বৃষ্টিরেখার কাছে

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: সোম, ২৮/০২/২০১১ - ৬:৫৭পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সবুজঘরের জানালার স্বচ্ছ কাচে এসে পড়ে ফোঁটা ফোঁটা বৃষ্টি, একের পর এক। এক দুই, তিন ----তারপরে ঝরোঝরো ধারে ঝরে ওরা। হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ বৃষ্টিবিন্দু। ওরা মিশে যায় মিলে যায়, একসাথে ধারা বেয়ে নেমে যায় নিচে মাটির দিকে, সে মাটি তখন মেঘরঙের ওড়না জড়িয়েছে।

এসব দেখতে দেখতে কীজানি মনে পড়ে, পড়ে, পড়ে না। কবে কোন গতজন্মে যেন আমি চিনতাম চিলকোঠার পাশের সূর্যঘর, চিনতাম চন্দ্রঘরের দরোজার পাশে শঙ্খচক্র, জানতাম মেঝেতে অপরাজিতা আল্পনা দেওয়া। তারপরে কবে যেন ভুলে গেছি সব। ভুলে গেছি কবেকার অলীক সেই শ্রাবণজল, আশ্বিনের রোদে জলফড়িং এর ওড়াউড়ি। চলমান সুখের ভিতরে গর্ভের শিশুর মতন নীরবে গুটিয়ে থাকা অচেনা অসুখ।

সবুজঘরের নীলচে আয়না-দেয়াল, সামনে দাঁড়ালে ঘোর লাগে। ভিতরে মায়ালোকে অজস্র তুষার ঝরে অবিরাম। মায়াগাছটির পাতায় পাতায় উপহার দোলে। সোনার গোলক দোলে, রুপোলী বলয় দোলে, লাল রেশমী ফিতার ফুল দোলে, দোলে, দোলে। দোলে ছোট্টো পুতুল, তার ঘোর লাগা নীল চোখের ভিতরে দোলে আলোর কণা।

ক্লান্ত চোখ বুজে আসে, স্বপ্নের-পালকেরা উড়ে আসে, ঐ উপরে মেঘেদের ঘরে ওদের জন্ম। বৃষ্টির জলপরীরা নষ্টজন্ম আর অকালমরণের কালি ধুয়ে ধুয়ে ধুয়ে ধুয়ে স্রোতে ভাসিয়ে দেয়। পালকগুলো বন্ধ চোখের পাতায় পাতায় সুখপরশ দিতে থাকে, দিতে থাকে, দিতে থাকে। ঘুমঘরের জানালায় ও বৃষ্টি পড়ে টুপটাপ, কী যেন মনে পড়ে, পড়ে, পড়ে না ....

ক্লান্তি আমার ক্ষমা করো যদি বলি
করবে কি ক্ষমা, ধরবে কি এসে হাত?
কবে যে কোথায় হারিয়েছে ধূলিখেলা
কোন্ অমারাতে লুকিয়ে গিয়েছে চাঁদ।

এখনো অনেক পথ তো রয়েছে বাকি
দু'পায়ে এখনি এত যে ক্লান্তি কেন!
খররৌদ্রের দুপুর এখনো ঢলেনি
এখনি দু'চোখে এত ঘুম নামে কেন?

পথের গোলাপ তৃষ্ণা নিয়েছে ছিঁড়ে
নগ্ন দু'পায়ে কেবলি যে কাঁটা ফোটে,
গোড়ালি ছাপিয়ে অবুঝ রক্ত ঝরে,
বুকের পুকুরে নিঝুম দুপুর জোটে।

ক্লান্তি আমার ক্ষমা করো যদি বলি,
আসবে কি তুমি, ধরবে কি এসে হাত?
স্মৃতিবেদনার গহীন প্রহর থেকে
উদ্ধার করে ঘুচাবে কি পরমাদ?


মন্তব্য

কৌস্তুভ এর ছবি

বৃষ্টি কোথায় দিদি, কাল ভুশভুশ করে বরফ পড়েছে সারারাত। চাঁদেরও প্রশ্ন নেই, মাটিতে বরফ, আকাশে মেঘ, বাতাসে তুষার, সর্বত্র শহরের আলো প্রতিফলিত হয়ে কেবল নাগরিক জ্যোৎস্না ছড়িয়ে ছিল চারদিকে।

তুলিরেখা এর ছবি

এদিকে আমার এখানে ঝরঝর বৃষ্টি। গাছে গাছে গোলাপী ফুল ফুটতে শুরু করেছে। শীত যদি শেষ কামড় না দেয়, তাহলে বোধ হয় বসন্ত এসে গেল প্রায় যদিও গাছেরা এখনও ন্যাড়া। আপনারা তো আরো উত্তরে, সেখানে বুঝি আরো মাসখানেক কি মাসদুয়েক বাদে আসবে। এখন কীটস পড়ুন। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

কৌস্তুভ এর ছবি

আহা, বস্টনের বসন্ত! এলেই একেলা মনটা কেমন হুহু করে ওঠে... তার চেয়ে রুখাশুখা শীতই সই, জমে থাকা তুষারসারি আমার চরিত্রের মতই শুভ্র ও নির্মল... খাইছে

আপনার সেই লেখাটায় একটা রিকোয়েছ্‌ট করেছিলাম, যে গোলাম হোসেনের ওই লাইনখানার উৎস কোথায়, মনে করিয়ে দিন না?

তুলিরেখা এর ছবি

সম্ভবত সিরাজউদ্দৌল্লা নাটকে। তবে ভুলও হতে পারে, বুড়াবয়সে সব ঘুলিয়ে যায়। খাইছে
এই তো সেদিন বিদ্যাপতির গান মনে পড়লো, "মত্ত দাদুরে ভিজিছে ভাদুরে ছাতি যাওত গাঠিয়া।" দাদু মাতাল হয়ে ভিজছে ভাদ্রের বৃষ্টিতে। কেন ভিজছে? কারণ ছাতায় গিট লেগে গেছে। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

তিথীডোর এর ছবি

সুন্‍দর। হাসি

________________________________________
"আষাঢ় সজলঘন আঁধারে, ভাবে বসি দুরাশার ধেয়ানে--
আমি কেন তিথিডোরে বাঁধা রে, ফাগুনেরে মোর পাশে কে আনে"

তুলিরেখা এর ছবি

ধন্যবাদ তিথী। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

রোমেল চৌধুরী এর ছবি

খুব ভালো লাগলো তুলিরেখার বৃষ্টিরেখা বন্দনা। কাব্য পাদটিকা'টি অসাধারণ। পাঁচতারা দাগালাম।

বর্যা অজস্র ফসলসম্ভাবা মিলনের ঋতু। বৃষ্টিসঙ্গমে মাখনের মতো নরম উর্বরা হয় মাটি, সোঁদাগন্ধী হয়ে বাতাসে ছড়িয়ে দেয় বপনের আহ্বান। কৃষিপ্রধান আবহমান বাংলার কাব্যে তাই বুঝি যুগে যুগে প্রেমের রূপকে বর্ষা আবাহনের সুর বেজে উঠতে দেখি। বর্ষার মতো মাদকতার ও মিলনের আবেদন বুঝি আর কোন ঋতুতে পাইনা। এমনকি ঘোর লাগা বর্ষণের একটানা সান্দ্র সঙ্গীতের কাছে বসন্তের আবেদনও তুচ্ছ মনে হয়।

খররৌদ্রের দুপুর এখনো ঢলেনি

মাত্রাফের হলো না? হলেই বা কি? আপেলের মতো গাল টোল ছাড়া কি মানায়?

------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------
আমি এক গভীরভাবে অচল মানুষ
হয়তো এই নবীন শতাব্দীতে
নক্ষত্রের নিচে।

তুলিরেখা এর ছবি

একদম ঠিক কথা রোমেল। কালকেই আপনার নামধারী এক সেনাপতির কথা ভাবছিলাম। হাসি
গানের কথায় একমত। "এমনই বরষা ছিলো সেদিন ---" আহা ঝরঝর বৃষ্টির সাথে সেই গান শোনার আবেশ আর ভুলতে পারি না।

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

রোমেল চৌধুরী এর ছবি

বোধকরি সেই সেনাপতির কথা বলছেন পরাজয় যাঁকে মহিমান্বিত করেছে। যুদ্ধজয়ের জন্য যুগে যুগে কত সমরনায়ক স্মরণীয় ও পঠিত হয়েছেন তার ইয়ত্তা নেই। কিন্তু ভাবুন দেখি, রবার্ট ব্রুস ও ফিল্ড মার্শাল রোমেল ছাড়া আর কি কেউ আছেন, পরাজয়ের দীর্ঘ-দগ্ধতা যাদের কপালে এঁটে দিয়েছে মহিমার তাজ, যুগে যুগে তাদের গুণাবলী পঠিত হয়েছ চরিত্র গঠনে প্রেরণার পাঠ হিসেবে। তাই তো রোমেলের হার মন্টগোমারীর বিজয়কে বোধকরি ছাপিয়ে গেছে বহুদূর।

ছন্দ বিচারে চোখের চেয়ে কান বড় হাকিম। অক্ষরবৃত্ত বর্ণের সংকোচন মেনে নেয় জানি কিন্তু তবু ১৪ মাত্রার অক্ষরবৃত্তে বাঁধা আপনার যে কাব্যটি গানের মহিমায় উদ্ভাসিত সেখানে আলোচ্য চরণটি চোখের বিচারে মাপে মাপে সংকুচিত হলেও কানের বিচারে এক মাত্রায় প্রবর্ধিত। তা যাই হোক, গান হলে তো সুরকারের হাতে আরো অনেক ভেল্কি দেখাবার সুযোগ থাকে। তাই বোধকরি মাজাঘষা নিষ্প্রয়োজন। ভালো থাকবেন।

------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------
আমি এক গভীরভাবে অচল মানুষ
হয়তো এই নবীন শতাব্দীতে
নক্ষত্রের নিচে।

তুলিরেখা এর ছবি

একদম। এরউইন রোমেল। এই সেনাপতি একেবারে ভিন্ন রঙে আঁকা হয়ে গেলেন বন্ধু শত্রু সকলের কলমে তুলিতে ইতিহাসে উপকথায় আলাপে বিলাপে হাসি ও কান্নায়। বন্ধুশত্রু নির্বিশেষে সকলের শ্রদ্ধা পাওয়া তো সোজা কথা নয়!
প্রোভার্বিয়াল "উপায় নাই গোলাম হোসেন" এর কথা ভাবতে গিয়ে এনারই কথা মনে পড়ছিলো বার। প্রায় কৈশোর থেকে যুদ্ধ শিখে নিজের দেশের জন্য যিনি লড়লেন রণক্ষেত্রে রণক্ষেত্রে, শেষে এসে দেখলেন এমন লোকেরই হাতে দেশ পড়লো যে ঠিকমতো জানা যেতে যেতেই সর্বনাশের চোদ্দো আনা কমপ্লীট। সেনাপতি নিজেই প্ল্যান করলেন স্বৈরাচারীকে মারার, ভাগ্যের পরিহাসে সব ধরা পড়ে গেল। পরিবারের লোকেরা রক্ষা পাবে এই ভরসা গ্রহণ করে নিজে বিষ খেলেন সেনাপতি। সেই নাকি ব্যবস্থা হয়েছিলো। ছি ছি, বাকী নেতারাও তো সবাই মিলিটারিরই লোক, তারা গুলি করে মারার ডিসেন্সি ও দেখালো না।
বইটার শেষের দিকটা মনে পড়ে, ওনার বন্ধু তাকে বলছে, যে ব্যাটারা আসছে বিষ দিতে আসছে তাদের মেরে ফেলি তারপরে তোমাকে পালানোর পথ করে দিই। সেনাপতি নিজের রাজি হলেন না। গোলাম হোসেনের উপায় নাই, তাদের কোনোদিন উপায় থাকে না। তারা যে সেবক।

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

চলুক

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

তুলিরেখা এর ছবি

হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

নীড় সন্ধানী এর ছবি

বাহ, কি ঝুরঝুরে মিষ্টি শব্দমালা!! হাসি

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

তুলিরেখা এর ছবি

ধন্যবাদ নীড় সন্ধানী।

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

সবুজ পাহাড়ের রাজা এর ছবি

চলুক

তুলিরেখা এর ছবি

ধন্যবাদ সবুজ পাহাড়ের রাজা।

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

সুন্দর...

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

তুলিরেখা এর ছবি

ধন্যবাদ সুলতানা।

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।