। কালের স্মৃতিচিহ্ন । ঢাকা: গুরুদুয়ারা নানক শাহী ।

রণদীপম বসু এর ছবি
লিখেছেন রণদীপম বসু (তারিখ: বুধ, ২৭/০৭/২০১১ - ১১:৪৯অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


গুরুদুয়ারা (Gurdwara) হচ্ছে শিখ সম্প্রদায়ের প্রধান উপাসনালয়। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবাই গুরুদুয়ারায় প্রবেশ করে প্রার্থনায় অংশগ্রহণ করতে পারে। গুরুদুয়ারায় প্রার্থনাস্থলকে বলা হয় ‘দরবার সাহেব’। এর চারদিক দিয়েই ভেতরে প্রবেশের ব্যবস্থা থাকে। ফলে অন্যান্য ধর্মীয় স্থাপত্যের তুলনায় গুরুদুয়ারা উপাসনালয়ে প্রবেশদ্বারের সংখ্যা সাধারণত বেশি থাকে। প্রত্যেক গুরুদুয়ারায় হলুদ রঙের পতাকা টাঙানো থাকে। একে বলা হয় ‘নিশান সাহেব’। নিশানের দু’দিকে তলোয়ারের ছবি আঁকা থাকে, যা ‘খাণ্ডা’ নামে পরিচিত। এই নিশানকে শিখ-জীবনের জাগতিক ও আধ্যাত্মিক মিশ্রনের প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হয়।


.
বাংলাদেশে শিখ-ধর্মের প্রধান উপাসনালয় হচ্ছে গুরুদুয়ারা নানক শাহী (Gurdwara Nanak Shahi)। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের ধার ঘেঁষে এটি অবস্থিত। প্রচলিত কাহিনী অনুযায়ী সম্রাট জাহাঙ্গীরের রাজত্বকালে (১৬০৬-১৬২৮) ষষ্ঠ শিখগুরু হরগোবিন্দ শিং শিখ পুরোহিত আলমাসত বা আলামাস্টকে এই বাংলা অঞ্চলে ঢাকায় প্রেরণ করেন। তাঁরই প্রচেষ্টায় এই গুরুদুয়ারা উপাসনালয়টি নির্মিত হয় বলে কথিত আছে। ১৮৩৩ সালে এটি সংস্কার করা হয়। শিখ পুরোহিত আলমাসত-এর দু’জন পর নাথ সাহেব পুরোহিত হিসেবে এই উপাসনালয়ের প্রধান হন। ধারণা করা হয় তাঁর হাতেই বর্তমান গুরুদুয়ারা উপাসনালয়টি সংস্কারের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয়। ঐতিহাসিক দানীর মতে, ১৮৪৭-এর পর থেকে ষাট দশক পর্যন্ত এটি প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিলো। স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে এটি আবার সংস্কার হয়ে প্রায় নতুন চেহারা প্রাপ্ত হয়েছে।
.

.
জানা যায়, অতীতে গুরুদুয়ারা নানকশাহীর উত্তর দিক দিয়ে একটি প্রবেশদ্বার ছিলো। দক্ষিণ দিকের অংশে ছিলো একটি কূপ ও সমাধিস্থল। এবং পশ্চিমে ছিলো একটি শান বাঁধানো পুকুর। মূল উপাসনালয়ের উত্তর-পূর্ব দিকে ছিলো অফিস ও আবাসিক ব্যবস্থা। উপাসনালয়ের তত্ত্বাবধায়ক থাকতেন পূর্বদিকে। এছাড়া ভক্তদের বসার জন্য ছিলো কয়েকটি কক্ষ। সবমিলিয়ে কক্ষ ছিলো মোট নয়টি।

স্থাপনাটির গঠন-বৈশিষ্ঠ্য হচ্ছে, বর্গাকার ড্রামের ওপর স্থাপিত চমৎকার গম্বুজ-বিশিষ্ট ইন্দো-ইসলামিক রীতিতে নির্মিত স্থাপনাটির আকৃতি বর্গাকার। প্রত্যেক বাহুর দৈর্ঘ্য বাইরের দিকে প্রায় ৩০ ফুট। পূর্বমুখী হয়ে স্থাপিত এই গুরুদুয়ারার পূর্ব-উত্তর ও পশ্চিম দেয়ালে পাঁচটি করে প্রবেশ পথ রয়েছে। দক্ষিণ দিকে কোনো প্রবেশ-পথ নেই। সেদিকে উপাসনালয় সংলগ্ন একটি ছোট্ট কক্ষ রয়েছে। বর্গাকারে নির্মিত কেন্দ্রীয় কক্ষের চারদিকে রয়েছে পাঁচ ফুট প্রশস্ত বারান্দা। বারান্দার প্রত্যেক কোণে একটি করে মোট চারটি কক্ষ রয়েছে। বারান্দার পরেই রয়েছে খিলানের সাহায্যে নির্মিত তিনটি করে প্রবেশ পথ। কেন্দ্রীয় কক্ষে একটি অনুচ্চ বেদীর উপর ‘গ্রন্থসাহেব’ নামক শিখদের পবিত্র বিরাট হস্তলিখিত ধর্মগ্রন্থ খোলা অবস্থায় রক্ষিত আছে। এ গ্রন্থকেই প্রতিদিন পূজো করা হয়।

গুরুদুয়ারা নানক শাহীর প্রাত্যহিক ধর্মাচরণের মধ্যে রয়েছে সকাল-সন্ধ্যা পবিত্র গ্রন্থসাহেব পাঠ ও প্রার্থনা করা, যাকে বলা হয় ‘আরদাস’। এছাড়া প্রতি শুক্রবার সকাল ১০টা-১টা পর্যন্ত সাপ্তাহিক জমায়েত ও প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান গ্রন্থি বা পুরোহিত গ্রন্থপাঠ করার পাশাপাশি কীর্তনও করেন। এই কীর্তনে তবলা, ডুগডুগি, খাকসা, হারমোনিয়াম ইত্যাদি যন্ত্র ব্যবহৃত হয়। প্রার্থনা শেষে স্তোত্র পাঠ ও প্রসাদ বিতরণ করা হয়। প্রাতঃভোজের জন্য সেখানে একটি গুরুকা লঙ্গর বা ভোজনালয় রয়েছে। শিখরা এই ভোজকে সৌহার্দ্য বৃদ্ধির সহায়ক বলে মনে করেন।

বাংলাদেশে শিখ সম্প্রদায়ের আরো কিছু স্থাপত্য রয়েছে। ঢাকার বাংলাবাজারে অবস্থিত গুরুদুয়ারা গুরু তেগবাহাদুরের সঙ্গত বা আস্তানা, গুরুদুয়ারা নানক কুয়ান। তবে উর্দুবাজারের গুরুদুয়ারা সুতরা শাহী এবং ইংলিশ রোডের গুরুদুয়ারা বাবা মোহন সিং এখন বিলুপ্ত। ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামের চকবাজার শিখ মন্দির এবং পাহাড়তলি শিখ মন্দির, ময়মনসিংহের এ,বি গুহ রোডের গুরু নানক মন্দির অন্যতম। আর সিলেটের গুরুদুয়ারা সাহেব এখন পরিত্যক্ত বলে জানা যায়।

তথ্য সহায়তা:
০১) স্থাপত্য / বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সমীক্ষামালা-২ / বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি।
০২) ঢাকা স্মৃতি বিস্মৃতির নগরী / মুনতাসীর মামুন।
০৩) ছবি : রণদীপম বসু।


মন্তব্য

বইখাতা এর ছবি

চলুক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ে অনেকবারই ভেবেছি গুরুদুয়ারার ভেতরে যাবো। অনেক আগ্রহ ছিলো। কিন্তু তারপরও যাবো যাবো করে আর যাওয়া হয়নি।

রণদীপম বসু এর ছবি

আসলে খুব কাছের জিনিসই আমাদের দেখার বাকি রয়ে যায় !

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

guesr_writer rajkonya এর ছবি

মক্কার মানুষ হয়ে হজ করতে পারলাম না।

আপনার সুবাদে এই প্রথম এটার ভেতরটা দেখলাম। খুব আগ্রহী ছিলাম এই নানকশাহীর ব্যাপারটা কী জানার। আজ জানলাম। হাসি
আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

ওডিন এর ছবি

ভাল লাগলো রণ'দা হাসি

রণদীপম বসু এর ছবি

ধন্যবাদ তন্ময়।
আমার স্টক কিন্তু দ্রুত ফুরিয়ে আসছে ! রিচার্জ করার বুঝ-ব্যবস্থা করেন !!

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

তাসনীম এর ছবি

দারুণ লাগলো। একবার ছাত্রদল-লীগ সংঘর্ষের সময়ে এর ভেতরে আশ্রয় নিয়েছিলাম। এতো পুরানো স্থাপনা মনে হয়নি কখনো।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

রণদীপম বসু এর ছবি

উপাসনালয় হিসেবে খুব যত্নে পবিত্র-পরিচ্ছন্ন রাখা হয় বলেই হয়তো বয়সের দাগ দৃশ্যমান হয় না সহজে। তথ্য যাচাইয়ের আগে আমিও বুঝি নি !

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

তানিম এহসান এর ছবি

কি অদ্ভুত মমতায় তুলে আনছেন সব! প্রণতি!

রণদীপম বসু এর ছবি

ধন্যবাদ। তবে কথায় কিঞ্চিৎ লজ্জা পাচ্ছি !!

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

ধোপার বাড়ীর গাধা  এর ছবি

এই জায়গা কি সবার জন্য উন্মুক্ত।

রণদীপম বসু এর ছবি

মনে হয় না তা সবার জন্য উন্মুক্ত।

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

এখনো এখানে গেলে ল্যাটকা খিচুড়ী খাওন যায়?

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

রণদীপম বসু এর ছবি

কোন শুক্কুরবারে গিয়েই দেখেন না !

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

প্রখর রোদ্দুর এর ছবি

খুব ছোট বেলায় বেজায় কৌতুহল হতো। গেইটের ওপারে কি আছে জানার জন্য। একবার গেইট খোলা দেখে এক দৌড়ে ঢুকে ভিতরে কোন মানুষের সাড়া শব্দ না পেয়ে খুব ভয়ে তারো চেয়ে জোর দৌড়ে বেরিয়ে আসি.....
বড় হয়ে ভিতরে যাওয়া হয়েছিলো এক দুবার।
তথ্যসমৃদ্ধ এই পোষ্টের জন্য ধন্যবাদ রণদীপম বসু

রণদীপম বসু এর ছবি

আপনাকেও ধন্যবাদ।

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

সৌরভ ধর এর ছবি

যাওয়ার ইচ্ছা আছে... কোন কোন সময় এটা সর্ব সাধারণের জন্য খোলা থাকে এটা জানালে উপকৃত হতাম হাসি

রণদীপম বসু এর ছবি

মনে তো হয় সর্বসাধারণের জন্যে কখনোই উন্মুক্ত থাকে না !

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

বন্দনা- এর ছবি

রণদীপমদা, আপনিতো পুরাই জিনিয়াস, এতসব তথ্য পান কোথায়। তবে এইবেলা ছবিগুলো আগের বারের মত জটিল হয়নাই সহজ হয়ছে, আশা করি এইবার মাইন্ড খাইবেন না।

রণদীপম বসু এর ছবি

এতো তথ্য আর পাই কোথায় ! যেটুকু পাই সেটুকুই আপনাদের জন্য তুলে দেয়ার চেষ্টা করি !

আর ছবি জটিল হবার সুযোগ তো নাই ! যেটুকু দেখছেন ওটুকুই। এর চেয়ে জটিল কিছু করা সম্ভব হয় নি যে !!

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

বস্‌ কবে গেলেন? একটু জানান দিলেন না! আমি তো আজ পর্যন্ত এটার গেট খোলাই পেলাম না। তাই দুই দফায় প্রায় নয় বছর ঐ এলাকায় ঘোরাঘুরি করেও এর ভিতরে ঢুকতে পারিনি।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

রণদীপম বসু এর ছবি

পাণ্ডব দা, এটা তো আসলে চলতে পথে হঠাৎ টুপ করে গেট ডিঙিয়ে ঢুকে পড়া আর কিছু বুঝে ওঠার আগেই ঝপাঝপ গুটিকয় শাটার চাপার কাজ ছিলো।

সম্ভবত এর কিছুক্ষণ আগেও গেটটা বন্ধ ছিলো, এবং কিছুক্ষণের মধ্যে আমার চোখের সামনে গেটটা বন্ধ হতেও দেখলাম, যতটুকু মনে পড়ে। ছবিগুলো গত নভেম্বরে তোলা।

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

কৌস্তুভ এর ছবি

আপনার এই রিপোর্টার্জ-গুলোর আর্কাইভাল ভ্যালু আছে। চলুক

রণদীপম বসু এর ছবি

মূলত এ লক্ষ্যেই অন্য কাজ বাদ দিয়ে ফাঁকে ফাঁকে এই আকামগুলো করা !!

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

ইস্কান্দর বরকন্দাজ এর ছবি

চলুক

..................................................................
আমি ছুঁয়ে দিতে চাই সেই বৃষ্টিভেজা সুর...

রণদীপম বসু এর ছবি

ধন্যবাদ।

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

guest_writer এর ছবি

খুব ভাল লাগল, এমন লেখা আরো চায় রণদা, শুভেচ্ছা রইল--- অণু

ফকির উয়ায়ছী এর ছবি

সালাম,
গ্রন্থসাহেব এর কোন বাংলা অনুবাদ পাওয়া যাবে। যদি থাকে মূল্য কত টাকা? জানালে কোথা থেকে সংগ্রহ করা যাবে জানালে কৃতজ্ঞ হবো।

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA