ইচ্ছেঘুড়ি (পর্ব-১)

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি
লিখেছেন সুলতানা সাদিয়া [অতিথি] (তারিখ: বুধ, ০১/০৭/২০১৫ - ৯:০৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

অনি হাঁটছে। দ্রুত পায়ে। দূর থেকে যে কেউ দেখে ভাববে কোনো স্থির লক্ষ্যের দিকে জোর পায়ে ছুটে চলছে ছেলেটি। কিন্তু অনি যখন বাড়ি থেকে বের হয় তখন কোনো উদ্দেশ্য ছিল না বরং তীব্র এক অভিমান নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়েছিল। এখন অভিমান আর দুঃখের ফারাক নেই। বুকের ভেতর অভিমান জমে জমে দুঃখের বোঝা হয়ে গেছে। নিজের প্রিয় জিনিসগুলো ফেলে আসার কথা ভেবেও ওর পিছু ঘুরতে ইচ্ছে হচ্ছে না তাই। ওর প্রিয় কয়েন এ্যালবাম, পঁচিশটা রঙিন মার্বেল, ফুটবল, সাকিবের অটোগ্রাফ পাওয়া ক্রিকেট ব্যাট, নাইনথ বার্থডেতে তোড়াদির গিফট করা লক দেয়া ডায়েরি, পড়ার টেবিলের বইখাতাগুলো আর মায়ের শরীরের গন্ধ।

শুধু গন্ধ! মায়ের শাড়ির আঁচল, মায়ের সিঁদুররাঙা মুখ, মায়ের ঠাকুরঘর। পুরো মা! উহু, তবু অনি ফিরবে না। মা কি ওর পথ চেয়ে বসে আছে? মা এখন বাবাইকে ভুলে প্রাণের তোড়াকে নিয়ে মশগুল। নিশ্চয়ই মা এই মুহূর্তে তোড়াদি কোচিং থেকে ফেরার পর ওর কপালের ঘাম মুছে দিচ্ছে আর বলছে, দু’টো নাড়ু–মুড়ি মুখে দিয়ে একটু রেস্ট নে মা, দু’দিন পর এত বড় একটা পরীক্ষা! আর তা শুনে নিশ্চয়ই তোড়াদি আহলাদে আটখানা হয়ে একসাথে দু’টো করে নাড়ু মুখে পুরছে।

নাড়ু মুড়ির কথা মনে হতে ক্ষুধাবোধ ফিরে এলো অনির। সকালে নাস্তাটাই তো ঠিক মতো করা হয়নি। সেখান থেকেই তো সব গণ্ডগোলের শুরু। অনির পাশ ঘেঁষে একটা রিকশা চলে গেল। রিকশা থেকে এক যাত্রীর বিরক্ত গলা শোনা গেল,
-এ্যাই ছেলে মারা পড়বে তো, মাঝরাস্তায় উইঠা আসছো কেন? আজকালকার পোলাপানের কোনো সেন্স নাই।
অনি নিজেকে সামলে নেয়। শহরের এই রাস্তাটা খুব ব্যস্ত। বাসও যাচ্ছে হঠাৎ হঠাৎ। বাড়ি থেকে অনেক দূর চলে এসেছে অনি। কিন্তু আরো দূরে যাবে সে, বহুদূর।

চলতে চলতে অনি অনেক কিছু ভাবছে। পায়ের গতির সাথে সাথে ভাবনার গতিময়তায় ওর অভিমানের পারদ ওঠানামা করছে। অনি ঠিক করেছে, আর বাড়ি ফিরবে না ও। কিছুতেই না। দরকার হলে এখনই কিছু একটা কাজ জুটিয়ে নিবে। যেকোনো একটা কাজ। অনির এখন বড় হওয়ার ইচ্ছেটাই চলে গেছে।

ছোটবেলায় কত কি হতে ইচ্ছে করেছে! স্পাইডারম্যান, ব্যাটম্যান, সুপারম্যান, মেঘ, বৃষ্টি থেকে রঙিন ঘুড়ি! এরপর একসময় অনির খুব বাদামওয়ালা হতে ইচ্ছে করতো। দিদার বাড়ি যাবার সময় সদানন্দপুর থেকে সিল্কসিটি ট্রেন ছাড়তে না ছাড়তেই বাদামওয়ালা সুর করে করে বলতো, হেইইই, বা-দা-ম, বা-দা-ম। অনির খুব ভাল লাগতো সেই ডাক। গলায় গামছা দিয়ে কি অদ্ভুত কায়দা করে যে বাদামওয়ালা বাদাম বিক্রি করতো। অনি তো মাঝে মাঝে রাতে স্বপ্ন দেখতো যে ও রেলস্টেশনে বাদাম ফেরি করছে!

এখন আর অনির এসব উদ্ভট এইম ইন লাইফ নেই। বাবার খুব ইচ্ছে, অনি সায়েন্স নিয়ে পড়বে। তারপর অনেক অনেক ডিগ্রি নিবে। মার ইচ্ছেটা অদ্ভুত, সাত সকালে পুজোর ফুল কপালে ছুঁইয়ে বলবে, ‘বাবাই, তুই শুদ্ধ থাক বাবা। তোর কিচ্ছুটি হবার দরকার নেই।’ অনি তো শুদ্ধই থাকে। সময়মতো স্কুল ফেরত চানটান করে পরিপাটি পোশাকে লক্ষ্মী ছেলে। বরাবর গুড বয় টাইপ অনিকে তবু রোজ মায়ের একই প্রার্থনা শুনতে হয়। তবে মায়ের প্রাথর্নার সাথে সাথে অনি মনে মনে ভগবানের কাছে দু’একটা দাবী দাওয়াও রেখে বসে, ভগবান সামনের বার্থডেতে আমাকে চমৎকার একটা গিটার পাইয়ে দিও। বড় হলে আমাকে বড় একজন গিটারিস্ট বানিয়ে দিও।

মা অবশ্য এই বার্থডেতে কথা দিয়েছে, স্কুল ফাইনাল হয়ে গেলেই অনি একটা গিটার পাবে। মা আগে এত শর্তবাজ ছিল না। যত দিন যাচ্ছে, মায়ের শর্ত সংখ্যাও বাড়ছে। যখন তখন ঘরের দরজা আটকাবি না, বেশি রাত অবধি ঘরের লাইট জ্বালিয়ে রাখবি না, পড়ার বইয়ের সাথে গল্পের বই রাখবি না, স্কুল ফিরতি যেখানে সেখানে দাঁড়িয়ে আড্ডা দিবি না, রন্টুর সাথে বেশি মিশবি না।

মায়ের বেশিরভাগ না অনি মেনে নিলেও রন্টু ভাইয়ের সাথে না মেশার শর্তটা ও মানবে না বলে ঠিক করেছে। এটা অবশ্য ওর ভেতরের একান্ত গোপন কথা। বাবা কি করে যেন অনির গোপন কথাগুলো টের পেয়ে যায়। তাই মায়ের ফিরিস্তি দেয়া শেষে বাবা বলে,
-এসব বলো না মোহনা, অনি সবার সাথেই মিশবে। শুধু বলে দাও কার কাছ থেকে ও কতটুকু নিবে।
মা তখন ক্ষেপে ওঠে,
-অতো তত্ত্বকথা বলো না, কলেজের ওই ধাড়ি ছেলের সাথে এই বাচ্চা ছেলেগুলোর অত কি?

অনি জানে না অত কি। সুপারম্যানের পরে যদি কোনো আকর্ষণ অনির কাছে থাকে তা হলো রন্টু ভাই। তাই এই ব্যাপারটাতে অনি মায়ের চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার গণ্ডিকে অস্থায়ীতে পরিণত করে ইচ্ছেমাফিক। আর আজ তো অনি সব গণ্ডি পেছনে ফেলে এসেছে। তবে রন্টু ভাইয়ের কাছে একবার গেলে মন্দ হতো না। নাহ্, মা-বাবা প্রথমে রন্টু ভাইয়ের বাড়িতেই খোঁজ করবে। অনি ধরা দিতে চায় না। খুব কষ্ট ওর। খুব অপমান। কারো ভালবাসা আজ ওর গতিরোধ করছে না। তবে মা কি সত্যিই ওকে গিটার কিনে দিতো?

তবে অনির বোধহয় আর গিটারিস্ট হওয়া হলো না। এখনই ওকে কাজ জোটাতে হবে। ক্ষুধার বিকল্প যে নেই তা তো অনি ঠিকই বোঝে। ও যতটুকু বড় তাতে কোনো না কোনো কাজ ঠিকই পেয়ে যাবে। সবাই বলে বয়সের তুলনায় অনির শরীরের গড়ন বেয়াড়া রকমের ভাল। অনির বয়স চৌদ্দ, ক্লাস সেভেনে পড়ে। কিন্তু লম্বায় অনি এখনই পাঁচ ফুট ছাড়িয়েছে। কারো পাশে দাঁড়ালে অস্বস্তি থেকেই ওর ঘাড় নুয়ে আসে। বাড়িতে কোনো নতুন অতিথি এলেই বাবাকে বলে, শংকরদা, আপনার ছেলে কোন সাবজেক্টে পড়ছে। বাবা তখন ঘর কাঁপিয়ে হাসে আর বলে, আমার অনিমেষ অল সাবজেক্ট পড়ছে।

বাবার কথা মনে হতেই বুকের ভেতর কেমন একটা মোচড় দেয়। কেমন একটু ব্যথাও করতে থাকে। অনি বোঝে না, ও যে বড় হয়েছে তা সকলেরই চোখে পড়ে, মার চোখে পড়ে না? তবে কেন সকালে তোড়াদির কথা শুনে মা অনির দিকে স্টিলের মগ ছুঁড়ে মারলো? মগটা অনির গায়ে লাগেনি কিন্তু অপমানটা বিধেঁছে বুকের ভেতর। ওকে মগ ছুঁড়ে মেরেও মায়ের রাগ পড়েনি। রাগে কাঁপছিল মা, গায়ে গতরেই বড় হয়েছে, বুদ্ধি বাড়েনি। বদমাশ ছেলে! মায়ের কথা শুনে পর্দার আড়ালে দাড়ানো তোড়াদি ফিক ফিক করে হাসছিল, যেন বেশ হয়েছে, আর লাগতে আসবি আমার সাথে?

কিন্তু মাও তো জানে অনি ইচ্ছে করে লাগতে যায় না। কারো সাথেই না। অনিতো শুধু শরীরেই বড় হচ্ছে না, বুদ্ধিও তো বাড়ছে ওর! তবু কথায় কথায় ওকে কেন শুনতে হয়, শরীরটাই বড় হচ্ছে, বুদ্ধিটা না! মায়ের কথা শুনে মনে হয় বড় হওয়াটা বিপত্তি অথচ রন্টু ভাই বলে, বড় হওয়াটা অনেক মজার বিষয়। গিটার কোলে নিয়ে দু’আঙুলের ফাঁকে কায়দা করে সিগারেট ধরে রন্টু ভাই যখন কথাটা বলে, তখন অনির বড় অদ্ভুত লাগে। বড় হওয়ার রহস্যময়তার অধীরতায় অনি যখন বলে, আমি তো বড় হচ্ছিই রন্টু ভাই! রন্টু ভাই অনির কথা শুনে হাসে। সেই হাসির রহস্য অনিকে বুঝিয়ে দেয়, সে পথ আরো দূরে।

তবে অনির ক্লাসমেট সন্তু বলে, তুই এখনই তো দামড়া। দামড়া শব্দটা একটু কুৎসিত শুনালেও সন্তুর বলার ভঙিতে বেশ একটা সমীহভাব থাকে বলে অনি কিছু মনে করে না। আয়নার সামনে খালি গায়ে অনি দাঁড়িয়ে দেখেছে, দু’হাতের পেশিতে বেশ দৃঢ়তা আসছে ওর। অনির পিসতুতো ভাই পাঁচ বছরের শ্যামল সেদিন ওর কোলে উঠে বলছিল, দাদা, তোমার তো ভিমের মত মাসল হচ্ছে! আমার মাসল নাই। শ্যামলের মাথায় খুব বুদ্ধি আর এখনই খুব ফিঁচকে দুষ্টু। শ্যামলের কথা মনে পড়ে হাসি পায় অনির। পরক্ষণেই নিজেকে সামলে নেয় সে। কোনোভাবেই মন নরম করা চলবে না।

অনি এখন প্রায় ছুটছে। ছুটতে ছুটতে ও শহর ছাড়িয়ে শহররক্ষা বাঁধের উপর উঠে এসেছে। হাঁটায় অনির ক্লান্তি আসেনি। শরীরের ভেতরের অদৃশ্য এক শক্তি বরং ওকে তাড়িয়ে নিচ্ছে। আর মাইল খানেক হাঁটতে পারলেই কড্ডা চলে যাবে। কড্ডা মোড় থেকে যে কোনো বাস পেয়ে যাবে। অনি প্যান্টের পকেটে হাত দেয়। ওর মানিব্যাগ নেই। বাবার দেয়া কিছু খুচরো টাকা আছে পকেটে। পথে খেয়ে নিবে কিছু একটা। তারপর কি হবে, অনির সেটা ভাববার অবকাশ নেই।
(চলছে)


মন্তব্য

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

এতো ভাইবা দরকার কী? যা খুশি হবে। অনির বয়সে ফিরতে পারলে মজা হতো।
চলুক

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

অনির বয়সে খুব চাইতাম কিন্তু কবে বড় হবো!

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

ডুপ্লি---

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

অনির বয়সে কিন্তু খুব চাইতাম কবে বড় হবো!

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

আয়নামতি এর ছবি

অনির পিছু নিলাম। ছেলেটার বড্ড ক্ষিদে পেয়েছে, এবেলা কিছু খেতে দাও বাপু দেঁতো হাসি
পরের পর্ব জলদি আসুক। শুভকামনা।

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

খুব অভিমান যে, খাওয়ানো গেল না। মায়ের সাথে বেড়ে যাওয়া দূরত্বের প্রথম রাগটা খাবারের ওপর দিয়ে যায় যে। থেঙকু। সচলের জন্মদিনে লেখাটা এসেছে দেখে খুব ভাল লাগছে জানো। অনির বয়সের আনন্দ!

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

ইটা রাইখ্যা গেলাম...

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

অচিরেই বাড়ির কাজ ধরতে পারবো বলে মনে হচ্ছে।

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

প্রৌঢ় ভাবনা এর ছবি

একটা বুদ্ধি বের করে আগামীতে গিটারটাই নাহয় ধরিয়ে দিন। হাসি

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

কি জানি, গিটারের জন্য কম তো কথা শুনতে হয় না অনিকে। দেখা যাক। লেখাটা খুব ভোগাচ্ছে আমাকে। কোথায় যে অনিকে নিবো! জানি না। কত কি যে জানছি আমি লেখাটার সাথে। আমি নতুন করে বড় হচ্ছি যেনো। সাহস করে পোস্ট দিয়েই ফেললাম। আপনারা ভুলচুক ধরিয়ে দিলেই এগোবে।

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

এক লহমা এর ছবি

এইটা কি ঠিক হল! আমি ত অনির সাথে সাথেই চলছিলাম। এখন আমার কি হবে! কতকাল এবার এরকম থেমে থাকব? ওঁয়া ওঁয়া
লেখা চমৎকার এগোচ্ছে। দেঁতো হাসি

--------------------------------------------------------

এক লহমা / আস্ত জীবন, / এক আঁচলে / ঢাকল ভুবন।
এক ফোঁটা জল / উথাল-পাতাল, / একটি চুমায় / অনন্ত কাল।।

এক লহমার... টুকিটাকি

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

বেশিদিন না, আবার চলবে। ধন্যবাদ।

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

রানা মেহের এর ছবি

এটা কি উপন্যাস?
বড় গল্প হলে একবারে লেখেন না কেন?
একবারে পড়তেই বেশি ভালো লাগে।

-----------------------------------
আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

ক্যাটাগরি কি দিবো বুঝতে পারছিলাম না। অনেকগুলো পর্ব হবে, তাহলে কি উপন্যাস হবে? উপন্যাস কোনো দিন লিখিনি তো। বুঝতে পারছি না।

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

সিদ্ধার্থ মাঝি  এর ছবি

কখন যে রন্টু ভাইয়ের মতো বড় হব ! বড় হলে অনেক স্বাধীনতা। আপনার গল্পের বুননটা ভালো লাগলো। সামনের পর্বগুলি পড়ার জন্য আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছি। শুভকামনা।

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

আপনার সাথে কিন্তু লেখাটা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা আছে দাদা। কিন্তু আপনার মাথা তো আকাশে ঠেকে গ্যাছে। আর তো বড় হবেন না আপনি। আফসোস!

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

সিদ্ধার্থ মাঝি  এর ছবি

সাদিয়া আপা, এভাবে প্রশ্নপত্র ফাঁস করে দেয়া কি ঠিক হল ? ইয়ে, মানে... লোকজন জেনে গেলো, আমরা লেখাজোখা নিয়া আইডিয়াবাজি বিনিময় করে বেড়াই। ইয়ে মানে, পা কিন্তু মাটিতেই আছে। তাত্তাড়ি পরের পর্ব রিলিজ করেন।

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

হাসি

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

অতিথি লেখক এর ছবি

ভালো লিখছেন। চালিয়ে যান। নি:সন্দেহে লেখার হাত ভালো আপনার। অারো আরো ভালো লিখুন। শুভ কামনা

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

ধন্যবাদ

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

অতিথি লেখক এর ছবি

বাড়ি থেকে পালিয়ে, কিশোরকাল এই অভিজ্ঞতা আমারও আছে। তবে পালাব আর কোথায়, সারা রাত বিলের ধারে জোৎসা বিলাস শেষে খিদের জ্বালায় সেহরীর আগে ঘরে ফেরা।

সাদা মেঘদল

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

আপনাদের এই অভিজ্ঞতাগুলোই আমার লেখাটা এগিয়ে নিতে দরকার। অশেষ কৃতজ্ঞতা।

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

মরুদ্যান এর ছবি

পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

-----------------------------------------------------------------------------------------------------------------
যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে তবে একলা চল রে

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

হাসি

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

অতিথি লেখক এর ছবি

বাড়ি থেকে পালিয়েছিলাম আমিও, মানে পালাতে গিয়েছিলাম এক ছুটির দুপুরে, তখন ফাইভে পড়ি। মা’র উপর প্রচণ্ড অভিমান নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে ছুট লাগিয়েছিলাম। কাঁচা রাস্তা পেরিয়ে মাইলখানেক দূরের রাজপথ দিয়েও ছুটেছিলাম অনেকটা পথ। তারপর এক সবজিওয়ালা সাপ্তাহিক হাট সেরে ভ্যানে করে ফেরার পথে আমাকে একরকম জোর করেই বাড়ি পৌঁছে দিয়েছিল, আরেকজনের সাইকেল ধার করে; সবাইকে বলে দিয়েছিল যেন আমাকে কেউ না মারে ওই কারণে। আমাদের বাড়ি থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরের সেই অপরিচিত সবজিওয়ালার নাম মনে আছে আজও-রহমৎ। মানুষটা আমাকে ফিরিয়ে দিয়ে না গেলে কী অবস্থায় থাকতাম আজ জানি না।

দেবদ্যুতি

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

আমি পালিয়েছিলাম বিয়ের পর হাসি

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

জীবনযুদ্ধ এর ছবি

পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

সুলতানা সাদিয়া এর ছবি

হাসি

-----------------------------------
অন্ধ, আমি বৃষ্টি এলাম আলোয়
পথ হারালাম দূর্বাদলের পথে
পেরিয়ে এলাম স্মরণ-অতীত সেতু

আমি এখন রৌদ্র-ভবিষ্যতে

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।