একটা অভিনব প্রতারণার ব্যর্থ প্রয়াস - সতর্ক থাকুন

শামীম এর ছবি
লিখেছেন শামীম (তারিখ: রবি, ০২/০৫/২০১০ - ৪:১৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

অনেকগুলো লেখা মাথায় ঘুরছে। লেখার জন্য ফাইল খুলে সেভ করে রেখেছি কিন্তু নানা ব্যস্ততায় লেখা হয় না। কিন্তু এই ঘটনাটা চেপে রেখে দেরি করা ঠিক হবে না মনে হলো।

গতপরশু (৩০শে এপ্রিল ২০১০, শুক্রবার) দুপুরে আমার শাশুড়ির মোবাইল ফোনে (গ্রামীন) অপরিচিত নম্বর (01749 872178) থেকে একটা কল আসে। ফোনকারী বলেন যে আপনি খুব লাকি, গ্রামীন ফোন একটা প্রমোশনের জন্য তাঁদের সমস্ত সাবস্ক্রাইবারদের মধ্য থেকে লটারি করেছে, এতে আপনি ৩য় হয়েছেন। আপনি পুরস্কার হিসেবে ১৬৯০০ টাকার টকটাইম পাচ্ছেন। আপনার মোবাইল থেকে ব্যালেন্স চেক করে দেখুন যে টাকাটি পেয়েছেন কি না। পেয়ে থাকলে যত দ্রুত সম্ভব আমাদেরকে জানান। যদি ১ম ২য় যারা হয়েছেন তাঁদের আগে আপনার কাছে থেকে কল পাই, তবে আরও পুরস্কার আছে।

শাশুড়ি *৫৬৬# চেপে ব্যালেন্স চেক করে দেখেন যে আসলেই ব্যালেন্সে ১৬৯০০ টাকা যুক্ত হয়েছে। ফোন করে জানালেন। তখন ওপাশ থেকে বলে আপনি আসলেই খুব লাকি কারণ আপনি সবার আগে এটা জানিয়েছেন, এতে পুরস্কার হিসেবে একটা মোটরসাইকেল পেয়েছেন। শাশুড়ি জিজ্ঞেস করলেন এই ১৬৯০০ টাকা কি ক্যাশ করা যাবে ... উত্তরে জানালো - না করা যাবে না, তবে দুই বছর পর্যন্ত এই ব্যালেন্স ব্যবহার করা যাবে। এরপর বললেন যে বুঝতেই পারছেন যে আমি একজন বয়স্ক মহিলা ... আমি মোটরসাইকেল দিয়ে কী করবো? উত্তরে জানালেন যে আপনি এর বদলে ২ লাখ ৬৫ হাজার টাকার ক্যাশও নিতে পারেন। তবে এর আগে একটা কাজ করতে হবে।

শাশুড়ি আম্মার মনে একটু সন্দেহ দোলা দিচ্ছিলো, কিন্তু ব্যালেন্স চেক করাতে গ্রামীন ফোনেরই অফিসিয়াল কিছু বলে হালকা বিশ্বাস করা শুরু করেছিলেন। কিন্তু যেই আরেকটা কাজ করতে হবে শুনলেন তখনই আবার সন্দেহটা গাঢ় হলো যে: নাহ্ এটা ফ্রড কেস মনে হচ্ছে। বিস্তারিত জানতে চাইলে বললো যে আপনাকে ৯ হাজার টাকা জমা দিতে হবে এখুনি। শাশুড়ি আম্মা জিজ্ঞেস করলেন যে, টাকা কেন? ....

গ্রা.ফো.: ... আরে বুঝলেন না, এসব কাজে সরকারি ভ্যাট আছে না। ওসব খরচ তো আপনাকেই দিতে হবে।
শা.আ.: আমি আগে হাতে টাকা পাই, তারপর না ভ্যাট দিবো। হাতে টাকা না আসলে ভ্যাট কোত্থেকে দিবো?

গ্রা.ফো.: ... এইতো বেশি বুঝতে শুরু করেছেন। টাকাটা যতদ্রুত সম্ভব জমা দিতে হবে।
শা.আ.: আমি এখন টাকা দিবো কোত্থেকে। আজ শুক্রবার, আগামীকাল ১লা মে বাদ দিয়ে আগামী রবিবারে ব্যাংক খুললে পরে টাকা তোলা যাবো, তার আগে টাকা দেয়া অসম্ভব।

গ্রা.ফো.: বাসায় টাকা আছে কত?
শা.আ.: এই ধরেন হাজার দেড়েক আছে বাজার খরচের জন্য।

গ্রা.ফো.: ঐটাই জমা দেন। এখুনি ফ্লেক্সি করে পাঠিয়ে দেন ... আমরা যেন প্রসেসিং শুরু করতে পারি।
শা.আ.: কিন্তু ... .

গ্রা.ফো.: এই ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে চাইলে ১২১এ ফোন করেন। ওখানেই বিস্তারিত ভাবে মেসেজ শুনতে পারবেন।

তখন কল দিলেন ঐ নম্বরে। যথারীতি একটা অটোমেটেড কন্ঠ বিভিন্ন অপশন দেয়া শুরু করলো ... অমুক জানতে চাইলে ১ চাপুন; মটরসাইকেল সম্পর্কে জানতে চাইলে ... ...
বিরক্ত হয়ে ফোন কেটে দিলেন। সাথে সাথে ওপাশ থেকে ফোন করে ঝাড়ি
: ফোন কেটে দিলেন ক্যান? এজন্য মানুষের উপকার করতে হয় না।

শা.আ.: আচ্ছা কিভাবে কী করতে হবে এটা আমার হাজবেন্ডকে বলেন।
এরপর ওরা আমার শ্বশুর সাহেবকে অনেককিছু বুঝালেন। শ্বশুর সাহেবও ফ্লেক্সি করতে বেরিয়েছেন এমন ভাব নিয়ে রাস্তায় গেলেন যেন ঐপাশের লোক রাস্তার গাড়ির শব্দ শুনতে পায়। ফোনে বললেন, ফ্লেক্সি করার লোক ভেতরে গেছে কী একটা আনতে, আপনি বরং কোন নাম্বারে পাঠাতে হবে সেটা বলেন।

অপর দিক থেকে নম্বর দিল (01928 908707)। শ্বশুর সাহেব ফোন কেটে দিলেন।

কিছুক্ষণ পর ঐদিক থেকে আবার ফোন করে শাশুড়িআম্মাকে ঝাড়ি ... ... আপনার হাজবেন্ড একটা ফাউল লোক ... (গালিগালাজ)। ফোন কেটে দেয়া হলো।

অবাক ব্যাপার হলো, কিছুক্ষণ পর একাউন্ট চেক করে দেখা গেল সেই ১৬৯০০ টাকা নাই। শুধু শুধু এই ফোন টোন বাবদ ৩০ টাকার টকটাইম গচ্চা।

ঘটনার সময় আমি সেখানে উপস্থিত ছিলাম না। কিন্তু শুধু শুধু বানিয়ে মিথ্যা বলার এবং হোক্স ছড়ানোরও কোনো প্রয়োজন নাই। যে নম্বর থেকে ফোন এসেছিলো আর যেখানে ফ্লেক্সি পাঠাতে বলা হয়েছিলো, সেই নাম্বারগুলো লেখা আছে শ্বশুর আব্বার কাছে। রাতে উনি (এবং আমি) বাসায় ফিরলে সেগুলো এই পোস্টে যুক্ত করে দেবো।

আমার কাছে অবাক লাগলো যে এটা কীভাবে সম্ভব! গ্রামীন ফোনের কিছু কি হ্যাক করে এমন ফ্রড করা সম্ভব ... নাকি ... কর্তৃপক্ষের অগোচরে ভেতরের কিছু লোক এমন কারবারের সাথে জড়িত?

