অনিন্দ্য রহমান এর ব্লগ

অপেশাদার

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: শনি, ২৭/১১/২০১০ - ২:৪৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

তখন কন্টাক্টরি করতাম। কাজটাজ জিগায়ো না। অর্ধেক ঘুষ দিয়া ভালো কাজ হয়না। তবে আল্লায় দিলে অখোনো কিসু ভাইঙ্গা পড়ে নাই।
সরকারি অফিসে ছোটোমোটো কেরানির চাকরি করত রোটেনের মায়। রোটেনের বাপ নাই। এই নিয়া রহস্যও নাই। রোটেনরে আমি প্রথম দেখি তার মায়ের অফিসের উল্টা পাশের চায়ের দোকানে। কোনায় বইসা ছবি আঁকে। ভ্যান্দা মতন পোলা। সেই সময় আমারও অফিস ঐদিকে আসিল। আমি চা খাইতে আইসা পোলাটারে পাইলাম ...


৬টা

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: মঙ্গল, ২৩/১১/২০১০ - ১:৩৬পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[অপ্রাসঙ্গিক] বাংলা উইকিপিডিয়া থেকে: কবিতা সাহিত্যের একটি প্রধান শাখা ; আরেকটি প্রধান শাখা হলো গদ্য। কবিতা সম্ভবত সাহিত্যের আদিমতম শাখা। কবি হৃদয়-নিহিত ভাবের ছন্দোবদ্ধ ও শিল্পিত প্রকাশ কবিতা বলে পরিচিত। বলা হয়েছে কবিতা হল ধ্বনি সুষমার সাথে ভাবের সমন্বিত প্রকাশ। বলা হয়েছে: কবিতা হলো যথাস্থানে যথা শব্দ যা প্রতিস্থাপনীয় নয়। মানুষের যে কোনো ভাব, ভাবনা, পর্যবেক্ষণ ইত্যাদ ...


নুরিশার বিবিধ বাগান

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: শনি, ৩০/১০/২০১০ - ২:৩১পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

গুটিয়ে নেয়াই যাদের একমাত্র আত্মরক্ষা, সেই কেঁচোর সাথে লনমোয়ারের ভাব হলো না। আর এতে, আমরা প্রাকৃতিক চিত্রকল্প, মানবিক প্রতীক-টতিক, জীববিজ্ঞান বা গার্হস্থ্য অর্থনীতি এইসব খুঁজে পেলাম যার যার মতো। কিন্তু মূলত এই গল্প আমাদের কাছে কখনো ধরা দেয়নি।
গল্প
এই মাটি কারো নয়। তারাজুর মা-বাপ, তাদের পিতৃকুল কারোর নয়। কেবল আড়কাঠি বলেছিল মাটি লয় রে ঐখানে সোনা পাবি। তাই মাটি দিয়ে কী। তারাজুর পি ...


মহা৮মীর পুতুলকথা

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: শুক্র, ১৫/১০/২০১০ - ১১:৫১অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

খড়গ শব্দটা একবার ডয়শূন্যড়এ আটকানোর পর শেষে গোল হয়ে গেল, বেশ গোল, এদিকে ত্রিশূল শব্দটাও ত্রিংঙঙঙ করে একটা ধাতব আওয়াজ করে দীর্ঘঊকারএর ঢাল বেয়ে ল হয়ে থেমে গেল, যেই লটাও গোলগোল লাগে, অথচ তীর শব্দটা আমার পছন্দ বিশেষ, কারণ ছোট্ট এই শব্দটা তী করে একবারেই ছুটে যায়, ছুটে গিয়ে, যেহেতু দীর্ঘঈ, তার দীঈঈর্ঘপথশেষে বয়শূন্যরএর সুক্ষ্মবিন্দুতে গিয়ে লক্ষ্যভেদ করে, আর যেহেতু লক্ষ্যভেদকরা তীর আমার ...


জ্ঞানী উই

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: শুক্র, ০১/১০/২০১০ - ৬:১৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

প্রথম পোকার স্বর:
এ জীবন
নিষ্ঠুর, নিষ্ঠুর।
(জেন কবিতা)
ইয়ে কোম্পানি ক্যায়া চিজ হ্যায়?
(ক্যাপ্টেন উইলিয়াম গর্ডনকে মঙ্গল পান্ডের প্রশ্ন)


জ্ঞানী উইকে আমরা ভুলি নাই। শিশুকাল থেকেই উই পড়তে শিখে। সেই থেকে তার নাম জ্ঞানী উই, কারণ আমরা কেউই কখনো পড়তে শিখি নাই। একদিন জ্ঞানী উই বসে ছিল ছোট বিলের ধারে। খড়ের গাদা থেকে মিষ্টি একটা গন্ধ আসছিল। আর বৃষ্টিতে ধুয়ে যাওয়ার পর আকাশটা কমলা রঙের। জ ...


শারদীয় সদমা

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: মঙ্গল, ২৮/০৯/২০১০ - ৪:০২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

কয়েকদিন ধরে ধস্তাধস্তির পর একটা গল্প লিখলাম। একদম বানিয়ে বানিয়ে।

জুলেখার মা ছিল পাগল। বাপের খোঁজ জানি না। জুলেখার মাকে একটা খালি ঘরে রাখার নিয়ম ছিল। খালি ঘর, কারণ সে সব আসবাব কুপিয়ে ভাঙত। তাকে আমরা ভাঙনবুড়ি ডাকতাম। আমাদের আম্মারা এইসব বলতে মানা করত। কে শোনে। জুলেখা কোনো স্কুলে পড়ত না। তবে তখনকার দিনে তাকে মাঝে মাঝে জানলায় দেখা যায়। রঙবেরঙের জামা গায়। জানা যায় এগুলো সেই বানা ...


নরতক্-এর (মিউজিয়ামে) হাঙর-দর্শন

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: শনি, ০৪/০৯/২০১০ - ৫:৪৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

 
__নিয়ম জানা আছে? বগা, নিয়ম জিগায়। জানোস নিহি? কইয়া দে জানি ।
দুইটা লোক চলে যায়। একজনের নাম বগা।
__যেতে হবে আমারও, যেতে যেতে এক পর্যায়ে বেরিয়ে যাব। ওই দূরে। হলের পর হল, দরজার পর দরজা। যেতে যেতে পেরিয়ে যাব। ওই দূরে মাঠ। রোদ খাবি খায়। গরু ঘাস। এইখানে না। এইখানে মিউজিয়ামে থকথক করে সবুজ বাতি। নিভে যায় সময়-সময়। পরিত্যক্ত পাবলিক টয়লেটের মতো। ঘিরে থাকে। ঘাড় চেপে ধরে দেখায় একেকটা ইউরিনাল। ...


অকালসন্ধ্যা

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: বিষ্যুদ, ০২/০৯/২০১০ - ১২:৫৪পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১. কৈফিয়ত:

আমি বিশ্বাসী না। আমি অবিশ্বাসী না। এবং এই দ্বন্দ্বের হেতু আমার অত্যন্ত অজানা।
এই কথাকাহিনী আমাকে না লিখতে হলেই ভালো হত। এই পৃথিবীতে অজস্র কিছু ঘটে। সব লেখার দায় ও দায়িত্ব আমার না। তবু আমি নিজ থেকে, নিজের থেকে, লিখতে গেলাম এই কথাকাহিনী ...
দেখ, সে অকস্মাৎ আজ ফিরে আসে, যেখানে তার ফিরে আসবার কথা - এই সমতলে, শূন্যতায়।

২. নীরবতায় রচিত স্বগতোক্তিসমূহ:
দীর্ঘ পথ আমাকে আসতে হয়ে ...


আন্ধা কানুন

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: শুক্র, ২৭/০৮/২০১০ - ১:৩৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

যৌবন কাজের সময়। তাই দোয়েল চত্বর থাইকা মতিঝিল যাইতে হবে। আমি আর বাল্যবন্ধু। মাঝখানে প্রেসক্লাবের মোড় আইসা তার সাথে দেখা। হাতে গু। রিকসা থাইকা লাফ দিতে পারতেসিলাম না, পাশে পদ্মা অয়েলের তেলবাহন। এই বেলা কারে তেল সাপ্লাই দিতে যায় বুঝি নাই। বুঝার টাইমও নাই। কারণ তার সাথে দেখা। হাতে গু।

পকেটে ৪০ টাকা আছিল। ৪০ ট্যাকায় এক পেগ জরিনা+৫টাকা। কিন্তু গুবাবায় আরো উচ্চক্ষমতার মাল টানে। সুত ...


৪টি ক্ষুদ্র গল্প

অনিন্দ্য রহমান এর ছবি
লিখেছেন অনিন্দ্য রহমান (তারিখ: বুধ, ২৫/০৮/২০১০ - ২:২০পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ভাবলাম কিছু ফ্ল্যাশ ফিকশন লিখি। চেষ্টা করতে তো ক্ষতি নাই। এক্ষণে সুচিপত্র দেই : (১) টাইম অ্যান্ড মানিরে সিঙ্গুলার ধর্তে হবে (২) ফিরত (৩) ডিকশনারি এবং (৪) রাজনৈতিক যানজটের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস। চারোটাই ভিতরে পাইবেন। লেখক শুভাশীষের থেকে উত্তেজনা পাইলাম। তার ঋণ স্বীকার যাই।

১/ টাইম অ্যান্ড মানিরে সিঙ্গুলার ধর্তে হবে

শাহবাগের মোড় সৎরো মিনিট আটকা।
টাইড মে গো অ্যাহেড।
টাইম অ্যান্ড মানি ...