দুষ্ট ছেলে শিষ্টকরণ ও আমাদের চলচ্চিত্র

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি
লিখেছেন অছ্যুৎ বলাই (তারিখ: সোম, ২৬/০৪/২০১০ - ৬:৩৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১.

আমি সেই বিরল প্রজাতির দুষ্ট ছেলেদের একজন, যাকে পড়াশুনোয় ভালো হওয়া এবং খেলার মাঠে গ্যাঞ্জাম না করা সত্ত্বেও মায়ের হাতে রুটিনমাফিক ধোলাই খেতে হয়েছে। অবশ্য ধোলাইয়ের কারণে না গিয়ে বরং তার স্টাইলে ফোকাস করি। আমার ওপর সাধারণত গেরিলা পদ্ধতিতে ঝটিকা আক্রমণ হতো। নিজের অপরাধ সম্পর্কে অজ্ঞতার কারণে অনেক সময়ই পূর্ব প্রস্তুতির সময় পেতাম না, মাইর খাওয়ার পরেই হয়তো বুঝা যেতো কোন অপরাধের জন্য এই শাস্তি। তবে একবার মাথায় আঘাত পাওয়ার পর থেকে ঝটিকা আক্রমণ পদ্ধতিতে কিছুটা পরিবর্তন আসে। তখন মাইরের আগে দঁড়ি দিয়ে হাত-পা বাঁধা হতো। তারপর পুলিশি ধোলাইয়ের মতো বৈজ্ঞানিক পন্থায় মাথা বাঁচিয়ে হাত, পা এবং পিঠের ওপর দিয়ে বেছে বেছে কুটির শিল্প চালনা হতো। এই কুটির শিল্পের আওতায় বেতের ব্যবহার কম হলেও জিয়ল গাছের ডাল এবং খেঁজুর গাছের ডাঁটা খুব জনপ্রিয় ছিলো।

আমাকে পেটাতে গিয়ে মা অনেকগুলো সমস্যার মুখোমুখি হতেন। প্রথমত, যতোই মাইর খেতাম, আমার নৈতিক অবস্থান থেকে একচুলও নড়তাম না; কারণ, অধিকাংশ সময়ই ছোটবোনের অন্যায় ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েই এই উত্তম-মধ্যমপ্রাপ্তি। সুতরাং মেরে মেরে তিনি একসময় ক্লান্ত হয়ে যেতেন। দ্বিতীয়ত, আমি যদি কোনোভাবে মাইরের পূর্বাভাস পেতাম, তাহলে আমাকে দৌড়ে ধরা তার সাধ্যের বাইরে ছিলো। একাজে তিনি প্রায়ই প্রতিবেশীদের সাহায্য নিতেন। প্রতিবেশীরা কেউ কেউ একটু নিরামিশাষী ছিলেন, যারা অনেক সময়ই আমাকে মাইরের হাত থেকে রক্ষার চেষ্টা করতেন। তবে অনেকেই ছিলেন, যারা সানন্দে আমাকে ধরে এনে মায়ের হাতে সোপর্দ করতে ভালোবাসতেন। শত হলেও মাইর জিনিসটার মধ্যে উত্তেজনাকর বিনোদন আছে।

বাংলাদেশে এই বিনোদন জিনিসটার অভাব নিয়ে অনেকে গাঁইগুঁই করেন। ইনফ্যাক্ট জনসংখ্যা বিস্ফোরণের কারণ হিসেবে বিনোদনের অভাবকে দায়ী করা লোকেরও অভাব নেই। সুতরাং, বিনোদন আমাদের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ আর বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে আসে চলচ্চিত্র। চলচ্চিত্র নিয়ে এই লেখার উৎপত্তি মূলত বিডিনিউজ২৪ এর ভারতীয় ছবির নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারসংক্রান্ত খবর থেকে। কেউ কেউ এটাকে একটি ইতিবাচক দিক হিসেবে দেখছেন আর কেউ কেউ এতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। আর এই পোস্টে আমি চেষ্টা করছি সরকারের সিদ্ধান্তের পক্ষে বলা 'যুক্তি'গুলোর হিসাব মেলাতে।

২.

বাণিজ্যমন্ত্রীর বলা যুক্তি দিয়েই শুরু করা যাক। বাণিজ্যমন্ত্রী ফারুক খান বলেছেন,

ভারতীয় চলচ্চিত্রের উপর এই নিষেধাজ্ঞা আমরা প্রত্যাহার করেছি আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পকে আরো বেশি বেগবান করার লক্ষ্যেই।

আমাদের সিনেমা হলগুলোয় সাকিব, শাবনুরদের পরিবর্তে শাহরুখ, রাণী মুখার্জিরা নাচগান করলে আমাদের চলচ্চিত্র শিল্প কিভাবে বেগবান হবে তা বুঝা অবশ্য একটু দুষ্কর। এক মেয়ে দেখিয়ে অন্য মেয়ের সাথে বিয়ে সিস্টেমে পাবলিককে হলে নিয়ে হিন্দি ছবির পরিবর্তে বাংলা ছবি দেখতে বাধ্য করা সম্ভব না, একইভাবে হিন্দি দেখিয়ে হলে যাতায়াতের অভ্যাস গড়ে তুলে সে অভ্যাসকে বাংলা ছবি দেখার প্রভাবক হিসেবেও ব্যবহারের সম্ভাবনা শূন্য। শ্রাবণ মেঘের দিন দেখে কেউ ডিপজলের মুভি দেখার অভ্যাস গড়ে না। সুতরাং হিন্দি ছবির আমদানি বাংলাছবির কাটতি বাড়াতে কোনোভাবেই সাহায্য করছেনা। বরং অপেক্ষাকৃত বেশি বাজেটের হিন্দি ছবির বিপরীতে টিকতে না পেরে বাংলা ছবির বাজার গতিশীল হওয়ার পরিবর্তে স্থবির হয়ে পড়াটাই স্বাভাবিক।

তবে এই আলোচনায় সিনেমা দেখার অভ্যাস সৃষ্টির প্রশ্ন আসে অনেক পরে। প্রথমেই আসে, ঢাকাই ফিলমের দুরাবস্থার কথা। মুনমুন, ময়ূরীর মতো মোটাসোটা মেয়েরা সেখানে নেচেকুঁদে বিনোদন দেয়, ডিপজলেরা গালির শিল্প সৃষ্টি করে, মান্নারা মাস্তানকে দেবতার আসনে বসায়। এটা হলো গিয়ে এককথায় অসুস্থ বিনোদন। সুতরাং সুস্থ বিনোদন চাই। সুতরাং, হিন্দি ছবিতে কোনো প্রবলেম নাই!

ধরে নিলাম, বাংলাছবি বলতে যা এখন চলছে, তা সুস্থ বিনোদন না। এমতাবস্থায় আমাদের করণীয় কি? আমাদের সমস্যাগুলো দূর করে চলচ্চিত্র শিল্পকে শিল্পসম্মত বিনোদনে উন্নীত করা, নাকি বিদেশি প্রোডাক্ট দিয়ে সেটাকে রিপ্লেস করা?

