ইদানিং বেশ কিছু নতুন বই পড়ছি

কনফুসিয়াস এর ছবি
লিখেছেন কনফুসিয়াস (তারিখ: বিষ্যুদ, ১৫/১১/২০১২ - ১১:০৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

ইদানিং
---------

বছর-খানিক ধরেই খুঁজে পাচ্ছিলাম না ব্যাটাকে। অথচ খুঁজছিলাম, অনেকদিন ধরেই। আমার বুকশেলফের আড়ালে, বালিশের পাশে জমে থাকা অলস অন্ধকারে, অথবা কাজ শেষে বাড়ি ফিরে জমাটি করে বসে থাকা সোফার আরামে। কিন্তু বাস্তবিক প্রায় হারিয়েই ফেলেছিলাম তার খোঁজ। শেষমেষ একটা ষড়যন্ত্র করতে হলো। নিজের সাথে নিজেই চোখ রাঙাতে হলো। একদিন সকালে উঠে আয়নায় নিজেকে জোরসে ধমক লাগালাম, চোপ রাও বদমাশ, যা বলি তা-ই করো।

তো, করলাম। চুপচাপ। বাধ্য মানুষটির মতো ফেইসবুকের ডিএকটিভেট বাটন চেপে দিলাম। জুকারবার্গের নীল দৈত্য কঁকিয়ে উঠলো, কেন কেন?
বললাম, না হে, এটা সাময়িক বিচ্ছেদই কেবল, পাকাপাকি ছাড়াছাড়ি নয়, আবার আসিব ফিরে, সহসাই।

তারপর বুকশেলফের বইগুলোকে ওলট পালট করে ঝাড়াঝাড়ি করে নিলাম। একটা করে বই জায়গা করে নিলো আমার সবকটা চারণভূমিতে। গাড়িতে একটা, সোফার পাশে একটা, একটা ডাইনিং টেবিলে, বিছানায় বালিশের পাশে একটা, আঁকাআঁকির টেবিলে একটা।
ড্রপবক্সের একাউন্ট থেকেও ঝেড়ে মুছে বিদায় জানিয়ে দিলাম সব কটা অনাবশ্যক ফাইলকে। তার বদলে সেটা ভর্তি হয়ে গেলো হাজার-খানেক ই-বুকে।

এবং, তারপরে, সহসাই খুঁজে পেলাম তাকে। আমার হারিয়ে যাওয়া বই পড়ার তুমুল অবসরকে। ওহ, মাই প্রেশাস, এতদিন কোথায় ছিলে?

বেশ কিছু নতুন বই
------------------------

বছরে অন্তত একবার বই আনাবার একটা বদভ্যাস গড়ে উঠেছে আলগোছে। প্রবাসী হবার পর থেকেই। বইয়ের জন্যে আমি আর আমার বউ মনে মনে অল্প অল্প করে টাকা জমাই। আনানোর পরিমাণ নির্ভর করে কত জমাতে পারলাম তার উপরে। কোনবার নিজেদের ফাঁকি দিয়ে খানিক বেশি জমাতে পারলে বই আসে পঁচিশ কেজি। আর টানাটানির বছরে আসে মেরে কেটে দশ কেজি।
এই দশ আর পঁচিশের সীমানা আমাদের নিজেদের করা নয়। এটা ফেডেক্সের বদান্যতা। ওদের দুটা প্যাকেজে, হিসেবে করে দেখেছিলাম, পোস্ট অফিসের ইএমএসের খরচের চেয়ে খানিকটা বেশি লাগে। কিন্তু পাবার গ্যারান্টি আর দ্রুততার সাথে সেটুকু আপোষ করা চলে।
কিন্তু এবারে বই আনাতে গিয়ে ব্যাপক ধরা খেলাম। ফেডেক্সের খরচ বেড়ে গেছে প্রায় দ্বিগুণ। এটুকু আমাদের সাধ্যের বাইরে। ফেডেক্স দিয়ে হয়তো এই শেষবারের মত কিছু বই আনানো হলো, পরের বছর থেকে পোস্টাপিসের দুয়ারে গিয়ে হাজিরা দিতে হবে নিশ্চিত।

পড়ছি
------

একসাথে কয়েকটি বই পড়তে শুরু করা আমার স্বভাব। গত সপ্তা নাগাদ শেষ করে উঠলাম কিছু। মুহম্মদ জাফর ইকবালের ‘ও’ পড়া হলো। মোটামুটি লাগলো পড়ে। সব কটি গল্পের শুরুই চমৎকার, কিন্তু শেষটুকু আর সুন্দর থাকেনি কেন জানি। প্রথম দু’টি গল্প পড়ে আমার এমনও মনে হলো, হায়, শেষমেষ জাফর ইকবাল স্যারও বাজে গল্প ছাপাতে শুরু করলেন?

অতীন বন্ধ্যোপাধ্যায়ের পঞ্চাশটি গল্পের সংগ্রহ শুরু করেছিলাম, পড়ছি এখনও। এনার লেখা আগে পড়িনি। এখন পড়তে গিয়ে মনে হচ্ছে, লেখার ভঙ্গি রীতিমতন মনোমুগ্ধকর। ছেঁড়া পাজামা নামের গল্পটি পড়ে একদম শিউরে উঠলাম! একেবারে অন্তর ছুয়ে গেলো! গল্পের শেষ লাইন বা শেষ প্যারায় চমক দেয়ার একটা অভ্যাস খেয়াল করলাম লেখকের, কিন্তু এটা নিয়মিত কিনা সেটা আরো পড়ার পরে বলতে পারবো।

রাহাত খানের অমল ধবল চাকরি পড়ছি। বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের সদস্য হবার প্রথম দিকের কোন মাসে পড়েছিলাম তাঁর দিলুর গল্প। গল্পটা এখন আর সঠিক মনে নেই, কিন্তু সেই কিশোর বয়সে সাংঘাতিক ভাল লেগেছিলো এটুকু মনে আছে। অমল ধবল চাকরি পড়তে পড়তে লেখককে মনে মনে লম্বা সেলাম ঠুকলাম। এত স্মার্ট ভাষা, এত স্মার্ট ভাবনা সেই আদ্যিকালে কোন জাদুবলে যে আমাদের রাহাত খান আর মাহমুদুল হকেদের পকেটস্থ ছিলো কে জানে! বইটা শেষ করতে করতেই রাহাত খান যে আমার প্রিয় লেখকদের তালিকায় উঠে আসবেন সন্দেহ নেই।

স্টিফেন কিং এর লেখা একটা নন-ফিকশান বই পড়লাম- ‘অন রাইটিং’। কিং মূলত হরর থ্রিলার লেখক। আমার পড়াপড়ির অভ্যেসের শুরু রূপকথা আর সেবার থ্রিলারগুলো দিয়েই। তাই এখনও চটপট চানাচুর-ভাজার মত থ্রিলার পড়ে ফেলতে বেশ পছন্দ করি। অন রাইটিং বইটা লেখালেখির উপরে। ক্রিয়েটিভ রাইটিং এর উপরে এর আগেও বেশ কিছু বই পড়েছি, কিন্তু সেসবের সাথে এই বইটার অনেক পার্থক্য রয়েছে। ঐ বই গুলো মূলত উপদেশে ভরপুর। এটা করা চাই, ওটা কিন্তু নয়। কিন্তু কিং এই বইটায় সেসব থেকে অনেক দূর দিয়ে হেঁটেছেন। বইটার প্রথম ভাগে তার নিজের লেখকজীবনের শুরুর কথা আছে। কেমন করে, এবং কোন পারিপার্শ্বিকতার ভেতর থেকে তার ভেতরের লেখক স্বত্তা মাথাচাড়া দিয়ে উঠলো সেসবেরই বর্ণনা সেখানে। এটুকু বেশ আত্মজীবনীর মত করে পড়ে ফেলা যায়। বইয়ের শেষভাগে কিছু না-দিলেই-নয় উপদেশ রয়েছে। কিন্তু সেটাও এমনই আপন আপন স্টাইলে দেয়া যে পড়ে মনে হয় না লেখালেখির ক্লাস করছি। সবমিলিয়ে বেশ ভাল একটা বই।