==
ব্যাপারটায় সচেতন থাকা দরকার। আর এইরকম ঘটনা বিচ্ছিন্ন নয়। আমার আগের মাঝরাতে ব্যাপক বিনোদন নামক পোস্টেও মুঠোফোন দিয়ে একই রকম সমস্যার কথা জানিয়েছিলাম। টেকনিক্যাল কারণে (ব্যালেন্স পরিবর্তন, কল সেন্টার) এই ঘটনাটা আগের ঘটনাগুলোকে ছাড়িয়ে গেছে।
==

এর আগে (বছরখানেক হতে পারে) এক চ্যাংড়া মিস কল দিয়ে দিয়ে শাশুড়ি আম্মাকে জ্বালাতো। একবার কল ব্যাক করে ঝাড়িও দিয়েছেন। বাসায় এসে আমাকে বললো দেখতো বাবা ... এটার একটা বিহিত করা যায় কি না। আমি তখন দেখি যে ওটা মধ্যপ্রাচ্যের একটা নাম্বার। আম্মাতো নাম্বার খেয়াল না করেই কলব্যাক করেছেন! ..... .... শুনে আম্মার রিয়্যাকশন: তাইতো বলি আমার ২০০ টাকা এ্যাত তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে গেল কীভাবে!

==
আরেকবার (কয়েক বছর আগে) শ্বশুরের বাসার ল্যান্ডফোনে এরকম মিষ্টি কণ্ঠের নীহারিকা নামক মেয়ে ফোন করে পুরস্কার জেতার কথা জানিয়েছিলো (আমিই সেই ফোন রিসিভ করেছিলাম!)। পরদিন যাওয়ার জন্য একটা ঠিকানাও দিয়েছিলো। কিন্তু কে আর সেধে সেধে অপহৃত (মুক্তিপণ দাবির শিকার) হতে যায়!

==
২০০৩ সালে আমার তৎকালীন অফিসে (গণপূর্ত) ফোন করে এক সন্ত্রাসীর (কালা জাহাঙ্গীর) নামে চাঁদা চেয়েছিলো। অনুনয়ের সুর শুনে আমি ঠিক সন্দেহ করেছিলাম। আমি উল্টা ওনার কাছে আর্থিক সাহায্য চেয়েছিলাম। এর সপ্তাহখানেক পরেই পেপারে এরকম দুই ফ্রড গ্রেফতারের ঘটনাও বের হয়েছিলো।


মন্তব্য

গৌতম এর ছবি

পুরা টাশকি খেয়ে গেলাম!

.............................................
আজকে ভোরের আলোয় উজ্জ্বল
এই জীবনের পদ্মপাতার জল - জীবনানন্দ দাশ

শিক্ষাবিষয়ক সাইট ::: ফেসবুক

.............................................
আজকে ভোরের আলোয় উজ্জ্বল
এই জীবনের পদ্মপাতার জল - জীবনানন্দ দাশ

শামীম এর ছবি

টাশ্‌‍কি খান অসুবিধা নাই, তবে এমন পরিস্থিতিতে পড়লে ধরা খাইয়েন না। হাসি
________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

এটা কিভাবে সম্ভব (চিন্তিত)। শর্ষের ভেতরেই ভুত।

বিবেকহীন বিবেক এর ছবি

এই পুরষ্কার জিতেছেন টাইপ হোক্স টা নতুন না, অনেক আগে থেকেই চলছে। গ্রামীণ ফোন মনে হ্য় পত্রিকাতে বিজ্ঞাপণও দিয়েছিল এই ব্যাপারে সতর্ক করে। আর সবকিছু ঠিক আছে তবে *৫৬৬# এ কল করে ব্যালেন্স ফ্রডের বিষয়টা এবং ১২৩ তে কল করে মটরসাইকেল সম্বন্ধে জানার বিষয়টা আমার কাছে অতিরঞ্জিত মনে হয়েছে(যদি না গ্রামীণের ভিতরের কেউ এর সাথে জড়িত হয়)। আপনি কি আসলেই ১০০% নিশ্চিত যে *৫৬৬# চেপে তিনি ১৬৯০০ দেখেছেন এবং ১২৩ কল করে "মটরসাইকেল সম্পর্কে জানতে চাইলে" শুনেছেন? আমি শুধুই কৌতুহল থেকে জিজ্ঞেস করছি, এইটা যদি সত্য হয় তাহলে বিষয়টা আসলেই অনেক চিন্তার, কারণ এর মাধ্যমে সন্দেহ গ্রামীণের ভিতরের লোকগুলোর উপর যায়।

শামীম এর ছবি

শাশুড়ি আম্মা বয়স্ক মানুষ। আমাকে যেভাবে বয়ান করেছিলেন সেভাবেই লিখেছি। ব্যালেন্স চেক করার বিষয়টা আমাকেও খুব অবাক করেছে। কারণ, ব্যালেন্স চেক করার বিষয়টা উনি জানেন।

অপরপক্ষে ১২৩ ফোন নম্বরটা কি ১২১ না ১২৩ সেটা আমি ওনাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম। কারণ আমি জানি যে গ্রামীনের কাস্টমার কেয়ারের নাম্বার ১২১। উনি আমাকে বলেছেন ১২৩ বা এরকমই একটা নাম্বার! আমি দেখি বাসায় গিয়ে ওনার কল-লিস্ট চেক করবো।

ব্যালেন্স চেক আর ৩ডিজিটের নাম্বার - এই দুইটা আমাকেও শঙ্কিত করেছে।
________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

অতিথি লেখক এর ছবি

কি প্যাচাল! গ্রামীণ ফোনের দপ্তরে যোগাযোগ করেছেন নাকি?

কৌস্তুভ

ফরিদ এর ছবি

কলটা যদি শ্বাশুড়ী আম্মার যায়গায় জামাই রাজার কাছে আসত, আর জামাই রাজা যদি চটপট ১৬ হাজার টাকার ব্যালেন্স বৌরাণীর কাছে পাঠিয়ে দিত, তবে ফ্রডগুলো টাকা ফেরত নিতে গিয়ে ভাল ক্যাচালে পড়তো!

সাদা-কালো [অতিথি] এর ছবি

এমন ঘটনা আগেও শুনেছি। কিন্তু, ব্যালেন্সে ১৬৯০০ টাকা যুক্ত হওয়ার ব্যপারটা সত্তিই আমাকে অবাক করেছে।এই ব্যপারটা আগে শুনিনি।

rajiblsbf@yahoo.com

লীন এর ছবি

ঘটনা সন্দেহজনক। গ্রামীণ নিজে ডাকাত হলেও চোর না। এখন গ্রামীণ ফোনের কর্মচারীরাই চুরি শুরু করছে কি না জানা দরকার...

______________________________________
ভাষা উন্মুক্ত হবেই | লিনলিপি

দুষ্ট বালিকা এর ছবি

খাইসে আমারে! ইয়ে, মানে...

-----------------------------------------------------------------------------------
আমি সব দেবতারে ছেড়ে আমার প্রাণের কাছে চলে আসি, বলি আমি এই হৃদয়েরে; সে কেন জলের মতন ঘুরে ঘুরে একা কথা কয়!

**************************************************
“মসজিদ ভাঙলে আল্লার কিছু যায় আসে না, মন্দির ভাঙলে ভগবানের কিছু যায়-আসে না; যায়-আসে শুধু ধর্মান্ধদের। ওরাই মসজিদ ভাঙে, মন্দির ভাঙে।

মসজিদ তোলা আর ভাঙার নাম রাজনীতি, মন্দির ভাঙা আর তোলার নাম রাজনীতি।

জি.এম.তানিম এর ছবি

ওনার অ্যাকাউন্টে যদি টাকা এসেই থাকে তবে গ্রামীণের কোন ডাটাবেইজে সেটা থাকার কথা। তবে এইসব কুয়েরি করে তাদের কাছ থেকে কোন তথ্য পাবেন কিনা এ ব্যাপারে আমি সন্দিহান।
-----------------------------------------------------------------
কাচের জগে, বালতি-মগে, চায়ের কাপে ছাই,
অন্ধকারে ভূতের কোরাস, “মুন্ডু কেটে খাই” ।

-----------------------------------------------------------------
কাচের জগে, বালতি-মগে, চায়ের কাপে ছাই,
অন্ধকারে ভূতের কোরাস, “মুন্ডু কেটে খাই” ।

নৈষাদ এর ছবি

আমার মনে হয় আপনার অবশ্যই উচিত ব্যাপারটা গ্রামীণ ফোন কর্তৃপক্ষকে জানানো। তাদের কল রেকর্ড এ ঘটনার রেকর্ড থাকবে এবং তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারবে।

শামীম এর ছবি

ওনার ফোন এবং গ্রামীন ফোনে কোয়েরি করে আর লেখা হত না। তাই ঝটপট নামিয়ে দিলাম। রাতে আগে ওনার ফোন চেক করবো। তারপর আপডেট জানাবো। (এখন থেকে ৫ ঘন্টার মধ্যে; যদি বাসায় নেট ডাউন না থাকে)।
________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

আরাফাত রহমান এর ছবি

আমার মনে হয় গ্রামীণফোনের ভিতরের লোক জড়িত তা নাহলে এভাবে ব্যালেন্স দেখালো কিভাবে।

কালবেলা এর ছবি

অত্যন্ত দ্রুততার সাথে আমাদেরকে জানানোর জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

" এখানে সামঞ্জস্যপূর্ন না হলেও আর একটা ব্যাপার শেয়ার করতে ইচ্ছে হল। ব্যাপারটা আমার মত ননটেকনোলজিক্যাল মানুষের কাছে ভয়াবহ ই বটে এবং যা কিনা অনেকটা খেলাচ্ছলেই আমার এক বন্ধু দেখাচ্ছিল সেদিন। বিষয়টা হল- ব্লুটুথ হ্যাকিং। ইন্টারনেটে সার্চ দিলেই এই ধরনের ফ্রি সফটওয়ার ডাউনলোড করা নাকি যায় এবং আমি অবাক হয়ে লক্ষ্য করছিলাম সফটওয়ারটি দিয়ে আমার ফোন নম্বর ইউজ করে অন্য একটা ফোনে কল করা যাচ্ছে!!! অন্যান্য ব্যাপার-স্যাপার তো আছেই" ...

অতিথি লেখক এর ছবি

আমার মোবাইলের ব্লুটুথ অফ করে রাখলেও কি এটা করা সম্ভব?!!!!

মেয়ে

কালবেলা এর ছবি

জ্বি না।

অতিথি লেখক এর ছবি

আমার মনে হয় গ্রামীণফোনের ভেতরের লোক জড়িত আছে। তা নাহলে ব্যালেন্স দেখালো কিভাবে।

রাজীব দে সরকার [অতিথি] এর ছবি

*৫৬৬# এর ব্যাপারটি একটু জানান...
তাজ্জব হবার মতোই ঘটনা...

অতিথি লেখক এর ছবি

এরকম সূক্ষ্মভাবেও আজকাল জালিয়াতির চেষ্টা চলছে! আপনার শ্বশুর শাশুড়ী বিচক্ষণ ব্যক্তি বলেই এদের ফাঁদের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন না হলে আমি নিশ্চিত অনেকেই এদের ফাঁদের স্বীকার হয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছে।

sada kalo এর ছবি

আমি গ্রামীনফোন ও আরো দেশি বিদেশি অপারেটর এ প্রিপেইড বিলিং নিয়ে কাজ করেছি। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই এটা আমার কাছে অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছে। ( বিশেষ করে ব্যালান্স শো করা ও ব্যালান্স উধাও হয়ে যাওয়ার ব্যাপারটা। *৫৬৬# একটা USSD কমান্ড যা ডিরেক্টলি প্রিপেইড বিলিং সিস্টেম এ যায় ও প্রিপেইড সিস্টেম থেকে ব্যালান্স শো করা হ্য় । প্রিপেইড বিলিং এ প্রত্যেক এডমিনিস্ট্রেটর এর আলাদা আলাদা সিকিউরড লগইন থাকে । RSA key এর মাধ্যমে মিনিটে মিনিটে প্রত্যেকের পাসওয়ার্ড চেঞ্জ হয়। সেখানে ম্যানুয়ালি কোন এডিশন হলে RA ( revenue assurance) সহজেই সনাক্ত করতে পারবে। এবং এডমিনিস্ট্রেট্রকে অবশ্যই ধরা পড়তে হবে। তাই কোন এমপ্লইর পক্ষে এধরনের প্রতারনা সম্ভব নয় একেবারেই। যদি কেউ বিলিং সার্ভার হ্যাক করতে পারেও তাহলে সে এত ধনী হয়ে যাবে যে তার এভাবে প্রতারনা করার দরকারও পড়বে না।

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

অ্যাঁ
মন খারাপ
অ্যাঁ

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

রায়হান আবীর এর ছবি

ব্যালেন্স ট্যালেন্স দেখানোর কী দরকার। কয়েকমাস আগে আমাগো বুয়েটের এক ফ্রেন্ড ছত্রিশ হাজার টাকা ফেক্সি করে দিসিলো নগদে।

শামীম এর ছবি

কে কাকে করেছিলো ... ... একটু বিস্তারিত জানান প্লিজ।
________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

দময়ন্তী এর ছবি

কি সাংঘাতিক!!
-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

আহমেদুর রশীদ এর ছবি

GP কে কমপ্লেন করে কোনো লাভ নাই। প্রতিবার ইন্টারনেট চার্জ করার সময় আমার টাকা হাোয়া হয়ে যায় আর GP বলে আপনার জন্য আর কী করতে পারি স্যার? আমার মনে হচ্ছে এটা এদেরই কাজ। কেউ প্রমাণ করতে পারবেনা, কিন্তু পকেটটি ঠিকই কেটে যাবে।

---------------------------------------------------------

ঘাস তুমি ঘাসের মতো থাকো মাটি ছুঁয়ে
যে দেখার সে নতজানু হয়ে ছুঁবে তোমার আঙুল
অবরুদ্ধ মাঠ থেকে তুমি লাফিয়ে নেমোনা প্লিজ পাথরের পথে
________________________________________
http://ahmedurrashid.

---------------------------------------------------------

ঘাস তুমি ঘাসের মতো থাকো মাটি ছুঁয়ে
যে দেখার সে নতজানু হয়ে ছুঁবে তোমার আঙুল
অবরুদ্ধ মাঠ থেকে তুমি লাফিয়ে নেমোনা প্লিজ পাথরের পথে
________________________________________
http://ahmedurrashid.

শামীম এর ছবি

ফোনের কললিস্ট চেক করে আসলাম। তথ্যগত একটা ভুল শুদ্ধ করছি।

ইনফোর জন্য উনি ১২৩ নয় ১২১-এই কল করেছিলেন দুইবার। আর টেস্ট করে দেখলাম যে *৫৬৬# নাম্বারে কোয়েরি করলে সেটা কল লিস্টে দেখায় না। কিন্তু এর আগে *৫৫ *৫৫৬ এরকম কয়েকটাতে ভুল কোয়েরি সেন্ড করেছিলেন দেখলাম। উনি নিজেই বললেন যে কয়েকবারের চেষ্টায় ব্যালেন্সের সঠিক নাম্বারে কোয়েরি পাঠাতে পেরেছিলেন। ঐ ফোন নম্বর থেকেও বেশ কয়েকবার কল এসেছিলো ... ফোনে ফোনে গাইড করার জন্য .... অন্তত কললিস্ট তাই বলে।

মূল পোস্টে ১২১ এর তথ্যটা ঠিক করে দিচ্ছি। আর ফোনকারীর নম্বর এবং ফ্লেক্সি পাঠানোর নম্বর দুইটাও যোগ করে দিচ্ছি।
________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

সবজান্তা এর ছবি

বিলিং সম্পর্কে খুব ভালো না জানলেও এটা অন্তত বুঝি, *566# এবং 121 এর যে দাবি আপনি করছেন, তা সত্যি সত্যি করতে পারা বেশ কঠিন একটা কাজ। যেহেতু আপনি 121 এর ব্যাপারে নিশ্চিত এবং *566# এই ডায়াল করা হয়েছিলো- এমন সম্ভাবনাও একদম ক্ষীণ না, তাই চিন্তিত হলাম।

সত্যি হলে বেশ বড় মাপের সিকিউরিটি থ্রেট, সন্দেহ নেই !


অলমিতি বিস্তারেণ

মাহবুব লীলেন এর ছবি

আমাকে একবার পুরস্কারের কথা বলে টাকা পাঠাতে বলেছিল। আমি বললাম পুরস্কার থেকে ফিএর টাকা কেটে রেখে বাকিটা আমার ফোনে দিয়ে দেন
তারপর হাওয়া

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আমার কলিগ দিদার হোসেন। কয়েক বছর আগে তার কাছে এরকম একটা ফোন আসে।

আমার পাশের টেবিলে বসা দিদার। আমি দেখতে পাচ্ছি সে ফিস ফিস করে কথা বলছে, যেন আমি শুনতে না পাই। কথা বলছে আবার ফোনের নানা বাটন টিপছে, মাঝখানে ফোন চেপে আমাকে ডাক দেয়, বলে জরুরী দরকার তিনশ টাকার ফ্লেক্সি দাও এই নাম্বারে। আমি অচেনা সেই নাম্বারে ফ্লেক্সি করলাম। তার কথা চলছেই ফিস ফিস তখনো। আমি কৌতুকের চোখে তাকাই, কোন মেয়ের পাল্লায় পড়লো নাকি।

পাঁচ মিনিট পর আবার বললো, আরো তিনশো টাকা দাও প্লীজ। আমি এক্ষুনি টাকা দিয়ে দেব। আমি বিরক্ত হয়ে বলি, আমার ব্যালেন্স নাই আর দেয়া যাবে না। ওপাশে জানানো হলো। ওপাশ থেকে কিছু বলা হলো। দিদার আপনমনে গজগজ করে উঠলো আমার উদ্দেশ্যে, "দরকারের সময় তোমাদের কাছে ব্যালেন্স থাকেনা।" তারপর ভীষন হতাশ হয়ে ফোনটার দিকে তাকিয়ে রইল। ওপাশ থেকে লাইন কেটে দেয়া হয়েছে।

জিজ্ঞেস করলাম ঘটনা কি? বললো ওই ফোনটা একটা দুর্লভ সুযোগ ছিল। দিদারকে বলা হয়েছে একই সাথে বেশ কয়েকজন নির্বাচিত গ্রাহককে ফোন দেয়া হচ্ছে এবং তার মধ্য থেকে প্রথম পাঁচজনকে দশ হাজার টাকা করে পুরষ্কার দেয়া হবে। যে পাঁচজন তাড়াতাড়ি সব প্রশ্নের জবাব দিতে পারবে সেই পাঁচজনই পাবে। প্রশ্নের উত্তর দেয়া শেষ হলে তিনশো টাকার ফ্লেক্সি করতে বলা হয়। তারপর আরো তিনশো কনফার্ম করলে দশ হাজার পাওয়া যেতো। কিন্তু পুরোটা মাঠে মারা গেল।

এতক্ষনে বুঝলাম ঘটনা কি? বাটপারের পাল্লায় পড়েছে দিদার। বললাম, "মিয়া আমার তিনশো টাকা দাও আগে!"

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-
সেই সুদুরের সীমানাটা যদি উল্টে দেখা যেত!

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

নাশতারান এর ছবি

যারপরনাই অবাক হলাম। ঝানু লোকের কাজ বোঝা যাচ্ছে। গ্রামীনের সাথে যোগাযোগ করা জরুরি।

অফটপিকঃ শব্দগুলো ঠিক করে নিন।

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

শামীম এর ছবি

অফটপিকের জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।
________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

________________________________
সমস্যা জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ; পালিয়ে লাভ নাই।

অতিথি লেখক এর ছবি

আজব দেশে বাস করি।
মেহেদী আকরাম

অতিথি লেখক এর ছবি

অ্যাঁ

সৈকত তপু

অতিথি লেখক এর ছবি

আজব কান্ড দেখি

আরিফ সিদ্দিকী

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।