এখানে এসেই অনেকে 'যুক্তি'র মোচড় দিবেন এই বলে যে, আমাদের চলচ্চিত্রকে রিপ্লেস করা হচ্ছে না, বরং তাকে একটি প্রতিযোগিতার আওতায় আনা হচ্ছে, যাতে আমাদের নির্মাতারাও চাপে পড়ে 'ভালো' হয়ে যান অথবা দেখে শিখতে পারেন।

দেখে শিখতে পারার কথাটা ধোপে টিকবে না। কারণ, আমরা সিনেমাটাই আমদানি করছি, তার মেকিংটা না। আমাদের নির্মাতাদের বাজেট এবং ফলস্বরূপ টেকনোলজির সীমাবদ্ধতাও আছে। আর নির্মাতাদের শেখার জন্য বাংলাদেশের আম-দর্শককে বিদেশি ছবি দেখানোরও কোনো দরকার নাই। প্রতিযোগিতার প্রশ্নটা নির্ভর করে ক্ষেত্রের ওপর। বাংলা ছবির সাথে একটি হিন্দি ছবির প্রতিযোগিতা হতে পারে কোনো আন্তর্জাতিক আসরে; কিন্তু বাংলাদেশের সিনেমা হলে বাণিজ্যিকভাবে নয়।

এরপরেই আসে, হিন্দি ছবি আমদানী করলে প্রেক্ষাগৃহ মালিকেরা লাভবান হবে। দেশে ট্যাক্সের বন্যা বয়ে যাবে। সেই ট্যাক্স অনেক উন্নয়নের কাজে ব্যবহৃত হবে।

প্রেক্ষাগৃহের মালিকদের লাভবান হওয়ার ব্যপারটা মিথ্যা না। অন্তত শর্টটার্মে তারা লালে লাল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রচুর। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ হল মালিক সমিতির সভাপতি কাজী ফিরোজ রশীদ বলেছেন,

সরকারের এই সিদ্ধান্তটি বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য খুবই ফলপ্রসু হবে।

চলতে না পেরে বাংলাদেশের সিনেমা হলগুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সরকারের সিদ্ধান্তের পক্ষে তারও যুক্তি,

দর্শকরা খুব সহজেই ঘরে বসে স্যাটেলাইট চ্যানেলের মাধ্যমে ভারতীয় ছবি দেখছে। সেক্ষেত্রে সিনেমা হলগুলোতে অল্পবিস্তর হিন্দী ছবি প্রদর্শিত হতেই পারে। এছাড়াও বাংলাদেশে এখন খুব সহজেই পাইরেটেড ডিভিডি পাওয়া যায়। এটা দেশের সর্বত্রই ছড়িয়ে গেছে। সেক্ষেত্রে হিন্দী ছবি প্রদর্শনে নিষেধাজ্ঞা রেখে কোন লাভ নেই। কারণ হিন্দী ছবিগুলো এদেশে বেশ জনপ্রিয়।

এখানে সমস্যা একটাই। তাহলো একটি আকামকে আরেকটি আকামের জন্য পথ প্রদর্শক হিসেবে ব্যবহার করা যায় না। ভারতীয় টিভি চ্যানেল প্রবেশের ওপরে কন্ট্রোল থাকা উচিত, একই সাথে পাবলিকের চাহিদা অনুযায়ী মানসম্মত দেশীয় প্রোডাক্ট বানানোর চেষ্টায় থাকা উচিত। কারণ, শেষবিচারে অন্যের উৎপাদিত পণ্যের ভোক্তা হয়ে অর্থনৈতিকভাবে নিজের ক্ষতির পাল্লাটাই ভারী হয়, বিশেষ করে কোনো ফিডব্যাক প্রোডাক্টের মাধ্যমে যদি টাকাটা আবার নিজের পকেটে ফিরে না আসে। কতো টাকা বাংলাদেশে জনগণের পকেট থেকে যাবে আর তার কতো অংশ আমাদের হল মালিকরা পাবেন বা সরকার ট্যাক্স হিসেবে পাবে, সে হিসাবটা করা যে খুবই দরকার। পাইরেসির কথা আর না বললাম।

অনেকে আবার বলছেন মুক্তবাজার অর্থনীতির কথা। আমরা হিন্দি ছবি দেখাবো আমাদের হলগুলোতে, ইন্ডিয়া আমাদের নির্মিত বাংলা ছবি দেখাবে মুম্বাইয়ের সিনেমা হলে!
এই স্বপ্ন আসলে এতোই দুঃস্বপ্ন যে, আওয়ামী লীগের আবিষ্কৃত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের লিস্টেও এটা স্থান পাবে না। অন্যান্য ক্ষেত্রে আমদানি-রপ্তানির কথা বাদ দিলাম, বাংলাদেশে ভারতের কতগুলো টিভি চ্যানেল চলে আর ভারতকে আমরা কতগুলো টিভি চ্যানেল দিতে পেরেছি, তার হিসাবটা নিলেই প্রকৃত ভবিষ্যতের কিছুটা আঁচ পাওয়া যাবে।

এরপরে আসে কালচার রক্ষার বিষয়। অনেকে আবার ওভার কনফিডেন্ট যে, হিন্দি ছবি দেখলেও আমাদের ওপর হিন্দি বলার তেমন কোনো বিরূপ প্রভাব পড়বে না!কালচারের বিবর্তনে আমার কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু কালচার বিলীনে আপত্তি আছে। যেমন, ব্লগের শব্দগুলো বাংলাভাষায় যোগ হোক; বিদেশি শব্দও বাংলায় এসে বাংলা শব্দ হয়ে যাক; কিন্তু বাংলার স্থানটা যেন বিদেশি ভাষা না নিয়ে নেয়। মালটি ন্যাশনাল কোম্পানিতে কাজ করা আমার কোনো বন্ধু যখন পেশার খাতিরে চোস্ত ইংরেজিতে কথা বলে, আমি তাকে বাহবা দিবো। কিন্তু আমার সাথে কথা বলার সময় যখন সে সচেতনভাবেই ইংরেজি বলার চেষ্টা করবে, তখন তাকে গদাম। একই কথা খাটে হিন্দির বেলায়ও।

সমস্যা হলো, এসব বিষয়ে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস খুব বাস্তব কোনো সমাধান না। মানুষ ভাষা ও সংস্কৃতি দিয়ে প্রভাবিত হয়। সচেতনতা জিনিসটা সবার থাকে না আর থাকলেও সবসময় এই প্রভাবকে এড়ানো যায় না। (প্রমাণ আমার এই লেখা) একারণেই হিন্দি সিরিয়াল দেখে অনেকেই তাদের ভাষায় লেটেস্ট ফ্যাশনের খোঁজ পায় আর দৈনন্দিন 'বাতচিত'-এও হিন্দি শব্দ এবং এক্সপ্রেশন ব্যবহার করে। সবচেয়ে বড় সমস্যা হয়, যখন এটাকেই স্মার্টনেস হিসেবেও দেখার প্রবণতা সৃষ্টি হয়।

৩.

নিজের ছেলেকে শায়েস্তা করার জন্য প্রতিবেশীকে ভাড়া করা, রাজনীতিবিদরা খারাপ বলে সামরিক শাসন কামনা করা; কিংবা সিরাজুদ্দৌলার হারেমে এক ডজন নারী ছিলো বলে ইংরেজের আগমনকে বর হিসেবে দেখার মতোই বিষয় এই দেশের চলচ্চিত্রকে বেগবান করার ধুয়া তুলে বিদেশি চলচ্চিত্রের বাজার সৃষ্টির প্রয়াস। আমাদের গুটিকয় লোকের পকেটে দুই টাকা ঢুকলে আমরা দেশের দুইশ'কোটি টাকার ক্ষতি করতেও আগুপিছু ভাবি না!


মন্তব্য

রনি পারভেজ [অতিথি] এর ছবি

এইমাত্র খবর পেলাম ভারতীয় চলচ্চিত্র আসছে না

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

আহ্, ভালো একটা খবর দিলেন ভাই।

এনকিদু এর ছবি

ব্যাপার না, যার দেখার সে ডিভিডি তেই দেখবে ।


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

এটা নিঃসন্দেহে একটা ভালো খবর। তবে সরকারের এই ইউটার্নটা খুব গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে বাণিজ্যমন্ত্রীর আগের ও পরের বক্তব্য।

আগে: ভারতীয় চলচ্চিত্রের উপর এই নিষেধাজ্ঞা আমরা প্রত্যাহার করেছি আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পকে আরো বেশি বেগবান করার লক্ষ্যেই।

পরে: চলচ্চিত্র শিল্পের ক্ষতি হয় এমন কোন কাজ সরকার করবে না। বাংলাদেশে যাতে উপমহাদেশের অন্যান্য দেশের চলচ্চিত্র না আসতে পারে সে ব্যবস্থা নেবো আমরা।

আসলে দেশের ক্ষতির ব্যাপারটা তারা সবসময়ই জানেন। আগে যেসব প্রভাবকের জন্য ওই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, এখন তাতে কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে বলে এই ইউটার্ন। আগের প্রভাবকটা টুপাইস হতে পারে, পরের প্রভাবক টুপাইসের হিসাব নিয়ে বনিবনার অভাব কিংবা জব্বার কাগুর মতো ধোলাই খাওয়ার ভয়, যা-ই হোক, দুটো প্রভাবকের কোনোটিই দেশের চলচ্চিত্রের স্বার্থ নয়।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

কিন্তু আমার সাথে কথা বলার সময় যখন সে সচেতনভাবেই ইংরেজি বলার চেষ্টা করবে, তখন তাকে গদাম। একই কথা খাটে হিন্দির বেলায়ও।
আমি শুধু এই দিকটার কথাই ভাবছিলাম। এখনই আমাদের মধ্যে হিন্দী বা উর্দূতে কথা বলার যে স্রোত, তা খরস্রোতে রূপ নেবে এ আমি চোখ বন্ধ করলেই দেখতে পাই।

ভারতীয় ছবি না আনলে আমাদের কতটা লস হচ্ছে বা হবে তা কি কেউ লিখেছে? লেখেনি। আমাদের শিল্পগুলো একে একে ধ্বংস হোক সেটাই বুঝি সবাই চাই?

দেশী চলচ্চিত্রে ইদানীং বেশ কিছু ভিন্ন মাত্রার ছবি তৈরী হয়েছে। টিভিতে বিজ্ঞাপন দেখে গহীনে শব্দ বা এধরনের কিছু ছবি দেখতে আমারও ইচ্ছে করছিল (প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে ছবি দেখতে আমার ভালো লাগে না)। পরিবর্তন হচ্ছে, হবে। নির্মাতাদের বরং পুরস্কার এবং প্রযুক্তি দিয়ে সরকার সহায়তা করতে পারে। অসম প্রতিযোগীতার মধ্যে ফেলে দিলে এদের দাঁড়ানো কঠিন হয়ে পড়বে।

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

সরকারের বলা প্রতিযোগিতার ব্যাপারটা ভুয়া। সিদ্ধান্তের পক্ষে কারণ দেখাতে গিয়েই এই অবাস্তব কারণের উদ্ভব ঘটেছে। চাইলে নিজেদের চলচ্চিত্রের মান নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। দর্শকদের জন্য আর্টফিলম বা সুশীল মুভি বানাতে হবে এমন কোনো কথা নেই। কারণ, অধিকাংশের জন্যই সিনেমা মানে কিছুটা সময় কাটানো। তবে সিনেমা শুধু বিনোদন মাধ্যমই না, শিক্ষার মাধ্যমও। সিনেমায় যা দেখানো হয়, তার একটা প্রভাব সমাজজীবনেও আসে। মেধাবী নির্মাতাদের পক্ষে তাই বিনোদনের সাথে সুশিক্ষাও মিশিয়ে দেয়া সম্ভব। হলিউডি মুভির কপি হয় বলিউডে, সেটা আবার কপি হয় ঢালিউডে। কপিপেস্টে সুশিক্ষা থাকে না।

সরকারের কাছ থেকে শুধু এই মেধার ক্ষেত্র সৃষ্টি করা দরকার, সাথে প্রতিবন্ধকতাগুলো দূর করা। বর্তমান পরিস্থিতি পান্থ বা নজু ভাইয়েরা ভালো বলতে পারবেন।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

নাশতারান এর ছবি

ভারতীয় চলচ্চিত্রের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে চলচ্চিত্র শিল্পকে নয়, বরং চলচ্চিত্র বাণিজ্যকে আরো বেগবান করা সম্ভব। সেটাও দেশি চলচ্চিত্রের নয়, ভারতীয় চলচ্চিত্রের বাণিজ্য।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের মান উন্নয়নের জন্য পড়শি ডেকে আনার প্রয়োজন নেই। শেখার জন্য স্যাটেলাইট চ্যানেল আছে। পড়শির কীর্তিকলাপ ওখানেই দেখে নেওয়া যায়।

আজকাল একটা গুঁড়ো মসলার বিজ্ঞাপন তৈরি করতেও নির্মাতারা ভারতে ছোটেন। এদেশে ভারতীয় চলচ্চিত্র আমদানি করার চল শুরু হলে ভারতীয় সিনেমায় আমাদের শাবনূর, মৌসুমীদের দু একটা খুচরো রোল দিয়ে দেশি চলচ্চিত্রের উন্নতি সাধন করা যেতে পারে বড়জোর।

হিন্দি ছবি দেখলেও আমাদের ওপর হিন্দি বলার তেমন কোনো বিরূপ প্রভাব পড়বে না-এটা একটা করুণ, হাস্যোস্পদ ধারণা। স্যাটেলাইট চ্যানেল আর পাইরেটেড ডিভিডি দেখেই বাঙ্গালির চলনে-বলনে-ঢলনে যে হারে হিন্দি ছলকে ওঠে, লাইসেন্স পাওয়ার পর তারা হিন্দি সাহিত্যের প্রতি অনুরক্ত হলেও অবাক হবো না।

|| শব্দালাপ ||

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

পান্থ রহমান রেজা এর ছবি

বিজ্ঞাপনে ভারত নির্ভরশীলতা অনেক কমে গেছে। আগে পোস্ট প্রডাকশনের কাজে ভারত যাওয়া হতো। কিন্তু এখন ব্যাংকক, সিঙ্গাপুরে যায়। এখানে মুম্বাইয়ের চেয়ে খরচ খানিকটা কম পড়ে।
..................................................................

আমি অতো তাড়াতাড়ি কোথাও যেতে চাই না;
আমার জীবন যা চায় সেখানে হেঁটে হেঁটে পৌঁছুবার সময় আছে,
পৌঁছে অনেকক্ষণ ব'সে অপেক্ষা করার সময় আছে।

হিমু এর ছবি

ওখানে কী আছে যা আমাদের দেশে নেই? ওরকম অবকাঠামো কি বাংলাদেশে গড়ে তোলা সম্ভব?



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

অতিথি লেখক এর ছবি

ওরকম একটা অবকাঠামো বাংলাদেশে গড়ে তুললেও খুব একটা লাভ হবে বলে মনে হয় না। আমাদের দেশের চলচ্চিত্র পরিচালকদের কাছ থেকে উন্নতমানের কিছু আশা করা যায় না। উনারা ময়ূরী, মুনমুনদের দিয়ে এফ.ডি.ছিঃ তে ১০ মাত্রার ভূমিকম্প ঘটাবেন আর পাইরেসীর চৌদ্দ পুরুষ উদ্ধার করবেন।
তার্কিক

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

বুনোপা, ধন্যবাদ।
আমার পোস্টে বানান ভুলগুলো দেখিয়ে দিলে কৃতজ্ঞ থাকবো।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

নাশতারান এর ছবি

দেখিয়েছি তো। উপরের মন্তব্যে লিঙ্ক আছে, দেখুন। তবে কৃতজ্ঞ না হলেই খুশি হব।

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

দ্রোহী এর ছবি

ভালো লেখা।

ইতিমধ্যেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাতিলের কাজ হয়ে গেছে একপ্রস্থ। মনে হচ্ছে এটাও ডে-লাইট সেভিংয়ের মতো বিষয় হতে যাচ্ছে। সিদ্ধান্ত মনে হয় আরো কয়েকবার পরিবর্তিত হবে।

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

আল্লার দুনিয়ায় সবকিছুই মেম্বারী সিস্টেমে চলে। মনে হয়, টুপাইসে বনিবনা হয় নাই। তাই এই ইউটার্ন।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

shameem এর ছবি

মালটি ন্যাশনাল কোম্পানিতে কাজ করা আমার কোনো বন্ধু যখন পেশার খাতিরে চোস্ত ইংরেজিতে কথা বলে, আমি তাকে বাহবা দিবো। কিন্তু আমার সাথে কথা বলার সময় যখন সে সচেতনভাবেই ইংরেজি বলার চেষ্টা করবে, তখন তাকে গদাম।

অতিথি লেখক এর ছবি

বাণিজ্য মন্ত্রী এই সিদ্ধান্ত নিবেন কেন? দেশে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় আছে , তথ্য মন্ত্রাণলয় আছে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়ার এখ্তিয়ার তো এদের কারো থাকা উচিত্‍।

ফারুক খান লিখেছেন:

চলচিত্র শিল্পের ক্ষতি হয় এমন কোন কাজ সরকার করবেনা। বাংলাদেশে যাতে উপমহাদেশের অন্যান্য দেশের চলচিত্র আসতে না পারে সে ব্যপস্থা নিব আমরা।

অথচ আগে বললেন এ সিদ্ধান্ত দেশের চলচিত্র শিল্পকে বেগবান করবে। লোকটারে আমি একদম ভাল পাইনা, কথার কোন ঠিক নাই।

নহক

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

বিষয়টা মূলত বাণিজ্যিক। সুতরাং বাণিজ্য মন্ত্রীর এক্তিয়ারে থাকলে সমস্যা নেই। সমস্যা হলো বাণিজ্যটা দেশের দরকার, ডিসিশান মেকারদের না।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

হিমু এর ছবি

বাণিজ্যমন্ত্রীর যুক্তির লাইন ধরে বলা যেতে পারে, ভারত থেকে একজন বাণিজ্যমন্ত্রীও তাহলে আমদানি করে আমাদের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে বেগবান করা হোক।

দেশে ছাগলের সংখ্যা এইভাবে বাড়লে ক্যাম্নেকী?



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

মাঝে মাঝে মনে হয়, এদেরকে ছাগোল বলার যোগ্যতা আমাদের নাই। কারণ, এরাই এই ছাগলামি করেও করে-টরে খাচ্ছে আর আমরা সেটার প্রতিবাদ করে হয়রান হচ্ছি।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- কালকে খবরটা পড়ছিলাম। কয়েকজনের 'যুক্তি' দেখে (ইনক্লুডিং মন্ত্রী মহোদয় স্বয়ং) মনে হচ্ছি এঁরা ব্লগে এসে লেখা শুরু করে দিলে একেকজন ত্রিভুজকেও হার মানিয়ে দিবেন!

মার খাওয়ার ক্ষেত্রে আমার আর আপনার মধ্যে ব্যাপক মিল বলাই'দা। শুধু পার্থক্য হলো আমার প্রতিবেশীদের কারো অতো গাটস ছিলো না যে আমাকে পাকড়াও করে মায়ের হাতে সোপর্দ করে। কারণ, এর সাইড এফেক্ট তারা বেশ ভালোভাবেই কল্পনা করে রাখতো। তাই আমার মা প্রতিবেশিদের ওপর নির্ভরশীল না হয়ে অপেক্ষায় থাকতেন কখন আমি ঘরের পোলা ঘরে ফিরে আসবো!

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ক্ষেত্রেও এই অনুশীলনটাই করা উচিত বলে মনে করি। বিদেশী জিনিস হাওলাত করে না এনে বরং নির্মাতাদেরকে ঘরে নিয়ে সাইজ করা হোক। সেন্সরবোর্ডরাই তো আমাদের চলচ্চিত্রের মা-বাপ। তারা পারে না তাদের বেয়াড়া পোলাকে লাইনে আনতে!
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

বেয়াড়া পোলাকে লাইনে আনাটা তাদের পরিকল্পনায়ই নাই। ওটা শুধু বলার জন্য বলা।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

পল্লব এর ছবি

সেন্সর বোর্ড সাইজ করলে তো কামই ছিল! হো হো হো এদের কাজকারবার দেখে মনে হয় এরা ভাবে, এই সিনেমায় "সেরকম কিসসু" নাই, অতএব এইটা ঘ্যাচাং!

"মাটির ময়না"র ছাড়পত্র নিয়ে কেমন ভেজাল হইসিল মনে আছে? আমাদের দেশে ছাড়পত্র পাওয়ার আগে সেটা বাইরে প্রাইজ পেয়ে গেসিল!

==========================
আবার তোরা মানুষ হ!

==========================
আবার তোরা মানুষ হ!

স্বাধীন এর ছবি

আমাদের গুটিকয় লোকের পকেটে দুই টাকা ঢুকলে আমরা দেশের দুইশ'কোটি টাকার ক্ষতি করতেও আগুপিছু ভাবি না!

