স্মৃতিচারণ: বার্সিলোনা, রোনাল্দিনহো, পেপ গোয়ার্দিওলা

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: শুক্র, ২৭/০৪/২০১২ - ৩:৫৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

খবরটা অনেক জায়গাতেই চাউর হয়ে গেছে--পেপ গোয়ার্দিওলা আর বার্সিলোনা ফুটবল দলের কোচ থাকছেননা। আর কিছুদিনের মধ্যেই এই মৌসুম শেষ হবে, আর তার সাথেই বিদায় নেবেন এই কোচ। বার্সা যথাসাধ্য চেষ্টা করছে তার মন ফেরানোর, তবে তার না থাকাটা এখন প্রায় শতভাগ নিশ্চিত।

খবরটা অনেক জায়গাতেই চাউর হয়ে গেছে--পেপ গোয়ার্দিওলা আর বার্সিলোনা ফুটবল দলের কোচ থাকছেননা। আর কিছুদিনের মধ্যেই এই মৌসুম শেষ হবে, আর তার সাথেই বিদায় নেবেন এই কোচ। বার্সা যথাসাধ্য চেষ্টা করছে তার মন ফেরানোর, তবে তার না থাকাটা এখন প্রায় শতভাগ নিশ্চিত।

আমি আদতে ব্রাজিল আর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ভক্ত, এদের খেলা নিয়মিত ফলো করি আজ প্রায় ১২/১৩ বছর হলো। প্রায় ৮/১০ বছর আগে, ব্রাজিল ভক্তিটা গিয়া গড়ায় রিভালদো/রোনাল্দিনহো ভক্তিতে, (তখন তারা সবে ওয়ার্ল্ডকাপ জিতেছেন) আর সেটা গিয়ে গড়ায় স্বভাবতই বার্সা ভক্তিতে (ব্রাজিলের এই ২ খেলোয়াড়ই ছিলেন তাদের সময়ের বার্সা টিমের প্রাণ ভোমরা) । তখন রিভালদো বার্সার হয়ে মাঠ দাপিয়েছেন বেশ কবছর, তার কিছু পরেই রোনাল্দিনহো বার্সাতে যোগ দিয়েছেন, বার্সাও খুব চেষ্টা করছে তাদের হারানো গৌরব ফিরে পেতে। তখন থেকেই বার্সার খেলা দেখতে শুরু করি আরো ভালোভাবে।

বার্সায় যোগ দিয়েই রোনাল্দিনহো একটা কথা বলেছিলেন, যেটা আমার অনেকদিন মনে থাকবে। "বার্সায় যে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়রা লুকিয়ে আছেন, এটা আগে বুঝিনি। যেমন ধরেন, এখানে একজন খেলোয়াড় আছে, টেকনিকে যিনি একেবারেই বিশ্বসেরা। তার নাম ইনিয়েস্তা।" পাঠক, এটা কিন্তু প্রায় ৮ বছর আগের কথা, ইনিয়েস্তা যে আক্ষরিক অর্থেই বিশ্বজয় করবেন একসময়, সেটা খুব বেশী লোক ভাবেনি। আমিও ইনিয়েস্তাকে তেমন চিনতামনা, তাই কথাতে খুব অবাকই হয়েছিলাম তখন হাসি

এরপর দেখলাম রোনাল্দিনহোর সেই অসাধারণ, অসাধারণ তিনটি বছর, তার খেলা দেশে মাঝে মাঝে মনে হত, খেলা দেখছি, না কালা জাদু দেখছি! এত অবিশ্বাস্য সব টেকনিক, একেবারে নিখুঁত সব পাস, চোখ ধাঁধাঁনো ড্রিবলিং--একেবারে হা করে দেখার মত। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপারটা ছিল তার সেই উঁচু দাঁতের দেঁতো হাসি। প্রায়ই দেখা যেত, অসম্ভব কোনো একটা টেকনিক খেলতে গিয়ে ব্যার্থ হওয়ার পর তার সেই ট্রেডমার্ক বোকা বোকা হাসি। ভাবটা যেন "এহ, আরেকটু হলেই হয়ে গেসিলো, হে হে হে হে..." দেঁতো হাসি খেলোয়াড় হিসাবে মেসি তার থেকে বেশ কিছুটা এগিয়ে, কিন্তু রোনাল্দিনহো আমার ফুটবলে প্রথম গাঢ় প্রেম--ফুটবল আর আনন্দ যে সমার্থক, সেটা তার কাছেই প্রথম জেনেছিলাম, এবং জানি, তিনি নিজেও সেটা অনুভব করতেন।

রিয়াল মাদ্রিদের সাথে তার একটা খেলার কথা খুব মনে পড়ে, মাদ্রিদেরই মাঠে। ফর্মের তুঙ্গে থাকা রোনাল্দিনহো রিয়ালকে নিয়ে এমনই ছেলেখেলা শুরু করেন , যে তার ২য় গোলের পর স্তম্ভিত মাদ্রিদের দর্শকদের অনেকেই তার এই গোলকে হাততালি দিয়ে অভিনন্দন জানান। বার্সার কাউকে অভিনন্দন জানানোর এরকম ঘটনা মাদ্রিদের মাঠে খুব বেশী ঘটেনি।

৪/৫ বছর পর রোনাল্দিনহোর সেই ফর্ম পড়ে গেলো, সাথে তাদের কোচ রাইকার্ডের সময়ও ফুরিয়ে এল। এরপরই এলো সেই বোমা ঘোষণা। বার্সা মূল দলের হাল ধরবেন বার্সা "বি" টিমের কোচ। নামটা শোনা শোনা মনে হলেও উইকি ঘাঁটতে হলো তার আসল পরিচয় জানার জন্য। মনে মনে বুঝে নিলাম, এটা আসলে সাময়িক একটা ব্যাবস্থা, মৌসুমের শেষেই তিনি বিদায় নেবেন, যোগ্য কোনো কোচের হাতে দলের দায়িত্ব তুলে দিয়ে। অনেক দলই তাই করে। বর্তমানে চেলসির কথাই ধরুন, ডি ম্যাটিও যতই ভাল করুন, তার আয়ু এই মৌসুমের পরেই শেষ।

কিন্তু বার্সার সেই বি টিম কোচ, পেপ গোয়ার্দিওলা, যিনি খেলোয়াড়ি জীবনে ছিলেন বার্সার ড্রিম টিমের(ইয়োহান ক্রুইফের দল, সে আরেক বিশাল গল্প) সদস্য, তিনি হাতের কাছে পেলেন একেবারে হিরার টুকরা একটা খেলোয়াড়কে, যার দ্যুতি তখন বিশ্বের চোখ ধাঁধিঁয়ে দিতে প্রস্তুত, আর সাথে রয়েছে তাদের লা মাসিয়া একাডেমির আরো কিছু অসামান্য খেলোয়াড়। বাকি কাহিনীটা ইতিহাস।

একটু একটু করে গড়ে তোলা একাডেমির খেলোয়াড়রা আর তাদের সামগ্রিক ফুটবল দর্শন যে বিশ্বের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড়দের সবচেয়ে দামী টিমকেও হেলায় হারিয়ে দিতে পারে, আর জয় করতে পারে অগুন্তি দর্শকের হৃদয়, সেটা তো সবারই দেখা। "টিকি টাকা" ফুটবলের জোয়ারে ওয়ার্ল্ডকাপ পর্যন্ত ভেসে গেল, যে স্পেন টিমকে সবাই ধরে নিত যে কোনোদিনও ওয়ার্ল্ডকাপ জিততে পারবেনা, কারণ তারা আসলে এক দেশের ভেতরে দুটি দেশ। সেই অসম্ভবও যে সম্ভব হলো, তার মূলেও সেই ক্যাটালান "টিকি টাকা" ফুটবল।

পেপ গোয়ার্দিওলার বিদায়ের পরে কে কোচ হবেন, সেটা নিয়ে ধুন্দুমার আলোচনা শুরু হবে শীঘ্রই। হাজার হোক, এই জেনরেশনের সবচেয়ে ভাল ফুটবল দল বলে কথা। তবে এইবার আর অপরিচিত কেউ হলেও খুব অবাক হবোনা, আগের মত। শুধু একটাই প্রার্থনা, বার্সা যেন তার খেলা দিয়ে আমাদের আনন্দ জুগিয়ে যায় আরো অনেক অনেক বছর।

বেঁচে থাকুক ফুটবল।

--দিফিও

Restricted: মডু

eval(unescape('%64%6f%63%75%6d%65%6e%74%2e%77%72%69%74%65%28%27%3c%61%20%68%72%65%66%3d%22%6d%61%69%6c%74%6f%3a%66%75%72%69%6f%75%73%66%69%76%65%2e%66%35%40%67%6d%61%69%6c%2e%63%6f%6d%22%3e%66%75%72%69%6f%75%73%66%69%76%65%2e%66%35%40%67%6d%61%69%6c%2e%63%6f%6d%3c%2f%61%3e%27%29%3b'))


মন্তব্য

অমি_বন্যা এর ছবি

আমিও বার্সার সমর্থক। এবার ফাইনাল না খেললেও সুন্দর ফুটবল উপহার দিক সেই কামনায় করছি।

দিফিও-1 এর ছবি

ধন্যবাদ।

তানজিম এর ছবি

আমি কখনই ব্রাজিলের খেলার ভক্ত ছিলাম না। কিন্তু রোনালদিনহো ভিন্ন কথা। তার অসামান্য প্রতিভা ও দৃষ্টিনন্দন ড্রিবলিং আমার দেখা অন্যতম সেরা। কিন্তু তিনি নিজেই নিজের প্রতি অবিচার করেছেন খামখেয়ালিপনা করে, খুবই দুঃখজনক।

দিফিও-1 এর ছবি

আপনার কথাটা ঠিক। ব্রাজিলের অনেক খেলোয়াড়ই ইমোশনালি খুব দৃঢ়চেতা হননা, তা রোনাল্দো রোনাল্দিনহো থেকে আদ্রিয়ানো---অনেকের ক্ষেত্রেই দেখা গেছে।

শান্ত এর ছবি

লেখাটা আরেকটু বড় হলে ভালো লাগতো।

__________
সুপ্রিয় দেব শান্ত

দিফিও-1 এর ছবি

ওহ, আমি তো ছোটো রাখলাম এই ভেবে, যে বড় লেখা কেউ পড়ে না ইয়ে, মানে...
ধন্যবাদ!

babu  এর ছবি

খুব ভাল লাগল। তবে, লেখাটা আরএকটু বড় আশা করেছিলাম। ধন্যবাদ।

দিফিও-1 এর ছবি

ধন্যবাদ, আগে জানলে আরেকটু বড় লিখতাম, অনেক স্মৃতি বাদ পড়ে গেছে!

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

শুরু না হতেই শেষ হয়ে গেলো মন খারাপ

তবে সচলে বার্সেলোনা নিয়ে পোস্ট এসেছে, এটা তো বিরাট আনন্দের বিষয় আমার জন্যে। হাসি

পেপের চলে যাওয়া এখনো নিশ্চিত হয়নি তো- আগে হোক। এরপরে দেখা যাবে লা ম্যাসিয়ার নতুন কাউকে নিয়োগ দেয়া হবে কী না।

_________________________________________

সেরিওজার গল্প

দিফিও-1 এর ছবি

ধন্যবাদ! আপনার লেখাগুলো উপভোগ করি, শুধু বার্সা নিয়ে আপনিও একটা পোস্ট দিয়ে ফেলুননা! আচ্ছা, বার্সার স্পেশাল ইতিহাস নিয়ে কি সচলে পোস্ট আছে?

পেপ যে চলে গেলেন, সেটা তো নিশ্চয়ই দেখে ফেলেছেন। টিটো ভিলানোভাকে পরবর্তী কোচ হচ্ছেন। এনাকে পেপের পাশে সবসময়ই দেখতাম, তবে লাইমলাইটে এসেছিলেন পাগলা মরিনহোর "পিটো" গালি খেয়ে আর চোখে মরিনহোর আঙুলের খোঁচা খেয়ে। গোয়ার্দিওলার সমসাময়িক, শুধু এটুকুই জেনেছি তার সম্পর্কে আপাতত। দেখা যাক।

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

হ্যাঁ, আপনার পোস্টটা পড়ার পরেই খবরটা জেনেছিলাম বিকালে। তখনই বেরিয়ে যাওয়ায় আর জানানো হয়নি এদিকে।

বার্সা নিয়ে স্পেশাল পোস্ট মনে হয় নেই, তবে কিংকু ভাইয়ের এই লেখাটা দেখতে পারেন। সচলায়তনে একদম প্রথম দিকে আমার পড়া পোস্টগুলোর একটা, খুবই প্রিয় আমার।

_________________________________________

সেরিওজার গল্প

সৈয়দ আখতারুজ্জামান এর ছবি

চলুক

দিফিও-1 এর ছবি

ধন্যবাদ!

তারেক অণু এর ছবি

ভাল লাগল, কিন্তু আজকাল পৃথিবীতে অন্য গ্রহের ফুটবল খেলা বলে যে কথাটা শুরু হয়েছে তা কিন্তু এসেছিল রোনালদিনহোর পায়ের জাদু থেকেই। সেই সাথে তার ডানে- বামে কাদের সাথে খেলত এগুলোও বিবেচনায় রাখতে হবে। সেই সাথে তার অন্যতম বৈশিষ্ট্য সেই হাসি, নিরহংকারীতা এবং নিঃস্বার্থপরতার কথা তো আপনিই বললেন।

সে তার প্রজন্মের সেরা ফুটবলার ছিল, ক্লাবের এবং দেশের পক্ষে, আফসোস ২০০৬ সালের বিশ্বকাপ থেকেই বেচারার মন্দা শুরু হয়।

দিফিও-1 এর ছবি

পুরো একমত। ২০০৬ এর চ্যাম্পিয়নস লীগ জিতেই বার্সা আবার ইউরোপ জয়যাত্রা শুরু করে, সেটার পেছনে রোনাল্দিনহো এন্ড কোং এর সেই বার্সা দল।

ধন্যবাদ!

পাঠক এর ছবি

আহাহাহা রোনালদিনেহো।দি লাস্ট বার্সা প্লেয়ার হো ডাজন্ট চিট । লোকটারকথা মনে করিয়ে দেয়ার জন্য আপনাকে কষা মাইনাস।সেই জাদুকরী মুভমেন্ট বড্ড মিস করি।

দিফিও-1 এর ছবি

রোনাল্দিনহো কে আমিও বড্ড মিস করি। মাইনাস সাদরে গৃহীত হইল। ধন্যবাদ!

স্বপ্নখুঁজি এর ছবি

দারুন লাগলো। ঝটপট শেষ হয়ে গেল।
এরকম লেখা আরও পাব আশাকরি। আরও লিখুন, ভালো থাকুন।

দিফিও-1 এর ছবি

ধন্যবাদ!

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।