জটিল রসিকতা, আমি নাকি সবার পোষ্টে ধর্মবানি ঝাড়ছি আর পবলিক খাচ্ছে, শালার পাবলিকও।


রুপকথা লিখবো?

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: বুধ, ০৮/০২/২০০৬ - ৬:৩৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

কিছু কিছু মানুষ আছে যাদের শৈশব কখনও কাটে না, তারা চিরায়ত শিশু, অক্ষর, ভাষা, শুধু কতিপয় চিহ্ন, পরস্পরের যোগাযোগ করে,
কিন্তু যারা অক্ষরজ্ঞানী অবুঝ, যারা কথা বুঝে না, তাদের বিষয়ে কিছু বলার নেই।

আমার কথা বা মন্তব্য যাদের পছন্দ নয় তাদের নিজেদের নিয়ন্ত্রনে আছে তারা কি পড়বে, কি পড়বে না, আমার ক্ষুদ্্র জ্ঞানে এটাকেই বাস্তবসম্মত মনে হয়। আমার মতামতের দায়ভার শুধু আমার, মনে হয় কতৃপক্ষ প্রথম পাতায় এটা স্পষ্ট করে বলেছেন, কিন্তু কতৃপক্ষ তাদের মতে বিতর্কিত বিষয়গুলোকে পরিহারের উপদেশ দিয়েছেন, সেটা তাদের বিবেচনা,

হাবিব মহাজন ভাই আপনি দুই বার অভিযোগ করলেন, বেশ বিতর্কিত কিছু কথা বললেন, কেউ কেউ আমার পরিবার নিয়ে টানাটানি করলেন, রুচির দীনতা , রুচিহ


ফান ফ্যাক্টস

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: মঙ্গল, ০৭/০২/২০০৬ - ১২:৩৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ঘটনা গত কোরবানির ঈদের-
বাংলাদেশে উট কোরবানির নতুন ফ্যাশন শুরু হয়েছে, সে কারনে কিছু উট ভারতের রাজস্থান থেকে কিছু অন্য জায়গা থেকে কোরবানির হাটে নিয়ে আসা হয়,
এদের একটা ঈদের আগে আগে সন্তান প্রসব করে। প্রকৃতিক ঘটনা, কিন্তু জানা যায় এই উটগুলোর আমদানিকারক ছিলেন এক পীর বাবা, এবং তার অনুসারিরা প্রচারনা করলো, এটা হুজুরের কেরামতি,
মানতে আপত্তি নেই, হুজুরে সায়দাবাদি নামক লোকটা ডিমপড়া দিয়ে সন্তানহীন নারিকে গর্ভবতি করে ফেলছেন, হুজুর উটকে করতে পারবেন না কেনো?

যাই হোক ঘটনার শেষ ছিলো, বাংলাদেশের ধর্মপ্রান মানুষ সেই উটের দুধ কিনছে 400 টাকা লিটার দরে এবং পান করছে, উটের দুধ পান করা সুন্নত,কিন্তু হিন্দুমুল্লুক থেকে আসা কাফের উটের দুধ হারাম কিনা এ বি


অনুরোধ

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: সোম, ০৬/০২/২০০৬ - ৫:০০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাঙ্গালির প্রেমের আকুতি দমিয়ে রাখার কোনো যোগ্য প্রতিষোধক তৈরি হয় নি এখনও। প্রকাশের সুযোগ পেলে সবার আগে প্রেমাকুতি জানায়।

এই সাইট তৈরি হওয়ার পর থেকে আমি আশংকা নিয়ে অপেক্ষা করছিলাম এই প্রজাতির আগমনের। তারা বিজয় নিশান উড়িয়ে এসে পরেছে।
এখন সাইট ডেভলপারদের প্রতি সামান্য একটা অনুরোধ, এই সব প্রেমাবেগী জন গনের জন্য সাইটের প্রথম পাতায় "ব্যাক্তিগত আলাপন" ধরনের কিছু দেওয়া যায় কি না, যে খানে শুধুমাত্র বন্ধু হতে চাই, প্রেমিকা প্রেমিক চাই, এসব লেখকের আস্তানা হবে।
কিংবা আপনারা এই সাইটের প্যারালাল সাইট হিসেবে ম্যাচ মেকিং একটা অবস্থান তৈরি করতে পারেন, যেখানে রেজিষ্ট্রেশন ফি দিয়ে পছন্দের মানুষ খোজার বিজ্ঞাপন দেওয়া যাবে, তাহলে আমার মনে হয় ভালোই হতো।


সবাই মস্ত প্রেমিক

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: রবি, ০৫/০২/২০০৬ - ৩:০৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলাদেশে প্রেমিকের সংখ্যা কত?
কত জন ভালোবাসা দিবসে প্রেমিকার হাত ধরতে চায়?
কতজন বিগত 15 বছর ধরে প্রেমিকা পাওয়ার চেষ্টা করছে?
রাস্তায় , কলেজের গেটে, স্কুলের সামনে দাড়িয়ে, শিক্ষাঙ্গনে, বাসের লাইনে, আধুনিক শপিং মলে, ইয়াহু চ্যাট রুমে, ম্যাচ মেকিং সাইটগুলোতে কত বাঙ্গালি তরুন, যুবক কিশোরের হাহাকার আছে?
একটা মিসকল, রং নাম্বারে ইচ্ছাকৃত ফোন, হঠাৎ নায়কোচিত ভাবভঙ্গিতে ভিড় বাসে সিট ছেড়ে কানুইয়ের গুতা খাওয়ার ভদ্্রতায় কতজন ভেবেছেন, এই বুঝি একটা প্রেম হয়ে গেলো?

বিশেষ দিবসের সুবেশী যুবাদের দেখে একটাই কথা মনে হয়, এ দেশে মানুষ উপবাসে অনাহারে মারা যায় কম, মরে প্রেমের আকাংক্ষায়।

সবাই বন্ধু হতে চায়, হাত বাড়াতে চায়, বন্ধুত্বের বিজ্ঞাপনে ভরে