অতীন আর রাহাত খানের সাথে ব্যালেন্স করার জন্যে কাল থেকে শুরু করেছি জন গ্রিশামের ‘দি ফার্ম’। টানটান উত্তেজনা একেবারে যাকে বলে। আপাতত ৬২ পৃষ্ঠায় আছি। পড়ছিলামই খানিক আগেও, এর মাঝে হঠাৎই মনে হলো, যাই লোকজনদের খানিক বিরক্ত করে আসি গিয়ে।
অতঃপর আর কি, তাই হেতু এই জ্বালাতন-ধর্মী ব্লগের জন্মলাভ। হাসি


মন্তব্য

রিসালাত বারী এর ছবি

চলুক

নতুন গল্প দ্যান। সামনের বইমেলায় কিছু আসবে না এবার?

কনফুসিয়াস এর ছবি

নতুন গল্প রেডি নাই, এবারের মেলা-ও ফাঁকা যাবে। ঃ-(

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

অতিথি লেখক এর ছবি

খুব বেশী জ্বললাম না কারণ 'দি ফার্ম।' বেশি জ্বালাইলে বইলা দিমু কিন্তু শেষে কি হয়। দেঁতো হাসি

লেখা সুস্বাদু হয়েছে। লেখা -গুড়- হয়েছে

ফারাসাত

কনফুসিয়াস এর ছবি

কী হবে সেটা তো অনুমেয়, কিন্তু পড়ার সময়ের টেনশানটাই মজা! হাসি

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

আয়নামতি এর ছবি

আপনার জ্বালাতনটা কিন্তু বেশ উপভোগ্য!
কাগজের বই ছুঁয়ে ছুঁয়ে পড়ার মধ্যে যে আনন্দ সেটা ই-বুকে কেন জানি পাইনা।
তবুও অনেক সময় বাধ্য হয়ে 'তার দুয়ারে ভিক্ষা নিতে যাই'।

কনফুসিয়াস এর ছবি

ঠিক কথা, কাগজের বই এখনও লাজবাব। কিন্তু আমি আইবুক-কেও নির্দ্বিধায় লেটার মার্ক দিবো।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

স্যাম এর ছবি

'সচলায়তন' লেখাটা পছন্দ হয়েছে হাসি

কনফুসিয়াস এর ছবি

ধন্যবাদ, ব্যানার জাদুকর! ঃ-)

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

উদ্ভ্রান্ত পথিক এর ছবি

নতুন লেখা দেন! পড়তে চাই!

---------------------
আমার ফ্লিকার

কনফুসিয়াস এর ছবি

বলে কী ছ্যাড়া, এইটা পুরান লেখা নাকি? তাওয়া থেকে মাত্র নামাইলাম, এখনও গরম!

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

CannonCarnegy এর ছবি

বই আনাইতে মন চায়। দেশে থেকে মনমতো বই কিনে পাঠানোর লোক পাইনা মন খারাপ

কনফুসিয়াস এর ছবি

আমি সর্বশেষ যেটা করেছি, রকমারি থেকে নিজের পছন্দ অনুযায়ী বই লিস্ট করে কিনে বাসায় পাঠিয়ে দিয়েছি। তারপর সেই প্যাকেটই ছোটভাইকে দিয়ে ফেডেক্স করে সোজা মেলবোর্ন।
রকমারির কিছু অদ্ভুত জটিলতা আছে, সেটুকু সহ্য করতে পারলে এই বুদ্ধি কাজে লাগাতে পারেন।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

জুকারবার্গের দৈত্যকে আরো মাস আষ্টেক আগেই বিকল করে রেখেছি, তবু বই পড়ার রেট বাড়াতে পারিনি। তবে এর জন্য আফসোস নেই। গত চার দশক ধরে বই সাথে আছে, বাকি জীবন তাকেই কাছে রাখতে চাই - জুকারবার্গ সরে দাঁড়ান।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

মণিকা রশিদ এর ছবি

জুকারবার্গকে বাগে আনতে না পেরে বর্জন করলেন! ফেবু আসলেই যন্ত্রণা করে--নেশার মতন। পান্ডবদার বুকশেলফ দেখতে মঞ্চায়!

----------------------------------------------
We all have reason
for moving
I move
to keep things whole.
-Mark Strand

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

পরের বার ঢাকায় আসলে আমাদের জন্য কিছু সময় হাতে নিয়ে আসবেন। তাহলে আমার বুক শেলফ দেখা (তিনটা বাসায় ছড়ানো), দিশার রান্না খাওয়া, বাবানের সাথে খেলা সবই হবে। তবে সাথে আপনার গান থাকতে হবে।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

কনফুসিয়াস এর ছবি

ফেইসবুক এমনিতে ভাল, মুশকিল হলো সময় ভাগাভাগি নিয়ে। আগে যেখানেই সময় পেতাম বই খুলে চট করে এক প্যারা পড়ে ফেলতাম, তার জায়গা নিয়ে নিচ্ছিলো ফেইসবুক। সময় পেলেই মোবাইলে চট করে নতুন নোটিফিকেশান!
পরে ভেবে চিন্তে প্রায়োরিটি বদলে নিয়েছি, আপাতত। ঃ-)

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

শাব্দিক এর ছবি

জ্বালাতন-ধর্মী ব্লগে

মন্তব্য করতে ঢুকলাম।

একসাথে কয়েকটি বই পড়তে শুরু করা আমার স্বভাব।

এই সুঅভ্যাসটা আমারও আছে, এবং অর্ধেক পড়া বই গুলো শেষ করতে ভুলে যাওয়া।
লেখা ভাল্লাগ্ল।

---------------------------------------------------------
ভাঙে কতক হারায় কতক যা আছে মোর দামী
এমনি করে একে একে সর্বস্বান্ত আমি।

কনফুসিয়াস এর ছবি

ধন্যবাদ। না-পড়া বইয়ের অভিশাপ লাগে কিন্তু, সাবধান। ঃ-)

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

তারেক অণু এর ছবি
কনফুসিয়াস এর ছবি

ঃ)

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

কাজি মামুন এর ছবি

কতগুলো ভাল বইয়ের নাম জানতে পারলাম। অনেক ধন্যবাদ, কনফুসিয়াস ভাই!

কনফুসিয়াস এর ছবি

আপনাকেও ধন্যবাদ।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

এস এম মাহবুব মুর্শেদ এর ছবি

অন রাইটিং পড়েছি (, , )। ভালো লাগেনি, কিংবা বলা যায় কাজে লাগেনি। এখন পড়ছি খালেদ হুসাইনির দ্যা কাইট রানার।

মণিকা রশিদ এর ছবি

কাইট রানারের পর- A Thousand Splendid Suns পড়তে পারেন। খালেদ হুসাইনির ফ্যান হয়ে গেলাম এই দুইটা বই পড়ে!

----------------------------------------------
We all have reason
for moving
I move
to keep things whole.
-Mark Strand

কনফুসিয়াস এর ছবি

আপনার লেখাটার কথা মনে ছিলো সুমন ভাই। পড়ার সময় একবার আপনার নাম সহ গুগল করেছলাম, কেন যেন পাইনি।
ক্রিয়েটিভ রাইটিং এর বই আজ পর্যন্ত কোনটা বেশি কাজে এসেছে এমনটা হয়নি। এই বইটা ঠিক কাজের না, আমি আসলে আত্মজীবনীর অংশটুকু এনজয় করেছি।
কাইট রানার পড়িনি, পড়বো আশা করি সামনে।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

মণিকা রশিদ এর ছবি

অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়ের গল্প পড়িনি। যদিও কয়েকখানা উপন্যাসের পিডিএফ নিয়ে বসে আছি। ওঁর 'নীলকন্ঠ পাখির খোঁজে' পড়ে প্রায় সপ্তাহখানেক শাব্দিক অর্থেই ঘোরের মধ্যে ছিলাম। কী অসাধারণ বর্ণনা, কী ভয়ানক রোমান্টিসিজম-বিষয়ের গভীরে প্রবেশ করা!

ছবির বইগুলো ভালো করে দেখা যাচ্ছেনা, যদি নামগুলো কষ্ট করে লিখে দিতেন। 'দি ফার্ম' নিয়ে রিভিউ দিয়েন প্লীজ; বইটা আছে, কিন্তু তার আগে লাইনে আছে আরো গোটা পঞ্চাশেক দেশ থেকে সদ্য আসা বই--কবে শুরু করতে পারবো কে জানে!

আমার দুইবার পোস্ট অফিসের মাধ্যমে পাঠানো বই আসেনি। তাই ও পথ আর মাড়াইনে।
ফেবু থেকে আপনার উধাও হয়ে যাওয়াটা খেয়াল করেছিলাম--ভেবেছিলাম এই বইমেলায় নতুন কোনো বই পাবো!

----------------------------------------------
We all have reason
for moving
I move
to keep things whole.
-Mark Strand

কনফুসিয়াস এর ছবি

পোস্ট অফিস নিয়ে আমারো এরকম অভিজ্ঞতা আছে একটা। দুর্দিন মনে হয় ঘনিয়েই এলো। ঃ(
আমি একটা কাজ করবো, এই উইকেন্ডে তাক ধরে ধরে আমার বুকশেলফের ছবি তুলে ইমেইল করে দিবো আপনাকে। চলবে?
এবার ভালোয় ভালোয় অতীনের পিডিএফগুলো মেইল করে দেন দেখি! ঃ-)

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

নজরুল ইসলাম এর ছবি

অমল ধবল চাকরি আমার খুব পছন্দের বই... আব্দুল্লাহ আবু সাঈদ আর হক সাহেবের ছড়াছড়ি দেখি...
হক সাহেবের কাব্য নাট্য পইড়েন... ভালো পাইবেন...

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

কনফুসিয়াস এর ছবি

সায়ীদ স্যারের বাংলা আমার খুব ভালো লাগে, তাই পড়ি। হকের নাটক এনেছি পড়ার জন্যে, দেখা যাক।
আপনি কেমন আছেন নজু ভাই? ইলিয়াসের কোন গল্প নিয়ে নাকি সিনেমা বানাচ্ছেন?

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

সাবেকা  এর ছবি

বই পড়ার ব্যাপারে বেশ মিল পেলাম নিজের সাথে, আমিও মাঝে অনেক দিন বাদ দিয়ে আবার নতুন উদ্যমে পড়া শুরু করেছি এ জন্য আমার যা বাদ দিতে হয়েছে তা হচ্ছে ব্লগ পড়া,এতে অবশ্য ব্লগের ভাল ভাল লেখাগুলো ও মিস হয়ে যাচ্ছে । আমিও এক সাথে বাংলা ইংরেজী মিলিয়ে অনেক গুলো বই পড়া শুরু করেছি,(ছয়টা) অনেক বই কিনেছি ঘরে প্রায় আর জায়গা নেই মন খারাপ ইদানিং অনেক অনেক বই ডাউনলোড করেছি, করেই যাচ্ছি ।

মন খারাপ হয়ে যায় ভাবলে হায়, এক জীবনে ক'টা বইই বা পড়া হবে,পছন্দের লিষ্টটা যে খালি বাড়তেই আছে, বাড়তেই আছে মন খারাপ

কনফুসিয়াস এর ছবি

লিস্টের কথাটা ঠিক, আমিও সেদিন ভাবছিলাম, এই বুড়ো বয়সেও কত কত নতুন লেখককে আশ্চর্য হয়ে আবিষ্কার করি, করেই চলেছি। হায়, জীবন এত ছোট ক্যানে!

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

Guest_Writer নীলকমলিনী এর ছবি

যারা পড়ে তাদের আমার খুব ভাল লাগে। সচলায়তনের সাথে পরিচয় হবার আগে বই অনেক বেশী পড়া হত। ইদানিং আবার বাংলা ইংরেজী মিলিয়ে বেশ কয়েকটি বই পড়ছি। আমার বর কেবল আই প্যাড বা কিন্দেলে পড়তে বলে, কিন্তু আমার ভাল লাগে বই হাতে নিয়ে পরতে। নুতন বই এর গন্ধ যে কি ভাল লাগে!
ফার্ম পড়েছি ৯১ সালে, অফিসের এক কলিগ দিলো, মনে আছে রাতদিন পড়ে একটানে শেষ করেছিলাম। সাথে সাথে পড়লাম এ টাইম টু কিল। খুব মন খারাপ হয়েছিল পড়ে।
আপনি কি মুভি গুলো দেখেছেন? টাইম টু কিল, ফার্ম, পেলিকান ব্রীফ, দা ক্লায়েন্ট প্রতিটি মুভিই ভাল।

অনেক ভাল লাগলো লেখাটি। কত বইএর কথা জানতে পারলাম।

কনফুসিয়াস এর ছবি

নাহ, মুভি দেখিনি একটাও। গ্রিশামের এ টাইম টু কিল লিস্টে রেখেছি, পড়ব শিঘ্রি। আপনাকে ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্যে।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

অতিথি লেখক এর ছবি

ইয়েস, ইকবাল স্যারের আর লেখালেখিতে মন নাই, অনেকদিন ভাল কিছু লেখেন নাই। নন-রাইটিং তেমন ভাল লাগে নাই।
ফেডেক্স দিয়া বছরে ২৫ কেজি বই নিয়া যান! জুকারবার্গ জেনারেশান নীলক্ষেত থেইকা হাতে কইরা বছরে ১ কেজি আনে কি সন্দ!
অভিনন্দন এবং ধন্যবাদ। (স্বপ্নীল সমন্যামবিউলিসট)

কনফুসিয়াস এর ছবি

ধন্যবাদ। আপনার নামটা খুব ইন্টারেস্টিং।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

নিবিড় এর ছবি

অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছোট গল্প পড়তেছেন দেখে ভাল লাগল। নীলকন্ঠ পাখির খোজে আর অলৌকিক জলযান উনার এই দুইটা উপন্যাস পড়ে ফেলেন, ঘোরে চলে যাবেন। কলেজে থাকতে যখন লাইব্রেরির চাবি ছিল আমার কাছে তখন একটা বই দেখি কেউ ইস্যু করে না, সম্ভবত সাইজের ভয়ে। অলৌকিক জলযান আর অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে সেই প্রথম পরিচয়। জাহাজ, খালাসী জীবন, রহস্যময় জাহাজ, জ্যাক আর ছোটবাবু। পড়ার পর অনেকদিন ঘোরে ছিলাম।

গ্রিশামের থ্রিলার ভাল পাই তবে স্টিফেন কিং এখনো পড়া হয় নায়।

কনফুসিয়াস এর ছবি

স্টিফেন কিং বেশ ভাল। তবে থ্রিলার লেখকদের মধ্যে গ্রিশামকেই সবচে পছন্দ হয়েছে এখন পর্যন্ত।
অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়ের বইগুলা পড়বো অবশ্যই।
লাইব্রেরির চাবি তোমার কাছে ছিল তাতে আর আশ্চর্য কী! হাসি আমাদের সময়ে চাবি ছিলো শরীফের হাতে।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

নিবিড় এর ছবি

শরীফ ভাই একবার শর্ত দিছিল বই প্রতি একটা চিপস দিতে হবে, ভাই ভাবছিল আমি বুঝি ভয়ে আসা কমিয়ে দিব কিন্তু ঠিক পরের দিন চিপস নিয়ে হাজির হইছিলাম খাইছে

অতিথি লেখক এর ছবি

মনে আছে সেই ক্লাস ৩ থেকে শুরু করেছিলাম, ভার্সিটিতে ওঠার পরও অনেক দিন সারাদিন বই পড়তাম। মা চেচামেচি করত খাওয়ার সময়েও বই পড়ার জন্য, আর আমার রুমে বই ছড়িয়ে থাকত বলে কেউ ঢুকত না। আর এখন, এই জুকারবার্গের দৈত্যি সব খেয়ে দিল!!! আরো সমস্যা হচ্ছে আমার এখানে বাংলা বইতো পাওয়ার প্রশ্নই আসে না, ইংরেজীও হ্যাজাক জ্বালাইয়া খুজতে হয়। ওঁয়া ওঁয়া একবার বেশ কিছু টাকা জমিয়ে একটা ট্যাবলেট কিনব, আর দেশ থেকে আনাবো একগাদা বই। ড্রপবক্সে এখনি ২৬গিগা যায়গা আছে, আরো বাড়াবো...তারপর ভার্চুয়াল আর রিয়েল দুই বইয়ের মধ্যে ডুবে যাব, সব দুঃখ ভুলে যাব।

--বেচারাথেরিয়াম

কনফুসিয়াস এর ছবি

দারুণ সব পরিকল্পনা করেছেন দেখি। বাস্তবায়িত হোক। হাসি

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

মন মাঝি এর ছবি

বই পড়া নিয়ে পড়তে ভাল্লাগ্ল।

অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়ের নীল কণ্ঠ পাখির খোঁজে, অলৌকিক জলযান, ঈশ্বরের বাগান - এই বইগুলি পড়া না থাকলে পড়ে ফেলেন। এগুলি সম্ভবত তাঁর সেরা লেখাগুলির অন্যতম। দুর্দান্ত। এক সময় অতীনে্র বিশাল ফ্যান ছিলাম, অনেক বইই পড়েছি তার। কিন্তু আশ্চর্য ব্যাপার এই মুহূর্তে এই তিনটার বাইরে আর কোন নাম মনে পড়ছে না কেন যেন, যদিও আরও আছে। এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার পর সাহিত্য সমালোচক অধ্যাপক সরোজ বন্দোপাধ্যায় আর কার যেন (শ্রীকুমার বন্দোপাধ্যায়?) লেখা বাংলা উপন্যাস সাহিত্যের উপর দু'টি বই হাতে পড়েছিল। ঐ দু'টা বই পড়ে উৎসাহিত হয়ে ঐ বইগুলিতে আলোচিত প্রায় সমস্ত উপন্যাসই পড়ে ফেলেছিলাম এক সময় একে একে। এবং তার বাইরেও অনেক। এক হিসেবে বাংলা সাহিত্যের একটা পর্যায় পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য অধিকাংশ উপন্যাসই মনে হয়। ছাত্রজীবন ও তারপরও কিছুকাল এভাবেই কেটে গেছে। অথচ অনেকদিন হল এখন আর গল্প-উপন্যাস পড়া হয় না - পুরো ইচ্ছে থাকা সত্বেও। মাথা দিয়েই ঢুকে না কেন জানি! এমনকি মাসুদ্রানা পর্যন্ত না। ফলে এখন যখন অন্য কাউকে গল্প-উপন্যাস-সাহিত্য পাঠের অভিজ্ঞতা বা আনন্দের কথা বলতে শুনি, তখন ভীষন হতাশ লাগে আর হিংসে হয়। ভীষন। তবে আনন্দও হয়, দুধের স্বাদ ঘোলে মিটাই আরকি! হাসি

দিলুর গল্প -এর কথা আমার মনে আছে। এটা মোহাম্মদ নাসির আলীর লেবু মামার সপ্তকাণ্ড আর খান মোহাম্মদ ফারাবী-র মামার বিয়ের বরযাত্রী ধাঁচের একটা কিশোর ছেলেদের মজার দুষ্টুমির কাহিনি ছিল। সম্ভবত লেবু মামা আর ফারাবীর বরযাত্রীর দু'টোরই পূর্বসুরী ও প্রোটোটাইপ এটা। নিশ্চিত না যদিও। বইটা প্রথমে বেরিয়েছিল রাহাত খানের বন্ধু কাজী আনোয়ার হোসেনের সেবা প্রকাশনী থেকে পেপারব্যাকে। পরে মুক্তধারা থেকে হার্ডকাভারে। আমারও দারুন প্রিয় বই ছিল এটা।

****************************************

কনফুসিয়াস এর ছবি

এরকম কিছু সময় সবারই যায় আসলে। মাঝে আমিও লম্বা দিন পড়তে পারিনি কিছুই। এখন আবার শুরু করলাম। আপনারও দেখবেন আবার খুব শিঘ্রী পড়া শুরু হয়ে যাবে, চিন্তা করবেন না।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

মন মাঝি এর ছবি

বাই দ্য ওয়ে, আপনি কনফুসিয়াস কনফুসিয়াসের বই পড়েছেন তো? চোখ টিপি
না পড়ে থাকলে, অবিলম্বে পড়ে নিয়ে নিকটা সার্থক করুন! হাসি

****************************************

কনফুসিয়াস এর ছবি

না, পুরো বই এখনও একটাও পড়ে উঠিনি। হাসি

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

বাহ!
মনে হলো আপনার বাসার ড্রয়িং রুমে সামনাসামনি বসে আপনার সাথে আড্ডা হচ্ছে হাসি

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

কনফুসিয়াস এর ছবি

সামনাসামনি আড্ডার সুযোগ তো আপনি খুব একটা রাখেন না। ধরেন পাশাপাশি বা পিঠাপিটি আড্ডা হলো আর কি! হাসি

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

বাউলিয়ানা এর ছবি

অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা পড়িনি। সৈয়দ হকের পত্রিকায় লেখাগুলো ছাড়া বই পড়া হয়নি। খুশবন্ত সিং এর অন্যান্য বই পড়লেও এটা কেন জানি চোখে পড়েনি। রিভিউ দিয়েন বস।

ইংরেজী বাংলা মিলিয়ে হাতে কয়েকটি বই আছে সময়ের অভাবে ধরতে পারছিনা মন খারাপ

কনফুসিয়াস এর ছবি

পড়ে জানাবো, আশা রাখি।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

কড়িকাঠুরে এর ছবি

ব্লগীয় জ্বালাতন ভাল লেগেছে... আধ খাওয়া বই শেষ করতে হবে।

কনফুসিয়াস এর ছবি

ধন্যবাদ।

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

মেঘা এর ছবি

বই নিয়ে লেখা সব সময় খুব খুব ভাল লাগে। বই পড়তে অনেক ভাল লাগে। তবে এটা ঠিক ফেসবুক, ব্লগ, নেট, মুভি, লেখাপড়া সব কিছু মনের আনন্দে বই পড়ার অনেকটা সময় নিয়ে নেয়।

আমারও অভ্যেস অনেকগুলো বই একসাথে পড়তে শুরু করা। আপাতত পড়ছি গেরিলা থেকে সম্মুখ যুদ্ধে-২য় খণ্ড, অ্যাল্যান এন্ড শী, চে গুয়েভারা রচনাসমগ্র ( যার মধ্যে প্রায় অনেকগুলো বই অন্তর্ভুক্ত), আ স্ট্রেঞ্জার ইন দ্যা মিরর। এগুলো শেষ হলে পড়ার জন্য জমে আছে প্রায় ৩০ খানা বই। কবে পড়ে শেষ করব কে জানে। পরীক্ষা সামনে চলে আসছে মন খারাপ

--------------------------------------------------------
আমি আকাশ থেকে টুপটাপ ঝরে পরা
আলোর আধুলি কুড়াচ্ছি,
নুড়ি-পাথরের স্বপ্নে বিভোর নদীতে
পা-ডোবানো কিশোরের বিকেলকে সাক্ষী রেখে
একগুচ্ছ লাল কলাবতী ফুল নিয়ে দৌড়ে যাচ্ছি

কনফুসিয়াস এর ছবি

হাসি পড়ে ফেলুন ধীরে সুস্থে। ব্লগ টিভি ফেইসবুক এগুলোয় সময় খানিকটা কমিয়ে দিয়ে বই পড়ুন বরং। হাসি

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

অতিথি লেখক এর ছবি

হাততালি
তাহসিন রেজা

কনফুসিয়াস এর ছবি

হাসি

-----------------------------------
বইদ্বীপ ডট কম

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

অনেক আগেই পড়েছিলাম এই লেখাটা। মন্তব্য করা হয় নি তখন। মজা লাগল যে এখানে বলা বই শেষ করার অনুভূতি নিয়ে লেখা আরেকটা লেখা এর মধ্যেই পড়ে ফেলেছি! হাসি

স্টিফেন কিংয়ের "ইনসমনিয়া" কিনেছি। বেশ মোটাতাজা একটা বই। কবে যে পড়া হয় কে জানে।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA