তথ্যের স্বাধীনতা ও কতিপয় চাটুকার !

থার্ড আই এর ছবি
লিখেছেন থার্ড আই (তারিখ: মঙ্গল, ০১/০৬/২০১০ - ১:৪০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলাদেশে ফেসবুক বন্ধ ! তবে কেউ কেউ বিভিন্ন ভাবে প্রক্সি সার্ভার কিংবা মোবাইলে ঢুকে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন, এই সামাজিক মাধ্যমটি যে মানুষের জীবনে কতটুকু প্রভাব বিস্তার করেছে তা এই মুহুর্তে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীরাই উপলব্দী করতে পারছেন। সামাজিক যোগাযোগের এই মাধ্যমটি সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষনা নিয়ে দুইটি পক্ষ কাজ করছে, একটি পক্ষ এই তথ্য প্রবাহের দ্রুত ও অত্যান্ত কার্যকর মাধ্যমটিকে অপব্যবহার করছে অন্য একটি পক্ষ রক্ষা কবজ হিসাবে সেই অপব্যবহারকারীকে ঠেকাতে সাধারণ ব্যবহারকারীদের অধীকার কেড়ে নিয়েছে।

আপাতদৃষ্টে দুইটি অভিযোগ সরকারের সংশ্লিষ্ট মহল নিশ্চিত করছে যা গত দুইদিন বিভিন্ন গনমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।
প্রথমটি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, দ্বিতীয়টি প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী দলীয় নেতার আপত্তিকর ছবি ও ব্যঙ্গাত্নক মন্তব্য প্রকাশ।

ধর্মীয় অনুভূতিটি আসলে আপেক্ষিক তাই এই অনুভুতির বিশ্লেষণ নাই, আর আমরা মনে করি না ফেস বুক বন্ধের পিছনে ধর্মীয় অনুভূতি অন্যতম কারণ !

দ্বিতীয় কারনটি একটু ব্যখ্যা করি, আসলে কোন প্রক্রিয়ার কার্টুন আকলে ছবি ব্যঙ্গাত্নক হয় আর সম্মান হানি হয় ? আর একজন শিল্পী বা কার্টুনিস্টের কতটুকু স্বাধীনতা রয়েছে ?

এই প্রশ্নর উত্তর গুগল দিয়েছে ২৬ নভেম্বর ২০০৯ সনে । গার্ডিয়ানের এই সংবাদটা পড়লে আগ্রহী পাঠকের ধারণা পরিস্কার হবে।
Michelle Obama
আপনি যদি ইংরেজীতে Michelle Obama লিখে সার্চ দেন দেখবেন বানরের মুখের মিশেল ওবামার ছবি পাবেন এক নম্বরে। গুগল তার সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম ছবিটি দিয়ে রেখেছে Michelle Obama বানরাকৃতির ছবি। এখানে পাঠক কি বলবেন তথ্যের অবাধ স্বাধীনতার জয় ? তাই যদি না হতো গুগল সাইট বন্ধ করে দিলোনা কেন যুক্তরাষ্ট্র সরকার ? একই ভাবে জর্জ বুশ ও বারাক হোসেন ওবামার ছবিগুলো ও পাঠক লক্ষ্য করুন।
জর্জ বুশজর্জ বুশ

ওবামার কার্টুনে ওবামাকে ট্রাডিশনাল ইসলামিক পোষাকে দেখা যাচ্ছে, আর মিশেল ওবামাকে দেখা যাচ্ছে আর্মি পোষাকে সজ্জিত হয়ে একে ৪৭ কাঁধে নিয়ে ওবামার সাথে বিশেষ ভঙ্গিমায়, পাশের দেয়ালে ওসামা বিন লাদেন। লাদেনের ছবির নীচে পুড়ছে যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা।

বারাক ওবামা ও মিশেল ওবামাবারাক ওবামা ও মিশেল ওবামা

প্রায় ৯ লাখ ফেসবুক ব্যবহারকারীর বাংলাদেশে হাতেগুনা কয়েকটা একাউন্ট ও লিংক বন্ধ করতে আর এই গুলো মনিটরিংএর জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট মহল আসলে কতটুকু দায়িত্ব পালন করছে এই বিষয়গুলোই এখন সবচেয়ে বেশী নজরে আনা প্রয়োজন। ফেসবুক বন্ধ করার পর সরকার প্রমান করলো তাঁর আইটি বিশেষজ্ঞরা বিশেষ ভাবে ই অজ্ঞ ! এই অজ্ঞ লোকগুলোকে এখন সরকার যত দ্রুত সম্ভব বিদায় করে শুভ বুদ্ধির পরিচয় দেবেন এই প্রত্যাশা আমাদের ।

আরেকটি বিষয় নিশ্চই অন্তর্জালের পাঠকদের নজরে এসেছে, বেশ কিছু দিন ধরে ফেস বুক ও ইউ টিউবে কিছু আইডি খুব এ্যক্টিভ হয়েছে, যারা সরকারের বিরুদ্ধে কুতৎসা রটাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। এসকল আইডি থেকে যেখানেই 'কোবা কুবি' হচ্ছে সেই সব রক্তাক্ত ছবি ফেসবুকে দিয়ে দিচ্ছে, সেই সাথে আওয়ামী সরকারের চৌদ্দ গুষ্ঠি উদ্ধার করে মন্তব্য ও করছে। পলিটেকনিক্যালের শিক্ষাথীকে রাম দা দিয়ে কুপিয়ে জখম করার ভিডিও দৃশ্য আমরা দেখেছি ফেসবুকে ! আওয়ামী সমর্থকের কবজি কর্তনের ছবি ও এসেছে ফেসবুকে। যদিও পত্র পত্রিকায় ও এগুলো আসছে, তবে ফেসবুকে আসছে সম্পাদনা ছাড়াই।সামগ্রীক পরিস্থিতি পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে এগুলো কোন রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ই কাজ। যারা সরকারের ব্যর্থ দিকগুলোকে সাধারণ মানুষের নজরে আনতে চাইছে।

এখন একটা বিষয় হচ্ছে আমাদের দেশের গনমাধ্যম কিছু বিষয় সুকৌশলে এড়িয়ে যাচ্ছে, অথবা এড়িয়ে যেতে বাধ্য হচ্ছে যা ফেসবুক কিংবা ব্লগে প্রকাশিত হয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে প্রতিপক্ষ সরকারের দূর্বলতার সুযোগ নিয়ে এসকল কর্মকান্ডের ছবি ছড়িয়ে দিয়ে সর্বশেষ আশ্রয় খুঁজছে। এই পরিস্থিতি কেন তৈরী হচ্ছে সেগুলো কিন্তু সরকারকে ভাবতে হবে ? এই কাজের পেছনে রাজনৈতিক কোন উদ্দেশ্য থাকলেও সেগুলোও সনাক্ত করতে হবে।

ফেসবুক নামক এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি শুধুমাত্র বন্ধু কিংবা সহকর্মীর সাথে যোগাযোগের মাধ্যম হিসাবেই বিবেচিত হচ্ছেনা, রীতি মত এই সাইটের ডেভেলাপাররা এখানে সময় দিয়ে সংসার চালাচ্ছেন। তাই স্থূলো বুদ্ধির চাটুকারদের পরামর্শ অনুযায়ী ফেসবুক বন্ধ করে কিংবা দু'চারজন লোককে রিমান্ডে নিলেই কিন্তু কারবার খতম হবেনা। এজন্য যেমন নিয়মিত মনিটরিংএর ব্যবস্থার কথা ভাবতে হবে, তেমনি তথ্যের স্বাধীনতার বিষয়টিও আমলে রেখে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। স্বাধীনতা


