মেইড ইন বাংলাদেশ

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: রবি, ২২/০১/২০১২ - ১:১০অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

জানি না দেশের মানুষ কতটা আগ্রহি মেইড ইন বাংলাদেশ লেখা পন্যের প্রতি, কিন্তু প্রবাশে থেকে আমার নিজের খুব ভাল লাগে যখন দেশি কোন পন্য দেখি দোকানে। চেষ্টা করি কিনতে এই ভেবে যে অন্তত কিছুটা পয়সা হলেও হাতে যাবে আমার দেশের খেটে খাওয়া হাসিমুখের মানুষের হাতে।

আমার লেখার হাত খুব কাঁচা, তারপরেও অনেকদিন থেকে মনের ভেতর থাকা এই ভাবনাটি শেয়ার না করে পারলাম না। ভাবনা টা এসেছে মূলত নিচের বিজ্ঞাপন টা দেখার পর থেকে।

আমরা কি পারিনা এভাবে নিজের দেশের একটা ব্র্যান্ড লোগো তৈরি করতে? যেটি ব্যাবহার করা হবে দেশে তৈরি সব পন্যে। শুধু বিপণন নয়, দেশি পন্যের প্রতি মানুষের আগ্রহ সৃষ্টিতেও ব্র্যান্ড টাকে কাজে লাগানো যেতে পারে। আমাদের দেশের বেশিরভাগ পন্যে লেখা দেখি “export quality”, এতে করে একভাবে imported পন্যের প্রতি দূর্বলতা কেই প্রশ্রয় দেয়া হয়।

তবে আমাদের দেশে সরকারি ভাবে এই উদ্যগ নেবার সম্ভাবনা খুব কম বলে মনে করি কারন তাদের আবার চিন্তা ভাবনা করতেই বছর পার হয়ে যায়। তাই দেশে যেসব প্রতিস্থান দেশীয় পন্যের উৎপাদন এর সাথে জরিত, তারা সবাই একসাথে উদ্যোগ টি নিতে পারে।

স্বদেশি আন্দোলন এর অংশিদার এই আমরা বাংলাদেশি রা কি আরেকবার চেষ্টা করতে পারিনা আমাদের দেশি শিল্পের উন্নয়নে এগিয়ে আসতে?

বানান এর জন্যে অগ্রীম ক্ষমা প্রার্থনা রইল। আর এই ভাবনা টা কোন শিল্প উদ্যক্তার মাথায় পৌছে দেবার জন্যে রইল আকুল আবেদন।

সাব্বির

কিছু প্রাসঙ্গিক সাইট,

http://www.australianmade.com.au/logo/
http://www.austrade.gov.au/Australian-Made-logo/default.aspx
http://www.madeinbd.com/index.php


মন্তব্য

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

মন্তব্য করছি এটা জানাতে যে আপনার দেয়া শিরোনামে আমি একটা সিরিজ শুরু করবো। এটা গত কয়েক মাস আগেই চিন্তা করেছি, এবং সে মোতাবেক কাজ করছি। ভারতের সাম্প্রতিক ঘটনার সাথে আমার পরিকল্পনার কোন সম্পর্ক নেই।

আপনার লেখার জন্য ধন্যবাদ।

সাব্বির এর ছবি

অপেক্ষায় রইলাম আপনার সিরিজের।

shafi.m এর ছবি

ভাব্বার মত বিষয়, প্রস্তাব খারাপ নয়। পণ্যের ব্র্যান্ড পন্যটির অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বহন করে। চলুক

শাফি।

কল্যাণ এর ছবি

দেশী পণ্যর প্যাকেটে সবুজ রঙ্গে বাংলাদেশের পতাকা ছেপে দিলেই তো ল্যাঠা চুকে যায়।

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

ফাহিম হাসান এর ছবি

মন্তব্যটা বুঝি নাই। জোক করলেন? রিভার্স?
ব্যক্তিগতভাবে আমি যে কোন পণ্যের গায়ে পতাকা দেখতে আগ্রহী নই।

কল্যাণ এর ছবি

ফাহিম্ভাই জোক করি নাই, ছোট করে একটা পতাকা ব্যাবহার আমার সুবিধাজনক মনে হয়। দেশের জন্যে একটা নতুন লোগো তৈরি করার থেকে আমাদের চমৎকার পতাকাটা ব্যাবহার করা যেতে পারে। ইলেক্ট্রনিক পণ্যের নির্দেশাবলীতে কিন্তু ভাষা বোঝাতে পতাকাও ছাপা থাকে।

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

সাব্বির এর ছবি

শুধু পতাকা ছাপলেই ল্যাঠা চুকেনা, আর পতাকা কে আপনি ব্র্যান্ড লোগো হিসেবেই বা কিভাবে ব্যাবহার করবেন? সেটা উচিত হবেনা বলে আমিও মনে করি।

আমাদের দেশে নিজেদের উৎপাদিত পন্যের প্রতি অনেক মানুষের একটা নাক শিঁটকান ভাব দেখা যায়। সেটা বদলাতে হলে শুধু লোগো না অনেক কিছুই নতুন ভাবে শুরু করতে হবে।

কল্যাণ এর ছবি

বাংলাদেশ শব্দটা শুনলে সবুজের মাঝে লাল পতাকাটাতো আপনি চোখের সামনে চলে আসে, যদি দেশের লোগোর চিন্তা করি তাহলে এর থেকে সার্থক লোগো আর আছেকি? নাকি আপনি মনে করছেন পতাকা ব্যাবহার করলে পতাকার অপমান হবে?

আমাদের যেটা দিতে হবে সেটার নাম সেবা, যে জিনিস আমরা পাই না। তাছাড়া সাধারন মানুষ বিদেশী মাল কিনে ভাবে তার টাকাটা নিরাপদ হল। তা সেবা অথবা মানের নিশ্চয়তা কি আর শুধু নতুন ব্র্যান্ড দিয়ে হবে?

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

উচ্ছলা এর ছবি
চন্দন এর ছবি

মজার ব্যাপার হলো হাবিবুর গরু আনতে গিয়ে মার খেয়েছে। সবাই ভারতীয় সাবান শ্যাম্পু মসলা টিভি চ্যানেল এর কথা বলছে, গরুর কথা কেউ বলে না। ভারতীয় গরু না আসলে আমাদের কোরবানী ঈদ এর সময় তো কোরবানীর পশু পাওয়া যাবে না। আর সারাবছর যা গরু খাওয়া হয় তার ও বড় অংশ ভারতীয়। কাউকে কটাক্ষ করা আমার উদ্দেশ্য না, আজকের দিনে পণ্য বর্জন কতটা কাজের আর ফিসিবল সেটা ভাবার ব্যাপার আছে। সারাবছর ভারতীয় গরু খেলাম আর দু-চার টাকার জিনিস বর্জন করে মনে মনে আত্মতৃপ্তি পেলাম, এতে কোন কাজের কাজ হবে না।
মনে হচ্ছে গরুর গায়ে 'born and brought up in India' লেখা থাকলে বাংলাদেশী মুসলমানের দেশপ্রেম জাগ্রত হবে।

বাপ্পীহা‌য়াত এর ছবি

চরম আইডিয়া চলুক

বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ান মেড খাদ্যপণ্যের প্রচারনায় ডিক স্মিথ এর আন্দোলন দেখার মতন। অস্ট্রেলিয়ান মিডিয়াও ক্লান্তহীন ভাবে এটা প্রমোট করে যাচ্ছে। আমাদের দেশেও এই ধরনের আন্দোলন দরকার, শিল্পপতি এবং মিডিয়ার লোকজনদের একাত্ম হতে হবে।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।