প্রাসঙ্গিক একটি উদ্ধৃতি

অবনীল এর ছবি
লিখেছেন অবনীল (তারিখ: রবি, ৩০/০৯/২০১২ - ৮:৪৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

“যৌক্তিকতা আর বৈজ্ঞানিক অগ্রগতির বিরূদ্ধে সবচেয়ে বড় হুমকি যদি ধর্ম না হয়, তাহলে কোনটা? হতে পারে মদ বা টেলিভিশন, কিংবা আসক্তি উদ্রেককারী ভিডিও গেমস। কিন্তু যদিও এই প্রত্যেকটা আঘাতই - আশীর্বাদমিশ্রিত, আসলে - আমাদের শ্রেষ্ঠ বিচারবুদ্ধিকে বিপর্যস্ত আর আমাদের সমালোচনামূলক মানসিক ক্ষমতাকে মেঘাচ্ছন্ন করে, ধর্মের এমন একটা বৈশিষ্ট্য আছে যা নিয়ে এদের কোনটাই বড়াই করতে পারে নাঃ এটা শুধু অক্ষমই করে না, এটা সেই অক্ষমতাকে সম্মান দেখায়। মানুষকে ভক্তি করা হয় একটা স্বপ্নজগতে বাস করার সামর্থ্যের জন্য, বাস্তবতথ্যমূলক জ্ঞানের থেকে নিজেদের মনকে ঢাল দিয়ে রাখার জন্য, আর প্রমত্ত করার জন্য পরিকল্পিত আচার অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জীবনের গুরুত্ত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে তাদের মাথার ভেতরের কন্ঠস্বরকে ডাকার জন্য।“ – ড্যানিয়েল ডেনেট (ধর্ম কি যৌক্তিকতা ও বিজ্ঞানের জন্য হুমকি?)


মন্তব্য

তারেক অণু এর ছবি

যৌক্তিকতা আর বৈজ্ঞানিক অগ্রগতির বিরূদ্ধে সবচেয়ে বড় হুমকি যদি ধর্ম না হয়, তাহলে কোনটা?

shahriar এর ছবি

পৃথিবীতে ধর্মের শুরু মানবজাতির সভ্যতার শুরু থেকেই। ধর্ম যদি সভ্যতার অগ্রগতির জন্য হুমকী হয়ে থাকে তাহলে মানবজাতি জ্ঞান বিজ্ঞানে এতো উন্নতি কিভাবে করল?? বিবর্তনবাদ অনুসারে সভ্যতার বিবর্তন কি এর চেয়ে ভাল হবার কোন সম্ভাবনা ছিল???

অবনীল এর ছবি

সভ্যতার শুরুতে মানুষের জ্ঞানের পরিধি সীমিত থাকার কারনে অজানাকে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা থেকে উদ্ভব হয়েছিল মিথের, আর সেই মিথ সময়ের স্রোতে স্বীকৃত হয়ে যায় ধর্ম হিসেবে। মানবজাতি জ্ঞান বিজ্ঞানে উন্নতি সাধন হয়েছে এই প্রথাগত অযৌক্তিক কল্পনাপ্রসূত ধারনাগুলোকে চ্যালেঞ্জ করার মাধ্যমেই। যার জন্য প্রতি যুগে বিভিন্ন মনীষিদের লাঞ্ছিত হতে হয়েছে ধর্মের ধবজাধারীদের কাছে। ধন্যবাদ।

___________________________________
ঈশ্বরের মত, ভবঘুরে স্বপ্নগুলো।

স্যাম এর ছবি

চলুক

সবুজ পাহাড়ের রাজা এর ছবি
লাবণ্যপ্রভা  এর ছবি

ধর্ম একটা ব্যাবসা। যার যখন যেভাবে সুবিধা হয়েছে সেভাবেই ব্যাবহার করেছে। I hate this bloody religion. আমি এমন একটা সময়ের স্বপ্ন দেখি যখন মানবতাই হবে একমাত্র ধর্ম, এবং তারা তাদের এই পুর্বপুরুষদের কৃতকর্মের জন্য প্রচন্ড লজ্জিত ও দুঃখিত হবে।

অতিথি লেখক এর ছবি

আচ্ছা, ধরলাম পৃথিবী থেকে সব ধর্ম উচ্ছেদ করা হলো, সবাই নাস্তিক -- তখন কি সাম্প্রদায়িকতা বলে কোন জিনিস থাকবে না? আমি এই ব্যপারে সন্দিহান, এমন কি হতে পারে না যে একদল হবে "সাঁর্ত্রে পন্থী", আরেক দল "ফিউয়েরবাখ পন্থী", আবার আরেকদল হবে "কমটে পন্থী" -- এরাই আবার নিজেদের মধ্যে যে মারামারি শুরু করবেনা তার গ্যারান্টি কি?

সাউথ পার্কে একটা এপিসোডে এইরকম একটা দেখছিলাম, এইখানে আবছা একটা আইডিয়া পাবেন --

South Park -- Atheist War

-- রামগরুড়

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

কেবল ড্যানিয়েলের উদ্ধৃতিটা লিখে ছেড়ে দিলেন! নিজের ব্যাখ্যাটা দেবেন না? সেটা না লিখলে এটা অবনীলের ব্লগ হয় কী করে? বিষয়টা নিয়ে আপনার ভাবনা সাথে যোগ করে দিন।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

পোষ্টটা অসমাপ্ত হয়ে গেলো না?

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA