যাহা বাংলাদেশ তাহাই পাকিস্তান নহে বিধায়!

হাসান মোরশেদ এর ছবি
লিখেছেন হাসান মোরশেদ (তারিখ: রবি, ২০/০৭/২০১৪ - ৩:২২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলাদেশের সর্বাধিক প্রচারিত সংবাদপত্র বলে কথিত দৈনিক প্রথম আলোতে গতকাল ১৯শে জুলাই ২০১৪ তারিখ সোহরাব হাসান এর লেখা একটি কলাম প্রকাশিত হয়েছে ‘যাহা জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ!’ শিরোনামে। সোহরাব হাসান প্রথম আলোর নিয়মিত কলাম লেখক। এক সপ্তাহ আগে ১১ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে এবং তাঁর তথ্য ,যোগাযোগপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ একটি সেমিনারে বলেন ‘যারা জিন্দাবাদ বলে তারা পাকিস্তানের এজেন্ট, তাদের পাকিস্তানে চলে যাওয়া উচিত’ । গত জুন মাসে ইংল্যান্ডে থেকে মালয়েশিয়ায় এসে তারেক রহমান এক সভায় আওয়ামী লীগের নামকরন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন- আওয়ামী লীগের নামেরই ঠিক নাই। আওয়ামী একটু উর্দু শব্দ এর অর্থ জাতি আর লীগ মানে দল। এতোদিনে আওয়ামী লীগ নিজের নামই ঠিক করতে পারেনি’

ধারনা করা যেতে পারে, আওয়ামী লীগের নাম নিয়ে তারেক রহমানের মন্তব্যের প্রেক্ষিতেই সজীব ওয়াজেদের ‘জিন্দাবাদ’ সংক্রান্ত মন্তব্য। গত দুইদশকে আওয়ামী লীগ তার চিরায়ত রাজনৈতিক ধারা থেকে বেশ কিছুটা সরে এসেছে। ’৯৬ সালে দীর্ঘদিন পর ক্ষমতায় আসার আগের একুশ বছর অস্তিত্ব রক্ষার সংকটকালীন সময়ে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের যে লড়াকু, সংগ্রামমুখর আচরন ছিলো পরবর্তীতে তার বিবর্তন ঘটেছে। কিন্তু ‘জিন্দাবাদ’ সংক্রান্ত সজীব ওয়াজেদ এর বক্তব্যে সেই র্যােডিকাল আওয়ামী লীগের ছায়া পাওয়া গেছে।
তবে আমাদের আলোচনার মুল বিষয় তারেক রহমানের ভুল মন্তব্য ( আওয়ামী মানে ‘জাতি’) কিংবা সজীব ওয়াজেদের র্যা ডিকাল প্রতিক্রিয়া নয় বরং আমরা কথা বলি প্রথম আলোর নিয়মিত লেখক সোহরাব হাসানের কলাম ‘যাহা জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ!’ প্রসঙ্গে।

একদিকে তারেক রহমান তথা বিএনপি , আরেকদিকে সজীব ওয়াজেদ তথা আওয়ামী লীগকে রেখে মাঝামাঝি একটা গ্রহনযোগ্য মিলমিশ এর প্রস্তাব বলে সোহরাব হাসান এর কলামকে মনে হতে পারে। সোহরাব তার লেখায় বলতে চেয়েছেন, ‘জয়বাংলা’ মুক্তিযুদ্ধের সময়কালীণ বহুল ব্যবহৃত একটি শ্লোগান যদিও সেই সময় ও সবাই ‘জয়বাংলা’ বলেননি। অথবা সেই সময় ও যারা বলেছেন তাদের অনেকেই পরে আর বলেননি। এ ছাড়া রাজনৈতিক শ্লোগান ‘জয়বাংলার’ অপব্যবহার ও হয়েছে অনেক- এই শ্লোগান দিয়ে খুন, রাহাজানি ইত্যাদি হয়েছে অতএব সজীব ওয়াজেদ যে ‘জিন্দাবাদ’ ওয়ালাদের পাকিস্তানের এজেন্ট বলেছেন সেটা ন্যায্য নয়।
সোহরাবের লেখা থেকেই পাওয়া যাচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ও তার আগে পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে জয়বাংলা ছিলো বাঙ্গালীর রাজনৈতিক শ্লোগান। নিপীড়নের বিরুদ্ধে নিপীড়িতের, সুবিধাভোগীদের বিরুদ্ধে অধিকারবঞ্চিতদের শ্লোগান। কিন্তু যে ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’কে প্রতিহত করে ‘জয়বাংলা’- আবার ‘জয়বাংলা’কে প্রতিস্থিত করে ‘বাংলাদেশ জিন্দাবাদ’ সেই রাজনীতি অর্থ্যাৎ জিন্দাবাদের রাজনীতিটুকু তার লেখায় অনুচ্চারিত।
বাঙ্গালীর স্বাধিকার আন্দোলনের যে দীর্ঘ ধারবাহিকতা, সেটি যখন সশস্ত্র মুক্তি সংগ্রামের পরিনতিতে এসে দাঁড়িয়েছে- তারই সাথে সাথে ‘জয়বাংলা’ শ্লোগান হয়ে উঠেছে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম প্রেরণা শক্তি যেমন জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা’। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এখনো বিস্মৃত হয়ে যাওয়ার মতো ঘটনা নয়। মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি অংশ নিয়েছেন, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি এখনো সতেজ এমন মানুষের সংখ্যা এখনো এইদেশে একেবারে কম নয়। যুদ্ধরত অবস্থায় পাকিস্তান আর্মি বা রাজাকারদের হাতে ধরা পড়েছেন, টর্চারের সময় বলা হচ্ছে ‘জিন্দাবাদ’ বলার জন্য- ঘৃণাভরে প্রত্যাখান করে চিৎকার করে বলেছেন ‘জয়বাংলা’- জয়বাংলা বলতে বলতে শহীদ হয়েছেন এমন মুক্তিযোদ্ধাদের আখ্যান মোটে ও বিরল নয়।
মুক্তিযুদ্ধের নয়মাস যেমন যুদ্ধ ছিলো পাকিস্তান বনাম বাংলাদেশ, পাকআর্মি-রাজাকার বনাম মুক্তিযোদ্ধা তেমন এই যুদ্ধ ছিলো পাকিস্তান জিন্দাবাদ বনাম জয়বাংলা। বাঙ্গালীর স্বাধিকার আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের সময় জিন্দাবাদের রাজনীতির বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিল জয়বাংলার রাজনীতি।

