শেষ রাতের ফোন: যুদ্ধাপরাধীদের সপক্ষে সংবাদ সম্মেলন

আড্ডাবাজ এর ছবি
লিখেছেন আড্ডাবাজ (তারিখ: মঙ্গল, ২৩/০৩/২০১০ - ১০:২৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বন্ধু আসিফ এতো রাতে ফোন করবে আমি নিজেও ভাবিনি। তাদের অপরাহ্ন চারটা বাজলেও ঢাকার ঘড়িতে রাত তখন দু'টো। এরকম অসময়ের ফোন নিজেকে আতঙ্কিত করে। কোন খারাপ সংবাদ না-তো-ভাবতে ভাবতে ঘুম চোখে যখন ফোনে আসিফের কন্ঠ শুনলাম, তখন বুঝতে দেরী হয়নি যে ব্যাপারটা বেশ সিরিয়াস। মার্কিন মুল্লুকের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে যুদ্ধাপরাধী জামাতীরা সেখানকার ইসলামী সংগঠনগুলোর ব্যানারে ন্যাশনাল প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে আওয়ামী অত্যাচারের ফিরিস্তি দিয়ে হিলারী ক্লিনটনের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে।

ঘটনার বিবরণ শুনে ফোনটা রেখে বিরক্ত হব, না কি রাগ করব, না কি বাথরুমে রাখা গোলাম আর নিজামীর ছবির উপর উষ্ণ পানি ঢেলে নিজেকে হালকা করব তা ভাবতে ভাবতে কয়েক মিনিট পার হলো। আজকাল কোন কিছুতে আশ্চর্যান্বিত হই না। এর আগের দিনের দৈনিকের শিরোনামটা আবারও চোখে ভাসল যে জামাতীরা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকাতে ১০০ কোটি টাকা দেশে বিদেশে লগ্নি করেছে। আমার সমস্যা হচ্ছে রাতে একবার ঘুম ভাঙ্গলে আর ঘুম আসতে চায় না। সকালে অফিসে যেতে হবে তাই একটু পানিতে চুমুক দিয়ে ঘুমাবার চেস্টা করি।

সকালে অফিসে যেতে যেতে বন্ধু আসিফের ই-মেইল আমার কম্পিউটারে এসে যোগ হয়। রাজাকার জামাতীরা খুব দ্রুত প্রেস রিলিজও বের করেছে " আমেরিকান মুসলিম টাস্কফোর্স অন সিভিল রাইটস এন্ড ইলেকশন" নামের গোত্রহীন এক সংগঠনের ব্যানারে। আমেরিকার মুসলিম সংগঠন ইসনা, কেয়ার, উম্মাহ যারা ইসলাম ও মুসলমানদের স্বার্থে কাজ করে বলে দাবী করে তারা এবার সফলভাবে যুদ্ধাপরাধী জামাতীদের পকেটস্থ হলো। মুসলিম উম্মাহ ইমিগ্রান্ট জামাতীদের আমেরিকান সংগঠন বলেই খ্যাত যেখান থেকে জামাতী নেতাদের আনুষ্ঠানিকভাবে আমন্ত্রণ জানানো হয় ও সাংগঠনিকভাবে আর্থিক সাহায্য দেওয়া হয় বলেও বিভিন্ন সময়ে পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।

নয়ন চৌধুরী (udarakash08@yahoo.com) নামে এই পেইড ভলিন্টিয়ার অবশ্য প্রেস রিলিজ বিতরণ করেছে। প্রেস রিলিজে যা লেখা ছিল তা হচ্ছে:

The American Muslim Taskforce on Civil Rights and Elections (AMT), a coalition of major national Islamic organizations, hold a news conference today at the National Press Club in Washington, D.C., to call for an end to human rights violations in Bangladesh.

At the news conference, American Muslim leaders called for "among other things" an end to extra-judicial arrests and killings, ensuring multiparty democracy, stopping abuse of the police, judiciary and administration to subdue the opposition, restoration of the rule of law, and immediate release of all those who have been unlawfully detained.

AMT is an umbrella organization that includes American Muslim Alliance (AMA), American Muslims for Palestine (AMP), Council on American-Islamic Relations (CAIR), Islamic Circle of North America (ICNA), Muslim Alliance in North America (MANA), MAS-Freedom, Muslim Student Association-National (MSA-N), Muslim Ummah of North America (MUNA), and United Muslims of America (UMA). Its observer organizations include American Muslims for Civic Engagement (AMCE), Islamic Educational Council of Orange County (IECOC), the Islamic Society of North America (ISNA), and Muslim Public Affairs Council (MPAC).

Nihad Awad of CAIR , Imam Mahdy Bray of MAS-FF, Dr. Sulayman Nyang of MACC-PAC, Selim Akhtar of AMT, Dr. Abul Kashem of BAIS discussed wide spread human right violations, suppressing opposition and wrongful accusation and persecution of Islamic leaders in the name of so-called "war crime issues"“ was addressed. Deputy Ambassodor of BD in Washington DC was in the audiance, along with some local Awami League leaders.

প্রেস রিলিজের শেষ দু'লাইন পড়ে আমার আক্কেল গুড়ুম। মাথামোটা আওয়ামী কর্মী আর বাংলাদেশ দূতাবাসের উপপ্রধানও না-কি সেখানে হাজির ছিল। এরাই বুদ্ধির ঢেঁকি!!! আমি প্রেস রিলিজটা পড়ে বন্ধু আসিফকে ফোন করি: আচ্ছা বাংলাদেশ মিশন বা অন্য কেউ এই অপপ্রচারের প্রতিবাদ করে কি পাল্টা কোন প্রেস রিলিজ দিয়েছে? ফোনের অন্য পাশ থেকে আসিফের খিকখিক হাসিতে আমার মেজাজ বিগড়ে যায়। জামাতীরা মার্কিন মুল্লুকে "সেইভবিডিডট কম" বলে ওয়েবসাইট দিয়ে শুরু করেছে অপপ্রচার। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে জোট সরকারের অনেক সমালোচনা থাকতে পারে। কিন্তু তাই বলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে কি কোন প্রশ্ন থাকবে?

যুদ্ধাপরাধী রাজাকার জামাতীদের রক্ষায় কড়ি আর বড়ি নিয়ে নেমেছে তখন সেখানকার মিশনের সরকারী কর্তাব্যক্তিরা আর মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তিরা বসে বসে আঙ্গুল চুষছে। অনেক সময় মনে হয়, হয়তো সর্ষের ভেতরই ভূত থাকে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ঘন্টি যতো বাজবে, দেশে বিদেশে জামাতী বান্দরদের আস্ফালন ও নর্তন-কুন্দনও ততো বাড়বে। গোলাম আজম, নিজামী, সাঈদী সহ সকল যুদ্ধাপরাধীদের অপকর্মের ডোশিয়ার হিলারী ক্লিনটন আর আমেরিকান মিডিয়ার কাছে কারা পাঠাবেন? যেসব ইসলামী সংগঠনের ব্যানারে এই সংবাদ সম্মেলন হলো তাদের কাছে কেউ কি লিখবেন? সম্ভবত: কেউ না। এভাবেই যুদ্ধাপরাধী জামাতীরা শেষ পর্যন্ত আশ্রয় প্রশ্রয় পাবে। ফাঁক ফোকর দিয়ে বেরুবে।

মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তির সবচেয়ে বড়ো দূর্বলতা হচ্ছে তাদের দূর্বল নেটওয়ার্ক। না হলে এতোক্ষণে আসিফ আবার ফোন করে বলতো: " আগামীকাল সকালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবীতে ওয়াশিংটন ডিসি'র প্রেসক্লাবে এক পাল্টা সাংবাদিক সম্মেলন ডাকা হয়েছে। এতে বাংলাদেশের ইসলাম মুখোশধারী যুদ্ধাপরাধীদের অপকর্মের সচিত্র প্রতিবেদন দিয়ে হিলারী ক্লিনটনের কাছে পাল্টা প্রতিবেদন পাঠানো হবে। এছাড়া, ইসলামী বেনারের আড়ালে আমেরিকায় ধর্মীয় মৌলবাদী শক্তির উত্থানে উৎকন্ঠা প্রকাশ করে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার তদন্ত দাবী করা হয়েছে"।


মন্তব্য

ওডিন এর ছবি

প্রেস রিলিজের শেষ দুই লাইন পড়ে তো আমারো আক্কেলগুড়ুম হওয়ার দশা!

পুরো লিঙ্কটা এখানে দিয়ে দিলাম।

আইনমন্ত্রী না বলে ঘুইরাফিরা অনেক সমর্থনটমর্থন নিয়া আসলো? কি করতেছে এই লোক?
______________________________________
যুদ্ধ শেষ হয়নি, যুদ্ধ শেষ হয় না

নাশতারান এর ছবি

যুদ্ধাপরাধের নামে মুসলিম নেতাদের হেনস্তা ! অ্যাঁ

আসলেই ভীষণ অন্যায় হয়েছে। এমন কীই বা করেছে? ত্রিশ লক্ষ বাঙ্গালিকেই না হয় খুন করেছে, ধর্ষণই না হয় করেছে এদেশের মেয়েদের, বুদ্ধিজীবী হত্যাই না হয় করেছে। তাই বলে এমন ব্যবহার মুসলিম নেতাদের সাথে !

ওয়াদ্দা এফ !!!!!

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

মামুন হক এর ছবি

যুদ্ধাপরাধী রাজাকার জামাতীদের রক্ষায় কড়ি আর বড়ি নিয়ে নেমেছে তখন সেখানকার মিশনের সরকারী কর্তাব্যক্তিরা আর মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তিরা বসে বসে আঙ্গুল চুষছে।

--আমাদেরও একই অবস্থা। জামাতিরা যেখানে হরিহর আত্মা, চোরে চোরে মাসতুতো ভাই হয়ে একাট্টা বসে আছে সেখানে আমরা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোকদের মাঝেও হাজারো বিভেদ। জিজ্ঞেস করে জেনেছি রাজনৈতিক অবস্থান এক না হলে নাকি এক হতেও সমস্যা--সে উদ্দেশ্য যতই মহৎ হোক। তুচ্ছ কারণে আমরা একে অপরকে বাতিলের খাতায় ফেলে দেই। আমরা নিজেদের মধ্যে রেষারেষিতে ব্যস্ত আর জামাতিরা চুরি করে নিয়ে যায় আমাদের পক্ষের লেখক, চিন্তক, গবেষকদের।

সরকারের আর একার কী দোষ। আমরা সবাই দোষী কম বেশী।

অম্লান অভি এর ছবি

জব্বর বলেছেন, সালাম। লাল শব্দটা লাগাতে পারলাম না। 'কষ্টে আছি আইজুদ্দিন' বদলে ভাবতে হবে 'কষ্টে আছি বিচার প্রত্যাশি'! লাঞ্চের ফাঁকে নিয়ে যাচ্ছি কষ্টের একরাশ শব্দাবলী, নিতে হবে আরো মাটিটা উর্বর রাখি বেঁচে থাকার জন্য।

মরণ রে তুহু মম শ্যাম সমান.....

স্নিগ্ধা করবী [অতিথি] এর ছবি

রাগে মাথা 'কিড়কিড়ড়ড়ড়ড়' করে।

-স্নিগ্ধা করবী

হাসান মোরশেদ এর ছবি

ইসলামিক সার্কেল অফ নর্থ আমেরিকা(আইসিএনএ) বিষয়ক একটি রিপোর্ট।
-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

বইখাতা এর ছবি

প্রেস রিলিজের শেষ দুই লাইন পড়ে হতবাক হয়ে গেলাম।
আমরা নিজেদের অবস্থান থেকে যার যার মত করে এইসব যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে কাজ করতে পারি । আর কিছু না পারি অন্তত আমার আশেপাশের মানুষদেরকে, যারা নিজেদের বৃত্তে সুখী, এসব নিয়ে ভাবেন না, তাদেরকে এবং ছোটদেরকে, যারা এসব বিষয় নিয়ে বিভ্রান্ত বা পরিষ্কার ধারণা নাই, তাদেরকে সচেতন করা, পত্রপত্রিকায় লেখা, সামাজিকভাবে যুদ্ধাপরাধীদের সাথে সম্পর্কযুক্ত মানুষদেরকে বর্জন করা, উইকিতে মুক্তিযুদ্ধ, যুদ্ধাপরাধীদের নিয়ে লেখা ইত্যাদি.....।

কেউ না  [অতিথি] এর ছবি

আওয়ামী লীগের আশরাফ যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিষয় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, খুব শিগগির চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হবে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার একটি 'প্রতীকী' বিচার।

আওয়ামী লীগের শফিক বলেন, "সিমলা চুক্তির মাধ্যমে পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীর বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়েছে, ......"
http://www.bdnews24.com/bangla/details.php?id=121474&cid=2
এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় খুন, ধর্ষণ, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের সঙ্গে জড়িতদের মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ হিসেবে ধরে নিয়ে বিচার করা হবে। এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধের আইনে নয়, বিচার হবে আন্তর্জাতিক মানবতাবিরোধী অপরাধ আইনে। এ কারণে সবাইকে যুদ্ধাপরাধ শব্দটির ব্যবহার বাদ দিতে হবে।
http://www.amardeshonline.com/pages/details/2010/03/17/23158

তবে কি আওয়ামী লীগ নিজেই.......?

প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার না করে একটি নির্দিস্ট ধারার রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে দমন নীতি ইত্যাদি চালিয়ে প্রতীকী বিচার করার অর্থ হবে মুক্তিযুদ্ধকে অবমাননা করা।

হিমু এর ছবি

প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার না করে একটি নির্দিস্ট ধারার রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে দমন নীতি ইত্যাদি চালিয়ে প্রতীকী বিচার করার অর্থ হবে মুক্তিযুদ্ধকে অবমাননা করা।

খানিকটা দেখা গেলো। আরো কিছু বলুন ভাইয়া। পুরোটা দেখি।



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

সোয়াদ [অতিথি] এর ছবি

কী মুশকিল! যেই আমি একটা কমেন্টে বললাম আমি মানুষকে বেকুব ভাবি না সেই দলে দলে বেকুবরা সচলে হানা দেয়া শুরু করলো।

হুমায়ুন আজাদ বলেছিলেন "মানুষের ওপর বিশ্বাস হারানো পাপ, কিন্তু বাঙালীর ওপর বিশ্বাস রাখা বিপদজনক।"
কোথায় যাই।

হাসান মোরশেদ এর ছবি

জামাতের বিচার করলে মুক্তিযুদ্ধের অবমাননা হবে। হাহাহাহা দেঁতো হাসি

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

উদ্ভ্রান্ত পথিক এর ছবি

ম্যাৎকারটা কেমন জানি চেনা চেনা লাগতেছে চোখ টিপি
---------------------
আমার ফ্লিকার

---------------------
আমার ফ্লিকার

নজরুল ইসলাম এর ছবি

চিল্লায়া লাভ হবে বলে মনে হয় না... এবার ঠিকঠাক গলায় দড়ি উঠবে...
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

অকুতোভয় বিপ্লবী এর ছবি

বলেন সবাই সুবহানআল্লাহ

---------------------------------------------------
ইটের পরে ইট সাজিয়ে বানাই প্রাণের কবিতা ...

------------------------------------
সময় এসেছে চল ধরি মোরা হাল,
শক্ত কৃপাণে তুলি বরাহের ছাল।

Sajjad Jahir এর ছবি

Are those organizations planning to stop the WAR CRIME TRIBUNAL in Bangladesh?‏

The Bangladeshi secularists and all those who want the war ciminals of 1971 to face justice have something to worry about. It is a matter of grave concern Dr. Agha Saeed and a group of Islamist organizations have joined forces ultimately to help the cause of the Jamat-i-Islami and other Islamist organizations of Bangladesh. The news release with the link below indicates it all. The press conference was held yesterday in the US Capital. These US based Islamist organizations have the strong backing of petro-dollars and as it seems they might work as a pressure group to stop the ensuing WAR CRIME TRIAL in Bangladesh.
http://www.prnewswire.com/news-releases/dc-us-muslims-to-denounce-rights-violations-in-bangladesh-88659417.html

Mind you, during the days of BNP-Jamaati terrorism, during the time of Hawa Bhavan's cold-blooded killing spree, the organizations like CAIR, ISNA, ICNA, or the Muslim Ummah of America kept their mouth totally shut. Not a single moment they did bother to be the "champion of human rights" in Bangladesh during the dark period of the BNP-Jamaat misrule.

The following link will indicate how much the political clout the US based Islamist organizations do possess.

http://therealbarackobama.wordpress.com/2009/06/18/ellisons-muslim-alliances/

-Sajjad Jahir

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

Mind you, during the days of BNP-Jamaati terrorism, during the time of Hawa Bhavan's cold-blooded killing spree, the organizations like CAIR, ISNA, ICNA, or the Muslim Ummah of America kept their mouth totally shut. Not a single moment they did bother to be the "champion of human rights" in Bangladesh during the dark period of the BNP-Jamaat misrule.
ঠিক একই রকম কারণে এখনকার কিলিং নিয়ে আমরা আর কেউ কথা বলিনা, তাইনা? সবাই এখন মুখে কুলুপ দিয়ে বসে থাকি, সবাই এখন শুধু হা হুতাশ করি কিন্তু মুখ ফুটে কিছু বলিনা।

ক্রসফায়ার নিয়ে যারা একসময় মানবতার কথা বলে কুম্ভীরাশ্রু ফেলত, তাদের অশ্রু হঠাৎ করে কেন শুকিয়ে গেল ভাই?

Sajjad Jahir এর ছবি

CAIR, ICNA, Bangladeshi war criminals and those "human rights crusaders"

Many expatriate Bangladshis were sympathetic to a few of those US based Islamist groups. In an alien land dealing with maintaining an uncertain identity, many of the secularist expats even became silent followers of quite a few Wahhabi influenced Islamist organizations. Many of them were naieve enough not to realize that CAIR, ISNA, ICNA, Muslim Ummah of North America and Bangladesh Jamaat have very identical political agenda. The notorious 1971's death squad ringleader Ashrafuzzaman Khan is a leading member of ICNA.http://bd71.blogspot.com/2007/12/ashrafuzzaman-khan.html Undoubtedly, US based Islamists would love to whitewash his dirty past. http://www.americansagainsthate.org/Ashrafuzzaman_Khan_ICNA.html

CAIR has a controversial image in USA. http://97.74.65.51/readArticle.aspx?ARTID=8661 Nonetheless, all these years the so-called pro-liberation Bangladeshi expats might have been day dreaming that when chips were down CAIR would side with them. Yesterday's Washington DC press conference exposed a plain fact that this pseudo human rights organization is nothing but a diehard supporter of those cold blooded mass murderers of 1971's Bangladesh. Shame on CAIR, ICNA, ISNA and of course MUSLIM UMMAH OF NORTH AMERICA!

-Sajjad Jahir

আশরাফ মাহমুদ এর ছবি

খাইছে।

আমার বারবার মনে হয় জামাত ও ধর্মভিত্তিক রাজনীতি আগে নিষিদ্ধ করা হোক। তাহলে বেজন্মাদের মূল উচ্ছেদ করা আরো সহজ হবে। তবে কাজটি দ্রুত করা উচিত। খুব দ্রুত।
==============================
ঢাকার মৌন ঘ্রাণে বকুলফুলের নাভি
==============================
হা-তে এ-ক প্র-স্থ জো-ছ-না পা-ড়ে-র ঘ্রা-ণ

আড্ডাবাজ এর ছবি

কথা সত্যি। এই জামাতী পরগাছা আবর্জনাদেরকে যতো তাড়াতাড়ি সমাজ ও পৃথিবী থেকে মুছে দেওয়া যাবে ততো মঙ্গলজনক। বাংলাদেশের মাটিতে এদের কবরের জায়গাও হওয়া উচিত না। তাই দ্রুত বিচার করে এসব জামাতী জঙ্গীবাদী গোষ্ঠীকে ঝেঁটিয়ে বিদায় করতে সবাইকে আরেকবার একত্রিত হতে হবে।

অন্ধকারের উতস হতে উতসারিত আলো

সাফি এর ছবি

শেষমেশ কিনা বিধর্মী বেপর্দা মহিলার স্কার্টের নিচে জায়গা খুঁজল গোআ মুজা রা?

অবাক লাগে এরকম যেকোন পোস্টেই কেমন কেমন করে জানি ছাগুরা লুংগিতে মুখ ঢেকে মন্তব্য করতে চলে আসে!

অকুতোভয় বিপ্লবী এর ছবি

ধ্রুব সত্যি কথা হল, লুংগি দিয়ে মুখ ঢাকতে গিয়ে লুংগির ভিতরে যা থাকার কথা সেটা ফাট্ করে বের হয়ে যায়।

---------------------------------------------------
ইটের পরে ইট সাজিয়ে বানাই প্রাণের কবিতা ...

------------------------------------
সময় এসেছে চল ধরি মোরা হাল,
শক্ত কৃপাণে তুলি বরাহের ছাল।

sajjad Jahir এর ছবি

A observer in the US west coast commented on the Press Conference:.....while I do believe Bangladesh deserves many of the accusations levied, it is surprising that Bangladesh has been, as you say, singled out. For one, Bangladesh IS an multi-party democracy - which America is not - and certainly most of the Arab countries are not even democracies!!! There must be more to this worth digging in!

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

সাজ্জাদ ভাই,
কষ্ট করে একটু বাংলায় লিখুন না, প্লীজ। আমাদের বুঝতে সহজ হত।

====
চিত্ত থাকুক সমুন্নত, উচ্চ থাকুক শির

হাসান মোরশেদ এর ছবি

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

হরেকৃষ্ন এর ছবি

আমি যে সংবাদটি পড়েছি তাতে এই প্রেস রিলিজটি যে সত্য লুকিয়েছে তা বোঝা যাবে। এখানে আরো দেখুন।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA