হারামজাদা

সুজন চৌধুরী এর ছবি
লিখেছেন সুজন চৌধুরী (তারিখ: শুক্র, ২৬/১০/২০১২ - ১২:৩৩পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:


লোচন তুলিতে দিও গো আমারে, নিও না নিও না সরায়ে...............................


মন্তব্য

ফারাসাত মাহমুদ এর ছবি

গুরু গুরু

সুজন চৌধুরী এর ছবি
অরফিয়াস এর ছবি

গুরু গুরু

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

সুজন চৌধুরী এর ছবি
প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

লোচন তুলিতে দিও গো আমারে, নিও না নিও না সরায়ে

হো হো হো

সুজন চৌধুরী এর ছবি
ক্লোন৯৯ এর ছবি

গুরু গুরু গুল্লি

সুজন চৌধুরী এর ছবি
স্যাম এর ছবি

চলুক চলুক গুরু গুরু দেঁতো হাসি গুল্লি

সুজন চৌধুরী এর ছবি
অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

অমানুষিক! গড়াগড়ি দিয়া হাসি

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

সুজন চৌধুরী এর ছবি
নীলকান্ত এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি
একটু আগে জি টিভিতে ওনারে দেখলাম। দাঁত কেলাইতেছে


অলস সময়

সুজন চৌধুরী এর ছবি
রংতুলি এর ছবি

লোচন তুলিতে দিও গো আমারে, নিও না নিও না সরায়ে

গড়াগড়ি দিয়া হাসি

সুজন চৌধুরী এর ছবি
আনোয়ার সাদাত শিমুল এর ছবি

জব্বর হইসে...

সুজন চৌধুরী এর ছবি
স্বপ্নহারা এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি

-------------------------------------------------------------
জীবন অর্থহীন, শোন হে অর্বাচীন...

সত্যপীর এর ছবি

"লোচন তুলিতে..." গড়াগড়ি দিয়া হাসি

..................................................................
#Banshibir.

সুজন চৌধুরী এর ছবি
কড়িকাঠুরে এর ছবি

"লোচন তুলিতে"- গড়াগড়ি দিয়া হাসি

সুজন চৌধুরী এর ছবি
তাসনীম এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

সুজন চৌধুরী এর ছবি
অতিথি লেখক এর ছবি

গুরু গুরু গুল্লি হইছে গুল্লি

সচল-পলাশ

সুজন চৌধুরী এর ছবি
অতিথি লেখক এর ছবি

ফাটাফাটি সুজন দা। আসেন ঈদের আগে আপনার লগে আগাম কোলাকুলি

অমি_বন্যা

সুজন চৌধুরী এর ছবি
ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

একটা কার্টুন ক্যাপশন ছাড়াও অনেক কথা বলে। আমি সেই কথা বোঝার চেষ্টা করলাম। ক্যাপশন বাদে রফিকুল ইসলাম মিয়াকে দেখে একটা মন্সটার ছাগু লাগছে। সেখানে শাজাহান খান একটা মানুষই। তার শিংও নাই, চোখা দাঁতও নাই। মানুষ শাজাহান ছাগুবধে নেমেছে। যদি লোচন তোলেও, মন্সটার ছাগুর লোচনই তো তুলেছে।

savage_mountain এর ছবি

চলুক

সজল এর ছবি

চলুক
দুই রকম ট্রিটমেন্টের মাজেজা বুঝলাম না আসলেই।

---
মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

সুজন চৌধুরী এর ছবি

ধ্রুব বর্ণন ভাইয়া কী মনে দু:খু পাইলেন?!!

হিমু এর ছবি
ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

চলুক

ডেমোনাইজেশনের ডিস্প্যারিটিটা এখনো ধাঁধাঁয় রেখেছে।

হিমু এর ছবি

ডেমনও জান নিয়ে ভাগতেছে, আমি এইভাবে দেখলাম।

ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

হ্যাঁ এইভাবেও দেখা যায়। সুজন চৌধুরী মোস্ট প্রোবাবলি সেটাই বোঝাতে চেয়েছেন। কার্টুনে ডেমোনাইজেশনের একটা প্রায় একতরফা প্রচলিত ব্যবহার আছে কিনা। সেই অর্থটাই প্রকট হয়ে দ্বন্দ্ব তৈরি করছে। আর কার্টুনের শাজাহান ভিডিওতে দেখা সেইদিনের শাজাহানের চেয়ে অনেক ইনোসেন্ট লাগছে খাইছে , সেটা দ্বন্দ্বটাকে ডাবল করছে। তবে উনি ওনার মতো যেটা ভালো মনে করেছেন, এঁকেছেন। বক্তব্য বাদ দিলে - আঁকা সুন্দর হয়েছে স্বীকার করতেই হয়।

সুজন চৌধুরী এর ছবি


নেন এবার দেখেন! নিজেকে আক্রান্ত মনে হয় কিনা?
১টা মানুষ হাতে কাঠি নি‌য়ে চোখ উপ্রে ফেলতে চাইছে এটা কেন আপনার অমানবিক বা পাশবিক লাগলো না তাতেই বরং অবাক হচ্ছি!

ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

১টা মানুষ হাতে কাঠি নি‌য়ে চোখ উপ্রে ফেলতে চাইছে

সেটার জন্যে মানুষটাকে আলাদা করে দেখতে হবে বৈকি।

কল্পনা করুন একটা মানুষ সিদ্ধ আণ্ডা হাতে দৌঁড়াচ্ছে কারো পশ্চাৎদেশে সেঁধে দেবার জন্যে। শুধু সেটুকু অমানবিক লাগারই কথা, নাকি। যেখানে এটা বহুল প্রচলিত নির্যাতনের একটা কৌশল।

কিন্তু অন্যপাশে ধরুন একটা পিশাচকে এবার জুড়ে দিলেন। তখন কিন্তু সেটা আর অমানবিক নাও দেখাতে পারে। সেটা তখন হয়তো একটা ন্যায্য প্রতিক্রিয়াকেও প্রকাশ করতে পারে।

এ ছবিতেও অন্যপাশে একটা ডেমন আছে। সে কারণেই ডেমনাইজশনের উদ্দেশ্য আর দ্ব্যর্থতা এখানে দ্বন্দ্ব তৈরি করছে।

হিমু এর ছবি

অন্যপাশের সাইক্লপসটাকে আমপিশাচ হিসেবে না দেখে সবেধন নীলমণি একখান চোখের সন্ত্রস্ত মালিক হিসেবে দেখলেই তাকে যতো না চরিত্র, তারচেয়ে বেশি স্কেল বলে মনে হতে পারে।

আপনি দ্য ওমেন দেখতে পারেন। সেখানে ডেমিয়েন থর্নকে একবারও কিন্তু বীভৎস শয়তানের চেহারায় দেখানো হয়নি। কিন্তু ডেমিয়েনের সেবকদের দেখানো হয়েছে বেশ ভয়ঙ্কর চেহারায়। ঐ চরিত্রগুলো এক একটা স্কেল। এখন আপনি যদি আপত্তি করেন, কেন ডেমিয়েনকে মাসুম চেহারায় দেখানো হলো, আর তার সাথে লড়াইয়ে তার বাপ থর্নকেই উগ্র আর হিংস্র করে দেখানো হলো, তাহলে কিছু আর বলার থাকে না।

ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

দ্য ওমেন আমি দেখেছি। সেটার তুলনায় যাবার আগেই কার্টুনটার উদ্দিষ্ট বক্তব্য আমার স্পষ্ট হয়ে গেছে যখন আপনি বলেছেন "ডেমনও জান নিয়ে ভাগতেছে, আমি এইভাবে দেখলাম"। দ্য ওমেনের তুলনার চেয়ে সেটা অনেক মোক্ষম ব্যাখ্যা। দ্য ওমেন অনেক সুযোগ পেয়েছে ঘটনাক্রমে ডেমিয়েনের চরিত্রের দিকগুলো উন্মোচনের। এখানে কার্টুনটা একটা স্ন্যাপশট। রফিকুল ইসলামকে কেনো ডেমোনাইজ করার দরকার পড়লো, এই স্ন্যাপশটে তো আর তা স্পষ্ট নয়। হতে পারে রফিকুল ইসলাম সাকাচৌর মতো কেউ। তখন দ্বিধার, ভাবাভাবির অবকাশ তো থাকেই। কিংবা আপনার ব্যাখ্যার দ্বারস্থ হওয়া যায় - "অন্যপাশের সাইক্লপসটাকে আমপিশাচ হিসেবে না দেখে সবেধন নীলমণি একখান চোখের সন্ত্রস্ত মালিক হিসেবে দেখলেই তাকে যতো না চরিত্র, তারচেয়ে বেশি স্কেল বলে মনে হতে পারে"। তো ভাবনাগুলো অবধারিত নয় বলেই দ্বিধা। এই দ্বিধাগুলো ব্যাখ্যাগুলো আসার পরে নিরসন হয়, আগে নয়।

আমি সুজন চৌধুরীকে উত্তর করেছি কেবলই উনি জানতে চেয়েছেন দেখে যে কী কারণে শাজাহান খানকে কেবলই অমানবিক, পাশবিক লাগে নি। দ্বিধার জায়গাটা স্পষ্টই করেছি।

সুজন চৌধুরী এর ছবি

সেটাতো আমি কার্টুনের গায়ে আলাদা করে লিখে দিবোনা যে, ধ্রুব বর্ণন ভাইয়া অনুগ্রহ করে সাইক্লপ্সের শুধু লেজ আর দাড়ি দেখবেন্না!

অরফিয়াস এর ছবি

সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ দিয়ে দিন সুজনদা। দিনকাল ভালো না, কে কি বোঝে। চোখ টিপি

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

মৃত্যুময় ঈষৎ(অফলাইন) এর ছবি

চলুক এইভাবে ভাবি নাই। বুঝলাম

কাজি মামুন এর ছবি

ডেমনও জান নিয়ে ভাগতেছে, আমি এইভাবে দেখলাম।

ধ্রুব ভাইয়ের বিশ্লেষণ আমার ভেতরও কার্টুনটি নিয়ে প্রশ্ন তৈরি করেছিল। কিন্তু আপনার ব্যাখ্যা সেই সংশয়ই শুধু দূর করেনি, কার্টুনটিকেও ভিন্ন এক মাত্রায় পড়তে বাধ্য করেছে। আসলেই কেউ কেউ কখনো কখনো এমন ভয়ংকর হয়ে উঠেন যে, সাধারণ ডেমনরাও পালানোর পথ খুঁজে। তো এই দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে, কার্টুনটি অসামান্য হয়ে উঠে। অনবদ্য কার্টুনটি উপহার দেয়ার জন্য কার্টুনিস্ট সুজন ভাইকে এ সুযোগে ধন্যবাদ জানিয়ে রাখছি।

ক্রেসিডা এর ছবি

বস ওনার চোখ একটা কেন গড়াগড়ি দিয়া হাসি তাও দয়া করছেন একটা দিয়া গড়াগড়ি দিয়া হাসি

গুল্লি

__________________________
বুক পকেটে খুচরো পয়সার মতো কিছু গোলাপের পাঁপড়ি;

মণিকা রশিদ এর ছবি

কথা হলো, ছাগু হইলেই মানুষ তার লোচন তুলবে ক্যান!

----------------------------------------------
We all have reason
for moving
I move
to keep things whole.
-Mark Strand

মৃদুল আহমেদ এর ছবি

পরিবহন মন্ত্রী বানিয়ে উনার যোগ্যতার অবমূল্যায়ন করা হচ্ছে। নতুন মন্ত্রণালয় খুলে উনাকে উৎপাটন মন্ত্রী বানানো উচিত!
কার্টুন দুর্দান্ত!

--------------------------------------------------------------------------------------------
বললুম, 'আমার মনের সব কপাট খোলা ভোজরাজজী। আমি হাঁচি-টিকটিকি-ভূত-প্রেত-দত্যি-দানো-বেদবেদান্ত-আইনস্টাইন-ফাইনস্টাইন সব মানি!'

অতিথি লেখক এর ছবি

চলুক
--বেচারথেরিয়াম

অতিথি লেখক এর ছবি

ওরে না রে Rolling laughter
ROFLMAO
Rolling on the Floor Laughing

লোচন তুলিতে দিও গো আমারে, নিও না নিও না সরায়ে

Crying Laughter

কতবারের চেষ্টায় যে কমেন্ট করতে পারলাম, ক্যাপচার যন্ত্রনায় ইচ্ছা করতেছে সুইসাইড খাই। মনে মনে বলতেছি " কমেন্ট করিতে দাও গো মোরে, নিওনা সরায়ে সরায়ে"।

গৃহবাসী বাঊল

রাতঃস্মরণীয় এর ছবি

সুজন্দা, আপ্নারে লইয়া আর পারা গ্যালে না! এত্তো বড়ো একজন মানী লোকেরে মান দিলেন না। আপ্নে খালি দুক্কু দ্যান। চোখ টিপি

------------------------------------------------
প্রেমিক তুমি হবা?
(আগে) চিনতে শেখো কোনটা গাঁদা, কোনটা রক্তজবা।
(আর) ঠিক করে নাও চুম্বন না দ্রোহের কথা কবা।
তুমি প্রেমিক তবেই হবা।

নিবিড় এর ছবি
অতিথি লেখক এর ছবি

গুল্লি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গুরু গুরু
অমানুষিক!!! পুরাপুরি অমানুষিক

--বেচারাথেরিয়াম

মৃত্যুময় ঈষৎ এর ছবি

চলুক হো হো হো

ছাগুরে ছাগু আঁকতে হয় ঠিকাছে কিন্তু ঐ ঘটনায় শাজান খানের দোষটা(অসভ্যপনা) বেশি।


_____________________
Give Her Freedom!

দ্রোহী এর ছবি

হাহাহাহাহা! অমানুষিক! গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু

আপনারা ছাগু পাইলেন কৈ? আমি তো দেখি সাইক্লপস!!!!

তারেক অণু এর ছবি

ইয়ে মানে মতিকন্ঠের সংবাদে পড়লাম এবার মোচ তোলা হবে, সেটা নিয়ে কোন কার্টুন আসবে কি? শয়তানী হাসি

সুজন চৌধুরী এর ছবি

তাই নাকি !! এবেটা মোচও তোলে নাকি?!!!

অরফিয়াস এর ছবি

উৎপাটনকারী- শাহ-জাহান
এখানে সুলভ মূল্যে "চোখ" ও "মোচ" উৎপাটন করা হয়।
যোগাযোগের ঠিকানা- দেশের যেকোন বাসস্ট্যান্ড

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

ধুসর গোধূলি এর ছবি
মেঘা এর ছবি

হো হো হো

--------------------------------------------------------
আমি আকাশ থেকে টুপটাপ ঝরে পরা
আলোর আধুলি কুড়াচ্ছি,
নুড়ি-পাথরের স্বপ্নে বিভোর নদীতে
পা-ডোবানো কিশোরের বিকেলকে সাক্ষী রেখে
একগুচ্ছ লাল কলাবতী ফুল নিয়ে দৌড়ে যাচ্ছি

জুন এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি
গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু

যদি ভাব কিনছ আমায় ভুল ভেবেছ...

অতিথি লেখক এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।