১৯৭১ এর ডিসেম্বর ১৬ তারিখের বিকেলবেলা যখন পাকিস্তান সেনাবাহিনী আত্ম্বসমর্পন করলো তখন আসলে বাংলাদেশের কাছে আত্বসমর্পন করলো বাংলাদেশ, নিপীড়ীতের কাছে নিপীড়ক, অধিকারবঞ্চিতের কাছে সুবিধাভোগী, জয়বাংলার কাছে পাকিস্তান জিন্দাবাদ।

তাহলে জিন্দাবাদ আবার ফিরে এলো কেনো? পাকিস্তান জিন্দাবাদ না হোক অন্ততঃ বাংলাদেশ জিন্দাবাদ? বাংলাদেশ জিন্দাবাদ ফিরে এলো, জয়বাংলাকে প্রতিহত করে সাড়ে তিনবছরের মাথায়। এটাও রাজনীতি। কিন্তু এই রাজনীতির উল্লেখ সোহরাব হাসান’রা এড়িয়ে যান।
আমার কাছে সবসময়ই মনে হয়, ১৯৭৫ এর পনেরো আগষ্ট একজন ব্যক্তি শেখ মুজিব ও তারপরিবারকে হত্যা করা হয়নি শুধু, হত্যা করা হয়েছে একটা নবীন রাষ্ট্রকে যে রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিলো ওক অবিস্মরনীয় গৌরবের মধ্য দিয়ে। কোন ঘটনাকে মুল্যায়ন করতে হয় সে ঘটনার পরিপ্রেক্ষিত, ফলাফল ও ধারাবাহিকতার বিবেচনায়।
আগষ্ট পনেরোর হত্যাকান্ডের সাথে সাথেই যে পরিবর্তন ঘটেছিলো সেটি হলো বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে ‘পিপলস রিপাবলিক’ থেকে ঘোষনা দিয়ে ‘ইসলামিক রিপাবলিক’ এ পরিনত করা এবং এই নবঘোষিত ‘ইসলামিক রিপাবলিক’টিকে প্রথম সমর্থন দানকারি রাষ্ট্রটি ও আরেকটি ‘ইসলামিক রিপাবলিক’ যার নাম হলো পাকিস্তান যার সাথে রক্তাক্ত সংগ্রাম ও সর্ব্বোচ্চ আত্মত্যাগ এর বিনিময়েই সাড়ে তিনবছর আগে ‘পিপলস রিপাবলিক’টির জন্ম হয়েছিলো। সোহরাব হাসান খুব হাল্কাচালে বলে প্রতিষ্ঠিত করতে চান ‘যাহা জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ’- সুতরাং এটা নিয়ে কথাবার্তা বলা অপ্রয়োজনীয়। কিন্তু সোহরাবদের কাছে যতো ‘হাল্কা’ যতো ‘অপ্রয়োজনীয়’ই মনে হোক না কেনো যারা পিপলস রিপাবলিককে ইসলামিক রিপাবলিক পরিবর্তন করেছিলো, ইতিহাসের জঘন্যতম এক হত্যাকান্ডের জন্ম দিয়েছিলো তাদের কাছে কিন্তু বিষয়টা এতো ‘হাল্কা’ এতো ‘অপ্রয়োজনীয়’ মনে হয়নি। সোহরাবের হাসান মতো তারা কিন্তু বলেনি ‘ যাহা জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ’। তারা ঠিকই জয়বাংলাকে নিষিদ্ধ করে জিন্দাবাদ ফিরিয়ে এনেছিলো। খদনকার মোশতাকের প্রথম রেডিও ভাষনেই ছিলো বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, এর আগে স্বাধীণ বাংলাদেশের সব ধরনের রাষ্ট্রীয় উচ্চারনে জয়বাংলা ছিলো।
খনদকার মোশতাক সহ ১৫ আগষ্ট হত্যাকাণ্ডের বেনিফিশিয়ারীরা যে পাকিস্তানের সাথে বাংলাদেশের পুর্নমিত্রতা চেয়েছিলো সে বিষয়ে রাজনীতির ন্যুনতম কান্ডজ্ঞান সম্পন্ন কারোরই সন্দেহ থাকার কথা নয়। জয়বাংলা থেকে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, তারপর সুবিধাজনক সময়ে সেটা আবার পাকিস্তান জিন্দাবাদে প্রত্যাবর্তনের সমস্ত আয়োজন ও ইঙ্গিত সেই সময়টা তৈরী করা হয়েছিলো- এমন স্বাক্ষ্য প্রমান কিন্তু ইতিহাস ও প্রদান করে।
৭৫ এর ১৫ আগষ্ট যে ‘জয়বাংলা’ নিষিদ্ধ হলো রাষ্ট্রীয় উচ্চারনে, গনমাধ্যমে - সেটি আবার ফিরে আসা, প্রতিষ্ঠিত হবার পথটি ও তো সোহরাব হোসেনের মতো অতো ‘সহজ’ ও হাল্কাচালে ঘটেনি। এর পেছনেও ও দীর্ঘ রাজনীতি, সংগ্রাম, রক্তক্ষয় রয়েছে।
প্রাসঙ্গিক আলোচনায় কেউ কেউ আওয়ামী লীগের সমালোচনা করেন- এই দলটি ‘জয়বাংলা’কে নিজেদের দলীয় শ্লোগানে পরিনত করেছে। অভিযোগের ধরনটা এমন যেনো আওয়ামী লীগ ‘জয়বাংলা’কে নিজেদের দলীয় শ্লোগানে পরিনত করার কারনেই তারা আর এক পরিত্যাজ্য করেছেন অথচ আওয়ামী লীগ কাউকে ‘জয়বাংলা’ স্লোগান দিতে নিষেধ করেছে বলে শুনা যায়নি কখনো।
আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে ‘জয়বাংলা’ স্লোগান রাষ্ট্রীয় ক্ষেত্রে ফিরিয়ে আনার মধ্যেই কি জয় বনাম জিন্দাবাদের রাজনীতি ফুরালো? মোটেও তা না। দীর্ঘ বছরের প্রতীক্ষা, দাবী ও আন্দোলনের প্রেক্ষিতে যখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রক্রিয়া শুরু হলো তখন দেখা গেলো যুদ্ধাপরাধীদের রাজনৈতিক দলতো বটেই দেশের অন্যতম রাজনৈতিক দল যার জন্ম হয়েছিলো শেখ মুজিব হত্যাকাণ্ডের ধারবাহিকতায় সেই দল ও প্রকাশ্যে এবং সুস্পষ্টভাবে বিচারের বিরোধীতা করছে। এই বিরোধীতা কেবল রাজনৈতিক নয় বরং কতোটা সহিংস,ধ্বংসাত্বক সেটা ও আমাদের দেখতে হয়েছে।

সোহরাব হাসান যখন জয়বাংলা উচ্চারন না করার পক্ষে যুক্তি দেখান যে, এই স্লোগান দিয়ে নানা অপকর্ম করা হয়েছে তখন তাকে সেইসব আকাঠ মুর্খদের মতোই মনে হয় যারা আইয়ূব খানের কথিত সুশাসনের ইউফোরিয়া ভুগেন,পাকিস্তান আমলই ভালো ছিলো বলে দীর্ঘশ্বাস ছাড়েন।

সোহরাব হাসান মনে করেন ‘সবাইকে জোর করে জয়বাংলা শ্লোগান দেওয়ানোর চেষ্টা ব্যক্তি ও বাকস্বাধীনতার উপর হস্তক্ষেপ’ কিন্তু বরাবরে মতোই নীরব থাকেন- জয়বাংলা কেনো নিষিদ্ধ হলো রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে, যারা জয়বাংলাকে সরিয়ে জিন্দাবাদ ফিরিয়ে আনলো তাদের রাজনৈতিক দর্শন ও অভিপ্রায় কী?

সোহরাব হাসানদের এই নীরব থাকা বা অর্ধসত্য প্রকাশ করা, বাকী অর্ধেক গিলে ফেলা এটাও রাজণীতি। উনি যাদের হয়ে যেখানে কলাম লিখেন, তাদের সেই রাজনীতি এখন আর অপকাশ্য নয়। প্রথম আলো এন্ড কোম্পানী’র পাকিস্তানের সাথে ‘রিকন্সিলিয়েশন ’ থিওরি আরো আগেই ধরা পড়ে গেছে।

যারা রিকন্সিলিয়েশন থিওরি ধারন করেন, বিক্রী করেন, গিলে খান- তাদের কাছে যাহাই জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ। কিন্তু যারা এই ভূ-খন্ডের দীর্ঘ স্বাধীকার আন্দোলন, সশস্ত্র মুক্তিসংগ্রাম, অবিস্মরনীয় আত্মত্যাগকে মনে রাখেন তাদের কাছে জয়বাংলা আর জিন্দাবাদ একাকার হয়না- চাঁদতারা আর লালসবুজের পার্থক্যটুকু তারা জানেন।

*******
লিংক সমুহঃ
১। প্রথম আলোতে সোহরাব হাসানের কলাম
২। পাকিস্তান জিন্দাবাদ বিষয়ে সজীব ওয়াজেদ
৩। আওয়ামী লীগের নাম বিষয়ে তারেক জিয়া


মন্তব্য

হাসিব এর ছবি

প্রথম আলো সবকিছু ভুলিয়ে একটা নির্দিষ্ট পক্ষকে সিজিল মিছিল করে ভদ্র সমাজে জায়গা করে দিতে চায়। এই কারণেই তারা এইসব সমান করে দেখাতে চায়। এদের কাছে মনির পোড়ানোর অপরাধ আর বিরোধীদলের দাবি না মানার অপরাধ একই মাপের। এরা বাংলাদেশ জিন্দাবাদের ইতিহাস ভুলিয়ে সেটাকে জয়বাংলার সাথে এক পাল্লায় মাপবে এতে অবাক হবার কিছু নাই।

পুনশ্চঃ সোহরাবের লেখার লিংকটা পোস্টে এ্যাড করে দেন।

হিমু এর ছবি

সোহরাবও কবি, নির্মলেন্দু গুণও কবি।

তার মানে এই ডান-বামের তফাত বুঝতে না পারার সমস্যাটা কবি+সাংবাদিক কম্বিনেশনে।

হিমু এর ছবি

কবি নির্মলেন্দু গুণ ফেসবুকে এ প্রসঙ্গে লিখেছেন [সূত্র]:

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর- খুনিচক্রের অন্যতম মেজর ডালিম তৎকালীন বাংলাদেশ বেতার থেকে দেশবাসী ও বিশ্ববাসীর উদ্দেশ্যে খবরটি সদম্ভে প্রচার করতে শুরু করেন। মেজর ডালিমের কণ্ঠোচ্চারিত ঐ খবরটি কিছুক্ষণ পর-পরই প্রচারিত হতে থাকে।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পরপরই বঙ্গবন্ধু খুনিরা বাংলাদেশে আরও দুটো হত্যাকাণ্ড ঘটায়।
১। বাংলাদেশ বেতারকে হত্যা করে তারা বাংলাদেশ বেতারের নতুন নাম রাখে- ‘রেডিও বাংলাদেশ।’
২। এবং আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের ভিতর দিয়ে আর্জিত জাতীয় ধ্বনি- ‘জয় বাংলা’র পরিবর্তে ‘বাংলাদেশ জিন্দাবাদ’ উচ্চারণ করার ভিতর দিয়ে তারা রেডিও-অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করে।
উল্লেখ্য যে, পূর্ণ-পাকিস্তানের জীবদ্দশায় ‘রেডিও পাকিস্তান’ এবং ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’-ই বলা হতো। পাকিস্তানে এখনও তাই বলা হয়।
এই ইতিহাসই যদি সত্য হয়ে থাকে- তাহলে, যাহা ‘জয় বাংলা’ তাহাই ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’ এমন কথা বলাটা আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের ভিতর দিয়ে, লক্ষ-প্রাণের মূল্যে অর্জিত বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রতি বিদ্রুপবৎ এবং নিশ্চিতভাবেই একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

আলুপেপারের "বদলে যাও, বদলে দাও" কর্মসূচি বেশ জোরেসোরে চলমান, অগ্রপশ্চাৎবিবেচনাবোধশূন্য সোহরাব এবং সোহরাবগোত্রীয়দের লেখা পড়লে টের পাওয়া যায়। ঘুরেফিরে এদের রাগ স্বাধীন বাংলাদেশের জন্মের প্রতি, আর অনুরাগ সেই বাংলাদেশের মৃতদেহ থেকে জন্ম নেওয়া একটি অপপাকিস্তানের স্মৃতির প্রতি।

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি

এবং যথারীতি কবি নির্মলেন্দু গুণের স্টেটাসের নীচে শত শত ছাগুর ল্যাদানি।

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _
একজীবনের অপূর্ণ সাধ মেটাতে চাই
আরেক জীবন, চতুর্দিকের সর্বব্যাপী জীবন্ত সুখ
সবকিছুতে আমার একটা হিস্যা তো চাই

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

১) তারেক তার সাম্প্রতিক হাতাহাতি ইফতার পার্টিতে ৭২ থেকে ৭৫ এর ১৫ই আগস্ট সময়কালকে স্বাধীনতা পরবর্তী কালো অধ্যায় হিসেবে বর্ণনা করেছে। টাইম লাইন হিসাব করলে -

স্বাধীকার আন্দোলন প্লাস মুক্তিযুদ্ধের সময় "পাকিস্তান জিন্দাবাদ" কে প্রতিস্থাপন করে "জয় বাংলা" প্রতিষ্ঠিত হয়।
১৯৭৫ এর ১৫ই আগস্টের পরে আবার "জয় বাংলা" নিষিদ্ধ হয়ে "বাংলাদেশ জিন্দাবাদ" ফিরে আসে। পাকিস্তানের সাথে পুনর্মিত্রতা প্রতিষ্ঠিত হয়।

সুতরাং এই দুইটা জিনিসের আদর্শিক অবস্থান পুরা বিপরীতে। এগুলো শুধুমাত্র শ্লোগান নয়; বরং বাংলাদেশ বনাম এন্টি-বাংলাদেশ অবস্থান নির্দেশ করে।

২) "জয় বাংলা" আওয়ামী লীগের দলীয় শ্লোগান - এটাও ওই প্রোপাগান্ডার অংশ। মূলত "জয় বাংলা" শ্লোগান দিয়েই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিলো। এটাকে মুছে ফেলাও স্বাধীনতার অর্জনকে মুছে ফেলা প্রক্রিয়ার একটা ধাপ।

৩) পাকিস্তানের সাথে রিকনসিলিয়েশন তত্ত্বের ধারক-বাহকদের আরেকটা উল্লেখযোগ্য প্রোপাগান্ডা হলো, একাত্তরে শুধুমাত্র পাকিস্তান সেনাবাহিনী বাংলাদেশে গণহত্যা ও গণধর্ষণ চালিয়েছে, পাকিস্তানের জনগণের এ বিষয়ে কোনো দায় নেই! এই সোহরাব হাসানই ফাতিমা ভুট্টোর লেখার আলোচনায় বাংলাদেশের গণহত্যায় ভুট্টোর সংশ্লিষ্টতা ছিলো না বলে সাফাই গেয়েছে। অথচ সত্য হলো, তখন পাকিস্তানের মাস পিপল কখনোই বাংলাদেশে গণহত্যার প্রতিবাদ করে নি। পাকি জনগণের সাথে সুর মিলিয়ে ভুট্টোও তাদের ভাষায় "শুঁয়োরের বাচ্চা" বাঙালিকে "জাহান্নামে পাঠাতে" সর্বশক্তি নিয়োগ করেছে।

৪) প্রথম আলোর রিকনসিলিয়েশন তত্ত্বের আইকন হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে ইমরান খান ও হামিদ মীরকে প্যাট্রোনাইজ করা হয়েছে। কালের পরিক্রমায় কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের সময় এবং গোলাম আযমের শাস্তির রায়ের সময় এদের ল্যাঞ্জা উন্মোচিত হয়েছে।

৫) মিথ্যা তথ্য দিয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডাকারী যুদ্ধাপরাধীর দোসর প্রথম আলোকে আইনের আওতায় আনা হোক।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি

চলুক

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _
একজীবনের অপূর্ণ সাধ মেটাতে চাই
আরেক জীবন, চতুর্দিকের সর্বব্যাপী জীবন্ত সুখ
সবকিছুতে আমার একটা হিস্যা তো চাই

পৃথ্বী এর ছবি

আগষ্ট পনেরোর হত্যাকান্ডের সাথে সাথেই যে পরিবর্তন ঘটেছিলো সেটি হলো বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে ‘পিপলস রিপাবলিক’ থেকে ঘোষনা দিয়ে ‘ইসলামিক রিপাবলিক’ এ পরিনত করা এবং এই নবঘোষিত ‘ইসলামিক রিপাবলিক’টিকে প্রথম সমর্থন দানকারি রাষ্ট্রটি ও আরেকটি ‘ইসলামিক রিপাবলিক’ যার নাম হলো পাকিস্তান যার সাথে রক্তাক্ত সংগ্রাম ও সর্ব্বোচ্চ আত্মত্যাগ এর বিনিময়েই সাড়ে তিনবছর আগে ‘পিপলস রিপাবলিক’টির জন্ম হয়েছিলো। সোহরাব হোসেন খুব হাল্কাচালে বলে প্রতিষ্ঠিত করতে চান ‘যাহা জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ’- সুতরাং এটা নিয়ে কথাবার্তা বলা অপ্রয়োজনীয়। কিন্তু সোহরাবদের কাছে যতো ‘হাল্কা’ যতো ‘অপ্রয়োজনীয়’ই মনে হোক না কেনো যারা পিপলস রিপাবলিককে ইসলামিক রিপাবলিক পরিবর্তন করেছিলো, ইতিহাসের জঘন্যতম এক হত্যাকান্ডের জন্ম দিয়েছিলো তাদের কাছে কিন্তু বিষয়টা এতো ‘হাল্কা’ এতো ‘অপ্রয়োজনীয়’ মনে হয়নি। সোহরাবের হোসেনের মতো তারা কিন্তু বলেনি ‘ যাহা জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ’। তারা ঠিকই জয়বাংলাকে নিষিদ্ধ করে জিন্দাবাদ ফিরিয়ে এনেছিলো। খন্দকার মোশতাকের প্রথম রেডিও ভাষনেই ছিলো বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, এর আগে স্বাধীণ বাংলাদেশের সব ধরনের রাষ্ট্রীয় উচ্চারনে জয়বাংলা ছিলো।

চলুক

সব বিভাজনই মুছে ফেলার নয়, কিছু কিছু বিভাজন অতীব প্রয়োজনীয়। ইজরায়েল-ফিলিস্তিন ইস্যুতে কেউ যদি বলে যে দু'জনই সমান ভুক্তভোগী, তখন সেখানে যেমন একটা কুচক্র বিদ্যমান থাকবে, তেমনই "বাংলাদেশ জিন্দাবাদ" আর "জয় বাংলা" এর মাঝে সমান চিহ্ন টানতে যাওয়ার মাঝেও একটা সূক্ষ্ম কূটচাল আছে। দুইটা ক্ষেত্রেই অন্তর্গত পার্থক্যকে বিলীন করে দিয়ে একটা ক্রিমিনাল এলিমেন্টকে অবচেতনে বৈধতা প্রদান করার প্রয়াস দেখা যায়।


Big Brother is watching you.

Goodreads shelf

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

চলুক

১।
বর্তমানে বাংলাদেশে একমাত্র "জবাবদিহিতাবিহীন" এলাকা হল মিডিয়া। সম্প্রতি মিডিয়া গুলোর উপরে এট্টুআধটু খবরদারির সরকারি প্রচেষ্টা চলছে। প্রথম আলো'র সুদীর্ঘ অতীত ইতিহাসের পাশাপাশি এই "জবাবদিহি" করার ভয়টাও মাথাপাগলা হবার একটা কারন হতে পারে।

২।
অদ্ভুত ব্যাপার হল, এখন আইন করতে গেলে তার বিপক্ষে যতটা "গেল গেল বাকস্বাধীনতা গেল" রব ওঠে, জলপাই সবুজ আঁধারের সময় নিয়ে তেমন কোন উচ্চবাচ্য নেই, এভাবে চললে মার্শাল ল যে বাকস্বাধীনতা বিরোধী এই কথাটাই মানুষকে ভুলিয়ে দেয়া হবে।

৩।
জাসদের ৭৪-৭৫ এর কর্মকান্ড ইতিহাসের কলঙ্কিত অধ্যায় হয়েই থাকবে। কিন্তু সম্প্রতি বদলে যাওয়ার পত্রিকায় ওই সময়ের অতি উৎসাহী "আলুচোনা" দেখে আশঙ্কা হচ্ছে যে সেটি আদতে ৭ নভেম্বরের পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহ সহ পরবর্তী ১৫ বছরকে নতুন করে ব্ল্যাক আউট করে দেবার নতুন কোনও ষড়যন্ত্রের সূচনালগ্ন কিনা। ঘরপোড়া গরু আমি, সিঁদুরে মেঘ দেখলে বড্ড ডরাই।

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

স্পর্শ এর ছবি

যারা এই ভূ-খন্ডের দীর্ঘ স্বাধীকার আন্দোলন, সশস্ত্র মুক্তিসংগ্রাম, অবিস্মরনীয় আত্মত্যাগকে মনে রাখেন তাদের কাছে জয়বাংলা আর জিন্দাবাদ একাকার হয়না- চাঁদতারা আর লালসবুজের পার্থক্যটুকু তারা জানেন।

চলুক


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...

অতিথি লেখক এর ছবি

চলুক

যে বা যাহারা জয় বাংলা আর বাংলাদেশ জিন্দাবাদের মাঝে কোন পার্থক্য খুঁজে পায় না সবার আগে তাহদিগকে পাপিস্থান পাঠিয়ে দেওয়া উচিত।

মাসুদ সজীব

দীনহিন এর ছবি

প্রথম আলো একটি ফ্যাক্টরিতে পরিণত হয়েছে, যেখানে মুক্তিযুদ্ধকে অবলম্বন করেই দলে দলে নব্য রাজাকার উৎপাদন করা হচ্ছে! এই ফ্যাক্টরির সার্থক প্রডাকশান ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে আগে থেকেই ব্যাপক খ্যাতি কামিয়েছিলেন আসিফ নজরুল, ফরহাদ মজহার গংয়েরা! সোহরাব সাহেবরা বোধ হয় আর পিছিয়ে থাকতে চাননি কারখানার এই মূল স্রোত থেকে!

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এখনো বিস্মৃত হয়ে যাওয়ার মতো ঘটনা নয়।

রিকন্সিলিয়েশনের জোয়ারে তারা ইতিহাস ভুলিয়ে দিতে চায়, যেমন করে স্বাধীনতাবিরোধীরা প্রায়শই উপদেশ দেন আমাদের অতীত নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি না করতে!

অভিযোগের ধরনটা এমন যেনো আওয়ামী লীগ ‘জয়বাংলা’কে নিজেদের দলীয় শ্লোগানে পরিনত করার কারনেই তারা আর এক পরিত্যাজ্য করেছেন অথচ আওয়ামী লীগ কাউকে ‘জয়বাংলা’ স্লোগান দিতে নিষেধ করেছে বলে শুনা যায়নি কখনো।

হ্যা, আওয়ামীলীগের উপর ভীষ ক্ষিপ্ত এই রিকন্সিলিয়েশন গ্রুপ, তাদের যত গোসসা আওয়ামী লীগের উপর, কেন আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধকে দলীয়রণ করে! সবচেয়ে ইন্টারেস্টিং হল, অন্য দলগুলির কাছে গ্রুপটির মুক্তিযুদ্ধ সংক্রান্ত কোন দাবী দাওয়া নেই, তাদের সব দাবী আওয়ামী লীগের উপর!!!

সোহরাবের হোসেনের মতো তারা কিন্তু বলেনি ‘ যাহা জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ’। তারা ঠিকই জয়বাংলাকে নিষিদ্ধ করে জিন্দাবাদ ফিরিয়ে এনেছিলো।

এইখানেই থলের বিড়াল বেরিয়ে পড়ে! জিন্দাবাদকে যারা জিন্দা করেছেন স্বাধীন বাংলাদেশে, জয়বাংলাকে মুর্দা করাই তাদের ধ্যান ও জ্ঞান, আর এই মিশনে তাদের পেইড বা আনপেইড এজেন্ট হিসেবে কাজ করে যান কাদের সিদ্দিকি বা সোহরাব গংয়েরা!

পরিশেষে, হাসান ভাইকে ধন্যবাদ, খুব দরকার ছিল লেখাটার!

.............................
তুমি কষে ধর হাল
আমি তুলে বাঁধি পাল

মৃত্যুময় ঈষৎ এর ছবি

অত্যন্ত সুলেখ্য চলুক

মুক্তিযোদ্ধাদের মুখ থেকে জয় বাংলা কেড়ে নিয়ে পাকিস্তান জিন্দাবাদ বসানোর নির্মম যে অত্যাচার নির্যাতন পাকিস্তানী আর্মি-এদেশের দোসররা করেছে তা থেকেই এদুটো শ্লোগানের সুস্পষ্ট পার্থক্য প্রতীয়মান হয়। আর কোন কথার দরকার নাই। জয়া বাংলা, বাংলাদেশ মতান্তরে পাকিস্তান জিন্দাবাদ দুটো ভিন্ন শ্লোগান।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে আসলে ১৯৭১, মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা এই ৩ টি বিষয়ের ফিজিক্যাল এম্বডিমেন্ট ধ্বংস করা হয়েছে। সেটা পুনোরুদ্ধার কষ্টকর হলেও আমাদের হাল ছাড়া চলবে না।


_____________________
Give Her Freedom!

অতিথি লেখক এর ছবি

এরা তো নিরপেক্ষ!! তাই মাঝামাঝি থাকতে চায়, ইতিহাস ভুলে।

গোঁসাইবাবু

এক লহমা এর ছবি

"যারা রিকন্সিলিয়েশন থিওরি ধারন করেন, বিক্রী করেন, গিলে খান- তাদের কাছে যাহাই জয়বাংলা তাহাই জিন্দাবাদ। কিন্তু যারা এই ভূ-খন্ডের দীর্ঘ স্বাধীকার আন্দোলন, সশস্ত্র মুক্তিসংগ্রাম, অবিস্মরনীয় আত্মত্যাগকে মনে রাখেন তাদের কাছে জয়বাংলা আর জিন্দাবাদ একাকার হয়না- চাঁদতারা আর লালসবুজের পার্থক্যটুকু তারা জানেন।"
চলুক

--------------------------------------------------------

এক লহমা / আস্ত জীবন, / এক আঁচলে / ঢাকল ভুবন।
এক ফোঁটা জল / উথাল-পাতাল, / একটি চুমায় / অনন্ত কাল।।

এক লহমার... টুকিটাকি

অতিথি লেখক এর ছবি

চলুক

ভালো লিখেছেন মোরশেদ।
আপনার জন্য শুভকামনা।

-----------------------------------
কামরুজ্জামান পলাশ

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

দরকারী সবগুলো পয়েন্টই এসেছে। ফরগেট, ফরগিভ, রিকনসাইল - পরিক্রমার একটা আবশ্যিক উপাদান হচ্ছে তেল আর পানিকে একই জিনিস বলে দেখানো। 'জয় বাংলা' আর 'বাংলাদেশ জিন্দাবাদ' যদি একই জিনিস হয়ে থাকে তাহলে ১৫ই অগাস্ট ১৯৭৫ সালের সকাল বেলা 'জয় বাংলা'কে বাদ দিয়ে 'বাংলাদেশ জিন্দাবাদ'কে আমদানী করতে হলো কেন? এ'সব কথা কিন্তু সোহরাব সাহেবরা বলেন না।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

তারেক অণু এর ছবি
নীড় সন্ধানী এর ছবি

কিছুদিন পর শোনা যাবে বাংলাদেশ আর পাকিস্তানের পতাকাও এক। মাঝখানে শুধু চাঁদ আর সূর্যের পার্থক্য। আর চাঁদ সুরুজের পার্থক্যও খুব বেশী না। একটা গরম আরেকটা ঠাণ্ডা। ঠাণ্ডা গরমের পার্থক্যই বা কত। একটা বরফ আর...........ইয়ে আর আগাইলাম না রোজা রমজানের দিনে। এরকম রিকনসিলিয়েশান থিউরি কেয়ামত পর্যন্ত চলতে পারে। কিন্তু সোহরাব হোসেনদের আসল মতলবটা কি?

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

হিমু এর ছবি

যাহা শাহ আবদুল হান্নান তাহাই সোহরাব।

প্রোফেসর হিজিবিজবিজ এর ছবি

লেখায় পাঁচতারা।

____________________________

আব্দুল্লাহ এ.এম. এর ছবি

জয়বাংলা আর পাকিস্তান জিন্দাবাদ শুধু দুটি শ্লোগানমাত্র নয়, এদের ব্যপ্তি তার চেয়ে অনেক অনেক বেশী। পাকিস্তান আন্দোলনের অন্যতম প্রতীক হয়ে উঠেছিল "পাকিস্তান জিন্দাবাদ", আর সেই পাকিস্তান ধংসের অন্যতম প্রতীক ছিল "জয়বাংলা"। সুতরাং শুধুমাত্র শব্দগত অর্থ বয়ান করে যদি কেউ সবকিছু খালাস করে দিতে চান, তাহলে হয় তিনি মূর্খ, নয়তো জ্ঞানপাপী। সোহরাব হাসান, আসিফ নজরুলদের তো অতটা মূর্খ বলে মনে হয় না, তাহলে তাদের নির্বোধ জ্ঞানপাপী ছাড়া আর কি বলা যায়?
উনসত্তরের গণ অভ্যুত্থান পরবর্তী সময়ে যখন জয়বাংলা শ্লোগানটি আওয়ামী লীগ ধারন করে, তখন পার্টির অভ্যন্তরেই অনেকের কাছে তা ছিল অস্বস্তিকর। একেবারে শুরুর দিকে ছাত্রলীগের প্রগতিশীল অংশটি তাদের বিভিন্ন কর্মসূচীতে জয়বাংলা শ্লোগানটি ব্যবহার করলে ছাত্রলীগের অন্য ধারার কয়েকজন বঙ্গবন্ধুর কাছে নালিশ জানিয়ে বলে- তারা জয়বাংলা শ্লোগান দিচ্ছে। বঙ্গবন্ধু নালিশকারীদের কটাক্ষ করে জবাব দেন- জয়বাংলা বলবে না তো কি ক্ষয়বাংলা বলবে নাকি? বঙ্গবন্ধুর সবুজ সংকেত পাওয়ার পর ছাত্রলীগ প্রবল উৎসাহে জয়বাংলা শ্লোগান ব্যবহার শুরু করে, পরে আওয়ামী লীগও জয়বাংলা শ্লোগান ধারন করে। আওয়ামী লীগ বিরোধী মহল এই শ্লোগানটিকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে একটি হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে সচেষ্ট হয়, তারা বলতে থাকে- এটা ভারতীয় হিন্দুদের "জয় হিন্দ" শ্লোগানেরই নামান্তর। কিন্তু ইতিহাস সাক্ষী, এইসব অপপ্রচার কোন কাজেই আসে নি। আমাদের মুক্তিযুদ্ধে সেই জয়বাংলাই হয়ে ওঠে স্বাধীনতার বীজমন্ত্র।
পরিহাসের ব্যাপার, স্বাধীনতার পর ছাত্রলীগের সেই প্রগতিশীল ধারার অধিকাংশই আওয়ামী লীগ থেকে বের হয়ে গিয়ে জাসদ গঠন করে এবং জয়বাংলা বর্জন করে। সেই থেকে হিন্দুস্তানের জয় হিন্দ শ্লোগানের বাংলাদেশী সংস্করণ জয়বাংলা শুধুই হিন্দুস্তানের এ দেশীয় দালাল আওয়ামী লীগই ব্যবহার করে আসছে। পঁচাত্তরের পনেরই আগস্টে পাকিস্তান জিন্দাবাদের এ দেশীয় সংস্করণ "বাংলাদেশ জিন্দাবাদ" প্রতিষ্ঠার পর শত প্রতিকূলতার মাঝেও আওয়ামী লীগ কখনো জয়বাংলা পরিত্যাগ করে নি, আর বিএনপি এবং তাদের মতাদর্শগত পূর্বসূরি মুসলিম লীগ কখনই জয়বাংলা ধারন করে নি। সুতরাং আলুগ্রুপের এখন মহান দায়িত্ব হয়ে দাঁড়িয়েছে এ দু'য়ের মাঝামাঝি কিছু একটা দাঁড় করানো। তারই ফলস্বরূপ- ওটাও যা এটাও তাই, ওটাও থাক এটাও থাক।

কল্যাণ এর ছবি

১। গত কয়েক যুগ ধরেইতো ইতিহাস ধৌতকরণ চলতেছে। ওতেই বেশ দু'পয়সা আসে। এর মধ্যে আপনারা কিছু ঘাড়ত্যাড়া লুকজন খালি ব্যাগড়া দিচ্ছেন।

২। আশ্চর্য লাগে যে কত টাকা পেলে কেউ যে পাতে খায় সেই পাতেই বাথ্রুম সারে!!

৩। খুব দরকারি লেখা, লেখায় ৫ তারা।

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।