অপ বাক এর ব্লগ

সুমন্ত আসলাম

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: শুক্র, ০৩/০২/২০০৬ - ৭:৪৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

অনেক দিন পর সুমন্ত আসলামের লেখা পড়লাম। ভদ্্রলোক আগের মতোই আছেন। মধ্যবিত্ত স্বাপি্নকেরা তার লেখার ভক্ত এটা বুঝেছিলাম 2002 এর বই মেলায়। আমার হালকা বামপন্থি এক ছোটো ভাই বাউন্ডুলের ভেতরের পাতায় সুমন্তের হাতের ছাপ নিয়ে গর্বিত ভাবে বললো, সুমন্তের লেখার আমি ভীষন ভক্ত,
বাংলাদেশের তথাকথিত আধুনিক লেখকেরা কেজি দরে হতাশা বিক্রি করে বেশ দু পয়সা কামিয়ে নিচ্ছেন, বইমেলায় মাঠে বসে চুকচুক বাদাম খেতে খেতে জীবন ঘনিষ্ঠ লেখার মকশো করছেন। তাদের লেখায় থকথকে চর্বির মতো থলথলে করুনার অসভ্য নাড়াচড়া।
কে হায় হৃদয় খুড়ে বেদনা জাগাতে ভালোবাসে? কিন্তু বাঙ্গালি পয়সা খরচ করে দুঃখ কিনতে ভালোবাসে, তাই সার সার ব্যার্থ প্রেমের উপন্যাস আসে, বিরহের গান গেয়ে মনির এস ডি রুবেল আ


নির্বোধ পুরাণ

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: শুক্র, ০৩/০২/২০০৬ - ৩:২৬পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ইরাক অবৈধ্য ভাবে দখল করে আমেরিকা অন্যায় করেছে। ইরাক যুদ্ধের ঘোষনা দেওয়ায় বুশের যুদ্ধাপরাধী হিসেবে বিচার হওয়া দরকার।

এর স্বপক্ষে আন্দোলন করুন। বিশ্বের সকল মুসলমান এক হয়ে আন্তর্জাতিক কমিশনে বুশের বিচার দাবি করেন।
আইনানুগ আচরন করেন। অযথা এর প্রতিবাদে নিরিহ মানুষ খুন করছে কেনো ইসলামি জঙ্গিরা। সাধারন মানুষ সব সময় যুদ্ধবিরোধি, শান্তিকামি। তাদের হত্যা করার অধিকার কে দিলো জঙ্গিদের?

অযথা আবেগ পুজি করে শিয়ালের হুককাহুয়া ডাক ডেকে কি লাভ? যারা এই প্রচারনায় মানুষ হত্যাকে ন্যায়বিচার বলছে সবাই নির্বোধ।

জামায়াতে ইসলামির সকল সমর্থক, যারা আমার মৃত্যু কামনা করেন, যারা ইসলামের মহান অনুসারি এবং যারা আমাকে অভিযুক্ত করছেন, তারা এই পদক্ষেপ নেন।


অবস্থান

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: শুক্র, ০৩/০২/২০০৬ - ১:৩০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

কতৃপক্ষকে ধন্যবাদ, অবশেষে তারা সাইটকে প্রপ্তবয়স্ক মেনে নিলেন। এই সাইটে যারা লিখছে তাদের সবাই শিক্ষিত এবং তারা যেহেতু কম্পিউটারের ব্যাব হার জানে ধরে নিচ্ছি তারা লজিক মানে, এবং তাদের বিবেচনাবোধের উপর আস্থা রাখাটা ভুল সিদ্ধান্ত হতে পারে না।

তাদের সাইট ভিশনের উপর শ্রদ্ধা রেখেই বলছি, পরিমিতিবোধ এবং প্রকাশের ধরন এর উপর নির্ভর করবে বিষয়গুলো শোভন কিংবা অশোভন, সামপ্রদায়িকতা দোষে দুষ্ট নাকি সামপ্রদায়িকতা মুক্ত, বিভৎস নাকি সুশ্রি, এটা দেখার আর দেখবার বিষয়, কে কিভাবে দেখে,
কখনও ন গ্নতা শৈল্পিক শোভন হতে পারে যদি সেটা যোগ্য মানুষ উপস্থাপন করে আবার সমস্ত শরীর ঢেকে রেখেও কদর্যতা ফুটে উঠতে পারে যদি অযোগ্য লোক প্রকাশ করে।
সাইট ভিশন জানা হলো সবার,


আবুল বাশারের ভেতরে আসতে দাও

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: বিষ্যুদ, ০২/০২/২০০৬ - ২:২১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

"অনাত্মিয় জন্ম তুই মৃত্যু ফেরত দে"
সম্পুর্ন অচেনা ক্লান্তি এই জীবনযাপন। অর্থহীন স্বার্থকতার দৌড়, আর প্রত্যাশার চাপে মানুষ সংকুচিত, বেশ কিছু অপুর্নতা লুকিয়ে রাখে নিজের ভিতরে।
সব কিছু উজার করে দেওয়ার মতো কোনো আদর্শ নেই তাই নিজেকে বিলীন করার মাহত্ব নেই আধুনিক মানুষের। জীবনের গতি আর রুপরেখা স্পষ্ট বলেই কোনোরকম বিভ্রান্তিতে জড়িয়ে নিজেকে অপরিহার্য ভাববার বোকামিও করে না মানুষ- এটুকু নিস্পৃহ বিচ্ছিন্নতা মানুষে মানুষে থাকেই।
খুব বেশি আত্ম সচেতন মানুষের গল্পই এমন। কিছুটা গোপনিয়তা, স্পর্শাতিত অতীত আর স্পর্শহীন চলমান বর্তমান আছে- সেটুকুই মানুষ কিংবা আলাদা সত্তা মানুষের-
আমরা ক্রমাগত পরস্পরের দিকে ছুটে যাচ্ছি, পরস্পরে ঝুকে থাকছি,বিলীনতার গোপন আ


সুখবর বাজে খবর

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: বুধ, ০১/০২/২০০৬ - ৮:৫৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মায়ের একটা কথা মনে পড়ছে, কোনো একদিন হিল্লা বিয়ের ফতোয়া দেখে বলেছিলেন, হাদিস 3 রকম, সাহিহ হাদিস, ভুল হাদিস আর মুখারি হাদিস, বেশ কিছু ভালো খবর শুনলাম, মনটা উৎফুল্ল ছিলো বেশ, মানুষের শুভবোধ, মানুষের মমত্ব, প্রায় বিলুপ্ত এসব ঘটনা যখন ঘটে, এই আকালে এর চেয়ে বড় সংবাদ হয় না, শুভ সংবাদ দিয়ে শুরু করি।

আমার কয়েকজন নিজ উদ্যোগে বেশ কিছু পথের শিশুকে নিয়ে একটা প্রকল্প দাড়া করেছে, যেখানে এই শিশুগুলোর মৌলিক অধিকারগুলো পুরন করা হবে। তাদের মাথার উপরে একটা ছাদ থাকবে, তাদের পরিধেয় বস্ত্র থাকবে, তাদের চিকিৎসার ব্যায়, শিক্ষার খরচ সম্মিলিত ভাবে আমরা সবাই দিবো। সংশয়ি মন আমার, শুনলাম ভালো লাগলো, কিন্তু পরে মনে হলো, মাত্র 4 থেকে 5 জন, সর্বোচ্চ 10জনকে আমরা সামলা


এলোমেলো

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: বুধ, ০১/০২/২০০৬ - ৬:৩৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

হে যাকারিয়া , আমি তোমাকে একটি পুত্রের সুসংবাদ দিচ্ছি, তার নাম হবে ইয়াহইয়া, (সুরা মারিয়ম- আয়াত- 7)
যখন বান্দার জন্ম হয় তখন জানা ছিলো না তার 2000 বছর পরে আরও এক বান্দার জন্ম হবে, পবিত্রভুমিতে, তার নাম তাকে সম্মানিত করবে, এবং নামের রহমতে সে কৌশলে হবে সেনাবাহিনীর প্রধান, মাঝে কেটে গেছে 2000 বছর, এই নামের উৎপত্তি হয়েছে ইশ্বরপ্রদত্ত নামের মহিমা আছে, ইতিহাস সাক্ষী, ইশ্বর যাকে ইচ্ছা সম্পদ দান করেন, যাকে ইচ্ছা সম্মানিত করেন, নিশ্চয়ই জ্ঞানীদের জন্য নিদর্শন আছে, কিন্তু মানবজাতি তোমরা বড়ই ব্যাগ্রতা দেখাও, সমাপ্তিতে নিয়ে যাবো.। মাঝে কিছু কাল কাটিয়ে যাবে আনন্দে , তবে অহেতুক হতয়া করো না, দুর্বলের উপর অত্যাচার করো না, ন্যায়পরায়ন শাসক হবে, প্রজাপালন করবে


ডেনমার্কের প্রকাশিত কার্টুন

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: মঙ্গল, ৩১/০১/২০০৬ - ৩:২৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ডেনমার্কের পেপারে প্রকাশিত কার্টুন নিয়ে একটা বিশাল কেচাল শুরু হয়েছে,
আমি অনেকক্ষন ধরে খুজছি কাটূন গুলো, না দেখে বলা যাচ্ছে না আপত্তিকর কিছু আছে কি না, মধ্যপ্রাচ্যের মানুষজনের বিবেচনার উপর আমার আস্থা তলানির পর্যায়ে,

আমার প্রশ্ন হলো মোহাম্মদকে নিয়ে কার্টুন করা যাবে না কেনো। আমি বাকি সব ধার্মের লোকদের নিয়ে কার্টুন দেখছি, আদম হাওয়া, মুসা, ইসা, শয়তান, ইশ্বর সবাই যদি কার্টুনিস্টদের লক্ষ্য হতে পারে , যদি মুসলিম সন্ত্রাসী আর আরবের শেখেরা বিষয়বস্তু হতে পারে , তবে মোহাম্মদের জন্যে ব্যাতিক্রম হবে কেনো?

আমি জানি না কেনো তবে আমি ছোটো থেকে শুনছি আলী ওমর আবুবকর সবার প্রতিকৃতি থাকলেও মোহাম্মদের ছবি আকানো পাপের পর্যায়ে পরে,

আমি নিশ্চিত


নিলয় দাশ

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: মঙ্গল, ৩১/০১/২০০৬ - ৮:৫৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

লিখব ভেবেছিলাম আগেই। নিলয় দাশ মারা গেছে 11ই জানুয়ারি। বেচারা তেমন খবরের শিরোনাম ছিলো না। আমার শোনা একটা এলবাম এর বাইরে হয়তো আরও কিছু গান থাকতে পারে। কত যে খুজেছি তোমায় আমার খুব পছন্দের গান নয় তবে অনেকের পছন্দ।


ব্যাক্তিগত লজ্জা

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: সোম, ৩০/০১/২০০৬ - ১১:২২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

কোনরকম রাখঢাক না করে বলা যায় আমার দাদারা কট্টর মুসলিম লীগার। তারা 71এ শান্তিবাহিনীর সদস্য ছিলো। তাদের মধ্যে রাজনীতিতে সক্রিয় মানুষটা পরে আহলে হাদিস আন্দোলনের সদস্য । এবং আশ্চর্য এই প্রায় 28বছরতারা তাদের অবস্থান অক্ষুন্ন রেখেছে। তাদের বিশ্বাস জাহানারা ইমামের চরিত্রের গোলমাল আছে। এবং মুজিব স্বায়ত্বশাসন চায় নি পাকিস্তানের ধ্বংস চেয়েছিলো।
তাদের সবচেয়ে ছোট জনের সাথে আমার একদিন সারাদিন তর্ক হয়েছে। অবশেষে তিনি স্বীকার করলেন কিছুটা ভুল আল বদর আল শামসেরা করেছিলো।এটা উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া লজ্জা ।


আমার বন্ধু শ্যাম

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: শনি, ২৮/০১/২০০৬ - ৮:৪৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

শ্যাম, আমার স্কুলজীবনের বন্ধু।একই পাড়ায় থাকা,একই মাঠে খেলা। পরে আমি অন্য স্কুলে চলে গেলাম, আর সে স্কুল , পাড়া ছেড়ে গেল গ্রামে। কাঞ্চন গ্রাম, তার নানা বাড়ি। বছরখানেক পরে দেখা, স্কুলের বেতন দিতে পারবে না তাই তার শিক্ষাজীবনের সমাপ্তি, শোলা দিয়ে বিভিন্ন খেলনা তৈরী করছে। আমি হাতের কাজে পটু না তাই চেষ্টা করেও খেলনা তৈরীর বিদ্যা শিখতে পারি নি। পাখি তৈরীটা আমার লোভের জিনিষ ছিলো। ওটার সাথে একটা ধনুকের মতো কঞ্চি থাকতো, চাপ দিলে পাখি মাথা নাড়াতো। তখন বিশাল বন্যা। 88 , স্কুল বন্ধ। শ্যামে র সাথে দেখা, যাচ্ছে গ্রামে। বললাম আমিও যাবো। চল, বলে রওনা হলো। রেল লাইন ধরে হাটা। হাটতে হাটতে রেল ব্রীজ, শিমুল তলা, শ্মশানের হাট, আমার দুরত্বের সব সীমা শেষ। যতবার বলি