তাড়াহুড়োর পরিণাম ও সৃজনশীল শিক্ষাব্যবস্থা

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: রবি, ১৮/০৫/২০১৪ - ৮:১৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

কেস স্টাডি ১

মজার ঘটনাটা পেয়েছি আকবর আলি খানের পরার্থপরতার অর্থনীতি বইয়ে ।
পাকিস্তান আমলে সামরিক সরকার সবকিছুর সমাধান করতে চাইত এক নিমিষে। আজকে আইন হবে, কাল থেকে সব লোক ঠাণ্ডা হয়ে যাবে, এই রকম ছিল তাদের চিন্তাভাবনা।

তো পূর্ব পাকিস্তানে সেই সময় খাঁটি দুধ পাওয়া যেত না, গোয়ালারা দুধে কম বেশি পানি মেশাত। দুধের উৎপাদন ছিল সীমিত, ফলে খাঁটি দুধের যে দাম, তা কেনার সঙ্গতি তখন অধিকাংশ লোকেরই ছিল না। পানি মিশিয়ে দাম কমিয়ে সাধারণ লোকের আয়ত্তে রাখা হত দুধের দাম।

দুধের উৎপাদন না বাড়ালে দুধে ভেজাল বা দুধের দাম কোনটিই কমার কথা না। দুধের উৎপাদন বৃদ্ধি করলে অর্থনীতির নিয়মানুযায়ী দাম কমে যাবে, সরবরাহ বাড়লে যেহেতু দাম কমে। কিন্তু দুধের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য সময় লাগবে, অর্থ লাগবে। অথচ সরকার চায় তাৎক্ষণিক সমাধান।
তাৎক্ষণিক সমাধানের জন্য সামরিক সরকার বলল, দুধে পানি মেশানো চলবে না। কেউ দুধে পানি মেশালে ১৫০ টাকা করে জরিমানা। তারা মনে করেছিলেন

জরিমানার ভয়ে এক মাসের মধ্যে পানি মেশানো কমে যাবে। তখনকার দিনে ১৫০ টাকা মানে অনেক টাকা।

আইন জারির পর দেখা গেল দুধে পানি মেশানোর পরিমাণ আরও বেড়ে গেছে।

অনুসন্ধানে দেখা গেল, স্যানিটারি ইন্সপেক্টররা তখন বাজারে প্রত্যেক দুধ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ঘুষ নেয়া শুরু করেছে এই বলে যে ঘুষ না দিলে মামলা ঠুকে দেবে। শেষে ১৫০ টাকা জরিমানা দিতে হবে।

দুধ ব্যবসায়ীদের ইন্সপেক্টরকে ঘুষ দেয়া ছাড়া কোন উপায় ছিল না।

এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে তারা দুধে আরও পানি মেশানো শুরু করলেন।

যা হওয়ার কথা ছিল, ঘটনা ঘটল তার উল্টো।

কেস স্টাডি ২

বহু বছর পর্যন্ত বাংলাদেশের মানুষের খাবার পানির মূল উৎস ছিল নদী-নালা খাল-বিলের পানি, তথা ভূপৃষ্ঠের পানি (সার্ফেস ওয়াটার)। তবে এই পানি ব্যবহারের সমস্যা হল এতে বিভিন্ন রোগ জীবাণু থাকে, যেহেতু মানববর্জ্যসহ নানা ধরণের ময়লা আবর্জনা বাংলাদেশে এখনো পর্যন্ত নদী নালাতেই গিয়েই মেশে।
ফলে ডায়রিয়া, কলেরার মত রোগ বাংলাদেশে বিশাল সমস্যার আকার ধারণ করে।

তো এই সমস্যা সমাধানের জন্য বাংলাদেশ সরকার ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিল। ভূগর্ভস্থ পানিতে ডায়রিয়া আমাশয়ের জীবাণু থাকার কোন সম্ভাবনা নেই। রাতারাতি সিদ্ধান্ত হয়ে গেল। এবং এর ফলাফলও পাওয়া গেল হাতেনাতে। বাংলাদেশে এখন ডায়রিয়া, কলেরার কোন প্রকোপ নেই।
কিন্তু নতুন সমস্যা দেখা দিল- আর্সেনিক।

হঠাৎ করে সবাই মিলে ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারের ফলে যে হারে পানি উত্তোলিত হল, সেই হারে ভূগর্ভে পানি জমা হল না (বৃষ্টির পানির কিছু অংশ মাটির ভেতর দিয়ে চুইয়ে চুইয়ে মাটির নিচে জমা হয়)। ফলে আগে যেখানে মাটির ১০ মিটারের মধ্যেই পানি পাওয়া যেত, তা ২০/৩০ মিটার নিচে নেমে গেল। তখন ২০/৩০ মিটার নিচের পানি উত্তোলন করা শুরু হল। পানির স্তর আরও নিচে নেমে গেল।

এভাবে পানির স্তর নামতে নামতে এমন জায়গায় পৌঁছাল যে স্তরে রয়েছে আর্সেনিক। সে স্তর থেকেও পানি তোলা হল, কারণ মানুষ তো জানে না ঐ স্তরে আর্সেনিক রয়েছে। জানলেও হয়ত লাভ হত না কারণ, ততদিনে মানুষ সম্পূর্ণরূপে ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে।
এর পরের ইতিহাস সবার জানা। বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বের কয়েকটি জেলা বাদে প্রায় সব জেলাতেই ভূগর্ভের পানিতে আর্সেনিক পাওয়া গেছে।

কেস স্টাডি ৩

এই ঘটনাটি আবদুল্লাহ আবু সায়ীদের নিষ্ফলা মাঠের কৃষক বই থেকে পাওয়া।

স্বাধীনতার পূর্বে ষাটের দশকে পুরো বাংলাদেশে সরকারি কলেজের সংখ্যা ছিল ৬/৭টা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চেয়েও সরকারি কলেজের শিক্ষকদের বেতন ছিল বেশি। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সবচেয়ে মেধাবী ছাত্রটিও বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ে কলেজে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করার প্রতি আগ্রহী হত। আর মাত্র ৬/৭টি কলেজ হওয়ায় সেখানে শিক্ষকের সংখ্যাও ছিল কম। জনশিক্ষা পরিচালক সাময়িক ভিত্তিতে নিয়োগদান করত এবং সরকারি কর্ম কমিশন আলাদাভাবে যোগ্যতা নির্ধারণ করে সন্তুষ্ট হলে চাকরি জুটত শিক্ষক হিসেবে।

স্বাধীনতার পরে দেশে কলেজগুলোর ব্যাপকহারে জাতীয়করণ শুরু হয়। বাছবিচার না করে ঢালাওভাবে জাতীয়করণ করার ফলে সরকারি কলেজের সংখ্যা দাঁড়াল মোটামুটি ২৫০ তে। তখন ছাগলনাইয়া কলেজও হয়ে গেল সরকারি কলেজ, ডুমুরিয়া কলেজের শিক্ষকও হয়ে গেলেন সরকারি কলেজের শিক্ষক। তাদের যোগ্যতা নির্ধারণ করার মত কেউ ছিল না দেশে।

ঢাকা কলেজও সরকারি কলেজ। ঢাকা কলেজের সাথে বাকি ২৪৯টি কলেজের কোন প্রভেদ রইল না।

সামান্য চেষ্টা তদবির করে বন্যার স্রোতের মত বিভিন্ন অখ্যাত কলেজের মোটামুটি অযোগ্য শিক্ষকরা ঢাকা কলেজে বদলি হয়ে চলে এলেন। দেশের সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের মান হঠাৎ মান নেমে গেল।

বর্তমান সমস্যাঃ সৃজনশীল শিক্ষাব্যবস্থা

ওপরের ঘটনাগুলো থেকে আমরা যে শিক্ষাটি নিতে পারি, সেটি হল তাড়াহুড়ো করে একটা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেই হয়ে যায় না। এর আগেপিছে ফলাফল কী হতে পারে, তা সম্পর্কে সামান্য হলেও জ্ঞান ধারণ করা জরুরী।

আমাদের সরকার রাতারাতি আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা পরিবর্তন করে ফেলতে চাইছে। আর একদিনে আমূল পরিবর্তন করতে গিয়ে সরকার পুরো শিক্ষা ব্যবস্থাকেই মোটামুটি ধ্বংসের দোরগোড়ায় নিয়ে গেছে।

‘সৃজনশীল পাঠ্যপুস্তক’ ছাপিয়ে, জানুয়ারির এক তারিখে সবার কাছে সেই বই পৌঁছে দিয়েই সরকার ভাবছে সকলস্তরে সৃজনশীল ব্যবস্থা চালু করে ফেলা গেছে।

প্রশ্ন হল যে ব্যবস্থা আমরা চালু করেছি, তাতে আদৌ শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটছে কি?

আমাদের শিক্ষকরা কোন রকম ট্রেনিং পাননি নতুন ব্যবস্থা সম্পর্কে। যে শিক্ষকরা ৫০X১=৫০ না লিখে ১X৫০=৫০ লিখলে শূন্য দিতেন পরীক্ষার খাতায়, তারা হঠাৎ করে সৃজনশীল ব্যবস্থা চালু হবে আর জাদুর মত নিজেরা সৃজনশীল হয়ে যাবেন- আশা করা বোকামি (নিজ অভিজ্ঞতা থেকে বলা)।

তারা, সেই সাথে আমরাও যা বুঝেছি, “সৃজনশীল ব্যবস্থা হল এমন এক ব্যবস্থা যেখানে বইয়ের ভেতর থেকে প্রশ্ন করা যাবে না”
বইয়ের ভেতর থেকে প্রশ্ন করা যাবে না। শিক্ষকরা কী প্রশ্ন করবেন, কেউ এখন তা জানে না। অনেকক্ষেত্রেই তারা এসএসসি লেভেলের ছাত্রছাত্রীদের প্রশ্ন করেন এইচএসসির বইয়ের টপিক থেকে।

বইয়ের ভেতর থেকে প্রশ্ন আসেনি- প্রশ্ন তো সৃজনশীলই!

এর সমাধান কী? টিচারের বাসায় দৌড়াও। তখন যদি ধারণা করতে পার পরীক্ষায় কী প্রশ্ন আসতে পারে।

বলা হয়েছিল সৃজনশীল ব্যবস্থা চালু হলে গাইড বইয়ের ওপর নির্ভরতা কমে যাবে। ঘটনা ঘটেছে উল্টো। ‘সৃজনশীল গাইড’ নামে বাজারে গাইড বইয়ের দৌরাত্ম্য আরও বেড়েছে। এখন যে সব বই ছাপা হচ্ছে সৃজনশীল বই নামে, তাতে কিছুই নেই। সত্যি বলতেই কিচ্ছু নেই। বইয়ের আকার ছোট করতে গিয়ে সব টপিকই টাচ করা হয়েছে, কিন্তু কোন ব্যাপারেই বিস্তারিত কিছু বলা নেই।

নবম দশম শ্রেণীর রসায়ন বইয়ের কথা বলতে পারি এক্ষেত্রে,

‘আয়নীকরণ শক্তি, তড়িৎ ঋণাত্মকতা, ইলেক্ট্রন আসক্তি- এদের নাম দেয়া আছে শুধু। এগুলোর কী জিনিস, কিছুই বলা নেই এই ব্যাপারে।
এখন পরীক্ষায় যদি প্রশ্ন আসে, তড়িৎ ঋণাত্মকতা কী? বা ইলেক্ট্রন আসক্তি কী? পর্যায় সারণিতে এটি কীভাবে পরিবর্তিত হয়? তখন শিক্ষার্থীরা কী করবে?
শিক্ষার্থীরা তাই কোচিংয়ের পিছনে ছুটছে, আর না হয় ছুটছে গাইড বইয়ের পিছনে। অন্য কোন গতি নেই তার।

(এই টার্মগুলো যে শিক্ষকরা বুঝিয়ে দেবেন ক্লাসে, এটা অন্য সবাই বিশ্বাস করলেও আমি করি না। আমি সরকারি স্কুলে পড়াশুনা করে এসেছি, আমি জানি ক্লাসে শিক্ষকরা কী করেন।)

মজার আরেকটা ব্যাপার ঘটেছে মাত্র এসএসসিতে যখন সৃজনশীল শিক্ষাব্যবস্থা চালু হল তখন। প্রথম বছর শুধু বাংলা, রসায়ন, সমাজ, ধর্ম সম্ভবত সৃজনশীল ছিল।

যে বছর থেকে পদার্থবিজ্ঞানে সৃজনশীল পদ্ধতি চালু হল সে বছর থেকে দেখা গেল পদার্থ বইয়ের অনুশীলনীতে কোন অঙ্কই নেই!!

কারণ?

পদার্থবিজ্ঞান পরীক্ষায় তো অঙ্ক আসতেই হবে- মাস্ট। বইয়ে যদি সে ধরণের প্রশ্ন থাকে, তাহলে তো আর প্রশ্ন সৃজনশীল হল না।
এখন তাহলে কী করা যায়?

খুব সহজ। অনুশীলনীতে কোন অঙ্ক থাকবে না। পরীক্ষার হলে গিয়ে শিক্ষার্থীরা আকাশ থেকে পড়বে।

হুম। ভালো বুদ্ধি। শিক্ষার্থীরা অঙ্ক করা শিখুক, বা না শিখুক, সেটা সমস্যা না। প্রশ্ন সৃজনশীল হওয়া দিয়ে হল কথা।

আমাদের শিক্ষামন্ত্রণালয় এবং এনসিটিবির কাছে সৃজনশীল ব্যবস্থার অর্থ কী, এই ঘটনা থেকেই তা প্রতীয়মান হয়।

প্রশ্ন সৃজনশীল করতে হবে বলে আমরা আমাদের শিক্ষার্থীদের পদার্থবিজ্ঞানের অঙ্কগুলো প্র্যাক্টিস করার সুযোগ দেই নি।

তারপর কী ঘটল? যারা কোচিং করল, বা প্রাইভেট পড়ল বা গাইড বই পড়ল, তারা পুরাতন বছরের বইয়ের অনুশীলনীর প্রশ্ন সমাধান করা শিখে ফেলল। যারা একা বাসায় পড়ল, পরীক্ষায় তারা ভালো করতে পারল না। কারণ পাঠ্যবই ছাড়া তাদের সাহায্য করার মত কেউ নেই।

সবাই নিশ্চিত হল সৃজনশীল ব্যবস্থা অনেক কঠিন। কোচিংয়ে না পড়লে, স্কুলের টিচারদের বাসায় না দৌড়ালে পরীক্ষায় ভালো করা যায় না।

আমাদের দেশে গাইড, কোচিং এত শক্তিশালী ভিত্তি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে যে হঠাৎ করে তাকে উপড়ে ফেলার চিন্তা করা বোকামি।

সরকার শিক্ষার্থীদের কোচিং-গাইড-প্রাইভেট বলয় থেকে রক্ষা করতে গিয়ে সেগুলোর ওপর তাদের আরও নির্ভরশীল করে ফেলেছে।
এত বেশি তাড়াহুড়ো করা উচিত হয়নি আমাদের। সৃজনশীল ব্যবস্থা প্রণয়নের আগে আরও সময় নেয়া উচিত ছিল। পাঠ্যপুস্তকগুলো আরও যত্ন নিয়ে লেখা উচিত ছিল।

এই ব্যাপারটা আমাদের মাথায় রাখা জরুরী যে আমরা কেউ ঈশ্বর নই।

আমি বললাম “হও”, সাথে সাথ সব হয়ে যাবে না।

একদিনে দেশের মুখস্তনির্ভর শিক্ষাব্যবস্থাকে কয়েকটা বই ছাপিয়ে (যেগুলো কিনা আবার আগের বইয়ের চেয়ে মানের দিক থেকে খারাপ) সৃজনশীল বানিয়ে ফেলা যায় না।

আহাদুল ইসলাম ফেসবুক


মন্তব্য

দীনহিন এর ছবি

আপনি একটি সমস্যা তুলে ধরতে চেয়েছেন, প্রশংসনীয় একটি কাজ, কিন্তু সেজন্য কেন একপেশে মন্তব্য ছুঁড়ে দিতে হবে, মাথায় ঢুকলো না!

আমি সরকারি স্কুলে পড়াশুনা করে এসেছি, আমি জানি ক্লাসে শিক্ষকরা কী করেন।

সব স্কুল এক নয়, আবার সব শিক্ষকও সমান নয়! কথাটা খবই অমার্জিত হয়েছে!

একদিনে দেশের মুখস্তনির্ভর শিক্ষাব্যবস্থাকে কয়েকটা বই ছাপিয়ে (যেগুলো কিনা আবার আগের বইয়ের চেয়ে মানের দিক থেকে খারাপ) সৃজনশীল বানিয়ে ফেলা যায় না।

আপনি পুরো লেখা জুড়ে শুধু এই কথাটিই বলে গেলেন, কিন্তু কিছু সমাধান সূত্র তুলে ধরলেন না!

যতদূর জানি, সৃজনশীল পদ্ধতি ধাপে ধাপেই বাস্তবায়িত হয়েছে! এখনো অনেক সমস্যা আছে, তবে প্রাথমিক দিকে কিছু সমস্যা তো থাকবেই!

আমি খুব বেশী জানি না সৃজনশীল পদ্ধতি সম্পর্কে, তবে আমার এক ছোট ভাইকে দেখেছি, নিজের মনের মাধুরি মিশিয়ে রচনা লিখছে। সে কিন্তু 'জুট' বা 'রাইস' রচনা মুখস্ত করে পরীক্ষার সিটে বসে না! আপনি হয়ত অত আগের কথা জানেন না, ঐ সময়টাতে এক বছর আসতো জুট, অন্যবছর রাইস! এসএসসি পরীক্ষায়! বিশ মার্ক, সবচেয়ে বেশী অংকের মান এই রচনার জন্যই নির্ধারিত থাকত!

.............................
তুমি কষে ধর হাল
আমি তুলে বাঁধি পাল

অতিথি লেখক এর ছবি

"আমি সরকারি স্কুলে পড়াশুনা করে এসেছি, আমি জানি ক্লাসে শিক্ষকরা কী করেন।"

কথাটা খুব তীব্র হয়ে গেছে জানি। কিন্তু একে মিথ্যাও বলা যায়না।

সব শিক্ষক হয়তো এক নন। কিন্তু অধিকাংশ শিক্ষকই (অধিকাংশ বলতে শতকরা ৯০ ভাগ) ক্লাসে কিছু পড়ান না।
"স্কুলে পড়া হয় না" কথাটা এমনি এমনি তৈরি হয়নি।

আবার সব স্কুলও অবশ্যই এক না। আমি ঢাকার মোটামুটি মানের একটা সরকারি স্কুলে লেখাপড়া করেছি। আপনি যদি হাই প্রোফাইলের কয়েকটা স্কুলের কথা বাদ দেন, তবে আমি নিশ্চয়তা দিয়ে বলতে পারি অন্যান্য স্কুলগুলোর অবস্থা মোটামুটি আমাদের মতো বা তার চেয়ে খারাপ, গ্রামের স্কুলগুলোর কথা বাদই দিলাম।

আমি সমাধান কী দিতে পারি? সমাধানের কথা যা বলব তা অবাস্তব মনে হবে সবার কাছে। এবং এই ব্যাপারে আমি বিশেষজ্ঞও নই। আমি যা মনে করি স্কুলগুলোতে সবার আগে ভালো শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে। শিক্ষকদের মান নিম্নগামী, এতে কোন সন্দেহ নেই।
ছেলেমেয়েরা যাতে শিক্ষক হবার স্বপ্ন দেখে, সে রকম ব্যবস্থা করতে হবে। সবচেয়ে মর্যাদাবান পেশা হিসেবে শিক্ষকরা যাতে মর্যাদাপূর্ণ সম্মানী পান, তা নিশ্চিত করতে হবে। তখন হয়ত উজ্জ্বল ছাত্রছাত্রীরা শিক্ষকতাকে সম্মানজনক পেশা হিসেবে গ্রহণ
করতে আগ্রহী হবে।
তারপর নিশ্চিত করতে হবে সত্যিকার অর্থেই সৃজনশীল শিক্ষাব্যবস্থার উপযোগী পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন।

বাই দ্য ওয়ে, বাংলা ২য় পত্র এবং ইংরেজি ১ম, ২য় কোনটিই কিন্তু এখনো সৃজনশীল হয়নি। এখনো সাজেশনের যুগ চলে সেখানে। কোন ভাবসম্প্রসারণ, রচনা, প্যারাগ্রাফ, কম্পোজিশন আসতে পারে- কোনটা পড়লে কমন পড়বে- এই নিয়ে শিক্ষার্থীরা টেনশনে থাকে এখনো। আপনার ছোট ভাইয়ের মনের মাধুরী মিশিয়ে রচনা লেখার কারণ আমি জানি না।

আহাদুল ইসলাম

দীনহিন এর ছবি

আমি যা মনে করি স্কুলগুলোতে সবার আগে ভালো শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে।

আর যতক্ষণ না পর্যন্ত ভাল শিক্ষক নিয়োগ করা যাচ্ছে, তদ্দিন পুরনো সিস্টেমেই চলতে হবে?
আচ্ছা, 'ভাল শিক্ষক' নিয়োগ করতে হলে কি কি করতে হবে বলুনতো?

দেশে ভাল শিক্ষকের অভাব নেই, অথচ আপনি আবারও চরম অমার্জিত ও একপেশে মন্তব্য করেছেন শিক্ষকদের নিয়ে! সবকিছুর মূলে খারাপ শিক্ষক, এইরকম অগভীর ভাবনায় নিমজ্জিত না হলে বুঝতেন সমস্যার শেকড় অনেক অনেক গভীরে!

আমাদের দেশের শিক্ষার এই করুন হাল কেন?

আপনি বিশেষজ্ঞ না হতে পারেন, কিন্তু কেউ ভাবতে তো বারণ করেনি! আর আপনি যে এই পোস্টটি লিখেছেন, তাও তো একটি ভাবনার ফসল, তাই না?

একটি সময় ছিল যখন শুধু জুট বা রাইস মুখস্থ করলেই হত, পরীক্ষায় অল্টারনেট করে আসতো; কিন্তু আজকের ছোট ভাইরা অন্তত লিখতে শিখেছে নিজের মত করে, হয়ত অনেক অশুদ্ধ লিখছে, তবু লিখছে তো! লেখার চেষ্টাটা করছে তো! এক সময় ঠিক লিখতে পারবে!

সৃজনশীল ব্যবস্থা কেবলমাত্র চালু হয়েছে, অনেক গলদ রয়েছে, আপনাদের আলোচনা-সমালোচনা থেকে উত্তরোত্তর উন্নতি হবে সিস্টেমটির; কিন্তু আমাদের শিক্ষাব্যবস্থার রাহুর দশার জন্য আপনি মনে হয় সৃজনশীল ব্যবস্থাকেই দায়ী করছেন অথবা বলতে চাইছেন, শিক্ষাব্যবস্থা উন্নত বিশ্বের মত উন্নত হোক, তার আগ পর্যন্ত রাইস-জুট টাইপের কনভেনশনাল সিস্টেমই চলতে দিতে হবে!

শিক্ষা ব্যবস্থার আজকের এই দশার পেছনে অনেক অনেক অনেক কারণ রয়েছে, আর এটি এক লহমায় সমাধা করে ফেলাও সম্ভব নয়; ভাল শিক্ষক, ভাল বেতন, গভর্নিং বডির দুর্নীতি দূরীকরণ, শিক্ষাঙ্গনে রাজনীতি, স্থানীয় প্রভাবশালীদের নিয়ন্ত্রণ চেষ্টা, শিক্ষা উপকরণের অপ্রতুলতা সহ হাজারো কারণ রয়েছে!

এই সমস্যাগুলো দূর করতে হবে, তবে এক দিনে হবে না; আবার একই সাথে শিক্ষাঙ্গনে সংস্কারের কাজও চালিয়ে যেতে হবে; তাই, শিক্ষাব্যবস্থার কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন না করে সৃজনশীল-টিল আনা যাবে না, আপনার এই ভাবনাটার সাথে একমত হতে পারলাম না বলে দুঃখিত!

কেন সময়ের আগেই সৃজনশীল আনা হল, তা-ই নিয়ে আপনার আপত্তি!! কিন্তু কেন ম্যাচিউর হওয়ার আগেই অপটিমাম রেজাল্ট আশা করছেন আপনি সৃজনশীলের কাছ থেকে, সে প্রশ্ন করাই যেতে পারে!

.............................
তুমি কষে ধর হাল
আমি তুলে বাঁধি পাল

অতিথি লেখক এর ছবি

একজন শিক্ষক যিনি ছাত্রদের অনুপ্রাণিত করতে পারেন না, জ্ঞানের প্রতি আগ্রহী করে তুলতে পারেন না, তাদের দিয়ে কোন ব্যবস্থাতেই কিছু সম্ভব না।
আপনি বলছেন দেশে ভালো শিক্ষকের অভাব নেই। আপনার কথা অস্বীকার করছি না। কিন্তু তারা মোট শিক্ষকদের কত শতাংশ? এখন ৮০-৯০ শতাংশ শিক্ষক যদি তুলনামূলক খারাপ হয়ে থাকে, স্বাভাবিকভাবেই ভালো শিক্ষকরা আমাদের চোখে পড়বে না।

পুরাতন ব্যবস্থায় ছাত্ররা বই পড়ে অন্তত পক্ষে কিছু শিখতে পারত। এখন ঐ অবস্থাও নেই। বিশেষ করে আপনি যদি এইচএসসি লেভেলের পুরাতন আর নতুন বইগুলো দেখেন, তাহলে বুঝতে পারবেন আগের বইয়ের তুলনায় নতুন বইয়ে তেমন কিছুই নেই। যা আছে, তাও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে একা পড়ে বুঝে ফেলার মত না।
যেই ব্যবস্থায় শিক্ষার্থীর সৃজনশীল হিসেবে বেড়ে ওঠার কথা, সেখানে সে বরং আরও অন্যের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে। সিস্টেম এখনো বদলায়নি। বদলেছে শুধু তার নাম। আর বদলেছে পাঠ্যপুস্তক।
গাইড বহাল তবিয়তে আছে, প্রাইভেটও চলছে, কোচিংগুলো এক ধাপ এগিয়ে হয়ে গেছে সৃজনশীল!
আগে বইগুলো যাও ছিল পড়ার মত, এখন তাও নেই। বাকি সবকিছু অপরিবর্তিত রেখে কীভাবে এই ব্যবস্থা চলতে পারে?

আগে ক্ষেত্র প্রস্তুত করতে হয়, তারপর চারা বপন করতে হয়, এরপর ফসলের অপেক্ষা।
সরকার যা করেছে তা হল আগেই চারা বপন করে ফেলেছে। ফলে কোন লাভ হবে না।

"ম্যাচিউর হওয়ার আগেই অপটিমাম রেজাল্ট আশা করছেন আপনি সৃজনশীলের কাছ থেকে, সে প্রশ্ন করাই যেতে পারে!"
সৃজনশীল ব্যবস্থা হুট করে চালু করে ফেলায় পুরো ব্যবস্থাটাই জট পাকিয়ে গেছে। আমি অপটিমাম রেজাল্ট চাইনি সৃজনশীলের কাছে। মিনিমাম রেজাল্টই তো পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

আমি সৃজনশীলকে দোষ দিচ্ছি না। ব্যবস্থাটা গ্রহণ করার উপযোগী হইনি আমরা এখনো।

আহাদুল ইসলাম

অতিথি লেখক এর ছবি

আহাদ সাহেব শিক্ষকদের নিয়ে একটি বাক্য বলায় দীনহীন খুব রেগে গ্যাছেন।
দীনহীন এর কাছে ক্ষমা চেয়ে বলে নেই যে, আপনার ধারণা তবে খুব কম। এখনকার স্কুলে শিক্ষকেরা কোন কিছুই পড়ান না।
বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা ডায়েরী নামক ছাত্রের কাছে থাকা একটি নোটবুকে বাসা থেকে কি কি পড়ে আসতে হবে তা লিখে দেন। ব্যস্‌। পড়াতে হবে এই জিনিসটাই যেন তারা ভুলে গ্যাছেন আজকাল। আবার এই শিক্ষক যখন তার বাসায় বা কোন কোচিং সেন্টারে প্রাইভেট কোচিং এর ব্যবসা করেন, তখন তার উদ্দীপনার কোন অভাব হয়না। তখন তিনি অতীব ভালো শিক্ষক।
আর সৃজনশীল পড়ালেখা নিয়ে কি বলবো! একজন ছাত্র/ছাত্রী'র মাঝে সৃজনশীলতা তৈরী করার জন্য তাকে সেই বিষয়টা ভালো করে বুঝিয়ে পড়াতে হবে। এরপর যে ধরণের প্রশ্ন আসুক না কেন, শিক্ষার্থী সেই উত্তরটা লিখতে পারবে। ছেলে পিছিয়ে যাচ্ছে- এই অজুহাতে, স্ত্রীর প্ররোচনায় গত বছর ছেলের জন্য একটি গাইড বই কিনে আনলাম। এরপর ছেলের C.T পরীক্ষার প্রশ্ন ফলো করে দেখলাম যে, সেই গাইড বই থেকে কপি করে পরীক্ষার প্রশ্ন করা হয়েছে। তারমানে শিক্ষক ও ছাত্র দুজনেই গাইড পরছে আর সৃজনশীলতার অবস্থা কি দাঁড়াচ্ছে তা বলাই বাহুল্য।
শিক্ষকতা এখন শিক্ষাদানের মত মহৎ পেশা নয় আর। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে শিক্ষকেরা এখন ব্যবসায়ী। বিশ্ব এখন এগিয়ে চলেছে। আমাদের আধুনিক শিক্ষকেরা প্রাচীন টোল পন্ডিতের মত জীবন-যাপন করুক তা নিশ্চয়ই চাইনা আমরা। কিন্তু তারা একেকজন মনে করে শিক্ষকদের পড়ার সময় কোথায়? মোবাইল ফোনে থ্রি-জি এ্যাকটিভ করা, মন চাইলেই বিনোদিত হতে পারা, সমস্ত নাগরিক সুবিধা নিয়ে জীবন যাপন করা এখনকার শিক্ষকেরা স্কুলে যত্ন করে পড়ানো ছাড়া আর সব করেন।
সবচেয়ে বেশী করেন ধাপ্পাবাজি। এইসব শিক্ষকদের বর্জন করা উচিৎ।

অনেক ধন্যবাদ আহাদুল ইসলাম।
ভালো থাকবেন।

---------------------------
কামরুজ্জামান পলাশ

অতিথি লেখক এর ছবি

একমত পোষণ করায় ধন্যবাদ।

অতিথি লেখক এর ছবি

"৫ বছর ধরে অনেকটাই জোড়াতালি দিয়ে চলছে ‘সৃজনশীল’ পদ্ধতি। এতো দিন গেলও খোদ শিক্ষকরাই এই পদ্ধতিটি পুরোপুরি আয়ত্ত করতে পারেননি। এ অবস্থায় প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে শিক্ষার্থীদের অবস্থা কি?
সম্প্রতি সরকারের পক্ষে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) সারা দেশে সৃজনশীল পদ্ধতির বাস্তবায়নের হাল-হকিকত বের করতে সরেজমিন তথ্যানুসন্ধান করে। ‘একাডেমিক সুপারভিশন’ নামের ওই অনুসন্ধানে দেখা গেছে, মাত্র ৫৬ ভাগ স্কুল সৃজনশীল পদ্ধতির ওপর প্রশ্ন প্রণয়ন করতে পারে।
এই পদ্ধতিতে একেবারেই প্রশ্ন করতে পারে না- এমন স্কুল রয়েছে ১৭ ভাগ। বাকি প্রায় ২৭ ভাগ প্রতিষ্ঠান রয়েছে মাঝামাঝি পর্যায়ে। অর্থাৎ ওই সব প্রতিষ্ঠানের কিছু শিক্ষক সৃজনশীল পদ্ধতির ওপর প্রশ্ন করতে পারেন। যেসব বিষয়ের শিক্ষকরা বিষয়টি আয়ত্ত করতে পারেননি, স্কুলের অভ্যন্তরীণ পরীক্ষা নেয়ার জন্য সেসব বিষয়ের প্রশ্ন বাইরে থেকে কিনে নিতে হয় কর্তৃপক্ষকে।
এখানেই শেষ নয়, চলতি বছর সরকার মাধ্যমিক স্তরের গণিত বিষয়টিকেও সৃজনশীল পদ্ধতির অধীনে আনে। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের কাছে বিষয়টি এতটাই জটিল আকার ধারণ করে যে, বিগত অর্ধবার্ষিক পরীক্ষায় খোদ ঢাকা শহরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় ৮০ ভাগ ছাত্রছাত্রী ফেল করেছে।"

৪৪ ভাগ স্কুল সৃজনশীল পদ্ধতি আয়ত্ত করতে পারে নাই

প্রণয়নের পাঁচ বছর পরেও যদি এই অবস্থা থাকে, এই ব্যবস্থা নিয়ে আশাবাদী হওয়ার কিছু খুঁজে পাই না।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

সৃজনশীলতা এখনো গিনিপিগ টেষ্টের পর্যায়ে আছে বলে আমার ধারণা। এই বিষয়ে শিক্ষকদের ট্রেনিং শুরু হয়েছে বলে জানি। ট্রেনিং পর্যায়ক্রমে সারা দেশে সব শিক্ষকের মধ্যে ছড়িয়ে যাবার পর বোঝা যাবে এর কার্যকারিতা কতটুকু। অধিকাংশ স্কুলে শিক্ষকরা ক্লাসে ভালোমতো পড়ান না। কিন্তু প্রাইভেট ব্যাচে ১২০জনকে মনযোগ সহকারে পড়ান। তুলনাটা করা যায় সরকারী মেডিক্যাল কলেজে ডাক্তারের চিকিৎসা বনাম প্রাইভেট চেম্বারে রোগী দেখার মধ্যে।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অতিথি লেখক এর ছবি

ট্রেনিং যা হয়েছে বা হচ্ছে তা কিন্তু হওয়া উচিত ছিল পদ্ধতি বাস্তবায়নের আগে, বা সেই সময়ে। ৫ বছর পরে এসেও এখন পর্যন্ত ৪৪ ভাগ স্কুল এই বিষয়ে প্রশ্নই করতে পারে না।

৪৪ ভাগ স্কুল সৃজনশীল পদ্ধতি আয়ত্ত করতে পারে নাই
এখনো যদি এই এই অবস্থাই থাকে, তাহলে হতাশ হওয়া কি খুব অস্বাভাবিক? সারাদেশে ছড়াতে আর কতদিন লাগবে? রাজধানী আর বড় শহরের স্কুলগুলো বাদ দিয়ে দেশের অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবস্থা আমরা কল্পনাও করতে পারি না।

আহাদুল ইসলাম

অতিথি লেখক এর ছবি

সৃজনশীল পদ্ধতি খারাপ একথা বলা সমীচীন না। কিন্তু এর মধ্যে থাকা সমস্যাটা সারিয়ে তোলা দরকার। আমি দেখেছি সৃজনশীল পরীক্ষার ক্ষেত্রে ছেলে মেয়েদের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে কারন ঠিক কি আসলে পড়তে হবে তা জানা না থাকা। স্কুলে গাইড বই থেকে প্রশ্ন তুলে দেয়া আর ছাত্র ছাত্রীদের আয়ত্তের অনেক বাইরে থেকে প্রশ্ন করা খুবই কমন। এছাড়া বিজ্ঞান বই গুলোতে যেমন ফিজিক্সে দেখেছি প্র্যাকটিস করার যথেষ্ট উদাহরণ ও প্রশ্ন নেই । ফলাফল গাইড বই নির্ভরশীলতা। একই কথা বাকি বই গুলোর জন্য। অনুশীলনের জন্য যদি আবারো গাইড খুলতে হয় সেটা কি ভাল? সামাজিক বিজ্ঞান বা বাংলা বই গুলোতে দুই একটা সৃজনশীল উদাহরন দিয়ে কাজ সেরে নেয়া হয়েছে। দরকার যথেষ্ট অনুশীলনী মুলক কাজ দেয়া, বিষয়ভিত্তিক চিন্তা ভাবনা ও ফ্রি হ্যান্ড রাইটিং এর অভ্যাস গড়ে তোলানো এবং শিক্ষকের এ ব্যাপারে সহায়তা। মোট কথা ছাত্র ছাত্রীদের প্রস্তুত করানো বেশি প্রয়োজন।আরেকটা মজার ব্যাপার বলি, তখন সিলেটে শিক্ষামন্ত্রী কলেজ শিক্ষকদের মিটিং করে জানিয়ে দিলেন প্রাইভেট পড়ালে খবর আছে। হঠাৎ করে সব স্যার পড়ানো বন্ধ করলেন । কি হল কলেজের ছেলেমেয়েরা পড়ল মহাবিপদে, কলেজে ম্যাথ ক্লাস করে কোর্স শেষ করা আর বৈতরণী পার হওয়া একই কথা আর প্রাইভেট পড়া তো বন্ধ। শুনেছি পাঞ্জেরী গাইডের কাটতি বেড়েছিল।আচ্ছা, কলেজে কোর্স ঠিকমত বুঝা গেলে ছেলেমেয়েদের কি ঠেকা পড়েছে টাকা দিয়ে প্রাইভেট পড়ার?
আর সরকারকে এ অন্তত সমস্যাগুলো অনুধাবন করতে হবে নইলে সমাধান কিভাবে হবে?
নাহিদ সাহেব তো আবার বই বিলানোকেই সাফল্যের মাইলস্টোন মনে করেন!

রাজর্ষি

অতিথি লেখক এর ছবি

সৃজনশীল পদ্ধতি খারাপ, সেকথা বলছি না। এই রকম একটা পদ্ধতি যদি চালু করা যায়, খারাপ হয় না অবশ্যই।
আমাদের শিক্ষাপদ্ধতি তো সবসময়ই মুখস্তনির্ভর ছিল, সৃজনশীল হওয়ার পরেও কি ব্যাপারটায় তেমন কোন পরিবর্তন হয়েছে? সবাই তো পুরাতন পদ্ধতিতেই সমাধানের চেষ্টা করছে গাইড, টিউটর, কোচিং দিয়ে।
আর বইগুলোও সেই পর্যায়ের নয় যে একজন ছাত্র বই পড়ে একটা নির্দিষ্ট বিষয় সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাবে। বইয়ের বিভিন্ন অসঙ্গতির কথা বলতে গেলে মহাভারত লিখতে হবে।
নবম দশম শ্রেণীর মাধ্যমিক গণিত বইয়ে এত ভুল যে ছাত্রদের গাইড বই নিয়ে বসতে হয়, কারণ গাইড বইয়ে প্রশ্ন বা উত্তর সঠিকভাবে দেয়া আছে!!
ব্যাপারটা কল্পনা করতে পারছেন?

আহাদুল ইসলাম

শিশিরকণা এর ছবি

শিক্ষকেরা যারা অনেকদিন থেকে একভাবে পড়িয়ে আসছেন, তারা অনেকেই নতুন পদ্ধতি শিখতে আগ্রহী না। বাধ্য হয়ে যখন পরিবর্তন করতে হচ্ছে গাইড বইটই দিয়ে চালিয়ে দিচ্ছেন আর শিক্ষার্থীদের জিম্মি করছেন প্রশ্ন নিয়ে। বাচ্চারা সব কিছুই শিখে ফেলতে পারে, অভিভাবকরা বরং ভয়ে সিটিয়ে যান যে সিলেবাস না জানলে কি কি মুখস্ত করতে হবে না জানলে কিভাবে বুঝবেন যে বাচ্চার পড়া ঠিকমত হয়েছে।

~!~ আমি তাকদুম তাকদুম বাজাই বাংলাদেশের ঢোল ~!~

অতিথি লেখক এর ছবি

আমি ভাই আপনার পুরো লেখাটি মনযোগ দিয়ে পড়লাম। আপনি আপনার জায়গা থেকে সঠিক। ঠিক তেমনি অন্যান্যরা যে মতামত দিল তাও সঠিক। কোন কিছু শুরু না করলে শুরু হবে কিভাবে? তাই আপনি সরাসরি এই পদ্ধতির বিরোধী তা করতে পারেন না। আমাদের যে করেই হোক শুরু করা দরকার। তবে যে হারে শিক্ষার হার বেড়ে যাচ্ছে। সেটা কি পজেটিভ নাকি নেগেটিভ সেটাই বুঝতে পারছি না। -)-সাখাওয়াৎ

অতিথি লেখক এর ছবি

সৃজনশীল ব্যবস্থা কাগজে কলমে খুব ভালো একটা ব্যবস্থা হলেও আমাদের জন্য এই মুহূর্তে এটা উপযোগী না।
একটা পদ্ধতির পরিবর্তন করতে হয় ধাপে ধাপে। আপনি হুট করে একটা অংশকে পরিবর্তন করে ফেললে তা বরং নতুন সমস্যা সৃষ্টি করে।

সেক্ষেত্রে সরকার বই পরিবর্তন ছাড়া দৃশ্যত কোন পদক্ষেপ নেয়নি এই ব্যাপারে।

সৃজনশীল পদ্ধতি প্রয়োগের আগে আমাদের শিক্ষকরা এই পদ্ধতির উপযোগী কিনা, তাও বিবেচনা করা জরুরী। এখন

শিক্ষকদের মানোন্নয়নের ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেই। শিক্ষকদের সীমাবদ্ধতার কথা বললে অনেকে রেগে যাচ্ছেন, কিন্তু এটা তো সত্য যে তাদের অধিকাংশই সৃজনশীল নন। শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের প্রতি আগ্রহী করে তুলবেন- এই রকম মনোভাব নেই তাদের মধ্যে। রাজধানীর প্রায় সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের এখন মূল কাজ প্রাইভেট পড়ানো।
সৃজনশীল ব্যবস্থা চালু করলাম, আর শিক্ষকদের বলে দিলাম, আপনি সৃজনশীল হয়ে যান, এখন থেকে আর প্রাইভেট পড়াবেন না- তাহলেই কি হয়ে গেল?

তাড়াহুড়ো করে বই এক বছরের মধ্যে সকল শ্রেণীর বই নতুন করে লিখে ফেললাম, আর পদ্ধতির নাম দিয়ে দিলাম সৃজনশীল। তাতেই কি হয়ে যাবে?
এই ব্যবস্থা নিয়ে আমি খুবই আশাবাদী ছিলাম। কারণ মুহম্মদ জাফর ইকবাল কিংবা আবদুল্লাহ আবু সায়ীদের মত মানুষেরা এই পদ্ধতিটি সম্পর্কে আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত এখন হতাশা ছাড়া কোন অনুভূতি কাজ করছে না আমার মধ্যে। আগের পদ্ধতিই তুলনামূলক ভালো মনে হয়। যতদিন পর্যন্ত না সৃজনশীল শিক্ষক আসছে, ততদিন পর্যন্ত সৃজনশীল পদ্ধতি কার্যকর করা অসম্ভব।

আহাদুল ইসলাম

হিমু এর ছবি

একটা কাজ কিন্তু করা যায়। একটা উন্মুক্ত ওয়েবসাইটে স্বেচ্ছাসেবকরা বিশাল এক সৃজনশীল প্রশ্নব্যাঙ্ক তৈরি করে দিতে পারেন, ছাত্রদের অনুশীলনের জন্যে, এবং সৃজনশীল পদ্ধতিতে কাজ করতে এখনও অপারগ শিক্ষকদের কাজ চালিয়ে নেওয়ার পাথেয় হিসাবে। তথ্যভাণ্ডার থেকে দৈবচয়ন করে প্রশ্নগুলো ওয়েবসাইটে উপস্থাপন করা হলে একে কোনো ক্রমিক দিয়ে চিহ্নিত করা যাবে না, অতএব কোনো সাজেশনেও এই ওয়েবসাইটকে ব্যবহার করা যাবে না।

সৃজনশীল পদ্ধতির বর্তমান প্রয়োগ গোড়া কেটে আগায় পানি ঢালার মতো। পরীক্ষা শেষ পর্যন্ত প্রশ্ননির্ভরই থাকে, আর সেই প্রশ্ন করার মতো সৃজনশীল শিক্ষক তৈরি করতে না পারলে যে লাউ সে-ই কদু থেকে যাবে। শিক্ষকরা যেহেতু সে কাজটা করতে পারছেন না, স্বেচ্ছাসেবীরা হাত লাগাতে পারেন।

অতিথি লেখক এর ছবি

ওয়েবসাইট ব্যবহারের পদ্ধতি ঢাকাসহ চার পাঁচটা বড় শহরের শিক্ষার্থীদের জন্য কার্যকরী হলেও গ্রামের শিক্ষার্থীদের জন্য কি কাজে দিবে? আমার এই ব্যাপারে কোন ধারণা নেই ইন্টারনেট সুবিধা দেশের কত শতাংশ শিক্ষার্থীর কাছে আছে। এমনকি বিদ্যুত সুবিধাই তো এখন পর্যন্ত সবার কাছে পৌঁছায়নি।

আহাদুল ইসলাম

হিমু এর ছবি

উপজেলা পর্যায়ে ইন্টারনেট সুবিধা পৌঁছে গেছে শুনলাম। গ্রামের স্কুলের শিক্ষকদের কাছে এই সুবিধার কথা পৌঁছে দিলে হয়তো তারা উদ্যোগী হয়ে সংগ্রহ করে নেবেন।

হিমু এর ছবি

আজ মুহম্মদ জাফর ইকবালও দেখলাম একই পরামর্শ দিচ্ছেন।

অতিথি লেখক এর ছবি

কেস স্টাডির সিলেকশনগুলো খুবই প্রশংসনীয়

সাদরিল

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA