তাই বলে খড়ম?

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: বুধ, ০১/০৮/২০১৮ - ১২:২৬পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

তাই বলে খড়ম মারিলি ওরে বনিতা মুষলিনী?
এইরূপ কমপ্রিহেনসিভ কমবখতপনায় অঙ্গে অঙ্গে সর্ব প্রত্যঙ্গে কুন কিছু বাদ না রাখিয়া?
আমি কানে ইয়ারফুন দিয়া শুনি ফাঁসিবাদের পদধ্বনি ভলিউম
কম করে। বিবি অদূরে শয়ান।

ঘটনা আর কিছু নয় সারাদিন পেশাদার কবির হাড়ভাংগা খাটুনি খাটিয়া যবে
বাটী ফিরে বসেছিনু আপন কবিতার চর্চাপীঠে হেলান ও হাই সহযোগে
করকমলে লয়ে বামাচারিনী বামাটির প্রস্তুতকৃত এক পেয়ালা চা
আনমনে ভাবিতেছিলুম একটি দুটি কবিতার পঙক্তি
আর মুণ্ডপাত করে করে হইতেছিলুম হয়রান যথাক্রমে রবিন ঠাকুরের কারণ সে
সব ভাব বৃটিশ আমলেই করিয়াছে হাইজেক। আর সেই ট্রামছেচা জীবনানন্দ দাশ কেবিনের চপ
খাইয়া খাইয়া বাংগালী উতলা যাহারা মরিলে পূজিবে এই আমি খেলায়েত খাঁকে। জাতিটিকেও মনে মনে মৃদু
বকাবকি করিতেছিলুম চায়ে
চুমুক দিয়া।

কিন্তু সর্বোপরি কাব্যের কাচামালের সন্ধানে ডুব দিয়াছিলুম
আপন বৈঠকখানার ইতিহাসে যেথা গত শনিবার নৃশংস পত্নী হোসনে আরার সহকর্মিনী
নাবিল খানম আসিয়া বসিয়াছিল টি শার্ট পরিধান করিয়া টলমল সরোবর হেন।
যতই সামাজিকতা রক্ষার জন্য উহার চক্ষে বহু কষ্টে চক্ষু রাখিয়া হাহাহোহো করিতে যাই ততই
হোসনে আরা আমায় অদূরে সোফা হতে রক্তচক্ষুর নীরব হান্টারে ভাগাইয়া দিতেছিল বারে বারে
কিন্তু কেন? জানি না
তবু বারে বারে আজ হৃদয়পটে ভাসিয়া উঠিতেছে নাবিলা খানমেরই বৃহৎ গোল গোল দুটি
আঁখি।

তাই অযথা সময় নষ্ট না করিয়া কাব্যাঙ্গে ভাবস্রোত সঞ্চারিত হইতেই লিখিয়া ফেলি
কবিতার পঙক্তি, "বিবি হয়ো না বিলা"
আর তৎক্ষণাৎ কুথা হতে যেন ইনক্রেডিবলসের দ্রুতগামী পুলাটির ন্যায় ছুটিয়া
আসিল হোসনে আরা, তারস্বরে করিল জিজ্ঞাসাবাদ "কি লিখ কি লিখ কি লিখ?"

যদিও করেছে প্রাণ ধুকপুক তথাপি এক হাতে প্রাণপণে খাতা উল্টাইয়া উহাকে কুনমতে ঠেকাইয়া
অপর হাতে কহিলাম হোসনে বেবি হয়ে যাউক তুমার হাতের আরেক কাপ সমুদ্র মন্থন চা
কিন্তু সে তাহার সন্দেহাকুল দৃস্টি সরাইল না আমার বদন হতে, বরং কহিল,
"তুমি এমন খাচ্চরের মত হাস কেন হাস কেন হাস কেন?"

আমি ঘাম ও হাসি উভয়ই তৃতীয় হাতে মুছিয়া কহিলাম শরীলটা আজ খুব খাড়াপ
হোসনে বিবি আমার আধাকাপ চা বাজেয়াফত করিয়া চলিয়া গেল পাকঘরে
কুনমতে হাঁপ ছাড়িয়া প্রথম লাইনটি সাইনপেন দিয়া চিরতরে অপাঠ্য বানাইয়া
চক্ষু মুদিতেই মনে হইল ছাবিলা
খাতুনের কথা। আপিসে সে আমার শিক্ষানবিশ।
বিষুদবারেই সে আসিয়াছিল একটি ভেকুয়াম-টাইট সালোয়ার পরিয়া। পেশাদার কাব্যচর্চার
স্বল্পালোক পরিবেশটি পুরাই বদলাইয়া গিয়াছিল তাতে। নিতান্ত অনিচ্ছায় চক্ষে ভাসিয়া উঠিল
ছাবিলা খাতুনের প্রশস্ত গোল গোল দুটি
চশমার পুরু কাচ।

ক্লান্ত মনে হয়ত ঘুমাইয়া পড়িয়াছিলাম বা তন্দ্রাঘোরে লিখিয়া বসিয়াছিলাম পরবর্তী
"বেবি হয়ো তুমি কানাবগি ছা বিলা"
আর হয়ত মুখে ক্ষণে ক্ষণে ফুটিয়া উঠিতেছিল মোর নিষ্পাপ মিষ্টিরিয়াজ হাসি
সব টুটিয়া ফুটিফাটা হল আচমকা শক্ত কিছুর সংঘাতে
কুনমতে চাহিয়া দেখি খড়ম হস্তে গরম হোসনে আরা এক হাতে আমার খাতাটি লইয়া অপর হাতে লিপ্ত সন্ত্রাসে।
সঙ্গে সে আমায় গালি দিল খাঁজাহাজ শানকি বলিয়া। খাঁজাহাজ শানকির মানে না
বুঝিয়াই কুনমতে চল্লিশ-পঞ্চাশটি ঘা মাত্র সহিয়া বাঁচিয়া পলাইলুম
কবিতা ও বিবিটার মায়া ত্যাজিয়া।

রাজনীতি ও ধূমপানমুক্ত আমি বুঝি নাই যে পয়লা না ধুইলে ময়লা যায় না
কিন্তু মাঝরাত্রে যখন খুব সাবধানে সর্বাঙ্গে মুভ লেপন করিয়া শুইলাম তালুটির আলু বাচাইয়া
কেন যেন মনে হল, এতদিন পরে হোসনে আরা মোরে করিল (সম্ভবত)
অপমান। কিন্তু হাইহিলের জমানায় খড়ম সে পাইল কুথা? কিনিলই বা
কেন?

=========
নামঃ খেলায়েত
পেশাঃ কবি।


মন্তব্য

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

অয়েল্কাম্ব্যাক কবি! আমি তো মনে করছিলাম সেই যে হোসনে বিবির লাত্থি খাইয়া খেলায়েত খাঁর তবিল-মবিল সব চোট খাইলো তারপর থিকা সে পেশা চেঞ্জ করছে। যাউজ্ঞা, দিরং হইলেও কবি জান-মান নিয়া ফেরত আসতে পারছে সেই হাজার শোকর। কিন্তুক এই দিকে দেখি সে ভাবে বিবির খড়মপিটা খাইলে 'অপমান' করা হয়। আরে বোকা,

মানীর মান পাহাড় সমান,
জুতা দিয়া পিটাইলেও তার হয় না অপমান।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

আবির এর ছবি

গুল্লি

মন মাঝি এর ছবি

হোসনে বিবিকে সচলায়তনে পাঠাইয়া দ্যান কবিবর। আমরা জানিতে চাই ক্যানো তিনি এ্যাতোবড় কবিকে নির্দয়ভাবে খড়মছ্যাঁচা করিয়া, রক্তাক্ত করিয়া, তাহার ভবলীলা প্রায় সাঙ্গ করিয়া, জাতিকে অদূর ভবিষ্যতেই নিশ্চিত সাহিত্যে নোবেল-প্রাপ্তি হইতে বঞ্চিত করিতে চাহেন???!!! ক্যনো? ক্যনো? ক্যনো?
তবে শুধু আপনার একতরফা পুরুষবাদী বক্তব্যে চলিবে না, হোসনে বিবির বক্তব্যও জানিতে চাই! তাহাকে বলুন অবিলম্বে সচলায়তনে তাহার ভাষ্যটিও প্রচার করিতে যাহাতে আমরা ঘটনাটি নিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ হইতে বিচার করিতে পারি।

****************************************

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

আমি তো কবেই কবি'র কাছে হোসনে বিবির মুবাইল নাম্বার চাইছিলাম দুটো সুখদুঃখের আলাপ করার জন্য। নাম্বারটা পাইলে তার বক্তব্যটা আমি শুনে আপনাদের জানাইতে পারতাম। আচ্ছা হোসনে বিবির নাম্বার বাদ দ্যান, তার সহকর্মিনী নাবিলা খানমের মুবাইল নাম্বার হইলেও চলতো। তাইলে তার কাছ থিকা কায়দা কইরা আসল খবরটা বাইর করা যাইতো।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

সুমন চৌধুরী এর ছবি
আব্দুল্লাহ এ.এম. এর ছবি

খাঁজাহাজ শানকির মানে না বুঝিয়া পলাইয়া গেলেন কোন আক্কেলে? আপনি আসলেই একটা আস্ত "খাঁজাহাজ শানকি"।

অতিথি লেখক এর ছবি

আমাদিগকে সাহিত্যের কোন যুগে ফিরিয়া নিয়া গেলেন সেইটাই ভাবিতেছি মনে মনে। (বাকপ্রবাস)

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA