গাড়ি চলে না - বিশ্ব অর্থনীতিতে ঘোর ঘনঘটা

সুবিনয় মুস্তফী এর ছবি
লিখেছেন সুবিনয় মুস্তফী (তারিখ: শুক্র, ০৪/০১/২০০৮ - ৬:২৪পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

autoব্লগ পড়ে জানলাম ঢাকার মিরপুরে একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি বন্ধ হয়ে যাবার ফলে গত দুইদিন যাবত সংঘর্ষ হয়েছে। ডেইলি স্টার পত্রিকার ওয়েবসাইটে গেলাম - একের পর এক হেডলাইন - Rice prices stable after steady rise - Govt's food security not satisfactory - Donors skeptical about rice-aid - Hike oil prices, says expert committee.

ভালো কোন খবর নেই। তেলের দাম গতকাল অবশেষে ১০০ ডলার ছুঁয়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারের জন্যে একটা মনস্তাত্বিক মাইলস্টোন ছিল এটা। একবার যখন ১০০ পার হয়েছে, তখন আরো অনেক দূর যাবে এই বছর আন্দাজ করা হচ্ছে। আরব শেখরা ছাড়া সেটা কারো জন্যেই মঙ্গলজনক নয়। এই বছরটা বেশ খারাপ ভাবে শুরু হলো, এবং আমাদের অর্থনীতি এতগুলা বহুমুখী চ্যালেঞ্জের কিভাবে মোকাবেলা করবে - আদৌ করতে পারবে কিনা - সে প্রশ্নের সদুত্তর মেলা ভার।

প্রেক্ষাপট - ডটকম ক্র্যাশ, ২০০১-০২

একটু অন্য জায়গা থেকে শুরু করি। গোটা পৃথিবীর অর্থনীতিই আজ এক বেসামাল অবস্থানে চলে এসেছে। বাংলাদেশেও তার কুফল পড়ছে অনেকভাবে। দুনিয়ার সবচেয়ে ধণাঢ্য দেশ আমেরিকা বর্তমানে এক অর্থনৈতিক বিভীষিকার মধ্যে দিয়ে দিন গুজরান করছে। (সাবপ্রাইম ক্রাইসিস (subprime crisis) নামের এই ক্রাইসিস নিয়ে বিষদ আলোচনা-টানাহ্যাঁচড়া চলছে।) যুক্তরাজ্যের অবস্থাও টাল-মাটাল। সনাতনী ভাষায় যেই দেশগুলাকে 'অর্থনৈতিকভাবে উন্নত' সাব্যস্ত করা হয় - আমেরিকা, কানাডা, জাপান, ইউরোপের পশ্চিমাংশ - তাদের সবারই পূর্বাভাস বেশ নিরাশাব্যঞ্জক। ২০০৮-০৯ কারো ভালো যাবে না, এ কথা মোটামুটি জোর দিয়ে বলা যায়।

কিন্তু কোথা থেকে শুরু হয়েছে এই গ্যাঞ্জাম? অনেক বিজ্ঞজন বলেন যে আজ থেকে এক দশক আগে সংঘটিত ডটকম বুদবুদ (dotcom bubble) থেকেই আজকের পরিস্থিতির আদি সূত্রপাত। ৯০-এর দশকের শেষভাগে এসে ইন্টারনেট এবং আইটি প্রযুক্তি-নির্ভর নতুন নতুন সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তৈরী হলো। Amazon আর eBay থেকে শুরু করে Pets.com পর্যন্ত হরেক রকম বিস্ময়কর কম্পানীর আবির্ভাব হলো। প্রযুক্তির ইতিহাস দূরে থাক, পৃথিবীর ইতিহাসেই এই রকম অভিনব প্রতিষ্ঠান আগে কখনো দেখা যায়নি। New economy-র তখন জয়জয়কার। নতুন দিনের প্রতিশ্রুতি দেখিয়ে এই কম্পানীরা শেয়ার ছাড়লো বাজারে, আর শুধু যে বাঙ্গালীই হুজুগে না, তা প্রমাণ করে দিয়ে উন্নত বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষ সেই স্টক ব্যবসায় মাতলো। হুহু করে আকাশে উঠে গেল ইন্টারনেট স্টকের দাম। সিলিকন ভ্যালি হয়ে গেল রাতারাতি কোটিপতি তৈরী করার কারখানা। মাইক্রোসফট আর ওরাক্‌লের (Oracle)-এর মত শেয়ারের দাম এতটা ফুলে উঠলো, যে নতুন শতাব্দীর শুরুতে ওরাক্‌লের মাথা ল্যারি এলিসনের ব্যক্তিগত সম্পত্তির মূল্য ৫৩ বিলিয়ন (৫,৩০০ কোটি) ডলার পর্যন্ত উঠেছিল - আজকে তা 'মাত্র' ১৮ বিলিয়ন।

কিন্তু ২০০১-০২ সালে এসে সেই বুদবুদ (dotcom bubble) বিকট শব্দে ফেটে গেল, ইন্টারনেট শেয়ারে নেমে এলো ধ্বস। এই ধ্বসের ফলে সমগ্র মার্কিন অর্থনীতিতে নেমে এলো এক লঘু কিন্তু দীর্ঘমেয়াদী মন্দা। মন্দার প্রভাব মূলত আমেরিকাতে পড়লেও তার ছোঁয়াচ পৃথিবীর অন্যান্য দেশেও লেগেছিল। মার্কিন অর্থনীতির বিশালাকৃতির কারনে তাতে সর্দি লাগলে বিশ্বব্যাপী হাঁচির রোল পড়ে যায়, অনেকটা সেই রকম ঘটনা।

ডটকম ধ্বস এবং ড্যালাসে কতিপয় বাঙ্গালী

সেই ডটকম মন্দার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা সুখকর ছিল না। অনেক লোক অনেকভাবে মার খেয়েছে, তার মধ্যে বাঙ্গালীও ছিলেন প্রচুর। আমি তখন ড্যালাসে বসবাসরত, পড়াশোনা চালাচ্ছি। ড্যালাস শহর ডটকম বাণিজ্যগুলার জন্যে একটা বড় কেন্দ্র ছিল - নরটেল বা টেক্সাস ইন্সট্রুমেন্টস-এর মত অনেক বড় বড় কম্পানীর সেখানে অফিস ছিল। আমার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ বন্ধু আরিফ তখন ড্যালাসে আইটি প্রকৌশলী, অত্র এলাকায় আমাদের বাঙ্গালী বন্ধুবান্ধবদের সিংহভাগই আরিফের মত নানান আইটি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। হাতে গোণা দুয়েকজন বাদ দিলে প্রায় সবার একই ব্যাকগ্রাউন্ড - বুয়েট থেকে স্নাতক, আমেরিকায় গিয়ে মাস্টার্স, অতপর চাকরি।

২০০১-এর শুরুর দিকে এই মন্দা নামার পরে আরিফ আর বুয়েটের ভাইরা এক দুর্বিষহ অবস্থার মধ্যে দিন কাটিয়েছিলেন। দৈনিক পত্রিকার হেডলাইন তখন অনেকটা এই রকম -
আজ মটোরোলায় ১০০,০০০ কর্মী ছাটাই।
আগামী মাসে ইন্টেল ৭০,০০০ লোক লে-অফের (lay-off) ঘোষণা দিয়েছে।
নরটেল থেকে ৫০,০০০ লোক চাকুরিচ্যুত।

সে এক ভয়াবহ পরিস্থিতি। আরিফ ১২-১৪ ঘন্টা কাজ করে এসে রাতে আমাকে ফোন দিতো, বলতো 'বুঝলা আজকে আরো ৮০০ লোকের চাকরি গেল, আল্লাহই জানে কবে আমারটা চলে যায়, দোয়া কইরো ম্যান।' শেষমেষ ওর চাকরি ঠিকই ছিল, কিন্তু আমাদের পরিচিত অনেক বাঙ্গালী ভাই-বোনদের আকস্মিক বেকারত্বের শিকার হতে হয়েছিল, এবং ৯-১১ পরবর্তী আমেরিকায় একজন বহিরাগত বাঙ্গালীর জন্যে সেটা যে কত বড় মানসিক, অর্থনৈতিক ও আইনগত চাপের সৃষ্টি করতে পারে, তা যারা সেই সময় সেই দেশে ছিলেন, তারা জানবেন। আমার অনেক পরিচিত দেশী ভাই আর সহ্য করতে না পেরে কানাডা চলে গিয়েছিলেন, কেউ কেউ বাংলাদেশে ফেরত। অনেকে বুড়ো বয়সে দ্বিতীয়বারের মত মাস্টার্স করতে নামেন, স্রেফ আইনগত স্ট্যাটাস ধরে রাখার জন্যে।

পুনর্জন্ম এবং পুনর্ধ্বংস

সেই অবস্থা থেকে কিভাবে পরিত্রাণ পেলেন তারা পরে? মন্দা ঠেকাতে গিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক (Federal Reserve) সুদের হার মাটিতে নামিয়ে আনলো। সে দেশের অর্থনীতিতে নিউট্রাল সুদের হার তখন ৪-৫% এর মত হবে, কিন্তু Fed তা নামিয়ে আনলো মাত্র ১%-এ। উদ্দেশ্য দেশে নতুন ভাবে বিনিয়োগ উদবুদ্ধ করা। যদি মাত্র ১% হয় সুদের হার তাহলে উদ্যোক্তারা নিশ্চয়ই আরো ব্যবসায়িক ঋণ নিতে আগ্রহী হবেন। পাশাপাশি সাধারণ মানুষও ধার-কর্জ করে হলেও তাদের ব্যক্তিগত কেনাকাটা বাড়াবেন, সেটাই আশা। ১% মানে সহজলভ্য গাড়ি কেনার ঋণ, বাড়ি কেনার ঋণ। মোদ্দা কথা, সুদের হার কমিয়ে অর্থনীতিতে ডিমান্ড চাঙ্গা করা।

তাতে কাজ হলো। প্রায় দুই বছরের মত ধুঁকে ধুঁকে চলার পর অর্থনীতিতে আবার প্রাণ ফিরে এলো। যদিও ইন্টারনেট প্রতিষ্ঠানদের সেই বর্ণালী প্রতিশ্রুতি তখন কেবলই ধূসর স্মৃতি শুধু। ডারউইন-এর তত্ত্ব অনুযায়ী সবচেয়ে যুতসই কম্পানীগুলাই বেঁচেছিল শেষে, কালের অতলে Pets.com সহ আরো অনেক ইন্টারনেট start-up কম্পানী হারিয়ে যায়।

কিন্তু পুনর্জন্মের মধ্যেই ছিল পুনর্ধ্বংসের বীজ, তা Fed-এর গুরুরা বোঝেননি। মার্কিন অর্থনীতির পুনর্জন্ম ক্ষণস্থায়ী হলো, সব মিলিয়ে ৩-৪ বছর। আবার ফিরে এসেছে অন্ধকার দিন, শুধুমাত্র মার্কিন অর্থনীতির জন্যে নয়, মোটামুটি সমগ্র বিশ্বের জন্যেই। পরের পর্ব সাবপ্রাইম নামের বারুদকে নিয়ে।


মন্তব্য

কেমিকেল আলী এর ছবি

অত শত না বুঝলেও দেশে চালের দাম (মোটা) ৩৫ টাকা, শুনে কেমন যে লাগছে সেটা বলার মত না। তারপরে আমাদের জলপাইয়ের ধামাধরারা বলে চালের দামে তাদের কোন হাত নেই।

আপনার এই লেখাটা পেলে ঐ জলপাইয়ের ধামাধরার দল মনে হয় একটু খুশি-ই হত এই বলে যে তাদের আসলেই কিছুই করার নেই। সব অন্য কারো দোষ।

সুবিনয় মুস্তফী এর ছবি

কেমিক্যাল ভাই,
জলপাই খুশী হলো কি কামরাঙ্গা খুশী হলো, সেটা ভেবে কিন্তু লিখছি না। তবে আগামী দুই-তিন বছর সিরিয়াস দুর্যোগ আসছে, সেটা প্রতিহত করা গুরুদায়িত্ব। ক্ষমতায় যেই থাকুক না কেন, এই পরিস্থিতি সামলানো মুশকিল হবে। গার্মেন্টস ছাড়া আমাদের আজ অব্দি কোন ফলব্যাক অপশন তৈরী হয়নি। ২০০৮-এর থেকে MFA চুক্তির শেষ চিহ্নটাও চলে গেল। এখন চীন আর অন্যান্য দেশের সাথে সরাসরি প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হবে। বিশ্বব্যাপী তেল আর খাবারের দাম দৌড়াচ্ছে। দৃষ্টিপাত সহ অন্যান্য ব্লগে এই নিয়ে লেখালেখি হচ্ছে। এইসব নানান চিন্তা থেকেই লিখছি আর কি।
-------------------------
হাজার বছর ব্লগর ব্লগর

আরিফ জেবতিক এর ছবি

৩৫ টাকা ! এতো স্বস্তা কোন বাজারে যাচ্ছে ?

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

ভীষন মজা লাগল বিশ্লষনটা। এই অর্থনীতিতে বসবাস করে এবং আশেপাশের কয়েকজনের চাকুরী যাওয়া দেখে চিন্তা করছিলাম কি ঘটছে? আপনার পরের পর্বে সেই মিস্ট্রি সমাধান হবার আশায় থাকলাম।

====
চিত্ত থাকুক সমুন্নত, উচ্চ থাকুক শির

সুবিনয় মুস্তফী এর ছবি

আগাথা ক্রিস্টির মত দেঁতো হাসি
-------------------------
হাজার বছর ব্লগর ব্লগর

শোহেইল মতাহির চৌধুরী এর ছবি

অর্থনীতিবিদের কাছ থেকে সহজ ভাষায় এই মন্দা সম্পর্কে জানার সুযোগ পেয়ে আমি অন্তত: খুশি।
আমার অবশ্য মূল আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের মন্দা যুক্তরাজ্যকে ছোঁবে কি না।
ইন্টারেস্ট রেট কমিয়ে যদি গর্ডন ব্রাউন গং ধাক্কা সামাল দেয়ার চেষ্টা করে তবে আমার আপত্তি নেই। খুশিই হবো। ফেব্রুয়ারিতে আরেক দফা কমাবে শুনছি। কিন্তু বাড়ি-ঘরের দামে ধ্বস লাগার কোনো লক্ষণ দেখছি না। অপেক্ষা করতে করতে বছর পার করে দিলাম।
-----------------------------------------------
খড়বিচালি জোগাড় করি, ঘর বানাবো আসমানে

-----------------------------------------------
মানুষ যদি উভলিঙ্গ প্রাণী হতো, তবে তার কবিতা লেখবার দরকার হতো না

সুবিনয় মুস্তফী এর ছবি

শোহেইল ভাই,

সামগ্রিকভাবে ইউকেতে বাড়ির দামের খবর আছে। দেশব্যাপী গড় দেখলে দাম কিন্তু অলরেডি নামা শুরু হয়ে গেছে। এবং ২০০৮-০৯ পুরো সময়টাই আরো নামার আশংকা আছে। মোট correction আন্দাজ করা হচ্ছে প্রায় ২০% থেকে ২৫% হবে। ২০০৭ এর মাঝামাঝি যারা কিনেছে, তারা ধরা খাবে আর কি।

তবে লন্ডনের হিসাব একটু ভিন্ন। অনেক বেশী লোক এই শহরে, আর অভিবাসন অনেক। তাই লন্ডনে হয়তো বাড়ির দাম অতটা পড়বে না। যদিও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না - zone 5, 6 কিম্বা এসেক্স বা সারি'র দিকে গেলে দাম নামা উচিত।

ভ্যাজাল হলো সুদের হার। যদি ধুমাধুম borrowing rate নেমে যায়, তাহলে ক্রেতারা আবার নামবে মাঠে। আন্দাজ করা হচ্ছে এখনকার ৫.৫০% থেকে সুদের হার ৪.৫০% এমন কি ৪.০০%-এও নামতে পারে। তাই যদি হয় তাইলে আবার যেই কে সেই হয়ে যাবে। সব কিছু মিলিয়ে আর ১২ মাস অপেক্ষা করে দেখতে পারেন, দাম পড়লে এর মধ্যেই পড়বে। আর এই দুর্দিনেও যদি না পড়ে, তাহলে মনে হয় লন্ডনে কখনোই দাম পড়বে না!!
-------------------------
হাজার বছর ব্লগর ব্লগর

আরিফ জেবতিক এর ছবি

প্রপার্টি ভ্যালু ইউ.কে তেও কমতির দিকে বলে খবর পেলাম , অবশ্য আপনারাই ভালো বলতে পারবেন ।
ইলেকশনের আগে আগে নাকি আরো কমবে ।

দিগন্ত এর ছবি

আজই বিবিসি তে এক অর্থনীতিবিদের সাক্ষতকার দেখলাম। তাতে ইউ-কের কথায় বললেন যে ইউরোপ মার খেতে পারে কারেন্সীতে। আমেরিকার অর্থনীতি পড়লে ইউরোর বিরুদ্ধে ডলারের দামও পড়বে। আর ডলারের দাম পড়লে ইউরোপের পক্ষে আমেরিকার রপ্তানীবাণিজ্যে প্রতিযোগিতায় পেরে ওঠা শক্ত হয়ে যাবে।


পথের দেবতা প্রসন্ন হাসিয়া বলেন, মূর্খ বালক, পথ তো আমার শেষ হয়নি তোমাদের গ্রামের বাঁশের বনে । পথ আমার চলে গেছে সামনে, সামনে, শুধুই সামনে...।

সৌরভ এর ছবি

সাব-প্রাইম লোন আর ১০০ ডলার ব্যারেলের তেল নিয়ে লিখবো মনে করছিলাম। আর দরকার হলোনা।
আপনার পরের লেখার প্রত্যাশায়।

কেমিকেল আলী, চালের কেজি ৩৫ টাকা নয় রে ভাই, গতকাল খুব সাধারণ চাল ৪২ টাকায় বিক্রি হয়েছে।


আমি ও আমার স্বপ্নেরা লুকোচুরি খেলি


আবার লিখবো হয়তো কোন দিন

রেজওয়ান এর ছবি

বাংলাদেশের দ্রব্যমুল্যের ব্যাপারে আমার একটি কথা আছে। পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে কিন্তু এইহারে বৃদ্ধি হয়নি। সাধারন অর্থনীতির ভাষায় যোগানের স্বল্পতার জন্যেই এরুপ হচ্ছে।

আমাদের দেশে যেটা হচ্ছে সেটা অপরিকল্পিত আমদানীর সমস্যা। দেশে বন্যা এবং সাইক্লোনে এমনিতেই ফসল কম হয়েছে। তার পরে ভারত থেকে চাল আসা বেশ কিছুদিন বন্ধ ছিল। কাঁটাতারের বেঁড়া মাইগ্রেশন আটকাতে পারছে কিনা জানিনা তবে আগেকার সহজ চোরাচালান থামিয়ে দিয়েছে। তারপর রয়েছে রাজনৈতিক কারন:

নিউ নেশনে পড়ছিলাম:

Sources said the Government tried to import rice from different countries to meet the country's demand of rice. But, countries, including China, Thailand and Vietnam have already informed the Bangladesh government that they will not export rice. Finding no other alternatives, the Bangladesh government subsequently requested the Indian government to export 5 lakh metric tons of rice. Though India initially agreed to export rice at US$ 425 per ton, it has suddenly raised the prices to US$500. In such a situation, Bangladesh has no other alternative, but to import rice from India paying higher prices.

ভারত বাংলাদেশের অনুরোধে (এবং সিডরের পর দয়া করে) পাঁচ লাখ মেট্রিক টন সরবরাহ করতে রাজী হয়েছে। কিন্তু দয়ার মধ্যেও কিছুটা বানিজ্য ঢুকিয়েছে তারা - প্রতি মেট্রিক টন ৪২৫ ডলারে দেয়ার কথা থাকলেও এখন হঠাৎ করে ৫০০ ডলারের কমে বেঁচবে না। ফলে বাংলাদেশকে বেশী দাম দিয়েই কিনতে হবে।

এখন ঘর পোড়া গরু বলেই কিনা অল্পতেই ভয় ও নানা চক্রান্তের কথা মনে আসে। থাইল্যান্ড, চায়না ও ভিয়েতনাম কেন চাল বেচছে না সেটা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে। প্রতিবছরই আমেরিকার মত দেশে প্রয়োজনাতিরিক্ত শত শত টন কৃষিপন্য ফেলে দেয়া হয় দাম ঠিক রাখার জন্যে। এখন হয়ত তারাই কেউ পরিত্রানের ঝাপি নিয়ে আসবে দশটি নতুন শর্ত নিয়ে।

গরীবের মহা অসুবিধা, যাকাতের শাড়ী সে তো নিজে পছন্দ করতে পারেনা। আর জাকাতের মহান ধারনাকেও বানিজ্য করা হয় জাকাতের শাড়ী নামক ক্যাটাগরি তৈরি করে।

পৃথিবী কথা বলছে আপনি কি শুনছেন?

সুবিনয় মুস্তফী এর ছবি

রেজওয়ান ভাই, খাবারের মূল্যস্ফীতির বহুমুখী কারন, এর মধ্যে কয়েকটা কারন ধরিয়ে দেয়ার জন্যে ধন্যবাদ। দৃষ্টিপাতের জ্যোতি ভাই আর আমের অর্থনীতি নিয়ে চমতকার কিছু লেখা দিচ্ছেন। তবে আমার প্রশ্ন, মূল্যস্ফীতি কমানোর লক্ষ্যে কি কি কার্যকরী পদক্ষেপ খোলা আছে? এই বিষয়ে সরল ভাষায় আরো কিছু বিশ্লেষণ আমাদের কাম্য।
-------------------------
হাজার বছর ব্লগর ব্লগর

পুরুজিত এর ছবি

ডট কম বাবল ফেটে জ়াওয়ার পরে ফেড এর কাজটা ঠিকই ছিল - কিন্তু ৯/১১ র পরে বিনিয়োগে ধ্বস নামে, ফলে সুদের হার কমানোর এফেক্ট হয় কেবল মাত্র মুদ্রাস্ফীতি। বাংলাদেশে চালের দাম পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় বেশি বাড়ার কারণ আমাদের মুদ্রাস্ফীতি ওদের তুলনায় বেশি, এই জন্য সরকারের খুব বেশি কিছু করার নেই। তবে পরিবহন খাতে দুর্নীতি কমাতে পারলে অন্ততঃ কিছুটা দাম কমবে - তবে পুলিশগুলা না খেয়ে মারা যাবে। খুবই ইন্টারেস্টিং লাগছে পড়ে। আমার তো মনে হয় বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী মানুষ হল ফেড এর প্রধান - আগে জানলে অর্থনীতি পড়তাম, হে হে।

ফারুক হাসান এর ছবি

খুব ভালো লাগলো পড়তে। পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।
----------------------------------------------
আমাকে নিঃশব্দে অনুসরণ করে একটা নদী-
সাথে নিয়ে একটা পাহাড় আর একটা নিঃসঙ্গ মেঘ।

ইশতিয়াক রউফ এর ছবি

পড়লাম। সুখপাঠ্য, তবে বিভীষিকাময়।

আরিফ জেবতিক এর ছবি

পরের পর্বের অপেক্ষায় ।

লুৎফুল আরেফীন এর ছবি

অসাধারণ বিশ্লেষণ! আমি অর্থণীতি খুবই কম বুঝি। এটা সেটা বোঝার জন্য প্রায়ই হাসিব ভাইয়ের শরণাপন্ন হতে হয়। আপনার লেখাটা জলবত তরল হচ্ছে। লিখতে থাকুন।

সুবিনয় মুস্তফী এর ছবি

আপনাকে এবং অন্য সকল পাঠকদেরও ধন্যবাদ। আসলে চেষ্টা করি একটু টেকনিক্যাল বিষয় হলেও যতখানি সম্ভব সহজ ভাষায় জিনিসটাকে 'অনুবাদ' করে পাঠকদের কাছে তুলে ধরার। সেই প্রচেষ্টা সফল না ব্যর্থ, তার পরিমাপ আপনারা করতে পারবেন। অর্থনীতি বিষয়টা আমাদের দেশের জন্যে কতখানি গুরুত্বপূর্ণ এটা বলার অপেক্ষা রাখে না, রাষ্ট্র হিসাবে আমাদের ভূত-ভবিষ্যত ওতপ্রোতভাবে মিশে আছে এর সাথে। কিন্ত ইকনমিক্স শুধু গুরুত্বপূর্ণই না, মারাত্মক ইন্টারেস্টিংও। অনেকটা জেদ করেই এ জন্যে বুড়ো বয়সে (২৫ বছর) এসে অর্থনীতি পড়াশোনার মধ্যে ঢুকে পড়ি। এবং কাজের ক্ষেত্রে এসে প্রতিদিনই নতুন কিছু না কিছু একটা শিখতে পারছি, টাকার চাকা কিভাবে ঘুরছে বিশ্ব জুড়ে। ব্যক্তিগত ভাবে আমি মনে করি জনসাধারণের economic literacy বাড়ানোর জন্যে অন্তত মাধ্যমিক বা উচ্চমাধ্যমিক স্তরে ১-২ বছরের জন্যে অর্থনীতি বিষয়টা কারিকুলামে রাখা উচিত। এতে লাভ ছাড়া ক্ষতি হবে না। বাংলাদেশের অবস্থা বুঝে সেই কোর্সে সনাতনী অর্থনীতি, সমাজবাদী অর্থনীতি, উন্নয়ন অর্থনীতি - এসব একটু একটু করে রাখা যায়। বিশেষ করে চাহিদা, যোগান, মূল্যস্ফীতি, সুদের হার, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য, এই সমস্ত বিষয়ে সকল ছাত্রেরই একটা বেসিক ধারণা থাকা দরকার।
-------------------------
হাজার বছর ব্লগর ব্লগর

হিমু এর ছবি

পরের পর্ব আরো একটু হৃষ্টপুষ্ট হলে মনে হয় ভালো হতো।


হাঁটুপানির জলদস্যু

কনফুসিয়াস এর ছবি

পড়ে টড়ে দেখি আমিও বুঝলাম!
আরো লিখেন।
-----------------------------------
যা দেখি তা-ই বলি...

সংসারে এক সন্ন্যাসী এর ছবি

আমার মতো অর্থনীতি-নাদানও অনেক কিছু বুঝে ফেললো!

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
টাকা দিয়ে যা কেনা যায় না, তার পেছনেই সবচেয়ে বেশি অর্থ ব্যয় করতে হয় কেনু, কেনু, কেনু? চিন্তিত

দিগন্ত এর ছবি

ভাল লেখা। এরপরের পর্বে কিছু ভবিষ্যত বিশ্লেষণও দেখতে পেলে ভাল লাগবে।


পথের দেবতা প্রসন্ন হাসিয়া বলেন, মূর্খ বালক, পথ তো আমার শেষ হয়নি তোমাদের গ্রামের বাঁশের বনে । পথ আমার চলে গেছে সামনে, সামনে, শুধুই সামনে...।

সবজান্তা এর ছবি

উত্তরবঙ্গে আমার এক কাজিন আছেন, যিনি ব্যবসায়ী। তিনি আমাকে বলেছেন যে, এই চালের সংকটটা মূলত চাল মজুদ করে রাখার জন্যই সৃষ্ট। অনেকের কাছেই প্রচুর চাল মজুদ আছে, দাম বাড়ার অপেক্ষায় শুধু।
------------------------------------------------------
অলমিতি বিস্তারেণ

দিগন্ত এর ছবি

এই সুযোগ নেবার ব্যাপারটা সরকারই তৈরী করে দিল তো। ১৯৪৩এর মন্বন্তরের আগে কিন্তু ঠিক এরকমটাই ঘটেছিল।


পথের দেবতা প্রসন্ন হাসিয়া বলেন, মূর্খ বালক, পথ তো আমার শেষ হয়নি তোমাদের গ্রামের বাঁশের বনে । পথ আমার চলে গেছে সামনে, সামনে, শুধুই সামনে...।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA