আসুন যত্রতত্র পোস্টার লাগানোর বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলি

মাহবুবুল হক এর ছবি
লিখেছেন মাহবুবুল হক (তারিখ: সোম, ১১/০১/২০১০ - ১০:৪৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ছবিটি গুলিস্তান আন্ডারপাসের প্রবেশদ্বারের বাইরের দেয়াল। বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য নিয়ে দুটি চমত্কার ম্যুরাল আছে দেয়াল দুটিতে। কিন্তু বছরের প্রায় সবটা সময়ই ম্যুরাল দুটি পোস্টারে ঢাকা থাকে। ব্যতিক্রম ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দু বছর। একেবারে ঝকঝকে তকতকে ছিল তখন ম্যুরাল দুটি। তারপর সেই আগের অবস্থা। এমনকি বিজয়ের মাস ডিসেম্বরেও আলোর মুখ দেখেনি এই অনন্য শিল্পকর্ম দুটো। হয়ত একসময় মানুষ ভুলেই যাবে এখানে কি ছিল । জায়গাটা কিন্তু নগর ভবন থেকে পাঁচশ গজ দূরও হবে না ।
আপনি কি এটা সমর্থন করেন ?


মন্তব্য

ফারুক হাসান এর ছবি

ছবিটা কোনো কারণে দেখতে পাচ্ছি না।

তবে এরকম আসলেই কাম্য নয়।

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

সুন্দর একটা বিষয় তুলে ধরেছেন সেজন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। কিন্তু আপনার ছবিটা আসছেনা। ছবিটা এলে আরো ভালো হতো।

মাহবুবুল হক এর ছবি

‌‌‌‌‌ ‌‌‌‌‌‌‌দুঃখিত । দুটি দেয়ালের ছবি একসাথে দিতে গিয়ে এ বিড়ম্বনা । তাই একটাই দিলাম। রাস্তার অপর পাশের দেয়ালেরও একই অবস্থা।
--------------------------------------------------------
দেয়ালে দেয়ালে মনের খেয়ালে লিখি কথা
আমি তো বেকার পেয়েছি লেখার স্বাধীনতা

--------------------------------------------------------
দেয়ালে দেয়ালে মনের খেয়ালে/ লিখি কথা ।
আমি যে বেকার, পেয়েছি লেখার/ স্বাধীনতা ।।

শুভাশীষ দাশ এর ছবি

আপনার পোস্টটা খুবই ভাল। নগর ঢাকা আসলে পোস্টারে ঢাকা। মুক্তির উপায় কি?

মাহবুবুল হক এর ছবি

এই প্রশ্নের উত্তর যে জানে গত আটত্রিশ বছর ধরে আমরা তাকে খুঁজছি। কবে পাবো জানি না।
--------------------------------------------------------
দেয়ালে দেয়ালে মনের খেয়ালে লিখি কথা
আমি তো বেকার পেয়েছি লেখার স্বাধীনতা

--------------------------------------------------------
দেয়ালে দেয়ালে মনের খেয়ালে/ লিখি কথা ।
আমি যে বেকার, পেয়েছি লেখার/ স্বাধীনতা ।।

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

ছবি না দেখে যতটা খারাপ লাগছিল, ছবি দেখে তারচে বেশী কষ্ট পেলাম। সত্যিই অবাক হচ্ছি এগুলো দেখার কি কেউই নেই?

ওরু এর ছবি

বেশ "সুশীল" পোষ্ট !

মূলত পাঠক এর ছবি

তাও তো পোস্ট হলো, আপনার দুঃশীলতার নিদর্শন তো দেখলাম না। না কি ছুটে গিয়ে দেয়াল সাফ করে দিয়ে এসেছেন ইতিমধ্যেই?

এমন চিপটেন কাটা মন্তব্যে কোন গোপন মর্ষকামের তৃপ্তি হয়? জানার ইচ্ছা রইল।

হিমু এর ছবি
অতিথি লেখক এর ছবি

ঢাকাতে পোস্টার ও "চিকা" মারা বন্ধ করা যাবে যতদিন না পর্যন্ত এটা একটা সামাজিক আন্দোলন না হয়। কিন্তু আইন করে ঐতিহাসিক স্থাপনাতে (যেমন শহীদ মিনার, অপারেজয় বাংলা, ইতিহাস নিয়ে ম্যুরালগুলো ইত্যাদি) বন্ধ করা উচিত।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দু বছর মানুষ ভয়ে অনেক কিছু করেনি, মাঝে মাঝে মনে হয়, ভয়ও একটু আধটু দরকার।

বিষয়টা এত সাধারন হয়ে গেছে যে এটা যে অন্যায় তা অনেক সময় মনেও থাকে না। ধন্যবাদ আপনাকে...মনে পড়িয়ে দেওয়ার জন্য।

### তাসনীম ###

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- ভয় একটু আধটু দরকার না, পুরোদমেই কার্যকর করা দরকার।

সেই কবে থেকেই চেঁচিয়ে আসছি, আমাদেরকে লাইনে আনতে হলে পাছায় নির্বিশেষে বেত্রাঘাতের কোনো বিকল্প নেই। ঘুষ নিবি? ধরতে পারলে পাছায় বারি! বেজায়গা দিয়া রাস্তা পাড় হবি? কানে ধরে পাছায় বারি! কারণ ছাড়া অকারণে রাস্তায় হর্ণ মারবি? পাছায় গাবের ডালার বারি! বেজায়গায় পোস্টার লাগাবি? পাছার কাপড় তুলে ইচ্ছামতো বারি!

আরে চাংকুদের মতো বিটকেলে মানুষজন যদি লাইনে এসে যায় বেতের কাছে, আমরা সোজা না হয়ে যাবো কই?
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অতিথি লেখক এর ছবি

এই গুপ্তকথা টের পেয়েছিলেন আইয়ূব খান থেকে মঈন ইউ খান...তবে ভাই বাঙ্গালী প্রায় কুকুরের লেজের মত বক্র স্বভাবের...

সোজা হওয়া তার ধাতে নেই...উল্টো খান সাহেবরাই সোজা হয়ে গেছেন হাসি

### তাসনীম ###

মণিকা রশিদ এর ছবি

আসলেই বড় এক সমস্যা! আচ্ছা, এই নিয়ে কোনো সরকারী আইন কি রয়েছে, কেউ কি জানেন?
____________________________
শান্তিও যদি সিংহের মত গর্জায়, তাকে ডরাই।
--নরেশ গুহ

----------------------------------------------
We all have reason
for moving
I move
to keep things whole.
-Mark Strand

মুস্তাফিজ এর ছবি

আইন ছিলো (এখনও আছে সম্ভবত) প্রয়োগ দেখি নাই।

...........................
Every Picture Tells a Story

অতিথি লেখক এর ছবি

ঢাকাতে পোস্টার ও "চিকা" মারা বন্ধ করা যাবে না, যতদিন না পর্যন্ত এটা নিয়ে একটা সামাজিক আন্দোলন না হয়। কিন্তু আইন করে ঐতিহাসিক স্থাপনাতে (যেমন শহীদ মিনার, অপারেজয় বাংলা, ইতিহাস নিয়ে ম্যুরালগুলো ইত্যাদি) বন্ধ করা উচিত।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দু বছর মানুষ ভয়ে অনেক কিছু করেনি, মাঝে মাঝে মনে হয়, ভয়ও একটু আধটু দরকার।

বিষয়টা এত সাধারন হয়ে গেছে যে এটা যে অন্যায় তা অনেক সময় মনেও থাকে না। ধন্যবাদ আপনাকে...মনে পড়িয়ে দেওয়ার জন্য।

### তাসনীম ###

### আমার আগের মন্তব্যে একটা ভুল ছিল যেটা এখানে সংশোধন করেছি।

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

টায়ার্ড হয়ে গেলাম, আগে তবু ছিলো কেবল রাজনৈতিক আর সিনেমার পোস্টার। এখন পোস্টার বাড়ছে অনেক। সবচেয়ে বেশি পোস্টার গায়কদের। বাহ্ কী বাহারি...
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

মাহবুবুল হক এর ছবি

পোস্টে মন্তব্য তো অনেকেই করলেন কিন্তু উপায় কি ? ডিসিসি, পুলিশ এদের দিয়ে কিছু হবে বলে মনে হয় না। দেয়ালে যাদের পোস্টার শোভা পায় তাদেরকে পাকড়াও করতে কোন প্রমান খুঁজতে হয় না। গত তত্ত্বাবধায়ক সরকার পোস্টারের ব্যপারে একবার হার্ডলাইনে গিয়েও পরে ফিরে এসেছে। সেটা অবশ্য নির্বাচনী পোস্টার সম্পর্কিত। তপসিল ঘোষণার আগেই কিছু ছ্যাবলা নেতা শুভেচ্ছা জানিয়ে আর দোয়া চেয়ে পোস্টার ছাপালে তাদেরকে চৌদ্দ শিকের দরজাটা দেখিয়ে দিয়েছিল সরকার। কিন্তু মিথ্যা আর অন্যায়কে শিল্প বানিয়ে ফেলা এসব মানুষ কাঁচুমাচু করে বলেছিল- তাদের নামে কে বা কারা এসব পোস্টার ছাপিয়ে তাদেরকে হেনস্থা করতে চাইছে। বুঝুন ঠ্যালা ! এখন এই ধরণের কোন আইনে যদি বলা হয়, কোন নির্ধারিত জায়গায় পোস্টার লাগালে যাদের পোস্টার তাদের জরিমানা হবে। তাহলে
বাঙালির আইন ভঙ্গ করার উদ্ভাবনী ক্ষমতা টের পাওয়া যাবে।
ধুসর গোধুলি ঠাট্টা করে হলেও একটা সমাধান দিয়েছে তা হল, প্যাঁদানি। মাইরের উপর ওষুধ নাই। আসলে কিছু কিছু বিষয়ে আমাদের আইন খুবই ভদ্র গোছের। যে শহরের প্রায় অর্ধেক মানুষ জনাকীর্ণ ফুটপাত, পার্ক, রাস্তা বা আইল্যান্ডে দেয়ালে বা গাছের গোড়ায় যখন-তখন প্রাকৃতিক ক্রিয়াকর্মাদি সম্পন্ন করতে দ্বিতীয়বার ভাবে না সেখানে ম্যাজিস্ট্রেট বসিয়ে মোবাইল কোর্ট , পুলিশ, হাইকোর্ট, উকিল ইত্যাদির মহা আয়োজন করে পোস্টার লাগানো বা মূত্রত্যাগের প্রতিকার বিধান করার চেষ্টা হাস্যকর বৈ কি ।

--------------------------------------------------------
দেয়ালে দেয়ালে মনের খেয়ালে লিখি কথা
আমি তো বেকার পেয়েছি লেখার স্বাধীনতা

--------------------------------------------------------
দেয়ালে দেয়ালে মনের খেয়ালে/ লিখি কথা ।
আমি যে বেকার, পেয়েছি লেখার/ স্বাধীনতা ।।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।