সচল বাংলাদেশে নিষিদ্ধ

ফারুক ওয়াসিফ এর ছবি
লিখেছেন ফারুক ওয়াসিফ (তারিখ: বুধ, ১৬/০৭/২০০৮ - ৭:২৬অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আমি বিটিটিবি'র ইন্টারনেট বিভাগের চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলেছি ঘন্টা খানেক আগে। সচলায়তন ব্যান বা ব্লক করা হয়েছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, অফিসিয়ালি বলবেন, ‌মন্তব্য নেই।' আকেলমান্দ কি লিয়ে ইশারাই কাফি হ্যায়।
আন অফিয়াশিলি যা বলেছেন, তা তো বলা যাচ্ছে না।

এস এম মাহবুব মোর্শেদের সঙ্গে ব্রায়ানের কথোপকথন পড়েছি। আমাদের আইটি ইঞ্জিনিয়ারও বলেছে, সার্ভারের সমস্যা এটা না।

আমার যা মনে হচ্ছে, তা বুঝে নিন। দ্রুত সবাইকে জানান। কিন্তু কিছু করার আগে একটু অপেক্ষা করাই ভাল।


মন্তব্য

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

সচলায়তনের ওপরে ক্ষোভের কারণ কি? সরকার তো 'নির্দলীয়', 'নিরপেক্ষ'!
এখন থেকে কি রাজাকারদের অ্যাক্সেস না দিলে কোনো সাইট চলতে পারবে না?

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

ইশতিয়াক রউফ এর ছবি

ব্যাপারটা খুব দুঃখজনক। বোঝা যাচ্ছিল অনেক আগে থেকেই। দেশে অনেকেই অন্ধকারে ছিলেন, যান্ত্রিক ত্রুটি কিনা বুঝতে পারছিলেন না, বাইরের সাথে যোগাযোগ ছিল না। এখন অবস্থা অতটা সঙ্গীন নয়। এখন সবাই জানি আসল ঘটনা কী ঘটেছে, বা ঘটতে যাচ্ছে।

খুব কড়াকড়ি করে সচল করবার সবচেয়ে বড় সুফলটি বোধহয় আমরা এখন পেতে যাবো। সবাই এত বেশি চেনা, বিশ্বস্ত, আর আন্তরিক, যে বাইরের সাথে যোগাযোগ না থাকলেও মনে ভয় কাজ করবে না। সবাই যে যার জায়গা থেকে নিজের কাজটুকু করে যাবে, এই আস্থা সবারই আছে এখানে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার সেই বিখ্যাত কবিতাটি তুলে দিলাম।

"In Germany, they came first for the Communists, And I didn’t speak up because I wasn’t a Communist;

And then they came for the trade unionists, And I didn’t speak up because I wasn’t a trade unionist;

And then they came for the Jews, And I didn’t speak up because I wasn’t a Jew;

And then . . . they came for me . . . And by that time there was no one left to speak up."

আমাদের আজকের এই সঙ্গীন দশার মূল কারণ স্বাধীনতার সপক্ষ-শক্তি বিশ্লিষ্ট হয়ে থাকা। যদি সরকার শেষতক সচলায়তনকে ব্যান করবার ভুলটি করেই ফেলে, আমার মনে হয় সবার উচিত কবিতার কথাগুলো মনে রাখা।


রাজাকার রাজা কার?
এক ভাগ তুমি আর তিন ভাগ আমার!

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

ডিভাইড অ্যান্ড রুল।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

====
চিত্ত থাকুক সমুন্নত, উচ্চ থাকুক শির

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

শুধু পোর্ট ৮০ বন্ধ করেছে। তাই ট্রেস রাউটে পাওয়া গেলেও পেইজ এক্সেস করা যাচ্ছে না।

====
চিত্ত থাকুক সমুন্নত, উচ্চ থাকুক শির

ইশতিয়াক রউফ এর ছবি

রাজাকার রাজা কার?
এক ভাগ তুমি আর তিন ভাগ আমার!

পলাশ দত্ত এর ছবি

।। এই জরুরি (সচলের জন্য) অবস্থাতেও আপনার কথায় আবারো সুপার সুপার সুপার ।।

==========================
পৃথিবীর তাবৎ গ্রাম আজ বসন্তের মতো ক্ষীণায়ু

সৌরভ এর ছবি

আইপি অ্যাড্রেস বদলানো ছাড়া উপায় নেই তাহলে।


আহ ঈশ্বর, আমাদের ক্ষোভ কি তোমাকে স্পর্শ করে?


আবার লিখবো হয়তো কোন দিন

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

এইটা আসলে ভালো কোন সমাধান না। মিনিট খানেকের মধ্যে নতুন আইপিও ব্যান করবে।

====
চিত্ত থাকুক সমুন্নত, উচ্চ থাকুক শির

ধুসর গোধূলি এর ছবি
সৌরভ এর ছবি



আহ ঈশ্বর, আমাদের ক্ষোভ কি তোমাকে স্পর্শ করে?


আবার লিখবো হয়তো কোন দিন

পলাশ দত্ত এর ছবি

==========================
পৃথিবীর তাবৎ গ্রাম আজ বসন্তের মতো ক্ষীণায়ু

হযবরল এর ছবি

একটু সবুর করাই ভালো। এই ধরণের কীর্তি আগেও হয়েছে। ষান্মাসিক ভূত কাঁধে চাপে দেশের হাঁটুদ্ধিমানদের।

পান্থ রহমান রেজা এর ছবি

ব্যান করা খুবই দুৰখজনক একটি ঘটনা। এখন আমাদের সবার কী করণীয়, সেটা মনে হয় সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

এনকিদু এর ছবি


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...

আরিফুর রহমান এর ছবি

আমরা মনে হয় ভুলে যাচ্ছি, রাজাকার মনষ্ক টেনকিক্যাল লোকও আছে। এদের মাঝে অনেকেই প্রো লেভেলের। সুতরাং যার কাছে 'অথরাইজ' করার ক্ষমতা আছে.. সেই সবার ওপরে ছড়ি ঘুরাবে।

শেষ পর্যন্ত এটা একটা রাজনৈতিক যুদ্ধ, মোটেও টেকনিক্যাল নয়।

টেকনোলজি নিয়ে ইঁদুর-বেড়াল খেলার মনে হয় আর দরকার নেই।

বাংলাদেশ যদি কেউ বিটিএসএল দখল করে ফেলতে পারে, ওই দেশের আশা ছেড়ে দেয়াই সমীচিন বোধ করি।

সবজান্তা এর ছবি

দেখুন প্রযুক্তি এর বাজারে শেষ কথা বলে কিছু নেই। এটাই আমাদের আশার কথা।


অলমিতি বিস্তারেণ

এনকিদু এর ছবি

প্রযুক্তি জ্ঞানে জ্ঞানী রাজাকারের অভাব নাই । আমাদের বিশ্ববিদ্যাল গুলোতেই একগাদা রাজাকার শিক্ষক আছেন । আমি আমার আগের মন্তব্যটিতে ঠিক ইঁদুর-বেড়াল খেলার দিকে ইঙ্গিত করতে চাইনি । তবে কথাটি না বললেও মনে হয় চলত । ধূগো 'পাবলিক' মন্তব্যে বিকল্প বুদ্ধির কথাটি না লিখে বদ্দার সাথে সামনা সামনি কথা বলতে অনুরোধ করে বিচক্ষনতার পরিচয় দিয়েছেন । আমার ধারনা সরকারের টিকটিকি এখন এই সাইট যত্ন করে নজরে রাখছে । ধূগো যদি তার বিকল্প বুদ্ধিটি এখানে বলে বসতেন তাহলে সেই বুদ্ধি কাজে লাগানোর আগেই সচলকে বুদ্ধু বানিয়ে ফেলার ব্যবস্থা করা হয়ে যেত । বিকল্প বুদ্ধিটা যাই হোক, তারা চাইলে একদিন সেটাও আটকে ফেলতে পারবে, সন্দেহ নাই । কিন্তু একদিন যদি দেরী করিয়ে দেয়া যায়, সেই একদিনও লাভ ।

পরিশেষে আপনার সাথে আবারো সহমত, এটা রাজনৈতিক যুদ্ধ । তবে যুদ্ধের ক্ষেত্রটি এখানে প্রযুক্তি ।


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...

পান্থ রহমান রেজা এর ছবি

এনকিদু দা,

আমরা যারা টেকনিক্যাল ব্যাপারস্যাপার কম বুঝি, তাদের এসব বিষয় নিয়ে একটু অবগত কইরেন।

অমিত এর ছবি

ঘটনা কি সত্য ?
____________________________________
দুনিয়াজুড়া পচুর গিয়ানজাম

আরিফুর রহমান এর ছবি

এইটা একটা প্রশ্ন বটে!

ঘটনা কি আসলেই সত্য?

এই প্রশ্নের উত্তর দিতে হইলে আমাদের জানতে হবে বাংলাদেশে সিঙ্গল গেটওয়ে ব্যাভার করে কি না!

যদি করে সেই দ্বারপথে ছিপি দিয়া এইরকম বন্ধবাজি সম্ভব বটে, কিন্তু উপ-আইএসপি গুলি কি সত্যই সেই দ্বারপথ ব্যাভার করে?

যারা বিভিন্ন নিজস্ব উপ-দ্বারপথ ব্যাভার করে তারা চাইলেই তাদের গ্রাহকদের অনাবদ্ধ সেবা দিতে পারে (যদি না সরকার থেকে তাদের বাধ্য করা হয়)

তবে আমরা যদি একটু পেছনে চলে যাই এই জলপাই সর্কার এসে প্রথমেই 'ভিওআইপি' নিয়ে ভেজাল শুরু করেছিলো। প্রচুর 'অবৈধ' সেটাপ বাজেয়াপ্ত হয়। আইএসপিগুলোকে জরিমানাও করা হয়।

এর পরে সিঙ্গল গেটওয়েতে নাম লেখাতে বাধ্য করা হয়। আমার কেন যেন সন্দেহ হয়, এসবই আসলে একটা মাস্টারপ্ল্যানের অংশ।

ইন্টারনেট নজরদারি এবং নিয়ন্ত্রন এর মাধ্যমে বাংলাদেশের সবগুলি জানালা ধীরে ধীরে বন্ধ করে দিয়ে একসময় এটাকে 'কবর' সদৃশ কিছু একটাতে পরিনত করা এবং তারপরে 'আসল প্ল্যান' বাস্তবায়নই মনে হয় মূল লক্ষ্য।

আমার কথায় প্রচুর 'কন্সপিরেসি থিওরি'র গন্ধ পাওয়া যাবে।

যারা 'আমরা আসলে ভাল আছি' ভাব নিয়ে থাকতে চান তাঁরা দয়া করে আমাকে অবজ্ঞা করুন।

লুৎফর রহমান রিটন এর ছবি

বিটিটিবির ইন্টারনেট বিভাগের চেয়ারম্যান যা বলেছেন (ফারুকের লেখায় উদ্ধৃত) তা খুবই মামুলি ধরণের ডিপ্লোম্যাসি। এই ধরণের বড়কর্তারা কোনো বিষয়ে অবগত না থাকলে এই রকম কথাবার্তা বলেন। এই ক্ষেত্রে চেয়ারম্যানের চাইতে খুদে কোনো কর্মচারী অনেক বেশি ইনফর্মড ও কার্যকর।

তবে আমার মনে হয়না সরকার সচলায়তনকে বাংলাদেশে ব্যান করার মতো এতো বড় একটা বোকামী করবে। এতে ওদের লাভের চাইতে লোকসানই বেশি হবে। লাভ যেটুকু হবার তা আমাদেরই।

হাবু বেশ বড়সড়,গাবুটা তো পিচ্চি
হেরে গিয়ে হাবু বলে--উৎসাহ দিচ্ছি!

সবজান্তা এর ছবি

রিটন ভাই, একটু লক্ষ্য করেন, ফারুক ভাই তাঁর লেখার একাংশে বলেছেন ,

আন অফিয়াশিলি যা বলেছেন, তা তো বলা যাচ্ছে না।

আশা করি, বুঝতেই পারছেন কিছু একটা ঘাপলা হয়েছে। এ ছাড়া অন্য আরো একটি সূত্র থেকেও শোনা গিয়েছে যে সচলায়তন আসলেই ব্যান বাংলাদেশে।

দেখা যাক কী হয় !


অলমিতি বিস্তারেণ

নিঝুম এর ছবি

-------------------------------
... বাড়িতে বউ ছেলেমেয়ের গালি খাবেন, 'কীসের মুক্তিযোদ্ধা তুমি, কী দিয়েছ আমাদের'? তিনি তখন আবারো বাড়ির বাইরে যাবেন, আবারো কান পাতবেন, মা জননী কি ডাক দিল?

---------------------------------------------------------------------------
কারও শেষ হয় নির্বাসনের জীবন । কারও হয় না । আমি কিন্তু পুষে রাখি দুঃসহ দেশহীনতা । মাঝে মাঝে শুধু কষ্টের কথা গুলো জড়ো করে কাউকে শোনাই, ভূমিকা ছাড়াই -- তসলিমা নাসরিন

জিফরান খালেদ এর ছবি

ফারুক ওয়াসিফ এর ছবি

হাঁটাপথে আমরা এসেছি তোমার কিনারে। হে সভ্যতা! আমরা সাতভাই হাঁটার নীচে চোখ ফেলে ফেলে খুঁজতে এসেছি চম্পাকে। মাতৃকাচিহ্ন কপালে নিয়ে আমরা এসেছি এই বিপাকে_পরিণামে।

জিফরান খালেদ এর ছবি

নিঝুম এর ছবি

---------------------------------------------------------------------------
কারও শেষ হয় নির্বাসনের জীবন । কারও হয় না । আমি কিন্তু পুষে রাখি দুঃসহ দেশহীনতা । মাঝে মাঝে শুধু কষ্টের কথা গুলো জড়ো করে কাউকে শোনাই, ভূমিকা ছাড়াই -- তসলিমা নাসরিন

জিফরান খালেদ এর ছবি

..

নিঝুম এর ছবি

---------------------------------------------------------------------------
কারও শেষ হয় নির্বাসনের জীবন । কারও হয় না । আমি কিন্তু পুষে রাখি দুঃসহ দেশহীনতা । মাঝে মাঝে শুধু কষ্টের কথা গুলো জড়ো করে কাউকে শোনাই, ভূমিকা ছাড়াই -- তসলিমা নাসরিন

নিঝুম এর ছবি

--------------------------------------------------------
... বাড়িতে বউ ছেলেমেয়ের গালি খাবেন, 'কীসের মুক্তিযোদ্ধা তুমি, কী দিয়েছ আমাদের'? তিনি তখন আবারো বাড়ির বাইরে যাবেন, আবারো কান পাতবেন, মা জননী কি ডাক দিল?

---------------------------------------------------------------------------
কারও শেষ হয় নির্বাসনের জীবন । কারও হয় না । আমি কিন্তু পুষে রাখি দুঃসহ দেশহীনতা । মাঝে মাঝে শুধু কষ্টের কথা গুলো জড়ো করে কাউকে শোনাই, ভূমিকা ছাড়াই -- তসলিমা নাসরিন

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

খুব কড়াকড়ি করে সচল করবার সবচেয়ে বড় সুফলটি বোধহয় আমরা এখন পেতে যাবো। সবাই এত বেশি চেনা, বিশ্বস্ত, আর আন্তরিক, যে বাইরের সাথে যোগাযোগ না থাকলেও মনে ভয় কাজ করবে না। সবাই যে যার জায়গা থেকে নিজের কাজটুকু করে যাবে, এই আস্থা সবারই আছে এখানে।

কিন্তু কিছু করার আগে একটু অপেক্ষা করাই ভাল।

চিত্ত থাকুক ভয়শূন্য উচ্চে থাকুক শির।

এলোমেলো ভাবনা এর ছবি

কদিন আগে দৈনিক প্রথম আলোর এক সাংবাদিকের সাথে আলাপকালে জানতে পারি, সরকার মিডিয়াকে আস্তে আস্তে দখল করে নিচ্ছে।
আর টিভি সহ আরো কয়েকটি ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া সরকারের নিয়ন্ত্রনে চলে গেছে।
সচলায়তন বন্ধ হয়তো সেই বিশাল পরিকল্পনারই একটা অংশ।

যদিও এখনো বিশ্বাস হচ্ছে না সরকার সত্যিই এমন কাজ করতে পারে!!


হাত বাড়িয়ে ছুঁই না তোকে, মন বাড়িয়ে ছুঁই,

দুইকে আমি এক করি না এক কে করি দুই৷

ইমরুল কায়েস এর ছবি

কোন কিছু করার আগে আমাদের জানতে হবে আসলেই সচল ব্যান হয়েছে কি না । সেটাই তো জানা যাচ্ছে না ।

......................................................
এইখানে, একদা, এক মানুষ বাস করত!

হাসান মোরশেদ এর ছবি

সরকারী কতৃপক্ষ নিয়মতান্ত্রিক ভাবে কিছু জানায়নি, জানাবে এতোটা দুরাশা করার ও কোন দরকার নেই ।
সার্ভার সাইট থেকে জানানো হয়েছে ঐ দিক থেকে কোন সমস্যা নাই, সচলের টেকনিক্যাল টীম জানাচ্ছে এদিকে ও কোন সমস্যা নাই ।

সুতরাং ব্লগার ও পাঠকদেরকে নিজ থেকেই সমীকরন টা মিলিয়ে নিতে হবে ।
-------------------------------------
বালক জেনেছে কতোটা পথ গেলে ফেরার পথ নেই,
-ছিলো না কোন কালে;

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

দৃশা এর ছবি

এতোটাই হাস্যকর তেনাদের কর্মকান্ড যে ভাষা হারায় ফেলসি।

দৃশা

মুজিব মেহদী এর ছবি

জরুরি অবস্থায় আমার বোধবুদ্ধি স্বাভাবিক দ্রুততায় কাজ করে না। তখন বেশি মানুষ যা করে, আমিও তা করি। কাজেই এখন বুক উঁচু করে থাকা ছাড়া আর কী কী করতে হবে, সময় সময় জানাবেন আশা করি।

................................................................
সবকিছু নষ্টদের অধিকারে গেছে

... ... ... ... ... ... ... ... ... ... ... ... ... ... ... ... ... ...
কচুরিপানার নিচে জেগে থাকে ক্রন্দনশীলা সব নদী

তানভীর এর ছবি

এই ব্যাটা শুনলাম ব্লগ কী জিনিষ সেটাই জানে না; আন্দাজে মনে হয় ভাব নিসে। রাজাকাররা হয়তো নিজেদের লোক কাউরে দিয়া পোর্ট বন্ধ করাইসে। আলী আমানের ব্যানার আর পোস্ট দেখে হয়তো মাথা খারাপ হয়ে গেসিলো।

= = = = = = = = = = =
ঊষার দুয়ারে হানি আঘাত
আমরা আনিব রাঙা প্রভাত
আমরা ঘুচাব তিমির রাত
বাধার বিন্ধ্যাচল।

আরিফুর রহমান এর ছবি

রাজাকাররা হয়তো নিজেদের লোক কাউরে দিয়া পোর্ট বন্ধ করাইসে। ....

রাজাকারেরা সামহোয়ারে যেরকম শিবিরমনষ্ক মাসোহারাভুক মডু পালতো, সেরকমই হয়তো ফেউ থাকতে পারে।

বিটিএসএল এ এধরনের কেউ থাকলে তাকে খুঁজে বের করা দরকার।

এনকিদু এর ছবি

আমি একটা দুষ্টামি বুদ্ধি পাইছি । ঐদিন যেই মুক্তি যুদ্ধ উইকিটার লিঙ্ক দিয়েছিলাম সেখানে গিয়ে এই "সচল বন্ধ করার ঘটনা", "সরকার কর্তৃক গনমাধ্যম দখলের ঘটনা" ইত্যাদির উইকি লেখা শুরু করি সবাই মিলে । এখানে যারা মন্তব্য করেছেন, সবাই তিন লাইনের একটি করে প্যারাগ্রাফ লিখলেও উইকিতে প্রচুর তথ্য জমা হয়ে যাবে । দেখি সেটাতেও কিছুদিন পর বাংলাদেশ থেকে ঢুকা যাচ্ছে না তাহলে আমরা বলতে পারব যে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে পরীক্ষা করে প্রমানিত হয়েছে যে বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের এই বদঅভ্যাসটি আছে । আর অন্যথায় প্রমানিত হবে সরকারের এই বদভ্যাস নেই । তবে সেই ক্ষেত্রে আমরা প্রচুর তথ্য সন্বিবিষ্ট পাব একটা উইকি পেয়ে যাব । সেটা ভবিষ্যতে কাজে লাগবে হাসি


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...

চুপচাপ এর ছবি

যদিও তড়িঘড়ি করে কিছু বলা ঠিক হবে না বোধহয়, তবে মনে পড়ে যাচ্চে "তেহেলকা ডট কম" এর কথা।

বড় হয়ে শুনেছি নানা conspiracy theory, কিন্তু সচলায়তনকে ঘিরে...
উচিত না, মানায়ও না। আশাকরি অতি শীঘ্র শুভ বুদ্ধির উদয় ঘটবে "তাহাদের"!!

পাঠক এর ছবি

রাজাকারদের বিরুদ্ধে লড়াইটাও কিন্তু একই সাথে চালিয়ে যেতে হবে।

ধ্রুব হাসান এর ছবি

আসলেই কিছু তথ্যের ব্যাপারে সুনির্দিষ্টভাবে জানা জরুরী। যদি সত্যিই সরকারের পক্ষ থেকে সচল বন্ধ করে দেয়া হয় তবে তা নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন। আর যদি বিটিটিবি'র ভেতর থেকে কেউ সাবোটাজ করতে করে থাকে তাও নিশ্চিত হওয়া দরকার। এই ব্যাপার দু'টি নিশ্চিত হতে মডুগনের কেউ বা সচলের কোন সদস্য কি অফিসিয়ালি বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রানালয়ের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন? এমন কি টেলিফোন ইন্টারভিউও যদি নিয়ে তা এখানে আপলোড (বা ইউটিউবে আপলোড) করা যায় তো একটা সমাধানে দ্রুত যাওয়া যায়। দ্বিতীয়ত বিটিটিবি'র ভেতরকার কারো কারো ইন্টারভিউও যদি নেয়া যায়! আমার বিশ্বাস ওখানে যেমন মোল্লা পক্ষের লোকও রয়েছে, তেমনি আমাদের পক্ষের লোকও থাকতে পারে। যদি কাজটা ভেতর থেকে হয়ে থাকে তবে নাম প্রকাশ না করে ওদের ইন্টারভিও নেয়া যেতে পারে।

আর নিশ্চিত হওয়ার পর যদি আমাদের জানানো হয় তবে আমরা ছোটখাটো পর্যায়ে কিছু সাহায্য করতে পারি। অন্তত বৃটেনসহ কিছু কিছু ইউরোপিয়ান মিডিয়াতে ব্যাপারটা ফলাও করে প্রচার করা যেতে পারে (যদিও জানি কয়েকবার প্রচারের পরই বন্ধ হয়ে যেতে পারে)।

তবে যে ব্যাপারটাতে আমি আশার আলো দেখছি, তা হলো, সত্যি সত্যি যদি তারা (সরকার/জামাতিরা) এই কাজটা করে থাকে তো বললো, নেটের শক্তি দিনে দিনে বাড়ছে দেশেও! এর সুফল নেয়ার সময় এসেছে। এখন অন্য সবার আরো বেশী করে মনোযোগ দেয়া উচিত দেশের রাজনৈতিক ঘটনা প্রবাহের উপর। একটা ব্যাপার ঠিক বুঝে উঠতে পারছিনা, নিজামী মুক্তির সাথে এর কোন যোগসাজশ রয়েছে কিনা! বাংলাদেশে রাজনীতির পুরো চিত্রই যেন হঠাত করে পাল্টাতে শুরু করেছে। সরকার যদি সম্ভাব্য আন্দোলন ঠেকাতে (জামাতের ভয়ে) নিজামীকে মুক্তি দেয় তো বললো ওদের হিসাবে বড়ো ধরনের ভুল হচ্ছে। ঠিক এই সময়ে আমাদের সবার মনে হয় জামাতীদের চরিত্র ন্যাংটো করে সবার সামনে তুলে ধরা উচিত। যে যেখান থেকে পারেন অডিও/ভিডিও/লেখা/ সাম্প্রতিক ঘটনা যা কিছুই জামাতের সাথে রিলেটেড তা সমস্ত ব্লগে ছড়িয়ে দিন। যে কোন জামাতনেতা বা কর্মী, ছোট বা বড় যে কোন ধরনের অন্যায়ই হোক না কেন(!), যা তারা অন্তরালে করে চলেছে দেশে/বিদেশে তার ডকুমেন্টেশন করে ছড়িয়ে দিন অন্তর্জালে(নিজের নাম গোপন রেখে)। দেখা যাক ওরা কয়টা সংগঠন বন্ধ করতে পারে, আর আমরা কয়টা আগুনের জন্ম দিতে পারি! চিয়াস্‌ চলুক!

ধ্রুব হাসান এর ছবি

সম্মানিত মডারেটরগনের কাছে অনুরোধ, এই বিষয়ে একটা গ্রহনযোগ্য সমাধানে না পৌছাঁ পর্যন্ত কি আপনারা এই পোষ্টটা ষ্টিকি করে দিতে পারেন?

টুটুল এর ছবি

মাসুম বলেছেন:
জুলাই 16th, 2008 at 11:19 pm

বিটিআরসির সাথে আমরা পত্রিকা থেকে কথা বলেছি। তারা বলেছে যে ব্যান করা হইছে। এই নিউজ কাল যাবে। অতএব সকাল হলে বলতে পারবো যে সোর্স পত্রিকা।

শওকত হোসেন মাসুম, প্রথমআলো

রাশেদ এর ছবি

ব্যক্তিগতভাবে মনে করি চুপচাপ যদি সমাধা করা যায় করে ফেলা ভালো। চিল্লাচিল্লি করে সরকারের নজত ইন্টারনেটের দিকে ভালোমত দেয়ার দরকার নাই মনে হয়। তাহলে রেস্ট্রিকশন বাড়তে থাকবে সব সাইটে আস্তে আস্তে।

প্রাথমিক যেই সমাধানের কথা দেখছিলাম কোন পোস্টে, সেইটা করে দেখাই ভালো, সমাধান হয় নাকি। তাইলে মনে হয় বুঝা যাবে সত্যিই ব্যান করা হইছে নাকি।

দিগন্ত এর ছবি

"তবে যে ব্যাপারটাতে আমি আশার আলো দেখছি, তা হলো, সত্যি সত্যি যদি তারা (সরকার/জামাতিরা) এই কাজটা করে থাকে তো বললো, নেটের শক্তি দিনে দিনে বাড়ছে দেশেও!"

একদম খাঁটি কথা ... মিডিয়াতে নেমে পড়ুন। লিখুন বিশ্বস্ত সূত্রের খবর যে সচলায়তন বাংলাদেশে ব্যানড। কোনোভাবেই কারো নাম নেবার দরকার নেই। শুধু খবরই যথেষ্ট। সবাই জানুক যা আমরাও জানি ... শুধু সচলে নই, বাকি সব মিডিয়াতে ... এমনকি সচলের পাশাপাশি যত বাংলা ব্লগ সাইট আছে সেগুলোতেও পোস্টানো যেতে পারে ... নিউজ মিডিয়ায় দিতে পারলে আরো ভাল।


হাতি ঘোড়া গেল তল, মশা বলে কত জল।


পথের দেবতা প্রসন্ন হাসিয়া বলেন, মূর্খ বালক, পথ তো আমার শেষ হয়নি তোমাদের গ্রামের বাঁশের বনে । পথ আমার চলে গেছে সামনে, সামনে, শুধুই সামনে...।

ধ্রুব হাসান এর ছবি

আমার হাতে কাল পর্যন্ত সময় আছে। এর মধ্যে কোন কিছু না ঘটলে আপনার পরামর্শই কাজে লাগাবো। পরশু থেকে অন্তত কিছু টেভিশনে যাতে নিউজটা যায় সে ব্যবস্থা করছি। দেখা যাক...।

জিফরান খালেদ এর ছবি

মামা, এখানের মিডিয়াতে কি কিছু করা যায়?

ফারুক ওয়াসিফ এর ছবি

একদম খাঁটি কথা ... মিডিয়াতে নেমে পড়ুন। লিখুন বিশ্বস্ত সূত্রের খবর যে সচলায়তন বাংলাদেশে ব্যানড। কোনোভাবেই কারো নাম নেবার দরকার নেই। শুধু খবরই যথেষ্ট। সবাই জানুক যা আমরাও জানি ... শুধু সচলে নই, বাকি সব মিডিয়াতে ... এমনকি সচলের পাশাপাশি যত বাংলা ব্লগ সাইট আছে সেগুলোতেও পোস্টানো যেতে পারে ... নিউজ মিডিয়ায় দিতে পারলে আরো ভাল।

This must be done.

আমার মনে হয় না জামাতিরা করেছে। মনে না হওয়ার সঙ্গত কারণ আমার লেখার মধ্যে উল্লেখ করেছি। আমি নিশ্চিত। কিন্তু খেলার ব্যকরণ ভাঙ্গা আমার পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না বলে দুঃখিত।
গত কয়েকদিনের লেখা/ছড়া/মন্তব্য এবং ছবি ভাল করে খেয়াল করুন উত্তর পেয়ে যাবেন।

হাঁটাপথে আমরা এসেছি তোমার কিনারে। হে সভ্যতা! আমরা সাতভাই হাঁটার নীচে চোখ ফেলে ফেলে খুঁজতে এসেছি চম্পাকে। মাতৃকাচিহ্ন কপালে নিয়ে আমরা এসেছি এই বিপাকে_পরিণামে।

তীরন্দাজ এর ছবি

জামাল ভাস্কর সামহোয়ারে বাংলাদেশে সচলায়তন ব্লক করা নিয়ে একটি পোষ্ট দিয়েছিলেন। সেটা মুছে দেয়া হয়েছে। এতে সামহোয়ারের চরিত্রটিও স্পষ্ট হলো।

জঘন্য ব্যপার! নির্বচনের আগে জলপাই বুঝিয়ে দিল তারা কোনদিকে পাল ওঠাবে।

**********************************
কৌনিক দুরত্ব মাপে পৌরাণিক ঘোড়া!

**********************************
যাহা বলিব, সত্য বলিব

রাশেদ এর ছবি

আরো কয়েকজন দিছিলো। সবারটাই মুছা হইছে।

সা.ইনকে কি খুব বেশি দোষ দেয়া যায়? তারা একটা কোম্পানি, বাংলাদেশে ব্যবসা করে। আর্মির ব্যানের বিরুদ্ধে কি খুব উচ্চকন্ঠ হয়ে থাকা তাদের দ্বারা সম্ভব? প্রথম আলোর মত বিগ বিগ নেইম পা চাটে, সেইখানে সা.ইন এর স্ট্যান্সকে দোষ দেয়া মনে হয় না যায়।

জিফরান খালেদ এর ছবি

একমত।

তবে, বিপক্ষ লেখনীকে যখন ঠেকানো হয়না, একটা তির্যক প্রশ্ন উঠেই যায়।

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

এই বিষয়ক লোকালটকের একটা পোস্ট এখনো সরায় নাই, আরেকটা অনেকক্ষণ প্রথম পাতায় রেখে তারপর সরিয়েছে। যাহোক, এটা নিয়ে বলার কিছু নাই। তাদের ব্লগ তারা কতোটা কথা বলার সুযোগ দেবে, তার সিদ্ধান্ত তারাই নিক।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

রাশেদ এর ছবি

এইরে! আপ্নের লগে তর্ক করে কেডায়! আমি নাই! চোখ টিপি

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

ডরাইও না, তর্কাতর্কি নাই। মুসলমান সব ভাই ভাই। হাসি

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- ইয়েস।
ঠিক এই কথাটাই বলতে চাইতেছিলাম আমি। যদি সরাতেই হয় বা সরায় তাহলে তদসংক্রান্ত সব লেখাই সরাবে। কিন্তু সেটা সামহোয়ার করে নাই।
___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

সবই তাদের ইচ্ছা।
পাকেস্তান জিন্দাবাদ।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

দ্রোহী এর ছবি
মাহবুব লীলেন এর ছবি

শালার পুরা আন্ধারে আছি

মাসুদা ভাট্টি এর ছবি

এখানে একটি মন্তব্য করেছিলাম আজ, মন্তব্যটি দেখছি না। কেন হারিয়ে গেলো বুঝতে পারছি না।

কেউ কি বলবেন, কেন হারালো? নাকি ইচ্ছে করেই মোছা হয়েছে? কেউ মুছে ফেলেছে? দয়া করে জানাবেন।

এমনিতেই উদ্বেগের অন্ত নেই, তারপর আবার যদি মন্তব্য উধাও হয় তাহলে তা সীমা ছাড়ায়।

যাহোক, মন্তব্য খুঁজে পাওয়া গেলে পোস্টের লেখক মন্তব্যটি দয়া করে মুছে দেবেন।
ধন্যবাদ।

লাইঠেল(লগাই নাই) এর ছবি

নীড়পাতায় আলী আমানের ছবি চাই, আলী আমানের মতো আমরাও নির্ভয়-এ গলা ফাটিয়ে চিৎকার করে নিজামী শুয়ারের বাচ্চাদের বিচার চাই।
গলার ভেতর হাত ঢুকাইয়া এদের পচা কলিজা হ্যাচকা টানে ছিইড়া আনা দরকার।

উদাস এর ছবি

হায় হায়! এ ও কি সম্ভব?
দেশ দেখি সত্যি সত্যি আজ বিশ্ববেহায়ার খপ্পরে।
আমি সামান্য অতিথি, ডালাস এ থাকি। কিন্ত গত কয়েকমাস ধরে সচলায়তন প্রানের সাথে মিশে আছে। একদিন ভাত না খাইলে যেমন মনে হয় কি জানি খাওয়া হইলোনা, তেমনি সচলে না আসলেও মনে হয় কি জানি করা হলো না। যদি এখান থেকে আমার পক্ষে কিছু করা সম্ভব হয় জানাবেন ... অনশন করা থেকে শুরু করে কারও কলিজা টেনে ছিড়ে আনা পর্যন্তু যা কিছু দরকার করতে রাজী আছি।

অমিত আহমেদ এর ছবি

ব্লকড সাইটে ঢুকতে হলে এই [পোস্টটি] দেখতে পারেন।


ওয়েবসাইট | ফেসবুক | ইমেইল

জুলিয়ান সিদ্দিকী এর ছবি

http://www.bdnews24.com/bangla/details.php?id=30918&cid=2 তে খবরটা পড়লাম। ব্যাপারটি আরেকটু ভালোর দিকে এগোলো।
____________________________________
ব্যাকুল প্রত্যাশা উর্ধমুখী; হয়তো বা কেটে যাবে মেঘ।
দূর হবে শকুনের ছাঁয়া। কাটাবে আঁধার আমাদের ঘোলা চোখ
আলোকের উদ্ভাসনে; হবে পুন: পল্লবীত বিশুষ্ক বৃক্ষের ডাল।

___________________________
লাইগ্যা থাকিস, ছাড়িস না!

শামীম এর ছবি

তাইতো বলি গতকাল থেকে সচলায়তনে ঢুকতে পারছিলাম না কেন?

এখন অবশ্য সুড়ঙ্গ পথে আছি।
________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

বজলুর রহমান এর ছবি

সচলায়তনে আকতারের ছড়া প্রকাশ বন্ধ করে নীচের জিনিসগুলি প্রচার করলেই আই,পি সেন্সরশিপ উঠে যাবেঃ
১) জেনারেল মঈনের "স্বনির্বাচিত সংকলন" বইটির উচ্ছসিত প্রশংসা;
২) মঈনের ট্রাস্ট ব্যাঙ্ক ঋণের কেলেঙ্কারী মিথ্যা ঘোষণা;
৩) মঈন ও সেনাবাহিনীর (মাসুদ ছাড়া) স্বজনপ্রিয়তার খবরগুলো দুর্জনের মিথ্যা রটনা বলে স্বীকার করা।

হাবিবুর রহমানের সাথে আমার একবার এক বিষয়ে আলাপ হয়েছিল; মনে হয়েছিল লোকটা বি,টি,টি,বির ফাইবার ব্যান্ড উইথের কালোবাজারী করে। তার টেকনিকাল নলেজ যথেষ্ট মনে হয় নি। প্রক্সি ব্যবহার করে চালু করলে তার এক সপ্তাহ লেগে যাবে ধরতে।

স্পর্শ এর ছবি

অফিসে ব্যান করছিল আগেই (কাজ কর্ম লাটে উঠেছিল সব) ! আজ দেখি বাসা থেকেও ঢোকা যাচ্ছেনা!!! অবশেষে প্রক্সির সাহায্য নিয়ে এইখানে আসলাম।

আগের কোন একটা ব্লগের কমেন্টে এধরণের আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলাম। এখন সেটা দেখি সত্যিই হয়ে গেল।

দেখলেন তো! দেশটার কি হাল!!

ব্যান করার কোন কারণ কি দেখান হয়েছে? অফিসিয়ালী?
....................................................................................
অতঃপর ফুটে যাবার ঠিক আগে হীরক খন্ডটা বুঝলো, সে আসলে ছিল একটা মামুলি বুদবুদ!


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...

ইশতিয়াক রউফ এর ছবি

তোমার অফিসে আগে থেকে সচলায়তন ব্যান হওয়া ছিল শাপে বর। সেটা ছিল বলেই ব্যান্‌ড অবস্থায় ঢোকার মত একটা পথ হাতের কাছে পাওয়া গিয়েছিল।

ধন্যবাদ সেজন্য অনেক... তোমার অফিসের সিস্টেম অ্যাডমিন'কে! দেঁতো হাসি


রাজাকার রাজা কার?
এক ভাগ তুমি আর তিন ভাগ আমার!

হাসান মোরশেদ এর ছবি

না । কোন কারন দর্শানোর তোয়াক্কা তারা করেনা ।
-------------------------------------
বালক জেনেছে কতোটা পথ গেলে ফেরার পথ নেই,
-ছিলো না কোন কালে;

-------------------------------------
জীবনযাপনে আজ যতো ক্লান্তি থাক,
বেঁচে থাকা শ্লাঘনীয় তবু ।।

দ্রোহী এর ছবি

৩৬.১ এ আমার একটা কমেন্ট ছিল।





কী ব্লগার? ডরাইলা?

শেখ জলিল এর ছবি

সকাল আটটার দিতে একটু ভেলকিবাজি দেখলাম। সরাসরি সচলে ঢুকতে পেরে মনে হলো ব্যান উঠে গেছে। কিন্তু না, নয়টার পর থেকে আবার সেই প্রক্সি সার্ভার দিয়ে ঢুকতে হচ্ছে। ঢুকতে গেলে কীসব এ্যাড এসে ভীড় করে স্ক্রীনে! আর আমার আইপি এড্রেস শো করে।
সত্যিই পরা আন্ধারে আছি! শংকাও হচ্ছে।

যতবার তাকে পাই মৃত্যুর শীতল ঢেউ এসে থামে বুকে
আমার জীবন নিয়ে সে থাকে আনন্দ ও স্পর্শের সুখে!

তানভীর এর ছবি

একজন আমাকে নীচের কমেন্ট এবং কনটাক্ট নাম্বারগুলো পাঠিয়েছেন। দেশে (বা বিদেশে) যারা আছেন তারা এগুলোতে যোগাযোগ করে সচলায়তনের ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে দেখতে পারেন।

বিটিটিবি ০১ জুলাই থেইকা কোম্পানী হইছে।
নতুন নাম বিটিসিএল।
এইটা একটা বিরাট ষড়যন্ত্রের অংশ।
সারাদেশের বিশাল সম্পত্তি অহন লুটপাট হইব আর বিদেশীরা আইসা খাইব।

যাউকগা, একজন কইছেন ইন্টারনেটের চেয়ারম্যানের সাথে কথা কইছেন। আসলে ইন্টারনেট হইল ওভারসিজ টেলিকমিউনিকেশন রিজিয়নের অধীনে একটা বিভাগ। ইহার নাম টেলেক্স/টিপি। টিপি হইল টেলিপ্রিন্টার। এই বিভাগটি অনেক পুরানা, ইন্টারনেট চালু হইলে তাহা ইহার অধীনে দেওয়া হয়। ইহার কর্মকর্তা হইলেন একজন বিভাগীয় প্রকৌশলী, মানে ডিভিশনাল ইঞ্জিনিয়ার, যিনি ৫ম গ্রেডে টেলিকম ক্যাডারের চাকুরে। তাহার অফিস মগবাজার টিএন্ডটি তে (ফোন: ৮৩৬১৬৯৯, ফ্যাক্স: ৮৩৬০৬৯৯, ইমেইল: )। এখানে কোন চেয়ারম্যান নাই। ওভারসীজ অঞ্চলের প্রধান হইলেন জেনারেল ম্যানেজার, যিনি কড়াইলে বসেন।

বিটিটিবি'র চেয়ারম্যান যিনি ছিলেন, তিনিই এখন বিটিসিএল এর এমডি (ফোন: ৮৩১১৫০০, ৮৬৫১৮০০, ফ্যাক্স: ৮৩১২৫৭৭)। আর বিটিসিএল এর চেয়ারম্যান হইছেন পোস্ট এন্ড টেলিকম মন্ত্রণালয়ের সচিব ইকবাল মাহমুদ (ফোন: ৭১৬২১৬০, ফ্যাক্স: ৭১৬৫৭৭৫)। মাহমুদ সাহেব টেলিটকের চেয়ারম্যান, টেশিসের চেয়ারম্যান, ক্যাবল ফ্যাকটরীর চেয়ারম্যান। আর বিটিটিবি'র সাবমেরিন কেবল ডিপার্টমেন্টরে আলাদা কোম্পানী করা হইছে, উনি সেইটার ও চেয়ারম্যান।

অহন আর কিছু কমু না। আপনেরা কন।

= = = = = = = = = = =
ঊষার দুয়ারে হানি আঘাত
আমরা আনিব রাঙা প্রভাত
আমরা ঘুচাব তিমির রাত
বাধার বিন্ধ্যাচল।

ধ্রুব হাসান এর ছবি

আপনারে লেইট জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ। কিন্তু ভাইজান যা ঘটনা বর্ণনা দিলেন তাতে তো সন্দেহ আরো গাঢ় হয়!

যাউকগা, একজন কইছেন ইন্টারনেটের চেয়ারম্যানের সাথে কথা কইছেন। ..............................................................................।।এখানে কোন চেয়ারম্যান নাই।

তবে অসংখ্য ধন্যবাদ সমস্ত ডিটেইল দেয়ার জন্য। দু'চার ঘন্টা ঘুমিয়ে নিয়ে চেষ্টা করবো ফোন করে এদের ব্যক্তব্য নেয়ার। থ্যাঙ্কস্‌ বদ্দা!

তানভীর এর ছবি

বদ্দা, লেইট ন অয়। এডে কেবল ১৭ অইয়্যে। অনেরেও ধইন্যবাদ।

= = = = = = = = = = =
ঊষার দুয়ারে হানি আঘাত
আমরা আনিব রাঙা প্রভাত
আমরা ঘুচাব তিমির রাত
বাধার বিন্ধ্যাচল।

ধ্রুব হাসান এর ছবি

হা হা হা, গ্লোবাল টাইমিং-অর বউত ফজিলত দেখি! অনে তো আবার মদ ন খন, সো অনোরে খেজুর আর হালাল ফানির একরাশ তোফা চলুক

তানভীর এর ছবি

বহুত শুকরিয়া চলুক

= = = = = = = = = = =
ঊষার দুয়ারে হানি আঘাত
আমরা আনিব রাঙা প্রভাত
আমরা ঘুচাব তিমির রাত
বাধার বিন্ধ্যাচল।

জিফরান খালেদ এর ছবি

এই মেসেজবাহককে অসংখ্য ধন্যবাদ।

কীর্তিনাশা এর ছবি

সচল আছি। সচল থাকবো সব সময়।

-----------------------------------
সোনার স্বপ্নের সাধ পৃথিবীতে কবে আর ঝরে !

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA