সহস্রমাল্যের কথা : নর্তকী অশ্ববণিক পর্ব

খেকশিয়াল এর ছবি
লিখেছেন খেকশিয়াল (তারিখ: বুধ, ০৩/০৬/২০০৯ - ৪:০১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সহস্রমাল্যের কথা : নরসুন্দর বস্ত্রবণিক পর্ব

---------------------------------------

সেইদিন সন্ধ্যায় রাজসভার সেই অশ্ববণিক যখন নগর হইতে অনতিদূরে আপন তাম্বুতলে বিশ্রাম লইতেছিল, দেখিল, দূর হইতে কে যেন এদিকেই আসিতেছে। ক্রমে সেই ব্যক্তি আরো নিকটে আসিলে সে বুঝিল, ভদ্রলোক কোন উচ্চবংশীয় ধনী হইবেন। হায়.. যদি সে বুঝিত.. এ ছিল সেই তস্কর সহস্রমাল্য!

সহস্রমাল্য অশ্ববণিকের সম্মুখে আসিয়া জিজ্ঞাসা করিল, "ভদ্রে, কে আপনি? এইখানে তাম্বু গাড়িয়াছেন কেন?" বণিক কহিল, "মহাশয় আমি এক অশ্ববণিক, আমি আপনাদের দেশে নতুন, বাণিজ্য করিতে আসিয়াছি।" সহস্রমাল্য কহিল, "তাই নাকি! পরিচিত হইয়া বেশ প্রীত হইলাম.." কিয়ৎক্ষন থামিয়া আবার কহিল, "তো মহাশয় আপনি আমার সহিত চলেন না কেন? আপনি বণিক, কত দেশ ঘুরিয়াছেন! অতি নিকটেই আমার বাটী, আপনার ন্যায় সজ্জন অতিথি আমার গৃহে আসিলে বেশ আনন্দিতই হইব। আপনার সহিত গল্প করাও হইবে, আমার নারায়ণ সেবাও হইবে.." সহস্রমাল্যের কথায় বণিক বেশ গলিয়া গেল, কপট বাঁধা দিয়া বলিল, "না না সে কি! আপনি আবার কেন কষ্ট করিবেন!" সহস্রমাল্য বলিল, "না মহাশয়, আপনার ন্যায় বিদেশীকে আমি এইরূপ স্থলে রাত্রিবাস করিতে দিতে পারি না। আপনি আর না করিবেন না।" বণিক দন্ত বিকশিত করিয়া কহিল, "বেশতো.. এত করিয়া যখন বলিতেছেন, না করি কিরূপে! আমাকে কিয়ৎক্ষন সময় দিন, অশ্বগুলা রথে বাঁধিয়া লই তবে!" সবকিছু ঠিক হইলে দুইজনে রথে চড়িয়া বসিল। রাত্রি হইবার আগেই তাহারা এক প্রাসাদসম গৃহে উপস্থিত হইল।

ইহা ছিল রাজার সেই প্রধান নর্তকীর গৃহ, তার প্রমোদালয়। নর্তকী দূর হইতে যখন তাহাদের দেখিল, ভাবিল, আহ! দুইজন ধনী লোক! মা লক্ষ্মী মনে হয় স্বয়ং তাহাদের এই পথে পাঠাইয়াছেন! নর্তকী এর আগে আর বণিককে দেখে নাই, সহস্রমাল্যকেও না। উহাদের আসিলে সে স্বয়ং ছুটিয়া করজোড়ে সম্ভাষণ জ্ঞাপন পূর্বক তাহাদের বরণ করিল। সহস্রমাল্য নর্তকীকে দেখিয়াই দ্রুত আগাইয়া আসিল আর তাহাকে একটু আড়ালে নিয়া কহিল, "বুঝিলে, আমার বন্ধুখানি ধনী আর সহৃদয়। তিনি তোমার নৃত্য দেখিবার অভিপ্রায়ে এইখানে আসিয়াছেন। কিন্তু.."
"উনি আগে পরিষ্কার হইয়া বিশ্রাম করিতে চাহেন, এইতো? চিন্তা নাই, আমি তাহাকে আমার সবচাইতে উত্তম ঘরখানাই দিব" নর্তকী কহিল।

তারপর তাহারা আবার বণিকের নিকট আসিলে নর্তকী বণিককে কহিল, "ভদ্রে, দয়া করিয়া আমাকে অনুসরণ করুন।" বণিক গদগদ চিত্তে তাহার পিছন পিছন গেল। নর্তকী তাহাকে তার ঘর দেখাইয়া পুনরায় সহস্রমাল্যের নিকট ফিরিয়া আসিল, বলিল, "আর মহাশয়, আপনার জন্য?.." সহস্রমাল্য খুবই ব্যস্ত মত ভাব করিল, কহিল, "এক্ষনে নয়, আমি এখন চলিয়া যাইব, মহারাজের সহিত দেখা করিতে হইবে.. তিনি আমাকে এক গুরুত্বপূর্ণ কার্যের নিমিত্তে ডাকিয়াছেন.." বলিয়া থামিল সহস্রমাল্য, হঠাৎ নিজের দেহে চোখ বুলাইতে বুলাইতে কহিল, "ওহ ঈশ্বর! কি ভুল.. কি ভুল.. বেশী ত্বরা করিতে গিয়া আমি আমার অলংকার পড়িতেই ভুলিয়া গিয়াছি! ওহ হো! .. এখন এইরূপে কি করিয়া আমি রাজার সম্মুখে যাই.. বাটীতে যে যাইব আরো দেরী হইয়া যাইবে.." থামিয়া কহিল, " যদি কিছু মনে না কর.. তুমি কি.. কিভাবে বলি.. তুমি কি কিছু অলংকার ধার দিয়া আমাকে সাহায্য করিতে পার?" নর্তকী কহিল, "কেন নয়? আপনার মত কাউকে সাহায্য করিতে পারিলে নিজেকে ভাগ্যবতীই বোধ করিব। আমার সাথে চলুন, পছন্দমত অলংকার বাছিয়া লউন।" অতঃপর সহস্রমাল্য নর্তকীর সহিত তার রত্নভান্ডারে প্রবেশ করিল, ইচ্ছামত যত দামী অলংকার আর রত্নে নিজেকে ভূষিত করিয়া কহিল, "বেশ উপকার করিলে, হয়ত কিছুই নয়, তবু আমি এই উপকারের কথা ভুলিব না।" নর্তকী কহিল, "দয়া করুন, আর লজ্জ্বা দিবেন না।" সহস্রমাল্য কহিল, "যাইবার পূর্বে একবার বন্ধুর সহিত দেখা করিয়া আসি, দেখি তার কোন অসুবিধা হইতেছে কিনা।"

ওইদিকে বণিক তখন এত সুন্দর ঘর, রাজসিক আতিথেয়তা পাইয়া বেশ চমৎকৃত হইয়াছিল। সহস্রমাল্য ঘরে ঢুকিলেই সে উঠিয়া দাঁড়াইল, আর আহলাদে গদগদ হইয়া কহিল, "মহাশয়, আপনি আমার জন্য এতকিছু করিতেছেন!.. কি বলিয়া যে আপনাকে ধন্যবাদ দেই.." সহস্রমাল্য হাসিয়া উড়াইয়া দিল, কহিল, "আহ! এ কিছুই নয়! আপনি বিশ্রাম করুন, আমি ফিরিয়া আসা পর্যন্ত আমার স্ত্রী আপনার দেখাশোনা করিবে। কিন্তু কিছু যদি মনে না করেন, একখানা ব্যাপারে আমার আপনার সাহায্যের প্রয়োজন।"
"বিলক্ষণ! বিলক্ষণ!" বলিল বণিক। সহস্রমাল্য তখন কহিল, "রাজার সহিত দেখা করিব, প্রাসাদে যাইব! কিন্তু আমার অশ্বগুলার কোনটাই অত দ্রুতগামী নয়, তাই আপনি যদি আপনার কোন দ্রুতগামী অশ্ব ধার দিতেন.." বণিক কহিল, "মহাশয় এত সঙ্কোচ করিতেছেন কেন? আপনি আমার একখানা অশ্ব নিয়া যান, উহারা যথেষ্ঠ দ্রুতগতি সম্পন্ন। আপনি যা করিলেন তার বিনিময়ে এই ক্ষুদ্র উপকারটুকু করিতে পারিলে নিজেকে ধন্যই মনে করিব!" সহস্রমাল্য বেশ আনন্দিত ভাব করিল, আর সেই দ্রুতগামী অশ্বে চাপিয়া অতি দ্রুতই সে চলিয়া গেল। এইভাবে সেই বণিক আর নর্তকী, যাহারা সহস্রমাল্যকে ধরিবে বলিয়াছিল, সহস্রমাল্য তাহাদেরই ধরিয়া উত্তমরূপে নিঙড়াইয়া ছাড়িয়া দিল। বাটীতে ফিরিয়া সে জননীর নিকট অশ্ব আর অলংকার দিয়া কহিল, "খুব প্রত্যুষেই.." .. "নগরে যাইতে হইবে তো? জানি!" বলিল জননী।

এইদিকে সেই নর্তকী আর অশ্ববণিকও বুঝিতে পারিয়াছিল যে তাহারা ঠকিয়াছে। হা হুতাশ শেষে তাহারা একমত হইল, এ নিশ্চয়ই সেই তস্কর, যাহাকে ধরিবে বলিয়া তাহারা ভাবিয়াছিল। অতঃপর তাহারা রাজার নিকট গেল। আদ্যোপান্তঃ সবিস্তারে কহিলে রাজা এইবার বেশ ক্রুদ্ধ হইলেন। ততক্ষণাৎ তিনি তাহার প্রধান প্রহরীকে ডাকিয়া পাঠাইলেন, কহিলেন, "এই তস্কর দিন দিন বড়ই শক্তিশালী হইয়া উঠিতেছে! পাঁচদিন সময় দিলাম, এর ভিতরেই তুমি তাহাকে ধরিবে!" কুর্নিশ করিয়া প্রহরী কহিল, "চিন্তা করিবেন না মহারাজ! এই দুষ্টকে আমিই ধরিব! দেখিব সে এইবার কি করিয়া ফাঁকি দেয়!" পরদিন সকালে জননীর মুখে সবই শুনিল সহস্রমাল্য। জননী কহিল, "খুবই সাবধান বৎস! এইবার প্রহরীপ্রধান তোমার পিছনে লাগিয়াছে! খুবই সাবধান!" সহস্রমাল্য হাসিল, কহিল, " এইবার তবে প্রহরীপ্রধান? বেশ! .."

(চলিবে)


মন্তব্য

তুলিরেখা এর ছবি

চমৎকার এগোচ্ছে। দারুণ!পরের পর্বের অপেক্ষায়।
-----------------------------------------------
কোন দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

খেকশিয়াল এর ছবি

ধন্যবাদ উপদেবী (পড়বেন উপকথার দেবী)
পরের পর্ব আসিতেছে

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

স্নিগ্ধা এর ছবি

খুব ভালো হচ্ছে হাসি

আহা, এমন মা ঘরে ঘরে হোক দেঁতো হাসি

খেকশিয়াল এর ছবি

হাহাহা কেন? আপ্নেরেও চুর হইতে মঞ্চায়? দেঁতো হাসি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

হিমু এর ছবি

পুলিশের আইজি এখন পিছে লাগসে। কঠিন সাসপেন্স।

এত টুকরা কর কেনু কেনু কেনু? ভালু একটা গল্পকে টাইনা ইলাস্টিক ঢিলা কর কেনু কেনু কেনু?



হাঁটুপানির জলদস্যু আলো দিয়ে লিখি

সবজান্তা এর ছবি

এত টুকরা কর কেনু কেনু কেনু? ভালু একটা গল্পকে টাইনা ইলাস্টিক ঢিলা কর কেনু কেনু কেনু?

এই প্রশ্নটা করতে আপনার একটুও লজ্জা করলো না হিমু ভাই !

উনি তো খন্ডে খন্ডে হলেও দেন... আর আপনার যে অর্ধেক গল্প আপনার গর্ভেই ( ইয়ে মানে মানসগর্ভ আর কী ! ) হারিয়ে গেল, তার কী হবে ??


অলমিতি বিস্তারেণ

হিমু এর ছবি

আমি অধম তাই বলিয়া খেকু উত্তম হইবে না কেনু কেনু কেনু?



হাঁটুপানির জলদস্যু আলো দিয়ে লিখি

খেকশিয়াল এর ছবি

হো হো হো

মনে কয় আগামী পর্বেই শেষ করতে পারুম পুরাটা।

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

সাইফ এর ছবি

শেষ করার কি দরকার মামা, চলুক না !!! অসাধারণ একটা গল্প হইতেছে, শেষ হইয়া গেলে তো বিপদ

খেকশিয়াল এর ছবি

টিপু সুলতান যখন দেখতাম পোলাপাইন সব ফাইজলামি করতাম, একদল কইত তোপ চালাওওও!!! এরপরেই আরেক দল কইত জান নিয়ে পালাওওও!!! হো হো হো

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

ভুতুম এর ছবি

ভালো আগাচ্ছে। পরের পর্ব ছাড়ুন।

-----------------------------------------------------------------------------
সোনা কাঠির পাশে রুপো কাঠি
পকেটে নিয়ে আমি পথ হাঁটি

খেকশিয়াল এর ছবি

বেসন মাখাইতাছি, তেল কিনা আনি, কড়াই জাল দিছি এট্টু পড়েই ছাড়ুম..

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

রেনেট এর ছবি

চা খান, কফি খান, যা খুশি তা খান... পরের পর্ব ছাড়েন জলদি
চমেতকার এগুচ্ছে চলুক

---------------------------------------------------------------------------
No one can save me
The damage is done

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

খেকশিয়াল এর ছবি

পরের পর্বে দেখি শেষ করতে পারি নাকি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

সাইফ এর ছবি

শেয়ালমামা কঠিন হইতেছে, এই পর্ব ছোট হইলেও ধার খুবই বেশী, আর পরের দিন দিবার জন্য যার পর নাই ধন্যবাদ, এইভাবে মামা যদি দিতে থাকো তাহলে বেশ হয়।

খেকশিয়াল এর ছবি

হিহি ধইনাপাতা

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

অনিন্দিতা এর ছবি

চমৎকার

খেকশিয়াল এর ছবি

হাসি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

মাহবুব লীলেন এর ছবি

গল্পটা টুকরা ক্যারে?

খেকশিয়াল এর ছবি

দাদা হাতের তুন পড়ি ভাঙ্গি গেছে ইয়ে, মানে...

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

সবজান্তা এর ছবি

সিরাম হইতেছে। টুকরা কইরা ছাড়েন, আপিত্ত নাই কিন্তু প্রতিদিন এক পর্ব দেওনা লাগপো তাইলে।

আজকাল খুব দৌড়ে থাকি, মন দিয়ে কিছুই পড়তে পারি না। আজ সকাল থেকে এক বসায় অনেকগুলি লেখা পড়ে ফেললাম। অসাধারণ লাগলো আপনার লেখাটা।


অলমিতি বিস্তারেণ

খেকশিয়াল এর ছবি

ধইনাপাতা কমরেড, গল্পটা আসলে বেশ বড়, তার উপরে সাধু ভাষায় হলুদ মাখাইতে গিয়া বাটে পইড়া গেছি হিহি। দেখি পরের পর্বেই ফিন করা যায় নাকি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

এনকিদু এর ছবি

এইবার পুলিশ পিছে লাগছে । কয়দিন পর আর্মি, র‌্যাব ও পিছে লাগবে । তারপর লাগবে হুজুরের দল ।


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...

খেকশিয়াল এর ছবি

হাহাহাহাহাহাহা

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

মূলত পাঠক এর ছবি

কেউ গালাগাল কইরেন না, কিন্তু এই গল্পটা ভাগে ভাগেই ভালো জমতাছে। বেশ সাসপেন্স থাকছে, প্লাস এপিসোডিক একটা ব্যাপারও আছে গল্পটায়।

ফক্সিব্রো, ছবিটা দেখে তো অমর চিত্র কথা মনে হলো, গল্পটা কী ওঁরা প্রকাশ করেছিলেন না অন্যত্র শোনা/পড়া? উপকথা যেহেতু, ধরে নিচ্ছি মস্তিষ্কপ্রসূত নয়।

দু-এক পিস বানান:
বাঁধা নয় বাধা হবে যদি বিঘ্ন বোঝায়। চন্দ্রবিন্দু বন্ধন হলে লাগে।
লজ্জায় ব-ফলা নেই।
কিয়ৎক্ষন ও এক্ষন: মূর্ধন্য ণ হবে যেহেতু ক্ষ মানে ক+ষ।
প্রত্যুষেই: দীর্ঘ ঊ-কার হবে।

খেকশিয়াল এর ছবি

অমর চিত্র কথা পড়েই লিখতেছি। আমি ছোটবেলার থিকা অমর চিত্র কথার ভক্ত। এইটা অবশ্য কয়দিন আগে ডাউনলোড করা, অনেকগুলি একসাথে পাইছি তবে সব ইংলিশ, বাংলা পাইলাম না মন খারাপ, অমর চিত্র কথা ছাড়াও আরো কিছু তথ্য নিতাছি ওয়েব থিকা, সহস্রমাল্যের গল্পটা খুবই বিখ্যাত দেখলাম, সার্চ দিলাম আরো অনেক ব্যপার পাইলাম।

যেই বানান গুলা নিয়া গ্যাঞ্জামে আসিলাম সবই ঠিক কইরা দিলেন, অনেক ধন্যবাদ।

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

স্পর্শ এর ছবি

আহা দারুণ! এভাবেই চলুক। তবে তাড়াতাড়ি চলুক জোরে জোরে চলুক। হাসি


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...

খেকশিয়াল এর ছবি

দেঁতো হাসি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

এইবার তবে প্রহরীপ্রধান? বেশ! ... দেঁতো হাসি

...........................

সংশোধনহীন স্বপ্ন দেখার স্বপ্ন দেখি একদিন

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

খেকশিয়াল এর ছবি

এহ! দাঁত বেজ্ঞুন বাইর কইরা দিসে! দেঁতো হাসি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

ফকির লালন এর ছবি

জমেছে। খাসা। চলুক।

খেকশিয়াল এর ছবি

হাসি

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

কীর্তিনাশা এর ছবি

বেশ বেশ বেশ!

দারুণ আগাচ্ছে। এভাবেই চলুক। তবে পরবর্তি পর্ব একটু তাড়াতাড়ি ছাইড়েন আর কি.............

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

খেকশিয়াল এর ছবি

হ দেখি আজকেই নিয়া বসুম আবার।

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

আহমেদুর রশীদ এর ছবি

চলুক

---------------------------------------------------------

ঘাস তুমি ঘাসের মতো থাকো মাটি ছুঁয়ে
যে দেখার সে নতজানু হয়ে ছুঁবে তোমার আঙুল
অবরুদ্ধ মাঠ থেকে তুমি লাফিয়ে নেমোনা প্লিজ পাথরের পথে

---------------------------------------------------------

ঘাস তুমি ঘাসের মতো থাকো মাটি ছুঁয়ে
যে দেখার সে নতজানু হয়ে ছুঁবে তোমার আঙুল
অবরুদ্ধ মাঠ থেকে তুমি লাফিয়ে নেমোনা প্লিজ পাথরের পথে
________________________________________
http://ahmedurrashid.

দ্রোহী এর ছবি

পর্লাম। এবার পরের্টা পড়ি!

শাহেনশাহ সিমন [অতিথি] এর ছবি

ভাল্লাগলো, এবার পরেরটা পড়ি গিয়া।

শাহাদাত হোসেন এর ছবি

এই গল্পটি পড়লাম।এর পরের টি এবং আগের টিও পড়লাম।দারুন লাগলো।তবে খারাপ লাগছে অতি তাড়াতাড়ি সিরিজ শেষ হয়ে যাবে বলে।

জি.এম.তানিম এর ছবি

চলুক
-----------------------------------------------------------------
কাচের জগে, বালতি-মগে, চায়ের কাপে ছাই,
অন্ধকারে ভূতের কোরাস, “মুন্ডু কেটে খাই” ।

-----------------------------------------------------------------
কাচের জগে, বালতি-মগে, চায়ের কাপে ছাই,
অন্ধকারে ভূতের কোরাস, “মুন্ডু কেটে খাই” ।

অবনীল এর ছবি

আহ্‌ দারুন। এইবার পরেরটাতে যাই।
___________________________________
স্বপ্ন নয়, - শান্তি নয়, - কোন এক বোধ কাজ করে মাথার ভিতরে!

___________________________________
অন্তর্জালিক ঠিকানা

খেকশিয়াল এর ছবি

কাকা লাস্টেরটা পড়লে চেতবি, পুরা ম্যারম্যারা এন্ডিং

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।