Warning: Creating default object from empty value in i18ntaxonomy_term_page() (line 34 of /var/www/sachalayatan/s6/sites/all/modules/i18n/i18ntaxonomy/i18ntaxonomy.pages.inc).

গল্প

পিচ্চিতোষ গল্প ০২: কাঙারুর লেজে ব্যথা পাবার পর

হিমু এর ছবি
লিখেছেন হিমু (তারিখ: বিষ্যুদ, ১৩/০৯/২০০৭ - ২:১৮পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]কাঙারু একদিন পথে চলতে চলতে চলতে, মানে লাফাতে লাফাতে লাফাতে হঠাৎ একটা কলার খোসার ওপর লেজ পিছলে পড়ে লেজে দারুন ব্যথা পেলো। একদম বয়ে য ফলা থয়ে আকার ব্যথা।

কাঙারুর তো হাত ছোট, তাই সে ঠিকমতো লেজ মালিশও করতে পারে না। সে একটা ভালোমানুষের মতো দেখতে গেছো বাঁদরকে বললো, "ভাই, আমার লেজটা একটু ডলে দাও না, দারুণ ব্যথা পেয়েছি।"

গেছো বাঁদর দেখতে ভালোমানুষের মতো হলেও সে আসলে দারুণ পাজি। সে কিছ...


গল্প: কর্পূরসম ভালবাসা

অমিত আহমেদ এর ছবি
লিখেছেন অমিত আহমেদ (তারিখ: মঙ্গল, ১১/০৯/২০০৭ - ৪:৩২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

smallএক

গাড়ির চাবিটা আঙ্গুলে ঘুরাতে ঘুরাতে অফিসে ঢুকলেন আজাদ সাহেব। ন’টা বাজে এরই মধ্যে অফিস বেশ জমজমাট।
“স্যার, আপনাকে জমীর সাহেব কল করেছিলেন!” একটা কিউবিকল থেকে গলা উঁচু করে বললো ক্রিয়েটিভের আসাদ।
“কি বলল?”
“আপনাকে কলব্যাক করতে বলেছেন।”
“সাব্বাস!”
একসারি কিউবিকল পেরিয়ে গতকাল রাত্তিরে টিভিতে শোনা একটা হিন্দী গানের কলি ভাজতে ভাজতে নিজের রুমে ঢুকে প...


পিচ্চিতোষ গল্প ০১: মহারাজার বাইসাইকেল

হিমু এর ছবি
লিখেছেন হিমু (তারিখ: মঙ্গল, ১১/০৯/২০০৭ - ১২:৫৪পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify]এক দেশে ছিলো এক রাজা। একদম মহারাজা।

তার হাতিশালে ছিলো হাতি। মস্তবড় সে হাতি। তার কুলোর মত কান আর মূলোর মত দাঁত। আর ইয়া বড় এক শুঁড়। শুঁড় দিয়ে হাতি মাঝে মাঝে তার কান চুলকে নিতো।

হাতির নাম জানতে চাও? তার শরীর যত বড়, নাম তত ছোট। হাতির নাম ফুটু।

রাজার ঘোড়াশালে ছিলো ঘোড়া। সেইরকম টগবগে ঘোড়া, ঘাড়ভর্তি কেশর, মস্ত ঝুপ্পুস লেজ, লেজ দিয়ে ঘোড়া মাছি তাড়ায়। মাঝে মাঝে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ঘোড়া সবক'...


ছোটগল্প: টুলু-ভুলু (একপর্বে সমাপ্ত)

জ্বিনের বাদশা এর ছবি
লিখেছেন জ্বিনের বাদশা (তারিখ: শুক্র, ০৭/০৯/২০০৭ - ৩:১৪অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১.
'আশি টাকায় দিবি? এই জুতাতো একসপ্তাও যাইবনা, দুইদিন পরলেই ছিড়া যাইব।' একটু সাহস নিয়েই ছেলেটিকে বলে ফেললাম।

ছেলেটার মুখের কথা যেন আটকে গেল। তার পরপরই ধাতস্থ হয়ে তুবড়ি ছোটানোর মতো করে বলল, 'আশি ট্যাকায় জুতা? জুতার ফিতাও তো পাইবেননা!'

ফুটপাথের এখানে সেখানে কোমরে হাত দিয়ে দাঁত খোচাতে থাকা বেকার টাইপের যে ল...


প্রবাসীদের কথা

গীতিকবি এর ছবি
লিখেছেন গীতিকবি (তারিখ: শুক্র, ০৭/০৯/২০০৭ - ১:৩৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

প্রবাসীদের কথা

শেখ ফেরদৌস শামস (ভাস্কর)
(আগষ্ট, ২০০৫)

কর্ডলেস টেলিফোন সেটটি নিয়ে সমানে ডায়াল করে যাচ্ছে মিতা। খুবই বিরক্ত ভাব। আজকাল ফোন কার্ডগুলোর যে কি হয়েছে- সহজে লাইন পাওয়া যায় না। বারবার ডায়াল করতে করতে আঙ্গুল ব্যথা হয়ে যায়। লাইন পাওয়া যায় না- কিন্তু দেখা যায় মিনিট ঠিকই কেটে নিল। ঐ হারানো মিনিট ফির...


দ্বিতীয় দৃষ্টি

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: মঙ্গল, ০৪/০৯/২০০৭ - ৬:২৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বরাবরের মত বাস আজকেও সময় মত এল না। আজকে মিনিট দশেক দেরি। শহরটা ছোট, সীমিত, সবুজ। মূলধারার আমেরিকান শহর। হলিউডি চমক-জমক নেই এখানে। ঘামের শহর, নামের নয়। লোকসংখ্যা খুব একটা বেশি না। লাখ তিনেকের মত হবে। পাবলিক ট্রান্সপোর্ট এখানে খুবই দীন। তবে কারণটা মানুষের সংখ্যা নয়, মানুষের ধরন। সাদা আর কালো। বেশি বেশি কাল...বরাবরের মত বাস আজকেও সময় মত এল না। আজকে মিনিট দশেক দেরি। শহরটা ছোট, সীমিত, সবুজ। মূলধারা


ধৈর্য ধরে আছি সুনা

সবুজ বাঘ এর ছবি
লিখেছেন সবুজ বাঘ (তারিখ: শুক্র, ৩১/০৮/২০০৭ - ৪:৪৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মেয়েরা চৈনিক ফুদ খেতে ভালবাসে দৈনিকই
আর আমি মেয়েদের।
কিন্তু মেয়েরা যেহেতু চৈনিক ফুদ দৈনিকি খেতে পারে না
তেমনি আমিউ দৈনিকি মেয়েদের পারি না...


পানশালা ০৬

হিমু এর ছবি
লিখেছেন হিমু (তারিখ: বিষ্যুদ, ৩০/০৮/২০০৭ - ১০:৩১অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

[justify][পানশালায় পানই মুখ্য। পান করে যে শালারা, তাদের জন্যেই পানশালা খোলা। ধন্যবাদ।]

১.

ফাকরুল ভাইকে বহুদ্দিনবাদে হোটেল গিলগামেশ বার অ্যান্ড রেস্তোরাঁর এক পরিচিত চিপায় দেখতে পেয়ে উল্লসিত হই। মাঝে কিছুদিন গা ঢাকা দিয়েছিলেন, বোধহয় যৌথ বাহিনীর ভয়ে। গিলগামেশের কিয়দংশ বুলডোজারের ষন্ডামোতে ভাঙা হয়েছে, বসার জায়গা কিছুটা কমে গেছে, কিন্তু ফাকরুল ভাই ফিরে এসেছেন এটাই বড় কথা।

আমি হইহই...


ছোটগল্প: একদিন তুমিও দেখা পাবে তার (শেষ অংশ)

জ্বিনের বাদশা এর ছবি
লিখেছেন জ্বিনের বাদশা (তারিখ: বিষ্যুদ, ৩০/০৮/২০০৭ - ৩:২৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

৩.
দুপুরে খেতে বসে কবুল বারবার আফসোস করছিল, কারণ যখন সে নিয়ত করেছিল বুড়োর থেকে পয়সা নেবেনা তখন তার ধারনা ছিল বুড়ো না হয় বিশ-পঁচিশ টাকার খাবারই খাবে, কিন্তু কপালের কি ফের, তাকে ছেড়ে দিতে হলো আড়াইশ টাকা! আড়াইশ' টাকা তো যা তা কথা না! দোকান চালিয়ে সারাদিনে তার লাভই হয় তিন থেকে চারশ' টাকা, সেখান থেকে প্রায় পুরোটাই আ...


রঙিলা - কামড়

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি
লিখেছেন অছ্যুৎ বলাই (তারিখ: বুধ, ২৯/০৮/২০০৭ - ৭:৪৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মিতা আপু আমার এক বছরের বড়। কাজিন। ছোটবেলায় একসাথে মানুষ। অন্য সবার সাথে হরদম মারপিট থাকলেও তার সাথে অন্যরকম একটা সখ্যতা ছিলো। চাউল চুরি করে আমাকে আইসক্রিম কিনে খাওয়ানোটাই এই স্পেশাল সখ্যতার একমাত্র কারণ নয়। তার সান্নিধ্যে একটা শান্তি শান্তি ভাব আসতো; একটু লাজুকও হয়ে যেতাম হয় তো।

বেশিদিন আর একসাথে বড় ...