আগামীকাল ১৮ই জানুয়ারী - ইন্টারনেটে হরতাল

সাফি এর ছবি
লিখেছেন সাফি (তারিখ: বুধ, ১৮/০১/২০১২ - ১১:২২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

শিরোনামটি জি এম তানিম এর ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে নেওয়া। আক্ষরিক অর্থেও আগামীকাল আমেরিকান প্রশান্ত মহাসাগরীয় সময়ে, বিভিন্ন ওয়েবসাইট সোপা (SOPA - Stop Online Piracy Act) এবং পিপা (PIPA - Protect IP Act) নামক দুটি বিল বাতিলের পক্ষে সচেতনতা বাড়ানোর উদ্দেশ্যে বন্ধ থাকবে। এই প্রতিবাদ অংশ নেওয়া বিভিন্ন সাইটের মধ্যে উইকিপিডিয়া, রেড্ডিট, ওয়ার্ডপ্রেস, জিএনইউ প্রজেক্ট, ইন্টার্নেট আর্কাইভ উল্লেখযোগ্য। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে প্রতিবাদে অংশ নেওয়া সাইটগুলো নিজেদের নিয়মিত তথ্য পরিবেশনের পরিবর্তে কালো রঙে নিজ নিজ ওয়েবসাইট ঢেকে রাখবে, সেই সাথে থাকবে সোপা বা পিপা বিষয়ক তথ্য সম্বলিত ওয়েবসাইটের লিঙ্ক। এমনকি গুগুলও তাদের ওয়েবসাইটে আগামীকাল সোপা বিরোধী লিঙ্ক প্রদর্শন করবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বর্তমানে, বিলদুটি যথাক্রমে হাউজ এবং সিনেটে পাশ হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। এখন জানা যাক, বিলদুটিতে উদ্বিগ্ন হওয়ার মত আসলে কী রয়েছে -

সোপা বা পিপা উভয় বিলেই ওয়েবসাইটসমূহকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। আমেরিকান ওয়েবসাইট এবং বিদেশী ওয়েবসাইট। আমেরিকান ওয়েবসাইট বলতে এমন সব ওয়েবসাইটকে বোঝানো হবে যাদের ডোমেইন নাম আমেরিকান যেমন .com, .org বা .us এ শেষ হয়েছে - অথবা ডোমেইন ঠিকানা যিনি রেজিস্টার করেছেন তিনি যদি আমেরিকায় থাকেন। সেই অর্থে, সচলায়তন.com আমেরিকান ওয়েবসাইট হিসেবে বিবেচিত হবে। এর অন্যথা হলে সেটি বিদেশী সাইট হিসেবে বিবেচিত হবে। কিন্তু এই সংজ্ঞার ব্যাপ্তি সুনির্দিষ্ট না হওয়ায় দেখা যাচ্ছে, একই সাইটকে দেশী বা বিদেশী উভয় হিসেবেই চিহ্নিত করা সম্ভব। উদাহরন হিসেবে বলা যায়, google.com - .com ডোমেইন বা আমেরিকায় নিবন্ধিত এমনকি আমেরিকায় সার্ভার ও অবস্থিত - এই সবকিছুর বিবেচনায় আমেরিকার ওয়েবসাইট হিসেবে সংজ্ঞায়িত হবে কিন্তু একই সাইটের সংক্ষেপিত ইউআরএল goo.gle (gle গ্রিনল্যান্ডের ডোমেইন) এর কারণে তা বিদেশী ওয়েবসাইট হিসেবে বিবেচিত হবে।

