বাংলা গানের রিমিক্সঃ এখনি প্রতিরোধ প্রয়োজন

সচল জাহিদ এর ছবি
লিখেছেন সচল জাহিদ (তারিখ: বুধ, ১১/০৩/২০০৯ - ৪:৪৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

দু’শ বছরের ঔপনিবেশিক শাসনও আমাদের সমৃদ্ধ বাংলা ভাষাকে বিনষ্ট করতে পারেনি আর মাত্র কয়েক দশকের আগ্রাসনকি আমাদের সমৃদ্ধ বাংলা গানের ভান্ডারকে ধ্বংস করে দিবে?

‘সংস্কৃতি বহমান নদীর মত’ এ কথাটি প্রায়শঃ আমরা শুনে থাকি। নদী তার উৎস থেকে উৎপন্ন হয়ে সময়ের আবর্তে একেকটা দেশ-মহাদেশ পেরিয়ে পরিশেষে সমুদ্রে পতিত হয়। চলার পথে সে বিভিন্ন জায়গার জল, কাদা, মাটি নিয়ে বয়ে চলে। কখনো কখনো নানান দেশের ছোট বড় নদী এসে মিশে যায় তার সাথে আবার কখনো সে নতুন ধারা তৈরী করে তা বিলিয়ে দেয় নতুন এক দিগন্তে।প্রবাহের তীব্রতা থাকলে সেই নতুন ধারা হয়ত একই ভাবে বয়ে চলে আবার আরেকটা দেশ-মহাদেশ পেরিয়ে। কখনো কখনো নানাদেশের বর্জ্য এসে মিশে যায় মূল ধারাটিতে, কলুসিত হয় তার জল। নদীতে স্রোত থাকলে এই দূষন দূর হয়ে যায় নিমিশেই, খুব বেশী ক্ষতি হয়না নদীর, আবার কখনো দূষণের মাত্রা এততাই তীব্র হয় যে মূল ধারাটিই বিনষ্ট হয়ে যায়।বিপরীতে কখনো কখনো বিশুদ্ধ পানির ধারা এসে মিশে যায় মূল ধারার সঙ্গে, তাকে সমৃদ্ধ করে, বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয় নদীর প্রবাহ। এইভাবে একেবেঁকে বিভিন্ন চড়াই উৎরাই পার হয়ে নদী পতিত হয় সাগর আর মহাসাগরে।

ঐতিহ্যগত ভাবে আমাদের বাংলা গানের ভান্ডার সমৃদ্ধ। এই বাংলায় জন্ম নিয়েছে রবিঠাকুর, নজরুল, হাসন, লালন সহ আরো অনেকে যারা সৃষ্টি করেছে এক একটা সংগীতের ধারা।আজো বাংলার বৈশাখ, বর্ষা, বসন্ত, কিংবা পৌষপার্বন উৎসব শুরু হয় রবীঠাকুরের গান দিয়ে। রমনার বটমূল কিংবা চারুকলার বকুলতলার সেই বৈশাখী কিংবা বসন্ত উৎসবের আসর আমাদের বাঙালী সংস্কৃতির পরিচায়ক। আর আমাদের জাতীয় সংগীত যা আমাদের অহংকার তাওত রবীঠাকুরেরই অনবদ্য সৃষ্টি। নজরুলের ‘ রমজানের ঐ রোজার শেষে’ গানটি না শুনলে যেমন ঈদের আমেজই যেন পাইনা, তেমনি ‘সখি সে হরী কেমন বল, নাম শুনে যার এত প্রেম জাগে চোখে আসে এত জল’ কিংবা ‘এমন কেন হয় মা শ্যামা, তোর কথা পরলে মনে আর সবারে যাই ভুলে মা’ গানগুলি শুনলে আমরা ভক্তিতে নিজেদেরকে উজার করে দেই পুজা অর্চনায়।সমরে আমাদেরকে উজ্জীবিত করে রাখে ‘চল চল চল উর্দ্ধগননে বাজে মাদল’ গানটি, ‘কারার ওই লৌহ কপাট’ গানটি আমাদেরকে বার বার মনে করিয়ে দেয় বাঙালীর সংগ্রামের বলিষ্ঠ ইতিহাসকে।। শুধু তাই নয়, বাংলার লোকগীতি আর আধুনিক গানের ধারাও আমাদের সাংস্কৃতিক সমৃদ্ধির প্রতীক। লালনের সেই ‘সব লোকে কয় লালন কি জাত সংসারে’ কিংবা ‘তিন পাগলে হল মেলা নদে এসে’ গানগুলি আমাদের অসাম্প্রদায়ীক মানসিকতারই পরিচয় বহন করে। আবার ‘খাঁচার ভেতর অচীন পাখি’, ‘লোকে বলে বলে রে ঘর বাড়ি বালা না আমার’, কিংবা ‘মাটিরও পিঞ্জিরার মাঝে বন্দী হইয়ারে’ গানগুলি আমাদেরকে আধ্যাত্মিকতার দিকে নিয়ে যায়। এছাড়া জারি, সারী, ভাটিয়ালী, ভাওয়াইয়া, মুর্শীদি, মারফতী, কীর্ত্তন, গম্ভীরা আমাদের লোক মানুষের মুখে মুখে সৃষ্টি হয়ে পেয়েছে এক একটি নতুন ধারা।আব্বাসউদ্দিন, আব্দুল আলিম, শাহ্‌ আব্দুল করিম, আমীরউদ্দিন, রাধারমনের মত গুনী সংগীতজ্ঞরা বাংলার লোকগীতির এই ধারাকে করেছেন আরো সমৃদ্ধ।একটু চিন্তা করে দেখুনত ‘ওহো কি ও বন্ধু কাজল ভ্রমরা রে কোন দিন আসিবেন বন্ধু কয়া যাও কয়া যাও রে’ গানটিতে গ্রাম বাংলার নারীদের যে প্রেমের আবেগ প্রকাশ পেয়েছে, কিংবা ‘সর্বনাশা পদ্মা নদীরে’ গানটিতে নদীপাড়ের মানুষদের যে জীবন সংগ্রামের কথা উচ্চকিত হয়েছে তা কি আমাদের চিরন্তন বাঙালী সংস্কৃতির পরিচায়ক নয়? বাংলার লোক মানুষের উৎসব নৌকা বাইচ আজো বেঁচে আছে ‘নাও ছাড়িয়া দে পাল উড়াইয়া দে ছল ছলাইয়া চলুকরে নাও মাঝ দইরা দিয়া’ গানটির মধ্যে। উত্তরবঙ্গের ‘ হে নানা ...’ রবের সেই গম্ভীরা আজো ব্যবহৃত হয় সচেতনতামুলক যেকোন কাজে।