এটাই হল চরম সত্য আমাদের দেশের ক্ষেত্রে।

মুক্ত বাজার অর্থনীতির পুরো ফায়দা তোলে বড় অর্থনীতির দেশগুলো। ক্ষুদ্র দেশগুলো বা ক্ষুদ্র শিল্পগুলোকে ধ্বংস করে এই ব্যবস্থা। আমাদের আমাদানী কমিয়ে দেশেই সকল জিনিস উৎপন্নের জন্য কাজ করা দরকার। তাতে দেশীয় শিল্প তৈরী হবে, কর্মক্ষেত্র সৃষ্টি হবে, দেশের টাকা দেশেই থাকবে। আর যদি কোন ভাবে উদ্বৃত্তের পর্যায়ে যেতে পারি তবে তা রপ্তানী করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা যেতে পারে। যদি উদ্বৃত্ত নাও থাকে তবে শুধু অভ্যন্তরীন চাহিদা মেটাতে পারলেও একটি দেশের অর্থনীতি সাম্যবস্থায় থাকবে। কিন্তু অন্য দেশ হতে পণ্য, চলচ্চিত্র আসার সুযোগ দিলে সেই দেশটির অর্থনীতিকেই সাহায্য করা হবে, আমাদের দেশের অর্থনীতি নয়। এই সহজ বিষয়টি যে বানিজ্যমন্ত্রী না বুঝে তাঁর সে পদে থাকার যোগ্যতা নয়ে সন্দিহান হওয়া দরকার।

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

বাণিজ্যমন্ত্রী খুব ভালোভাবেই বুঝে কোন কাজে কার কি রকম বাণিজ্য হবে। বাংলাদেশের পলিটিশিয়ানরা যথেষ্ট চালু, শর্টকাটে নিজের পকেট ভরাতে এরা আর দশটা করাপ্টেড দেশের নেতানেত্রীদের চেয়ে কম যায় না।

মুক্তবাজার অর্থনীতি জিনিসটা তখনই কাজের, যখন গিভ অ্যান্ড টেইকের মাধ্যমে দুই পক্ষেরই অর্থনৈতিক উন্নতি হয়। আমাদের ক্ষেত্রে এটা জাস্ট অন্যের উৎপাদিত পণ্যের বাজারে পরিণত হওয়া।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

নৈষাদ এর ছবি

বর্তমানে যে নিষেধাজ্ঞা বলবত আছে তা শুধু ভারতীয় চলচিত্রের উপরই নাকি সব ধরণের বিদেশী চলচিত্রের উপর তা আমি জানি না। রিপোর্টটিতে দেখলাম সেন্সর বোর্ডের প্রধান বলেছেন, ‘ভারতসহ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলোর চলচ্চিত্র স্থানীয় হলগুলোতে প্রদর্শন করা যাবে’। কথাটা কিছুটা কনফিউজিং।

যদি এই নিষেধাজ্ঞা সব বিদেশী চলচিত্রের উপর হয়ে থাকে তবে আমি ব্যাক্তিগত ভাবে মনে করি ‘বিদেশী ছবির’ উপর নিষেধাজ্ঞা অবশ্যই উঠিয়ে নেয়া উচিত। তবে সরকারের প্রাথমিক অবস্থায় শর্ত যুক্ত করে দেয়া উচিত। যেমন, টোটাল স্ক্রিনিং টাইমের সর্বোচ্চ ৩৫% বিদেশী ছবি দেখানো যাবে, এর মধ্যে একটি দেশের চলচিত্র ৪০% হতে পারবে না ইত্যাদি ইত্যাদি।

আমার যুক্তিগুলি হলঃ

১। সত্তর-আশির দশকে যে কথিত ‘ভাল’ ছবি তৈরী হত, তার হার গত দুই দশকে কমেছে। প্রটেকশন কী করল বুঝলাম না। দীর্ঘমেয়াদে প্রটেকশন কোন ভাল রেজাল্ট দেয় না।

২। আমরা যারা ‘ভাল’ ছবির দর্শক, তারা সিনেমা হলেও যাই না, আবার ডিভিডিতে দেশের চলচিত্রও দেখিনা। যাদের ডিভিডি দেখার ক্ষমতা নেই, তারা দেখবে দেশীয় ছবি (যার ব্যাপারে আমরা উন্নাসিক) আর ‘আমরা’ দেখব ‘বিদেশী ভাল’ ছবি।

৩। কিছু বিদেশী ‘ভাল’ ছবি হলগুলোতে প্রদর্শিত হলে আমাদের মত ‘ভাল’ দর্শক হয়ত হল গুলোতে যাবে এবং হল গুলো আবার ‘জাতে’ উঠবে।

৪। বর্তমানে যেসব ‘খারাপ’ ছবি তৈরী হচ্ছে, আমি সেগুলোর নির্মাতাদের প্রতি কৃতজ্ঞ, তারা ‘সাধারণ মানুষের’ বিনোদনের জন্য তো কিছু একটা করছে।

সবশেষে বলতে চাই, এই নিষেধাজ্ঞা শুধু যদি ভারতীয় চলচিত্রের উপর থেকেই উঠিয়ে নেবার কথা বলা হয়, আমার এব্যাপারে তীব্র আপত্তি আছে। আবার এই নিষেধাজ্ঞা শুধু যদি ভারতীয় চলচিত্রের উপরই থেকে থাকে তবেও আমার এই ব্যাপারে কিছুটা অস্বস্তি রইল।

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

হিন্দি ছবির সাথে ইংরেজির একটা বড়ো পার্থক্য হলো, ইংরেজি ছবির দর্শক হাতেগোণা। ইংরেজি ছবির কারণে বাংলা ছবির দর্শক কমবে না। কিন্তু হিন্দিটা প্রায় সরাসরি বাংলাছবির রিপ্লেসমেন্ট।

আপনার দেয়া যুক্তিগুলোর উত্তর আপনার প্রথম পয়েন্টেই আছে। সত্তর-আশির দশকে ভালো ছবি হতে পারলে এখন ভালো ছবি হয় না; তার কারণ যা-ই হোক, আমাদেরকে ভালোছবি তৈরির দিকেই মনোযোগ দিতে হবে। বিকল্প হিসেবে বিদেশী প্রোডাক্ট দিয়ে রিপ্লেস করলে আখেরে লস।

অনেক সময়ই কোনো পণ্যের জন্য কৃত্রিমভাবে বাজার সৃষ্টির দরকার পড়ে। বাংলাদেশের পাটকলগুলো যেখানে একের পর এক বন্ধ হয়, সেখানে ভারতে নোতুন পাটকল গড়ে ওঠে। বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট কখনো খালি যায় না, তারপরেও লসের অজুহাতে বিভিন্ন রুটে বিমান বন্ধ হয়ে যায়। এভাবে বাংলাদেশী পণ্যের রিপ্লেসমেন্ট হিসেবে বিদেশী পণ্য আসে। বিষয়টা ঠিক কাকতালীয় না, সুপরিকল্পিত। আমাদের নীতিনির্ধারকরা বিক্রি হন; কিন্তু আমরা তাদেরকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে চাপ সৃষ্টিটা অব্যাহত রাখতেই পারি।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

দিগন্ত এর ছবি

ইন্টারেস্টিং টপিক। আমি বাংলাদেশের সিনেমা নিয়ে খুব একটা জ্ঞান রাখিনা, তাই মন্তব্য নিস্প্রয়োজন। তবে আমি যে ধরণের সিনেমা দেখি (উদাহরণ - মনপুরা) তার বাজার বাংলাদেশে যাবে না কারণ যারা এগুলো দেখে তারা হিন্দি সিনেমা দেখবে না। সুতরাং বাকি ব্যাপারে আমার নো ক্লু ... নো মাথাব্যাথা।

