মুভি রিভিওঃ মুন

উদ্ভ্রান্ত পথিক এর ছবি
লিখেছেন উদ্ভ্রান্ত পথিক [অতিথি] (তারিখ: শুক্র, ০৪/১২/২০০৯ - ১০:৪২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমি যখন এই ছবিটি সম্বন্ধে এক দোস্তকে জিজ্ঞেস করলাম সে বলে দোস্ত ছি ছি তোর রুচি এত খারাপ হয়ে গেছে তুই নিউ মুন দেখবি! ইয়ে, মানে... মোটামোটি গুগলেও মুন দিয়ে সার্চ মারলেও নিউ মুনটা বেশ আগেই আসে খাইছে!তো যাই হোক ২দিন ধরে মুন ( নিউ মুন না!! ) এর ভাল কোয়ালিটির রিপ নামাইলাম। এবং সত্যিকার অর্থে ছবিটা আমাকে একটুকু হতাশ করে নাই! বলতে গেলে ২০০৯ এর সেরা ছবি আমার কাছে মুন। শুধু একজন অভিনেতা ( সাথে একজন কন্ঠ অভিনেতা ) নিয়ে যে এত সুন্দর একটি মনস্তাত্ত্বিক কল্প বৈজ্ঞানিক থ্রিলার করা সম্ভব এই সিনামা না দেখলে বিশ্বাস করাটা কঠিন।

ছবির কাহিনী স্যাম বেল নামের একজন মহাকাশচারীকে নিয়ে, যে চাঁদের পৃষ্ঠে পৃথিবীর একটি কর্পোরেশনের হয়ে কাজ করে। কর্পোরেশনটি চাঁদের পৃষ্ঠ হতে হিলিয়াম-৩ শক্তি আহরণ করে। স্যামের কাজ রোবট গার্টির সহায়তায় চাঁদে স্থাপনাগুলো তত্ত্বাবধান করা এবং শক্তি আহরণ শেষে সেইগুলোকে সিলিন্ডারে করে পৃথিবীতে পাঠানো।

স্যাম তার চুক্তির ৩বছরে শেষ পর্যায়ে, আর মাত্র দুই সপ্তাহ পর সে পৃথিবীতে ফিরে যাবে, তার স্ত্রী কন্যার সাথে দেখা করতে পারবে, দীর্ঘ অসহনীয় একাকীত্ব থেকে মুক্তি পাবে। কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাস, এই সময় ঘটে এক দুর্ঘটনা।

ছবিতে একমাত্র অভিনেতা বলতে গেলে স্যাম রকওয়েল যিনি স্যাম বেল চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন। সাথে রোবটের কন্ঠ দিয়েছেন কেভিন স্পেসি।পরিচালক ডানকান জোন্সের এটাই প্রথম ছবি। অভিষেকে তিনি যেই নৈপুণ্যের স্বাক্ষর রেখেছেন তা অতুলনীয়। সত্যি কথা বলতে এই ছবি প্রমান করে একটি সুন্দর কল্প-বৈজ্ঞানিক সিনামা নির্মাণ মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার খরচ করে কম্পিউটার গ্রাফিক্স ছাড়াও সম্ভব। শুধুমাত্র কাহিনী দিয়ে ছবিটি বাজিমাত করেছে আমার বিশ্বাস।

পরিশেষে আমি বলব যাদের কল্প-বৈজ্ঞানিক কাহিনী ভালো লাগে তাদের অবশ্যই এটি দেখা উচিত। মানুষের একাকীত্ব অনুভব করার জন্যে এর চেয়ে ভালো ছবি খুব একটা বেশি দেখেছি বলে মনে পড়ে না।


মন্তব্য

রায়হান আবীর এর ছবি

দেখবো। তারপর তিনমাস পরে এসে নিজের সুচিন্তিত মতামত জানায়ে যাবো দেঁতো হাসি

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

অনুগ্রহ করে মুভিটা ল্যানে দিয়া দ্যান...
কেভিন স্পেসির কন্ঠ আছে জাইন্যাই ফিদা হয়া গেলাম...

রিভু ফাইনৈসে...

_________________________________________

সেরিওজা

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

পেনড্রাইভ নিয়া আপনেরে খুঁজতেছি... দেঁতো হাসি
রিভ্যূ ভালইছে...
____________________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ !

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

উদ্ভ্রান্ত পথিক এর ছবি

ল্যানে কেম্নে দিমু! হলেতো থাকি না! বুয়েটে ল্যাপ্টপ আনি তখন নিয়ো।

---------------------
আমার ফ্লিকার

ভ্রম এর ছবি

মুন চমৎকার একটা ছবি। এবছরের সবচেয়ে আন্ডাররেটেড ছবি গুলোর একটা।
ছবিটার সাউন্ডট্র্যাক ও কিন্তু অসাধারন। ওয়েলকাম টু লুনার ইন্ডাস্ট্রিজ, টু উইক্স কাউন্টিং, স্যাক্রিফাইস, সামওয়ান উইল নেভার নো এগুলো শুনলে স্যাম বেলের কষ্ট গুলো যেন চোখের সামনে ভেসে ওঠে।

সাবিহ ওমর এর ছবি

ভাল মুভি। ভাল রিভিউ।

খেকশিয়াল এর ছবি

দারুণ একটা মুভি, দারুণ গল্প। ভাল রিভিউ।

------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

মুভিটা আছে আমার কাছে। দেখতে হয় তো তাহলে। দেখে জানাব কেমন লাগল।

রিভিউ ভালো হইসে। নিয়মিত লিখলেও কিন্তু পারো হাসি

শিক্ষানবিস এর ছবি

সায়েন্স ফিকশন সিনেমা খুব দেখি। রনি ভাইয়ের কাছ থেকে নিয়ে দেখে ফেলব খুব তাড়াতাড়ি।
উইকি থেকে দেখলাম নাসা-র হিউজটন স্পেস সেন্টার এ এই সিনেমা প্রদর্শিত হয়েছে, একটা লেকচার সিরিজের অংশ হিসেবে। হিলিয়াম-৩ নিয়ে জানলাম নাসা নিজেরাই এখন কাজ করছে। মুভিটা তাই খুব সময়োপযোগী। গত ১০ বছরে ভাল সায়েন্স ফিকশন সিনেমা হয়েছে হাতে গোনা কয়েকটা। এটাও তার মধ্যে একটা। হলিউডে তো নতুন মুভি আন্দোলন শুরু হয়েছে, "বস্তাপঁচা মুভমেন্ট" :D। এই মুভমেন্টের তোড়ে ভেসে যাচ্ছে সায়েন্স ফিকশনের অনন্যসাধারণ থিমগুলোও। এটা সেদিক থেকে ব্যতিক্রম।

শিক্ষানবিস এর ছবি

এইটা দেখলাম ব্রিটিশ সিনেমা। তাইলে তো ঠিকই আছে। দেঁতো হাসি
প্রিয় সমালোচক রজার ইবার্টের রিভিউ এর কিছু অংশ শেয়ার করি (উইকি থেকে):
"'Moon' is a superior example of that threatened genre, hard science-fiction, which is often about the interface between humans and alien intelligence of one kind of or other, including digital. John W. Campbell Jr., the godfather of this genre, would have approved. The movie is really all about ideas. It only seems to be about emotions. How real are our emotions, anyway? How real are we? Someday I will die."

লীন এর ছবি

তোর নামানো কপি পেয়েছি। দেখবো শীঘ্রই।
রিভিউ ভালো হয়েছে।

______________________________________
লীনলিপি

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।