ঘরের মানুষের খোঁজখবর

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি
লিখেছেন ষষ্ঠ পাণ্ডব (তারিখ: শনি, ১৯/১১/২০২২ - ৪:৫৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলাদেশের ‘বাঙালী’ ভিন্ন অন্য জাতির মানুষদের ব্যাপারে একটু খোঁজ করার চেষ্টা করলাম। ২০২২ সালের জনশুমারি অনুযায়ী তাঁদের সংখ্যা ১,৬৫০,১৫৯ জন (৮২৪,৭৫১ জন পুরুষ ও ৮২৫,৪০৮ জন নারী) । বেসরকারি দাবি অনুযায়ী সংখ্যাটি ৩,০০০,০০০-এর অধিক, কিন্তু এই দাবির সপক্ষে কোন শুমারির সন্ধান পাইনি। ২০২১ সালের গেজেট অনুসারে তাঁদের জাতির সংখ্যা ৫০, যদিও সরকার ‘জাতি’ শব্দটির পরিবর্তে ‘ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী’ শব্দবন্ধটি ব্যবহার করে। আমি তাঁদেরকে ‘জাতি’ হিসাবে চিহ্নিত করাকে যৌক্তিক মনে করি এবং তাঁদেরকে ‘উপজাতি’/’জনজাতি’/’আদিবাসী’ হিসাবে চিহ্নিত করার বিপক্ষে। যেহেতু এটি আমার একান্ত ব্যক্তিগত মত, এখানে কারো একমত হবার দায় নেই।

আমি সরকারি হিসাবের বাইরেও যেসব জাতির মানুষ আছেন তাঁদের জাতির নামও উল্লেখ করলাম। সরকারি হিসাবে তাঁরা হয়তো অন্য কোন কোন জাতির অন্তর্ভুক্ত হিসাবে গণ্য হয়ে গেছেন। সে ব্যাপারে আমার অনুমিতি নোট হিসাবে দিলাম। আমি জাতির নাম, তাঁদের ভাষা, ভাষাটি কোন পরিবারের তার নাম, এবং ঐ জাতির অধিকাংশ জনের অনুসৃত ধর্মের নামের একটি তালিকা তৈরি করার চেষ্টা করেছি। ওয়েবে টেবিল বানানোর কায়দা আমার জানা নেই, তাই এস এম মাহবুব মুর্শেদের নির্দেশনা অনুসরণ করে কিছু একটা বানিয়ে তালিকাটি দিলাম। নিঃসন্দেহে এই তালিকায় অনেক ভুল তথ্য আছে, বানান ভুল আছে, এবং অনেক তথ্য নেই। তালিকাটি সংশোধন ও তাতে অনুল্লেখিত তথ্য সংযোজনে সাহায্য করার জন্য সবাইকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

জাতি বা ভাষার নামের ব্যাপারে একটি ব্যাখ্যা দেয়া প্রয়োজন বোধ করছি। কিছু জাতি আছে যারা একাধিক নামে পরিচিত, একইভাবে কিছু ভাষা আছে যেগুলো ভিন্ন ভিন্ন নামে পরিচিত। স্বাভাবিকভাবে প্রায় প্রত্যেকটি ভাষার অনেকগুলো করে ডায়ালেক্ট আছে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে সেগুলোর ভিন্ন ভিন্ন নাম আছে। সকল ক্ষেত্রে আমি কেবল প্রতিনিধিত্বমূলক একটি নাম নিয়েছি। এটি শুধুমাত্র এই লেখার সুবিধার্থে করা।

অনেক জাতির নিজস্ব ভাষা ছিল, কিন্তু এখন তাঁদের কেউ আর সেই ভাষা জানেন না, অথবা হাতেগোনা কয়েক জন অল্পস্বল্প সেটা পারেন কিন্তু তার চর্চ্চা নেই। অধিকাংশ ক্ষেত্রে তাঁদের ভাষা ‘বাংলা’ হয়ে গেছে।

বেশিরভাগ জাতির নিজস্ব ধর্মীয় বিশ্বাস ছিল। সেসবের কোন কোনটা হিন্দু/সনাতন ধর্ম বা তার কোন স্কুলের সাথে মিশে গেছে, কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে নিজেদের স্বাতন্ত্র্য বজায় রেখেছে। এর ভালো উদাহরণ হচ্ছে, মণিপুরীদের ধর্ম বিশ্বাস। আমি এই প্রকার গ্রুপকে ‘হিন্দু’ হিসাবে দেখিয়েছি। অনেক জাতির অধিকাংশ মানুষ নিজস্ব ধর্ম বিশ্বাস ছেড়ে খ্রীস্ট ধর্ম গ্রহণ করেছেন। আমি এই প্রকার গ্রুপকে ‘খ্রীস্ট ধর্মের অনুসারী’ হিসাবে দেখিয়েছি। এই ব্যাপারগুলো অতি সরলীকরণ হল, বিশেষত হিন্দু ধর্মের ব্যাপারটি। বৈবাহিক কারণে বা ব্যক্তিগত পছন্দে তাঁদের কেউ কেউ ইসলাম গ্রহণ করেছেন বটে, তবে সেটা বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা মাত্র। এসকল জাতির অনেকের ক্ষেত্রে গণহারে খ্রীস্ট ধর্ম গ্রহণের বিষয়টি ভিন্ন আলোচনার দাবি রাখে।

এই লেখায় যা কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি আছে সেসব আমার অজ্ঞতার ফল। কোন তথ্য বা বর্ণনা ইচ্ছাকৃতভাবে পরিবর্তিত বা বিকৃত করা হয়নি। আমার অজ্ঞতাজনিত ত্রুটির জন্য সকলের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করছি।

ক্রমিক ভাষা পরিবার ভাষা জাতি ধর্ম ২০২১-গেজেটে অন্তর্ভুক্তি নোট
01. অস্ট্রো-এশীয় ওয়ার-জৈন্তা ওয়ার-খাসি খ্রীস্ট না (১)
02. অস্ট্রো-এশীয় খাসি খাসি খ্রীস্ট হ্যাঁ (১)
03. অস্ট্রো-এশীয় প্নার জৈন্তা নিজস্ব না (১)
04. অস্ট্রো-এশীয় লিঙ্গাম লিঙ্গাম খ্রীস্ট না (১)
05. অস্ট্রো-এশীয় কোড়া কোড়া নিজস্ব হ্যাঁ --
06. অস্ট্রো-এশীয় কোল কোল হিন্দু হ্যাঁ --
07. অস্ট্রো-এশীয় খাড়িয়া খাড়িয়া হিন্দু হ্যাঁ --
08. অস্ট্রো-এশীয় মুন্ডারি খারওয়ার হিন্দু হ্যাঁ --
09. অস্ট্রো-এশীয় মুন্ডারি ভূমিজ হিন্দু হ্যাঁ --
10. অস্ট্রো-এশীয় মাহালী মাহালী খ্রীস্ট হ্যাঁ --
11. অস্ট্রো-এশীয় মুন্ডারি মুন্ডা খ্রীস্ট হ্যাঁ --
12. অস্ট্রো-এশীয় সাঁওতালী সাঁওতাল খ্রীস্ট হ্যাঁ --
13. অস্ট্রো-এশীয় হো হো খ্রীস্ট হ্যাঁ --
14. ইন্দো-ইউরোপীয় অহমীয়া অহমীয়া হিন্দু না (২)
15. ইন্দো-ইউরোপীয় বিহারী বিহারী ইসলাম না (২)
16. ইন্দো-ইউরোপীয় রোহিঙ্গা রোহিঙ্গা ইসলাম না (২)
17. ইন্দো-ইউরোপীয় বিষ্ণুপ্রিয়া/ ইমার ঠার বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী হিন্দু হ্যাঁ (৩)
18. ইন্দো-ইউরোপীয় রাজবংশী রাজবংশী খ্রীস্ট না (৪)
19. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা সূর্যবংশী হিন্দু না (৫)
20. ইন্দো-ইউরোপীয় কন্দফারসি কন্দ হিন্দু হ্যাঁ --
21. ইন্দো-ইউরোপীয় সাদরি গঞ্জু হিন্দু হ্যাঁ --
22. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা গড়াইত হিন্দু হ্যাঁ --
23. ইন্দো-ইউরোপীয় নেপালী গুর্খা হিন্দু হ্যাঁ --
24. ইন্দো-ইউরোপীয় চাকমা/ চাঙমা চাকমা/চাঙমা বৌদ্ধ হ্যাঁ --
25. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা ডালু হিন্দু হ্যাঁ --
26. ইন্দো-ইউরোপীয় তঞ্চ্যঙ্গা তঞ্চ্যঙ্গা বৌদ্ধ হ্যাঁ --
27. ইন্দো-ইউরোপীয় তুরি তুরি হিন্দু হ্যাঁ --
28. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা তেলী হিন্দু হ্যাঁ --
29. ইন্দো-ইউরোপীয় লালেং ঠার পাত্র হিন্দু হ্যাঁ --
30. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা বড়াইক হিন্দু হ্যাঁ --
31. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা বাগদী হিন্দু হ্যাঁ --
32. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা বানাই হিন্দু হ্যাঁ --
33. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা বেদিয়া হিন্দু হ্যাঁ --
34. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা ভীল হিন্দু হ্যাঁ --
35. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা ভূঁইমালী হিন্দু হ্যাঁ --
36. ইন্দো-ইউরোপীয় মালপাহাড়ি মালপাহাড়ি হিন্দু হ্যাঁ --
37. ইন্দো-ইউরোপীয় সাদরি মালো খ্রীস্ট হ্যাঁ --
38. ইন্দো-ইউরোপীয় কুড়মালি মাহাতো হিন্দু হ্যাঁ --
39. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা মুসহর হিন্দু হ্যাঁ --
40. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা রাজোয়ার হিন্দু হ্যাঁ --
41. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা লোহার হিন্দু হ্যাঁ --
42. ইন্দো-ইউরোপীয় লোধি শবর হিন্দু হ্যাঁ --
43. ইন্দো-ইউরোপীয় হাজঙ হাজঙ খ্রীস্ট হ্যাঁ --
44. ইন্দো-ইউরোপীয় বাংলা হুদি হিন্দু হ্যাঁ --
45. চীনা-তিব্বতী বর্মী বর্মী বৌদ্ধ না (২)
46. চীনা-তিব্বতী মৈতৈ পাঙ্গাল মণিপুরী ইসলাম হ্যাঁ (৩)
47. চীনা-তিব্বতী মৈতৈ মৈতৈ মণিপুরী হিন্দু হ্যাঁ (৩)
48. চীনা-তিব্বতী আ'তঙ কোচ খ্রীস্ট হ্যাঁ (৪)
49. চীনা-তিব্বতী কুকি কুকি খ্রীস্ট না (৬)
50. চীনা-তিব্বতী দারলং দারলং খ্রীস্ট না (৬)
51. চীনা-তিব্বতী ফালাম চিন্‌ ফালাম খ্রীস্ট না (৬)
52. চীনা-তিব্বতী শেন্দু মারা খ্রীস্ট না (৬)
53. চীনা-তিব্বতী মিজো লুসাই খ্রীস্ট হ্যাঁ (৬)
54. চীনা-তিব্বতী হাকা চিন্‌ হাকা চিন্‌ খ্রীস্ট না (৬)
55. চীনা-তিব্বতী কোচ কোচ খ্রীস্ট না (৪)
56. চীনা-তিব্বতী মান্দি/আচিক গারো/মান্দি খ্রীস্ট হ্যাঁ (৭)
57. চীনা-তিব্বতী ককবরক ত্রিপুরা হিন্দু হ্যাঁ (৮)
58. চীনা-তিব্বতী রিয়াং রিয়াং হিন্দু না (৮)
59. চীনা-তিব্বতী আসো চিন্‌ খিয়াং খ্রীস্ট হ্যাঁ --
60. চীনা-তিব্বতী খুমি চিন্‌ খুমি নিজস্ব হ্যাঁ --
61. চীনা-তিব্বতী মেগাম গারো খ্রীস্ট হ্যাঁ --
62. চীনা-তিব্বতী চাক চাক বৌদ্ধ হ্যাঁ --
63. চীনা-তিব্বতী পাঙ্খো পাঙ্খো বৌদ্ধ হ্যাঁ --
64. চীনা-তিব্বতী বম চিন্‌ বম্‌ খ্রীস্ট হ্যাঁ --
65. চীনা-তিব্বতী ডিমাসা বর্মণ হিন্দু হ্যাঁ --
66. চীনা-তিব্বতী মার্মা মার্মা বৌদ্ধ হ্যাঁ --
67. চীনা-তিব্বতী ম্রো ম্রো নিজস্ব হ্যাঁ --
68. চীনা-তিব্বতী রাখাইন রাখাইন বৌদ্ধ হ্যাঁ --
69. দ্রাবিড় কুরুখ ওঁরাও খ্রীস্ট হ্যাঁ --
70. অজ্ঞাত অজ্ঞাত পালিয়া হিন্দু না (৯)
71. অজ্ঞাত অজ্ঞাত লাওরা ইসলাম না (৯)

নোটঃ

(১) = সম্ভবতঃ খাসি জাতিতে অন্তর্ভুক্ত।
(২) = এরা মূলত বিদেশী।
(৩) = সম্ভবতঃ মণিপুরী জাতিতে অন্তর্ভুক্ত।
(৪) = সম্ভবতঃ কোচ জাতিতে অন্তর্ভুক্ত।
(৫) = অতি ক্ষুদ্র জনগোঠী। কেবলমাত্র টাঙ্গাইল জেলার মহানন্দপুর এবং দন্দোনিয়া নামে পাশাপাশি দুইটি গ্রামের বসবাস করেন।
(৬) = সম্ভবতঃ লুসাই জাতিতে অন্তর্ভুক্ত। তাঁরা অন্যত্র কুকি/চিন/মিজো নামে পরিচিত।
(৭) = সম্ভবতঃ গারো জাতিতে অন্তর্ভুক্ত।
(৮) = সম্ভবতঃ ত্রিপুরা জাতিতে অন্তর্ভুক্ত।
(৯) = যথেষ্ট তথ্য পাওয়া যায় নাই।

এই পোস্টটি পাঠকদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহের আশায় দেয়া তাই কোন বিষয়ে আলোচনা করলাম না। আশা করি যারা জানেন তাঁরা এই ব্যাপারে তথ্য দিয়ে সাহায্য করবেন। কোন তথ্যের ব্যাপারে নিশ্চিত না হলে, অর্থাৎ কেবল অনুমানের ওপর ভিত্তি করে কোন কিছু না বলার জন্য সনির্বন্ধ অনুরোধ জানাচ্ছি।


মন্তব্য

সচল জাহিদ এর ছবি

প্রয়োজনীয় একটা পোষ্ট!


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট
কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

কঠিন নমস্য একটা কাজ করেছেন। এতগুলো জাতিগোষ্ঠির অর্ধেকের নামও জানি না আমি। এদের মধ্যে কতটি টিকে আছে কে জানে? তবে এই তালিকায় আরো দুটো জাতিগোষ্ঠির নাম অন্তর্ভুক্ত করা যায় হাওলং এবং সাইলু। শেন্দুদের মতো এরাও কুকি বা লুসাই নামে পরিচিত ছিল। এরা মূলত মিজোরামের অধিবাসী। আমি জানি না এই জাতিগোষ্ঠিগুলো বর্তমানে টিকে আছে কিনা। থমাস হারবার্ট লুইনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী কুকি নামে আলাদা কোন জাতিগোষ্ঠি নেই। এটা বাঙালীদের দেয়া নাম। শেন্দু, হাওলং, সাইলু এই স্বাধীন জাতিগুলোকে সাধারণভাবে কুকি বলে ডাকা হতো। অবশ্য এই বিষয়ে আরো গবেষণা করার অবকাশ আছে।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

কাজটা খুব কঠিন না, তবে তথ্য পাওয়া কঠিন। প্রাপ্ত 'তথ্য' যাচাই-বাছাই করা আরও কঠিন। আমার প্রদত্ত তালিকার লোকজন এখনো টিকে আছেন। এর বাইরের অনেকে হারিয়ে গেছেন। তাঁদের ব্যাপারে তথ্য পাওয়া মোটামুটি অসম্ভব।

হাওলং আর সাইলুদের ব্যাপারে আমি কোন কিছু খুঁজে পাইনি। আপনার জানা থাকলে তাঁদের ভাষার নাম, অবস্থান, ধর্ম ইত্যাদি ব্যাপারে আমাদেরকে আরও জানাতে পারেন। সেক্ষেত্রে আমার খোঁজ করতে সুবিধা হবে।

লুসাই/মিজো/কুকি/চিন্‌/দারলং/ফালাম/শেন্দু/হাকা এঁদের মধ্যে কাদেরকে আলাদা জাতি হিসাবে চিহ্নিত করা যাবে সেটা অবশ্যই গবেষণার বিষয়। আজকাল বাংলাদেশে 'কুকি-চিন্‌' নামে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনও গড়ে উঠেছে।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

হাওলং আর সাইলুদের ব্যাপারে তেমন কোন তথ্য জানা নেই। পেলে জানাবো নিশ্চয়ই। আপনার দিক থেকে যদি কোন সূত্র মেলে সেটাও জানতে চাই। আমি হারবার্ট লুইনের ১৮৮৫ সালে প্রকাশিত 'ফ্লাই অন দ্য হুইল' পড়তে গিয়ে লুসাই যুদ্ধের বিবরণে এই জাতিগোষ্ঠী সম্পর্কে পড়েছিলাম। উনিশ শতকের লুসাই যুদ্ধে ওরা ছিল বৃটিশদের প্রধান প্রতিপক্ষ। আসামের কাছাড় জেলা থেকে দক্ষিণের আরাকানী সীমান্ত পর্যন্ত ওদের বিচরণ ছিল। তাদেরকে দমন করার জন্যই লুসাই যুদ্ধের আয়োজন করা হয়েছিল। লুইন প্রাথমিক পর্যায়ে তাদেরকে বর্বর জাতি হিসেবে চিহ্নিত করেও পরবর্তীকালে তাদের সাথে আপোষ হবার পর মেলামেশা করে তাঁর ধারণা পাল্টে গিয়েছিল। তিনি তাদেরকে সমগ্র পাহাড়ী জাতিগোষ্ঠির মধ্যে উন্নত সংস্কৃতির মানুষ বলে অভিমত দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে তিনি চট্টগ্রাম থেকে বদলি হয়ে চলে যান। আর কিছু জানা যায়নি। বর্তমান মিজোরামে তাদের অস্তিত্ব আছে কিনা সেটা নিশ্চিত নই। এই বিষয়ে ভারতীয় গবেষকদের কাছে তথ্য থাকার কথা। কিন্তু ওদিকে আমার সেরকম কারো সাথে জানাশোনা নেই।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

মন মাঝি এর ছবি

কিছু প্রাসঙ্গিক-অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন। আপনার জানা থাকলে এবং আমার ধন্দটা দূর করতে পারলে খুব খুশী হতামঃ

১। রাজবংশী ঠিক কারা এবং এটা কোন ভাষা? এটা কি বাংলার একটা ডায়ালেক্ট নাকি আলাদা ভাষা? রাজবংশী, রংপুরি, আসামের গোলপারিয়ার ভাষা কি এক নাকি ভিন্ন ভিন্ন? এই প্রসঙ্গে আমার বেশ খানিকটা কনফিউশান আছে, তাই জানতে চাইছিলাম। কৌতুহলটা শুরু হয়েছিল ইউটিউবে কোক স্টুডিও ইন্ডিয়ার চ্যানেলে "সুন্দরী কমলা" গানটা নিয়ে কমেন্ট সেকশনে ব্যাপক তর্ক-বিতর্ক-ঝগড়াঝাটি দেখে। গানের ডেস্ক্রিপশনে এবং অনেকে এটাকে "বাংলা" গান বলে উল্লেখ করায় তর্কের সূত্রপাত হয় কারন ব্যাপক সংখ্যক অহমীয়রা এসে প্রতিবাদ করে বলতে থাকেন এটা আসলে আসামের গোলপারিয়ার ভাষা, বাংলা না। বলাই বাহুল্য, বাঙালীরাও এই দাবী প্রত্যাখ্যান করে তর্ক করতে থাকেন। তাদের অনেকের মতে এটা মৈমনসিংহ অঞ্চলের গান। বাংলাই। আমি যতটুকু বুঝেছি, এটা অরিজিনালি বোধহয় রাজবংশী ভাষার / ডায়ালেক্টের / কমিউনিটির গান - যার সাথে বাংলার ব্যাপক মিল আছে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে, এর সাথে বাংলা, বাংলাদেশের রংপুরি ডায়ালেক্ট, অহমীয়া বা গোলপারিয়া ভাষার সাথে কি কোন সম্পর্ক আছে - এবং থাকলে কতটুকু? ইংরেজি উইকিপিডিয়াতে রাজবংশী লিখে সার্চ দিলে "Rangpuri language" শীর্ষক আর্টিকেলে রিডিরেক্ট করে। কিন্তু সেখান থেকেও আমার কাছে বিষয়টা পরিষ্কার হচ্ছে না। আপনার জানা থাকলে একটু ক্লিয়ার করতে পারবেন?
২। "সুন্দরী কমলা" আসলে কোন ভাষার / ডায়ালেক্টের গান বলে আপনার ধারণা?
৩। আপনার তালিকায় থাকা "মার্মা" শব্দটা মার্মাদের নিজেদের উচ্চারণে বোধহয় "ম্রাইমড়্যা" বা এর কাছাকাছি কিছু হবে। আমার মার্মা বন্ধু এরকমই বলেছিল - যদিও তার উচ্চারণটা আমি পুরোপুরি ধরতে পারিনি।

****************************************

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।