আসল কথা : নকল কথা : 'কমিনিষ্ট'

নীড় সন্ধানী এর ছবি
লিখেছেন নীড় সন্ধানী (তারিখ: মঙ্গল, ০২/০৭/২০১৩ - ৪:২৩অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

নকল কথা:
মানুষ কেন লেখে? এই ভাবনার যে উত্তরটা আমি নিজের কাছ থেকে পাই তা হলো - মানুষের চুলকায় বলে লেখে। কথা কি অশ্লীল হলো? চুলকানি কি অশ্লীল হতে পারে? যেমন চুদুরবুদুর? চুদুরবুদুর অশ্লীল নয় বলে ঘোষণা এসেছে। আমার পড়াশোনা কম, ডিকশেনারি উল্টাই না বহুদিন। তাছাড়া দিনরাত যেসব শব্দ নিয়ে কারবার তা কেউ ডিকশেনারীতে খোঁজে না। তবে বুঝি চুলকানি শব্দটা কখনো কখনো সেমি অশ্লীল। ধরেন কারো কথা শুনে আমার ইচ্ছে হলো তার পাছায় একটা গদাম লাথি দিতে, অথচ ভদ্রতার খাতিরে দিতে পারছি না, সেক্ষেত্রে বলি- "কি রে ভাই, চুলকায় নাকি?"

আসলে সবারই কোন না কোন চুলকানি আছে, এই চুলকানি শরীরের না, মগজের। মানুষের মগজের গ্রে এরিয়াতে হরকে কিসিমের চিন্তাভাবনায় ভরপুর। যার যখন যে চিন্তা চুলকায় সে তখন ওই বিষয়ে লেখে। যার চুলকানীর সাথে কীবোর্ডের সম্পর্ক ভালো, তার লেখা তত ভালো হয়। কীবোর্ডের সাথে মগজের সম্পর্কটা ভালো না আমার, তবু লিখি হাত চালু রাখার জন্য। হাত চালু রাখা মানে হলো বাংলা টাইপের স্পীড ধরে রাখা। স্কুল বয়সে যেরকম হাতের লেখা ঠিক রাখার জন্য প্রতিদিন দুই পাতা লিখতে হতো, সেরকম।

মগজের সাথে সম্পর্কের উন্নতি ঘটাতে না পারলেও আঙুলের সাথে কীবোর্ডের একটা ভালো বোঝাপড়া হয়েছে গত পাঁচ বছরে। ফলে ব্লগ দিয়ে ইন্টারনেট চালাতে আর অসুবিধা হয় না। দেশে কোনদিন যদি মোল্লারা ক্ষমতায় আসে, আফগান স্টাইলে আমাকেও ধরে নিয়ে সিলিং এর সাথে পা বেঁধে জিজ্ঞেস করা হবে, কেন ব্লগ লিখিস? জ্ঞান হারাবার আগে আমার প্রথম উত্তর হবে - চুলকায় বলে লিখি।

আমাদের পাড়ায় এক বক্তা ছিল যিনি মঞ্চে উঠে প্রথমেই বলে নিতেন, "ভাই আমি কম কথার মানুষ, বেশী কথা পছন্দ করি না। আমার বক্তব্য অতি সংক্ষিপ্ত হবে, আজে বাজে কথা বলে আমি আপনাদের মূল্যবান সময় নষ্ট করতে চাই না। মাত্র দুটি বাক্যে আমার বক্তৃতা শেষ করবো। আজকাল কেউ কেউ মাইকের সামনে দাড়ালে থামতেই চাই না। মানুষের সুবিধা অসুবিধা নিয়ে তাদের কোন চিন্তা ভাবনা নাই। তাই আমি আপনাদের বেশীক্ষণ বিরক্ত করবো না। অতি সামান্য কথায় আমার বক্তৃতা শেষ করে দিব..........." কমসে পনেরো মিনিট ত্যানা পেঁচানোর পর তিনি তার 'সংক্ষিপ্ত' বক্তৃতা শুরু করতেন। আমিও চামে কয়েকটা চাপা মেরে দিলাম। এবার আসল কথায় আসি।

আসল কথা:
আমি ধর্মভীরু মানুষ। মানে ধর্মকে ডরাই, তার চেয়ে বেশী ডরাই যারা ধর্মের ডাণ্ডা হাতে নিয়ে ঘুরে। ক্লাস নাইনে থাকতে কলোনীর মিল্লাত ভাই বললেন, "এসো নামাজ পড়ি"। তারপর আমি টুপি নিয়ে মিল্লাত ভাইয়ের সাথে মসজিদে যাতায়াত শুরু করলাম। আমাদের দলের সবাই মোটামুটি মসজিদে হাজির। খেয়াল করলাম নামাজের পর দোতলায় আরেকটা আসর বসতে শুরু করেছে যেখানে যাবার জন্য মিল্লাত ভাই ব্যাপক জোরাজুরি করতেন। এত সুন্দর মানুষ, অনুরোধ ফেলতে ইচ্ছে করে না। তাই আছরের পর মিলাদে দাওয়াত দিলে ঠিক মোনাজাতের সময় হাজির হয়ে জিলিপিগুলো সংগ্রহ করে আবার মাঠে খেলতে চলে আসি। আমাদের মসজিদে যাতায়াতে মিল্লাত ভাই খুশী হলেও তাদের দোতলার সেশানে আগ্রহ সৃষ্টি করাতে না পেরে তিনি হতাশ। এবং হতাশা বিরক্তিতে রূপান্তরিত হলো যখন দেখলো মসজিদে যাওয়া দলের চেয়ে জিলাপি সংগ্রহের দলে লোক ভারী হয়ে গেছে দেখে। একদিন জুমার নামাজে প্রকাশ্যে বলে ফেললেন, এই ব্যাটা মসজিদে আসে ঠিক, কিন্তু সে হলো 'কমিনিষ্ট'। তখনো আমি ঠিক জানতাম না 'কমিনিষ্ট' কি জিনিস। কলেজে ওঠার পর বুঝেছি ওই শব্দটা হবে কমিউনিষ্ট। আরো বড় হয়ে বুঝেছি কমিউনিষ্ট হওয়া কত শক্ত কাজ। আদতে আমি কখনোই কমিউনিষ্ট ছিলাম না, তবু কেন জানি মোল্লারা আমাকে কমিউনিষ্ট ডাকতে পছন্দ করতো। তিনটা উল্লেখযোগ্য 'কমিনিষ্ট' অভিজ্ঞতার কথা লিখবো আজ-

১.
আমার এক বন্ধুর সাথে মেসে থাকতো পাড়ার মসজিদের ব্যাচেলর ইমাম। আমি বন্ধুর সাথে আড্ডা মারতে গেলে কোন কোন সময় হুজুরও অংশগ্রহন করতো তাতে। একবার কথা উঠলো সাইক্লোন নিয়ে। নানা কথার পর দুয়েক পাতা বিজ্ঞান পড়া আমি দুম করে জ্ঞান জারি করলাম, "আজকাল আমেরিকা রাশিয়া চেষ্টা করতেছে বোমা মেরে সাইক্লোন ধ্বংস করে দিতে"।

আমার কথা শেষ করা মাত্র হুজুর লাফ দিয়ে উঠে বললেন, "নাউজুবিল্লাহ!!! তুমি এসব কি কথা বলতেছো, সাইক্লোন-ঝড়-তুফান এগুলো আল্লাহর কুদরত, এগুলোয় বোমা মারবে মানুষ? কি রে মিজান তোর বন্ধু কি কমিনিষ্ট নাকি?"

২.
আরেকবার এশার নামাজ পড়তে গেছি হঠাৎ মুসল্লি হয়ে। বাদে এশা হুজুর কিছু বয়ান করতে চাইলেন মুসল্লীদের উদ্দেশ্যে। বেশীরভাগ মানুষ এই সব শোনে না। কয়েকজন বাদে সবাই চলে গেল। আমিও কেন যেন রয়ে গেলাম শয়তানের প্ররোচনায়। হুজুর বলছেন, শ্রোতারা শুনছেন। এক পর্যায়ে কথা উঠলো ছবি নিয়ে। ছবি তোলা হারাম, ছবি রাখা হারাম, যে বাসায় ছবি থাকবে সে বাসায় ফেরেশতা ঢুকবে না।

শ্রোতারা সবাই মাথা নাড়ছেন ভক্তি ভরে, যদিও জানি তাদের প্রত্যেকের বাসার টিভিতে দিনভর নাচগান চলে।

হুজুর উত্তেজিত স্বরে বলছেন, "যাদের বাড়িতে ছবি থাকবে তাদের কোন ইবাদত আল্লাহর আরশে পৌঁছাবে না, কারণ ওই বাড়িতে ফেরেশতা ঢুকতে পারবে না। সুতরাং ওই বাড়ির বাসিন্দাদের নিশ্চিত দোজখের আগুনে জ্বলতে হবে!!!"

আমি আর বসে থাকতে পারলাম না। আমার বাসায় বিশাল সব পোট্রেট ছবিতে দেয়াল ভর্তি। বছরে উনপঞ্চাশ বার জুমার নামাজ পড়েও যদি দোজখবাসী হতে হয়, তার আগে একটা প্রতিবাদ করে যাই।

বললাম, "হুজুর পত্রিকার ছবি দেখলেও কি ফেরেশতা ফিরে যাবে নাকি?"
হুজুর হুংকার দিয়ে বললেন, "আলবত!"

তখন আমি বললাম, "হুজুর তাইলে আপনার এত বছরের কোন ইবাদতই তাইলে আল্লাহর আরশে পৌঁছে নাই। বাকীদের কথা বাদই দিলাম, আপনারে তো প্রতিদিন পত্রিকা হাতে দেখি। এখানে কার বাসায় পত্রিকা নাই?"
কথা শেষ না হতেই একটা গুঞ্জন উঠে গেল তৎক্ষনাৎ। লোকজন পারলে আমার মুখে আইকা গাম লাগিয়ে দেয়। কথাটা বলে কেমন একটা বিমলানন্দ পেলাম। হুজুর বিষদৃষ্টিতে আমার দিকে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থাকলো। মনে মনে হয়তো আমার জন্য হাবিয়া দোজখে সিট বরাদ্দ চাইলো। তবে কথা আর বাড়ালেন না। বক্তৃতা সংক্ষিপ্ত করে বসতে বসতে বিড়বিড় করে বলছিল ....কমিনিষ্ট কমিনিষ্ট।

৩.
পাড়ার এক আংকেল মারা গেছেন। তার বাসায় মিলাদে দাওয়াত। পাড়ার বিশ ত্রিশজন মুরব্বীর সাথে বসে আছি। হুজুর এলেন। পাশের মসজিদের হুজুর। মিলাদ শুরু করার আগে হুজুর বললেন, "আপনারা মান্যগন্য লোকেরা হাজির আছেন, মরহুম এ আহমদ সম্পর্কে কিছু কথা বলবো মিলাদের আগে।"
শুরু হলো কথা। মরহুমকে নিয়ে দুই কথার পর হুজুর চলে গেলেন বেগানা নারীদের দিকে, ডিশ দেখে দেখে কিভাবে লোকজন নেংটো হয়ে যাচ্ছে, রাস্তাঘাটে বেপর্দা নারী, ঘরের ছাদে ছাদে শয়তানের জাল। শান্তিচুক্তি করে সরকার দেশকে বিক্রি করে দিয়েছে, জেহাদ ছাড়া মুক্তি নাই, আমেরিকা মুতে ভাসিয়ে দিতে হবে ইত্যাদি জাতের কথাবার্তা।

আমার প্রায়ই ঝামেলা লেগে যায় হুজুরদের সাথে। তাই এবার সিদ্ধান্ত নিলাম মুখে টেপ লাগিয়ে বসে থাকবো। এত মুরব্বীর সামনে মুখ খারাপ করার কোন মানে হয় না। তাই দেয়ালে হেলান দিয়ে আরাম করে ঝিমাতে লাগলাম। বিছানায় ঘুম আসতে আমার ঝামেলা হলেও সভা-সমিতি-সেমিনার-মিলাদ-মাহফিল-খুতবা ইত্যাদিতে আমাকে মড়ার ঘুমে টানে এখানেও হেলান দেয়া মাত্র তলিয়ে যেতে থাকলাম। ভদ্রতার জন্য জোর করে চোখ খোলা রাখতে গিয়ে দেখি এই যাত্রায় আমি একা না, পাশের বিল্ডিং এর ইদ্রিস চাচাও ইতিমধ্যে নাক ডাকতে শুরু করেছে। ফলে আমি আরো ভরসা পেয়ে নিশ্চিন্তে ঢলে পড়লাম দেয়ালে মাথাটা রেখে। কিছুক্ষণ পর ধড়মড় করে জেগে উঠলাম ভয়ংকর এক হুংকারে।

হুজুর গর্জন করে বলছে, "যারা আল্লাহর মজলিসে এসে ঘুমিয়ে পড়ে তারা নিশ্চয়ই শয়তানের দোসর এবং কমিনিষ্ট!!!"

কথাটা আমাকে উদ্দেশ্য করে বলা হলেও আমি নির্লজ্জের মতো হেসে আঙুল দিয়ে দেখালাম ইদ্রিস চাচার দিকে, তিনি তখনো অবিরাম নাক ডেকে চলছেন আসর জমিয়ে। চাচা সম্ভবতঃ ঘুমের ডেল্টা লেভেল পার হয়ে গেছেন ইতিমধ্যে।

ইদ্রিস চাচা পাড়ার সবচেয়ে জাদরেল মুরব্বী এবং এই মসজিদের সবচেয়ে নিয়মিত মুসল্লী। হুজুর ওনাকে না দেখে কেবল আমার দিকে নজর দিয়েছিল বলেই সেই গর্জন। এবার আর কথা না বাড়িয়ে টুপ করে বসে দোয়া দরুদ পড়া শুরু করলো। আর আমি আরেক দফা ঘুম যাবো কিনা ভাবতে লাগলাম।


মন্তব্য

কল্যাণ এর ছবি

নীড়ুদা' আপনি অদ্ভুদ !! চলুক

______________
আমার নামের মধ্যে ১৩

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আম্রা সবাই অদ্ভুদ খাইছে

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

মহামান্য শয়তান এর ছবি

আপনি মিয়া হাচাই কমিনিস্ট নি ? খাইছে এতগুলো হুজুরের সার্টিফিকেট

নীড় সন্ধানী এর ছবি

নাউজুবিল্লা ইতা কইয়েন না! শয়তানী হাসি

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অতিথি লেখক এর ছবি

লেখা মজাদার হয়েছে।
ক্যাটাগরি: চাচামিয়া (৫০ বছর বা তদুর্দ্ধ) চোখ টিপি

আব্দুল্লাহ এ এম

নীড় সন্ধানী এর ছবি

চাল্লু

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

হাসিব এর ছবি

কমিনিস্ট একটা গালি হিসেবে কখন কীভাবে চালু হলো এটার একটা গবেষণা হওয়া দরকার।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

রণদীপম বসু এর ছবি

হ, কমিনিস্টে ভরে যাচ্ছে সব !

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

নীড় সন্ধানী এর ছবি

কে কয়, আমি তো দেখি বুর্কায় ভরে যাচ্ছে দেশ দেঁতো হাসি

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

আলতাইর এর ছবি

গুল্লি
আর কিসসু বলার নাই

নীড় সন্ধানী এর ছবি

ম্যাঁও

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

চরম উদাস এর ছবি

"ভাই আমি কম কথার মানুষ, বেশী কথা পছন্দ করি না। আমার বক্তব্য অতি সংক্ষিপ্ত হবে, আজে বাজে কথা বলে আমি আপনাদের মূল্যবান সময় নষ্ট করতে চাই না। মাত্র দুটি বাক্যে আমার বক্তৃতা শেষ করবো। আজকাল কেউ কেউ মাইকের সামনে দাড়ালে থামতেই চাই না। মানুষের সুবিধা অসুবিধা নিয়ে তাদের কোন চিন্তা ভাবনা নাই। তাই আমি আপনাদের বেশীক্ষণ বিরক্ত করবো না। অতি সামান্য কথায় আমার বক্তৃতা শেষ করে দিব..........."

হো হো হো

কমিনিস্ট গালি এই জামানায় রিপ্লেস হয়ে গেছে নাস্তিক গালি দিয়ে।

প্রোফেসর হিজিবিজবিজ এর ছবি

নাস্তিক শুধু না, নাস্তিক ব্লগার - আমি ব্লগে মাঝে মধ্যে লিখি বলে সে দিন খোঁচা শুনেছি!
যারা বলার তারা বলবেই, বলতে দিন। কুকুরের ঘেউকে কি আর মানুষে পাত্তা দেয়?

প্রোফেসর হিজিবিজবিজ এর ছবি

আহারে, কমিউনিষ্ট হওয়ার কীযে সাধ ছিল কৈশোরে। কিন্তু কলেজে উঠে কমিউনিস্ট পার্টির লোকজনের সাথে মেলা মেশা করে এমন মেজাজ খারাপ হলো যে ওই ধার ঘেঁষায় বাদ দিয়ে দিয়েছিলাম।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

চরম যেরাম গরমের রিপ্লেস হো হো হো

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

তারেক অণু এর ছবি
নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনি কোন জায়গা থেকে ফায়ার করতেছেন? হাসি

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

সুমাদ্রী এর ছবি

'' বদ্দা, অনে আঁছাঁই কমুনিস্ট এনা দেইদ্যে '' শয়তানী হাসি

অন্ধকার এসে বিশ্বচরাচর ঢেকে দেওয়ার পরেই
আমি দেখতে পাই একটি দুটি তিনটি তারা জ্বলছে আকাশে।।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

অনরে হনে হইয়ে, আঁই বালা অই গেই চোখ টিপি

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অতিথি লেখক এর ছবি

এতোগুলা হুজুর আপনাকে কমিনিস্ট খেতাব দিলো চিন্তিত ।তওবা কইরা ভালা হয়া যান দেঁতো হাসি
ইসরাত

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

হা হা হা...

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

নীড় সন্ধানী এর ছবি

খাইছে

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি

ভাল্লাগছে লেখাটা, আমিও আবার ধর্মভীরু মানুষ কিনা!

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _
একজীবনের অপূর্ণ সাধ মেটাতে চাই
আরেক জীবন, চতুর্দিকের সর্বব্যাপী জীবন্ত সুখ
সবকিছুতে আমার একটা হিস্যা তো চাই

নীড় সন্ধানী এর ছবি

কবি আপনার আলোকফোয়ারার ছবিগুলান ভুলতে পারি না এখনো লেখা -গুড়- হয়েছে

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

আশালতা এর ছবি

হাসি

----------------
স্বপ্ন হোক শক্তি

নীড় সন্ধানী এর ছবি

চাল্লু

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

নিরীহ মানুষ  এর ছবি

সেমি অশ্লীল হইছে ভাই

নীড় সন্ধানী এর ছবি

লইজ্জা লাগে

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

আয়নামতি এর ছবি

আঁসতো আঁসতো মরি যাইর গৈ বদ্দা হো হো হো

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আন্নে মরি গেইলি দইজ্জা হণ্ডে যাইব চাল্লু

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

স্যাম এর ছবি

হো হো হো হাততালি উত্তম জাঝা!

নীড় সন্ধানী এর ছবি

লেখা -গুড়- হয়েছে

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

প্রৌঢ় ভাবনা এর ছবি

চুলকানির ঠ্যালায় মন্তব্য লিখতে পারছিনা। চলুক

নীড় সন্ধানী এর ছবি

চুলকানির সাথে লেখাও নামান হাসি

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

কৌস্তুভ এর ছবি

আপনি শুধুই কমিনিস্ট না, আপনি নাস্তিক! কস্কি মমিন!

নীড় সন্ধানী এর ছবি

লানত ! রেগে টং

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অতিথি লেখক এর ছবি

চরম হইছে

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

Areefin এর ছবি

ভাই আপনার লেখা গুলা গত কয় দিনে পরলাম,আপনি কি ফুটবোলার খসরুরে চিনেন?

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আগ্রাবাদের খসরু ভাই? কাস্টমসে আছেন যিনি?
ওনাকে চিনি তবে দেখা হয়নি প্রায় এক যুগ। আপনিও কি কলোনীর?

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

Areefin এর ছবি

হা আগ্রাবাদের খসরু ,খসরু ভাই যখন বোললেন, তাইলে তো আপনি আমার ছুডো ভাইর মত,আপনার এক লেখাতে আমার মামার(ম এ হালিম সাহেব)নিযে লেকসেন,ভালো লাগে আপনার লেখা পোরতে।

নীড় সন্ধানী এর ছবি

হ্যাঁ খসরু ভাই আমাদের দুতিন ব্যাচ আগের। হালিম সাহেব আপনার মামা হন? আমি ওনার সম্পর্কে আরো কিছু জানতে আগ্রহী। সম্ভব হলে আপনার ইমেল এড্রেস দিতে পারেন। যোগাযোগ করবো।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

তানিম এহসান এর ছবি

দেশটা কমিনিষ্ট এ ভরে গেছে, এই কারণে বরকত নাই, বরকত নাই, বরকত নাই!

সব বরকত তেঁতুল গাছে’র ভূতে সওয়ার! চোখ টিপি

নীড় সন্ধানী এর ছবি

তেঁতুল বড় বেতমিজ! খাইছে

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অতিথি লেখক এর ছবি

ভাই আপনি তো কমিউনিস্ট হিসেবে সার্টিফাইড হয়ে গেলে।

অতিথি লেখক এর ছবি

সারাদিন ব্লগেই পইরা থাকি অথচ এখনও অতিথি ই রয়ে গেলাম । খুব কষ্ট লাগে...

অতিথি লেখক এর ছবি

উপলব্ধি টা ঠিক সামনে এসে দাঁড়িয়ে গেল।
আপনার লেখা পড়ে বিমলানন্দ পাইলাম।
হাততালি

-ছায়াবৃত্ত

অতিথি লেখক এর ছবি

সেইরাম হইছে লেখা।
গড়ান দিয়া লই।
গড়াগড়ি দিয়া হাসি

-অনিমেষ রহমান

অতিথি লেখক এর ছবি

সচলে অনেকেই নিজের কিংবা চারপাশে ঘটতে থাকা ঘটনাগুলো নিয়ে গল্প লেখে, কিন্তু সহজ আর সাবলীল ভাষায় প্রাণবন্ত গল্প বলতে পারায় আপনি অন্যতম, গুরু গুরু আপনার গল্প বলা আমাকে মুগ্ধ করে। হাততালি

এই গল্পগুলো ও তাই দারুন লেগেছে। এতো যে হুজুরদের নিয়ে কপচালেন সামনে কিন্তু আসছে তাদের সু-দিন। ওদের জন্যে নতুন নতুন ধারা উপধারা তৈরী করা হয়েছে। শত হইলেও হুজুরদের অনুভূতি বলে কথা। একেবারে গুল্লি কইরা দিবো। বিবর্তনের পথ ধরে এখন কমিনিষ্ট উপাধি হয়ে গেছে নাস্তিক উপাধি।

মাসুদ সজীব

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।