ব্রিজ খেলতে চান? - দ্বিতীয় পর্ব

ইয়াসির আরাফাত এর ছবি
লিখেছেন ইয়াসির আরাফাত [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ০৫/১১/২০১৪ - ৪:০০অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

(এই পর্বে থাকছে স্লাম বিডিং, প্রথম পর্ব এখানে)

স্লাম বিডিং

আপনার এবং পার্টনারের হাতে মেলা পয়েন্ট জমে গেছে, আসল কিংবা সাইড অফ ধরে। খেলা শেষে দেখা যাবে আপনারা বারো বা তেরো ট্রিক পেয়ে গেছেন। অর্থাৎ স্লাম হবার সমস্ত উপকরণই আপনাদের হাতে ছিলো। এটা খেলা শুরুর আগেই বুঝবেন কিভাবে?

গত পর্বে বলেছি, ৩২-৩৪ পয়েন্টে লিটল স্লাম আর ৩৭-৪০ পয়েন্টে গ্র্যান্ড স্লাম হয়ে থাকে। তাস সাজানো থাকলে বা দুর্লভ কোন মিরাকলে ১০ পয়েন্টের নীচেও হতে পারে। মাসুদ রানার ৮ পয়েন্টের সেই কেসটা নীচে আলোচনা করার ইচ্ছে আছে। অন্যদিকে কার্তিক চন্দ্র মল্লিক তাঁর ‘তাসের রাজা ব্রীজ’ বইতে দেখিয়েছিলেন, দুই হাত মিলিয়ে ২১ পয়েন্ট নিয়ে আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে একটি দল গ্র্যান্ড স্লাম ডেকেছিলেন, এবং পেয়েওছিলেন।

এই যে নিশ্চিত হয়ে স্লাম ডাকা, এটি সম্ভব হয়েছিলো প্রতিষ্ঠিত কিছু নিয়মকানুন অনুসরণ করার ফলে। একে একে সেগুলো আলোচনা করি।

ব্ল্যাকউড কনভেনশনঃ

হাতে পর্যাপ্ত পরিমাণ আসল পয়েন্ট থাকলে এই রীতি অনুসরণ করা যেতে পারে। নিয়মটা খুব সোজা। ধরুন আপনার পার্টনার বিড শুরু করেছেন দুই ক্লাবস ডাক দিয়ে। এর অর্থ তার হাতে ১৯-২১ পয়েন্ট রয়েছে। এদিকে আপনার হাতে ১৩ পয়েন্ট। স্লাম হবার অতি উজ্জ্বল সম্ভাবনা। আপনার হাতে স্পেড শক্তিশালী। স্লামের ইঙ্গিত দিতে জাম্প বিড দিন। দুই স্পেডস ডাকলেই যেখানে আপনার চলত সেখানে তিন স্পেডস ডাকুন। পার্টনার বুঝে গেলেন যে আপনার হাতও খুব শক্তিশালী এবং স্পেডস দিয়ে ভর্তি। কিন্তু ভদ্রলোকের হাতে স্পেডস দুই কার্ড, অন্যদিকে শক্তিশালী ডায়মন্ডসের স্যুট আছে। তিনি ডাকলেন চার ডায়মন্ডস। আপনার হাতে ডায়মন্ডস দুর্বল, অন্য স্যুটগুলোও লম্বা নয়। আপনি আবার ডাকলেন চার স্পেডস। ব্যস, আপনার পার্টনার বুঝে যাবেন হয় আপনাদেরকে স্পেডসে খেলতে হবে নয়তো নো ট্রাম্পে। স্পেডস হোক বা নো ট্রাম্প, টেক্কা সাহেবগুলো হাতে না থাকলে ট্রিক বেহাত হয়ে যাবার সম্ভাবনা ব্যাপক। তাই সেগুলোর অস্তিত্ব জেনে নেয়া জরুরী।

ব্ল্যাকউড কনভেনশন অনুযায়ী, প্রারম্ভিক বিডগুলোর মধ্যে স্লাম এর ইঙ্গিত থাকলে কেউ একজন যদি চার নো ট্রাম্প ডাকেন, তবে তা আস্কিং বিড হিসেবে গণ্য হবে। অর্থাৎ, বিডার জানতে চাইছেন, তার পার্টনারের হাতে কয়টি টেক্কা।

উত্তরটা খুব লজিকাল। পার্টনার
পাঁচ ক্লাবস ডাকলে – কোন টেক্কা নেই বা চার টেক্কা (দ্বিতীয়টা বেশ দূর্লভ)
পাঁচ ডায়মন্ডস ডাকলে – এক টেক্কা
পাঁচ হার্টস ডাকলে – দুই টেক্কা
পাঁচ স্পেডস ডাকলে – তিন টেক্কা।

দ্বিতীয় ধাপে, ওপেনার ফিরতি ডাক দেবেন পাঁচ নো ট্রাম্প। এর অর্থ, বিডার জানতে চাইছেন, তার পার্টনারের হাতে কয়টি সাহেব। উত্তর একইরকম

ছয় ক্লাবস – কোন সাহেব নেই বা চার সাহেব
ছয় ডায়মন্ডস – এক সাহেব
ছয় হার্টস – দুই সাহেব
ছয় স্পেডস – তিন সাহেব ।

আমাদের হাইপোথেটিক্যাল ডাকে ফেরত আসি। চার স্পেডস পর্যন্ত ডাকা হয়েছিলো। ওপেনার এখন টেক্কা জেনে নিতে ডাকবে, চার নো ট্রাম্প।
উত্তর এলো, পাঁচ ডায়মন্ডস, অর্থাৎ, এক টেক্কা।

ওপেনার ডাকলেন পাঁচ নো ট্রাম্প।
উত্তর এলো, ছয় হার্টস। অর্থাৎ, দুই সাহেব।

ওপেনারের নিজের হাতে দুটি টেক্কা আর দুটি সাহেব রয়েছে (মনে রাখবেন তার হাতে ১৯-২১ পয়েন্ট ছিলো)। অর্থাৎ, দুই হাত মিলিয়ে তিন টেক্কা আর চার সাহেব রয়েছে। এই মেজর কার্ডগুলোর মোট পয়েন্ট ২৪। পার্টনার স্লামের ইঙ্গিত দেয়াতে দলের সম্মিলিত পয়েন্ট দাঁড়াচ্ছে ৩২-৩৪। ফলে বাকি ৬-৮ পয়েন্ট মানে অবধারিতভাবে তিনবিবি অথবা দুই বিবি দুই গোলাম কিংবা এক বিবি চার গোলাম।

এইরকম সুবিধাপূর্ণ অবস্থায় ১২ ট্রিক জেতা কোন ঘটনাই নয়। কাজেই পার্টনার বিনা দ্বিধায় চূড়ান্ত ডাক দেবেন ছয় নো ট্রাম্প। কোন স্যুটে দুর্বল কার্ড থাকলে সেই ক্ষতি পুষিয়ে দেবে সাপোর্টারের হাতের শক্তিশালী স্পেডস স্যুট।

সুতরাং স্লামের ইঙ্গিত দেয়ার পর ওপেনার বা পার্টনার চার এবং পাঁচ নো ট্রাম্প ডেকে টেক্কা সাহেব জেনে নেওয়াটাই হচ্ছে ব্ল্যাকউড কনভেনশন। ছয় এবং সাত নো ট্রাম্প ডাক এই কনভেনশনের অন্তর্ভুক্ত নয়। কেউ যদি চার নো ট্রাম্প বাদ দিয়ে পাঁচ নো ট্রাম্প ডাকে তাহলে এটি স্লাম বিড হিসাবে গণ্য হবে না। কিন্তু অনেক সময় চার নো ট্রাম্প ডেকে টেক্কা জেনে নিয়ে বিডার সরাসরি ছয় বা সাত এর ঘরে বিড দিতে পারেন (কারণ অভিজ্ঞতা দিয়ে তিনি বাকিটা বুঝে নিয়েছেন)। চার এর পর ছয় বা সাত এর ডাক আসলে অন্য পার্টনারের উচিৎ হবে চুপ থাকা, কারণ সিদ্ধান্ত চলে এসেছে।

ছবি ১ - ব্ল্যাকউড কনভেনশনের হাত

ছবি ২ - ব্ল্যাকউড কনভেনশন বিড

গার্বার কনভেনশনঃ

চার নো ট্রাম্প থেকে ব্ল্যাকউড কনভেনশন শুরু হয় বলে এর একটা মারাত্মক অসুবিধা আছে। মানুষ মাত্রেই ভুল করে, মাইনর স্যুটে গেমের ইঙ্গিতকে অনেক সময় স্লামের ইঙ্গিত বলে ভুল করতে পারেন আপনার পার্টনার। কিংবা ‘আর একটা ট্রিক কি পাবো না’ বলে নিজেদের ভাগ্য যাচাই করতে লেগে যেতে পারেন। পাঁচ নো ট্রাম্পের জবাবে পার্টনার সাহেবের সংখ্যা জানাতে বাধ্য, কিন্তু সেই ডাকটা দিতে হয় ছয়ের ঘরে।

ধরুন আপনাদের হাতে ৩৩ পয়েন্ট আছে। লিটল স্লাম মোটামুটি নিশ্চিত, ঠিক? কিন্তু প্রতিপক্ষের হাতের ৭ পয়েন্ট ঘাতক হয়ে উঠতে পারে, বিশেষ করে সেটি যদি একই স্যুটের টেক্কা সাহেব হয়। আরও মর্মান্তিক হবে, যদি সে দুটো একই হাতে পড়ে এবং খেলা শুরুর দুই দানেই দুই ট্রিক আপনাদের হাতছাড়া হয়ে যায়। আপনাদের কোন এক হাতে ট্রাম্পের সুযোগ থাকলে বেঁচে যাবেন, কিন্তু নো ট্রাম্পের খেলায় সেই সম্ভাবনাও নেই।

পাঁচ নো ট্রাম্পের জবাবে এমন এক ডাক এলো যাতে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে আপনাদের দুই হাত মিলিয়ে একটা টেক্কা আর একটা সাহেব কম পড়বে। এই অবস্থায় আন্ডারট্রিক হতে পারে এই সম্ভাবনা নিয়েই খেলা চালিয়ে যেতে হবে। আগে যদি জানতেন দুই হাতে তিন টেক্কা আর তিন সাহেব আছে তাহলে হয়তো আপনি পাঁচেই ডাক থামিয়ে দিতে পারতেন। ব্ল্যাকউড এই ক্ষেত্রে আপনাকে সাহায্য করতে অক্ষম।

যত মুশকিল তত আসান, হাজির হয়ে গেলো গার্বার কনভেনশন। এই নিয়মে, স্লাম বিডিং শুরু করতে হবে চার ক্লাবস থেকে, চার নো ট্রাম্প থেকে নয়। আপনি আপনার পার্টনারের সাথে আগেই বোঝাপড়া করে নেবেন, খেলার মাঝে আপনারা কি ব্যবহার করবেন, ব্ল্যাকউড নাকি গার্বার।

চার ক্লাবস ডাকের জবাবঃ

চার ডায়মন্ডস - কোন টেক্কা নেই বা চার টেক্কা (দ্বিতীয়টা বেশ দূর্লভ)
চার হার্টস – এক টেক্কা
চার স্পেডস – দুই টেক্কা
চার নো ট্রাম্প – তিন টেক্কা

এর পরে পাঁচ ক্লাবস ডাকের জবাবঃ
পাঁচ ডায়মন্ডস - কোন সাহেব নেই বা চার সাহেব
পাঁচ হার্টস – এক সাহেব
পাঁচ স্পেডস – দুই সাহেব
পাঁচ নো ট্রাম্প – তিন সাহেব

এক্ষেত্রে বিডারদের হাতে পাঁচের ঘরে থেমে যাবার সুযোগ থাকে। ‘তাসের রাজা ব্রীজ’ বইতে কার্তিক চন্দ্র মল্লিক এটিকে স্বআবিষ্কৃত ‘মল্লিক’স কনভেনশন’ বলে দাবী করেছিলেন। মূলতঃ এটির প্রচলন করেন সুইজারল্যান্ড নিবাসী ডঃ উইলিয়াম কনিগসবার্গার এবং উইন নাইয়ে, ১৯৩৬ সালে। জন গার্বার নামে এক ভদ্রলোক কনভেনশনটি নর্থ আমেরিকায় নিয়ে যান। দুই মহাদেশের মধ্যে দুস্তর ব্যবধানের সুযোগে গার্বার কনভেনশন নামেই এটির পরিচিতি ছড়িয়ে পড়ে। যদিও ভারতবর্ষে এটিকে মল্লিকমশাই আমদানী করেননি, তথাপি বই লেখার সুবাদে কৃতিত্বের কিছু ভাগ তিনি পেতেই পারেন। গার্বার সাহেব নামযশ পেলে, তিনি নন কেন?

অবশ্য মল্লিক মশাইয়ের নিজস্ব সংযোজন ছিলো। তার মতে, ছয় ক্লাবস ডাকটি বিবির সংখ্যা জানার জন্য ব্যবহৃত হতে পারে। বিশেষ করে গ্র্যান্ড স্লাম ডেকে দেবার ক্ষেত্রে বিবির সংখ্যার গুরুত্ব অস্বীকার করা যায় না। লিটল স্লামে বিবিদেরকে পাত্তা দেবার কিছু নেই।

কিউ বিডঃ

ব্ল্যাকউড বা গার্বার কনভেনশনে টেক্কা সাহেবের সংখ্যা জানা যায়, কিন্তু তারা কোন স্যুটের সেটা জানা যায় না। এটাও একটা মারাত্মক অসুবিধা। হয়তো পার্টনারের হাতের ক্লাবসের সাহেব আপনার দরকার নেই যেহেতু আপনার হাতে এক কার্ড, অথচ আপনার হাতে হার্টসের টেক্কার পর সাহেব নেই। পার্টনারের হাতে হার্টসের সাহেব থাকলে আপনাদের লিটল স্লাম নিশ্চিত, কিন্তু ক্লাবস থাকলে নয়। এই অবস্থায় বিকল্প উপায় না থাকলে পুরোপুরি আন্দাজে বিড দিতে হবে। আপনি সাবধানী খেলোয়াড় হলে পাঁচে থেমে যাবেন, আগ্রাসী খেলোয়াড় হলে ঝুঁকি নিয়ে লিটল স্লাম ডেকে দেবেন।

ভাগ্যকে নিয়ম দিয়ে প্রতিস্থাপন করা কি সম্ভব? অবশ্যই, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে। না হলে আজকের পৃথিবী এতদুর আসত না।

একটা সহজ কেস দেখি।

ছবি ৩ - কিউবিডের হাত

দুই হাত মিলিয়ে ৪০ পয়েন্ট আছে (৩০ আসল, ১০ ভার্চুয়াল)।

সাউথ ওপেন করলেন এক স্পেডস দিয়ে। নর্থ দেখলেন তার হাঁতে ১৩ পয়েন্ট। সাথে আবার চার কার্ড স্পেডস। খুব শক্তিশালী সাপোর্ট। পার্টনারকে নিজের শক্তি জানানোর জন্য বললেন, তিন স্পেডস (জাম্প বিড)। সাউথ খুব খুশি, কারণ ট্রাম্প কার্ড বেশি আবার হার্টস নেই। নর্থের হাতে ডায়মন্ডসের টেক্কা থাকলে আর স্পেডসের সাহেব থাকলে ছয়, এমনকি সাত স্পেডসেরও খেলা হয়ে যেতে পারে। সাথে ক্লাবসের সাহেব থাকলে তো সোনায় সোহাগা।

গার্বার অনুযায়ী সাউথ চার ক্লাবস বিড করলে নর্থের জবাব হবে চার হার্টস, অর্থাৎ এক টেক্কা। পাঁচ ক্লাবসের জবাব হবে পাঁচ স্পেড, অর্থাৎ দুই সাহেব। এইবার সাউথ কি করবেন? গভীর চিন্তায় পড়ে গেলেন।
নর্থের হাতের টেক্কাটা কি ডায়মন্ডসের? সাহেব দুটো কি স্পেড আর ক্লাবসের? তাহলে তো সাত স্পেড কেউ ঠেকাতে পারবে না (তাইই আছে, কিন্তু বোঝার উপায় কি?)। কিন্তু যদি হার্টসের টেক্কা সাহেব আর ক্লাবসের সাহেব থাকে? তাহলে ডায়মন্ডসে এক ট্রিক আর স্পেডসে এক ট্রিক হারাতে হবে। দ্বিতীয়টা হওয়া সম্ভব, তবে নর্থ স্পেডসে শক্ত সমর্থন দিয়েছেন, হয়তো তার কাছে স্পেডসের সাহেব আছে। কিন্তু আরেক সাহেব কোনটা? ক্লাবস? নাকি হার্টস? ক্লাবসের সাহেব না থাকলে ওখানেও ট্রিক হারাতে হতে পারে। দুই ট্রিকের গ্যাঁড়া থেকেই যাচ্ছে।

কি করি কি করি ভাবতে ভাবতে ছয় স্পেডস ডেকে দিলেন। এবং পার্টনারের হাত দেখে মতিকান্নায় ভেঙ্গে পড়তে ইচ্ছে হলো তার। গ্র্যান্ড স্লাম হয়ে তো যেত! হায়!!!

এই কান্না থেকে আপনাকে নিষ্কৃতি দিতে পারে কিউ বিড।

কিউ বিডের মূল কথা হলো, স্যুট ধরে ধরে টেক্কা সাহেব জানিয়ে বিড করতে হবে। দুই পার্টনারের সেই বিডের মর্মার্থ জানা থাকতে হবে। কিন্তু তারও আগে, ট্রাম্প স্যুট ঠিক হয়ে থাকতে হবে (নো ট্রাম্পের খেলায় গার্বার কিংবা ব্ল্যাকউড যথেষ্ট)।

ওপরের কেসটায়, দুইজনের হাতেই শক্তিশালী স্পেডসের অস্তিত্ব টের পাওয়া যাচ্ছে ( এক স্পেডসের বিপরীতে তিন স্পেডস ডাকা হয়েছে)। কাজেই ট্রাম্প কার্ড নিঃসন্দেহে স্পেডস।

এবার সাউথ বিড করলেন চার ক্লাবস। এটি কি গার্বার চার ক্লাবস? নর্থ নিজেকে প্রশ্ন করলেন। উত্তর হচ্ছে, না। কেননা ট্রাম্প কার্ডে খেলা হচ্ছে। নো ট্রাম্প বিড হলে কনফিউশন থাকত। কাজেই তিনি নিশ্চিত হলেন, পার্টনার কিউ বিড দিয়ে হাতের ক্লাবসের টেক্কা কিংবা সাইড অফ জানান দিচ্ছেন।

এখানে লক্ষণীয়, কিউ বিডের প্রথম ডাকটি হতে হবে ট্রাম্প কার্ড বাদে সবচেয়ে কম ক্রমের স্যুটে। সাউথ যদি চার হার্টস ডাকতেন তাহলে তার হার্টসের টেক্কা বা খালি হাত (ভয়েড) বোঝা যেত। কিন্তু ক্লাবস বা ডায়মন্ডস স্কিপ করে যাবার অর্থ হতো, তার হাতে এ দুটো স্যুটে প্রথম কন্ট্রোল নেই। অর্থাৎ, টেক্কা বা ভয়েড নেই।

নর্থ ফিরতি বিড দিলেন চার ডায়মন্ডস। অর্থাৎ, তার হাতে ডায়মন্ডসের টেক্কা বা ভয়েড আছে। সাউথ বেজায় খুশি। একটা ট্রিক নিশ্চিত হলো।

তিনি এবার বিড দিলেন চার হার্টস। অর্থাৎ, হার্টসের টেক্কা কিংবা ভয়েড।
নর্থের মুখ খুলবার পালা। আর তো টেক্কা নেই। কি বলবেন তিনি? চার স্পেডস? ভুল। কিউ বিডের জবাবে ট্রাম্প স্যুটে ফেরত আসার অর্থ হচ্ছে, তার হাতে আর কোন বলার মত কার্ড নেই। কিন্তু সেটা সত্যি নয়। তার হাতে আছে ক্লাবসের সাহেব। কাজেই তিনি বললেন, পাঁচ ক্লাবস। সাউথের আরেক দুশ্চিন্তা দূর হলো।

শেষ উদ্বেগ, স্পেডসের সাহেব বিবি কোথায়? তাই তিনি প্রশ্ন করলেন, পাঁচ নো ট্রাম্প। নর্থ যদি মনে করে থাকেন, সাউথ নো ট্রাম্পে খেলতে চাচ্ছেন, তবে সেটা ভুল। কারণ আগেই বোঝা গেছে দুই হাতে স্পেডস শক্তিশালী। অন্য কোন স্যুট ডাকাও হয় নি (তিন স্পেডসের পর থেকে বাকি সবগুলোই কিউ বিড)। আবার কিউ বিড মানেই হচ্ছে নো ট্রাম্পে খেলা হবে না। তাহলে এই ডাকের অর্থ কি?

অর্থ আছে। চার পাঁচের ঘরে কিউ বিড থেকে সরে পাঁচ নো ট্রাম্প ডাকার অর্থ, ট্রাম্প স্যুটের সবচেয়ে বড় তিনটি তাসের সংখ্যা জানাও। জবাবে ছয় ক্লাবস মানে, ট্রাম্প স্যুটে টেক্কা সাহেব বিবি কোনটাই নেই। ছয় ডায়মন্ডস মানে, একটি কার্ড, সেটা তিনটির যে কোনটি হতে পারে। ছয় হার্টস মানে, দুটি কার্ড। ছয় স্পেডস মানে, তিনটি কার্ড।

সঙ্গত কারণেই, নর্থের জবাব হবে ছয় হার্টস, মানে দুটি বড় তাস। সাউথের হাতে আছে টেক্কা। দুয়ে দুয়ে চার মিলেই গেলো।

সাউথ নিশ্চিন্ত মনে সাত স্পেডস ডেকে দিলেন। কারো সাধ্য নেই এটা ঠেকায়।

মিক্সড কনভেনশনঃ

চার ক্লাবস বা চার ডায়মন্ডসে কিউ বিড দেবার পর অনেক সময় পার্টনার ট্রাম্প স্যুটে ফেরত যান। এর অর্থ তার কাছে কোন টেক্কা নেই। ট্রাম্প স্যুটের টেক্কা থাকতে পারে, কিন্তু এক ডাকের মধ্য দিয়ে তো আর দুই রকম তথ্য দেয়া সম্ভব নয়।। ধরা যাক ওপেনারের কাছে ট্রাম্প স্যুটের টেক্কাটি নেই। সাপোর্টারের কাছে আছে কিনা জানার উপায় কি? এমন পরিস্থিতিতে কিউ বিডার চার নো ট্রাম্প ডেকে বসেন।

কিউ বিড থেকে সরে গিয়ে চার নো ট্রাম্প ডাকার অর্থ, ওপেনার আর স্যুট ধরে টেক্কা সাহেব জানতে আগ্রহী নন। তিনি চান শুধু সংখ্যাটা জানতে। অর্থাৎ, এক দফা কিউ বিড শেষে তিনি ব্ল্যাকউডে ফেরত গেলেন। টেক্কার জবাব পছন্দ হলে পাঁচ নো ট্রাম্প ডেকে সাহেবের সংখ্যা জানতে চাইবেন। পছন্দ না হলে পাঁচের ঘরে কিছু একটা ডেকে বিড বন্ধ করিয়ে দেবেন।

মাসুদ রানা কেসঃ

ছবি ৪ - সাগর সঙ্গম বইতে মাসুদ রানার কুটকৌশলী হাত - অবশ্যই হাতসাফাই

সাগর সঙ্গম ১ এ গোলাম হায়দার চুরি করে ব্রিজ খেলায় জিতে চলেছিলো। সেটা ধরতে পেরে রানা তাকে ঢিলের বদলে পাটকেল ছুঁড়ে মারে। হাত সাফাই করে সাজানো তাস তুলে দেয় সবার হাতে। ওপরে আমি তাস সাজিয়ে দিলাম স্মৃতি হাতড়ে।

গোলাম হায়দারের অবিশ্বাস্য শক্তিশালী হাতের বিপরীতে রানা সাত ক্লাবস ডেকে বসে। গোলাম হায়দার ডাবল দেয়। রানা রিডাবল।

পাঠক দেখেন তো জিনিসটা ধরতে পারছেন কিনা? কে জিতল? কিভাবে?

(চলবে)

বিঃদ্রঃ ভুলভ্রান্তি,বিভ্রান্তি কিংবা দ্বিমতগুলো আলোচনায় উল্লেখ করবার জন্য পাঠকের প্রতি আগাম কৃতজ্ঞতা


মন্তব্য

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

ইটা রাইখ্যা গেলাম...
আগের পোস্টখান আগে বুইঝ্যা লই, তারপর এইডা সরামু চাল্লু

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

ইয়াসির আরাফাত এর ছবি

যদি ব্রিজ খেলা প্র্যাকটিস করেন তাইলে সপ্তাখানেকের মধ্যেই ইটা সরাইতে পারবেন। খালি থিউরি পইড়া এক বছরেও পারবেন না শয়তানী হাসি

অন টপিকঃ পার্টনার পাওয়া না গেলে হয়েল কার্ড গেমস ট্রাই করেন। তবে সে ব্ল্যাকউড ছাড়া অন্য কোন স্লাম কনভেনশন বুঝে না

রাতঃস্মরণীয় এর ছবি

তাস সাজানোটা প্রচন্ডওরকম শার্প মেমোরির ব্যাপার। অনার্সযুক্ত ডেড কার্ডগুলো কোথায় কি অবস্থায় আছে সেটা মনে রাখা এবং সাফল করার ক্ষেত্রে নিখুঁৎ দক্ষতা আবশ্যক। তবে তাস সাজানোটা অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেলে বিডিং-এর এবং খেলার দক্ষতা পড়ে যায়, এটাই সত্যি।

চিন্তিত রানার জায়গায় আমি থাকলে সংশয়ে থাকতাম ক্লাবসের বিন্যাস নিয়ে। কারণ গোলাম তার শক্তিশালী হাত নিয়ে ক্লাবসে ভয়েড থাকলেও ডাবল দিতে পারতো। তো, রুমানা প্রথম চালে ডায়মন্ড খেললে ডামি থেকে ট্রাম্প করে ছোট একটা ক্লাবস খেলে উপর থেকে ১০ দিতাম। ১০ এ পিঠ পেলে আবার ডায়মন্ড খেলে ডামি থেকে ট্রাম্প করিয়ে পুনরায় ক্লাবস খেলতাম। আর রুমানা যদি অন্য কিছু খেলত, সেক্ষেত্রে উপর থেকে ট্রাম্প করে ডায়মন্ড খেলেই নিচে এসে ক্লাবস খেলতে হতো। প্রথমবার ক্লাবস খেলার পর যখন দেখা যেতো রুমানা ক্লাবসে ভয়েড, তখন বাকী খেলা অনেক সহজ হয়ে যেতো। দুই রাউন্ড ডায়মন্ড ট্রাম্প করিয়ে সাথে সাথে প্রতিপক্ষেকে ক্লাবসশুন্য করে দিতে পারলে বাকী তো সব ডায়মন্ডের ফ্রি ট্রিক। হাততালি

------------------------------------------------
প্রেমিক তুমি হবা?
(আগে) চিনতে শেখো কোনটা গাঁদা, কোনটা রক্তজবা।
(আর) ঠিক করে নাও চুম্বন না দ্রোহের কথা কবা।
তুমি প্রেমিক তবেই হবা।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA