গোলাম আযমের বিরূদ্ধে অভিযোগপত্র

তানভীর এর ছবি
লিখেছেন তানভীর (তারিখ: শুক্র, ১৪/০৩/২০০৮ - ৯:২৬পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

প্রথম আলোর সাহিত্য সাময়িকী পাতায় অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের আত্মজীবনীমূলক নিয়মিত কলাম ‘বিপুলা পৃথিবী’তে আজ তিনি ১৯৯২-এর গণআদালতের স্মৃতিচারণ করেছেন। গণআদালতে গোলাম আযমের বিরূদ্ধে তিনি যে অভিযোগপত্র দাখিল করেছিলেন তার বিবরণও তিনি দিয়েছেন। আমরা অনেকেই গোলাম আজমের বাংলাদেশ-বিরোধী কর্মকান্ডগুলো সম্পর্কে সুনির্দিষ্টভাবে জানি না (আমি নিজেও নীচের অনেকগুলো জানতাম না)। এর সুযোগ নিয়ে জামাত-শিবিরকে প্রায়শই জলঘোলা করতে দেখা যায়। প্রথম আলোর ফিচার পাতার অনলাইন লিংক একদিন পরেই কানা হয়ে যায়, তাছাড়া অনেকে প্রথম আলো বা এর সাহিত্য পাতা পড়েন না। কিন্তু এ অভিযোগগুলো আমাদের সবারই জানা দরকার। তাই ভাবলাম ব্লগে অভিযোগপত্রের কপি সংরক্ষণ করে রাখলে এর প্রচার আরো সহজ হবে।

উল্লেখ্য, ডঃ আনিসুজ্জামান তাঁর অভিযোগপত্রে গোলাম আযমের একাত্তর- পরবর্তী ভূমিকাগুলোই মূলত উত্থাপন করেছেন। কাজেই এটা গোলাম আযমের অপরাধের সম্পূর্ণ তালিকা নয়। এ বিষয়ে তাঁর বক্তব্য হচ্ছে- “যেহেতু ১৯৭১ সালে আমি দেশ ছেড়ে গিয়েছিলাম, সুতরাং গোলাম আযমের তখনকার কার্যকলাপ সম্পর্কে আমার অভিযোগ হবে শোনা কথার সামিল। আমি বরঞ্চ ১৯৭২ সাল থেকে গোলাম আযম বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যা যা করেছেন, সে-সম্পর্কে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে অভিযোগ আনবো। আর কেউ ১৯৭১ সালে তাঁর ভূমিকা সম্পর্কে অভিযোগ করুক। আলোচনার পরে স্থির হলো, গণ-আদালতে অভিযোগকারী হবো আমরা তিনজনঃ বাঙালি সংস্কৃতির বিরুদ্ধে গোলাম আযমের ভূমিকা সম্পর্কে অভিযোগ উত্থাপন করবেন সৈয়দ শামসুল হক; মুক্তিযুদ্ধকালে তাঁর ভূমিকা সম্পর্কে অভিযোগ উত্থাপন করবে বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর; আর বাংলাদেশ-প্রতিষ্ঠার পর পৃথিবীর নানাদেশে তাঁর বাংলাদেশবিরোধী ভূমিকা সম্পর্কে অভিযোগ উত্থাপন করবো আমি”।

অন্যদের উত্থাপিত অভিযোগপত্রগুলোও পাওয়া গেলে সেটা এখানে যোগ করে দেয়া হবে।

গোলাম আযমের বিরূদ্ধে ডঃ আনিসুজ্জামান উত্থাপিত অভিযোগপত্র

মাননীয় আদালত,

আমি, মরহুম ডা• এ টি এম মোয়াজ্জমের পুত্র এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, অভিযোগ উত্থাপন করছি। আমি অভিযোগ করছি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের পক্ষে; আমি অভিযোগ করছি পাকিস্তানি সৈন্যদের হাতে লাঞ্ছিত মায়েদের পক্ষে; আমি অভিযোগ করছি হানাদার বাহিনী দ্বারা ধর্ষিত বোনদের পক্ষে; আমি অভিযোগ করছি পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দোসর আল বদর কর্তৃক নিহত বুদ্ধিজীবীদের পক্ষে; আমি অভিযোগ করছি শত্রুর হাতে প্রাণদানকারী পিতামাতার অসহায় এতিম সন্তানদের পক্ষে; আমি অভিযোগ করছি স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের নাগরিকদের পক্ষে।

আমি অভিযোগ আনছি মরহুম মওলানা গোলাম কবিরের পুত্র গোলাম আযমের বিরুদ্ধে-ইনি একজন পাকিস্তানি নাগরিক, তবে বহুদিন ধরে বেআইনিভাবে বসবাস করে আসছেন ঢাকার রমনা থানার মগবাজার এলাকার ১১৯ নম্বর কাজী অফিস লেনে।

ইনি সেই গোলাম আযম-যিনি ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর প্রতিটি অন্যায়, বেআইনি, অমানবিক ও নিষ্ঠুর কাজ প্রকাশ্যে সমর্থন করেছিলেন; যিনি মুক্তিযোদ্ধাদের দেশদ্রোহী বলে আখ্যা দিয়ে তাদেরকে সমূলে ধ্বংস করার আহ্বান জানিয়েছিলেন; যিনি আল বদর বাহিনী গড়ে তুলে দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের নির্মমভাবে হত্যা করার প্ররোচনা দিয়েছিলেন। গোলাম আযমের প্ররোচনায় শহীদ বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে আছেন আমার শিক্ষক মুনীর চৌধুরী, মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, সন্তোষকুমার ভট্টাচার্য ও সিরাজুদ্দীন হোসেন, আমার অগ্রজপ্রতিম শহীদুল্লা কায়সার, আমার বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আহমদ, আমার সহকর্মী আবুল খায়ের, আনোয়ার পাশা, রাশীদুল হাসান ও মোহাম্মদ মোর্তজা, আমার ছাত্র আ ন ম গোলাম মোস্তফা ও সৈয়দ নজমুল হক-যাঁদের মৃত্যুতে আমি ক্ষতিগ্রস্ত, শোকাহত ও ব্যথাতুর।

গোলাম আযমের বিরুদ্ধে আমার বিশেষ অভিযোগঃ তিনি সর্বদা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করেছেন এবং এখনো করছেন; বিশেষ করে, ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর থেকে ১৯৭৮ সালের ১০ জুলাই পর্যন্ত পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সশরীরে উপস্থিত থেকে, বক্তৃতা ও আলোচনার মাধ্যমে, স্মারকলিপি ও বিবৃতির দ্বারা, মুদ্রিত ও প্রকাশিত প্রচারপত্র ও প্রবন্ধের মধ্য দিয়ে এবং সাংগঠনিক উদ্যোগ গ্রহণ করে নিজে এবং অপরের দ্বারা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে দুর্বল ও সহায়হীন, বিচ্ছিন্ন ও বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্র করেছেন। বাংলাদেশের একজন নাগরিক হিসেবে এতে আমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি।

আমার অভিযোগের সমর্থনে গোলাম আযমের কিছু কার্যকলাপের পরিচয় এখানে তুলে ধরছি।

[১] ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর বাংলাদেশ শত্রুমুক্ত হলে গোলাম আযম পাকিস্তানে বসে মাহমুদ আলী ও খাজা খয়েরউদ্দীনের মতো দেশদ্রোহীর সঙ্গে মিলিত হয়ে পূর্ব পাকিস্তান পুনরুদ্ধার কমিটি নামে একটি সংগঠনের সূচনা করেন এবং বিভিন্ন দেশে পূর্ব পাকিস্তান পুনঃপ্রতিষ্ঠার আন্দোলন গড়ে তোলার আয়োজন করেন। তিনি এই উদ্দেশ্যে দীর্ঘকাল পূর্ব পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামীর আমির বলে নিজের পরিচয় দিতেন।