বাংলা চলচিত্রের স্বর্নালীদিনের সেই আধুনিক গানগুলির কথা একটু মনে করে দেখুনত, কি আবেগ ছিল সেই কথা আর সুরগুলিতে।।‘তুমি যে আমার কবিতা’ কিংবা ‘বিমূর্ত এই রাত্রি আমার মৌনতার সূতায় বুনা একটি রঙীন চাদর’ গানগুলিতে শাশ্বত প্রেমের যে ছোঁয়া বা, ‘ও রে নীল দরিয়া’ গানটিতে বিদেশ বিভুঁই থেকে প্রিয়ার কাছে ফেরার যে ব্যাকুলতা পাওয়া যায় তা কি আমাদেরকে সমৃদ্ধ অতীদের দিনগুলিয়ে নিয়ে যায়না? পশ্চিম বাংলার চলচিত্রে হেমন্ত, মান্না দে, সন্ধ্যা, কিংবা কিশোর কুমারের সেই গানগুলি আজো গুন গুন করে গাই সারাক্ষন। মান্না দের ‘কফি হাউসের সেই আড্ডাটা আজ আর নেই’ গানটি আমাদের অতীতস্মৃতিবিধুরক মনকে নিয়ে যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই দিনগুলিতে, হেমন্তের ‘অলির কথা শুনে বকুল হাসে কই তাহার মত তুমি আমার কথা শুনে হাসনাতো’ গানটি যেন তারুন্যের সেই শাশ্বত প্রেমের দিনগুলির কথা মনে করিয়ে দেয়। ভুপেনের ‘মানুষ মানূষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য’, কিংবা ‘দোলা হে দোলা’ গানটিগুলিতে মানবতাবাদের যে ভাব প্রকাশ পেয়েছে তাকি সমস্ত মানব সম্প্রদায়ের জন্য নয়? আজো ‘বিস্তীর্ন দু’পারে অসংখ্য মানুষের হাকার শুনে নিস্তব্ধে নিরিবে ও গঙ্গা তুমি গঙ্গা বইছ কেন’ গানটিতে আমাদের ক্ষোভের কথা প্রকাশ পায়।

আমরা কি ভুলতে পারি আমাদের বাংলাদেশের ভাষা আর স্বাধীনতা সংগ্রামের সেই ইতিহাসকে? বায়ান্ন থেকে একাত্তর পর্যন্ত বাংলার সমৃদ্ধ দেশাত্মবোধক গানগুলিকি আমাদের আন্দোলনকে বেগবান করেনি? আমি কি করে ভুলে যাই ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো’ গানটি, যা শুনে বা গেয়ে আজো আমার দেহের লোমগুলি দাড়িয়ে যায়, চোখে ভিজে যায় জলে।একাত্তরের সে উত্তাল দিনগুলিতে স্বাধীন বাংলা বেতের কেন্দ্রের ‘পূর্ব দিগন্তে সূর্য্য উঠেছে’, ‘জয় বাংলা বাংলার জয়’, ‘মোরা একটি ফুলকে বাচাব বলে যুদ্ধ করি’ গানগুলি কি আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদেরকে উজ্জীবিত করেনি কিংবা স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে ‘এক সাগর রক্তের বিনিময়ে’, ‘সব কটা জানালা খুলে দাওনা’, ‘এক নদী রক্ত পেরিয়ে বাংলার আকাশে রক্তিম সূর্য্য আনলে যারা’ গানগুলি যুদ্ধে আমাদের স্বজন হারানো ব্যাথাকে ভুলিয়ে দেয়নি?

আমি আগেই ব্যাখ্যা করেছি নদীর মত সংগীতের ধারাও পরিবর্তীত হয় যুগে যুগে।আশির দশকে বাংলা গানে পাশ্চাত্য ধারার যে সংমিশ্রন শুরু হয় এদেশের তরুন সমাজ তা গ্রহন করেছিল তাদের উচ্ছলতা দিয়ে। বলতে দ্বিধা নেই, এটির বিপক্ষে অনেক যুক্তি ছিল কিন্তু নিজের ধারাকে ঠিক রেখে অন্য একটি বিশুদ্ধ ধারার ভাল অংশটুকু গ্রহন করায় বাংলা সংগীত পেল সম্পূর্ন নতুন একটি মাত্রা। ফিরোজ সাঁই, আজম খান, ফেরদৌস ওয়াহিদ, ফকীর আলমগীর কিংবা লাকী আখন্দরা সেই প্রজন্মেরই ধারক ও বাহক। তাদের ‘ওরে সালেকা, ওরে মালেকা’, ‘এই নীল মনিহার’, ‘আগে যদি জানতাম’, ‘মামনি আয়’, কিংবা ‘এক সেকেন্ডের নাই ভরসা’ গানগুলিতে প্রকাশ পেয়েছে আমাদের সংগীতের সাথে পাশ্চাত্যের ধারার সংমিশ্রণ, কিন্তু তাতে আমাদের নিজস্ব সংগীত হয়েছে সমৃদ্ধ।নব্বইএর দশক পর্যন্তও এই নতুন ধারাটি থেকে আমরা পেয়েছে অসংখ্য ভাল গান যা আজো আমাদের মুখে মুখে। সংগীতের এই ধারাটি কলুষিত হওয়া শুরু করেছে যখন আমরা নিজেদের শেকড়কে বাদ বিয়ে বা ন্যুনতম প্রাধান্য দিয়ে পাশ্চাত্যের সংগীতের প্রতি ঝুকে পড়েছি এবং হিন্দি গানের মাতম আমাদেরকে উদ্বেলিত করেছে। পার্শবর্তী দেশের আমদানী বলে বাঙালীদের মধ্যে হিন্দী গানের জনপ্রিয়তা কখনই একেবারে শুন্যের কোঠায় ছিলনা কিন্তু তা কখনো আমাদের নিজস্ব গানের ধারাটিকে আবৃত করেনি যা এখন করছে।

তবে বাংলা গানের ভয়ংকর ব্যাপারটি শুরু হয়েছে বিগত দশ বছর ধরে, যার অপর নাম ‘রিমিক্স’। আমার আগের একটি লেখার মন্তব্যে বলেছিলাম যে, ‘তথাকথিত রিমিক্সকারদের বিষয়ে আমার ইতিবাচক বক্তব্য হচ্ছে তারা অন্তত পক্ষে আমাদের মুলধারার কিছু গানকে এই প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে পেরেছে । উদাহরন হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে আব্দুল করিম শাহ এর অনেক গানই এই প্রজন্মের শিল্পী হাবিব আমাদের সামনে তুলে ধরেছে। আমি বলছিনা সেই তুলে ধরাটা সঠিক ভাবে হয়েছে কিংবা হয়নি কিন্তু আমরা অন্তত গানগুলি পেয়েছি। আর তাদের বিষয়ে আমার নেতিবাচক মন্তব্য হচ্ছে তারা প্রকৃত সুরকারের সুরকে অনেকাংশে বিকৃত করে গানগুলিকে আমাদের সামনে তুলে ধরছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে যেটা হচ্ছে তা হলো আমরা গানটার আসল আবেদনটাকে হারাচ্ছি। সেদিন আমি ইউটিউবে ‘ভ্রমর কইও গিয়া’ গানটা শুনছিলাম। গানের প্রকারভেদে এটি একটি বিঃচ্ছেদি গান এবং সেটি বিচারে রেখেই রাধারমন দত্তের এই গানটি সুর করা হয়েছে। আশ্চর্য্যের ব্যাপার হলো সেই গানটির আবেদন সম্পূর্ন রূপে নষ্ট করে দিয়ে জনৈক শিল্পী সেটি রিমিক্স করেছেন’। আরো উদাহরন দেয়া যেতে পারেঃ লোকগীতির উপরে অনুষ্ঠান করব বলে হাসন রাজার একটা গান ‘মাটিরও পিঞ্জিরার মাঝে’ খুঁজছিলাম ইউটিউবে।হঠাৎ করে পেয়ে গেলাম এই গানটির একটি ‘রিমিক্স’। হাসব না কাঁদব বুঝতে পারছিলামনা, গানটির সম্পূর্ন আবেদন ধ্বংস করে দিয়ে নতুনভাবে পরিবেশন করা হয়েছে। একটি দেশীয় আধ্যাত্মিক গানকে কোন রকম চিন্তাভাবনা না করে পাশ্চাত্য ঢঙে ‘ড্রামের বিট’ আর ‘রোবটিক’ স্বর দিয়ে পুনঃনির্মান করাটাকে অন্ততপক্ষে বিশুদ্ধ সংগীতপ্রেমিক মানুষের পক্ষে গ্রহন করা সম্ভব নয়।হাসন রাজা বেঁচে থাকলে নির্ঘাৎ আত্মহত্যা করতেন!খুঁজলে এরকম শত শত উদাহরন আমরা পেয়ে যাব একটি মাউসের ক্লিকে।

এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে আজকে আমাদের এই সাংস্কৃতিক দৈন্যতার জন্য অনেকাংশে দায়ী আমাদের অনুকরন প্রবনতা। এই নিবন্ধের শুরুতে বলেছিলাম সংস্কৃতি আসলে বহমান নদীর মত, সুতরাং সে পরিবর্তিত হবেই এবং আমি মনে প্রানে পরিবর্তনের পক্ষে। কিন্তু পরিবর্তনের নামে এখন যা হচ্ছে তাকে আর সংস্কৃতি না বলে অপসংস্কৃতি বলাটাই কি শ্রেয় নয়? আমরা যদি এখনই সোচ্চার না হই তাহলে আমাদের বাংলা গানের মুল ধারাটির দূষনের হার দিন দিন বেড়ে গিয়ে এমন একটি স্থানে পৌঁছবে যে তার থেকে আমরা আর আমাদের নিজস্ব ধারাকে আলাদা করতে পারবনা।

যেমন করে বছরের পর বছরের অবহেলা আর দূষনে অপমৃত্যু ঘটেছে ঢাকার ঐতিহ্য অভিমানী বুড়িগঙ্গার, তেমনি করে একদিন অপমৃত্যু ঘটবে আমাদের ঐতিহ্যবাহী বাংলা সঙ্গীতের। কিন্তু আমরা কি পারিনা এটাকে রোধ করতে? ঔপনিবেশিক শক্তির রোষানলে পরে অনেক ভাষা পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়েছে, বিশ্বের অনেক হতভাগা জাতি আছে যারা তাদের মাতৃভাষাকে হারিয়েছে, অথচ দু’শ বচরের ঔপনিবেশিক শাসনও আমাদের সমৃদ্ধ বাংলা ভাষাকে বিনষ্ট করতে পারেনি আর মাত্র কয়েক দশকের আগ্রাসনকি আমাদের সমৃদ্ধ বাংলা গানের ভান্ডারকে ধ্বংস করে দিবে? আসুন আমরা আর একবার যুদ্ধে অবতীর্ন হই, না না ঢাল তলোয়ার কিংবা মেশিনগান দিয়ে নয়, আমাদের মানসিকতা আর কলম দিয়ে এই সব অপশক্তির বিরুদ্ধে চলুন আমরা রুখে দাঁড়াই।সবাই মিলে গেয়ে উঠিঃ

“গ্রামের নওজোয়ান হিন্দু মুসলমান
মিলিয়া বাউলা গান আর মুর্শীদি গাইতাম
আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম”

বিঃদ্রঃ ছবিটি বাংলাপিডিয়ার ইন্টারনেট সংস্করন থেকে নেয়া


মন্তব্য

রাগিব এর ছবি

কিন্তু জাহিদ, যতদূর মনে পড়ে, আজম খানের গানকেও ঐ সময়ে "বোদ্ধা"রা খুব ভালো দৃষ্টিতে দেখেনি।

রিমিক্স ব্যাপারটাই একটা হুজুগ, দীর্ঘস্থায়ী হবে না সেটা। হিন্দি গানের কথাই ধরো, ৪/৫ বছর আগে রিমিক্সে রিমিক্সে ছেয়ে গেছিলো হিন্দি গান, কিন্তু এখন সম্ভবত আর ঐরকম নাই।

হেঁড়ে গলায় ইংরেজি র‌্যাপ দিয়ে পুরানো গান রোবোটিক ভাবে গাওয়া শুরুতে নতুন ব্যাপার বলে পাবলিক খেতে পারে, কিন্তু কয়েকবার শোনার পরে আর ঐটা নিয়ে আগ্রহ থাকে না।

পুরো ব্যাপারটাকে অন্যভাবে দেখতে পারো, ধরো দেশী আলুর ফলন বেশি নাই, দামও বেশি, আর পোকা ধরা, সেইখানে এক বেপারী বিদেশী আলু নিয়ে আসলো, যা ঝকঝকে, দামে কম। তখন কি বলা যাবে যে আমাদের ঐতিহ্যবাহী আলুকে অবশ্যই আমাদের অনেক বেশী দামে কিনতে হবে, বা বিদেশী আলুর আগ্রাসনে দেশী আলু শেষ? হাসি মানসম্মত আধুনিক গান তৈরী হলে তার শ্রোতার অভাব হবে না। মানুষ ভালো জিনিষকে বাদ দিবে না, কিন্তু আধুনিক গানের কথা ও সূরে যদি ঘাটতি থাকে, তাহলে মানুষ বিদেশী গানের প্রতি ঝুকতেই পারে। বিদেশী আলুর আমদানী বন্ধ করে না দিয়ে দেশী আলুর উৎপাদন ও মানটা বাড়াতে হবে, বাজার অর্থনীতির হিসাবেই তাহলে দেশী "ভালো" আলু বিদেশী আলুকে টেক্কা দিবে।

আর হিন্দি গানের মাতামাতি কিন্তু ৮০র বা ৯০ এর দশকেও ছিলো, কিন্তু তাতে সম্ভবত গত ২০ বছরে বাংলা ভালো গান হারিয়ে যায়নি।

----------------
গণক মিস্তিরি
ভুট্টা ক্ষেত, আম্রিকা
http://www.ragibhasan.com

----------------
গণক মিস্তিরি
জাদুনগর, আম্রিকা
ওয়েবসাইট | শিক্ষক.কম | যন্ত্রগণক.কম

সচল জাহিদ এর ছবি

রাগিব তোমার কথা সত্য, সেই সময়কার ব্যান্ড সংগীতের জোয়ারকে বোদ্ধারা ভাল চোখে দেখেনি, আমি ব্যাপারটা উল্লেখও করেছি (বলতে দ্বিধা নেই, এটির বিপক্ষে অনেক যুক্তি ছিল ) কিন্তু সংগীতের নতুন ধারা বা পাশ্চাত্য আর প্রাচ্যের সংগীতের সংমিশ্রন নিয়ে আমার অভিযোগ তেমন নেই আমার প্রধান বক্তব্য রিমিক্স এর বিরুদ্ধে।

একটু চিন্তা করে দেখ, নতুন প্রজন্মের একজন শ্রোতা মুলগানটি শোনার আগে তার রিমিক্সটি শুনতে পাচ্ছে, কিছুটা তোমার আলুর উদাহরনের মত, দেশী আলু কেনার জন্য বাজারে যাবার আগেই ফেরীওয়ালারা বিদেশী আলু বাসায় ফেরী করে বিক্রি করছে। এটা কি সম্ভব আমাদের আগের প্রজন্মের শিল্পীরা তাদের আগের গানগুলি নিয়ে ফেরী করে বেড়াক?

তোমার কথাই যেন সত্যি হয়, রিমিক্স গুলো যেন দীর্ঘস্থায়ী না হয়।

_____________________
জাহিদুল ইসলাম
এডমনটন, আলবার্টা, কানাডা
http://www.ualberta.ca/~mdzahidu/


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

নৌকাডুবি এর ছবি

সংগীতের একটা ধারা, ভাল বা মন্দ যাই হোক, সেটাকে "রোধ" করতে চাইবার আইডিয়াটা কি ভাল? এই সাংগীতিক নিরীক্ষায যদি নান্দনিক কমতি থাকে, তাহলে যারা শুনছেন তাদেরই তো সেটা বুঝতে পারার কথা। তাছাড়া রিমিক্স-এর কিন্তু একটা এসথেটিক রয়েছে। রবীন্দ্রনাথও প্রচুর রিমিক্স করেছেন, এমন দাবী করাও অসংগত হবেনা। উপন্যাস ভিত্তিক সিনেমা রচনার পুরো শিল্পধারাটিই তো রিমিক্স, এক ধরণের। আর সংগীতে হিপ-হপ সহ বহু শিল্প মাধ্যমে উত্তর-আধুনিক প্রবণতার প্রকাশ অনেক সময়ই রিমিক্স-জাতীয় নিরীক্ষার মাধ্যমে ঘটে। নান্দনিক ভাবে সফল রিমিক্স আসলে রি-ইন্টারপ্রেটেশন। লেখকের উল্লিখিত উদাহরণগুলো সেই নান্দনিক সফলতা লাভ নাও করতে পারে, তবে তার জন্য রিমিক্স-এর পুরো প্রবণতাটিকে উড়িয়ে দেয়া হয়ত ঠিক হবে না।

সচল জাহিদ এর ছবি

প্রদীপ্ত প্রথমেই ধন্যবাদ তোমার মন্তব্যের জন্য।

রিমিক্সের কিছু ইতিবাচক দিক আমিও উল্লেখ করেছি, আর নান্দনিক রিমিক্স অবশ্যই গ্রহনযোগ্য এবং প্রশংসার দাবী রাখে।কিন্তু সমস্যা হচ্ছে এটির ইতিবাচক দিকের থেকে আমার কাছে নেতিবাচক দিকগুলি বেশি প্রকট মনে হয়েছে। বিশেষ করে ব্যাঙ্গের ছাতার মত যেভাবে রিমিক্সকারদের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে এবং তার থেকেও বেশী হারে রিমিক্স গানগুলিতে বাজার ছেয়ে যাচ্ছে তা আমাদের সমৃদ্ধ বাংলা সংগীতের জন্য মন্দ বই ভাল কিছু বয়ে আনছেনা।

_____________________
জাহিদুল ইসলাম
এডমনটন, আলবার্টা, কানাডা
http://www.ualberta.ca/~mdzahidu/


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

রাগিব এর ছবি

জাহিদ সম্ভবত ইদানিং কালের ড়্যাপ যুক্ত রিমিক্সের কথা বলছিলো। রবীন্দ্রনাথের রিমিক্সের সাথে ঐগুলার তুলনা আকাশ আর পাতালের মতো।

আমার মত হলো, "বোদ্ধা"রা ঠিক করে দেবে আর বাকি সবাই শুনবে, তার দরকার নাই, যেটা খারাপ সেটা এমনিতেই প্রতিযোগিতায় টিকতে পারবে না। ইতিহাসে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সেটা হয়েছে।

----------------
গণক মিস্তিরি
ভুট্টা ক্ষেত, আম্রিকা
http://www.ragibhasan.com

----------------
গণক মিস্তিরি
জাদুনগর, আম্রিকা
ওয়েবসাইট | শিক্ষক.কম | যন্ত্রগণক.কম

নৌকাডুবি এর ছবি

একটা সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করছি। লক্ষ্য করছি, যে কোন অনুচ্ছেদের শেষ দাঁড়িটি ঠিকঠাক দেখা যাচ্ছে, অন্যগুলো কেমন ব্লকের মত দেখাচ্ছে। অন্যদেরও কি তা হচ্ছে? হলে, ব্যাপারটা কি?

রাশেদ এর ছবি

রিমিক্স-এর আইনগত ভিত্তি, কি আমি জানিনা, তবে আমার মনে হয়, এটা লিগাল হওয়া উচিত না। কারন নজরুল সঙ্গিত-কে আমি আমার খেয়াল খুশি মত গাইতে পারি না, নজ রুল সঙ্গিত-এর মতই গাইতে হবে।

সচল জাহিদ এর ছবি

আমারো মনে হয় আইনগত কিছু একটা থাকা উচিৎ। কারন শুধু নজরুল বা রবীন্দ্রসংগীতই নয় যেকোন সুরকারের সৃষ্ট সুরকে তার অনুমতি ব্যাতিরেকে (জীবিত সুরকারদের ক্ষেত্রে ) বিকৃত করে দিয়ে প্রচারমাধ্যমে ( অডিও, ভিডিও, দূরদর্শন, আন্তর্জাল ) প্রদর্শন আমার মতে বৈধ হওয়া উচিৎ নয়।আর যেসব গানের স্রষ্টা আজ আর আমাদের মাঝে নেই তাদের সংগীতের মৌলিকতা রক্ষার জন্য সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রনালয় দায়িত্ব নিতে পারে, তাহলে হয়ত তাদের অমর সৃষ্টি রক্ষা পাবে রিমিক্সের রোষানল থেকে। একটা জিনিস সবাই লক্ষ্য করে থাকবেন, এই সব ব্যাঙ্গের ছাতার মত গজিয়ে উঠা রিমিক্সকারদের নজর কিন্তু জনপ্রিয় গানগুলির দিকেই বেশী, সুতরাং সেক্ষেত্রে এদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়ে খুব বেশী কঠিন কিছু হবেনা তবে তার আগে আইন থাকতে হবে।
__________________________________
আমি বৃষ্টি চাই অবিরত মেঘ, তবুও সমূদ্র ছোবনা
মরুর আকাশে রোদ হব শুধু ছায়া হবনা ।।


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

রাগিব এর ছবি

রিমিক্স-এর আইনগত ভিত্তি, কি আমি জানিনা, তবে আমার মনে হয়, এটা লিগাল হওয়া উচিত না। কারন নজরুল সঙ্গিত-কে আমি আমার খেয়াল খুশি মত গাইতে পারি না, নজ রুল সঙ্গিত-এর মতই গাইতে হবে।

দুনিয়ার কোনো আইনেই সম্ভবত কোন গান কীভাবে গাইতে হবে, তা বলা হয় না। নজরুল সঙ্গীতের কথা জানি না, তবে রবীন্দ্রনাথের গানের কপিরাইট শেষ, সেই গান অন্যভাবে কেউ গাইলে তার নিন্দা করা যেতে পারে, কিন্তু গাইতে দেয়া আইন করে বন্ধ করা হবে, এটা বাড়াবাড়ি, এবং আইনত অসম্ভব। আর "রিমিক্স" বন্ধ করা হলে শেক্সপিয়ারের রোমিও এন্ড জুলিয়েট সেই আদি রূপেই ও ডায়ালগে করতে হবে, নতুন কোনো সংলাপ বা এডাপ্টেশন করাটাও তো এক ধরণের রিমিক্স, তাই না?

----------------
গণক মিস্তিরি
ভুট্টা ক্ষেত, আম্রিকা
http://www.ragibhasan.com

----------------
গণক মিস্তিরি
জাদুনগর, আম্রিকা
ওয়েবসাইট | শিক্ষক.কম | যন্ত্রগণক.কম

সচল জাহিদ এর ছবি

দুনিয়ার কোনো আইনেই সম্ভবত কোন গান কীভাবে গাইতে হবে, তা বলা হয় না

রাগিব তোমার মন্তব্যের সাথে কিছুটা দ্বিমত পোষন করছি। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই একটি গানের তার নিজস্ব স্বরলিপি থাকে, এবং সেই স্বরলিপি মেনে চলাটা সংগীতের ক্ষেত্রে বাধ্যতামুলক পর্যায়েই পড়ে। তুমি লক্ষ্য করে থাকবে, রবীন্দ্র বা নজরুল সংগীতের ক্ষেত্রে স্বীকৃত এবং প্রকাশিত স্বরলিপি থাকাতে সংগীতের এই দুই ধারার রিমিক্সের হার প্রায় শুন্যের কোঠায়, আমার জানা মতে দুইটা উদাহরন আছেঃ নচিকেতা একবার 'যদি তোর ডাক শুনে' গানটার, আরেকবার বাংলাদেশের ফিডব্যাকের মাকসুদ 'না চাহিলে যারে পাওয়া যায়' গানটার রিমিক্স করেছিল, এবং সেই সসময় সমালোচনার ঝড়ও উঠেছিল। আমার যতদূর মনে পড়ে মানুষ গানদুটিকে ভালভাবে গ্রহন করেনি।

সমস্যা হল আধুনিক গানের ক্ষেত্রে গানের স্বরলিপি শুধু মাত্র সুরকারের কাছেই থাকে ফলে সেই গানটির রিমিক্স হলেও মানুষ খুব বেশী সমালোচনা করার সুযোগ পায়না বা সেটা আন্দোলনের মাত্রাও কখনো পায়না, গানটির স্রষ্টার এক্ষেত্রে হা হুতাশ আর নিরব অভিমান করা ছাড়া আর কিছু করার থাকেনা। লোকগীতির ক্ষেত্রে এই অবস্থা আরো শোচনীয়, কারন লোকগীতি লোক মানুষের মুখে মুখে থেকে সৃষ্ট বলে এর সঠিক স্বরলপি পাওয়া দুস্কর, এজন্য দেখা যায় একই সুরের অনেক লোকগীতি রয়েছে। যদিও ইদানিং লোকগীতির স্বরলিপির কিছু বই পাওয়া যায় তবে সেটা লোকসংগীতের শিল্পীদের দ্বারা সম্পাদিত । লালন ফকিরের গানগুলির স্বরালিপি সংগ্রহের কাজ শুরু হয়েছে বলে শুনেছিলাম, এখন কি অবস্থা জানিনা।

আমার যুক্তি হচ্ছে একজন আবিস্কারক যখন কোন কিছু পেটেন্ট করে তার মূল উদ্দেশ্য কিন্তু 'অন্যের হাত থেকে তার নিজের সৃষ্টিকে রক্ষা করা'। তাহলে একজন সুরকার যখন কোন সুর সৃষ্টি করে সেই সুরকে অন্যের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য আইন প্রনয়ন করতে বাধাটা কোথায় ? আমি কি কি পেটেন্টের যোগ্য এই বিষয়ে একটা আলোচনা শুনেছিলাম আমাদের একটা কোর্সে, তাতে যেকোন 'সৃজনশীল কলার' কথা উলেখ আছে।

আর তুমি চলচিত্র বা নাটকের কথা বলছ, উপন্যাস থেকে যখন চলচিত্র বা নাটক হয় সেক্ষেত্রে সাধারনত চলচিত্রকার বা নাট্যকার 'উমুক উপন্যাস অবলম্বনে' কথাটি ব্যাবহার করেন এবং প্রদর্শনের সময় মুল ঔপন্যাসিকের নাম ও তার সাথে 'নাট্যরুপদানকারী' বা 'চিত্রনাট্যকারের' নাম থাকে। অর্থ্যাত সেক্ষেত্রে মুল লেখক কিন্তু পর্দার অন্তরালে চলে যাননা। কিন্তু একটা গানের যখন রিমিক্স হয় তখন তার মুল স্রষ্টার কথা সিংহ ভাগ ক্ষেত্রেই অনুপস্থিত থাকে এবং বাহবাটা রিমিক্সকারের ভাগ্যেই জোটে।ভয়ংকর ব্যাপারটা হল, নতুন প্রজন্ম তখন গানটাকে ঐ রিমিক্স কারের নামেই জানে। একটি উদাহরণ দিয়ে শেষ করিঃ

একবার সংবাদপত্রে পড়েছিলাম, কোন এক পারিবারিক অনুষ্ঠানে আব্দুল জাব্বার উপস্থিত ছিলেন এবং তাকে তার একসময়ের সাড়াজাগানো 'ও রে নীল দরিয়া' গানটি গাইবার অনুরোধ করা হয়েছিল। গানটি গাইবার পরে অনুষ্ঠানে উপস্থিত একটি কিশোর ছেলে যে কিনা তার পারিবারিক বন্ধুর সন্তান তাকে বলেছিলেন, ' আঙ্কেল, তুমি পান্থ কানাইএর এই গানটি (!!) আবার একটু গাও না'। উল্লেখ্য যে 'ও রে নীল দরিয়া' গানটি পান্থ কানাই রিমিক্স করে এলবাম বের করেছিলেন।

__________________________________
আমি বৃষ্টি চাই অবিরত মেঘ, তবুও সমূদ্র ছোবনা
মরুর আকাশে রোদ হব শুধু ছায়া হবনা ।।


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

রাগিব এর ছবি

নচিকেতা একবার 'যদি তোর ডাক শুনে' গানটার, আরেকবার বাংলাদেশের ফিডব্যাকের মাকসুদ 'না চাহিলে যারে পাওয়া যায়' গানটার রিমিক্স করেছিল, এবং সেই সসময় সমালোচনার ঝড়ও উঠেছিল। আমার যতদূর মনে পড়ে মানুষ গানদুটিকে ভালভাবে গ্রহন করেনি।

মানুষ পছন্দ নাই করতে পারে, কিন্তু সেটা আইনবিরোধী না, অন্তত রবীন্দ্রনাথের গানের ক্ষেত্রে। রবীন্দ্রনাথ নিজেও কিন্তু Auld Lang Syne নামের এই স্কটিশ গানটির সুর ব্যবহার করে নিজের "পুরানো সেই দিনের কথা ..." গানের সুর দিয়েছিলেন, (রবীন্দ্রনাথের "ভাঙা গান" নামে পরিচিত প্রায় ৫০০ এর মতো গান এরকম বিদেশী গানের সুরে)। বিভিন্ন শিল্পীর রবীন্দ্রনাথের গান অন্যভাবে গাওয়া অপছন্দ করতে পারি, কিন্তু কেউ সেটা করতে পারবেনা, আইনের আদেশে, এটা বলা যায় না।

আর প্যাটেন্টের কথা যখন বলছো, প্যাটেন্ট কিন্তু কপিরাইটের চেয়ে অনেক ক্ষণস্থায়ী, আর মূলত কোনো প্রক্রিয়ার জন্য প্যাটেন্ট প্রযোজ্য। মানে কোনো শিল্পী যদি সুর সৃষ্টির কোনো পদ্ধতি আবিষ্কার করেন, সেই পদ্ধতিটা প্যাটেন্ট করা চলে, ১৭ থেকে ২০ বছরের বেশি প্যাটেন্ট দেয়া হয় না। আর লেখালেখি, গান, সৃজনশীল কলার ক্ষেত্রে যেটা থাকে, তা হলো কপিরাইট, সেটা ঐ জিনিষটাকে রিমিক্স বা এই জাতীয় "চোথা মারা" থেকে নির্দিষ্ট সময় রক্ষা করে, বাংলাদেশে স্রষ্টার মৃত্যুর পরে ৬০ বছর পর্যন্ত থাকে। কাজেই আইন ঠিকই আছে, মেধাসত্ত্ব রক্ষার্থে, রিমিক্স জাতীয় উদ্ভুত কাজের ক্ষেত্রেও সেটা প্রযোজ্য। কিন্তু রবীন্দ্রনাথের গানের কপিরাইট শেষ। মাকসুদ বা নচিকেতা সেটা অন্য সূরে গাইলে আইনগত কোনো বাঁধা নাই, আর থাকার কারণও নাই। তাদের গান ভালো হলে শ্রোতাদের মনে স্থান পাবে, আর না হলে নিন্দিতই হবে। আইন করে গান নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট বন্ধ করাটা ঠিক না হাসি

----------------
গণক মিস্তিরি
ভুট্টা ক্ষেত, আম্রিকা
http://www.ragibhasan.com

----------------
গণক মিস্তিরি
জাদুনগর, আম্রিকা
ওয়েবসাইট | শিক্ষক.কম | যন্ত্রগণক.কম

আলমগীর এর ছবি

গানের কথা, সুর (মেলডি লাইন), কম্পোজিশনের কপিরাইট হয়। (পেটেন্ট হবার কথা না)

ওলগা সংকটাপন্ন অবস্থায় আছে মন খারাপ

মুশফিকা মুমু এর ছবি

হাহাহাহা ভাইয়া "মাটিরও পিঞ্জিরার মাঝে’ রিমিক্সটা দেখে হাসতে হাসতে পরে গেলাম গড়াগড়ি দিয়া হাসি লেখার জন্য চলুক

------------------------------
পুষ্পবনে পুষ্প নাহি আছে অন্তরে ‍‍

সচল জাহিদ এর ছবি

ধন্যবান মুমু আপনার মন্তব্যের জন্য। তাহলে চিন্তা করে দেখেন আমরা কোথায় যাচ্ছি। একটি মর্মস্পর্শী গানকে এইভাবে ধ্বংস করে দেয়াটাকে কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছিনা। তবে বিষয়টি নিয়ে সবার মতামতের পড়ে আশান্বিত হয়েছি এই ভেবে যে, ইতিহাস বলে গানের এই জাতীয় পরীক্ষা নিরীক্ষা ভাল না হলে শ্রোতারা এমনিতেই তা বর্জন করবে। সেই প্রতীক্ষাতেই আছি।

-----------------------------------------------------------------------------
আমি বৃষ্টি চাই অবিরত মেঘ, তবুও সমূদ্র ছোবনা
মরুর আকাশে রোদ হব শুধু ছায়া হবনা ।।


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

সচল জাহিদ এর ছবি

লেখাটির শিরোনাম পরিবর্তন করে " বাংলা গানের রিমিক্সঃ এখনি প্রতিরোধ প্রয়োজন" করলাম কারন পুর্বের শিরোনামটি ("যুদ্ধের আহবানঃ মেশিনগান দিয়ে নয়, মানসিকতা আর কলম দিয়ে") মুল প্রসংগকে সামগ্রিক ভাবে প্রকাশ করেনা।

-----------------------------------------------------------------------------
আমি বৃষ্টি চাই অবিরত মেঘ, তবুও সমূদ্র ছোবনা
মরুর আকাশে রোদ হব শুধু ছায়া হবনা ।।


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।