ব্লগ

শেকড়ের সন্ধানে: আপনাদের জন্য ধারাবাহিক নাটক

হীরক লস্কর এর ছবি
লিখেছেন হীরক লস্কর (তারিখ: বুধ, ১৮/০১/২০০৬ - ৮:৪৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


সিকোয়েন্স ঃ 1
সময় ঃ সকাল
চরিত্র ঃ শহীদ, রিয়া
স্থান ঃ বাংলাদেশ অফিস

ব্যাক টু ক্যামেরা রিভলভিং চেয়ারে বসে আছে শহীদ।
টেবিলের ওপর দু হাত দিয়ে তাল দিচ্ছে সে।

ডাড ডাড ডারা ডারা ডা ডারা ডারা ডা ডারা ডারা ডা
ডাড ডাড ডারা রারা রাররররররররর ডা।
(থিম মিউজিক। এরপর এটা বিভিন্ন দৃশ্যে বাজবে।)

দরজায় নকের শব্দ শোনা যায়।
শহীদ অফ যা ভয়েস)ঃ কাম ইন।

ক্লোজআপে একটু করে দরজার ফাঁক দিয়ে মাথা বাড়ায় রিয়া।
রিয়া অবাক।
রিয়ার ভিউ পয়েন


ধারনা

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: বুধ, ১৮/০১/২০০৬ - ৩:৩৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ছোট বাচ্চাদের ভিতরে সামপ্রদায়িকতা ঢুকছে। দায় শিশুদের না। ওরা বড়দের অনুকরন করে। কয়েকটা জানা গল্প নতুন করে শোনাই। আমার মামাতো ভাই বয়েস হয়তো 6, আমার সাথে সম্পর্ক মোটামুটি। খেলছে নিজের মতো । আমাকে গম্ভীর মুখে বললো জানো লাল পিপড়া না হিন্দু। বললাম তাই নাকি কিভাবে বুঝলা। বললো ওরা হিন্দু বলেই কামড়ায় কালো পিপড়া মুসলমান লালপিপড়া হিন্দু। বললাম লাল পিপড়াতো হিন্দুদেরও কামড়ায় ধর্ম বিচার করে কামড়ায় এমনতো শুনি নি। উত্তর এ্যাহ তুমি বেশী জানো?

আমি ছোট বেলায় এ জিনিষ শুনেছি । অন্য একটা বিষয় শুনেছি রবীন্দ্রনাথ নজরূলের বিবাদ। রবীন্দ্রনাথ ষড়যন্ত্র করে বিষ দিয়ে নজরুলকে বোবা বানিয়েছে আর নোবেল চুড়ি করে নিয়েছে। এই গল্প বিশ্বাসযোগ্য নয় কিন্তু আমার ধারনা ছিলো


নিবার্চন কমিশনার নিয়োগ ও হাসানের অভিনন্দন

হীরক লস্কর এর ছবি
লিখেছেন হীরক লস্কর (তারিখ: বুধ, ১৮/০১/২০০৬ - ১০:১৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


লন্ডন, স্ট্র্যাটফোর্ড থেকে হাসান নতুন দু'জন নির্বাচন কমিশনারকে শুষ্ক অভিনন্দন জানিয়ে প্রশ্ন করেছেন এই নিয়োগের কি কোনো দরকার ছিল। তার এই প্রশ্নের জবাব বুঝতে তার যাতে সুবিধা হয় সেজন্য প্রথমআলোর এই ছবিটা তুলে দিলাম।
আদালতের রায় নিয়ে নতুন ও পুরনো কমিশনাররা কি রকম আকাশ-পাতাল মন্তব্য করছেন তা এই গ্রাফিকস -এ তুলে ধরা হয়েছে। হাসানের প্রশ্নের অন্তত: একটা জবাব এখানে পাওয়া যায়।
নতুন ভোটার তালিকা বন্ধের জন্য হাইকোর্টের রায়কে বিতর্কিত করে তোলার একটা উপ


আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে

হীরক লস্কর এর ছবি
লিখেছেন হীরক লস্কর (তারিখ: বুধ, ১৮/০১/২০০৬ - ৯:৪৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


বাংলা ব্লগের এই সাইট জমে উঠেছে। সেজন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে সাধুবাদ।
জমে যে উঠেছে তার প্রমাণ ব্লগারদের মধ্যে বাদ-বিসম্বাদ, কলহ-বিবাদ লক্ষ্য করলেই বুঝা যায়। মইনের উপর খাপপা ব্লগাররা একচোট নিলেন তাকে। সুতরাং মডারেটরকে ঝুলি থেকে বের করতে হলো ফিলটারিং-এর অস্ত্র।
আড্ডাবাজ নিজেই রাজাকার, জামায়াত ইত্যাদি নিয়ে ওয়ালির সাথে এক কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়েছেন। কিন্তু বেশ পেশাদারিত্বের সাথে তারা যুক্তিতর্ক চালিয়ে যাচ্ছেন তা দেখার।
আরেক দফা চোট গেলো ছাতা-মা


রবার্ট ব্রাডনকের সাক্ষাৎকার

শোহেইল মতাহির চৌধুরী এর ছবি
লিখেছেন শোহেইল মতাহির চৌধুরী (তারিখ: বুধ, ১৮/০১/২০০৬ - ৯:৩৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


ড. রবার্ট ব্রাডনক। দীর্ঘদিন লন্ডন ইউনিভার্সিটির স্কুল অব অরিয়েন্টাল ও আফ্রিকান স্টাডিজ (সোয়াস) ও কিংস কলেজে অধ্যাপনার পর এখন স্বেচ্ছা অবসরে আছেন। তবে সিনিয়র রিসার্চ ফেলো হিসেবে এখনও যুক্ত রয়েছেন কিংস কলেজের সাথে। ড. ব্রাডনক দক্ষিণ এশিয়া বিশেষত: ভারত, পাকিসত্দান ও বাংলাদেশ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ। এই অঞ্চলের স্বার্থ ও নীতি সংশিস্নষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে রয়েছে তার বেশ কয়েকটি বই এবং বিশ্বের নামকরা গবেষণা জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে অর্ধশতাধিক গবেষণা-পত্র। সমপ্রতি তিনি বা


রবার্ট ব্রাডনকের সাক্ষাৎকার

শোহেইল মতাহির চৌধুরী এর ছবি
লিখেছেন শোহেইল মতাহির চৌধুরী (তারিখ: বুধ, ১৮/০১/২০০৬ - ৯:৩৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


ড. রবার্ট ব্রাডনক। দীর্ঘদিন লন্ডন ইউনিভার্সিটির স্কুল অব অরিয়েন্টাল ও আফ্রিকান স্টাডিজ (সোয়াস) ও কিংস কলেজে অধ্যাপনার পর এখন স্বেচ্ছা অবসরে আছেন। তবে সিনিয়র রিসার্চ ফেলো হিসেবে এখনও যুক্ত রয়েছেন কিংস কলেজের সাথে। ড. ব্রাডনক দক্ষিণ এশিয়া বিশেষত: ভারত, পাকিসত্দান ও বাংলাদেশ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ। এই অঞ্চলের স্বার্থ ও নীতি সংশিস্নষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে রয়েছে তার বেশ কয়েকটি বই এবং বিশ্বের নামকরা গবেষণা জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে অর্ধশতাধিক গবেষণা-পত্র। সমপ্রতি তিনি বা


কবিতা সমালোচক তেলাপোকা ও একজন কবি

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: বুধ, ১৮/০১/২০০৬ - ৩:৫৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

লুনা রুশদীর কবিতা ছাতা- ছাতাপড়া কবিতা বিষয়ে বেশ আলোড়ন। তেলাপোকাবিদ্্বেষিনী এই কবি তেলাপোকার বংশ হবে ধ্বংস শিরোনামে তেলাপোকা মারার ষুধের বিজ্ঞাপন করে ফেলবেন অচিরেই।
রবিঠাকুর কবিদের অশেষ স্বাধীনতা দিয়েছেন। কবিমানসে যা প্রকাশিত তাই সত্য কবিগুরুর এমন বানীর পর কেউ কবিতার সমালোচনা করার মতো নির্বোধ হলো কিভাবে???
ছাতা নিয়ে রাস্তা দিয়ে হেটে যাই সামনে দেখি পিচ্চি এক ফকিরনী বাচ্চা কোলে ভিজতেছে। তার ছাতা কিনার পয়সা নাই এই দেখে কবিতা লিখি ফেলাই। এই হলো সম্পূর্ন কবিতা।
কোথায় যেনো পড়েছিলাম অনুবাদের পর যে ভাবটা অবশিষ্ট থাকে তাই কবিতা। অবশ্য কবিতা অনুবাদের জন্যে কথাটা প্রযোজ্য। লুনা রুশদী রেগে এই কবিতা মাওরি ভাষায় অনুবাদের চেষ্টা করতে পারেন। আমি ইংর


ব্যার্থ শৈশব

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: মঙ্গল, ১৭/০১/২০০৬ - ৩:৫৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমি যখন শিশুশিক্ষায় স্বরে অ স্বরে আ হ্রস্ব ই দীর্ঘ ঈ শুরু করেছি তখন আমাদের বাসার আশেপাশে বিদু্যৎ ছিলো না। পড়তে হতো তেলের বাতিতে। সন্ধ্যা হলে নিয়ম ছিলো সাঁঝ বাতি জ্বালানোর। একটা লম্প জ্বেলে মা কোনার ঘর মাঝের ঘর বড় ঘর শেষে আবার রান্না ঘরে। নিয়মটা এমন কেন আমি জানি না। তবে প্রতিটা ঘরে একবার সন্ধ্যার পর সাঁঝ দিতে হবে, আয়না ঢেকে রাখতে হবে, খোলা চুলে উঠানে নামা যাবে না। রীতিমতো রোমহর্ষক পরিবেশ। ভুতের ভয় যদি আমার না থাকে থাকবে কার?

আমি কোনার ঘরে যাব দুপুর বেলা,একা, অসম্ভব। সেখানে মাঝেমাঝে সাদা শাড়ী পড়া এক রমনী বসে থাকে। অনেকে দেখেছে। আর রাতে ও ঘরে যাওয়া ওটা আমার সাধ্যের বাইরে।
উঠানে জোড়া আম গাছ, প্রতিবার মুকুল আসে গুটি ধরে না। কারন জ্বীনের


বাংলা ছবির গান

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: সোম, ১৬/০১/২০০৬ - ৫:২০অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলা নতুন ছবিগুলোর গান শোনা হয় না তেমন। শওকত আলি ইমন ,টুটুল সুর করছে জানলে মনে হয় ভালো কিছুশুনবো। অবশেষে হিন্দি গানের সুর। বাদল খন্দকারের বিদ্রোহী পদ্মার সংগীত পরিচালকের নাম জানি না তাই বেনামেই তাকে ধন্যবাদ । অন্তত তিনটা গান-আমি তিনটাই শুনছি- হিন্দি গানের নকল না তবে বাংলা গানের নকল হতে পারে। আর সামিয়া জামানের রানি কুঠির ইতিহাস-- গান হিন্দি গানের নকল তবে আমি যে গানটা দেখেছি ওটা যেন বাংলাদেশের কোন জায়গা হয়। এমন সুন্দর জায়গা । যারা বাংলাদেশের নেতিবাচক খবর পড়ে পড়ে বিষন্ন তারা একবার সে গান দেখলে আবার দেশকে ভালোবাসবেন।

কেউ যদি জানেন লোকেশনটা বাংলাদেশের কোথায় তাহলে তার ঢাকা থেকে ওখানে যাওয়া আসা আর 2 রাত থাকা ফ্রি। অবশ্য আমাদের সাথে যাওয়ার জ


দৈনিক নিরপেক্ষতা

অপ বাক এর ছবি
লিখেছেন অপ বাক (তারিখ: সোম, ১৬/০১/২০০৬ - ২:৫৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

দেশে প্রতিদিন অন্তত 500 দৈনিক প্রকাশিত হয়। 500 প্রকাশক সম্পাদক প্রতিদিন ভোরে গত দিনের আশা হতাশা মনুষ্যত্ব পাশবিকতা সব তুলে ধরছেন। তাদের অবদান তারা নিজেরা যে বিষয়টাকে সবাইকে জানানোর প্রয়োজন ভাবেন সেটা দৈনিকে প্রকাশ করেন। রহিম করিমের বাসায় ছিচকে চুরির সংবাদমূল্য নেই। লোকজন পয়সা খরচ করে এই খবর পড়বে না। কিন্তু প্রতিমন্ত্রীর বাসায় চুরি হয়ে যাওয়া খবর। আমি তুমি সে ছিনতাইকারীর কবলে পড়লে খবর হয় না কিন্তু সাংবাদিকের ছিনতাই হওয়া খবর।

এসব খবর কোন বিতর্ক তৈরি করে না। বিতর্ক তৈরি করা খবরগুলো কেন বিতর্কিত হয় এটা বলার আগে এইটুক বলি সংবাদ পত্র একটা আদর্শ নিয়ে প্রকাশিত হয়। সংবাদ প্রদানের সাথে সাথে তা আদর্শ প্রচার করে। তারা নির্দিষ্ট চেতনার এক শ্রেনীর ক