[২] ১৯৭২ সালে গোলাম আযম লন্ডনে ‘পূর্ব পাকিস্তান পুনরুদ্ধার কমিটি’ গঠন করেন এবং বাংলাদেশ রাষ্ট্র উচ্ছেদ করে আবার এই ভূখণ্ডকে পাকিস্তানের অংশে পরিণত করার ষড়যন্ত্র করেন। ১৯৭৩-এ ম্যানচেস্টারে অনুষ্ঠিত ফেডারেশন অফ স্টুডেন্‌টস ইসলামিক সোসাইটিজের বার্ষিক সম্মেলনে এবং লেসটারে অনুষ্ঠিত ইউ কে ইসলামিক কমিশনের বার্ষিক সভায় তিনি বাংলাদেশবিরোধী বক্তৃতা দেন। ১৯৭৪-এ মাহমুদ আলীসহ কয়েকজন পাকিস্তানিকে নিয়ে তিনি পূর্ব লন্ডনে পূর্ব পাকিস্তান পুনরুদ্ধার কমিটির এক বৈঠক করেন। বাংলাদেশকে পাকিস্তানে পরিণত করার প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে দেখে এই সভায় স্থির হয় যে, তাঁরা এখন থেকে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান নিয়ে একটি কনফেডারেশন গঠনের আন্দোলন করবেন। এই সভায় গোলাম আযম ঝুঁকি নিয়ে হলেও বাংলাদেশে ফিরে অভ্যন্তর থেকে ‘কাজ চালানোর’ প্রয়োজনীয়তা ব্যক্ত করেন। ১৯৭৭-এ লন্ডনের হোলি ট্রিনিটি চার্চ কলেজে অনুষ্ঠিত একটি সভায় তিনি এ কথারই পুনরাবৃত্তি করেন এবং সেই উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য পাকিস্তানি পাসপোর্ট ও বাংলাদেশি ভিসা নিয়ে ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশে আগমন করেন।

[৩] ১৯৭২ সালের ডিসেম্বরে গোলাম আযম রিয়াদে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক ইসলামি যুব সম্মেলনে যোগদান করেন এবং পূর্ব পাকিস্তান পুনঃপ্রতিষ্ঠার সংগ্রামে সকল মুসলিম রাষ্ট্রের সাহায্য প্রার্থনা করেন। ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৬ পর্যন্ত তিনি সাতবার সউদি বাদশাহ্‌র সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি না দেওয়ার আহ্বান জানান এবং কখনো তিনি বাদশাহ্‌কে বাংলাদেশে হস্তক্ষেপ করতে ও কখনো বাংলাদেশকে আর্থিক বা বৈষয়িক সাহায্য না দিতে অনুরোধ করেন। ১৯৭৪ সালে রাবেতায়ে আলমে ইসলামির উদ্যোগে মক্কায় অনুষ্ঠিত একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে এবং ১৯৭৭ সালে কিং আবদুল আজিজ ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত একটি সভায় বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বক্তৃতা করেন।

[৪] অনুরূপভাবে গোলাম আযম ১৯৭৩ সালে বেনগাজিতে অনুষ্ঠিত ইসলামি পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনে আগত প্রতিনিধিদের কাছে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি না দেওয়ার জন্য লবিং করেন। একই বছরে ত্রিপলিতে অনুষ্ঠিত ইসলামি যুব সম্মেলনে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের পক্ষে হানিকর বক্তব্য উপস্থাপন করেন।

[৫] ১৯৭৩ সালে গোলাম আযম মিশিগান স্টেট ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত মুসলিম স্টুডেনটস অ্যাসোসিয়েশন অফ আমেরিকা অ্যান্ড কানাডার বার্ষিক সম্মেলনে বাংলাদেশকে আবার পাকিস্তানভুক্ত করার জন্য সবাইকে কাজ করতে আহ্বান জানান।

[৬] ১৯৭৭ সালে গোলাম আযম ইসতামবুলে অনুষ্ঠিত ইসলামিক ফেডারেশন অফ স্টুডেনটস অরগানাইজেশনের আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বাংলাদেশবিরোধী বক্তৃতা করেন।

মাননীয় আদালত,
আমি গোলাম আযমের বিরুদ্ধে বাংলাদেশবিরোধী ষড়যন্ত্রে নেতৃত্ব দেওয়ার অভিযোগ উত্থাপন করছি। ইনি সেই গোলাম আযম-যাঁকে ফেরার ঘোষণা করে বাংলাদেশ সরকার ১৯৭২ সালের ২২শে ফেব্রুয়ারির মধ্যে নিজ এলাকার মহকুমা ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে হাজির হতে নির্দেশ দেন; ১৯৭৩ সালের ১৮ই এপ্রিল এক প্রজ্ঞাপনবলে বাংলাদেশ সরকার যাঁর নাগরিকত্ব বাতিল করে দেন; যিনি পাকিস্তানি পাসপোর্ট ও তিন মাসের ভিসা নিয়ে ১৯৭৮ সালের ১১ই জুলাই বাংলাদেশে প্রবেশ করেন এবং ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর যিনি বেআইনিভাবে এ দেশে রয়ে যান; ১৯৭৬, ১৯৭৭, ১৯৭৮, ১৯৭৯ ও ১৯৮১ সালে বাংলাদেশ সরকারের কাছে আবেদন করেও যিনি নাগরিকত্ব ফেরত পাননি; বাংলাদেশ সরকার যাঁকে ১৯৮৮ সালের ২০শে এপ্রিলের মধ্যে দেশত্যাগের নির্দেশ দিলেও যিনি বাংলাদেশে থেকে যান; যাঁর নাগরিকত্ব ফেরত দেওয়ার ইচ্ছা বাংলাদেশ সরকারের নেই বলে ১৯৮৮ সালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একাধিকবার জাতীয় সংসদে ঘোষণা করেছেন; সেই গোলাম আযমের উপযুক্ত শাস্তি বিধানের জন্য এই গণ-আদালতের কাছে আমি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উত্থাপন করলাম।

প্রথম আলো লিংক


মন্তব্য

মুহম্মদ জুবায়ের এর ছবি

একটি অসাধারণ ও জরুরি কাজ করলেন। ধন্যবাদ আপনাকে।

-----------------------------------------------
ছি ছি এত্তা জঞ্জাল!

ইশতিয়াক রউফ এর ছবি

ভাল পোস্ট/লিংক, তবে যথারীতি মেজাজটা বিগড়ে গেল!

তীরন্দাজ এর ছবি

মূল্যবান দলিল! তারপরও ঘাতকদের সহযোগীরা টিকেই থাকবে, দু:খ এটাই।

লেখককে অশেষ ধন্যবাদ!
**********************************
যাহা বলিব সত্য বলিব

**********************************
যাহা বলিব, সত্য বলিব

রাকিব হাসনাত সুমন এর ছবি

গোলাম আযম সহ সব যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসী চাই......

আনোয়ার সাদাত শিমুল এর ছবি

চলুক

ফারুক হাসান এর ছবি

দরকারি পোস্ট দিয়েছেন।
----------------------------------------------
আমাকে নিঃশব্দে অনুসরণ করে একটা নদী-
সাথে নিয়ে একটা পাহাড় আর একটা নিঃসঙ্গ মেঘ।

বিপ্লব রহমান এর ছবি

.
গণআদালতের ওই জনসমুদ্রে আমিও ছিলাম। স্পষ্ট মনে আছে, ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউটের প্রধান ফটকের পাশে সোহরাওয়ার্দী উদ্যোনের মঞ্চে জাহানারা ইমাম যখন 'ভি' চিহ্ন দেখিয়ে উঠলেন, লাখো - কোটি জনতা সমবেত কন্ঠে গর্জে উঠলো:
ফাঁসি, ফাঁসি, ফাঁসি, চাই,
গোলাম আযমের ফাঁসি চাই!


আমাদের চিন্তাই আমাদের আগামী: গৌতম বুদ্ধ


একটা ঘাড় ভাঙা ঘোড়া, উঠে দাঁড়ালো
একটা পাখ ভাঙা পাখি, উড়াল দিলো...

এম. এম. আর. জালাল এর ছবি

অসাধারণ.
ধন্যবাদ
এম. এম. আর. জালাল
"ফিরে দেখুন একাত্তর ঘুরে দাঁড়াক বাংলাদেশ।"


এম. এম. আর. জালাল
"ফিরে দেখুন একাত্তর ঘুরে দাঁড়াক বাংলাদেশ।"

দ্রোহী এর ছবি

অনেক তথ্য আমি নিজেই কখনো জানতাম না। তানভীর ভাই, আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

জানি না, বাংলাদেশের মাটিতে কখনো এইসব নরপিশাচদের বিচার হবে কি না! নিরাশাবাদী মানুষ আমি — স্বপ্ন দেখতে সাহস পাই না।


কি মাঝি? ডরাইলা?

অতিথি লেখক এর ছবি

খুবই দরকার ছিল, ধন্যবাদ তানভীর ।

- খেকশিয়াল

Ratul এর ছবি

Golam Ajom ki Bangladesher nagorik na? Adalot ki ray dilo?

ashik [অতিথি] এর ছবি

"ঘৃনা মঞ্চ"
গোলাম আযম সহ আরো অনেক যুদ্ধাপরাধীদের কুশপুত্তলিকাতে জোতাপেটা করা হবে আগামী ৭ই ডিসেমবার সোমবার সকাল ১০টায় মুক্তাঙ্গনে।

আয়েজনে: "আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান", বাংলাদেশ মু্ক্তিযোদ্ধা সংসদের অঙ্গসংগঠন।
মোবাইল: ০১৯১৬৭৬০১১৬

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- বিগত জোট সরকারের মন্ত্রী মইত্যা রাজাকার, মুজা রাজাকার আর শেরপুরের কসাই কামারু রাজাকারের কুশপুত্তলিকায় কেনো মারা হবে না?
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

পোস্টেটির জন্যে ধন্যবাদ। দরকারি পোস্ট।
____________________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ !

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

নাশতারান এর ছবি

জরুরি একটা পোস্ট। ধন্যবাদ আপনাকে।

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

এনকিদু এর ছবি

একটা দীর্ঘশ্বাস বের হয়ে আসে ...

লেখার জন্য ধন্যবাদ ।


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...

অতিথি লেখক এর ছবি

তানভীর ভাই, অনেক অনেক ধন্যবাদ বিষয়টি তুলে ধরার জন্য।
আশা করি অন্য রাজাকারদের বিরুদ্ধেও এইধরনের অভিযোগ লিপিবদ্ধ আছে। যদি থেকে থাকে, এখনি সময় তা প্রকাশ করার।
'আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান' সংগঠনটির উদ্যোগটি সময়োপযোগী ও যথার্থ। আশা করছি সংগঠনটির হয়ে আশিক ভাই বা অন্য কেউ একটি লেখা জমা দেবেন যাতে করে সচলের সবাই বিষয়টি জানতে পারে।

---- মনজুর এলাহী ----

সবুজ পাহাড়ের রাজা এর ছবি

জরুরি পোস্ট। চলুক

ব্যঙের ছাতা এর ছবি

চলুক

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA