ব্যাট্ল্ অব বাংলাদেশ

নীড় সন্ধানী এর ছবি
লিখেছেন নীড় সন্ধানী (তারিখ: বুধ, ১৬/০৫/২০১২ - ৩:১৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

দেখছিলাম Battle of Algiers। ১৯৬৬ সালের এই ছবিটা কেউ কেউ দেখেছেন হয়তো। ছবিটার সাথে আমাদের উপনিবেশ আমলের বেশ কিছু মিল আছে। কিন্তু ছবিটা দেখে আমার মাথায় একটা বাক্য খেলছিল - 'ব্যাট্ল্ অব বাংলাদেশ'। না, এই নামে কোন ছবি বাংলাদেশে নেই। কিন্তু এরকম একটা ছবি দেখার স্বপ্ন দেখছি আমি। মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে নির্মিত এন্তার ছবি দেখেও আমার তৃপ্তি মেটেনি। আলজেরিয়ার ছবিটা সেই অতৃপ্তিটা আবারো জানান দিতে শুরু করেছে। হুমায়ূন আহমেদের দেয়ালের কয়েক পাতা পড়ে সেই ইচ্ছেটা ঘোরতর যুদ্ধ ঘোষণা করেছে।

মাত্র নয় মাসে স্বাধীনতা এসেছে বলে কেউ কেউ মুক্তিযুদ্ধকে সস্তা জ্ঞান করে। তাদের কাছে রক্তের ঘনত্বের কোন আপেক্ষিক গুরুত্ব নেই। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সমস্ত পৃথিবীর সবগুলো পরাশক্তির সম্মিলিত অস্ত্রপাতেও এত রক্তের বান ডাকেনি। এমনকি মহাযুদ্ধের মারণাস্ত্রের লক্ষ্যের তালিকায় সরাসরি নিরীহ মানুষ ছিল না। কিন্তু পাকিস্তানী অস্ত্রের একমাত্র লক্ষ্যবস্তু ছিল নিরীহ মানুষ, ২৫ মার্চের অপারেশান সার্চলাইটের টার্গেট মধ্যরাতের ঘুমন্ত মানুষ। বস্তুতঃ পাকিস্তানীদের আগে একা একটা জাতির এত রক্ত ঝরানোর রেকর্ড আর কারো নেই। পাকিস্তান আগামী একশো বছর প্রায়শ্চিত্ত করলেও সেই রক্তের দেনা শোধ হবে না। ক্ষমা চাওয়া তো সেই তুলনায় নস্যি।

সেই আমাদের রক্তে ধোয়া স্বাধীনতার ইতিহাস নিয়ে পূর্নাঙ্গ কোন চলচ্চিত্র নেই!! ভাবা যায়? Battle of Algiers দেখতে বসে এ কথাটাই মনে পড়ছিল। ইতালির পরিচালক Gillo Pontecorvo ছবিটায় আলজেরিয়ার স্বাধীনতা সংগ্রামের কৃতিত্বপূর্ণ ঘটনা নিয়ে ছবিটা বানিয়েছিলেন। ছবিটা দেখে সংক্ষেপে ওদের স্বাধীনতা সংগ্রামের একটা টাইম লাইন খুঁজে পাবেন। স্বাধীনতা আন্দোলনের মুখ্য চরিত্র গুলো খুঁজে পাবেন। দ্য গলের ফরাসী সরকারকে আলজেরিয়ার মাটি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য FLN (জাতীয় মুক্তি ফ্রন্ট) নামে দলটির মুষ্টিমেয় সদস্যের সশস্ত্র আন্দোলন/আত্মত্যাগ কিভাবে গনআন্দোলনে পরিণত করে সেটা বুঝতে পারবেন। ঘটনার বিস্তার ১৯৫৪ থেকে ১৯৬২। ফ্রান্স থেকে স্বাধীনতা অর্জন করে ১৯৬২ সালে। আরো দুই যুগ আগে আমাদের সূর্যসেন-প্রীতিলতারা ঠিক এরকম কাজই করতে চেয়েছিল। স্বাধীনতা আসতে আরো দুটো ধাপ পেরোতে হলেও, প্রেরণার অনেকটা ভিত সূর্যসেনরাই গড়ে দিয়েছিল।

স্বাধীনতার জন্য আলজেরিয়া বা অন্য যে কোন দেশের তুলনায় আমাদের অনেক বেশী রক্ত ঢালতে হলেও সেটা নিয়ে এখনো একটি পূর্নাঙ্গ চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে পারিনি কেন? এই ভাবনাটা খুব পোড়ায়। মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে যেসব চলচ্চিত্র এ যাবৎ নির্মিত হয়েছে তার মধ্যে এমন কোন সিনেমা আছে যেটায় মুক্তিযুদ্ধের সমস্ত ঘটনাপ্রবাহের ধারাবাহিকতা আছে? এমন কোন ছবি আছে যাতে সবগুলো প্রধান ঘটনার বিবরণ আছে, মুক্তিযুদ্ধে সব নায়ক খলনায়কদের কথা আছে? নেই!! মুক্তিযুদ্ধের সকল প্রধান উপাদান উপস্থিত আছে সেরকম একটি কালজয়ী চলচ্চিত্রও আমাদের নেই!

অথচ ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বিভ্রান্তিকর ইতিহাস পাঠ থেকে রক্ষা করার জন্য ইতিহাসের ধারাবাহিক বিবরণী নিয়ে একটা চলচ্চিত্র থাকা জরুরী। চলচ্চিত্রটি নিয়মিত দৈর্ঘ্যের বদলে যদি তিনগুণ বেশীও হয় তবু এমন একটা চলচ্চিত্র আমাদের বানাতে হবে। যারা যুদ্ধ করেছেন, কিংবা যারা যুদ্ধের সময়ের স্মৃতি ধারণ করার মতো বয়ঃপ্রাপ্ত ছিলেন, তেমন মানুষেরা এখনো বেঁচে আছেন। আর দশ বছর পর অনেকেই থাকবেন না। তাই জরুরী ভিত্তিতে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে একটা পূর্নাঙ্গ চলচ্চিত্র নির্মাণ করার উদ্যোগ নিতে হবে। এখনই সময়।

আশার কথা দেশে শিক্ষার হার বাড়ছে, আবার আশংকার কথা- বাড়ছে জ্ঞানপাপীদের সংখ্যাও। নানা বর্নের খল ইতিহাসবিদ এদেশে সুক্ষ্ণভাবে সক্রিয়। তারা খুব সুশীলতার সাথে আমাদের ইতিহাসের মূল আবেগ অথবা পাকি নৃশংসতার চিত্রগুলো মুছে সেখানে প্রতিস্থাপন করার চেষ্টা করছে অর্ধসত্য রকমের বানোয়াট ইতিহাস। লেখনীর কৌশলে কিংবা শিল্পের সৌকর্যে ইতিহাস কোথাও কোথাও পরিণত হচ্ছে পরিহাসে।

মেহেরজান ও দেয়াল - এই দুটো জিনিসই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি দ্বারা চালিত অপ ইতিহাস বর্ণনার প্রয়াস।

গেল সপ্তাহে লেখাটি মগজে থাকা অবস্থায় ভাবা হয়েছিল সেই ছবিটি নির্মাণ উপাদানের মধ্যে ১৯৫২, ১৯৫৪, ১৯৫৮, ১৯৬২, ১৯৬৬, ১৯৬৯, ১৯৭০, ১৯৭১ এই বছরগুলোই থাকবে। কিন্তু হুমায়ূন আহমেদের দেয়ালের আগমন বার্তা দেখে মনে হচ্ছে একাত্তরের পর ১৯৭৫কেও আনতে হবে তথ্যচিত্র ভিত্তিক এই চলচ্চিত্র নির্মাণে। ইতিহাসের মহানায়কের মর্মান্তিক প্রস্থানকে সঠিক ইতিহাসের আলোতে ধারণ করা এবং স্বাধীনতা পরবর্তী খলনায়কদের চিহ্নিত করা খুব প্রয়োজন।

বাংলাদেশের ইতিহাসে নায়ক মহানায়কের চেয়ে খলনায়কেরাই বেশী সক্রিয়। নিরপেক্ষতার ভণ্ডামিতে না গিয়ে সেই সব খলনায়ককেও স্পষ্ট আলোয় চিহ্নিত করতে হবে। তা না হলে সুশীল ইতিহাস খাদকেরা খুবলে খুবলে খেয়ে ফেলবে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস। আগাছায় ভরে যাবে ইতিহাসের পাতা। আমরা তা হতে দিতে পারি না!

আমাদের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে একটি পূর্নাঙ্গ চলচ্চিত্র চাই! ইতিহাস নষ্টকীটের খাদ্য হবার আগেই!!


মন্তব্য

সৌরভ কবীর  এর ছবি

চলুক

তোফায়েল এর ছবি

প্রিয় টেকে আজ একটি লেখা প্রকাশিত হয়েছে যেখানে বিভিন্ন মানুষের মতামত নেয়া হয়েছে সেখানেই একজনের বর্ণনা

তবে জুলফিকার শাহাদাত নামের একজন বিষয়টি এভাবে ব্যাখ্যা করেছেন, "আমরা লেখকের স্বাধীনতার কথা বলি। স্বাধীনতার স্বরূপ কি এই? ইতিহাস আর উপন্যাস দুটি দু জিনিস। হুমায়ূন কোন ইতিহাস লিখতে যান নি। তিনি উপন্যাস লিখেছেন। বাজারে এ ধরনের ইতিহাস মিশ্রিত একাধিক উপন্যাস রয়েছে। 'দেয়াল' আরেকটি নতুন সংযোজন শুধু। এ মুহূর্তে হুমায়ূন আহমেদ রণেভঙ্গ দেবেন বলে আমার মনে হয় না। কারণ আমি জানি, তিনি নির্মোহ প্রজাতির মানুষ। মুখোশ ও মুখ তার এক। আমি এটাও জানি , তাঁর পিতৃহত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত কারাবন্দি সাঈদীর ছেলের বিয়েতে তিনি উপহার পাঠিয়েছেন। সম্ভবত বরযাত্রীও ছিলেন। এ ধরনের দৃঢচেতার মানুষ এসময় বিরল। যিনি নিজেও স্বীকার করেন তার নানা রাজাকার ছিলেন। এবং তার নানার মত ভাল মানুষ আর দ্বিতীয়টি তিনি দেখেননি। মানুষ উপন্যাস থেকে ইতিহাসের পাঠ নেয় না, বরং ইতিহাসের সাথে উপন্যাসের মিল খোঁজে। এ ধরনের একটি বইকে ঘিরে যদি আদালতে যেতে হয়, তাহলে আদালতেই থাকতে হবে আমাদের শত শত লেখকদের। সে বিতর্কে আমি যাচ্ছি না। আমরা যেভাবে হুমায়ুন আজাদের বা তসলিমা নাসরিনের লেখালেখির স্বাধীনতা চাই, অনুরূপ হুমায়ূন আহমেদও তার লেখার স্বাধীনতা ভোগ করুক এ দাবী জানাচ্ছি। আর হুমায়ূন আহমেদ যে তাঁর অবস্থান থেকে একটুও পিছ পা হবেন না এ বিশ্বাস আমাদের আছে। ইতোপূর্বেও তিনি তার দৃঢ মনোবলের পরিচয় রেখেছেন।"

এক কথায় হুমায়ুন আহমেদ অধিকাংশ মানুষের কাছেই এমনই এক দৃঢ়চেতা বীরপুরুষ লেখক!
হায় আমাদের বীরপুরুষ!!!

নীড় সন্ধানী এর ছবি

মানুষ উপন্যাস থেকে ইতিহাসের পাঠ নেয় না, বরং ইতিহাসের সাথে উপন্যাসের মিল খোঁজে।

মিল না পেয়ে আমরা ব্লগে ব্লগে প্রতিবাদ জারি করেছি। অন্যায়টা কোথায় দেখলেন?

ইতিহাস আশ্রয়ী উপন্যাস লিখতে যে পরিমান দায়িত্বশীল হওয়া উচিত, সত্য সন্ধানী হওয়া উচিত, আপনার বীরপুরুষ(এই উপাধিটা আপনিই প্রথম দিলেন নাকি) হুমায়ুন তা হতে পারেননি। সেই কারণেই 'দেয়াল' প্রশ্নবিদ্ধ, সেই কারণে হাইকোর্টের উপদেশ। আমরা চাই হুমায়ূন আহমেদ সুলেখনী দিয়ে ইতিহাসের প্রতি সুবিচার করবেন।

হুমায়ূন আহমেদকে দেবতাজ্ঞান করেন তেমন পাগল এদেশে নেহায়েত কম নয়। সেই পাগলদের পরবর্তী বংশধর হুমায়ূন আহমেদকে পয়গম্বর বানিয়েও ফেলতে পারে। সেই কারণে উপন্যাসে শুদ্ধ ইতিহাস থাকতে হয়।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

তোফায়েল এর ছবি

হা হা হা।
বুজতে ভুল করেছেন। অথবা বুজাতে পারিনি। বীরপুরুষ শব্দটা খোঁচা অর্থে ব্যাবহার করেছি।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

হয়তো ভুলবোঝাবুঝি। ভেবেছি আপনিও সেই দলের একজন। না হলে থাকলে দুঃখিত লইজ্জা লাগে

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অতিথি লেখক এর ছবি

উনি উপন্যাসে কাল্পনিক চরিত্র না দেখিয়ে মেজর ফারুক, কর্নেল রশীদকে জাতীয় মহান বীর হিসাবে দেখাবেন, শেখ মুজিবের হত্যার স্বপক্ষে ইনিয়ে বিনিয়ে সাফাই গাইবেন, কিন্তু সেটা ইতিহাস বিকৃতি হবেনা!! আজব!! অ্যাঁ

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আমি আপনি সচেতন থাকলে সেই বিকৃতি হতে পারবে না।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

ব্যাঙের ছাতা এর ছবি

শতভাগ সহমত লেখকের সাথে। আসলেই, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে চলচ্চিত্র তৈরি করতে হবে।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

সহমতের জন্য ধন্যবাদ ব্যাঙের ছাতা

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

স্যাম এর ছবি

চলুক চলুক

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

sajjad এর ছবি

আওয়ামিলিগের মানুষেরাই মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ছবি বানাবে আর তাদের সমর্থকেরা সেটা দেখবে আর হাত তালি দিবে। আমাদের ইতিহাসের সত্যতা নাই, কারন কোনটা সত্য সেটার নিশ্চয়তা নাই। একদল যখন তাদের মনমতো কিছু পাবেনা, সেটা তারা গ্রহন করে না, এটাই আমাদের দেশের নিয়ম।

আনোয়ার সাদাত শিমুল এর ছবি

আমাদের ইতিহাসের সত্যতা নাই, কারন কোনটা সত্য সেটার নিশ্চয়তা নাই।

বেশ বেশ! কী কারণে আপনি এমন সিদ্ধান্তে গেলেন?

সা দা চো খ এর ছবি

অ মুক্তিযুদ্ধ তাইলে আম্লিগের বাপের সম্পত্তি?
আমি যদি এখন বলি যে আপনার বাবা আসলে আপনার প্রকৃত বাবা নন, তাহলে কি ''এটা বিতর্কিত" বলি পুরো বিষয়টা এড়িয়ে যাবেন? ডিএনএ টেস্ট করে যেমন আপনি প্রমাণ করতে পারবেন যে আপনার প্রকৃত বাবা কে। ঠিক তেমনি অসংখ্য বই-পুস্তক, ডকুমেন্টারী, ভিডিও ফুটেজ, নিউজ দেখে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস কোনটা, সেটা বেড় করা সম্ভব।

আশা করি নিজেকে মানুষ প্রমাণের জন্য "আমাদের ইতিহাসের সত্যতা নাই" জাতীয় ছাগলামী পরিহার করবেন।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

চলুক

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

নীড় সন্ধানী এর ছবি

এটা পুরোনো জামাতি হতাশা। এর সাথে আমি খুব পরিচিত। আসলে ইতিহাসের ঘটনাগুলো যদি গোলাম আজমদের প্রতিকূলে না ঘটতো তাহলে সেই ইতিহাসটা আপনার ভালো লাগতো। যারা মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তি, তাদের কাছে বিজয়ের ইতিহাসটাই অস্বস্তিকর। তাই তারা সবসময় একটা নিরপেক্ষ বিকল্প অনুকুল ইতিহাস খোঁজে যার কোন অস্তিত্ব কোনকালে ছিল না।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অমি_বন্যা এর ছবি

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ভালো চলচ্চিত্র বানানোর সময় এসেছে। একটি পুরনাঙ্গ সত্য ইতিহাস ভিত্তিক চলচ্চিত্র বানানোর সময় এসেছে। দেরী করা ঠিক হবে না। লেখা খুব ভালো লাগলো।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ বন্যা। আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

সা দা চো খ এর ছবি

অবশ্যই চাই দেশের পরিচালকদের তৈরি মুভি, যেখানে মুক্তিযুদ্ধের আদ্যপান্ত বিস্তারিত থাকবে। এক মুভিতেই শেষ হবে, তার কোন কথা নেই। সিকুয়েল আকারেও হতে পারে।

তবে একটা জিনিস খুব অবাক লাগে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিদেশী কোন নামকরা চিত্রপরিচলক কি কখনোই আগ্রহ খুঁজে পায়নি। এমন একটি রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের ঘটনা, যা কিনা বিশ্বকে আর একটি বিশ্বযুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গিয়েছিল, সেটা নিয়ে কোন মুভিই তৈরি হয়নি। হয়তো বিশ্ববাসীর কাছে বাংলাদেশের এই গণহত্যা অজানা থেকে যাওয়ার এটাও একটা অন্যতম কারন।

--- সাদাচোখ

নীড় সন্ধানী এর ছবি

বিদেশীরা যখন খুঁজে পেতে যাচ্ছিল তখন আমরা ওদের কানে কানে গিয়ে বলেছি, সব মিছা কথা, তিরিশ লাখ নয় তিন হাজারও মরেনি, তেমন কিছুই ঘটেনি বাংলাদেশে। আসলে এরকম ছবি তৈরীর মতো মেধা আর তথ্য সবকিছুরই যোগান বাংলাদেশের আছে।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অতিথি লেখক এর ছবি

সুন্দর লিখেছেন

আশরাফুল কবীর বাঘের বাচ্চা

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- আশরাফুল কবির

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

কালো কাক এর ছবি

আপনার নামের পাশে বাঘের ইমোটার মাজেজা কী? সব কমেন্টেই দেখি ইয়ে, মানে...

ধুসর জলছবি এর ছবি

চমৎকার একটা পোস্ট। অন্য দেশের ভাল ভাল মুভি গুলো দেখতে যেয়ে আমি নিজে সবসময় এই কষ্টটা পাই কেন আমাদের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এরকম কিছু নেই। কিন্তু কাজটা কে করবে সেটাই প্রশ্ন। যারাই এসব নিয়ে কাজ করেন ( মানে যাদের করার ক্ষমতা আছে) অধিকাংশই দেখি বিভিন্নভাবে ইতিহাসকে বিকৃতি করছেন । বড় হওয়ার পর থেকে দেখছি আমাদের দেশে কেন যেন জ্ঞান পাপীদের সংখ্যাই বেশী, অথবা হয়ত তারাই হাইলাইট হয় বেশী,জানিনা। মন খারাপ

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনার আশংকার প্রতি সম্মতি জানিয়েও বলছি ইতিহাসের যে সত্যগুলো প্রকাশিত হয়েছে সেগুলোকে বিকৃত করার সাধ্য কারো নেই। বিএনপি আওয়ামীলীগ এই দুই দলের বাইরের শিবিরের অনেক মেধাবী নির্মাতা রয়েছে যারা চাইলেই সেরকম একটা কালজয়ী ছবি উপহার দিতে পারে।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

তানিম এহসান এর ছবি

বিএনপি আওয়ামীলীগ এই দুই দলের বাইরের শিবিরের অনেক মেধাবী নির্মাতা রয়েছে যারা চাইলেই সেরকম একটা কালজয়ী ছবি উপহার দিতে পারে।

সহমত। “শিবিরের” কথাটা বদলে দিন না ভাইয়া হাসি

চরম উদাস এর ছবি

চলুক

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

কল্যাণ এর ছবি

চলুক

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

প্রৌঢ় ভাবনা এর ছবি

আপনার চাওয়ার প্রতি সম্মান জানিয়ে বলছি, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সম্বৃদ্ধ কোন স্ক্রিপ্ট কি পাওয়া যাবে ? পাওয়া যাবে কি মুক্তিযুদ্ধের সঠিক নায়কদের ? না কি সে ইতিহাস তোষামোদকারীদের হাতেই বন্দি থাকবে ?
পাওয়া যাবে কি তেমন কোন নিরপেক্ষ সাহসী ব্যক্তি যিনি মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সম্বৃদ্ধ স্ক্রিপ্ট লিখবেন ? পাওয়া কি এমন কোন নির্মাতা যিনি সেই স্ক্রিপ্ট অনুসারে সিনেমা বানাবেন ? এ আমার নিজের কাছেই অনেক দিনের প্রশ্ন।

হিমু এর ছবি

মুক্তিযুদ্ধের পাঁচজন সঠিক নায়কের নাম যুগিয়ে এই স্ক্রিপ্টকারদের সহায়তা করুন।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

চলুক

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

নীড় সন্ধানী এর ছবি

গত চল্লিশ বছরে লিখিত বইগুলোর মধ্যে অন্তত চল্লিশটা বই পাওয়া যাবে যাতে বস্তুনিষ্ট ইতিহাস রয়েছে। ইতিহাস বইতে লিখিত সত্যমিথ্যা যাচাই করার মতো মানুষেরা এখনো বেঁচে আছে। সুতরাং সঠিক ইতিহাস নিয়ে একটি ছবি নির্মান করা কঠিন কোন কাজ হবে না। তবে নিরপেক্ষতার প্রশ্নে যদি আপনি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ আর বিপক্ষের মধ্যে ভারসাম্য রাখবে সেরকম কোন ছবি চান তবে সেটি অসম্ভব। কারণ মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ীরাই চলচ্চিত্র নির্মান করবে, ইতিহাসটা তাদের পক্ষেই থাকবে স্বাভাবিকভাবে। ওখানে নিরপেক্ষতা আশা করা দুরাশা।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

ধুসর জলছবি এর ছবি

চলুক

প্রদীপ্তময় সাহা এর ছবি

মাত্র নয় মাসে স্বাধীনতা এসেছে বলে কেউ কেউ মুক্তিযুদ্ধকে সস্তা জ্ঞান করে। তাদের কাছে রক্তের ঘনত্বের কোন আপেক্ষিক গুরুত্ব নেই।

গুরু গুরু

দারুণ বলেছেন।

আমি সর্বান্তকরণে প্রার্থনা করি যেন আপনার ইচ্ছে সফল হয়।

একটা প্রশ্ন ছিল।
হুমায়ূন আহমেদের পরিচালিত 'শ্যামল ছায়া' সিনেমাটি বিষয়ে আপনার মতামত কী?

আসলে সিনেমাটা আমার ভালই লেগেছে, জানতে চাইছি তার ফাঁকফোকর গুলো। যাতে কোন বিকৃত ইতিহাস মনের মাঝে ঘঁটি না গাড়তে পারে।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

শ্যামল ছায়া ছবিটা যুদ্ধের একটা খণ্ডাংশ। সেরকম অনেক ছবি তৈরী হয়েছে। কিন্তু ওই ছবিগুলো দেখে মুক্তিযুদ্ধের পুরো আদি অন্ত চিত্রটা ভেসে ওঠে না।

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে একটা পূর্নাঙ্গ চলচ্চিত্রের সম্ভাব্য উপাদান-

১. বাহান্নর ভাষা আন্দোলন থেকে উনসত্তরের গন অভ্যুত্থান পর্যন্ত ঘটনাবলীর সংক্ষিপ্ত বিবরণ।
২. শেখ মুজিবের ছয় দফা আন্দোলন থেকে সত্তরের নির্বাচন।
৩. একাত্তরের মার্চ মাস বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে মর্মান্তিক মাস। শুধু মার্চের ঘটনাবহুল দিনগুলির বিস্তারিত বিবরণ নিয়ে একটা পর্ব থাকতে পারে। স্বাধীনতার ঘোষনা বিষয়ক ইতিহাসটা স্পষ্ট করে প্রমাণ সহকারে উপস্থাপন করা হবে।
৪. পঁচিশে মার্চের পর থেকে শুরু হওয়া গনহত্যা, শেখ মুজিবকে গ্রেফতার, প্রবাসী সরকার গঠন ইত্যাদি।
৫. ভারতে শরনার্থী জীবনের চিত্র
৬. মুক্তিবাহিনীর গঠন, সেক্টরসমূহের জন্ম ও কর্মকান্ড।
৭. মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সুবিধাবাদী নেতাকর্মী ও ষড়যন্ত্রকারীদের কার্যক্রম
৮. মুক্তিযুদ্ধে সাধারণ মানুষের ভূমিকা
৯. জাতিসংঘ ভারত সহ পরাশক্তিসমূহের ভূমিকা
১০. ভারতের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়া এবং পাকিস্তানের আত্মসমর্পন।
১১. গেরিলাযুদ্ধের বিশেষ কয়েকটা অপারেশন

যেসব ঘটনা বা ব্যক্তিদের ভূমিকা স্পষ্ট করে দেখাতে হবে
১. শেখ মুজিবুর রহমান
২. তাজউদ্দিন ও প্রবাসী সরকার
৩. সেক্টর কমান্ডারগনের ভূমিকা
৪. বিশেষ বীরত্ব বা ভূমিকা পালনকারী রাজনৈতিক বা অরাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব
৫. রাজাকার আলবদরের পাশাপাশি খন্দকার মুশতাক সহ অপরাপর দলীয় বিশ্বাসঘাতকগন
৬. পাকি বাহিনী আর তা সহযোগীতের নৃশংসতা
৭. বুদ্ধিজীবি হত্যা
৮. বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থার ভূমিকা

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

মন মাঝি এর ছবি

হাল্কা দ্বিমত -- এত বিষয়ের সব কিছু বা অধিকাংশ হয়তো একটা বড় টেলিসিরিয়ালে আসতে পারে, কিন্তু একটা অখণ্ড সীমিত সময়ের ফিচার ফিল্মে এত কিছু ঠাসার চেষ্টা মনে হয় বাস্তবসম্মত হবে না। ফিচার ফিল্ম বা বড় পর্দার জন্য বানানো কাহিনিচিত্রের সবার আগে 'কাহিনি' হয়ে উঠার - শৈল্পিক মূল্য প্রতিষ্ঠার - দায় আছে, ইতিহাসগ্রন্থের বাঁধাধরা রেসিপি দিয়ে সেটা বানাতে গেলে 'ডকুমেন্টারি' হয়ে যাবার সম্ভাবনা থাকে - যা শেষ পর্যন্ত শিল্পবোদ্ধা, ইতিহাসবোদ্ধা, ডকুপ্রেমিক, ইতিহাসসচেতন (বা অচেতন) কাহিনিচিত্র দেখতে যাওয়া সাধারন দর্শক - কাউকেই সম্ভবত সন্তুষ্ট করবে না। এর চেয়ে বিভিন্নজন বিভিন্ন খণ্ডাংশের উপর ফোকাস করলেই কি ভাল হবে না?

****************************************

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনার পয়েন্ট যুক্তিসঙ্গত। এতগুলো বিষয় বিস্তারিত আসা সম্ভব নয় একটা ছবিতে। কিন্তু কিন্তু টেক্সট হিসেবে তথ্যগুলো সংযোজিত হতে পারে। কিছু দৃশ্য থাকবে বিস্তারিত, কিছু সংক্ষেপিত। যেরকম অনেক ঐতিহাসিক ছবিতেই থাকে। গান্ধী ছবিটার কথা স্মরণ করুন।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

প্রদীপ্তময় সাহা এর ছবি

আপনাদের দুজনের কথাই যুক্তিসংগত। আসলে এ বড় কঠিন কাজ। মানে একদিকে ইতিহাসকে পূর্ণাঙ্গ ভাবে তুলে ধরা আবার আরেকদিকে একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সিনেমাটিকে বানানো এবং শিল্পসম্মত করা। তবে অসম্ভব বলে আমি মনে করিনা।

আসলে হুমায়ূন আহমেদের সম্বন্ধে বিভিন্ন পোষ্ট পড়ে জানতে পারছি তাঁর দ্বিচারিতার কথা। কিন্তু 'শ্যামল ছায়া' সিনেমাটিতে সেরকম কিছু পাইনি। বা হয়তো আমার চোখে ধরা পড়েনি। তাই জানতে চাওয়া।

তারেক অণু এর ছবি

চলুক উত্তম জাঝা! একদিন হতেই হবে, আমাদেরই করতে হবে

নীড় সন্ধানী এর ছবি

নিশ্চয়ই বিজয়ীদের হাতেই নির্মিত হতে হবে বিজয়ের গল্প।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

মন মাঝি এর ছবি

চলুক

****************************************

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

মন মাঝি এর ছবি

-ডুপ্লি-

****************************************

নীড় সন্ধানী এর ছবি

ওক্কে!

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

দ্যা রিডার এর ছবি

চলুক

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

তানিম এহসান এর ছবি

আমরা এইরকম ছবি দেখে যাব, এটা আমি নিশ্চিত। একটা না, অনেকগুলো, নানান দৃষ্টিকোণ থেকে, আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস অসম্ভব বৈচিত্র্যপূর্ণ।

নয়মাসে স্বাধীন হয়েছি বলেই প্রতিটি দিন একেকটি মহাকাব্য, যারা সস্তা মনে করে তাদের পারিবারিক ইতিহাসে বিস্তর সমস্যা না থেকেই পারেনা।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

সেরকম মানুষের সংখ্যাবৃদ্ধিকে আশংকাজনক মনে হয় আজকাল।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

শুভাশীষ দাশ এর ছবি

বুঝলাম Battle of Algiers নাম থেকে লেখাটার শিরোনাম তৈরি হয়েছে। তবে ব্যাটল শব্দটি জাতি বনাম জাতির যুদ্ধকে সামগ্রিক চেহারা দেয় না। একাত্তরের যুদ্ধ হতাহতের সংখ্যা, ভয়াবহতা ও মেয়াদের দিক দিয়ে ওয়ার। একটু খেয়াল রাখবেন, একাত্তরের যুদ্ধকে সিভিল ওয়ার বলে চালিয়ে দেয় অনেক জ্ঞানপাপী।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

ব্যাটল আর ওয়ারের পার্থক্য স্পষ্ট। কিন্তু লেখাটা নাম নিয়ে বিস্তারিত কিছু না ভেবেই লেখা। পড়ার জন্য ধন্যবাদ। হাসি

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

হিমু এর ছবি

আপনি যা চাইছেন, সেটি একটি চলচ্চিত্রে ফুটে উঠবে না কখনোই। যদি কেউ সে পথে যায়, একেকটা বিষয় এতো অপ্রতুল সময় নিয়ে কাভার করতে হবে যে নবীন দর্শকের আগ্রহ মরে যেতে পারে। বরং মুক্তিযুদ্ধের মোড় ঘোরানো অংশগুলো নিয়ে সিনেমা হতে পারে।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

একটা সিনেমার যে দৈর্ঘ তাতে বিস্তারিত এত বিষয় আসবে না জানি। সিনেমা হয় সেরকম মোড় ঘুরানো কয়েকটা ঘটনা ঘিরেই। কিন্তু মোড় ঘুরানোর ঘটনাগুলোর ফাঁকে ফাঁকেই প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো সেঁটে দেয়া সম্ভব। সব বিষয় বিস্তারিত আসবে না। কিছু বিষয় কেবল টেক্সট দিয়েই বলে দেয়া যায়। যেমন ২৫শে মার্চের কালো রাত্রির সম্ভাবনা তৈরী করেছিল পাকিস্তান ১লা মার্চেই যখন ইয়াহিয়া ঘোষণা দিল জাতীয় পরিষদ বসছে না। ১-২৫শে মার্চ নিয়ে একটা পর্ব। ১৭ এপ্রিল মুজিব নগর সরকার শপথ নিল। সেটা নিয়ে একটা পর্ব। এভাবে ১৬ তারিখ পর্যন্ত কয়েকটা খণ্ড হতে পারে। ধারাবাহিক যুদ্ধের কাহিনীর ফাঁকে ফাঁকে বেরসিক সংবাদগুলোও আসে যেখান থেকে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী বিরোধগুলোর সূচনা। তথ্যচিত্রে কোন নায়ক বা কেন্দ্রিয় চরিত্র থাকে না, কিন্তু এটা সিনেমার কায়দায় করলে কেন্দ্রীয় চরিত্রে থাকবে শেখ মুজিব, তারপর তাজউদ্দিন এবং অন্যন্যরা। এটা কেবলই একটা আইডিয়া। কিন্তু বাস্তবে রূপ দেবার জন্য আরো প্রচুর চিন্তাভাবনা করা দরকার আছে।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

মরুদ্যান এর ছবি

Band Of Brothers এর মত একটা টেলিসিরিয়াল হলে ব্যাপারটা ভাল হবে বলে মনে হচ্ছে।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।