আমি দেখলাম পাকিস্তানে ঠিক সেটাই ঘটছে যেটা এখানে ভবিষ্যতবাণী করা হয়েছে। দেশীয় ফিল্মের প্রোডাকশন বছরে মাত্র ন'টায় গিয়ে ঠেকেছে, ভারতীয় ফিল্ম দেখানোর অনুমোদনের পরে। এখন পাকিস্তান আবার রেস্ট্রিকশন বসানোর ব্যবস্থা নিচ্ছে।

বিদেশী ছবি দেখানো নিয়ে চীন বনাম আমেরিকা WTO তে লড়াই করেছে, আমেরিকা আংশিকভাবে জিতলেও চীন বছরে ২০টার বেশী সিনেমা না দেখানোর ক্লসে ছাড় পেয়ে গেছে - পরে হয়ত আর সেই বাধাটাও উঠে যাবে। দেখে মনে হয় পরে সব দেশকেই সব সিনেমা দেখানোর অনুমতি দিতে হবে - মুক্তবাজারের নিয়ম মেনে।

তবে আজকে প্রথম আলোতে দেখলাম শুধু ভারতীয় নয়, পাকিস্তানী ও নেপালী সিনেমাও আনার কথা হয়েছিল। ভারতীয় সিনেমার সাথে নাহয় প্রতিযোগিতার ব্যাপার আছে, বাকি দেশের সিনেমার ওপরও কি একইরকম ব্যান আছে?


পথের দেবতা প্রসন্ন হাসিয়া বলেন, মূর্খ বালক, পথ তো আমার শেষ হয়নি তোমাদের গ্রামের বাঁশের বনে । পথ আমার চলে গেছে সামনে, সামনে, শুধুই সামনে...।


পথের দেবতা প্রসন্ন হাসিয়া বলেন, মূর্খ বালক, পথ তো আমার শেষ হয়নি তোমাদের গ্রামের বাঁশের বনে । পথ আমার চলে গেছে সামনে, সামনে, শুধুই সামনে...।

হিমু এর ছবি

দিগুভাই, ব্যাপারটা সেই গরীবমারা নিয়মের মতো, "আজ থেকে ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে সকলের পার্কের বেঞ্চে শুয়ে ঘুমানো নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলো" ...। পার্কের বেঞ্চে ধনী ঘুমায় না, গরীবই ঘুমায়, তাই নিয়মটা সবার জন্যে করা হলেও ভুগবে গরীবই।

বাংলাদেশের সিনেমাহলগামী দর্শক সাবটাইটেলে অভ্যস্ত নয়। হিন্দি জোড়াতালি দিয়ে খানিকটা বোঝে লোকে, আর এখনকার গুড়াগাড়ারাও বোঝে। সব দেশের সিনেমার ওপর নিষেধাজ্ঞা তোলা হলেও, বাংলাদেশে কে নেপালী সিনেমা দেখবে, একটু বলেন দেখি? আর পাকিস্তানের সিনেমা বাংলাদেশের সিনেমার মতোই। ভারতীয় সিনেমার মধ্যে টালিগঞ্জ বা দক্ষিণী সিনেমাও বলিউডের সাথে পাল্লা দিয়ে পারবে না বাংলাদেশে। নেট ফল হবে বলিউডি সিনেমা দিয়ে বাজার সয়লাব।



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

অতিথি লেখক এর ছবি

বলাইদা, আপনি কি আপনার পিচ্চিদের কখনও এই কুটির শিল্পের আওতায় এনেছেন? আমার অভিজ্ঞতা বলে অনেক ক্ষেত্রেই ছোটবেলায় মারধোর খেয়ে সেটার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন যাঁরা, তাঁরা সচরাচর তাদের নিজেদের ছেলেমেয়ের ক্ষেত্রে সেটা করেন না। আর অন্যদিকে যাঁরা গায়ে হাত তোলাকে ছোটবেলায় বাবা-মা'র শাসনের স্বাভাবিক অঙ্গ হিসাবেই নিয়েছেন, তাঁরা একই ভাবে নিজেদের ছেলেমেয়ের শাসন করেন। এ বিষয়ে আপনার মন্তব্য শুনতে চাই।

হিন্দি ছবি বন্ধ করা নিয়ে তেমন বক্তব্য নেই। কিন্তু 'পবিত্র স্থান' থেকে ছবি না এলে, কিছু রগরগে ধর্মান্ধতা বা পাকি-প্রেম দেখতে না পেলে, ছাগুরা যায় কোথায়? অবশ্য হ্যাঁ, ওই ধরণের ছবি হয়ত জামাতই নিজেদের দায়িত্ত্বে সিডি করে বিলি করবে...

কৌস্তুভ

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

আমার ধারণা, পিচ্চিরা মা-বাপের বেসিক চরিত্র থেকেই সবচেয়ে বেশি শিখে। মাইরপিট, মুখে শাসন এগুলা কৃত্রিম উপায়ে শেখানোর পদ্ধতিমাত্র। এটা কাজ করতেও পারে, আবার উলটা প্রতিক্রিয়াও হতে পারে। সুতরাং, আপনি আচরি ধর্ম ..... নিয়মই বেস্ট। যেমন ধরেন, আপনি আপনার শিশুর সামনেই একজনকে একটা মিথ্যা কথা বললেন; কিন্তু শিশুটিকে শিক্ষা দিলেন যে, মিথ্যা কথা বলা ঠিক না। তখন শিশুটি আসলে শিখবে, মিথ্যা কথা বলা খুব একটা খারাপ জিনিস না। আমার ছোটবেলায় অনেক কঠোর শাসনে মানুষ হওয়া শিশুকে দেখেছি শেষমেশ মা-বাপের চরিত্রেরই কার্বন কপি। শিশুর কাছে রাখঢাকের চেয়ে তাকে পরিস্থিতি যতোটা সম্ভব বুঝিয়ে 'ফ্যাক্ট'-এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়াই ভালো।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

অতিথি লেখক এর ছবি

যাক আগেভাগেই এই মহান (!) উদ্যোগ বন্ধ হয়েছে, তা না হলে পরেরবার বিএনপি-জামাত জোট ক্ষমতায় এসে পাকি চলচ্চিত্র প্রদর্শণের ব্যবস্থা করতো!! ছাগলামীর একটা সীমা থাকা খুব জরুরী বলে মনে করছি। এমনতো না যে দেশে সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র তৈরী হচ্ছেনা, তাহলে কেন এই দাদাচাটুকারীতা?

-শুকনো পাতা

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

সরকারের সিদ্ধান্তটা ছিলো উপমহাদেশের চলচ্চিত্র আমদানীসংক্রান্ত। সুতরাং ইসলামী ফিলমের বাজার বিএনপি-জামাত জোটের আগেই সৃষ্টি হতো। চোখ টিপি

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- "শুকনো পাতা"র বাসায় কি ডিশ কানেকশন আছে? থাকলে সেই কানেকশনে কী কী চ্যানেল দেখা যায়, এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি দেখা হয় কোন চ্যানেলটা/গুলো?

উপরের দুইটা প্রশ্নের একটার উত্তরেও যদি ভারতীয় কোনো চ্যানেলের নাম আপনাকে নিতে হয় বস, তাইলে আমি তীব্রভাবে আপনার মন্তব্যের শেষ লাইনের সর্বশেষ শব্দটার বিরোধীতা করছি।

দাদাচাটুকারীতা তো সবার আগে আপনিই করছেন। নাকি ভুল বললাম কিছু?
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অতিথি লেখক এর ছবি

দু'টি প্রশ্ন করলেন কিন্তু কোন উত্তর পাওয়ার আগেই বললেন " দাদাচাটুকারীতা তো সবার আগে আপনিই করছেন। নাকি ভুল বললাম কিছু?"
দুক্কু পাইলাম বস।
ডিশ লাইনে ভারতীয় চ্যানেলগুলোর সাথে আমাদের দেশের চ্যানেলগুলো কিন্তু প্রতিযোগীতা করেই টিকে আছে। বরং আমি বলবো, খুব ভালোভাবেই টিকে আছে।
"দাদাচাটুকারীতা" শব্দটির জন্য দু:খিত।
কার্টুনের চাপে বাসায় অন্য চ্যানেল দেখার সুযোগ পায় বলে মনে হয়না। ধন্যবাদ।

-শুকনো পাতা

guest_writer এর ছবি

অনেক কথাই মানতে পারলাম না।

এতদিন ধরে বিদেশি সিনেমা বন্ধ রেখে কি লাভ হয়েছে? ভাল সিনেমা কটা তৈরি হয়? আপনারা কজন নিয়মিত সিনেমা দেখছতে যান?

ভারতে হলিউডের ছবি চলে। ওথানে কি ওদের ছবি বানান বন্ধ হয়ে গিয়েছে? শুধু হিন্দি নয়, তামিল, তেলেগু অনেক ভাষাতেই সিনেমা তৈরি হয়।

ভারত বহুযুগ বিদেশি গাড়ী আমদানী বন্ধ রেখেছিল। ফলাফল - আমাদের কাল টেক্সীগুলোর দিকে তাকালেই বোঝা যায়।

আপনারা যতই গলা ফাটান, এভাবে লাইফ সাপর্ট মেশিনের মাধ্যমে কাউকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বাচিয়ে রাখা যায় না। বাচলেও পচা দুর্গন্ধ বের হয়।

আপনারা যদি আশায় বসে থাকেন যে একদিন এদেশে জর্জ লুকাস বা জেমস ক্যামেরন আকাশ থেকে নাযিল হবেন তাহলে আমার শুভেচ্ছা রইল।

হিমু এর ছবি

একটা বাজে অ্যানালজি দেই। মনে করুন আপনার স্ত্রীকে আপনি তেমন সময় দিতে পারেন না। তৃতীয় ব্যক্তি এসে সিদ্ধান্ত নিলো, ভারত থেকে একজন সুদর্শন যুবককে আমদানি করে আপনার স্ত্রীর সাথে ভাব করিয়ে দেবার। তার বক্তব্য, এতে করে প্রতিযোগিতা বাড়বে, আপনি আরো বেগবান হবেন, আপনার "মান" বাড়বে। ব্যাপারটা কি আপনি তখন ভালো চোখে দেখবেন?

সবকিছু উদাম করে দিলে তো সমস্যা। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে যে "অবক্ষয়" হয়েছে, সেটা তো ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইনজেকশন দিয়ে ভালো হবার নয়। সমস্যাটা সেন্সরবোর্ডে, চিকিৎসাও সেখানেই হওয়া উচিত।



বুকে BOOK রেখে বন্ধু চলো আজ যাবো বরাহশিকারে মোরা ধার ধার ধার দিও বল্লমে ♪♫

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

আমার কনসার্নটা প্রথমেই বাণিজ্যিক। মনে করেন, ঢাকাই ছবি একেবারে পঁচা। কিন্তু আমাদের আবার বিনোদনও দরকার। সো, আসুক হিন্দি মুভি। এখন, এই হিন্দি মুভি যেহেতু আমরা খাচ্ছি, সেহেতু আমাদের পকেটের পয়সা বেরিয়ে যাচ্ছে। এবং এই বেরিয়ে যাওয়া পয়সার ধরলাম ১০% ট্যাক্স আর হল মালিক-কর্মচারীদের আয়ের মাধ্যমে ফিরে এলো। বাকি ৯০% এর বিনিময়ে আমরা কি পাচ্ছি? সেই ৯০% খরচের টাকায় আমরা কি এমন কোনো প্রোডাক্ট বানাতে পারছি, যাতে আমাদের টাকাটা উঠে আসে এবং লাভও করতে পারি?

বাংলাদেশে ভালো ছবি তৈরি হয় কিনা, সেটা একটু ভিন্ন লাইনের প্রশ্ন। ভালো ছবি তৈরি না হলে কেন হয় না, সে কারণগুলো খতিয়ে দেখা এবং তার সমাধান দরকার। কারণগুলো আমরা ধরে নিতে পারি, দুর্ণীতি এবং তার ফলস্বরূপ কোয়ালিটি কন্ট্রোলের ব্যবস্থা না থাকা। এর সমাধান হিসেবে প্রতিযোগিতার বিষয়টাও আসবে; কিন্তু সেই প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রটা এমন হওয়া উচিত না, যেখানে মাথাব্যথা সারাতে মাথাটিই কেটে ফেলার রিস্ক থাকে। অর্থনৈতিক ক্ষতির বিষয়টি আলোচনার বাইরে রেখেই আমরা দেখি, হিন্দি ছবি আমদানি করলে আমাদের নির্মাতারা ভালো ছবি বানাবেন, যা হিন্দির সাথে পাল্লা দিয়ে টিকে থাকবে - এই অনুমানের যৌক্তিকতা কতোটুকু।

হিন্দি ছবির ভোক্তা শুধু ইন্ডিয়ার ১০০ কোটি লোক না, সারা বিশ্বেই এনআরআইদের আধিক্য এবং উন্নততর বৈদেশিক নীতির কারণে হিন্দি ছবির বাজার রমরমা। অন্যদিকে বাংলাছবির নির্মাতারা তাদের জানপ্রাণ উজাড় করে দিলেও দেশের সীমানার বাইরে বাংলাছবি বাজারজাত করতে হিমশিম খাবেন। বাংলাভাষী পশ্চিমবঙ্গেও বাংলাদেশের ছবির অবাধ যাতায়াত সৃষ্টি করা যায় নি।

এবার সিনেমার মানের সাথে আসে অর্থ বিনিয়োগের প্রশ্ন। যেহেতু ভোক্তা কম, বাজার ছোট, সেহেতু বাংলাদেশের নির্মাতাদের পক্ষে হিন্দি ছবির সাথে পাল্লা দিয়ে সমপরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করা সম্ভব নয়। এটা একেবারে স্ট্রেইট ফরোয়ার্ড ইকুয়েশন। কম অর্থ বিনিয়োগ করে হিন্দির তুলনায় ভালো মানের ছবি তৈরির জন্য যে মিরাকল দরকার, তা এখনও কেউ স্বপ্নেপ্রাপ্ত হন নাই। সুতরাং দেখা যাচ্ছে, হিন্দি ছবির দ্বার উন্মুক্ত করে দিয়েও আমরা কারান জোহর বা জেমস ক্যামেরন সৃষ্টির জন্য সেই দৈবের ওপরই নির্ভর করে আছি।

অন্যদিকে ঝুঁকিটা ষোলোআনা। হিন্দির সাথে টিকতে না পারলেই বাংলাছবি নির্মাতারা আরো লসে পড়বেন। শেষতক তারা বাংলাছবি বানানোই কমি্যে দেবেন। ছবিই যদি না বানান, তাইলে কিসের কী প্রতিযোগিতা, আর কিসের মানোন্নয়ন!

সুতরাং, এখানে আসলে গলাটা এমনিতেই ফাটানো হচ্ছে না। মুনমুন ময়ূরীদেরকে পছন্দ না হলে তাদের যায়গা দীপা, প্রভারা নিক; সেটা নেওয়ার জন্য সরকারকে চাপ দেই, এফডিসিকে চাপ দেই; কিন্তু সে যায়গাটা রাণী বা দীপিকাদেরকে দিয়ে আমাদের লাভ কি?

-----------

ভারতে হলিউডের ছবি চলে। ওথানে কি ওদের ছবি বানান বন্ধ হয়ে গিয়েছে? শুধু হিন্দি নয়, তামিল, তেলেগু অনেক ভাষাতেই সিনেমা তৈরি হয়।

এটা গিভ অ্যান্ড টেইকের ব্যাপার। হিন্দি আমদানি করে আমাদের টেইকের (মুভি, টাকা নয় চোখ টিপি ) হিসাবই বাড়বে, গিভের তেমন কিছু হবে না। সবচেয়ে বড়ো কথা ইংরেজি ছবি ভারতে হিন্দি বা তামিল বা তেলেগু মুভিকে রিপ্লেস করতে পারে না। অন্যদিকে হিন্দি মুভি বাংলাছবিকে সরাসরি রিপ্লেস করবে ভাষা এবং মুভির কাহিনী, আবেগ, ধরন, সাথে উন্নততর মেকিং ইত্যাদির কারণে।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

দুর্দান্ত এর ছবি

যদি আমদনি ও স্কৃনিং দুই খাতেই উচ্চশুল্ক (৫০%) ধরে দেয়া যায়, আর যদি সেই শুল্ককে সরাসরি দেশের ছায়াছবির উন্নয়নের দিকে মানে এফডিসির খোল নলচে পাল্টে ফেলতে অথবা একটা জাতীয় ফিল্ম একাডেমি প্রতিষ্ঠা করতে বা বিশ্বমানের কারিগরি কাঠামো তৈরী করতে কাজে লাগানো যায়, তাহলে?

তবে এই ভাবনায় আশার পিদিমটি জ্বলছে প্রায় নিভু নিভু হয়ে। খনিজতেল, তামাক, গুড়াদুধ, এয়ারকুলার, লিফ্ট, জেনারেটর গাড়ী - সব শিল্পেই উচু শুল্ক ধরে দেবার পরেও দেশে এগুলোর গ্রহনযোগ্য স্থানীয় শিল্পপ্রতিষ্ঠান তৈরী হয়নি। আর সরকার যেহেতু একজায়গার শুল্ক আয় সচরাচর সেই শিল্পে ব্যায় করে না (অনেক উদাহরন আছে, গ্যাস, বিদ্যুত, যমুনা সেতু, বন, দুধ), তাই ঠাস করে ছায়াছবির ক্ষেত্রে এর বাত্যায় ঘটবে বলে মনে হয় না।

পিদিমটি নিভে গেল।

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- গোয়াল খালি রাখতে চাইবেন নাকি একটা হার্মাদ দুষ্টু ষাঁড় দিয়ে সেটা ভরাট করে রাখার দিকে আপনি পক্ষপাতি হবেন দুর্দান্ত'দা?
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

যদি আমদনি ও স্কৃনিং দুই খাতেই উচ্চশুল্ক (৫০%) ধরে দেয়া যায়, আর যদি সেই শুল্ককে সরাসরি দেশের ছায়াছবির উন্নয়নের দিকে মানে এফডিসির খোল নলচে পাল্টে ফেলতে অথবা একটা জাতীয় ফিল্ম একাডেমি প্রতিষ্ঠা করতে বা বিশ্বমানের কারিগরি কাঠামো তৈরী করতে কাজে লাগানো যায়, তাহলে?

এক্ষেত্রে ওই হিসাবটা আগে করে তারপর পারমিশনের প্রশ্ন আসবে। যেমন, বছরে P সংখ্যক হিন্দি/বিদেশি ছবিকে পারমিশন দিলে দেশের পাবলিকের পকেট থেকে যদি X টাকা যায়, যার Y টাকা পায় হলমালিক-কর্মচারীরা, ট্যাক্স যদি 50% হয়, যা বিনিয়োগ করে আবার Z টাকা লাভ আসে (ধরে নেই, বাংলাছবির বাজারে কোনো নেগেটিভ প্রভাব পড়বে না),

তাহলে, Z > X - Y হলেই মনে হয় বাণিজ্যিকভাবে মোটাদাগে লাভ। কিন্তু বাস্তবতা কি তা তো আপনিই বলেছেন। এই লাভক্ষতির হিসাবটা বাংলাদেশে কেউ দেয় না।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

লীন এর ছবি

অসাধারণ লেখা এবং আলোচনা। ভালো লাগলো।

একটা ব্যাপার বলি... আমি হিন্দি বুঝি না বলে অনেক স্থানে তিরস্কৃত হয়েছি। তবে দুঃখ পাইনি। হিন্দি না শিখেও আমি জীবন যাপন করতে পারবো।

______________________________________
ভাষা উন্মুক্ত হবেই | লিনলিপি

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

গত কয়দিন ধরে সবচেয়ে দুঃখজনক ছিলো যে, এই দেশের মানুষদের ধরে ধরে ব্যাখ্যা কইরা বুঝাইতে হইতেছিলো যে ভারতীয় চলচ্চিত্র আইসা আমাদের চলচ্চিত্ররে অস্কার পাওয়ায়া দিতার্বো না।

বিষয়টা নিয়া এতোই মেজাজ বিলা ছিলো। আজকে খবরটা পইড়া মনে ব্যাপক শান্তি পাইছিলাম।

হিমুর 'ভারত থেকে বানিজ্য মন্ত্রী এনে' থিওরিটা ব্যাপক পছন্দ হইছে। মারহাবা...
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

ভণ্ড_মানব এর ছবি

বাংলা চলচ্চিত্রের উন্নতি বা হলভর্তি দর্শক এর কোনটারই সমাধান যে ভারতীয় চলচ্চিত্র হতে পারেনা সেটা হর্তাকর্তারা কেন বুঝেনা বুঝিনা। :-/
__________________________________
যাক না জীবন...যাচ্ছে যখন...নির্ভাবনার(!) নাটাই হাতে...

__________________________________
যাক না জীবন...যাচ্ছে যখন...নির্ভাবনার(!) নাটাই হাতে...

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

আকাম থেমে নাই। এই খবর অনুসারে বাংলাদেশে ইতিমধ্যেই হিন্দি ছবি চলে এসেছে। খবরের সত্যতা যাচাই করা দরকার।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।