মন্তব্য

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- আচ্ছা, একটা জিনিস আমার মাথায় ঘুরছে। ইমেইলে তো ফরোয়ার্ডেড মেসেজ হিসেবে (চেইন মেইল) অনেক হাবিজাবি মেইলই আসে, কিছু কিছু আবার ফটুক সমৃদ্ধও থাকে। তো যে যে কারণে ফেসবুক ব্যান করা হলো দেশে, সেই একই কারণে কি মেইল সার্ভার গুলোও ব্যান করে দেয়া উচিত হবে না? আগে থেকেই সাবধান হওয়া গেলো তাইলে।
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

থার্ড আই এর ছবি

চেইন মেইলেও যদি এমন আপত্তিকর কিছু পাঠানো হয় তাহলেও তার ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ রয়েছে। তবে যারা এই ব্যবস্থাগুলো নেবেন তাদেরকে তো এই বিষয়ে প্রশিক্ষীত হতে হবে। সরকরের নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা এই বিষয়ে কতটুকু সজাগ সেটিই প্রশ্ন।
-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

সামগ্রীক পরিস্থিতি পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে এগুলো কোন রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ই কাজ। যারা সরকারের ব্যর্থ দিকগুলোকে সাধারণ মানুষের নজরে আনতে চাইছে।

অন্যদিকে প্রতিপক্ষ সরকারের দূর্বলতার সুযোগ নিয়ে এসকল কর্মকান্ডের ছবি ছড়িয়ে দিয়ে সর্বশেষ আশ্রয় খুঁজছে। এই পরিস্থিতি কেন তৈরী হচ্ছে সেগুলো কিন্তু সরকারকে ভাবতে হবে ? এই কাজের পেছনে রাজনৈতিক কোন উদ্দেশ্য থাকলেও সেগুলোও সনাক্ত করতে হবে।

রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের এরকম কাজ কারবার কি অস্বাভাবিক বা অসুস্থ? আমার মনে হয় না। তারচেয়ে বড় কথা এখনকার বিরোধীদল যদি সরকারে থাকতো আর সরকারিদল বিরোধীদলে থাকতো তাহলেও হয়তো একই ঘটনা ঘটতো।

গতবার কানাডার নির্বাচনের আগে প্রচারিত একটা বিজ্ঞাপনের কথা মনে পড়ছে। এরকম বিজ্ঞাপন আমাদের দেশেও কল্পনা করা যায় না। অনেকটা এরকম, বিরোধীদল বলছে সরকার গত টার্মে আমাদের দিয়েছে করের বোঝা, এই, সেই। তাই আসছে নির্বাচনের দিনে আমরা সরকারকে দেব: এর পর দেখায় একটা বুট জুতার ছবি অনেকটা পদদলিত করার মতো করে দেখানো।

রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা তো এমনটা করবেই। সরকার তাই বলে ধর্মের দোহাই দিয়ে এটাসেটা বন্ধ করে দেবে এমনটা মেনে নেয়া যায়না। আমি এখনো মোটামুটি ধারণা করি যে রাজনৈতিক কারণেই সরকার এটা করেছে, ধর্মীয় কোন কারণে নয়।

থার্ড আই এর ছবি

অস্বাভাবিক বা অসুস্থ?

আমি কিন্তু আমার বক্তব্যে এধরনের কর্মকান্ডকে অস্বাভাবিক বা অসুস্থ্য বলিনি। বলেছি সর্বশেষ আশ্রয় খুঁজছে মানুষ। সরকার ও বিচার ব্যবস্থার উপর আস্থা হারিয়েই কিন্তু তারা এই ছবি ফেসবুক কিংবা অন্য সকল সামাজিক নেটওয়ার্কে ছড়িয়ে দিচ্ছে। আওয়ামী পন্থীরা ছড়াচ্ছে বিএনপি ও জামায়াতের নাশকতা ছবি আর বিএনপি জামায়াত ছড়াচ্ছে আওয়ামীলীগের নাশকতার ছবি। যারা এই সব করছে তারা ঐ আক্রান্ত ব্যক্তিটির জন্য যতটানা কাতর তারচেয়ে বেশী ব্যস্ত প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলটিকে ঘায়েল করতে। প্রত্যেকটি ছবির ক্যাপশন লক্ষ্য করলে দেখবেন ' আওয়ামী তান্ডব' শিবিরের পাশবিকতা' এই টাইপের কথা বার্তা লেখা থাকে। কিন্তু রাজনৈতিক পরিচয়ের বাইরে গিয়ে সন্ত্রাসীটির পাশবিকতা ও বর্বরতার বর্ননা দেয়া হচ্ছে না বলেই ধারণা করছি, সেই আইডি গুলো রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ছড়ানোর উদ্দেশ্য নিয়েই অন্তজার্লে সক্রিয়।

কিন্তু গনমাধ্যমে এসকল ছবি ছাপা হলেও সরকার তেমন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা। প্রতি নিয়ত এধরনের ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। সরকারের প্রশ্রয়ে যদি এগুলো ঘটে থাকে তাহলে সরকারকেই এই অবস্থা থেকে উত্তরণের পথ খুঁজতে হবে।

সরকার এই ব্যবস্থা রাজনৈতিক কারনেই করেছে আপনার সাথে এই পয়েন্টে আমি সম্পূর্ণ এক মত।

-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

অতিথি লেখক এর ছবি

ফেসবুক বন্ধ করে একটা ভাল দিক হয়েছে, সেটা হলো অনলাইন প্রাইভেসি, বিটিআরসির প্রজ্ঞা, আমজনতার সাথে অনলাইন সম্পর্ক -- এই সব কিছু সম্পর্কে একটা ধারনা হয়ে গেল।
--শফকত মোর্শেদ

থার্ড আই এর ছবি

সব দেশই প্রযু্ক্তির উৎকর্ষতার সাথে নিজেদের উৎকর্ষতার দিকে নজর দেয়, আমরাই খালি ব্যতিক্রম।
-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

প্রতিবাদি এর ছবি

মুহাম্মদের ছবি'র ব‍্যঙ্গের চাইতেও সরকারি আমলাদের কাছে গুরুত্ব পেল হাসিনার ছবির ব‍্যঙ্গ করা। তারমানে শেষনবীর পরও যে নবীর আবির্ভাব সে এই মহিলা নবী হাসিনা(সাঃ)!

অতিথি লেখক এর ছবি

আমদের সরকারসমুহ সব সময়ই মাথামোটাদের নিয়েই চলে... ওটা নিয়েই থাকতে হবে আমাদের! যেরকম আমরা লোড শেডিং নিয়ে জীবন নির্বাহ ক্লরে যাচ্ছি!
আর তথ্যপ্রকাশে কালহাত ঢোকানো তো পুরনো অভ্যাস!

---থাবা বাবা!

থার্ড আই এর ছবি

তথ্যপ্রকাশে কালহাত ঢোকানো তো পুরনো অভ্যাস!

আপনার উক্তির আরেক জলন্ত নিদর্শন 'দৈনিক আমার দেশের' টুটি চেপে ধরা।
---------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

অতিথি লেখক এর ছবি

আপনার লেখাটা সুন্দর হয়েছে, তবে একটু দলীয় দোষে মনে হয় দুষ্ট হয়ে গেলো। সরকারের ব্যর্থতা তুলে ধরাই বিরোধী দলের কাজ, সরকার যখন নিজের ব্যর্থতা গুলো গণমাধ্যমে সঠিক ভাবে আনতে দেয় না, তখনই মানুষ বা বিরোধী দলের কর্মীরা বিকল্প পন্থা অবলম্বন করে। ফেসবুক বিরোধী দলের প্রচার মাধ্যম হলে দোষ কি? ফেসবুকের মাধ্যমে সরকারে কুকর্ম প্রকাশ হয়ে যাচ্ছে বলে কি ফেসবুক ব্যান?? প্রশ্ন কিন্তু থেকেই যায়। এখন থেকে কী গণমাধ্যমের মত ফেসবুকেও সেন্সর হবে, তাইলে তো আর আসল কিছুই দেখা যাবে না। সরকার নিয়ন্ত্রণ করলে প্রেমালাপ ছাড়া আর কোন তথ্য ফেসবুক থেকে আর পাওয়া যাবে না। সব খারাপেরও একটা ভালো দিক থাকে। লিংক গুলো যদি না আসে তাহলে জানবো কি করে কারা ধর্মীয় মুল্যবোধে আঘাত করছে, কারা নেতা নেত্রীদের নিয়ে ব্যঙ্গাত্বক ভাবে উপস্থাপন করছে? স্বাধীনতা অর্জন করা সহজ কিন্তু রক্ষা করা কঠিন। ঠিক তেমনি গণতন্ত্র গণতন্ত্র বলে গলা ফাটানো যায় কিন্তু মানুষকে গণতান্ত্রিক অধিকার দিতে গেলে কষ্ট লাগে।

ধন্যবাদ।

কামরুজ্জামান স্বাধীন

থার্ড আই এর ছবি

কামরুজ্জামান স্বাধীন

আপনার লেখাটা সুন্দর হয়েছে, তবে একটু দলীয় দোষে মনে হয় দুষ্ট হয়ে গেলো।

আমার ধারণা ছিলো প্রকৃতি প্রেমিকের প্রতিমন্তব্যে লেখার সাথে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতার বিষয় পরিস্কার হবে। তবু আবারও বলছিঃ

যে সকল আওয়ামী কর্মী, জামায়াত ও বিএনপির নাশকতার দৃষ্টান্ত তুলে ধরছেন তারা কিন্তু তাদের প্রতিপক্ষের কেউ হামলার স্বীকার হলে বা আক্রান্ত হলে দুঃখ প্রকাশ করছেন না। একই ভাবে বিএনপি ও জামায়াত জোট তাদের নিজেদের ক্যডারদের তান্ডব আড়াল করে প্রতিপক্ষের উপর চড়াও হচ্ছেন, এই প্রবণতাটি খারাপ। আমার অবস্থানটি হলো সন্ত্রাসী কর্মকান্ড কিংবা নাশকতা যে বা যারা ঘটাচ্ছে সেই ব্যক্তিটিকে আইনের মুখোমুখি করা এবং যিনি আক্রান্ত হয়েছেন তাকে আওয়ামী কিংবা বিএনপি কর্মী হিসাবে বিবেচনা না করে রাষ্ট্রের একজন নাগরিক হিসাবে বিবেচনা করে তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

এই দৃষ্টিভঙ্গি যদি আমরা নিয়ে আসতে না পারি তাহলে উভয় পক্ষের ত্রাসের কারনে আমরা আমাদের দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানিয়ে ফেলবো ।

আর তথ্যের অবাধ প্রবাহের কথা বলছেন..?
আমি মূল লেখায় পরিস্কার করেছি অনেক তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশ হচ্ছে না বা করা যাচ্ছে অথবা করতে দেয়া হচ্ছে না, সেগুলো ফেসবুকে আসছে। সরকারের মনোভাবের পরিবর্তন করার ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে এখানে। অর্থাৎ সরকার যদি গণমাধ্যমের উপর নজরদারী করতেই থাকে তাহলে ব্লগ কিংবা ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো আরো বেশী শক্তিশালী ভুমিকা রাখবে । এখানে তখ্ন গণমাধ্যমের অবস্থান নিয়ে সাধারণের মনো প্রশ্ন জাগতেই পারে , তারা কি রাষ্ট্রের হয়ে কাজ করবে নাকি জনগনের হয়ে কথা বলবে ।

আশা করি আপনার জিজ্ঞাসার জবাব পেয়েছেন।

---------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

অতিথি লেখক এর ছবি

সুন্দর শব্দশৈলী এবং উপস্থাপনা।

থার্ড আই এর ছবি

অল্প কথায় বেশ ভালো অনুপ্রেরণা যোগালেন। ধন্যবাদ।
-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

নজরুল ইসলাম এর ছবি

চলুক
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

থার্ড আই এর ছবি

ধন্যবাদের সহিত বুড়া আঙ্গুল দেখিলাম।
-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

-------------------------------
স্বপ্নকে ছুঁতে চাই সৃষ্টির উল্লাসে

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA