প্রফেসরের মৃত্যুরহস্য

অরফিয়াস এর ছবি
লিখেছেন অরফিয়াস (তারিখ: বিষ্যুদ, ১০/০৫/২০১২ - ১১:৪৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ফোনটা দুবার বেজে উঠতেই বিরক্তি সহকারে কানে লাগালেন উত্তরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহীদুল আলম, ওপাশ থেকে সহকর্মী আহসান এর গলা ভেসে এলো।

"স্যার, একটা মৃত্যুসংবাদ আছে"
"হুমম, মৃত্যুসংবাদ!!... নাকি খুন ?"
"মানে এখনও ঠিক বলা যাচ্ছেনা..."
"অ... তা কে? কোথায়?"
"প্রফেসর রাশেদুল হক..."
"হ্যাঁ !! .."
"জ্বি, স্যার, এইমাত্র উনার বাসার কেয়ারটেকার ফোন করেছিলো, ভোর বেলায় ডাকতে গিয়ে মৃত অবস্থায় পায় উনাকে.."
"হুমমম; ঠিক আছে আসছি.."
"ঠিক আছে স্যার"

ফোনটা রেখে কিছুক্ষণ গম্ভীর হয়ে রইলেন শহীদুল আলম, কালকে একটা কেসের কাজ থেকে অনেক রাতে ঘরে ফিরেছেন। এখন বাজে মাত্র সকাল ৬:৩০টা, "প্রফেসর রাশেদুল হক, বিশিষ্ট পুরাতত্ত্ববিদ রাশেদুল হক নিজের ঘরে মৃত !! খুন ? নাকি সাধারণ মৃত্যু?"

বাড়িটা পুরনো, দেয়ালের ফিকে হয়ে আসা রং আবছা বোঝা যায়। আশেপাশের বহুতল ভবনগুলোর কাছে একদম শ্রীহীন দেখাচ্ছে দোতলা বাড়িটাকে। তবে একটাই পার্থক্য যে, একচিলতে বাগান ঘেরা বাড়িটা সাবেকি আমলের জৌলুসের কথা মনে করিয়ে দেয়। এখন বাজে সকাল ৮টা, সকালের রোদে চারপাশটা অন্যরকম লাগছে।আহসানকে নিয়ে বাড়িতে ঢোকার আগে শহীদুল আলম আশপাশটা একবার দেখে নিলেন। মেইন গেট থেকে রাস্তা চলে গেছে সরাসরি বাড়ির সামনের বারান্দা পর্যন্ত, সেখানে জুবুথুবু হয়ে দাঁড়িয়ে আছে দুজন লোক। তিনি সামনে যেতেই এগিয়ে এলো একজন বয়স্ক মানুষ,

"স্যার, আমিই ফোন করেছিলাম.."
"তাহলে আপনিই কেয়ারটেকার দিনেশ বাবু?"
"হ্যাঁ, স্যার.." কিছুটা জড়তা মেশানো গলায় উত্তর আসে।
"কিন্তু, আপনারা কোনো আত্মীয়-স্বজনকে ফোন না করে, পুলিশ স্টেশনে ফোন করলেন যে, কোনো অস্বাভাবিক কিছু?"
"না স্যার, সেরকম... কিছু নয়, কিন্তু প্রফেসর সাহেবের কোনো আত্মীয় তো দেশে নেই, তার একমাত্র ছেলে থাকেন দেশের বাইরে, আর এরকম ঘটনা ঘটবে আমরা কেউ তো বুঝতে পারিনি, ঠিক কি করা উচিত। সকাল সকাল ডাক দিতে গিয়েছিলাম হাঁটতে যাওয়ার জন্য, গিয়ে দেখি ঘরে নেই উনি। পরে বাথরুমের দরজা খোলা দেখে উঁকি দিতেই, মেঝেতে পড়ে রয়েছেন দেখতে পাই।" এইপর্যন্ত বলে গলা ধরে আসে কেয়ারটেকারের।

কিছুটা সময় নিয়ে শহীদুল আলম এবার প্রশ্ন করেন, "তারপরে?"
"তারপরে আমি চিত্কার করে নুরুলকে ডাকি, [বারান্দায় দাঁড়িয়ে থাকা দ্বিতীয় লোকটিকে দেখিয়ে বলে দিনেশ] ও তখন সকালের নাস্তা বানাবার জন্য নিচের রান্নাঘরে, তারপরে দুজনে মিলে ধরাধরি করে ঘরে নিয়ে আসি, কিন্তু ততক্ষণে...." এই পর্যন্ত বলে থেমে যায় দিনেশ।
নুরুলের দিকে তাকিয়ে আহসান প্রশ্ন করে, "তুমি শুধু রান্নার কাজই করো?"
"না স্যার, বাড়ির অন্যান্য কাজও করি।"

শহীদুল আলম কথা বলতে বলতে ঘরের ভেতরে ঢোকেন এইবার, পুরনো ধাঁচের বাড়ি। সামনের বসার ঘর থেকে উপরে যাওয়ার সিড়ি উঠে গেছে, দোতলায় উঠতে উঠতে প্রশ্ন করেন দিনেশকে, "উনার কোনো শারীরিক সমস্যা ছিলো, মানে হার্টের অসুখ বা এরকম কিছু?"
"জ্বি, স্যার, হার্টের সমস্যা ছিলো, এছাড়াও বয়স হয়েছিলো, কিন্তু নিয়ম করে ওষুধ খেতেন, আর হাঁটা চলাও করতেন।"
দোতলার ঘরে ঢুকে বিছানার নিথর দেহটার দিকে এগিয়ে গেলেন তিনি, আহসানকে ভালো করে দেখতে বলে বাথরুমের দিকে এগিয়ে গেলেন। সাধারণ জিনিসপত্র রাখা ভেতরে, একপাশে বেসিন অন্যপাশে পানি রাখার জায়গা। বেসিনের পাশেই জানালা, সেদিকে এগিয়ে যেতেই চোখ পড়লো নিচের দিকে, আগাছায় ঢাকা বাগানের পেছন দিকটা দেখা যাচ্ছে, দেয়ালের শেষদিকে একটা ছোট গেট, তবে অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে খোলা হয়না অনেকদিন। চারপাশে অস্বাভাবিক কিছু চোখে পড়লোনা, ফেরার জন্য ঘুরে দাঁড়াতেই দেখলেন বেসিনের কোনায় লেগে থাকা রক্তের দাগ। ভালো করে লক্ষ করে বাইরে এসে দাঁড়াতেই আহসান বললো, "স্যার, দেহে অস্বাভাবিক কোনো কিছু তো দেখছিনা, শুধু কপালের এইদিকে রক্ত জমে আছে, মনে হচ্ছে পড়ার সময় লেগেছে, এছাড়া যা মনে হচ্ছে, হার্ট এটাকে মৃত্যু।" তাকে বেসিনের কোনায় লেগে থাকা রক্তের দাগের কথা বলে, দিনেশ আর নুরুলের দিকে তাকিয়ে প্রশ্ন করলেন, "বাগানের ঐদিকে একটা গেট দেখলাম, খোলা হয় কি?"
নুরুল উত্তর দিলো, "না স্যার, আগে ময়লা পরিষ্কারের জন্য কাজে লাগতো, এখন ওভাবে বাগান তো নেই, যা দেখার আমিই দেখি, ঐ গেট অনেক বছর ধরেই আর খোলা হয়না।"
"হুমম, ঠিক আছে, আমি আহসানকে রেখে যাচ্ছি, তোমাদের জবানবন্দী লিখুক, আমি গাড়ি পাঠিয়ে দিচ্ছি, পোস্টমর্টেম রিপোর্টের আগে কিছু বলা যাচ্ছেনা। তোমরা উনার ছেলেকে খবরটা জানিয়ে দাও, আপাতত বিস্তারিত বলার দরকার নেই, আমি থানার দিকে এগোচ্ছি।"

বারান্দা থেকে নিচে নামতেই মুখোমুখি হলেন এক কিশোরের, প্রশ্নবোধক দৃষ্টিতে তাকানোর সাথে সাথেই ছেলেটি বলে উঠলো, "আমি দীপ্র, রাশেদ আঙ্কেল ঠিক আছেন তো? সকাল সকাল বাড়ির সামনে পুলিশের গাড়ি দেখে মনে হলো কিছু হয়েছে.. "
কিছুক্ষণ তাকিয়ে থেকে উত্তর দিলেন শহীদুল আলম, "উনি আজকে সকালে মারা গেছেন..বাড়ির কেয়ারটেকার পুলিশ স্টেশনে ফোন করে জানায়।"
"কিভাবে..!?" চমকে উঠে আশ্চর্য হয়ে প্রশ্ন করলো দীপ্র।
"আপাতত মনে হচ্ছে হার্ট এটাক..কিন্তু, তুমি রাশেদুল হকের কে হও?"
"আমি পাশেই থাকি, সন্ধ্যার দিকে দাবা খেলতে আসি মাঝে মাঝে... কালকেও এসেছিলাম, কিন্তু, তখন তো কিছু মনে হয়নি.."
"হুমম, শোনো, ভেতরে আমার সহকর্মী আছেন, তার কাছে যাও, কালকে কি কি ঘটেছে একবার বলো, যদি প্রাসঙ্গিক কিছু জানা যায় আর কি.."
এই বলে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে এলেন তিনি।

পোস্টমর্টেম রিপোর্টে এলো মৃত্যুর কারণ, "কার্ডিয়াক এরেস্ট", দেহে অস্বাভাবিক কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি, রক্তে পাওয়া যায়নি কোনো বিষাক্ত কিছু। আর বেসিনের কোনায় লেগে থাকা রক্তের গ্রুপের সাথে প্রফেসর রাশেদুল হকের রক্তের গ্রুপ মিলে গেলো। বোঝা যাচ্ছে পড়ে যাওয়ার সময় কপালে আঘাত লেগে থাকবে। শহীদুল আলম কথা বলতে গিয়েছিলেন রাশেদুল হকের ছেলের সাথে। পুরো ব্যাপারটা আর রিপোর্টের কথা জানিয়ে বললেন যে অস্বাভাবিক কিছু যেহেতু তদন্তে এলোনা, তাহলে মনে হচ্ছে স্বাভাবিক ভাবেই হার্টের সমস্যা থেকে হঠাৎ মারা যান প্রফেসর। শোকার্ত মানুষগুলোকে রেখে বাইরে বেড়িয়ে আসতেই চোখে পড়লো সেই ছেলেটিকে, ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে আছে তার দিকে। সামান্য মাথা নেড়ে বেড়িয়ে এলেন তিনি।

ঘটনার দিন সাতেক পরে, একদিন সকালে, একটা ফাইলে চোখ বুলাচ্ছিলেন শহীদুল আলম, হঠাৎ সামনের চেয়ারটা নাড়ার শব্দে তাকালেন। দেখলেন সামনে দাঁড়ানো দীপ্র। প্রশ্ন করার জন্য মুখ খোলার আগেই বলতে শুরু করলো দীপ্র,
"রাশেদ আঙ্কেলের মৃত্যুটা আমার কাছে কখনই স্বাভাবিক মনে হয়নি, আর সন্দেহ আরও বাড়ে যখন ঐদিন সকালে উনার বাড়িতে যাই আমি।"
কিছুটা অবাক হয়ে কথাটা হজম করে বলতে শুরু করলেন তিনি,
"কিন্তু দেখো, তদন্তে বা পোস্টমর্টেম রিপোর্টে কোনো কিছুতো ধরা পড়েনি, তাহলে কি করে বলা যায় এটা স্বাভাবিক মৃত্যু নয়?"
একটা স্বচ্ছ ছোট প্লাস্টিকের প্যাকেট এগিয়ে দিলো দীপ্র তার দিকে, ভেতরের জিনিসটি ভালো করে দেখার আগেই বললো, "এটাই সেই মার্ডার উইপন.."
হাতের জিনিসটি দেখে হাসবেন না গম্ভীরভাবে প্রশ্ন করবেন ঠিক বুঝতে পারছিলেন না তিনি, ছোট্ট এক টুকরো তামার তার, একটা আংটার থেকে সাইজে বড় হবেনা, এটা কি করে একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষকে হত্যা করার জন্য ব্যবহার হতে পারে? তিনি অবাক হয়ে প্রশ্ন করলেন, "ঠিক বুঝলামনা, কিভাবে সম্ভব?" মনে মনে ভাবছেন অল্পবয়স্ক কিশোর হয়তো গোয়েন্দাগিরির শখ জেগেছে।
"তাহলে চলুন ঘটনাস্থলে, সেখানে গিয়েই বাকিটুকু খোলসা করা যাক", বলেই উঠে দাঁড়ালো দীপ্র।

রাশেদুল হকের বাসার দিকে চলতে চলতে শহীদুল আলম ভাবছিলেন, কোন পাগলের পাল্লায় পড়লাম!! এই অল্পবয়স্ক ছেলেটার কথায় এভাবে সাড়া দেবার কোনো মানে হলো কি? বাড়িতে পৌঁছে বসার ঘরে ঢুকতেই তাদের দেখে এগিয়ে এলো রাশেদুল হকের ছেলে এবং বাড়ির কেয়াটেকার। দীপ্র তাদেরকে বসতে বলে নুরুলকেও ডাক দিতে বললো, আহসান দাঁড়িয়ে রইলো দরজার সামনে, উল্টোদিকে শহীদুল আলম বসতেই শুরু করলো দীপ্র।

"যেদিন সকালে রাশেদুল হক মারা যান, সেদিন সকালেই আমি এখানে এসেছিলাম। সবার সাথে কথাও হয়, পুলিশ বেরিয়ে যাবার পরে, আমি দোতলার ঘরে যাই। সেখানে কোনো অস্বাভাবিক জিনিস চোখে পড়েনি, কিন্তু বাথরুমে ঢুকে সবকিছু দেখে ফেরত আসার আগে চোখ যায় জানালার শিকে, পুরনো আমলের জানালার নকশা, লোহার শিক লাগানো। আর তারই কোনার একটি শিকে দেখি আংটার মতো পেঁচানো একটি সরু তামার তার, জিনিসটি বলতে গেলে অপ্রাসঙ্গিক। স্বাভাবিকভাবেই চোখ এড়িয়ে যাওয়ার মতো। আমারও এড়িয়ে যেতো যদিনা একটি সম্ভাবনা মাথায় না আসতো। বাথরুমের জানালা দিয়েই বাগানের পেছনের দিকের একটা দরজা দেখা যায়, আমার সন্দেহ হয় সেখানেই।" এটুকু বলে নড়ে চড়ে বসে দীপ্র। বাকিরা চুপ।

"বাগানের ঐদিকটা ব্যবহার হয়না আমি জানি, কিন্তু সেদিন যখন আমি দরজাটা ভালো করে দেখতে যাই, তখন খেয়াল করে দেখি, দরজার জং-ধরা হাতলে সদ্য হওয়া একটি দাগ!, জং-এ ধরা হাতলটি বেশিদিন হয়নি কেউ দরজাটি খুলতে ব্যবহার করেছে, আর তাই একটি সরু দাগ পড়ে গেছে হাতলটির গায়ে, যা ভালো করে খেয়াল না করলে বোঝা যায়না। তার মানে এই দরজা দিয়ে কেউ ভেতরে এসেছে, অথবা কেউ বাইরে গেছে। কিন্তু বাড়ির লোকের জবানবন্দী অনুযায়ী ঐ দরজা অনেক বছর ধরে খোলা হয়না, তার মানে হতে পারে দুটি, কেউ মিথ্যা বলছে, অথবা বাইরের কেউ দরজা খুলেছে যা বাড়ির কেউ জানেনা।"

এই পর্যন্ত শুনে মুখ গম্ভীর হয়ে গেলো শহীদুল আলমের, কিছুটা ঝুঁকে সামনে এগিয়ে বসলেন। দীপ্র বলে চললো, "দাবা খেলতে এসে প্রায়ই বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা হতো রাশেদ আঙ্কেলের সাথে, তার কথা থেকেই জানি তিনি তার এই বাড়ি আর সংগৃহীত সব জিনিসপত্র একটি ট্রাস্টি করে জাদুঘর হিসেবে ব্যবহারের জন্য দিয়ে যেতে চান, তার সংগ্রহের জিনিস কম ছিলোনা, বিশেষ করে তিনি যখন মিশরে খননকার্যে গিয়েছিলেন সেখানে স্মারক হিসেবে বেশ কয়েকটি জিনিস তিনি উপহার পান যার এখনকার মূল্য অনেক। আমার সন্দেহ হয় কোনো ভাবে তাকে হত্যা করে এই জিনিসগুলো হাতিয়ে নেয়ার চক্রান্ত হতেই পারে।"

এবার শহীদুল আলম বলেন, "কিন্তু সেরকম কিছু তো হারানো যায়নি।" তার কথায় মাথা নাড়ে বাকিরা।
"না কথাটা পুরোপুরি সঠিক নয়, কিন্তু তাতে পরে আসছি। বাগানের দরজা খোলার চিহ্ন দেখে এবার আমি খুঁজতে খুঁজতে আসি দোতলার বাথরুমের জানালার ঠিক নিচে, দেখি সেখানে মাটিতে স্পষ্ট জুতোর দাগ। বোঝা যায় যে, প্রায় অনেকক্ষণ ধরে কেউ একজন এখানে দাড়িয়ে অপেক্ষা করেছিলো।"
"কিন্তু এই দাগ তো বাড়ির যে কারো হতে পারে"- প্রশ্ন করে আহসান।
"হ্যাঁ, হতে পারতো, যদিনা জুতোর নিচের অংশটা অদ্ভুত না হতো!"
"তার মানে?"
"যখন জুতোর দাগটা দেখি সেটার একটা অস্বাভাবিক জিনিস চোখে পড়ে আমার। সাধারনত জুতোর দাগে দুপায়ের সোলের ছাপ বোঝা যায়, অন্তত জুতোর নিচের হিলের দিকটার ছাপ দেখা যায়। কিন্তু এই জোড়া ছাপে বাম পায়ের হিলের দাগ বোঝা গেলেও ডান পায়ের হিলের জায়গা ছিলো সমান।"
"ঠিক বুঝলামনা" বলে উঠেন শহীদুল আলম।
"হ্যাঁ, এরকম ছাপ শুধু একভাবেই সম্ভব যদি ঐ পায়ের জুতোর সোল আলাদা করে উঁচু করা হয় তবে, আর এধরনের জুতো তারাই পড়ে যাদের এক পায়ের হাড় অন্য পা থেকে একটু ছোট।"
মুখ হা করে তাকিয়ে থাকে সবাই দীপ্রর কথা শুনে।
"কিন্তু এই ঘটনাগুলোর সাথে খুনের কি সম্পর্ক? আর তামার তার-ই বা কি করে মার্ডার উইপন হলো?"-প্রশ্ন করলেন এবার আহসান।

"এই ঘটনাগুলো একটার সাথে আরেকটা জোড়া দিলে খুনের একটা মোটিভ আস্তে আস্তে পরিষ্কার হয়, তখন স্বভাবতই প্রশ্ন জাগে খুন করা হলো কি দিয়ে, সেই অস্রটাই বা গেলো কোথায়? আর পোস্টমর্টেম রিপোর্টেও কোনো কিছু ধরা পড়লোনা কেনো? এথেকে একটা জিনিস সহজেই অনুমেয় যেই অস্র দিয়েই খুন করা হোক না কেনো, তার কোনো ছাপ মৃতের শরীর নেই! তাহলে এমন কি উপায় হতে পারে? এই প্রশ্ন চিন্তা করতেই আমার মাথায় আসে রাশেদ আঙ্কেলের হার্টের সমস্যার কথা। কোনভাবে যদি তার এই সমস্যাটাকেই অস্র হিসেবে ব্যবহার করা যায়, তাহলে পোস্টমর্টেম রিপোর্টে স্বাভাবিক ভাবেই কোনো চিহ্ন থাকবেনা যা থেকে অন্যকিছু বোঝা সম্ভব। তখন আমার মাথায় আসে সেই তামার তারের টুকরোটার কথা, জানালার শিকে তামার তারটা কেনো লেগে আছে? ভাবতে ভাবতে হঠাৎ একটা সম্ভাবনার কথা মাথায় খেলে, যা হলে খাপে খাপে বসে যায় সবগুলো টুকরো ঘটনা, আর সেটা হলো বৈদ্যুতিক শক!!"

"কি!!?? কিকরে সম্ভব?? শরীরে কোনো চিহ্ন থাকবেনা? অসম্ভব"- বলে উঠলেন শহীদুল আলম।
"না অসম্ভব নয়, খুব অল্পমাত্রার বৈদুত্যিক শক (মাইক্রোশক) ব্যবহার করলে দেহে সেরকম কোনো চিহ্ন থাকবেনা। আর এক্ষেত্রে তামার তারটা সেকারণেই ব্যবহার করা হয়েছে। ঘটনাগুলো খাপে খাপে বসালে দাঁড়ায় এরকম-

রাতের অন্ধকারে কেউ একজন বাগানের দরজা দিয়ে ঢুকে দোতলার বাথরুমের জানালার নিচে অবস্থান নেয়, নিচ থেকে বেসিনের আয়না একাংশ দেখা যায়, রাতের বেলা ঘরে ঢুকে যখন বাথরুমে ঢোকেন রাশেদুল হক কেবিনেট থেকে ওষুধ নেয়ার জন্য, তখনি নিচে থেকে কোনভাবে, হয়তো শক্তিশালী টর্চের আলো ফেলা হয় আয়নায়, স্বাভাবিকভাবেই কৌতূহলী হয়ে ঘটনাটা কি হচ্ছে ভালো করে নিচে দেখার জন্য জানালার সামনে আসেন রাশেদুল হক। তখনি তার চোখে আলো ফেলা হয়, তীব্র আলোতে হঠাৎ দৃষ্টি অন্ধকার হয়ে যাওয়ায় ভারসাম্য সামলাতে জানালার শিক ধরতে যান উনি, আর তখনি আগে থেকে লাগানো তামার তার দিয়ে জানালার শিকে পাঠানো বিদ্যুৎপ্রবাহে শক পান, খুব বেশি মাত্রার না হলেও হার্টের অসুবিধের জন্য ঐ অল্প কয়েক সেকেন্ডের শক-ই তার হার্টে "ভেন্ট্রিকুলার ফাইব্রিলেসন" এর জন্য যথেষ্ট ছিলো। আর তারপরে পড়ে যাওয়ার সময় বেসিনের কোনায় আঘাত লেগে তার মৃত্যু আরও তরান্বিত হয়| আর এই ভেন্ট্রিকুলার ফাইব্রিলেসন রাশেদুল হকের কার্ডিয়াক এরেস্ট ঘটায়। খুব সাধারণ যন্ত্রাংশে এরকম বহনযোগ্য ব্যাটারি আর সংযোগ তৈরী করা কঠিন কিছু নয়।

তাই পোস্টমর্টেম রিপোর্টে সাডেন কার্ডিয়াক এরেস্ট এর কথা লেখা থাকায় আমার সন্দেহ আরও ঘনীভূত হয়।"

"তারপর?"-যেনো স্বপ্নের ঘোরে প্রশ্ন করলেন রাশেদুল হকের ছেলে।
"তবে এই ঘটনাতে বাড়ির ভেতরের কারো সহযোগিতা না হলে তামার তার দোতলার বাথরুমের জানালায় লাগানো কঠিন হয়ে যেতো, তাই আমার সন্দেহ গিয়ে পড়ে বাড়ির কেয়ারটেকার দিনেশবাবু এবং রাঁধুনি নুরুলের উপর। যদিও কেয়ারটেকার হওয়ার কারণে দিনেশবাবুর সম্ভাবনা বেশি ছিলো যেহেতু বাড়ির সব গেটের চাবি তার কাছেই থাকে, তাই বাগানের দরজার পুরনো তলার চাবি বের করা খুব একটা অসুবিধা হবার কথা না, আবার সকাল বেলা সবার আগে মৃতদেহ দেখতে পান তিনিই এবং মৃতদেহ জায়গা থেকে সরিয়ে আলামত নষ্ট করার ইচ্ছাও তার থাকতে পারে। কিন্তু একই ভাবে সন্দেহের বাইরে যায়না নুরুলও। তাই আমি নজর রাখা শুরু করি এই দুজনের উপরে। ফল পাই হাতেনাতে, ৫ দিন পরে এক দুপুরবেলায় রাস্তার শেষ মাথায় গলির ভেতর দিকে আড়ালে দেখি এ বাড়ির একজনকে একটি প্যাকেট অচেনা একজনের হাতে তুলে দিতে। আর যার হাতে তুলে দেয়া হলো সে ডান পা একটু খুঁড়িয়ে হাটে।"

এইকথা বলা শেষ করতেই শহীদুল আলম চোখের কোনা দিয়ে কারো নড়াচড়ার আভাস পান, মুখ ঘুরাতেই দেখেন দরজার পাশ দিয়ে দৌড়ে বেড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে যাচ্ছে রাঁধুনি নুরুল, কিন্তু তার আগেই দরজার এইদিকে দাঁড়িয়ে থাকা আহসান চট করে এক পা এগিয়ে দেয়াতে হুমড়ি খেয়ে পড়লো নুরুল।

"হ্যাঁ, সেদিন নুরুলকেই আমি দেখি ঐ লোকের সাথে দেখা করতে"- দরজার দিকে তাকিয়ে বলে উঠে দীপ্র।

আহসান আর শহীদুল আলম মিলে নুরুলকে জোর করে বসানোর চেষ্টা করতে থাকেন আর এদিকে ঘটনার আকস্মিকতায় হা করে তাকিয়ে থাকে বাকি দুজন। গাড়িতে বসা আর দুজন পুলিশকে ডেকে তাদের হাতে নুরুলকে তুলে দিয়ে এবার শহীদুল আলম প্রশ্ন করেন, "ঐ প্যাকেটে কি ছিলো?"
"মিশরের প্রাচীন দেবতা "আনুবিসের" ছোট একটা কালো পাথড়ের মূর্তি, আকারে ছোট হলেও এখনকার বাজারে এর দাম কয়েক কোটির কম হবেনা!"
"কিন্তু তুমি কি করে জানলে এই মূর্তির কথা?"
"জানতে পারি পরে, যখন আবার একবার বাড়িতে খোঁজ করতে ঢুকি, তখন সংগ্রহশালার ভেতরের দিকের একটা জায়গায় একটা গোল দাগ দেখি যার চারপাশে ধুলো জমে আছে, বুঝতে পারি ঐখানে কিছু একটা রাখা ছিলো যা কিছুদিনের ভেতরেই সরানো হয়েছে। তখনি ঘুরে ঘুরে পুরো সংগ্রহটা আবার দেখি। আমাকে এর আগেই দেখিয়েছিলেন রাশেদ আঙ্কেল, তাই একটু চিন্তা করেই দেখি আনুবিসের ছোট্ট মূর্তিটা সেই আগের জায়গায় নেই।"

"কিন্তু খুনের মোটিভ কি তাহলে এই প্রাচীন মূর্তি?"-প্রশ্ন করেন শহীদুল আলম।
"না, প্রথমে ভেবেছিলাম তাই। কিন্তু পরে দেখি তা নয়। আসলে অনেকদিন ধরেই রাশেদুল হককে এই বাড়িটা বেঁচে দেয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে প্রমোটার আসাদ চৌধুরী। কিন্তু উনি বেঁচতে রাজি ছিলেননা, আগেই বলেছিলেন তিনি এটি জাদুঘর হিসেবে দান করে যাবেন, তাই উনাকে যেভাবেই হোক রাজি করাতে আসাদ চৌধুরী নিয়োগ করেন রায়হানকে। সে এই লাইনের পুরনো, ঘাঘু লোক। সে জানে কি করে রাজি করাতে হয় মানুষকে, কিন্তু তার টাকার লোভ, মূর্তি বিক্রির লোভ, কোনো হুমকিতেই যখন সারা দিচ্ছিলেন না রাশেদুল হোক তখন অন্য রাস্তা দিয়ে কাজ সম্পন্ন করার প্রস্তুতি নেয় রায়হান। তবে এর আগেই তার চোখ যায় এই বাড়ির সংগ্রহশালার দিকে, অপরাধের লাইনের পুরনো বান্দা হওয়ায় তার বুঝতে অসুবিধা হয়না এখানে রাখা আছে বেশ কিছু দামি জিনিস। প্রাচীন মূর্তি পাচারের সাথে আগে থেকেই জড়িত ছিলো সে, তাই সে এক ঢিলে দুই পাখি মারার সিদ্বান্ত নেয়। বাড়ির ভেতরে সে অনেক টাকার লোভ দেখিয়ে নুরুলকে হাত করে ফেলে, তাকে অবশ্যই সে খুনের পরিকল্পনা জানায়নি। তাহলে বেঁকে বসার সম্ভাবনা ছিলো নুরুলের। সে তাকে ঐ মূর্তি হাত করার আর এই তামার তারটা বাথরুমের জানলায় লাগানোর কাজ দেয়, অনেক টাকার লোভে মুখ বন্ধ থাকে নুরুলের। কিন্তু কখনই সে বুঝতে পারেনি কি ঘটতে যাচ্ছে। তাই খুনের পরেই ভয় পেয়ে যায় নুরুল। তাকে দেয়া টাকার অংশটা সে সুযোগ বুঝে সরানোর চেষ্টা করে, শুধু তাইনা, তার কাছে রাখা মূর্তিটাও সে রায়হানকে দিয়ে দেয়ার চাপ দেয়। আর ঐ মূর্তি নিতেই দেখা করে রায়হান, আর তখনি আমার কাছে সব পরিষ্কার হয়। রায়হানের হয়তো ধীরে সুস্থে কাজ এগোনোর পরিকল্পনা ছিলো, কারণ এভাবেও রাশেদুল হকের মৃত্যুর পর তার ছেলে বাড়ি বিক্রি করে বিদেশে ফিরে যাবেন এটাই পরিকল্পনার অংশ ছিলো, কিন্তু নুরুলের জন্য সেটা আর হলোনা। মূর্তি আগেই সরাতে হলো "

"কিন্তু এই ঘটনায় যদি ঐ মূর্তিটা না থাকতো তাহলে?"-প্রশ্ন করে আহসান।
"হ্যাঁ, তাহলে একটু কঠিন হতো মূল অপরাধীকে বের করা, বেশি লোভ করতে গিয়েই নিজের পরিচয় প্রকাশ করে ফেললো রায়হান।"
"কিন্তু আসাদ চৌধুরী কি এই ঘটনার পেছনে জড়িত?"
"মনে হয় না, কারণ সেরকম হলে এতো প্ল্যান করে খুন করার পরে সেই বাড়ি থেকেই জিনিস চুরি করার মতো কাঁচা কাজ করার লোক নন তিনি, যতদুর মনে হচ্ছে রায়হান নিজের বসের কাছে লুকিয়ে বড় দাও মারার মতলবে ছিলো। তবে এখনই রায়হানের বাড়ি সার্চ করলে হয়তো জিনিসপত্র সমেতই ধরা পড়বে সে, আর আসাদ চৌধুরী নিজের দিক থেকে সন্দেহের তীর সরাতে ওর পেছনে থাকবেননা এটা অনুমান করা যায় সহজেই।"

শহীদুল আলম দ্রুত উঠে পড়লেন, আহসানকে বললেন থানায় ফোন করে সার্চ ওয়ারেন্ট বের করতে। "তোমাকে ধন্যবাদ পরে দিবো আগে আসল অপরাধীকে ধরে নেই", এই বলেই বেরিয়ে পড়লেন তিনি।

পরের দিন সংবাদপত্রের পাতায় বেশ বড় করে এলো-

"চাঞ্চল্যকর হত্যা রহস্যের সমাধান: বিশিষ্ট পুরাতত্ত্ববিদ রাশেদুল হক এর খুনিকে গ্রেফতার করলো পুলিশ"


মন্তব্য

আব্দুল গাফফার রনি এর ছবি

ভাল লাগল। তবে স্মৃতি যদি প্রতারণা না করে 'আনুবিস' হল মিশরের শেয়াল দেবতা। সত্যজিত রায় এটা নিয়ে একটা কাহিনি লিখেছিলেন- 'শেয়ালদেবতা রহস্য'। তিন গোয়েন্দারও একটা লিখেছেন রকিব হাসান। কিন্তু সেগুলোতে শেয়াল দেবতা মিশর ছেড়ে অন্যদেশে যাওয়ার পেছনে যুক্তি ছিল। এখন মিশরীয় মুর্তিগুলো সেদেশের জাতীয় সম্পদ। সেগুলো বাংলাদেশে আসার একটাই রাস্তা- চুরি যাওয়া। রাশেদুল ইসলাম নিশ্চয় তা করেননি বা চোরের কাছ থেকে কিনতেও যাননি। তাহলে?
---প্রশ্নটা নিতান্তই পাঠক হিসেবে, বিশ্লষজ হিসেবে নয় আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

অরফিয়াস এর ছবি

ধন্যবাদ।

হুমম ঠিক বলেছেন, সত্যজিত রায় আর রকিব হাসানের গল্পগুলো পড়া হয়েছে আমার।

আপনি লেখার উপরের প্যারাতে একটা অংশ হয়তো এড়িয়ে গেছেন, সেখানে লেখা ছিলো মিশরে খননকার্যে অংশগ্রহন এর সময় "রাশেদুল হক" কে কয়েকটা জিনিস স্মারক হিসেবে উপহার দেয়া হয় তার অবদানের জন্য। এভাবেই আনুবিসের মূর্তিটা উনার সংগ্রহে আসে, ওটার সাথে চুরির সম্পর্ক নেই।

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

আব্দুল গাফফার রনি এর ছবি

কিন্তু 'আনুবিস' যে মিশরের যফদুঘরে আছে সেকথা সচেতন পাতঠক মাত্রি জানে। সত্যজিতের চোর একটা উপায়ে ভারতে নিয়ে এসছিল, কিন্তু তখনকার দিনে খননকাজ শুরু হয়েছে মাত্র, 'আনুবিস' সম্পর্কে মানুষের খুব বেশি জানাশোনা ছিল না, কিন্তু এখনকার দিনে এভাবে 'আনুবিস'-কে উপস্থপন করলে মনে প্রশ্ন জাগে। তোবু এটাকে রহস্য গল্পের রহস্যই ধরে নিলাম।

অরফিয়াস এর ছবি

হ্যাঁ, তা অবশ্যই। কিন্তু "আনুবিস" এর একটাই মূর্তি থাকতে হবে এমন তো কথা নেই, আর এখানে মূর্তিটি ছিলো পাথড়ের তৈরী ছোট স্মারক উপহার, জিনিসটি প্রাচীন হলেও যেহেতু গল্পের খাতিরে জিনিসটিকে উপহার হিসেবে বলা হয়েছে মনে হয়না জায়গাটায় আর প্রশ্নের অবকাশ থাকছে।

তবুও আপনার বিশ্লেষণের জন্য ধন্যবাদ।

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

কয়েকটা পর্যবেক্ষণ বলি।

১। আমার মনে হয়, গোয়েন্দা গল্পের তিনটা অংশ থাকে মূলতঃ। প্রথমে একটা অপরাধ ঘটে, দ্বিতীয় পর্যায়ে আইনের লোক/গোয়েন্দা সমস্ত সূত্র খতিয়ে দেখে-পর্যবেক্ষণ পাঠকের কাছে তুলে ধরে। এই পর্যায়ে পাঠক নিজেকেই গোয়েন্দার জায়গায় বসিয়ে রহস্য সমাধানের চেষ্টা করে। তৃতীয় বা শেষ পর্যায় হলো রহস্য উদ্ঘাটন। এইখানে সমস্ত খুঁটিনাটি মাথায় রেখে সমস্ত দিক মিলিয়ে গোয়েন্দা আসল ঘটনা তুলে ধরে।

এই গল্পে মধ্যবর্তী পর্যায়টা ছিলো না। শুরু আর শেষ আছে ঠিকই, কিন্তু রহস্যটা জমলো না। পাঠক তো প্রথমে বুঝলোই না যে মৃত্যুটা রহস্যময়।

২। মোটিভের ক্ষেত্রেও একটু দেরী হয়েছে। পুরাতত্ত্ববিদের বাড়িতে অপরাধ ঘটলে মোটিভ হিসেবে প্রথমেই পুলিশ সন্দেহ করবে তার সংগ্রহের কথা।

৩। আনুবিসের মূর্তির অনুপস্থিতি খুদে গোয়েন্দা খালি চোখে দেখলেই বুঝতে পারতো কিন্তু। প্রফেসরের জীবদ্দশায় নিশ্চয়ই তার যাদুঘর ঝাড়টাড় দেয়া হতো, এতো দ্রুত ধূলো পড়ার কথা নয় তো হাসি

আমি গোয়েন্দা গল্পের বিশাল ভক্ত। ভালো গোয়েন্দা গল্প লেখা আসলেই অনেক কঠিন। নিজে লিখতে না পারলেও তাই তোর ম্যালা ভুল ধরে দিলাম, চোখ টিপি রাগ করিস না।

সচলে আজকাল গোয়েন্দা/ভূত/সাইফাইয়ের দৌরাত্ব্য খুব বেড়েছে। তাই আশায় রইলাম, তোর পরের গল্প অনেক দ্রুতই আসবে আর এদ্দম নিখুঁত হবে দেঁতো হাসি

অরফিয়াস এর ছবি

না না ভালো বলেছিস, ভুল না ধরলে উন্নতি কি করে হবে লেখায়, পরের বার ঠিক খেয়াল রাখবো হাসি

তবে দেখ সংগ্রহশালার মোটিভ এর কথাটা ঠিক আছে, কিন্তু ঐ সংগ্রহশালার সবগুলো জিনিস যদি কারো ভালো করে জানা না থাকে আর কোনো লিস্ট না থাকে তাহলে পুলিশের পক্ষে হয়তো বোঝা কঠিন কিছু হারিয়ে গেলে।

নারে রাগের প্রশ্নই আসেনা হাসি রহস্য জমেনি এটাতো আমার প্লটেরই সমস্যা হাসি

পরের বার নিঁখুত না হলেও এর থেকে ভালো করার আশা রাখি। হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

অমি_বন্যা এর ছবি

ভালো লাগলো।

অরফিয়াস এর ছবি

ধন্যবাদ হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

বন্দনা এর ছবি

গোয়ন্দা গল্প ভালু পাই, তবে রহস্য দানাবাধার আগেই সমাধান হয়ে গেছে এইজন্য একটু মজা কমে গেছে।

অরফিয়াস এর ছবি

অসংখ্য ধন্যবাদ হাসি

আসলে একটু তাড়াহুড়ো করে শেষ করলাম, আরও রিভিশনের দরকার ছিলো।

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

প্রাইম এর ছবি

জানালার গ্রিলে বিদ্যুৎ প্রবাহ আর আলো ফেলে ভারসাম্য নষ্ট করে খুনের ব্যাপারটা আগে একটা গল্পে পড়েছি। অনেক আগে পড়েছি, গল্পের নাম বা লেখক মনে নেই। তবে বইটা সম্ভবত " দুই বাংলার নির্বাচিত রহস্য রোমাঞ্চ গল্প "।

আব্দুল গাফফার রনি এর ছবি

হতেই পারে, একই প্রক্রি দুটি ভিন্ন ঘটনাই ব্যাবহার দোষের কিছু নয়। দেখতে হবে গল্পের কাহিনি মৌলিক কিনা। আমার মনে হয় কিছু অসামঞ্জস্য থকলেও এই গল্পটা মৌলিক।

অরফিয়াস এর ছবি

আবারও ধন্যবাদ আপনাকে হাসি

আর হ্যাঁ এই গল্পটা মৌলিক হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

অরফিয়াস এর ছবি

হুমম বইটি আমার কাছেও আছে।

তবে ধারনাটা মৌলিক। সেভাবে দেখতে গেলে তো আপনি বন্দুকের গুলিতে খুন করার গল্প হর-হামেশাই পড়েছেন, নতুন কোনো গল্পের প্লটেও যদি সেই একই জিনিস পড়েন তাহলে কি জিনিসটা মৌলিক হবেনা ??

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

প্রদীপ্তময় সাহা এর ছবি

লেখার ভাষা ভাল লেগেছে।

তবে আমার মনে হয় লেখাটাকে আরেকটু বড় করে রহস্যটাকে জমানোর জন্যে আরেকটু সময় নিলে ভাল হত। আর আরেকটা কথা। দীপ্র কে বলা হয়েছে কিশোর। তাই তার কাছ থেকে এই রহস্য সমাধানের প্রত্যাশা পাঠকের থাকে না। যদি দীপ্র কোন গুরূত্বপূর্ণ ক্লু ধরিয়ে দিত আর সমাধানটা তৃতীয় কোন ব্যক্তি দ্বারা হত তবে আরেকটু বিশ্বাসযোগ্য হত। তবে এটা নিতান্তই আমার ব্যক্তিগত মত।

তবে আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ একটা রহস্যগল্প উপহার দেবার জন্যে। হাততালি

চালিয়ে যান। ভবিষ্যতে আরও অনেক ভাল ভাল গল্পের অপেক্ষায় থাকলাম। পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

বন্দনা এর ছবি

দীপ্র কিশোর বলে সমাধান করতে পারবেনা এটা মানতে পারলাম্না ভাই, তিন গোয়েন্দারা এরকম কত সমাধান করলো। চাল্লু

প্রদীপ্তময় সাহা এর ছবি

আসলে দোষটা আমারই। তিন গোয়েন্দার নাম অনেক শুনেছি। কিন্তু আমাদের এখানে খুঁজেও পাইনি। তবে এখন খুঁজে কিছু ডাউনলোড লিঙ্ক পেলাম, দেখি কাজ হয় কিনা। আসলে অভ্যস্ত নই বলেই বোধহয় খটকা লেগেছে। মন খারাপ

অরফিয়াস এর ছবি

তিন গোয়েন্দার বিশাল একটা সংগ্রহ আমার কাছে আছে, সেরকম ব্যাবস্থা হলে হয়তো আপনাকে পড়তে দেয়া যেতো হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

অরফিয়াস এর ছবি

চাল্লু চলুক

সহমত হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

অরফিয়াস এর ছবি

অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা হাসি

পরবর্তিতে ভুল-ত্রুটিগুলো শুধরে নেয়ার চেষ্টা করবো কথা দিচ্ছি হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

সাফি এর ছবি

কোন কারণে তামার তার অংশ থেকে বিদ্যুতায়িত করে মেরে ফেলার বিষয়টা মাথায় এসেছিল(যেহেতু আমি জানি যে রহস্য আছে সুতরাং স্বাভাবিক মৃত্যু হবেনা)। আমার গল্প ভাল লেগেছে, সেই সাথে সুহানের মন্তব্যও ভাল লেগেছে। গল্প অধিকাংশের ই একটা মূল মাংসপিন্ড থাকে, তাকে যে যত ভাল জামাকাপড় পরাতে পারে আর কি। এই গল্পে হয়ত আরেকটু জামা জুতো পরানো যেত, তবে সময়ে সব হবে। আরো জমজমাট গল্পের আশায় রইলাম।

বন্দনা এর ছবি

চলুক

অরফিয়াস এর ছবি

ধন্যবাদ হাসি ভালো বলেছেন, গল্পটার মাঝামাঝি জায়গায় একটু ফাঁক থেকে গেছে, শুরু থেকে শেষটা দ্রুত হয়েছে তাতে গল্পের জমাট ভাবটা আসলেই কমে গেছে, ভবিষ্যতে এই জিনিসগুলো খেয়াল রাখবো অবশ্যই। হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

আশরাফুল কবীর এর ছবি

>বেশ ভাল লেগেছে।।।।। বাঘের বাচ্চা

অরফিয়াস এর ছবি

ধন্যবাদ, হাসি আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

হুম।
অপরাধী যতো চালাকই হোক, কোথাও না কোথাও সে সূত্র ফেলে যাবেই। হাসি

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

অরফিয়াস এর ছবি

অপরাধী যতো চালাকই হোক, কোথাও না কোথাও সে সূত্র ফেলে যাবেই।

চলুক

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

তানিম এহসান এর ছবি

গল্প পড়লাম। উপরের সবগুলো মন্তব্য দেখলাম। দীপ্রনামে আমরা কি কোন চরিত্র পেতে যাচ্ছি নাকি আগামীতে? হাসি

অরফিয়াস এর ছবি

তানিম ভাই, পরীক্ষার মাঝখানে দৌড়ের উপরে গল্পটা নামালাম, মাথার ভেতরে কুটকুট করছিলো দেঁতো হাসি কেমন লাগলো তা তো বললেননা, মন খারাপ এমনিতেও খুব একটা পদের মনে হয়না হয়েছে। ম্যাঁও

চরিত্রের ভালো একটা নাম খুঁজছিলাম, শেষমেষ এই নামটাই পেলাম, যদি আগে এরকম আরো লিখি তাহলে হয়তো এই নামটাই থাকবে। হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

তানিম এহসান এর ছবি

ভালো লেগেছে, নইলে কি আর দীপ্রকে নিয়ে স্বপ্ন দেখে ফেলি! আমাদের দেশের শিশুদের জন্য একটা চরিত্র খুব দরকার, সব ডোরেমন হয়ে যাচ্ছে মন খারাপ

অরফিয়াস এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

আসলেই শিশুতোষ একটা দুর্দান্ত চরিত্র তৈরী এখন সময়ের দাবি।

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

নিলয় নন্দী এর ছবি

আসলেই শিশুতোষ একটা দুর্দান্ত চরিত্র তৈরী এখন সময়ের দাবি।

চিন্তিত

অরফিয়াস এর ছবি

বুঝতে সমস্যা ??

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

কল্যাণ এর ছবি

চলুক পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

অরফিয়াস এর ছবি

দেঁতো হাসি আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

মরুদ্যান এর ছবি

আরো জমজমাট গল্পের অপেক্ষায় রইলাম।

অরফিয়াস এর ছবি

হাসি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।