Warning: Creating default object from empty value in theme_img_assist_inline() (line 1488 of /var/www/sachalayatan/s6/sites/all/modules/img_assist/img_assist.module).

যুদ্ধাপরাধ ও জামায়াত ইসলাম

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি
লিখেছেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর (তারিখ: শনি, ৩০/০১/২০১০ - ১১:৩২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ব্যক্তি হিসেবে না, জামায়াত ইসলাম দলগতভাবেই মুক্তিযুদ্ধ এবং বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার বিরোধীতা করেছিলো। এখন জামায়াতের যেসব নেতারা বলেন যে দেশে কোনো যুদ্ধাপরাধী নেই বা জামায়াত ইসলাম মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে, তারাই দলীয়ভাবে যুদ্ধাপরাধে নেতৃত্ব দিয়েছিলো। তথ্য প্রমাণের অভাবে তাদের অনেক কথারই জবাব দেওয়া যায় না। তাই চেষ্টা করলাম আবেগ বহির্ভূতভাবে শুধু তথ্যসূত্র সম্বল করে জামায়াত ইসলামের যুদ্ধাপরাধের কিছু নমুনা তুলে ধরতে। এখানে কিছু দেওয়া হলো। আরো অনেক আছে, ধীরে ধীরে এই পোস্টে আরো কিছু নমুনা (অবশ্যই তথ্যসূত্রসহ) যোগ করার আশা রাখি। সবার প্রতিই অনুরোধ রইলো মন্তব্যের ঘরে যোগ করে দিন আপনার জানা তথ্যগুলো। তবে সূত্র ছাড়া কোনো তথ্যই না দেওয়ার অনুরোধ রইলো।
জামায়াত প্রেমিকদের প্রতিও অনুরোধ রইলো যদি কিছু বলতে হয়, বা বিরোধীতা করতে হয়, তবে তথ্যসূত্রসহ কথা বলুন... নতুবা চুপ থাকুন।
..............................................................................

১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল গোলাম আযম সহযোগীদের নিয়ে গঠন করেন 'শান্তি কমিটি'। এই কমিটির প্রধান উদ্দেশ্য ছিল মুক্তিযুদ্ধকে প্রতিহত এবং মুক্তিযোদ্ধাদের নির্মূল করা। কমিটির প্রথম বৈঠকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নৃশংসতম নরমেধযজ্ঞ সাফল্যের সঙ্গে পরিচালনার জন্য সন্তোষ প্রকাশ করা হয় এবং মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিকামী জনগণকে আখ্যায়িত করা হয় ইসলামবিরোধী হিসেবে।
[মৌলবাদ ও যুদ্ধাপরাধ: শাহরিয়ার কবির]

'৭১-এর ১২ এপ্রিল ঢাকায় মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে শান্তি কমিটির মিছিলে গোলাম
আযম নেতৃত্ব দেন এবং মিছিল শেষে গোলাম আযম গণহত্যাকারী পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করেন।
[দৈনিক সংগ্রাম, ১৩ এপ্রিল ১৯৭১]

১৪ আগস্ট পাকিস্তানের আজাদী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সেনাবাহিনী ও শান্তি কমিটির মধ্যে যোগসূত্র প্রতিষ্ঠার ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করে জামায়াত নেতা গোলাম আযম বলেন- 'বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্যে শান্তি কমিটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।'
[দৈনিক পাকিস্তান, ১৬ আগস্ট ১৯৭১]

শান্তি কমিটির তৎপরতা চালানোর পাশাপাশি জামায়াত নেতা গোলাম আযম পাকিস্তানি সৈন্য বাহিনীর সহযোগী একটি সশস্ত্র বাহিনী গঠনে অগ্রণী ভূমিকা গ্রহণ করেন। তাঁর নির্দেশে জামায়াত নেতা এ কে এম ইউসুফ '৭১ এর মে মাসে খুলনার খান জাহান আলী রোডের একটি আনসার ক্যাম্পে ৯৬ জন জামায়াত কর্মী নিয়ে রাজাকার বাহিনী গঠন করেন। প্রথম পর্যায়ে রাজাকার বাহিনী ছিল শান্তি কমিটির নেতৃত্বাধীন। '৭১ এর ১ জুন জেনারেল টিক্কা খান 'পূর্ব পাকিস্তান রাজাকার অর্ডিন্যন্স ১৯৭১' জারি করে আনসার বাহিনীকে বিলুপ্ত করে রাজাকার বাহিনীতে রূপান্তরিত করেন, যদিও এর মূল নেতৃত্ব ছিল জামায়াতের হাতে। পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় রাজাকার বাহিনীর সদস্যদের পূর্ণাঙ্গ সেনাবাহিনীর সদস্যের সমান ক্ষমতা অর্পণ করে ৭ সেপ্টেম্বর এক অধ্যাদেশ জারি করে। (নং ৪/৮/৫২/৫৪৩ পি এস=১/ক৩৬৫৯ ডি-ক)
[মৌলবাদ ও যুদ্ধাপরাধ: শাহরিয়ার কবির]

২৫ সেপ্টেম্বর ঢাকায় হোটেল এম্পায়ার এর এক কর্মী সমাবেশে গোলাম আযম বলেন, 'পাকিস্তান টিকিয়ে রাখার জন্যই জামায়াতে ইসলামী শান্তি কমিটি এবং রাজাকার বাহিনীতে যোগ দিয়েছে। ......... জামায়াতের কর্মীরা শাহাদত বরণ করে পাকিস্তানের দুশমনদের বুঝিয়ে দিয়েছে যে তারা মরতে রাজী, তবুও পাকিস্তানকে ভেঙ্গে টুকরো টুকরো করতে রাজী নয়'
[দৈনিক পাকিস্তান, ২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭১]

১৪ সেপ্টেম্বর '৭১ জামায়াতীদের মুখপত্র দৈনিক সংগ্রাম 'আলবদর' শিরোনামে এক নিবন্ধে লিখেছিলো- 'আলবদর একটি নাম! একটি বিস্ময়। আলবদর একটি প্রতিজ্ঞা! যেখানে তথাকথিত মুক্তিবাহিনী, আল-বদর সেখানেই। যেখানেই দুষ্কৃতকারী, আল-বদর সেখানেই। ভারতীয় চর কিংবা দুষ্কৃতকারীদের কাছে আল-বদর সাক্ষাৎ আজরাইল।'

আল-বদর হাই কমান্ড এবং ইসলামী ছাত্র সংঘের কেন্দ্রীয় কমিটি:

১. মতিউর রহহমান নিজামী- সমগ্র পাকিস্তান প্রধান
২. আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ- পূর্ব পাকিস্তান প্রধান
৩. মীর কাশেম আলী- আল-বদর বাহিনীর তৃতীয় স্থানীয় প্রধান নেতা
৪. মোহাম্মদ কামারুজ্জামান- বদর বাহিনীর প্রধান সংগঠক
৫. আশরাফুজ্জামান খান- ঢাকা শহর বদর বাহিনীর হাই কমান্ড সদস্য এবং বুদ্ধিজীবী হত্যাকান্ডের 'চীফ এক্রিকিউটর' প্রধান জল্লাদ
৬ মোহাম্মদ শামসুল হক- ঢাকা শহর প্রধান
৭. মোহাম্মদ ইউনূস
৮. আশরাফ হোসাইন- বদর বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতা ও ময়মনসিংহ জেলা প্রধান
৯. মোস্তফা শওকত ইমরান- ঢাকা শহর বদর বাহিনীর অন্যতম নেতা
১০. আ. শ. ম. রুহুল কুদ্দুস- ঢাকা বদর বাহিনীর অন্যতম নেতা
১১. সরদার আব্দুস সালাম- ঢাকা জেলা প্রধান
১২. খুররম ঝা মুরাদ
১৩. আব্দুল বারী- জামালপুর প্রধান
১৪. আব্দুল হাই ফারুকী- রাজশাহী জেলা প্রধান
১৫. আব্দুল জাহের মোহাম্মদ আবু নাসের- চট্টগ্রাম জেলা প্রধান
১৬. মতিউর রহমান খান- খুলনা জেলা প্রধান
১৭. চৌধুরী মইনুদ্দীন- বুদ্ধিজীবী হত্যাকান্ডের অপারেশন ইনচার্জ
১৮. নূর মোহাম্মদ মল্লিক- ঢাকা শহর বদর বাহিনীর নেতা
১৯. এ. কে. মোহাম্মদ আলী
২০. মাজহারুল ইসলাম- রাজশাহী জেলা বদর বাহিনী প্রধান
[সূত্র: বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধ: কয়েকটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন (শামীমা বিনতে রহমান), দৈনিক বাংলা, ইত্তেফাক, আজাদ ১৯৭২]

উল্লেখ্য শান্তি কমিটি, রাজাকার বাহিনী প্রভৃতি দিয়েও কোনোভাবে যখন পরাজয় ঠেকিয়ে রাখতে পারছিলো না পাক বাহিনী, তখন ঠিক পরাজয়ের প্রাক্কালে বাঙ্গালী জাতিকে ধ্বংস করে দেওয়ার অন্যতম উপায় হিসেবে গেস্টাপো বাহিনীর কায়দায় তারা মেতে ওঠে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডে। আর সেকারণেই গঠিত হয় আল-বদর আল-শামস বাহিনী। যার পূর্ণ নেতৃত্বে ছিলো জামায়াত ইসলামী। এবং যাদের প্রধান কাজ ছিলো পাকিস্তানি জেনারেল রাও ফরমান আলীর সঙ্গে বৈঠক করে বুদ্ধিজীবী হত্যার নীল নকশা প্রণয়ন করা। দেশের প্রখ্যাত লেখক, সাংবাদিক, অধ্যাপক, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, বিজ্ঞানী, আইনজীবী, ক্রীড়াবিদ ও সমাজকর্মীসহ বিভিন্ন পেশার শত শত বুদ্ধিজীবী হত্যার জন্য দায়ী এই আল-বদর বাহিনী।

'৭১ এর ৭ নভেম্বর 'বদর দিবস' উদযাপন করতে গিয়ে ঢাকার বায়তুল মোকাররমের প্রাঙ্গণে ইসলামী ছাত্র সংঘের এক সমাবেশে আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ চার দফা ঘোষণা প্রচার করেন। এই ঘোষণায় বলা হয়, '.... যতদিন পর্যন্ত দুনিয়ার বুক থেকে হিন্দুস্তানের নাম মুছে দেয়া না যাবে ততদিন পর্যন্ত আমরা বিশ্রাম নেবো না। ........ আগামীকাল থেকেক হিন্দু লেখকদের কোন বই অথবা হিন্দুদের দালালি করে লেখা পুস্তকাদি লাইব্রেরীতে কেউ স্থান দিতে পারবেন না, বিক্রী বা প্রচার করতে পারবেন না। যদি কেউ করেন তবে পাস্তিানের অস্তিত্বে বিশ্বাসী স্বেচ্ছাসেবকরা জ্বালিয়ে ভস্ম করে দেবে। ..... এই ঘোষণা বাস্তবায়িত করার জন্য শির উঁচু করে বুকে কোরান নিয়ে মর্দে মুজাহিদের মতো এগিয়ে চলুন। প্রয়োজন হলে নয়াদিল্লী পর্যন্ত এগিয়ে গিয়ে আমরা বৃহত্তর পাকিস্তানের পতাকা উত্তোলন করবো।'
[দৈনিক পাকিস্তান, ৮ নভেম্বর ১৯৭১]

একই সমাবেশে ইসলামী ছাত্রসংঘের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মীর কাশেম আলী 'বদর দিবসের শপথ' হিসেবে ঘোষণা করেন-
ক) ভারতের আক্রমণ রুখে দাঁড়াবো
খ) দুষ্কৃতকারীদের খতম করবো
গ) ইসলামী সমাজ কায়েম করবো
[দৈনিক পাকিস্তান, ৮ নভেম্বর ১৯৭১]

বদর বাহিনীর সর্বাধিনায়ক মতিউর রহমান নিজামী ১৪ নভেম্বর দৈনিক সংগ্রাম-এ লিখেছেন- 'সেদিন আর খুব দূরে নয়, যেদিন আল-বদরের তরুণ যুবকেরা আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর পাশাপাশি দাঁড়িয়ে হিন্দু বাহিনীকে পর্যুদস্ত করে, হিন্দুস্তানকে খতম করে সারা বিশ্বে ইসলামের বিজয় পতাকা উড্ডীন করবে।'

বদর বাহিনীর অপর দুই প্রধান নেতা আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ এবং মীর কাশেম আলী ২৩ নভেম্বর এক বিবৃতিতে সৈনিক হিসেবে প্রস্তুত হয়ে যাওয়ার জন্যে সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান। এসময় প্রকাশিত তাদের এক প্রচারপত্রে বলা হয়- 'মনে রাখবেন আপনারা পাকিস্তানকে টিকিয়ে রাখার জন্যই কেবল যুদ্ধ করছেন না। এ যুদ্ধ ইসলামের। নমরুদের হাত থেকে মাতৃভূমিকে রক্ষার জন্য আমাদের আমীরের (গোলাম আযমের) নির্দেশ পালন করুন।'

পূর্ব পাকিস্তান সরকারের স্বরাষ্ট্র (রাজনৈতিক) বিবাগের পাক্ষিক গোপন প্রতিবেদনে ('৭১এর অক্টোবরের দ্বিতীয়ার্ধে) বলা হয়েছে- '১৭/১০/৭১ তারিখে পাকিস্তান ইসলামী ছাত্র সংঘ (ICS) রংপুর শাখার একটি সম্মেলন (১০০ জনের) এটিএম আজহারুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। অন্যান্যদের ভেতর WPICS এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলী আহসান মোঃ মুজাহিদ সম্মেলনে বক্তব্য প্রদানকালে দেশের বর্তমান পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে বলেন- দলের কর্মীদের উচিৎ হবে ইসলামবিরোধী তৎপরতার বিরুদ্ধে ইসলামী চেতনার যুব সম্প্রদায়কে নিয়ে শক্তিশালী আন্দোলন গড়ে তোলা। তিনি বিভিন্ন স্তরে আলবদর বাহিনী গঠন করে দেশকে ভেতরের ও বাইরের আক্রমণ থেকে রক্ষারও আহ্বান জানান।'

'৭১ এর নভেম্বরের প্রথমার্ধের অনুরূপ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- ৭/১১/৭১ তারিখে ঢাকাসহ প্রদেশের অন্যান্য স্থানে আলোচনা সভা, শোভাযাত্রা প্রভৃতি আয়োজনের মাধ্যমে 'আলবদর দিবস' পালিত হয়েছে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্র সংঘের কর্মীদের দ্বারা, যেখানে অন্যান্য বিষয়ের ভেতর পাকিস্তানের প্রতি হিন্দুস্থানের আগ্রাসী মনোভাবের নিন্দার পাশাপাশি আলবদর বাহিনীতে যোগ দিয়ে পাকিস্তানের ঐক্য ও সংহতি রক্ষার উদ্দেশ্যে শত্রু ও ভারতীয় অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।'
উল্লেখ্য, পাকিস্তানের গোয়েন্দা প্রতিবেদনে এ ধরনের বহু বিবরণ পাওয়া যাবে।

এরপরেও জামায়াত নিজেদেরকে নির্দোষ দাবী করবে!

..............................................................................................
উল্লেখ করা প্রয়োজন, এই পোস্টে আমার কোনো কৃতিত্ব নেই, বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্য সংকলন করা ব্যতিত। যদি কিছু কৃতজ্ঞতা থাকে, সেটা শাহরিয়ার কবিরের প্রতি।


মন্তব্য

অতিথি লেখক এর ছবি

নজরুল ভাই অনেক ভালো লাগল। এই রকম তথ্য সমৃদ্ধ লেখা পড়তে আসলেই ভালো লাগে। ধন্যবাদ কষ্ট করে এমন সুন্দর একটা পোষ্ট দেয়ার জন্য।

ডি,এম, কামরুজ্জামান স্বাধীন।
(দলছুট)

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ দলছুট
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

আনিস মাহমুদ [অতিথি] এর ছবি

অত্যন্ত প্রয়োজনীয় পোস্ট।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ আনিস ভাই
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

আমরা কি একটা কাজ করতে পারি নজুভাই? বিজ্ঞাপনের জন্য যে বড় বড় বিলবোর্ড ভাড়া দেয়া হয় সেরকম কয়েকটা নিয়ে এরকম তথ্যগুলো প্রচার করতে পারি? একটা দুইটা করে শুরু করলাম। আস্তে আস্তে সংখ্যায় বাড়ল সেই বিজ্ঞাপনের।
সাধারণ মানুষ সারাদিন কামলা খেটে বউ বাচ্চা সামলে ক্লান্ত হয়ে যায়। এরকম বিজ্ঞাপন তাদের দেশপ্রেমের পরিশ্রম কমিয়ে দেবে। বিনাপরিশ্রমে সত্য জানতে নিশ্চয়ই মানুষের আপত্তি থাকবেনা...
আর এরকম বিজ্ঞাপন আমার মত মূর্খদেরকেও ঈমান মজবুত করবে...

এরকম করে কি কিছু করা যায় ভাই?
____________________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ !

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

ওয়াইল্ড-স্কোপ [অতিথি] এর ছবি

মূর্খদের... ঈমান মজবুত করবে

কথাটা প্রথমে ভুল পড়েছিলাম
গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি
নজরুল ভাইকে তথ্যসমৃদ্ধ পোস্টের জন্য অশেষ ধন্যবাদ হাসি

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

সময়ের বড় অভাব। গত কিছুদিন ধরেই সচলের কোনো পোস্টই আসলে পড়া হচ্ছে না। পেশাগত ব্যস্ততা, পারিবারিক সামাজিকতা... এসবের বাইরে যা কিছু সময় পাচ্ছি চেষ্টা করছি যুদ্ধাপরাধীদের বিপক্ষে তথ্য সংগ্রহের কাজে সময়টা নিবেদন করতে। আমার মনে হয় এটাই উৎকৃষ্ট সময়, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করার। নিজেকে যতটুকু সম্ভব সেই দাবীতেই সচেষ্ঠ রাখতে চাই।
তাই আসলে সচলকে সময় কমই দেওয়া হচ্ছে... আশাকরি সচলরা বুঝবেন... যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে নেই... তারপর আমরা আরামসে ব্লগিং করবো আজীবন...
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

শুভাশীষ দাশ এর ছবি

হ। এই কাজটা আগে করেন।

বর্ষা এর ছবি

অনেক ভালো হয়েছে এসময় পোষ্টটা দেয়ায়। ধন্যবাদ, নজরুল ভাই আপনাকে। আপনি ব্যস্ত সময়ের মাঝে যে লিখেছেন সেই জন্য পাঠক হিসেবে কৃতজ্ঞ। পছন্দের পোষ্টে রাখলাম।

********************************************************
আমার লেখায় বানান এবং বিরাম চিহ্নের সন্নিবেশনের ভুল থাকলে দয়া করে ধরিয়ে দিন।

********************************************************
আমার লেখায় বানান এবং বিরাম চিহ্নের সন্নিবেশনের ভুল থাকলে দয়া করে ধরিয়ে দিন।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ বর্ষা আপা
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

অনিন্দিতা চৌধুরী এর ছবি

তথ্যসমৃদ্ধ পোস্টটা খুব ভাল লাগল।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ অনিন্দিতা চৌধুরী
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

অতিথি লেখক এর ছবি

জামাত শিবির বিষয়ে এই রকম পোস্ট বেশি কার্যকর ।
কারণ এই গুলার কোন উত্তর ওরা দিতেই পারে না!!
দাঁত ভাঙা জবাব ।

অসাধারণ কাজ ।

আল শামস নিয়েও লিখতে পারেন ।
আবদুল কাদের মোল্লা ,বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের আঙুল কাটত।
( ও জামাতের সিনিয়র নেতা । )

বোহেমিয়ান

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

আল শামস শুধু না, সব যুদ্ধাপরাধী চক্রকে নিয়েই লেখার ইচ্ছা রাখি। ধন্যবাদ।

আপনি আব্দুল কাদের মোল্লাকে নিয়ে যা বললেন, সেটা তথ্যসূত্র সহ বলুন।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

শেখ নজরুল এর ছবি

এখন চাই যুদ্ধাপরাধির বিচার। এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি। অনেক ধন্যবাদ পোস্টের জন্য।

শেখ নজরুল

শেখ নজরুল

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ নজরুল ভাই (মনে হয় নিজেরে নিজে ধন্যবাদ দিতেছি)
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- অনার্য সঙ্গীতের আইডিয়াটা ভালো। কিন্তু সেক্ষেত্রে অনেক টাকার দরকার। যতোদূর জানি একেকটা বিলবোর্ড নিতে বেশ বড়সড় একটা পরিমান লাগে। আর ভালো কোনো লোকেশন হলে তো কথাই নেই! এ্যাডফার্মগুলোর হাঁকানো সেই গগনচুম্বী মূল্য কি আমাদের মতো নাদানদের নাগালে আনা সম্ভব?

এ্যাডফার্মের সাথে সংশ্লিষ্ট সচলেরা কী বলেন?

রাগিব ভাই নিজে একটা কথা প্রায়ই বলেন। ইনফ্যাক্ট বলতে বলতে হয়তো তিনি ক্লান্ত হয়ে যাচ্ছেন। ব্লগে আর নানা সাইটে এইসব তথ্যের বিন্যাস ঘটানো যতোটা গুরুত্বপূর্ণ তার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো এইসব তথ্যকে উইকিপিডিয়াতে সংযুক্ত করা।

আমি নিজেও সময়খেলাপী। খেটে, খুঁজে উইকিতে সংযুক্তাপুযোগী কিছু তথ্য দাঁড়া করালাম ঠিকই, কিন্তু সময় আর সুযোগের অভাবে সেটা মইত্যা রাজাকারের উইকি পাতায় যোগ করে উঠতে পারছি না। এটা আসলে কোনো অজুহাতই না। আমি জানি, আমি চাইলেই এটা যোগ করে ফেলতে পারি, একটু একটু করে। কিন্তু আসলে স্বভাবের কারণেই পারতেছি না। আমি আশাকরি আমার স্বভাবের চেয়ে আলাদা কেউ সাহায্যের হাত বাড়াবেন, তথ্যগুলো উইকিতে যোগ করে দিবেন। তা নাহলে এই অধমকেই নিজের স্বভাব থেকে বের হতে হবে আরকি! যেটা আসলেই কষ্টকর আর সময়সাপেক্ষ। মন খারাপ
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

দুর্দান্ত এর ছবি

ইয়ে, কোকোর সাথে কারো পুছ-পরিচয় আছে? শুনেছি বিলবোর্ড এর ব্যাপারে ঐ ছেলেটা বেশ জানে-ঠানে।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

উইকিতে লেখাটা আমার জন্য এখনো কঠিনসাধ্য। অচিরেই বেলায়েত ভাই আমাকে শিখায়ে দিবেন বলছেন সবকিছু। তারপর আমি শুরু করবো। ইতোমধ্যে লেখার মতো অনেক কিছু জড়ো করে ফেলছি।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

অনিকেত এর ছবি

নজু ভাই, চমৎকার একটা পোষ্ট। আমি নীচে আমার দুই পয়সা যোগ করলামঃ

১। জ়েনারেল টিক্কা খানের সাথে দেখা করতে যান নুরুল আমীন,মৌলভী ফরিদ আহমেদ, গোলাম আজম প্রমুখ। অবিলম্বে সমগ্র দেশে সম্পূর্ণ স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে "প্রতিনিধি দল সামরিক আইন প্রশাসক কে পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস এবং জনগনের মনতথেকে ভিত্তিহীন ভয় দূর করার উদ্দেশ্যে তারা ঢাকায় নাগরিক কমিটি গঠন করার প্রস্তাব দেন।"
(পূর্বদেশ, ৫ এপ্রিল,১৯৭১)

২। "---ঢাকায় খাজা খয়েরউদ্দীনকে আহবায়ক করে ১৪০ সদস্য বিশষ্ট একটি নাগরিক শান্তি কমিটি গঠন করা হয়েছে।---নাগরিকদের দৈনন্দিন জীবনে দ্রুত স্বাভাবিক অবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠার পরিবেশ সৃষ্টির জন্য কমিটি সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। কমিটির অন্যান্য বিশষ্ট সদস্যদের মধ্যে রয়েছেনঃ একিউ এম শফিকুল ইসলাম, অধ্যাপক গোলাম আজম,মওলানা সৈয়দ মোহাম্মদ মাসুম---"
(দৈনিক পাকিস্তান ১১ এপ্রিল,১৯৭১)

৩।"গোলাম আজম বলেছেন যে,দেশের পূর্বাঞ্চলের পরিস্থিতি পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।--পূর্ব পাকিস্তান জামায়াত প্রধান বলেন যে, দেশের সংহতি ও আঞ্চলিক অখন্ডতা বজায় রাখার উদ্দেশ্যে পূর্ব পাকিস্তানে সামরিক হস্তক্ষেপ ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না।"
(দৈনিক সংগ্রাম,২১জুন,১৯৭১)

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

অনেক ধন্যবাদ অনিকেত দা। এগুলো সব একসঙ্গে জড়ো করতে হবে। প্রয়োজনের সময় যেনো রেফারেন্স খুঁজতে হাতড়াতে না হয়।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

সচল জাহিদ এর ছবি

নজু প্রয়োজনীয় ও তথ্যবহুল পোষ্ট। এর সাথে বাংলাদেশের বাইরের কোন মিডিয়ার তথ্য জোগাড় করতে পারলে ভাল হত।
----------------------------------------------------------------------------
এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি
নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ রিপন। বাইরের মিডিয়ার প্রচুর একেবারে সাক্ষাত তথ্য সংগ্রহ করা আছে। এমনকি পাকিস্তানের পত্রিকারও। রাগিব ভাই কিছু অনুবাদ করছে। তথ্য প্রমাণের কোনো অভাব নাই।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

স্বাধীন এর ছবি

জাহিদ এবং সবাই

যুদ্ধাপরাধীদের বিষয়ে তথ্যের জন্য WCSF এর এই ই-লাইব্রেরীতে দেশি/বিদেশি প্রায় ১১৮ টি বই/জার্নাল রাখা আছে। নজু ভাইকে ধন্যবাদ তথ্যগুলো একত্র করার জন্য। আমাদের আসলেই সকলের এক সাথে কাজ করে এই মুল্যবান দলিলগুলো হতে যুদ্ধাপরাধীদের বিষয়ে সকল তথ্যগুলো জড়ো করা দরকার। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হবে অচিরেই। আমাদের বিপক্ষ দল কিন্তু বসে নেই। কিন্তু আমরা কি প্রস্তুত? একবার বিচার শুরু হয়ে গেলে আমরা তথ্য নিয়ে গবেষনা করার জন্য সময় পাবো না। আমরা যদি এখনই কাজ শুরু না করি তবে আমরা পিছিয়ে থেকে শুরু করবো। আসুন উক্ত লাইব্রেরীটি ব্যবহার করি।

একটি কাজ করা যায়। যারা যারা আগ্রহী তারা আওয়াজ দিন। একেক জনকে একেকটি বই দেওয়া হবে পড়ার জন্য। তিনি যা যা তথ্য পান এই ব্লগে মন্তব্য আকারে দিন।

বর্ষা এর ছবি

আওয়াজ দিলাম।

********************************************************
আমার লেখায় বানান এবং বিরাম চিহ্নের সন্নিবেশনের ভুল থাকলে দয়া করে ধরিয়ে দিন।

********************************************************
আমার লেখায় বানান এবং বিরাম চিহ্নের সন্নিবেশনের ভুল থাকলে দয়া করে ধরিয়ে দিন।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ স্বাধীন ভাই। আপনার লাইব্রেরির বইগুলো একেকজনকে ভাগ করে দিন। যারা যারা এই প্রজেক্টে কাজ করতে আগ্রহী তাদের সঙ্গে নিন। আমি আপাতত এখানে যোগ দিতে পারছি না। অন্য কাজ করছি বলে। তবে আমার নিজের সংগ্রহে যে বইগুলো আছে, সেগুলোই তো পড়ে শেষ করতে পারছি না।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

জামায়াত-ঘরানার এই ওয়েবসাইটে দেখা যাচ্ছে এর স্বীকারোক্তি আছে:


Jamaat, in 1971, took up arms by joining paramilitary forces like Razaker and tried to impose its will and agenda on the majority of people who are then fighting an all-out war for liberation. Jamaat is still a small and minor political pressure group, and has 18 directly elected MPs plus 3 women MPs in the Parliament, and a section of people suspect that Jamaat might again try, like 1971, to impose its agenda on the majority of people who during the last 35 years did not accept it as a political alternative.

ভালো উদ্যোগ!

--------------------------------
~পর্যবেক্ষণ-অসাধ্য তত্ত্ব অর্থহীন~

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ ধ্রুবদা
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

মেহবুবা জুবায়ের এর ছবি

অনার্য্য সঙ্গীতের প্রস্তাবটা আমি সমর্থন করছি। প্রথম দিকের কয়েকটা বিলবোর্ডের খরচ আমরা চাঁদা তুলে জোগাড় করতে পারি। যেমন আমরা আগে করেছি। একটা মুর্মষ্য জাতীকে বাঁচানোও তো আমাদের নৈতিক কর্তব্য তাইনা? এইসব তথ্যকে উইকিপিডিয়ারতে সংযুক্ত করা খুবই দরকারি সেটা সত্যি। কিন্তু উইকিপিডিয়ার একসেস কজনের আছে? আর দেশের ক'জনই বা জানেন কমপিউটার চালাতে?

সাধারণ মানুষ সারাদিন কামলা খেটে বউ বাচ্চা সামলে ক্লান্ত হয়ে যায়। এরকম বিজ্ঞাপন তাদের দেশপ্রেমের পরিশ্রম কমিয়ে দেবে। বিনাপরিশ্রমে সত্য জানতে নিশ্চয়ই মানুষের আপত্তি থাকবেনা সহমত।

আজকাল টিভিতে'তো দেখি সবাই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি। এটাকে কি কোন ভাবে কাজে লাগানো যায না? আমরা যদি এখন ফরিদুর রেজা সাগরকে বলি, এরকম কিছু তথ্য নিয়ে ওনার টিভিতে একটা ধারাবাহিক কিছু করতে, যেখানে জনপ্রিয় মুখগুলো অংশগ্রহন করবেন, (আফজাল, সুবর্ণা, ফরিদী, পীযূষ, হুমায়ুন আহমরদ, জাফর ইকবাল) উনি কী অস্বীকার করবেন? মনে হয় না।
মোট কথা যা করবার এখন'ই করতে হবে। গোলাম আজম ও খোন্দকার মোসতাকের মতো একে একে সবাই মরে গেলে আপনারা কাদের বিচার করবেন?
আমার অর্থনৈতিক অবস্থর কথা কারো অজানা নেই। তবুও আমি ২০০ ডলার দিতে পারবো।

--------------------------------------------------------------------------------

হিমু এর ছবি

ভাবী, বিলবোর্ড নিয়ে আমরা অতীতে একবার কিছু আলোচনা করেছিলাম।

বিলবোর্ডের ব্যাপারটা যেমন খরুচে, তেমনই জটিল। কোনো একটি শক্তিশালী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বিলবোর্ড স্থাপন না করলে এই ইস্যুতে বিলবোর্ড ভাড়া পাওয়া যেমন কঠিন হবে, তেমনই তার রক্ষণাবেক্ষণও কঠিন হবে। কারণ এ ধরনের বিলবোর্ড আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা খুব বেশি।



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

অতিথি লেখক এর ছবি

ভাইসাবেরা,

একটা কথা আগেই কইসিলাম, আবারও কই। বিলবোর্ড খরচ কইরা বানাইতে হইবো, বানানোর পরে যে কেউ ওইটা আবার ভাইঙ্গা ফালাইবোনা বা নামানোর অর্ডার দিবো না, এইটা কেউ কইতারে?

পোস্টারিংয়ে কয় টাকা লাগে? চাদা তুইলা কি আমরা পোস্টারিং করতে পারিনা? এক কালারের পোস্টারে খুব বেশি টাকা লাগে না। এইগুলা যদি পোস্টারে ছাপায়ে ভাল ভাল জায়গায় লাগায়া দেই, মাইনষে কয়টা ছিড়ব? ছিড়া শেষ করার আগে কিসু মানুষ তো দেখব?

---আশাহত

অতিথি লেখক এর ছবি

হিমু ভাই, বিলবোর্ডের খরচ অনেক মানি। কিন্ত রাস্তায় ব্যানার টাংগানো একটা ভালো উপায় হতে পারে। ঢাকায় গাছে-গাছে, রাস্তার দুপাশের গাছে রশি দিয়ে লটকে বিশাল বিশাল সব ব্যানার সহজেই দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারে। ফোর্ড বাংলাদেশে প্রথমবার আসার পর এইভাবে ব্যপক এ্যড দিয়েছিলো। খুব দ্রুত গতিতে তাদের এই কার্যক্রম ব্র্যান্ড এওয়ারনেস তৈরী করেছিলো।
তাছাড়া, আশাহতের পোস্টারিং এর আইডিয়াটা কাজে দেবে বলে মনে হয়।
এনকিদু ভাইদের টিমটা স্টিকারের মাধ্যমে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ব্যপারে বেশ আলোচনার পরিবেশ সৃষ্টি করে দিয়েছিলো পাব্লিক ট্রান্সপোর্টেশনের বাসগুলোতে। এই ক্ষেত্রেও স্টিকারিং ভালো ফল দেবে বলে বিশ্বাস করি।

---- মনজুর এলাহী ----

দুর্দান্ত এর ছবি

রাজাকারের বিরুদ্ধে জনমত গড়তে বেআইনী ও অশোভন প্রচার এর সাথে রাস্তার মোড়ের প্রস্রাব ঠেকাতে ভুল বানানে চিকা দেবার পার্থক্য কি?

(জ্বী, পোস্টারিং, চিকা, যেখানে সেখানে ব্যানার ঝোলানোকে আমার আশোভন মনে হয় )

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

বিলবোর্ড করে লাভ নেই। সরাসরি বিচার করতে হবে।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

নুরুজ্জামান মানিক এর ছবি

আপাততঃ

১। ঢাকায় নাগরিক শান্তি কমিটি গঠিত - দৈনিক পাকিস্তান- এপ্রিল ১১, ১৯৭১
২। মিছিলে নেতৃত্ব দেন গোলাম আযম ও নিজামী - দৈনিক সংগ্রাম -এপ্রিল ১৩, ১৯৭১
৩।পাকিস্তান রক্ষার জন্য গোলাম আযমের মোনাজাত - দৈনিক সংগ্রাম -এপ্রিল ১৩, ১৯৭১
৪। ‘যেখানে তথাকথিত মুক্তিবাহিনী আলবদর সেখানেই’ এই স্লোগান নিয়ে কুখ্যাত বদর বাহিনী গঠিত হয় ২২ এপ্রিল, ১৯৭১ -দৈনিক পাকিস্তান, পূর্বদেশ -এপ্রিল ২২/২৩, ১৯৭১
৫। সশস্ত্র বাহিনীকে সাহায্যে করার আহ্বান - আহ্বায়ক শান্তি কমিটি- দৈনিক পাকিস্তান -এপ্রিল ২৩, ১৯৭১
৬।শান্তি কমিটির তৎপরতা, মুন্সিগন্জে পাক সেনাদের বিপুল সম্বর্ধনা - দৈনিক পূর্বদেশ ১২ মে, ১৯৭১
৭। সামরিক সরকার ২৫ মার্চ রাত্রে পাকিস্তানকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করেন; তিনি শ্রী তাজউদ্দিন হয়ে গেছেন - দৈনিক সংগ্রাম ৮ মে, ১৯৭১
৮। আল্লাহু আকবরের জায়গায় জয় বাংলা দখল করে নিয়েছে - দৈনিক সংগ্রাম ১২ মে, ১৯৭১
৯। শান্তি কমিটির আবেদন : দেশের শত্রুদের মোকাবেলা করুন - দৈনিক পূর্বদেশ ১৮ মে, ১৯৭১
১০। শান্তি কমিটির আবেদন -পাকিস্তানের শত্রুদের ধরিয়ে দেয়ার জন্যে সামরিক বাহিনীকে সহায়তা করুন - দৈনিক আজাদ/পূর্বদেশ মে, ১৯৭১
১১।জামাতে ইসলামী সেক্রেটারী জেনারেল রহমতে এলাহী বলেন- নতুন করে নির্বাচন চাই - দৈনিক পূর্বদেশ, ২৪ মে, ১৯৭১
১২। জামাতের নেতা মওলানা ইউসুফ খুলনার শাহজাহান আলী রোডে অবস্থিত আনসার ক্যাম্পে ৯৬ জন জামাত কর্মী নিয়ে প্রথম রাজাকার বাহিনী গড়ে তোলেন - দৈনিক পাকিস্তান/আজাদ, ২৫-২৭ মে, ১৯৭১
১৩। মওদুদীর বক্তব্য -শেখ মুজিবের দল গুন্ডামী ও মারামারী করে নির্বাচনে জয়ী হয় -পাকিস্তানী বাহিনীর হস্তক্ষেপ যৌক্তিক- দৈনিক পাকিস্তান, জুন ৬, ১৯৭১
১৪।মুজিবের বিচ্ছন্নতাবাদী আন্দোলন জনতা সমর্থন করেনি - মাওলনা মওদুদী - দৈনিক সংগ্রাম ৭ জুন, ১৯৭১
১৫। তাজুদ্দিন ও তোফায়েলসহ অন্যান্যদের ফৌজদারী আদালতে বিচার করা হবে - দৈনিক সংগ্রাম ১০ জুন, ১৯৭১
১৬।সরকারী প্রেসনোটে পহেলা বৈশাখ নববর্ষের ছুটি বাতিল, ২৪০টি রাস্তার নামকরন হিন্দু থেকে মুসলিম করন, ৬৯টি বই নিষিদ্ধ- হিন্দুরা মুসলমানদের অস্তিত্ব বিলোপের কাজ করেছে - এই সংবাদে দৈনিক সংগ্রামের উপসম্পাদকীয় জুন, ১৯৭১
১৭।পূর্ব পাকিস্তানীরা সর্বদাই পশ্চিম পাকিস্তানী ভাইদের সাথে একত্রে বসবাস করবে - গোলাম আযম দৈনিক সংগ্রাম -২৯শে জুন, ১৯৭১
১৮। লাহোরে সাংবাদিক সম্মেলনে অধ্যাপক গোলাম আজম: “শেখ মুজিব প্রকাশ্যে কখনও স্বাধীনতার জন্যে চিৎকার করেন নি বরং মওলানা ভাষানীই বিচ্ছিন্নতাবাদের দাবী তোলেন। পূর্ব পাকিস্তানের অখন্ডতা বজায় রাখতে সামরিক হস্তক্ষেপ ছাড়া উপায় ছিল না।”- দৈনিক সংগ্রাম -২৯শে জুন, ১৯৭১
১৯। জয় বাংলা স্লোগানে পূর্ব পাকিস্তানের আকাশ বাতাস কলুষিত হয়েছে। ধর্ম নিরপেক্ষদের ধর্ম বিরোধী অত্যাচার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ময়দানে রাজাকারদের ক্ষূদ্র অস্ত্র দিয়ে গুলী চালানোর ট্রেনিং দেয়া হচ্ছে - দৈনিক সংগ্রাম - ১-৫ জুলাই, ১৯৭১
২০। জামাত সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালেকের আহ্বান- গ্রামে গ্রামে রক্ষীদল গঠন করুন - দৈনিক পাকিস্তান ৩রা জুলাই ১৯৭১
২১। জনগণ এখন স্বেচ্ছায় রাজাকার ট্রেনিং নিচ্ছে - জামাত নেতা আব্দুল খালেক - দৈনিক সংগ্রাম ৯ জুলাই, ১৯৭১
২২।সেনাবাহিনী কুখ্যাত শহীদ মিনারটি ধ্বংস করে মসজিদ গড়েছে - দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদকীয় ১৬ জুলাই, ১৯৭১
২৩।পাক সেনারা আমাদের ভাই, তারা জেহাদী চেতনায় উজ্জীবিত - মতিউর রহমান নিজামী - দৈনিক সংগ্রাম ৩রা আগস্ট, ১৯৭১
২৪।সেনাবাহিনী আওয়ামী লীগের চক্রান্ত ব্যর্থ করে দেয়- দৈনিক সংগ্রাম ৭ই আগস্ট, ১৯৭১
২৫। পাকিস্তান টিকলেই এদেশের মুসলমানরা টিকবে, দুনিয়ার কোন শক্তিই পাকিস্তানকে নিশ্চিহ্ন করতে পারবে না। গ্রামে গন্জের প্রতিটি এলাকা থেকে শত্রুর চিন্হ মুছে ফেলার আহ্বান - নিজামী -দৈনিক সংগ্রাম ৫ই আগস্ট, ১৯৭১
২৬। তথাকথিত বাংলাদেশ আন্দোলনের সমর্থকরা ইসলাম, পাকিস্তান ও মুসলমানদের দুশমন - গোলাম আযম - দৈনিক সংগ্রাম ১২ই আগস্ট, ১৯৭১
২৭।দুস্কৃতকারীদের এর পরিণাম ফল ভোগ করতে হবে - মতিউর রহমান নিজামী - দৈনিক সংগ্রাম ১২ই আগস্ট, ১৯৭১
২৮।পাকিস্তান ভূখন্ডের নাম নয় একটি আদর্শের নাম - মতিউর রহমান নিজামী - দৈনিক সংগ্রাম ১৬ই আগস্ট, ১৯৭১
২৯। ঐক্যবদ্ধ পাকিস্তান ছাড়া অন্য কোন সমাধান গ্রহণযোগ্য নয় - মাহমুদ আলী-দৈনিক আজাদ, ২৪শে আগস্ট, ১৯৭১
৩০।বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান বিশ্বাসঘাতক - মিনহাজ শহীদ - দৈনিক সংগ্রাম, ১ম সেপ্টেম্বর, ১৯৭১
৩১।পাকিস্তান হাসিলের লক্ষ্য বাস্তবায়িত না হওয়ায় বর্তমান সংকটের কারণ - আব্বাস আলী খান -দৈনিক সংগ্রাম - ২০শে সেপ্টেম্বর, ১৯৭১
৩২। জামাত বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদ মেনে নিতে রাজী নয় : গোলাম আজম - দৈনিক পাকিস্তান ২৬শে সেপ্টেম্বর, ১৯৭১
৩৩। স্বাধীন বাংলা জিগিরের উদ্দেশ্য মুসলমানদের হিন্দু বানানো - দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদকীয়, ১০ অক্টোবর, ১৯৭১
৩৪।তথাকথিত মুক্তিবাহীনির শতকরা ৯০ জন হিন্দু - দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদকীয়, ১৩ অক্টোবর, ১৯৭১
৩৫। রাজাকারদের হাতে ৪ ভারতীয় চর খতম- দৈনিক সংগ্রাম, ৫ নভেম্বর, ১৯৭১
৩৬। প্রদেশব্যাপি বদর দিবস পালিত । দেখুন স্বাধীনতা যুদ্ধের দলিলপত্র সপ্তম খন্ড থেকে নেয়া দলিলঃ

৩৭।ভারত আক্রমণ করলে কোলকাতা ও দিল্লীতে নামাজ পড়বো - আব্বাস আলী খান- দৈনিক সংগ্রাম ১০ নভেম্বর, ১৯৭১
৩৮। আল বদর বাহিনীর অভিযান: ৪০ মুক্তিযোদ্ধা গ্রেফতার- দৈনিক সংগ্রাম ১১ নবেম্বর, ১৯৭১
৩৯। আত্মরক্ষার জন্য আক্রমণাত্মক ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে - গোলাম আযম - দৈনিক সংগ্রাম, ২৪ নভেম্বর, ১৯৭১
৪০। দেশপ্রেমিক জনগণ যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত - গোলাম আযম - দৈনিক সংগ্রাম, ২৮ নভেম্বর, ১৯৭১

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

সিরাত এর ছবি

ওরেব্বাপরে!

নজরুল ভাই, ভাল কাজ করসেন! চলুক

অনিকেত এর ছবি

@মানিক ভাই, চলুক

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

আপনাকে মানিক
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

সিরাত এর ছবি

নজরুল ভাই, শাহরিয়ার কবিরের প্রাইমারি সোর্সগুলা কি বইতে দেয়া আছে?

একটা সমস্যা কি জানেন? যারা এসব জিনিসের বিরুদ্ধে, তারা শাহরিয়ার কবিরের নাম শুনলে কানে আঙ্গুল দিবে। হাসি

এটা একটা বড় বাজে সমস্যা। আমি ধরে নিচ্ছি আপনার উদ্দেশ্য সেই অডিয়েন্স না, বরং যারা 'মাঝখানে' তারা।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

যারা কানে আঙ্গুল দিতে চায়, তারা প্রয়োজনে কান ধরেও দাড়িয়েঁ থাকতে পারে। সেটা তাদের ব্যাপার। আইন অপরাধীকে শাস্তি দিবেই
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

সুমন সুপান্থ এর ছবি

---------------------------------------------------------
তুমি এসো অন্যদিন,অন্য লোক লিখবে সব
আমি তো সংসারবদ্ধ, আমি তো জীবিকাবদ্ধ শব !

---------------------------------------------------------
তুমি এসো অন্যদিন,অন্য লোক লিখবে সব
আমি তো সংসারবদ্ধ, আমি তো জীবিকাবদ্ধ শব !

অনুপম ত্রিবেদি এর ছবি

সময়োপযোগী ও তথ্যবহুল পোষ্ট, নগদে প্রিয়তে।

যে যুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে, তা এতো সহজে থামবেনা কমরেড। নতুন সূর্য তো সামনে দেখছি ... ... ...

===============================================
রাজাকার ইস্যুতে
'মানবতা' মুছে ফেলো
টয়লেট টিস্যুতে
(আকতার আহমেদ)

==========================================================
ফ্লিকারফেসবুক500 PX

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

হ, যুদ্ধ তো হপায় শুরু
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

ছোটন [অতিথি] এর ছবি

প্রশ্ন হলো, এসব প্রমান বা র্সোস কি আদালতে গ্রহনযোগ্য হবে? নাইলে তো এই কষ্ট বৃথা যাবে।

বৃথা যাবে এজন্য বলতেসি যে, এরকম ফ্যাক্ট সহ অনেক লেখাই ওয়েবে পড়েছি এবং অনেক ধরনের পাবলিক/অনলাইন পাবলিক ট্রায়াল হইসে যার বিচার জামাতের বিরুদ্ধে গেছে। কিন্তু বাস্তবে জামাত ততটা এফেক্টেড হয় নাই।

একমাত্র আদালতই পারে বাস্তবিক কোন পরির্বতন আনতে। তাই, প্রশ্ন, উপরোক্ত তথ্য প্রমান যা পোস্টে আছে কিংবা ইন্টারনেটে লভ্য, এসব কি আদালতে প্রেজেন্টেবল প্রুফ?

হিমু এর ছবি

ছোটন সাহেব, আদালতে কেউ নজরুল ইসলামের এই পোস্টের লিঙ্ক দিয়ে বিচারকদের পড়তে বলবেন, এরকম আশা মনে হয় কোনো পাগলেও করে না। তথ্যসূত্রগুলি পত্রিকা থেকে নেয়া, আন্তর্জাতিক অপরাধসমূহ (ট্রাইবুন্যাল) অ্যাক্ট অনুযায়ী পত্রিকার তথ্য মুক্তিযুদ্ধকালীন অপরাধসমূহের বিপরীতে উপস্থাপনযোগ্য এগজিবিট।

এই পোস্টগুলি আসলে নানারকম "কনফিউজড" লোকজনের জন্যে রাখা। যাদের কনফিউশন কিসুতেইইইইই দূর হতে চায় না।



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

কী প্রমাণ আদালতে গ্রহণযোগ্য হবে? লাখো লাখো প্রত্যক্ষদর্শী এখনো জীবিত...
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

নুরুজ্জামান মানিক এর ছবি

লাখো লাখো প্রত্যক্ষদর্শী এখনো জীবিত...

সেটাই । আদালতে উপস্থাপন ও গ্রহনযোগ্য তথ্য প্রমান এবং সাক্ষী রেডি আছে । যথাসময়ে আদালতে হাজির করা হবে । এই সচলায়তনেই ১৫৯৭ জন যুদ্ধাপরাধীর তালিকা প্রকাশ করেছিলাম যাদের ব্যাপারে যথেষ্ট প্রমান আছে । কৌশলগত স্বার্থে ও গোপনীয়তা বজায় রাখার নিমিত্তে এখানে সে সমস্ত তথ্য প্রমান তুলে ধরা হল না ।

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

নুরুজ্জামান মানিক
*******************************************
বলে এক আর করে আর এক যারা
তারাই প্রচণ্ড বাঁচা বেঁচে আছে দাপটে হরষে
এই প্রতারক কালে (মুজিব মেহদী)

স্বাধীন এর ছবি

এক রাজাকার পোনার দম্ভোক্তি । কি করা যায়?

হিমু এর ছবি

কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তমের হাতে ধৃত রাজাকারদের বেয়োনেট চার্জিঙের ছবিগুলি স্লাইড শো করে এই মামদার পো-র ভিডিওর জবাবে দেয়া যায়। ওর বাপদের কী করা হয়েছিলো সেটা দেখুক হাসি



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

অতিথি লেখক এর ছবি

স্বাধীন, ঘুমাইতে যাবার আগে এইটা কি দেখাইলেন? মেজাজ চরম খারাপ হইসে - রাত জাইগা সবগুলি বাংলাদেশ সংক্রান্ত ভিডিও ফ্ল্যাগ করলাম (hateful - hatred violence - national origin ক্যাটাগরি) - ততটুকুতেই যা শুনলাম তাতে মনটা যা তিতা হলো - তাতে রাতে আর ঘুম হবে বলে মনে হচ্ছে না - আপনেরাও কিছু ফ্ল্যাগ মারেন - ব্লগে সাধারণত গালি দেই না - কিন্তু আজকে কেন যেন গায়ের জ্বালা কমছে না - ******

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

এদের মুখ বন্ধ হয়ে যাবে। চিন্তা নাই।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

অতিথি লেখক এর ছবি

লেখক কে অসংখ্য ধন্যবাদ !

ত্তথ্য সমৃদ্ধ লেখাটি দেখে আনেক ভালো লাগলো।নতুন আনেক তথ্য পেলাম যেগুলো পরবর্তীতে কোন জামায়াত প্রেমীর সাথে কলম যুদ্ধে কাজে লাগবে।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

কলম যুদ্ধ জারী থাকুক
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

স্যালুট, নজু ভাই।

দল বাদ দিয়ে ব্যক্তিতে যুদ্ধাপরাধীর ব্যপ্তি নামিয়ে আনা মূলত যুদ্ধাপরাধী রক্ষার একটি কৌশল। একই ধরনের আরেকটি কৌশল হলো আমলীগ, বিএনপির আকামকে জামায়াতের ৭১এর নারকীয়তার সাথে এক পাল্লায় তুলে দেয়া।

এখানে অবস্থানটা খুব স্পষ্ট হওয়া উচিত। যুদ্ধাপরাধের জন্য জামায়াতসহ পাকিসহযোগী দল এবং আদর্শকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ করা, যেটা ইনফ্যাক্ট ৭২এর সংবিধানে কিছুটা হলেও হয়েছিলো। এরপরে ইনডিভিজুয়ালের বিচার, সেটা সাকা হোক আর হাসিনার আঁচলের তলায় এসে লুকানো কোনো কাকা হোক।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

দল হিসেবে জামায়াত ইসলাম এখন ব্যাপক কোনঠাসা হয়ে আছে। সম্ভবত তারা নাম ধাম পরিচয় পাল্টে নতুন করে দল গঠন করবে।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

নাশতারান এর ছবি

ধন্যবাদ, নজু ভাই।

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

আপনাকেও ধন্যবাদ
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

আনন্দী কল্যাণ এর ছবি

ধন্যবাদ নজরুল ভাই এত কষ্ট করে পোস্ট দেবার জন্য।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

আপনাকেও ধন্যবাদ
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

চলুক

আপন মনে ক'রে প্রিয়তে নিয়ে গেলাম।

___________
স্বাক্ষর?!
মাঝেসাঝে বুঝতে পাই- আমি
নিরক্ষর!

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

আদর করে রাইখেন
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

দুর্দান্ত এর ছবি

(Y)। মুক্তিযদ্ধের যাদুঘরের কাজ নিয়ে একটা পোস্ট দিয়েন।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

সেটা চলতেছে। আরেকটু গুছায়া লই...
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

স্নিগ্ধা এর ছবি

নইজ্যা - দারুণ কাজ! ব্যস্ততার মধ্যেও যে সময় করে এটা পোস্ট করলেন, সেজন্য আপনার দ্বিগুণ প্রশংসা প্রাপ্য হয় হাসি

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ধন্যবাদ মাথা পেতে নিলাম। তবে নিজের উপর কিঞ্চিত বিরক্ত আছি। শুধু যদি আরো একটু সময় বের করতে পারতাম। অনেক কিছু করার আছে এখন।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।