পুরাণ গল্প ১ : শিবু, বিষ্ণু, ভস্ম

খেকশিয়াল এর ছবি
লিখেছেন খেকশিয়াল (তারিখ: শনি, ১৩/০৬/২০০৯ - ২:৫২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বিষ্ণু ফুঁসতাছিল, "ব্যাটা তোরে যে পাগল ছাগল কয় তুই হালায় আসলেই পাগল ছাগল, হালায়..."
"আরে বাল! আমি বুঝসি না বাল.. হালায়... এতো চেতোস ক্যা? ভ্যাটকাইয়া কয় শিবু। একগাদা ছাইয়ের সামনে দাঁড়ায়া খেউড়াইছিল দুইটায়। জায়গাটার কথা আর কি কমু! ধুঁয়া আর ছাইয়ে একাকার। করছে কি শুনেন..

কোন হালায় এক ভস্মাসুর বলে তপস্যা লাগাইছে শিবুর নাম কইরা। হালায় কেমন বাউড়া! ঠ্যাং একটা গাছের ডালে বাইন্ধা উল্টা হইয়া ঝুলসে.. এও শেষ না.. বাউড়ায়.. মাথার নিচে আবার আগুনও জ্বালান মারাইসে! ওই তাপে এমনই তপস্যা করছে শিবুর নামে যে আকাশ বাতাসই নাকি কাইপা উঠসে। ইন্দ্র ওইদিন ওর বউরে লইয়া আইছিল নাচ দেখতে। হে হে এমনেই হালায় যে লুইচ্চা ওর বউ তো এমনেই তক্কে তক্কে থাকে, কবে হাতেনাতে ধরবো। ঝাক্কানির চোটে নাকি রম্ভাটা নাচতে আছিল.. ইন্দ্র লুইচ্চায় এক্কেরে উইড়া আইসা রম্ভার রানে কামুড়! শচী তো স্যান্ডেল দিয়া বাইড়ায়, হে হে.. । আসলে হালার রম্ভার নাচ দেইখা ব্যারা উইঠা গেছিল, মুখ হা কইরা গিলতাছিল, তাই ওম্নেই পড়ছে। যাউকজ্ঞা, সেইডা আরেক হিস্ট্রি। যে কইতাছিলাম, এই হালায় ভস্মের তপস্যায় পৃথিবী ত্রাহি ত্রাহি কইরা নাকি কি একটা সিচুয়েশন.. তখন শিবু আছিল কাছে ধারেই, কোন শশ্মানে নাকি উপতা হইয়া চুঙ্গা টানতাছিল। ভস্মের ডাকে নাকি ধরমর কইরা উঠসে, লগে নাকি তিন চারটা আরাপোড়া মড়াও ডরে উইঠা গেসে, 'অ্যা! অ্যা! আমি কই?! তোমরা কারা! টাইপ কথা কইতাছে.. শিবু উইঠাই গেল হালার কাছে, বর টর দিয়া ঠান্ডা করবো।তো গেছে .. ভস্মে তখনো উল্টা হইয়া ঝুলতাছিল। শিবুর মেজাজ এমনেই খারাপ, কয়,
"ওই.. নমুনা! ওই ভুদাই! হালায়.. নাম! ... এহ! কি সীন! এমনেই হালায় কালা পাহাড়, পুইড়া মুখটারে করসে কি! হালায় বুকাচুদা! "
তো ভস্ম তো নামল, হালার খুশিতে আর হাসি ধরে না। ভ্যাটকাইতাছিল খালি লজ্জা পাইয়া।

"এহ! আবার লজ্জা পায়! লজ্জাসুর!.." সুর কইরা কইল শিবু, "তোর নাম কি? .. ওই!"

"হেহে হেহে ভস্মাসুর, বাবা।"

"শুন, আমার কাম আছে.. ক কি চাস... ওইসব অমরত্ব ঘোড়ার ডিম বাদে..."

"উউ.. নিজেগো লেইগা তো লইয়া রাখসেন.." গুংগায় ভস্মে।

"ওই ব্যাডা ওই! ফাউল! বেশী বুঝস? কি চাস ক নাইলে গেলাম গা!"

ভস্মে দেখে শিবুতো রাইগা যায়, তাড়াতাড়ি আইয়া কয়, "তাইলে তাইলে আমারে বিধ্বংসী টাইপ কোন বর দেন.. লাইক ..মনে করেন.. আমার একটা সুপার পাওয়ার টাইপ.."

"কি চাস ক তো.. হালার.. স্পয়েল্ড জেনারেশন.." দাঁত খিচে শিবু।

"হ হ ! পাইসি আমার নাম তো ভস্মাসুর, আমারে পাওয়ার দেন যাতে হাত দিয়া যাই ধরি তাই যেন ভস্ম হইয়া যায়!'

"এহ কি একটা বর! যা যা.. তথাস্তু তথাস্তু!"

সাথে সাথে ভস্মাসুরের কি জানি হয়, সে কারেন্ট শট খাইলে যেমনে লাফায়, ওম্নে তিনটা লাফ দিল, তিনলাফে তিনবারে কইল,
'ওরে ...!
বাবা ...!!
রে ...!!!'
পাওয়ার আইতাছিল আর কি.. কিন্তু ভস্মের তো গ্যাজলা ম্যাজলা বাইরাইয়া গেছে, শিবু দেখে হায় হায় এইটা আবার কি সীন! বর দিয়া নি বাটে পড়লাম! মরল নি!

কিন্তু হালায় মরে নাই, উইঠা বইল, কাশল। বাচ্চা পোলাপান যেমনে রাগ হইলে ঠোট ফুলাইয়া আহে, ওম্নে আইয়া শিবুরে কয়, "খেলুম না.. আপ্নে এইটা কি দিলেন ভুগিচুগি মাইরা.."
শিবু ততক্ষণে ওরে উঠতে দেইখা খুশি, কয়, "আরে ব্যাটা আমার মুখের কথা কখনো ভুল যায় নাকিরে। ওইটা তুই তপস্যাতেই কাহিল হইয়া গেছিলি তাই এই অবস্থা। "
কিন্তু ভস্মে তো ঠোঁট উল্টায়া তেইড়া আইল, কয় "তাইলে একবার দেখি আপ্নেরে টাচ কইরা!"
শিবুতে তো দেখে হ্যাঞ-অ্যা! কাম তো সাড়া! হালায় কয় কি!
..দিসে দৌড়! ভস্মেও তো পিছে পিছে দৌড়! হিমালয়ের মুনিগো যজ্ঞ মজ্ঞ পারাইয়া.. বরফ টরফ গলাইয়া, দুই একটা হিমবাহ ছুটাইয়া দিয়া দিল এলা উপরের দিকে দৌড়। প্রথমেই তো স্যাটেলাইট গুলি তছনছ করল, দৌড়ের চোটে চানের মাথার বাটি আউলাইয়া ফালাইল, হালার এম্নেই তখন যক্ষা চলতাছিল। দৌড়াইয়া আইল 'বিষ্ণু! বিষ্ণু!' কইয়া চিল্লাইতে চিল্লাইতে। বিষ্ণু ত লক্ষ্মীর লগে লুডু খেলতাছিল। এইটা আরেক জিনিস, যেন আর কারো বউ নাই, কেউ আর বিয়া করে নাই ...সারাদিন বউয়ের লগে। যাউকজ্ঞা, বিষ্ণু তো শুইনাই বুঝল, "সাম্থিম রম!"
দৌড়াইয়া বাইরে আইসা দেখে শিবু, হাপাইতাছে! আর দূর থিকা খালি দেখা যায় ধুমা ছুটাইয়া কে জানি আইতাছে!
শিবু কয়, "ভাইরে! এমনেই টানছিরে ভাই! তার উপরে এই পাগলাচোদায় দৌড়াইয়া আমার হালুয়া ছুটায়া দিল রে...."
বিষ্ণু জিগাইল, "হইছে কি কবি তো! পিছে অইটা কি আহে? কার লগে গেঞ্জাম করলি? নিউক্লিয়ার মিসাইল ফিসাইল নি?"
তখন শিবু কয়, "আরে না বাআআল.. শোন...."
তো তখন শিবু কইল, বিষ্ণু শুনল। ঠান্ডা মাইরা তাকায়া রইল শিবুর দিকে, যাইতে যাইতে কইল, "হালায় গাঞ্জুট্টি!"

ভস্মে তখন দৌড়াইয়া আইতাছিল, বিষ্ণু দূর থিকা হাত দেখাইয়া কইল, "ওই পাগলা ওই! ব্রেক দে.. জায়গায় ব্রেক দে.. ! হইছে কি ক!"
ভস্মের তখনো রাগ যায় নাই, অভিমানী কন্ঠে সব কইয়া কইল,
"...এখন আমি একটু টাচ করতে গেসি তো পলাইল, কন হাসা নি মিসা কেমনে বুঝুম?"
বিষ্ণু কয়, "হায়রে কি ভুদাইরে... তোগো অসুরগুলিরে যে পয়দা করছিলাম কি কামে.. ক্যান! শিবুর মাথায় ক্যা? নিজের মাথায় দিতে পারো না?"
ভস্মে কয়, "হেইডাও ঠিক.. তয় যদি হাসা হয়.. ডরও তো আছে!"
বিষ্ণু মুখ মুচাড়ায়া কয়, "আচ্ছা তোরা ক তো তোরা শিবুর কাছে ক্যান বর চাস? হালায় গাঞ্জা খাইয়া পইড়া থাকে, না আছে বউয়ের খবর না পোলাপাইনের খবর। একটা তো শুড় বাগাইয়া পেট দুলাইয়া মর্ত্যে ব্যবসা খুইলা বইসে! আর ভাই কার্তিক তার খবর লইতে গিয়া সিনেমায় নাম লেখাইসে.. পার্বতী মাঝে মাঝে পূজায় গেলে দুইটারে কানে ধইরা নিয়া আহে , কাছে পাইলেই শিবুরে গাইলায়.. ওরে তোরা মানছ কোন কামে ক ত!"
"আরে ..হুঞ্ছি হে আশুতোষ.. অল্পেই নাকি ফিট খায়.." ম্যানম্যান করে ভস্ম।
"হ হ! গাঞ্জা খাইয়া কি কইছে না কইছে আর তুই নাচতাছছ.." গজগজ করে বিষ্ণু।
ভস্ম তখন একটু নিরাশ হয়, কয় "কইতাছেন তাইলে?... হালায় বাটপার! আমি জানতাম বর দেয় নাই.. সব মিছামিছি.." গজগজ কইরাই হালায় নিজের মাথায় হাত আর লগে লগেই এক্কেরে জজজ্যাৎ! কইরা পুইড়া খাঁক হইয়া একগাদা ছাই হইয়া ঘুপ কইরা নিচে পড়ল! আর যে ছাই আর ধুমা ছুটাইল.. হেইডা তো আগেই কইলাম। হালার গন্ধে ... সব পক্ষীরাজ ভিরমি খাইয়া টুশটুশ কইরা ঘুইরা পড়ল, ঐরাবত আদরে আদরে বাগানের কলাগাছ খাইতাছিল, ছাই নাকে গিয়া হ্যাচ্চু দিতে দিতে নন্দনকানন ভরাইল! আমি সব দেখতাছিলাম প্রথম থিকা। বিষ্ণু হালায় গিদর, নাভিতে গন্ধ বানাইয়া রাখছে! ধুইতে কইয়া একটু সাইডে আছিলাম শুইয়া। বাম সাইডের মাথাটা হেভী পেইন দিতাছিল, ঘুমাইতে পারতাছিলাম না, দেখলাম সব বইয়া বইয়া।
..ত এই হইল কাহিনী।


মন্তব্য

তানবীরা এর ছবি

দারুন, কি রে লেখো এতো মজা করে? সুপার।

---------------------------------------------------------
রাত্রে যদি সূর্যশোকে ঝরে অশ্রুধারা
সূর্য নাহি ফেরে শুধু ব্যর্থ হয় তারা

*******************************************
পদে পদে ভুলভ্রান্তি অথচ জীবন তারচেয়ে বড় ঢের ঢের বড়

খেকশিয়াল এর ছবি

ধইনাপাতা হাসি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

খেকশিয়াল এর ছবি

দেঁতো হাসি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

সাইফ এর ছবি

চ্রম হইছে, গান্জার লগে ভাং ককটেল বানায় খাইছিলা নাকি মামা? হাসতে হাসতে আমার বেরাছেরা অবস্থা
গড়াগড়ি দিয়া হাসি

খেকশিয়াল এর ছবি

হো হো হো

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

অবনীল এর ছবি

হো হো হো আরিব্বাপরে, চ্রম মামা চ্রম।
___________________________________
স্বপ্ন নয়, - শান্তি নয়, - কোন এক বোধ কাজ করে মাথার ভিতরে!

___________________________________
অন্তর্জালিক ঠিকানা

খেকশিয়াল এর ছবি

থেঙ্কু মামা হো হো হো

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

খেকু তো ফাটায়ালাইলো
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

আকতার আহমেদ এর ছবি

ওর্রে.. জট্টিল হৈসে খেকুদা। ফাডায়ালাইসেন্তো...

রণদীপম বসু এর ছবি

ওরে খাইছে রে ! শিয়াল-পাপিষ্ঠের এইডা পইড়া তো মহাপাপী হইয়া গেলাম ! স্বর্গটাই হাতছাড়া ! এখন উপায় !

হা হা হা ! যা লিখছেন রে ভাই ! এক্কেবারে কম্মসাড়া !