আওতাধীন ওয়েবসাইট - সকল আমেরিকান সাইট, বিদেশী সাইট যাদের উল্লেখযোগ্য সদস্য বা দর্শক আমেরিকা ভিত্তিক এবং সেই সাইটের বিরুদ্ধে গ্রহস্বত্ব আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ আছে (সোপা), বিদেশী সাইট যেখানে গ্রহস্বত্বাধিকার লঙ্ঘনে উৎসাহ দেওয়া হয় (পিপা)। আইনের সংজ্ঞার অপব্যবহার করে এই আইনে খুব সহজেই যেকোন বিদেশী সাইটকে ফেলা যাবে। উদাহরন স্বরুপ ধরে নেই সচলায়তন এর কথা। .com ডোমেইনের কারণে এটি আমেরিকান ওয়েবসাইট হিসেবে তালিকাভুক্ত হবে। সচলায়তনে নিয়মিত লেখেন জনৈক সচল আক্কাস। নিজের প্রোফাইল পেজে আক্কাস ওয়েবসাইট ঠিকানা হিসেবে দিয়ে রাখল আক্কাসেরপ্রিয়গান.কম.বিডি । আবার আক্কাসের মন্তব্যের সিগনেচারও সে আক্কাসেরপ্রিয়গান.কম.বিডি লিখে রেখেছে। সুতরাং সচলায়তনে যখনই কোন পোস্টে সে কোন মন্তব্য করে, মন্তব্যের শেষে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই আক্কাসের ওয়েবসাইটের লিঙ্ক জুড়ে যায়। যেহেতু ডোমেইন .বিডি সুতরাং আক্কাসের ওয়েবসাইটকে বিদেশী ওয়েবসাইট হিসেবে তালিকাভুক্ত করা যাবে। এদিকে আক্কাস সকাল বিকাল জাস্টিন বাইবারের গানের এমপিত্রি নিজের ওয়েবসাইটে আপলোড করে। এই খবর পেয়ে বাইবার মিয়া সোপা/পিপা আইনের আওতায় নালিশ জানালো আমেরিকার এটর্নি জেনারেলের অফিসে। তাহলে বিদেশী ওয়েবসাইট হওয়া সত্তেও আমেরিকার এটর্নি জেনারেলের অফিস থেকে আক্কাসের ওয়েবসাইট এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা তো নিতে পারবেই এমনকি সচলায়তনের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে পারবে। সচলায়তন কিভাবে দৌড়ানি খাবে তা পরের অনুচ্ছেদে জানতে পারব -

অভিযুক্ত ওয়েবসাইটের বিরুদ্ধে শাস্তি - কোন ওয়েবসাইট(আক্কাসেরপ্রিয়গান.কম.বিডি) যদি গ্রহস্বত্বাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে অভিযুক্ত হয় তাহলে এই আইনের আওতায় -

  1. সকল আমেরিকান ওয়েবসাইট এবং সার্চ ইঞ্জিন থেকে আক্কাসেরপ্রিয়গান ওয়েবসাইটের লিঙ্ক সরিয়ে ফেলতে হবে।
  2. সকল আমেরিকান বিজ্ঞাপন সংস্থার বিজ্ঞাপন আক্কাসেরপ্রিয়গান ওয়েবসাইট থেকে সরিয়ে ফেলতে হবে।
  3. সকল আমেরিকান আইএসপিকে আক্কাসেরপ্রিয়গান এর আইপি এড্রেস ব্লক করে দিতে হবে যেন আমেরিকায় বসে কেউ আক্কাসেরপ্রিয়গান ওয়েব্সাইটে ঢুকতে না পারে।

এর অন্যথা করলে সেই সাইট বা আইএসপি এর বিরুদ্ধে ব্যব্স্থা নিতে পারবে আমেরিকার এটর্নি জেনারেলের অফিস। এখন যেহেতু সচলায়তন আমেরিকান ওয়েবসাইট হিসেবে তালিকাভুক্ত, আর সচল আক্কাসের কারণে সচলায়তনের পাতায় আক্কাসেরপ্রিয়গান ওয়েবসাইটের লিঙ্ক ঝুলছে সুতরাং সচলায়তন কর্তৃপক্ষ যদি আক্কাসেরপ্রিয়গান ওয়েবসাইটের সকল লিঙ্ক অভিযোগ পাওয়া মাত্র সরিয়ে না ফেলে তাহলে তারা এই আইনের আওতায় দোষী হয়ে পড়বে।

সোপা বা পিপার পক্ষে যারা আছেন, মূলত মিডিয়া সংশ্লিষ্টরা তাদের মূল অভিযোগ ইন্টার্নেটের মাধ্যমে গ্রস্থস্বত্বাপহরণের(piracy) বিরুদ্ধে। গ্রস্থস্বত্বাপহরণ আছে এই ব্যাপারে সন্দেহ নেই কিন্তু এর প্রতিকার করতে যেয়ে যেই আইনের শরণাপন্ন হচ্ছেন তারা তাতে মাথা ব্যাথার কারণে মাথা কেটে ফেলার মত অবস্থা হতে যাচ্ছে। এই আইনের বিরুদ্ধে অন্যতম অভিযোগ হল এটি বড় বেশী অস্পষ্ট, তাই অপব্যবহারের সুযোগ উড়িয়ে দেওয়া যায়না। তাছাড়া নতুন উদ্যোক্তাদের হয়রানির পাশাপাশি এই আইনের কারণে আইনজীবি সংক্রান্ত জটিলতায় অর্থ এবং শ্রম ব্যয় করতে হবে যা কিনা নিত্য নতুন উদ্ভাবনের(innovation) ক্ষেত্রে অন্তরায় হয়ে দাঁড়াবে। আর তাছাড়া এই আইনের কারণে গ্রন্থস্বত্বাপহরণ আদৌ বন্ধ হবে এমন কোন নিশ্চয়তা কিন্তু পাওয়া যাচ্ছেনা। সব মিলিয়ে আপাতদৃষ্টিতে এটি পাশ হলে তা কালো আইন হিসেবে চিহ্নিত হবে বলেই মনে হচ্ছে। সবার জন্য উন্মুক্ত থাকার যে ধারনা নিয়ে ইনটারনেটের জন্ম হয়েছিল সোপা/পিপা নিশ্চিতভাবেই তার অন্তরায়।

তথ্যসূত্র


মন্তব্য

রিসালাত বারী এর ছবি

লেখা সুখাদ্য হইছে। শেয়ার দিলাম।

এখন আইন যদি পাশ হয়েই যায় তাহলে অবস্থা কি দাঁড়াবে বুঝতেছি না। ব্যাপক পেজগি লাগবে মনে হইতেছে। সবচেয়ে বড় ক্ষতিটা যে উইকিপিডিয়ার হবে এইটা পরিস্কার।

সাফি এর ছবি

ধন্যবাদ বন্ধু। এখানে সবচেয়ে বড় ক্ষতি আসলে হবে আমাদের, সাধারন ব্যবহারকারীদের

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি

থ্যাঙ্কু বস, লেখাটার জন্যে। আমি এই নিউজটা দেখে একটু গুতাগুতি করতেছিলাম, কাহিনী জানার জন্যে। ভাবছিলাম সচলে একটা পোস্ট দিব জাইনা শুইনা। অবশ্য এইটাও ধারণা করছিলাম যে, সচলে কেউ না কেই পোস্টাবে। ঘুম থিকা উইঠা দেখি ঠিকাছে।

আসলে সারা পৃথিবীতেই সাধারণ মানুষের মুখ বন্ধ করার জন্যে নানা ধান্দাবাজি চলতেছে। আশা করছি, মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য থেকে আরও অনেক কিছু উঠে আসবে।

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _
একজীবনের অপূর্ণ সাধ মেটাতে চাই
আরেক জীবন, চতুর্দিকের সর্বব্যাপী জীবন্ত সুখ
সবকিছুতে আমার একটা হিস্যা তো চাই

সাফি এর ছবি

ওয়েলকাম, ইভানা কেমন আছে? অনেকদিন কোন খোঁজ নাই মন খারাপ

নীচে দ্রোহী এর মন্তব্যগুলো দেখবেন আশা করি।

শেফাদ এর ছবি

বিষয়টা নিয়ে সুন্দর করে গুছিয়ে লেখার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

সাফি এর ছবি

হাসি আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

Joy Imran এর ছবি

valo laglo.....................

সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

গ্রন্থস্বত্ত্ব, মেধাস্বত্ত্ব ইত্যাদির ধুঁয়া তুলে তথ্য, জ্ঞান ও মতামতের অবাধ প্রবাহ বন্ধের সকল প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে নিজের অবস্থানের কথা ব্যক্ত করছি।

আইনের মারপ্যাঁচ দিয়ে কিছু কিছু বিষয় সাময়িক ভাবে আটকানো যাবে হয়তো, কিন্তু প্রতি মুহূর্তে আবিষ্কার হওয়া নিত্যনতুন প্রযুক্তির কল্যাণে যত নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হচ্ছে, যত নতুন পথ খুলে যাচ্ছে সেগুলোকে রোধ করার ক্ষমতা আইনের কোন দিনই হবে না। কর্পোরেটদের স্বার্থ সংরক্ষণকারী এস্টাবলিশমেন্টের সকল প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে মুক্তচিন্তা, মুক্তমত, মুক্তজ্ঞান, মুক্ততথ্যের জয় হবেই।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

সাফি এর ছবি

মুক্তচিন্তা, মুক্তমত, মুক্তজ্ঞান, মুক্ততথ্যের জয় হবেই

চলুক

সবজান্তা এর ছবি

সোপা-পিপা পাশ হয়ে গেলে আমার ধারণা সবচে বড় গেমটা খেলবেন দ্য কাগু 'মোস্তফা জব্বার'।

উনি তারপর ঘ্যানঘ্যান শুরু করবেন, বাংলাদেশেও সোপাপিপা দরকার। এবং বাংলাদেশের সোপাপিপাতে আর কিছু থাকুক বা না থাকুক, সচলায়তনসহ যেসব বাংলা ব্লগ উনাকে নিয়মিত োন্দানির উপর রাখে তাদের সাইজ করার কোন উপায় থাকবে।

কাজেই এইটাকে শুধু আমেরিকার আইন ভেবে অগ্রাহ্য করার উপায় নাই।

লেখা ভালো লাগসে শাফি ভাই। দরকারি লেখা, প্রাঞ্জল- একদম রাজকুমার স্টাইল চোখ টিপি

সাফি এর ছবি

আমাদের ১৩ ব্লগীয় ব্লগ নিয়ন্ত্রণ আইন নিয়ে যে লাফঝাপ দিচ্ছিলো ঐটাও বাড়বে। আর ইন্টারনেটের একটা বড় অংশ আমেরিকা ভিত্তিক। সার্ভার হোস্টিং থেকে শুরু করে উদ্যোক্তাদের অবস্থান সব কিছুই। সুতরাং ক্ষতি আসলে সবারই হবে।

একদম রাজকুমার স্টাইল

দেঁতো হাসি

ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

চলুক

সোপা পিপার বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় অভিযোগ হলো এটা দৃশ্যত মুক্তমতে এবং হুইস্ল-ব্লোয়ারদের ও বিভিন্ন মানবাধিকার কর্মীদের কর্মকাণ্ডে বাঁধার সৃষ্টি করবে। যেমন অনেক মানবাধিকার কর্মী বেনামী নেটওয়ার্কে কাজ করে থাকেন। এখন এইসব বেনামী নেটওয়ার্কে প্রবেশ বন্ধ করে রাখার সুযোগ আছে কেবল এই সন্দেহে যে ওগুলো কপিরাইট সম্বলিত ফাইল আদান প্রদান করছে। ব্যাপারটা অনেকটা উইকিলিক্সের বিরুদ্ধে যা ঘটেছে, সেরকম। তবে এবার ঘটবে হলিউডের ব্যবসার নামে। আর একটা অপকর্মের জন্যে পুরো ওয়েবসাইটে প্রবেশ বন্ধ করে দেয়াটাও অনেকের কাছে অন্যায় মনে হয়েছে।

কাছাকাছি ধরনের অভিযোগ হলো, এটা সরকারের সেন্সরশিপের ও খবরদারির ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে। যুক্তরাষ্ট্রের বাইরের কর্তৃত্ববাদী ও স্বৈরাচারী সরকারসমুহ যারা ইতোমধ্যেই ইন্টারনেটে খবরদারি করছে, তাদের উৎসাহে ঘি ঢালা হবে। নতুন নতুন বিভিন্ন রাষ্ট্র ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রণে উৎসাহী হয়ে উঠবে।

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রবাদী নখর বেরিয়ে পড়ছে। যখন তারা বছরের পর বছর নিজের দেশের মানুষের মুক্তির নামে বহির্দেশে যুদ্ধবিগ্রহ করেছে, তখন যুক্তরাষ্ট্রীরা মাথা ঘামায় নি এই ভেবে যে তারা তো নিরাপদ আছে, তাদের অধিকার, ফার্স্ট অ্যামেন্ডমেন্ট তো সমুন্নত আছে। কিন্তু ফার্স্ট অ্যামেন্ডমেন্টে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কামড় পড়ছে ধীরে ধীরে চারপাশ থেকে। তাদের রাষ্ট্র এখন নিজের দেশের মানুষের নজরদারি আর খবরদারিতে উত্তরোত্তর আগ্রহী। একটা যুদ্ধবাজ রাষ্ট্রের কাছ থেকে অবশ্য সেটাই আশা করা যায়। যুক্তরাষ্ট্রীদের বোধদয় হোক।

শিবলী এর ছবি

চলুক

সাফি এর ছবি

দারুন মন্তব্যের জন্য ধনেপাতা।

নিজের গায়ে না লাগলে আসলে এদের ঘুম ভাঙ্গতোনা। তবে যুক্তরাষ্ট্রের অনেক সাধারন মানুষই দেখেছি বেশ গালিবল। এরা এখনও বিশ্বাস করে ইরাকে হামলা না করলে উল্টা তাদের উপরেই হামলা হত।

সাম্য এর ছবি

এই আইন উইকি, গুগল - এদের স্বাভাবিক কাজকর্মে প্রভাব ফেললে সর্বনাশ। আমার তো মনে হয় অক্সিজেন আর পানির পর এদের প্রয়োজনীয়তা প্রতিদিন সবচেয়ে বেশি হয়!

আর, নামটা জাস্টিন 'বীবার' হবে।

সাফি এর ছবি

আর, নামটা জাস্টিন 'বীবার' হবে।

শুদ্ধ করে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। হাসি

রাগিব এর ছবি

বাংলা উইকিপিডিয়া এই ধর্মঘটের আওতায় না থাকলেও সবার সম্মতিক্রমে আমরা এই ধর্মঘটের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেছি। তাই আজকের জন্য বাংলা উইকিপিডিয়াতেও কালো ব্যাজ থাকবে এবং এই দুই কালাকানুনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদনামা দেয়া থাকবে।

----------------
গণক মিস্তিরি
জাদুনগর, আম্রিকা
ওয়েবসাইট | শিক্ষক.কম | যন্ত্রগণক.কম

সাফি এর ছবি

চলুক

আশালতা এর ছবি

বলেন কি। এ তো রীতিমত উদ্বেগের বিষয়।

----------------
স্বপ্ন হোক শক্তি

সাফি এর ছবি

হু

প্রৌঢ় ভাবনা এর ছবি

ধন্যবাদ, আপনার লেখাটি পড়ে বিষয়টি বিশদে জানলাম।

সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

শাব্দিক এর ছবি

চলুক

প্রদীপ্তময় সাহা এর ছবি

এত সহজ সরল ভাবে বিষয়টাকে উপস্থাপিত করার জন্যে অসংখ্য ধন্যবাদ । খুবই প্রয়োজনীয় একটি পোষ্ট ।

কপিরাইট যাতে লঙ্ঘন না হয় সেটা দেখা অবশ্যই জরুরী । কিন্তু এই আইন তো ইন্টারনেটের মূল ধারণাকেই আঘাত করছে । কপিরাইট এর অজুহাতে যদি গনতান্ত্রিক স্বাধীনতাবোধকে গলা টিপে মারা হয় তবে তার তীব্র প্রতিবাদ একান্ত কাম্য ।

অনুপম ত্রিবেদি এর ছবি

ইন্টারনেটকে কোনো আইন দিয়ে কি এর সীমানা নির্ধারন করা যাবে ? দেশে-বিদেশে এইসব কালো আইন নিয়ে ইদানিং নাচানাচিটা খুব বেশীই চোখে পড়ছে।

পোস্ট ব্যাপক ভালো লেগেছে। অবশ্যই শেয়ারে ...

==========================================================
ফ্লিকারফেসবুক500 PX

সাফি এর ছবি

ইন্টারনেটকে কোনো আইন দিয়ে কি এর সীমানা নির্ধারন করা যাবে

আসল কথা এইটাই। আইন আমেরিকার জন্য হলেও দেখা যাবে তার ভুক্তভোগী আমরা সবাই হবো।

তাপস শর্মা এর ছবি

এইরকম পাকনামি একমাত্র আমেরিকার দ্বারাই সম্ভব। যদিও ওরা সবার দাদা, তাই ওরা যা করে তাই আইন হয়ে যায়। শালাদের এই পাকনামির চোটে এখন দেখছি উইকির সবচেয়ে বারোটা বাজবে। ভয়ানক কালো আইন একটা!!!!

লেখাটি এভাবে সহজ করে উপস্থাপন করার জন্য লেখককে ধন্যবাদ।

সাফি এর ছবি

হাসি

দ্রোহী এর ছবি

SOPA ও PIPA বিষয়ে চোথা হিসাবে রেডিটের অ্যাডমিন জেসন হারভির লেখা এই ব্লগটা পড়া যেতে পারে।

SOPA বাস্তবায়নের পক্ষে রয়েছে মূলত হলিউডি সিনেমা নির্মাতারা, গান বাজারজাতকারীরা, সফটঅয়্যার ও গেমস প্রস্তুতকারীরা

SOPA বাস্তবায়নের বিপক্ষে প্রতিবাদী কোম্পানিগুলোর মধ্যে গুগল, মাইক্রোসফট, মজিলা, ইয়াহু, ফেসবুক, উইকিপিডিয়া, এওএল, ই-বে, রেডিট, পে-প্যাল ইত্যাদি বড় বড় কোম্পানি।

আপাতদৃষ্টিতে SOPA কপিরাইট সংরক্ষণের জন্য জরুরী উদ্যোগ বলে মনে হলেও SOPA-র আইনকানুনের ফাঁক অনেক বেশি। যেমন ধরা যাক মার্টিন লুথার কিংয়ের "আই হ্যাভ আ ড্রিম" বক্তৃতাটি আপনি ইউটিউবে যতোবার দেখবেন ততোবার আপনাকে ১০ ডলার করে পরিশোধ করতে হবে। অন্যথায় আপনার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ থেকে যাচ্ছে কপিরাইট আইনে। আপনি যদি ভাবেন আমি তো বাংলাদেশে বসে আছি, আমেরিকা আমার কী করতে পারবে? সোপা বাস্তবায়িত হলে আমেরিকা-বাংলাদেশ বলে কোন কথা থাকবে না। SOPA-র আইনের মাধ্যমে আমেরিকান কর্তৃপক্ষ চাইলেই আপনাকে বাংলাদেশ থেকে ধরে নিয়ে গিয়ে আমেরিকার আদালতে বিচারের মুখোমুখি করাতে পারে।

টিভি শ্যাকের মালিক ২৩ বছর বয়সী ব্রিটিশ ছাত্রকে ইংল্যান্ড থেকে ধরে নিয়ে গিয়ে নিউ ইয়র্কের আদালতে বিচারের তোড়জোর চলছে। টিভি শ্যাক সাইটটিতে বিভিন্ন জায়গায় আপলোডিত টিভি প্রোগ্রামগুলোর লিংক লিস্ট আকারে এক জায়গায় করে রাখা থাকে। অর্থাৎ, টিভি শ্যাক সরাসরি কপিরাইটেড জিনিসপত্র বিতরণের কাজে নিয়োজিত না থাকলেও যেহেতু কপিরাইটেড কনটেন্টের লিংক ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে সেহেতু তাদের ও বিচারের আওতায় আনা হচ্ছে।

SOPA বাস্তবায়িত হলে "ইউজার জেনারেটেড কনটেন্টের" মৃত্যু ঘটবে। আপনি একটা ঘরোয়া জন্মদিনের ভিডিও ইউটিউবে আপলোড করলেন, সে ভিডিওতে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক হিসাবে কোন গান ব্যবহার করলেন। সেই গানের উৎপাদন ও বিতরণের দায়িত্বে থাকা কোম্পানি চাইলেই আপনাকে বিচারের মুখোমুখি করে জেলের ভাত খাওয়াতে পারবে।

তাই অনেকেই মনে করেন SOPA ও PIPA-র বাস্তবায়নের মাধ্যমে ইন্টারনেটের মৃত্যু ঘটবে। তবে আশার কথা হচ্ছে SOPAকে খুদাপেজ জানানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। SOPA-র মৃত্যু ঘটছে। তবে অনেকেই আবার ভয় পাচ্ছে PIPA-র মাধ্যমে SOPA বাস্তবায়িত হয়ে যেতে পারে কেননা SOPA আর PIPA মূলত দুটো ভিন্ন বোতলে প্রায় একই মদ।

চিলতে রোদ এর ছবি

চলুক

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

হাততালি
এসব মিলিয়ে একটা বড় ব্লগ লেখা দেন ভাই! পিলিজ!

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

ধুসর গোধূলি এর ছবি

যেটা বুঝলাম, এই সোফা-পিপা বাস্তবায়িত হলে মিলেনিয়াম-পূর্ব ইন্টারনেট যুগে পদার্পণ করবো আমরা। পার্থক্য হলো, তখন এইসব ইউটিউব, ইস্নিপ্স, এইচডি-বিবি নামের জবর জং সাইট ছিলো না। এখন থাকবে কিন্তু ইউজার থাকবে না।

সেদিন দেখলাম, ৬৫ ইউরোতে সনি'র একটা ব্লু'রে প্লেয়ার দিচ্ছে। এই সোপা মায় পিপা জিনিস এফেক্টিভ হয়ে গেলে কি এই দামে ঐ জিনিস পাওয়া যাবে?

সাফি এর ছবি

জেসন হার্ভির লেখা থেকেই তো লিখসি, সূত্রে প্রথমেই ওই লিঙ্ক দেওয়া দেখেন। বস আপনের কমেন্টে উত্তম জাঝা। পোস্টের চেয়ে কমেন্টের কোয়ালিটি উত্তম গুরু গুরু

দ্রোহী এর ছবি

উইকিপিডিয়া ব্ল্যাকআউট:

রেডিট ব্ল্যাকআউট:

সাফি এর ছবি

উইকির ডিজাইন ভাল্লাগসে।

দ্রোহী এর ছবি

SOPA সম্পর্কে সংক্ষেপে জানার জন্য এই অ্যানিমেশনটা বড়ই কাজের।

মজার ব্যাপার হচ্ছে এই এনিমেশনটা বিনা অনুমতিতে এমবেড করার দায়ে আমি SOPA - PIPA আইনে ফেঁসে যেতে পারি। সেইসাথে সচলায়তনের আইপি ব্লক করে দেবার আদেশ আসতে পারে এটর্নি জেনারেলের দপ্তর থেকে। দেঁতো হাসি

সাফি এর ছবি

ওটমিল ফাডায়ালাইছে।

রাতঃস্মরণীয় এর ছবি

লেখককে ধন্যবাদ। জঘন্য কালাকানুনের চালে আটকা পড়ছে মুক্ত তথ্যপ্রবাহ। নিন্দা জানিয়ে গেলাম।

------------------------------------------------
প্রেমিক তুমি হবা?
(আগে) চিনতে শেখো কোনটা গাঁদা, কোনটা রক্তজবা।
(আর) ঠিক করে নাও চুম্বন না দ্রোহের কথা কবা।
তুমি প্রেমিক তবেই হবা।

সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

উচ্ছলা এর ছবি

চলুক

আন্তরিক ধন্যবাদ বিষয়টি নিয়ে কথা বলবার জন্য।

সাফি এর ছবি

হাসি

চরম উদাস এর ছবি

চলুক
হরতালে যোগ দিলাম

সাফি এর ছবি

কেমনে? ইন্টার্নেট ব্যবহার করেন নাই?

সাফি এর ছবি

চলুক

সত্যপীর এর ছবি

উইকি নাই বিরাট বিপদে আসি। সোপা পিপার গুষ্টি কিলিয়ে সব আগের মত হউক।

সাইন করসি মুর্শেদ ভাই, দোজাহানের নেকি হাছিল কমপ্লিট।

..................................................................
#Banshibir.

সাফি এর ছবি

উইকি বন্ধ থাকলে আইকিউ কমে যায়, প্রমাণিত সত্য।

সত্যপীর এর ছবি

খাঁটি কথা।

..................................................................
#Banshibir.

তারেক অণু এর ছবি
সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

কল্যাণ এর ছবি

রেগে টং জাতি ভাষা বর্ণ নির্বিশেষে ছাগলে ভরা পৃথিবী

খুব দরকারি লেখা চলুক

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

সাফি এর ছবি

দেঁতো হাসি

ফাইয়াজ জামাল এর ছবি

আমার মতে এই আইনের খারাপ দিক হলো কোনো সাইটের বিরুদ্ধে কপিরাইট লঙ্ঘনের অভিযোগ থাকাই ওই সাইটকে ব্লক করার জন্য যথেষ্ট, সেই অভিযোগ প্রমানের প্রয়োজন নেই। আই এস পি গুলো স্বভাবতই ঝুকি এড়ানোর জন্য প্রথম সুযোগেই অভিযুক্ত সাইট ব্লক করবে, বিশেষ করে যদি সাইটগুলো বিদেশী এবং অজানা মালিকের হয়। বড় কোম্পানি গুলোর পক্ষে আইনি লড়াই করে নিজেদের সাইটকে হয়ত ব্লকের হাত হতে বাচানো সম্ভব, কিন্তু চুনোপুঁটি কোম্পানি গুলো এই আইনের আওতায় ধ্বংস হবে।

মনে হচ্ছে কপিরাইটের সংজ্ঞা যুগোপযোগী করা জরুরি হয়ে দাড়িয়েছে। হলিউডের এমনিতেই কথায় কথায় নতুন উদ্ভাবনের বিরোধিতার ইতিহাস রয়েছে, ৩০ এর দশকে রেডিও, ৫০ এর দশকে টিভি, ৭০ এর দশকে ভি সি আর, ৯০ এর দশকে ডি ভি আর, লিস্ট বেড়েই চলেছে। যদিও এ সব উদ্ভাবনে আখেরে হলিউডের লাভের পরিমাণই বেশি, তা অনুধাবন করার মত লং টার্ম ভিশন হলিউড কর্মরত নির্বাহীদের মধ্যে বিরল। এদের মূল চিন্তা থাকে নগদ লাভ। তথ্য প্রযুক্তির সাম্প্রতিক উত্কর্ষ বিবেচনায় এনে একটি ব্যালেন্সড আইন করা জরুরি যাতে কর্পোরেট ক্ষুদ্রতা প্রাযুক্তিক অগ্রযাত্রার পথে বাঁধা না হয়ে দাড়াতে পারে।

সাফি এর ছবি

চলুক

জিজ্ঞাসু এর ছবি

গুগলের লিংকে গিয়ে ভোট দিলাম।
কপিরাইটের দোহাই দিয়ে মানুষের জন্য উন্মুক্ত তথ্যের বিশ্বকে আক্রমণ করে বসল যুক্তরাষ্ট্র। এর বিরুদ্ধে সোচ্চার না হলে বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশের ক্ষতি হবে সবচেয়ে বেশি। আমরা প্রথম যখন কম্পিউটার ব্যবহার করেছি সেখানে উইনন্ডোজ, ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর জাতীয় দামী প্রগ্রাম বিনামূল্যে ব্যবহার করেছি পাইরেসির কল্যাণে। তা না হলে তখন এসব সফটওয়ার কিনে বাসায় ব্যবহার বা প্র্যাকটিস করা সম্ভব হত না। কারণ বিশ্ববিদ্যালয় তখন চড়ামূল্যে এসব কপিরাইটেড সফট্‌ওয়ার কিনেছিল বলে জানি। তথ্যের জগত অবাধ না হলে বিচরণ করা কঠিন। হাত পা বেঁধে পানিতে ফেলে দেয়ার মত ব্যাপার।
চাই তথ্যের অবাধ প্রবাহ। কিছু অতি মুনাফালোভী কর্পোরেশনের আবদারে মানবাধিকার বিরোধী এই বিল দু'টি পাশ হলে মানব সভ্যতা আবার অন্ধকারের পথে পা বাড়াবে।

___________________
সহজ কথা যায়না বলা সহজে

সাফি এর ছবি

তথ্যের মুক্ত অবাধ প্রবাহের কথা বলে এইসব সফটওয়্যার বিনামূল্যে ব্যবহার করার কোন যুক্তি দেখিনা। সব সফটওয়্যারেরই মোটামুটি ভাল মুক্ত সোর্স বিকল্প আছে। সেটা ব্যবহার করাটাই শ্রেয়।

মাসুম এর ছবি

কি মুশকিল, এখন দেখি ইচ্ছামত লিংকও শেয়ার করা যাবে না! আর ইচ্ছামত লিংক শেয়ার করতে না পারলে তো ইন্টারনেট ব্যবহারের মজাই কমে যাবে !

সাফি এর ছবি

চিন্তা করে দেখেন ফেসবুকে লিঙ্ক শেয়ার করলেন এর জন্য ফেসবুক বন্ধ করে দেওয়া লাগবে।

shafi.m এর ছবি

চলুক

শাফি।

সাফি এর ছবি

আপনি দেখি আমার মিতা!

সাফি

স্বপ্নহারা এর ছবি

ধন্যবাদ সাফি! এক্কেরে ফকফকা করে বুঝিয়ে দেয়ার জন্য হাসি

-------------------------------------------------------------
জীবন অর্থহীন, শোন হে অর্বাচীন...

সাফি এর ছবি

থ্যাঙ্কু বস

নীড় সন্ধানী এর ছবি

গুগলের পিটিশানে সাইন করে আসলাম। যারা এই পোষ্টে আসছেন, একটু কষ্ট করে পিটিশানের জন্য আধ মিনিট ব্যয় করুন এবং জোরালো কন্ঠে বলুন- End Piracy, Not Liberty!!!

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

সাফি এর ছবি

গুগুলের পিটিশনে জিপ কোড দিতে হয়। আমার এলাকার জিপ কোড 87106 অথবা আপনারা ইন্টার্নেট থেকে আমেরিকার যেকোন প্রতিষ্ঠানের ঠিকানায় গেলে, সেখানে তাদের জিপ কোড পাবেন।

দ্রোহী এর ছবি

SOPA ও PIPA নিয়ে খান একাডেমির ভিডিও:

ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

অসামাধারণ!

সাফি এর ছবি

এই ভিড্যুর খোঁজ আগে পাইলেই তো কষ্ট কইরা লেখা লাগতোনা দেঁতো হাসি

সচল জাহিদ এর ছবি

চলুক


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

অনেক সহজে গোছানো লেখা সাফি ভাই, শেয়ার টেয়ার করেছি কালকেই।
এইটা দেখলাম ইন্টারনেটে -

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

সাফি এর ছবি

গোস্ট ইন দ্যা মাস্টার্ড - এইটা মনে হয় ইংরেজীতে নাই দেঁতো হাসি

যাযাবর ব্যাকপ্যাকার এর ছবি

দেঁতো হাসি

তবে এইখানে আম্রেজিই একটা বেশ ভালো যায় - গোস্ট ইন দ্য মেশিনস! দেঁতো হাসি

___________________
ঘুমের মাঝে স্বপ্ন দেখি না,
স্বপ্নরাই সব জাগিয়ে রাখে।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA