হোয়াইট হাউজের কাছে জামাত-শিবিরের আর্জি: জালিয়াতি ও ভুয়া ইমেইল এর মাধ্যমে বাটপারি প্রশিক্ষণ

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: রবি, ১০/০৩/২০১৩ - ৩:৫৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ফেব্রুয়ারির ১৬ তারিখে ওবামা প্রশাসনের উদ্দেশ্যে "Express concern against International War Crime Tribunal and Mob Justice in Bangladesh" নাম দিয়ে একটা আর্জি/পিটিশন পেশ করা হয় এইখানে (https://petitions.whitehouse.gov/petition/express-concern-against-international-war-crime-tribunal-and-mob-justice-bangladesh/6gg04svt)। পিটিশনটি আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইবুনাল এর বিপক্ষে। Mob এর বাংলা দাড়ায় হুড় জনতা, Mob Justice এর মানে করা যায় শাহবাগের উচ্ছৃংখল জনতা যে বিচার চাইতে জড়ো হয়েছে। অর্থাৎ এই আর্জি আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইবুনাল ও শাহবাগের বিপক্ষে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারের কাছে। সেইটা ঠিক না কি ভুল হচ্ছে তা আমাদের আলোচ্য বিষয় না। আমরা এই পোস্টে, জামাত-শিবির কিভাবে তাদের ওয়েব সাইটের মাধ্যমে, এই আর্জির বিষয়ে গণহারে মানুষকে বাটপারি করার জন্য প্ররোচনা দিচ্ছে তা প্রমান করব। তাদের ওয়েব সাইটে তারা মানুষ কে শেখাচ্ছে কিভাবে ভুয়া ইমেইল এড্রেস কিভাবে তৈরী করতে হয়, এবং কিভাবে সেই ভুয়া ইমেইল এড্রেস দিয়ে হোয়াইট হাউজের সাইটে ভুয়া একাউন্ট তৈরী করে আর্জি পেশ করার পক্ষে জাল-স্বাক্ষর দেয়া যায়। তাদের এই জালিয়াতি অপরাপর বিষয়ে তাদের জালিয়াতির সাথে সংগতিপূর্ণ এবং তাদের প্রকৃত চরিত্রের সাথে মিলে যায়। আসুন একেক করে নিরীক্ষণ করি।

প্রথমেই আমরা জামাত এর অঙ্গ সংগঠন ছাত্র-শিবিরের একটা ওয়েব সাইট থেকে নেয়া স্ক্রিনশট লক্ষ্য করি। এটি (http://shibir24east.blogspot.com/) দুই দিন আগেও পাবলিক এর কাছে খোলা ছিল, আমরা যখন এটা ধরতে পেরে বহির্বিশ্বের কাছে প্রচার চালাচ্ছিলাম, ঠিক তখন এরা এই সাইটটি লুকিয়ে ফেলে (সচলায়তনে আগের পোস্ট: http://en.sachalayatan.com/enamulhoque1/48372)। ওদের ব্লগের একটা স্ক্রিন শট পাবেন এই খানে (http://i.imgur.com/Cu1fEyf.jpg)। দেখুন, এই বাটপারেরা উপরে লিখে রেখেছে, "সৎ, দক্ষ ও দেশপ্রেমিক নাগরিক তৈরির অঙ্গীকার" আর নিচেই কিভাবে বাটপারি তৈরির প্রশিক্ষণ দিচ্ছে, সেও দেশের বিরুদ্ধে, যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরুদ্ধে জাল স্বাক্ষর দেয়ার জন্য।

বাটপারির পাঁচ ধাপ (সংক্ষেপে)

১) ব্রাউজারে পিটিশনটি খুলুন (https://petitions.whitehouse.gov/petition/express-concern-against-international-war-crime-tribunal-and-mob-justice-bangladesh/6gg04svt)

২) ব্রাউজারে ভিন্ন ট্যাব খুলে এই লিংকে যান: http://www.fakemailgenerator.com/ এটি একটা ভুয়া ইমেইল একাউন্ট দিবে

৩) দ্বিতীয় ট্যাব এর ইমেল কপি করে পিটিশন/আর্জির জন্য একাউন্ট খুলুন

৪) ভুয়া একাউন্ট দিয়ে পিটিশন স্বাক্ষর করে ট্যাব বন্ধ করে পুনরায় চালু করুন

৫) এর পরে দ্বিতীয় ট্যাব থেকে ২ নম্বর ধাঁপ থেকে অনুসরণ করে আবার জাল স্বাক্ষর দিন ।

স্ক্রিনশটে দেখবেন ওরা এই সাইট যাতে ফেসবুকে খোলাখুলিভাবে শেয়ার না করা হয় সেই ব্যাপারে সাবধান করে দিচ্ছে। আমরা ধারণা করি, বাটপারির এই আওভান পাবলিক করার আগে তাদের ফোরামে-ফোরামে ছড়িয়েছে।

আমরা এখন হোয়াইট হাউজের পিটিশন/আর্জিগুলির যে পাবলিক বা জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত ডাটা আছে, সেটা বিশ্লেষণ করে দেখি ওদের বাটপারির আরো কিছু প্রমান পাওয়া যায় কিনা।

এই ছবিতে তারিখ অনুযায়ী পিটিশনে কি পরিমান স্বাক্ষর জমা হচ্ছিল তার একটা গ্রাফ আছে। খেয়াল করি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পাঁচ তারিখ রাতের পর থেকে এই আর্জির পক্ষে স্বাক্ষরের পরিমান বেশ উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই ব্লগ পোস্টটি করা হয় বাংলাদেশ সময় মার্চের ছয় তারিখে, অর্থাৎ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তখনও ৫ তারিখ রাত, মিলে যাচ্ছে। কার্যকারণের একটা ব্যাখ্যাও পাওয়া যাচ্ছে। এই যে হঠাৎ স্বাক্ষর পরা বেড়ে গেল, সেটি এই বাটপারি পোস্টের পর থেকেই।

এই ছবিতে আমরা দেখি যারা ভোট দিয়েছে, তাদের নাম কি এবং তারা কোথা থেকে ভোট দিচ্ছে। মার্চের ছয় তারিখ পর্যন্ত ৪২৩২৫ টা ভোট পড়েছিল এবং তার মধ্যে ৮৩৪৪ টির ক্ষেত্রে কোথা থেকে ভোট দেয়া হয়েছে সেই ডাটা পাওয়া যাচ্ছে। ছবিতে খেয়াল করি, এক পোর্ট আর্থার থেকেই "A.A." আদ্যক্ষরের নামধারী ভোট পড়েছে ৪৬৭ টা। পোর্ট আর্থার থেকে মোট ভোটের পরিমাণ ৪৭৩।লক্ষ্যনীয় আমেরিকার অঙ্গরাজ্য টেক্সাসের পোর্ট আর্থারে মোট জনসংখ্যা ৫৪০০০ এর মতো(http://bit.ly/13JV1qO) এবং এর মধ্যে প্রায় ১% অর্থাৎ ৪৬৭ জনের নামের সংক্ষিপ্ত প্রকরণ, "A.A." এবং তারা সকলেই বাংলাদেশের যুদ্ধাপরাধ ও শাহবাগ নিয়ে জানেন!

তাহলে আমাদের জানতে ইচ্ছে করে, পোর্ট আর্থারের এই "A.A."(আর্থারের আবাল) রা কবে কখন স্বাক্ষর করেছিল। উপরের ছবিতে দেখি ভোট/স্বাক্ষর পরেছে ১৬ ফেব্রুয়ারী থেকেই, তবে ২৬ শে ফেব্রুয়ারী থেকে মার্চের ৪ তারিখ পর্যন্ত প্রত্যেক দিন গড়ে স্বাক্ষর পরেছে দৈনিক ৭৫ এরও বেশি। স্পষ্টভাবেই বুঝা যাচ্ছে এটি একটি অসঙ্গতি এবং ভুয়া আইডি তৈরী করেই এটি করা হয়েছে। আরো অন্যান্য লোকেশন বা শহরের নাম ও নামের আদ্যক্ষর নিয়েও একই প্রকার বিশ্লেষণ করা যেতে পারে। একই প্রকার বাটপারির প্রমান বেরিয়ে আসবে নিশ্চিত।


এর পরে আমরা দেখি যে ৮৩৪৪ টি স্বাক্ষরের জন্য স্বাক্ষরকারীর অবস্থান জানা যায় সেগুলির মার্কিন ভূখন্ডে বিস্তার কিরূপ। সবচেয়ে বেশি ছাগু আছে অর্থাৎ সবচেয়ে বেশি স্বাক্ষর/ভোট পড়েছে নিউ ইয়র্ক, ওয়াশিংটন ডিসি আর ভার্জিনিয়া থেকে। এর পরেই টেক্সাস আর ক্যালিফোর্নিয়া। একটা সহজ ব্যাখ্যা এই জায়গাগুলিতেই বাংলাদেশী সবচেয়ে বেশি থাকে। এখন এইসব অবস্থান থেকে ভুয়া আইডি ব্যবহার করে স্বাক্ষর দেয়া হয়েছে কিনা তার একটা অনুসন্ধান চালানো যেতে পারে।

সারসংক্ষেপ হলো, জামাত-শিবিরের এই বাটপারি ধরা পরে গেছে। যদিও ওরা এখন এই ওয়েব সাইট লুকিয়ে ফেলেছে, কিন্তু পিটিশনের পাবলিক ডাটা এখনো রয়ে গেছে, এবং সাক্ষী দিচ্ছে ওদের জালিয়াতির।

গবেষক দল: অভি, আসিফ, এনামুল ও কল্লোল
লিখন: এনামুল(মূল: ইংরেজি)


মন্তব্য

অতিথি লেখক এর ছবি

জামাত-শিবিরের এই জালিয়াতি সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দেয়া উচিৎ। ইউএসএর যথাযথ কতৃপক্ষের দৃষ্টিতে বিষয়টা নেয়া যেতে পারে। লেখককে এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যথাযথ অনুসন্ধান করে উপস্থাপন করার জন্য ধন্যবাদ।

সাম্পানওয়ালা

চারু হক এর ছবি

জনাব অভি, এনামুল, আসিফ এবং কল্লোল সাহেব,
নিরন্তর শুভেচ্ছা জানবেন, যথাসময়ে এই গুরুত্বপুর্ণ পোস্ট শেয়ার দেওয়ার জন্য।ধর্ম ব্যবসায়ী ভন্ড জামাত-শিবিরের এই জালিয়াতি সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ুক। সত্যের জয় অনিবার্য ।

বিজন কথক

রানা মেহের এর ছবি

আপনারা তো বিশাল কাজ করে ফেলেছেন ভাই।
অনেক অনেক অভিনন্দন রইলো

-----------------------------------
আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস

সচল জাহিদ এর ছবি

চলুক চলুক চলুক


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

জামাত শিবির সম্পর্কে যাদের আদিজ্ঞান আছে তারা জানেন জামাত শিবির পুরোনো বাটপার। তবে বাটপারির জন্য এদের দরকার হয় সরলমনা অজ্ঞ লোকজন। তাই সাধারণত এদের টার্গেট হয় আবাল অডিয়েন্স। যারা জামাত শিবিরের জালে আটকা পড়ে তারা হলে আত্মবিশ্বাসহীন আবাল মানব সন্তান। সাঈদীকে চাঁদে দেখার কথা শুনে যারা নিজের ঘরের বিদ্যুতের লাইন কেটে দেয় চাঁদের আলোর আশায়, সেরাম লোকজন আমেরিকাতেও আছে তাতে কোন সন্দেহ নাই আর এই পিটিশানেও সই করবে তাতে অবাক হবার কিছু নাই। এই জালিয়াতির মাধ্যমে তাদের চৌর্যবৃত্তির আন্তর্জাতিককরণ হয়েছে।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

উন্মাদ   এর ছবি

গ্রেট পোস্ট

SanjidaSultana  এর ছবি

ভাই এইটা ইংলিশে কপি করে ইমেইল করা যায় না কতৃপক্ষকে?

kamal uddin  এর ছবি

ভাল একটা প্রতিবেদনের জন্য ধন্যবাদ।

শিশিরকণা এর ছবি

সুখবর!!!!!!!
হোয়াইট হাউজকেও এই এনালিসিস পাঠানো হয়েছিল। এই পিটিশনটি এখন বাতিল করা হয়েছে। বাশের কেল্লা পেজে ছাগুদের কান্নাকাটি দেখে আসতে পারেন!!

~!~ আমি তাকদুম তাকদুম বাজাই বাংলাদেশের ঢোল ~!~

অচল এর ছবি

চলুক লেখা -গুড়- হয়েছে

তারানা_শব্দ এর ছবি

চলুক আহা কী আনন্দ !!! দেঁতো হাসি ছাগুরা এতো ছাগু কেনু?

"মান্ধাতারই আমল থেকে চলে আসছে এমনি রকম-
তোমারি কি এমন ভাগ্য বাঁচিয়ে যাবে সকল জখম!
মনেরে আজ কহ যে,
ভালো মন্দ যাহাই আসুক-
সত্যেরে লও সহজে।"

তানিম এহসান এর ছবি

দেঁতো হাসি

তানিম এহসান এর ছবি

আপনাদের জন্য শুভেচ্ছা আর সতেজ আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

চিলতে রোদ এর ছবি

আমরা জেগে আছি, এই ধূসর রাত্রিতে
তোমাকে এনে দেবো পৃথিবীর সবচেয়ে উজ্জ্বল দিন!

কড়িকাঠুরে এর ছবি

চলুক চলুক চলুক ...

Hasan এর ছবি

ভাই অসাধারন কাজ।
অভিনন্দন জানাতে পারি।
ধন্যবাদ দিয়ে এই বিশাল কাজ কে ছোট করব না। চলুক

শিশিরকণা এর ছবি

এইটার রিপ্লেসমেন্ট হিসেবে ছাগুরা আরেকটা পিটিশন শুরু করেছিল। ফেসিস্ট জালিম মার্কিন সরকার ঐটাও বাতিল করে দিয়েছে। আজ ছাগু অধিকারের আকাশে ঘোর ঘনঘটা, এক বিভীষিকাময় কালো রাত্রি।

~!~ আমি তাকদুম তাকদুম বাজাই বাংলাদেশের ঢোল ~!~

sazzad rahman এর ছবি

হো হো হো

ঠোঁট কাটা এর ছবি

একখান কামের মতো কাম করছেন ভাই, অবারিত শুভেচ্ছা আর ধইন্না আপনাদের

অতিথি লেখক এর ছবি

যুক্তরাষ্ট্র দুর্নিতীর বিরুদ্ধে এতকথা বলে তাহলে এই দুর্নিতীর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেবে না ?

রশিক রশীদ

নীপবন এর ছবি

চলুক চলুক চলুক

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।