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

রেনেট এর ছবি

ওরে খেকুদা রে!!! ফাডায়ালাইসেন!! হো হো হো
---------------------------------------------------------------------------
No one can save me
The damage is done

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

হা হা হা। বিরাট মজাক পাইলাম হো হো হো

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

হো হো হো

...........................

সংশোধনহীন স্বপ্ন দেখার স্বপ্ন দেখি একদিন

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

নিবিড় এর ছবি

দারুন লাগল


মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড় ।

আহমেদুর রশীদ এর ছবি

নিরলে বসিয়া তুমি করিলা অর্জন......

---------------------------------------------------------

ঘাস তুমি ঘাসের মতো থাকো মাটি ছুঁয়ে
যে দেখার সে নতজানু হয়ে ছুঁবে তোমার আঙুল
অবরুদ্ধ মাঠ থেকে তুমি লাফিয়ে নেমোনা প্লিজ পাথরের পথে

---------------------------------------------------------

ঘাস তুমি ঘাসের মতো থাকো মাটি ছুঁয়ে
যে দেখার সে নতজানু হয়ে ছুঁবে তোমার আঙুল
অবরুদ্ধ মাঠ থেকে তুমি লাফিয়ে নেমোনা প্লিজ পাথরের পথে
________________________________________
http://ahmedurrashid.

খেকশিয়াল এর ছবি

দেবদেবী মোরে ফের না করে বর্জন..

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

খেকশিয়াল এর ছবি

হগলরে ধন্যবাদ, এইডা আমি আসলে কিঞ্চিত বেহুশে লিখছিলাম, এখন পইড়া নিজেই হাসতাসি হো হো হো

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

মাহবুব লীলেন এর ছবি

হইছে

খেকশিয়াল এর ছবি

হ্যাঞ-অ্যা!
ধইনাপাতা

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

তুলিরেখা এর ছবি

চমৎকার!!!!
হাসতে হাসতে পড়ে গেলাম।
আসল গল্পে অবশ্য বিস্তর ঝঞ্ঝাট-ভ্যাজাল ছিল, বিষ্ণু মহিলা সেজে নেচেছিলেন। হাসি
-----------------------------------------------
কোন দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

খেকশিয়াল এর ছবি

মহিলা সাইজা নাচানাচিটা ঠিক খেয়াল আইতাসে না, একটু কন তো..

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

তুলিরেখা এর ছবি

আরে বিষ্ণু শিবেরে কইল,"ব্যাটা, কি ভ্যাজাল বান্ধাইলি দ্যাখ ব্যাক্কল! বর দিসিলি ক্যান ঐ অসুইরারে, কোন্‌ হোতাপে ? এতখানি বড় হইলি তর কোনো আক্কল বাক্কল হইলো না? "
শিব এক্কেরে ত্যাবোধা, কয়,"এহন কেমনে কি করি, কি দিয়া কি সামলাই। এই ব্যাদ্দপ ভস্মাসুর দিবো তো সব হান্ডুলপান্ডুল কইরা! ভাই বিষ্ণু, তুই তো আগে আগে এইরম সব সিচুয়েশনে বাঁচাইয়া দিসত, এইবারে ও কিসু কর। আমি কিরা কাটতাসি, আর এরুম বর ফর দিমু না।"

বিষ্ণু তখন শিবেরে গাছ সাজাইয়া, নিজে সুন্দরী মহিলা সাইজা স্বল্পবাসে গাছতলায় রিনিকি ঝিনিকি লাস্যনৃত্য নাচতে লাগলো। ভস্মাসুর বেচারা তপস্যাটপস্যা করছে, ফ্লার্টিং এর কিসু জানে না, পার্টি এনিমেলেরা ও তারে কিসু শিখায় নাই, পাইলে তো শিখাইব!

সে আইসা এইসব দেইখা কাইত। বেচারার কাচা হৃদয়টা একেবারে কাদাকাদা। তারপরে যা হয় আরকি!

(মনে কইরা দেখেন, এই গল্প পাইবেন)

-----------------------------------------------
কোন দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

খেকশিয়াল এর ছবি

হাহাহাহা দারুণ, এইটা হয়ত পাই নাই, ছোটকালে একটা কমিক্সে পড়ছিলাম এইটা ওইখানে এতো ডিটেইলস দেয় নাই। এতো জটিল পার্টটা বাদ দিল! অনেক ধন্যবাদ উপদেবী!

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

কল্যাণF এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি হাততালি হাততালি হাততালি

অতিথি লেখক এর ছবি

পুরাই- পাঙ্খা... হো হো হো গড়াগড়ি দিয়া হাসি

কড়িকাঠুরে

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।