একটি সম্ভাব্য মারাত্মক ভৌতিক গল্প : নিশুত রাতের অতিথি

কীর্তিনাশা এর ছবি
লিখেছেন কীর্তিনাশা (তারিখ: সোম, ০৮/০৬/২০০৯ - ১২:৫৫অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

আলতাখালি গ্রামের একমাত্র হাইস্কুলের একমাত্র অঙ্কের শিক্ষক জোনাব আলী। স্কুলের একমাত্র আবাসিক শিক্ষকও তিনি। বয়স চল্লিশোর্ধ হয়ে গেলেও এখনো বিয়ে করেননি। স্কুলের পাশেই ছোট্ট টিনের চালাঘরে তার একাকি বসবাস। জোনাব আলী যুক্তিবোধ সম্পন্ন মানুষ। ভূত প্রেত জাতিয় অতিপ্রাকৃত বিষয়ে তার কোনরূপ বিশ্বাস নেই। তাই স্কুলের এই বিশাল নির্জনতায় রাত-বিরেতে একা থাকতে তার মোটেও সমস্যা হয় না।

এক সন্ধ্যায় তিনি হারিকেনের টিমটিমে আলোয় বিছানায় শুয়ে শুয়ে কী একটা উপন্যাস পড়ছিলেন। হঠাৎ শুনতে পেলেন উঁ উঁ উঁ উঁ...... আওয়াজ করে দূরে কোথায় কেউ যেন কাঁদছে। জোনাব আলী জানালা দিয়ে বাইরে তাকালেন। কৃষ্ণপক্ষের আঁধার তখন ভালোই ঘনিয়েছে। মনে হচ্ছে জানালায় কেউ ঘনকালো পর্দা ঝুলিয়ে দিয়েছে। তিনি বই পড়ায় মন দিতে যাবেন এমন সময় আবার সেই কান্না – উঁ উঁ উঁ উঁ........ !

জোনাব আলী উঠে বসলেন। এমন দুঃখের কান্না এই রাতে এখানে কে কাঁদতে এলো? হারিকেনটা হাতে নিয়ে বাইরের দাওয়ায় এসে দাঁড়ালেন তিনি। দাওয়ার সামনে থেকেই স্কুলের মাঠ শুরু হয়েছে। মাঠ পেড়িয়ে ওপাশে স্কুলের দোতলা বিল্ডিং। হারিকেনটা উঁচু করে দেখার চেষ্টা করলেন কাউকে দেখা যায় কিনা। কিন্তু না ঘুঁট ঘুঁটে অন্ধকারে কিছু দেখার জো নেই।

আলোটা উঁচু করে ধরেই তিনি দাওয়া থেকে মাঠে নামলেন। কোন দিক থেকে কান্নার আওয়াজটা এসেছে ঠিক ঠাহর করতে পারছেন না। এমন সময় আবার সেই কান্নার আওয়াজ – উঁ উঁ ঊঁ ঊঁ......। তিনি বুঝতে পারলেন আওয়াজটা আসছে স্কুল বিল্ডিং-এর ওদিক থেকে। ধীর পায়ে তিনি সেদিকে হাটা শুরু করলেন। রাত নেমেছে একটু আগে। অথচ মনে হচ্ছে কত না জানি গভীর রাত। চারিদিকে থম ধরা এক নিস্তব্ধতা। তার মাঝেই কোথায় এক রাতের পাখি ডেকে উঠলো – কুপ! কুপ! কুপ! কুপ! .....

বিল্ডিং-এর কাছে এসে এদিক ওদিক আলো বাড়িয়ে দেখলেন তিনি। কেউ নেই কিছু নেই এখানে। তখন আবার সেই কান্না শোনা গেল – উঁ উঁ ঊঁ ঊঁ......। এবার জোনাব আলী বুঝলেন কান্নাটা আসছে স্কুলের পেছন থেকে। ওখানে ছোট খাটো একটা দীঘি আছে। দীঘির চার পাশটা জুড়ে নানা গাছ-গাছালির ভীড়ে ছোটখাটো একটা জঙ্গল তৈরি হয়েছে।

বিল্ডিং পাশ কাটিয়ে তিনি সেখানে গিয়ে দাঁড়ালেন। এবার আলো উঁচু করতেই তিনি দীঘির পাড়ে এক আবছায়া মুর্তি দেখতে পেলেন। আরেকটু এগিয়ে যেতেই ছায়ামুর্তি স্পষ্ট হলো। দীঘির দিকে মুখ করে এক নারী দাঁড়িয়ে আছে। পরনে সাদা শাড়ি। মাথায় ঘোমটা টানা। মেয়েটির বয়স যে খুব বেশি না তা পেছন থেকে দেখেও বোঝা যায়। আলোর আভাস পেয়ে মেয়েটি তার ঘোমটা আরো লম্বা করে টেনে দিলো। তার মুখ থেকে তখনো ফোঁপানোর আওয়াজ আসছে।

জোনাব আলী জিজ্ঞেস করলেন – কে তুমি ? এতো রাতে এখানে কী করছো? মেয়েটি কোনো জবাব দিল না। কেবল কান্নার দমক একটু বাড়লো তার। জোনাব আলী আবারো একই কথা জিজ্ঞেস করলেন। এবার মেয়েটি জবাব দিলো – আমার নাম বিন্দু।

- এতো রাতে এখানে কী করছো ?
- আমার স্বামী মারা গেছে কয় দিন আগে। তাই শ্বশুর বাড়ির লোকজন আমারে বাইর কইরা দিছে ঘর থিকা। (মেয়েটি আবার উঁ উঁ করে কেঁদে ওঠে)

শুনে জোনাব আলী খুব দুঃখ পান। বলেন – তা তোমার বাবার বাড়ি কই? সেখানে যাও নাই কেন ? মেয়েটি কাঁদতে কাঁদতেই বলে - বাপের বাড়ি অন্য গ্রামে অনেক দূরে। এত রাইতে যাওয়া যাবে না।

জোনাব একটু ভাবেন, তারপর বলেন - তা হলে কী আর করা, আজ রাতে আমার বাড়িতেই থাকো। যদিও আমি একা থাকি তারপরও তোমার ভয়ের কোনো কারণ নেই। নিজেকে আমি সৎ-চরিত্রবান বলেই জানি। আগামি কাল ভোরে তোমাকে তোমার বাবার বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে আসবো না হয়।

মেয়েটি তার কথায় রাজি হলো এবং তারা দু'জন বাড়ির দিকে হাটা শুরু করলো ।

(খোদার কসম খাইয়া হলপ করিয়া বলিতেছি - এই গল্পের শেষ পর্ব অতি মাত্রায় কাল ক্ষেপণ ছাড়াই পোস্টাইবো)


মন্তব্য

লুৎফুল আরেফীন এর ছবি

সেটাই করেন হাসি

কীর্তিনাশা এর ছবি

করবো সুনিশ্চিত হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

পরিবর্তনশীল এর ছবি

আমি ভাবলাম বুঝি- মালতীদি। দেঁতো হাসি

ফিনিশিংটা দূর্দান্ত লাগলো। সুখ পাইলাম।
---------------------------------
ছেঁড়া স্যান্ডেল

কীর্তিনাশা এর ছবি

দেঁতো হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

শাহেনশাহ সিমন এর ছবি

দুর্দান্ত গল্পের সুবাস পাচ্ছি। চলুক

_________________
ঝাউবনে লুকোনো যায় না

কীর্তিনাশা এর ছবি

হইলেও হইতারে সিমন ভাই হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

(খোদার কসম খাইয়া হলপ করিয়া বলিতেছি - এই গল্পের শেষ পর্ব অতি মাত্রায় কাল ক্ষেপণ ছাড়াই পোস্টাইবো)
নজর রাখিতেছি...

...........................

সংশোধনহীন স্বপ্ন দেখার স্বপ্ন দেখি একদিন

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

কীর্তিনাশা এর ছবি

আইচ্ছা দেঁতো হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

খেকশিয়াল এর ছবি

রহস্যের গন্ধ পাইসি!! ওই মিয়া গল্প শেষ করেন শিজ্ঞির!

------------------------------
'..দ্রিমু য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

-----------------------------------------------
'..দ্রিমুই য্রখ্রন ত্রখ্রন স্রবট্রাত্রেই দ্রিমু!'

কীর্তিনাশা এর ছবি

জো হুকুম পন্ডিত মশাই হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

দ্রোহী এর ছবি

বুঝছি বিন্দুই ভূত!

কীর্তিনাশা এর ছবি

হ কইছে আপনেরে খাইছে

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

তাড়াতাড়ি শেষ করেন! ঘড়ি দেখতেছি কিন্তু!

কীর্তিনাশা এর ছবি

টেরাই করতাছি প্রহরী ভাইজান। হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

রায়হান আবীর এর ছবি

শেষ করেন। একসাথে পড়বো। হলপ করে কসম কেটে সব করে বললাম ... দেঁতো হাসি

কীর্তিনাশা এর ছবি

আইচ্ছা ......... দেঁতো হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

হিমু এর ছবি

আমি কিন্তু গল্পের শেষটা ধরে ফেলসি!!!



হাঁটুপানির জলদস্যু আলো দিয়ে লিখি

কীর্তিনাশা এর ছবি

ঠিক তো হিমু ভাই ?? হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

তুলিরেখা এর ছবি

শীগগীর শেষ করেন।
আহা, ভয়ঙ্কর ভৌতিক গল্প-কায়াহীনের কাহিনি। দেঁতো হাসি
-----------------------------------------------
কোন দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

কীর্তিনাশা এর ছবি

ঠিক হ্যায় তুলি'দি, শেষ করছি অল্প সময়ে ........... হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

শামীম রুনা এর ছবি

মনে হইতেছে বিন্দুই এই গল্পের একমাত্র ভূতিনী।
ঠিক ধরছি না?

_________________________________________________________
খাতার দিকে তাকিয়ে দেখি,এক পৃথিবী লিখবো বলে-একটা পাতাও শেষ করিনি।

_________________________________________________________
খাতার দিকে তাকিয়ে দেখি,এক পৃথিবী লিখবো বলে-একটা পাতাও শেষ করিনি। ( জয় গোস্মামী)

কীর্তিনাশা এর ছবি

হইতেও পারে আবার নাও হইতে পারে ............ হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

সাইফ এর ছবি

এই যে বস, পড়তেছি না, আপনার পরের পোস্টের অপেক্ষায়, কবে দিবেন, বসে থাকতে থাকতে তো 'ইয়ে' দিয়ে শেকড় গজানোর অবস্থা

কীর্তিনাশা এর ছবি

পোস্টানো হয়ে গেছে অলরেডি হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

সাইফ এর ছবি

নিজেকে আমি সৎ-চরিত্রবান বলেই জানি

এ আবার ভূতের মুখে রাম নাম নাতো, হে হে হে, চা পর্ব শেষ হওয়ায় যার পর নাই প্রীত হইলাম, নিজে বদতো, তাই সারাদিন বদামি করতে মন চায়।

কীর্তিনাশা এর ছবি

নিজে বদতো, তাই সারাদিন বদামি করতে মন চায়।

আমি বদ্ না ! আমি খুব ভালু ছেলে দেঁতো হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

তানবীরা এর ছবি

যাই পরের পর্বটা পড়ি

---------------------------------------------------------
রাত্রে যদি সূর্যশোকে ঝরে অশ্রুধারা
সূর্য নাহি ফেরে শুধু ব্যর্থ হয় তারা

*******************************************
পদে পদে ভুলভ্রান্তি অথচ জীবন তারচেয়ে বড় ঢের ঢের বড়

সবুজ পাহাড়ের রাজা এর ছবি

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।