প্রবাসী পাত্র: যাহা রটে ...

জ্বিনের বাদশা এর ছবি
লিখেছেন জ্বিনের বাদশা (তারিখ: সোম, ১৫/১১/২০১০ - ১:৪২অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

১.
"যা রটে, তার কিছুটা তো বটে" -- আমরা শুনে এসেছি। কিন্তু বাংলাদেশের মিডিয়ায় এবং সেই সাথে মানুষের মধ্যে যা রটে যায় তার সামান্যও যে "বটে" নাও হতে পারে, এত কাছ থেকে রটনাটি না দেখলে এটা হয়তো কখনও বিশ্বাস করা সম্ভব হতোনা। সম্ভবত বছর দুয়েক আগে দেশের বেশ কয়েকটি সংবাদপত্র ছড়িয়েছিলো রটনাটি। সবগুলোর নাম মনে নেই, মানবজমিন, ইনকিলাব ও আরো কিছু হবে।

একটু ভূমিকা করি। জাপানে আমার পড়াশোনার প্রায় পুরোটুকুই তোহোকু ইউনিভার্সিটিতে কেটেছে। টোকিও থেকে তিনশো কিলোমিটার উত্তরের এক ছিমছাম আধুনিক শহর সেনদাইতে এর অবস্থান। ওসাকার এক বছরের জাপানী ভাষার কোর্স শেষে আন্ডারগ্র্যাড ফার্স্ট ইয়ারে যেদিন সেনদাই গেলাম, তার কয়েকদিনের মধ্যেই তোহোকু ইউনিভার্সিটিতে পড়তে আসা প্রায় সব বাংলাদেশীদের সাথেই পরিচয় হয়ে যায়। যারা বিদেশের কিছুটা কম ব্যস্ত শহরগুলোতে পড়াশোনা করেছেন, তারা জানেন এরকম পরিসরে বাঙালীদের মধ্যে বেশ বন্ধুত্বপূর্ণ আর ঘনিষ্ট সম্পর্ক হয়, মানে সবাই মিলে একটা পরিবারের মতো হয়ে যায়। সেনদাইতেও তাই দেখলাম, চমৎকার অবস্থা।

এরমধ্যে আবার আমরা ব্যাচেলররা মিলে বিশেষ একটা সার্কলের মতো হয়ে উঠলাম। যেহেতু ব্যাচেলর লাইফে সময়ের বাঁধাধরা নিয়ম নেই, তাই একসাথে ড্রাইভে বের হওয়া, বোলিং/বিলিয়ার্ড খেলতে যাওয়া, কারাওকে/সিনেমা, ক্যাম্পিং, সাগরপাড়ে বারবিকিউ, অসময়ে কোন ফ্যামিলি ভাইয়ের বাসায় ফোন করে দাওয়াত আদায় করে নেয়া -- এরকম কত কি!

আমাদের এই ব্যাচলর দলটির গুরু ছিলেন যিনি, তিনি বাবু ভাই। আমাদের সাত ব্যাচ আগে একই রকম মনবুশো প্রোগ্রামে এসেছিলেন ইন্টারমিডিয়েটের পরপরই। জাপানী ভাষায় আমরা বলি "দাইসেমপাই"(মানে, অনেক সিনিয়র)। খুব মজার লোক, আবার সেরকমই কো-অপারেটিভ। বাবু ভাইয়ের ডর্মটি ছিলো আমার ডর্ম থেকে হেঁটে পাঁচ মিনিটের পথ। প্রায়ই উনার ডর্মের বিশাল কিচেনটায় আমরা বাঙালী ব্যাচেলররা মিলে নানান রান্নাযজ্ঞে মেতে উঠতাম। আর উনার গাড়ী থাকায় কত সময়ে কত রকম কাজে সাহায্য করেছেন! সেই লিস্ট এত বড় যে অনেককিছু এখন আর মনেও করতে পারছিনা।

২.
এবার আসল কথায় আসি। পিএইচডি শেষে কিছুদিন ইউনিভার্সিটিতে জব করার পর বাবু ভাই একসময় কর্পোরেট জবে জয়েন করে টোকিও চলে গেলেন। তবে মজার ব্যাপার হলো, সেনদাইর সুতাটা ছিঁড়লোনা। মানে, গুরু বাবু ভাই তার সেনদাইর শিষ্যদের হাত থেকে রেহাই পেলেননা।

উনি যখন টোকিও চলে এসছেন আমি তখন মাস্টার্স ফার্স্ট ইয়ারে। ল্যাবে আমাদের গ্রুপটা দুটো কোম্পানীর সাথে জয়েন্ট রিসার্চ করতো, যেজন্য প্রায়ই মিটিংয়ের জন্য টোকিও যেতে হতো। তাছাড়া কনফারেন্স, স্কলারশীপের ইন্টারভিউ, এক্সকারশন, পড়াশোনার শেষদিকে চাকরীর ইন্টারভিউ -- এরকম নানান কারণে গ্রাজুয়েট স্কুলে থাকা সময়ে অনেকবার টোকিও আসতে হয়েছে। এরকম বেশীরভাগ সময়েই স্কেজ্যুলগুলো ফেলতাম শুক্রবারে যাতে পরের দু'দিন একটু আড্ডাবাজি করা যায়। আর সেসব ক্ষেত্রে মোটামুটি অধিকাংশ সময়েই টোকিও এসে বাবু ভাইর বাসায় উঠেছি। শুধু আমি না, সেনদাইর আমাদের পান্ডবদের অধিকাংশই টোকিও আসলে উনার ওখানে উঠতো। কারণ সেই আড্ডা।

এমনও হয়েছে, হয়তো সন্ধ্যায় ইন্টারভিউ শেষে বাবু ভাইকে ফোন করে জানালাম, "বস্, টোকিওতে আছি, চলেন কোথাও আড্ডা দিই।"
বাবু ভাই বললেন, "বাসায় চলে আসো, কালকে তো ছুটি। আড্ডা হবে।"
আমারও সমস্যা কি? একবেলা ল্যাবে না গেলে মহাভারত তো দূরের কথা, ট্যাবলয়েডও অশুদ্ধ হয়না। চলে যাই বাবু ভাইয়ের ওউজি-কামিয়ার বাসায়। গিয়ে হয়তো দেখা যায় আড্ডার জন্য আরো কয়েকজন পান্ডব হাজির। আবারও রাতভর আড্ডা, খাওয়া দাওয়া। ব্যাচেলর লাইফের এই এক মজা!

এমনকি যখন পিএইচডি শেষে চাকরীতে জয়েন করার জন্য টোকিও চলে আসলাম তল্পিতল্পাসহ, তখনও অধমের হাত থেকে বাবু ভাই রেহাই পেলেননা। তখনও টোকিওতে নিজের বাসা ঠিক করতে পারিনি। তাই দিনদশেক বাবু ভাইয়ের বাসাটিতেই কাটিয়ে দিলাম। প্রতিদিন অফিস শেষে সেই আড্ডা, খাওয়াদাওয়া, উইকএন্ডে বাসা খোঁজা। বাবু ভাই তখনও বিয়ে করেননি, আমিও না। তবে আমি চাকরীতে জয়েনের আগে দেশে গিয়ে জীবনে প্রথমবারের মতো নিজের জন্য পাত্রী দেখার দূর্লভ অভিজ্ঞতা নিয়ে ফিরেছি। সেই সময়ের আড্ডায় বাবু ভাইকে মজা করে বলতাম, "বস্, আপনের লাইগা তো কম ওয়েইট করি নাই! এখন যদি আপনের আগেই বেয়াদবি কইরা ফালাই, কিছু মনে রাইখেননা।"

এটা ২০০৬ এর শেষদিকের ঘটনা। অর্থাৎ ২০০১ এর শেষদিকে যখন বাবু ভাই টোকিও এলেন, তারপর থেকে ২০০৬ এর শেষদিকে আমি যখন টোকিও এলাকায় নিজের বাসা নিলাম -- তার আগ পর্যন্ত যখন তখন টোকিওতে এসে বাবু ভাইকে যন্ত্রনা করেছি। অবশ্য এরপর আর যন্ত্রণা করার সুযোগ ছিলোনা, কারণ, ২০০৬ এর শেষে বাবু ভাই ঘোষনা দিলেন যে তিনি জাপান ছেড়ে দেশে চলে যাচ্ছেন। ২০০৭ এর পুরো সময়টা সম্ভবত তিনি দেশে আর ফুকুওকাতে আসা-যাওয়ার মধ্যে ছিলেন। গ্রামীন কমিউনিকেশন আর কিঊশু ইউনিভার্সিটিতে যৌথভাবে কাজ করছিলেন।

২০০৭ এর শেষদিকে জানলাম, অবশেষে আমাদের গুরু বাবু ভাইয়ের বিয়ের ফুল ফুটেছে। আর পাত্রী হলেন বিখ্যাত অভিনেত্রী অপি করিম। আমাদের সেনদাইর বাবু ভাই মিডিয়াতে পরিচিত হলেন "আশির" নামে। অবশ্য টোকিওর বাঙালীদের কাছেও তিনি "আশির ভাই" নামেই পরিচিত।

৩.
সম্ভবত ২০০৮ এর শেষদিকে বা ২০০৯ এর শুরুর দিকে দেশের পত্রপত্রিকায় দেখলাম, আমাদের দুঁদে সাংবাদিকরা আবিস্কার করে ফেলেছেন যে অপি করিমের "জাপান প্রবাসী" স্বামী আশির আহমেদ আগেই এক জাপানী মেয়েকে বিয়ে করেছেন!

সেনদাইতে আশির ভাইয়ের ডর্মে দিনের পর দিন আড্ডা মেরেছি, টোকিওতে পাঁচবছর ধরে যখন তখন তার বাসায় এসে থেকেছি। আমরা কিছু টেরও পেলামনা, আর আমাদের দুঁদে সাংবাদিকরা কোন্ ঐশীশক্তি দিয়ে এত সব তথ্য জেনে ফেললেন, সেটা বোঝার হিম্মত আল্লাহতালা আমাকে দেননাই। বলি, আমরা আড্ডা দিতে বা থাকতে গেলে উনি কি উনার তথাকথিত "জাপানী বউটিকে" ডেস্কের ড্রয়ারে লুকিয়ে ফেলতেন? না তন্ত্র-মন্ত্র পড়ে গায়েব করে অদৃশ্য মানবী করে দিতেন? এর জবাবও মনে হয় ঐ ঐশী শক্তিসম্পন্ন দুঁদে সাংবাদিকই দিতে পারবেন।

শুধু এখানেই শেষ না। এই বেকুব সাংবাদিকগুলা এই কথাটাও রটালো যে জাপানের নাগরিকত্ব নেয়ার জন্য ভদ্রলোক আগে বিয়ে করেছেন। এরা একটু খোঁজ খবরও করেনা! ডেস্কে বসে দিবাস্বপ্ন দেখে, তারপর ডায়রিয়া রোগীর মতো ব্রেনে-কলমে ডাইরেক্ট লাইন করে ফেলে।
আসল সত্যটা হলো, আশির ভাই জাপানী নাগরিকত্বই নেননি। উনি পার্মানেন্ট রেসিডেন্টশীপ নিয়েছেন, যেটা পাঁচ বছরের বেশী এখানে পড়াশোনা করার পর পাঁচ বছর চাকরী করলে মোটামুটি যে কেউ পেতে পারে। বিস্তারিত এখানে।এমনকি জাপানে নাগরিকত্ব পাওয়াও এখন খুব সহজ। জাপানী ভাষা ভালো জানলে, আর স্টেবল চাকরী থাকলে পাঁচ বছর থেকে যে কেউ পেতে পারে।
মনবুশো প্রোগ্রামে আসা অধিকাংশ বাংলাদেশী চাকরিজীবিরাই এখন জাপানের নাগরিকত্ব নিয়ে ফেলেছে। আমার জুনিয়র অনেকেও নিয়ে ফেলেছে। এসবের জন্য জাপানী মেয়ে বিয়ে করার সামান্য কোন প্রয়োজন নেই। এখানে দেখুন।

সবচেয়ে বড় কথা হলো, যে মহান দুঁদে মহাশয়টি এই রটনাটি রটিয়েছেন, তিনি কোনদিন আশির ভাইয়ের সেই কল্পিত জাপানী স্ত্রীটির নামটি পর্যন্ত বলতে পারলেননা। তিনি যদি দয়া করে নামটি বলতেন, তাহলেও সিটি অফিস/পুলিশ রেকর্ডে অনুরোধ করে হয়তো কাগজে কলমে এটা প্রমাণ করে দেয়া সম্ভব ছিলো যে জাপানে এই নামে কোন মহিলা নেই যার বর্তমান বা প্রাক্তন স্বামীর নাম আশির আহমেদ। সেজন্যই কি দুঁদেমহাশয় শুধু "জনৈকা" জাপানী নারীকে কল্পনা করেই রটনায় ইতি টেনেছেন?

৪.
আমাদের দেশে সাধারণ মানুষের চিন্তাভাবনাও বেশ অদ্ভুত। পেপারে এসেছে, তাই সবাই নিঃশর্তে বিশ্বাস করে ফেলেছে। অবশ্য পাবলিককে দোষ দেবো কি? দৈনিক পত্রিকায় এরকম ডাহা মিথ্যে এত নির্লিপ্তভাবে ছাপা হলে লোকজন তো বিশ্বাস করবেই!
দেশে গেলে প্রায়ই পরিচিত লোকজন, যারা জানে যে আশির ভাই আমার পরিচিত, তারা জিজ্ঞেস করে, "এরকম শিক্ষিত একটা লোক এরকম একটা কাজ কিভাবে করলো?"
তারচেয়েও হতাশাজনক ব্যাপার হলো, তখন এদেরকে নানানভাবে বলেও বিশ্বাস করানো সম্ভব হয়না যে পুরো রটনাটাই ডাহা মিথ্যে কথা, এতে "বটে"র সামান্যটুকুও নেই।
দেখা যায় আমার যা বলার তার সবটুকু শুনে হয়তো কি বোঝে কে জানে, বিজ্ঞের মতো চেহারা করে বলে, "আরে ব্যাটা, তুই হয়তো "ভিতরের খবর" জানস না।"

একটা মিথ্যে অপবাদ কত সহজে মানুষের মধ্যে গ্রহনযোগ্যতা পায় -- আমি অসহায়ের মতো প্রত্যক্ষ করি।

৫.
সেদিন ইন্টারনেটে কোন কোন পত্রিকায় আবারও রটনাটা দেখে তাই নতুন করে খুব বিরক্ত হলাম। ভাবলাম, নাহ, এবার অন্তত প্রতিবাদ করাই উচিত। আগেরবার করিনি কারণ আছে। বাবু ভাইয়ের সাথে আমার সরাসরি এসব প্রাইভেট বিষয় নিয়ে কথা হয়নি। উনিও পাড়েননি, আমিও না। তবে আরেকজনের কাছে তখন শুনেছিলাম, বাবুভাইরা যৌথভাবে তখন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে অযথা প্রতিবাদ করে কাদা ছুড়োছুড়ি বাড়াবেননা।

কিন্তু গত দু'বছর যতবার এপ্রসঙ্গটা এসেছে, আমি দেখেছি যারা উনাকে চেনেনা তাদের মধ্যে রটনাটিকে নিঃশর্তে বিশ্বাস করার টেন্ডেন্সীটা প্রবল। বিষয়টা আমাকে ভীষনভাবে হতাশ করতো। কেন একটা ডাহা মিথ্যা কথা এভাবে একের পর এক লোক বিশ্বাস করবে? -- এটা ভাবলে আমি একটা অব্যক্ত যন্ত্রণা বোধ করতাম। তাই এবার আর না লিখে পারলামনা। অন্তত যারা লেখাটি পড়বেন তাদের কাছে একটা উদাহরন দেখানো যে কিভাবে নির্জলা মিথ্যা কথা প্রতিষ্ঠা পায়।

আমি মাঝে মাঝে ভাবি, আমি তো শুধু আশির ভাইয়ের পরিচিত। যারা উনার পরিবারের সদস্য, তাদের কি অবস্থা। ধরা যাক, উনার আব্বা বা আম্মার কথা। এই একটা মিথ্যের জন্য তাঁদেরকে লোকজনের সামনে না জানি কোন্ ধরনের অস্বস্তির সম্মুখে পড়তে হয়?
আমি জানি, আমাদের দেশের মানুষের মধ্যে একটা নীচতা খুব বেশী -- মানুষকে তার প্রাইভেট বিষয়গুলো নিয়ে খোঁচা দিয়ে এক ধরনের অসুস্থ্য আনন্দ লোকে লাভ করে।

আর আশির ভাই বা অপি করিমের অস্বস্তির কথা তো বাদই দিলাম।

যে সাংবাদিক মহাশয় এই রটনাটি তৈরী করেছেন, আর যারা কপিপেস্ট করে সেই রটনা নিজ নিজ পত্রিকায় ছড়িয়েছেন, তারা কি কখনও ভেবে দেখেছেন একটা খেলার ছলে বানানো মিথ্যা রটনা পত্রিকার বিক্রি কিছুটা বাড়ালেও কতগুলো মানুষকে বিনা কারণে কি ধরনের কষ্ট দিচ্ছে? কত বড় ক্ষতি করছে?

তাদের যদি এতটুকু অনুভূতি বা নৈতিকতা না থাকে, তবে সাংবাদিক হবার দরকার কি? মাথায় গামছা বেঁধে গলায় মুড়ির টিন ঝুলিয়ে গুলিস্তানের মোড়ে ক্যানভাসারের কাজ করে যে তারা বেশী বাহবা পেতেন, এমনকি টাকাও -- এটুকু নিশ্চিত করেই বলা যায়।


মন্তব্য

অতিথি লেখক এর ছবি

একটা জানা মিথ্যা অন্তত জানলাম যে মিথ্যা। ধন্যবাদ আপনাকে। এই লেখাটা কোন পত্রিকায় দেয়া উচিত।
আর আপনার আশির ভাইয়ের উচিত ছিল কোন একটা প্রতিবাদলিপি পত্রিকায় দেয়া। এটাতো খুব সহজেই দেয়া যায়। আপনি যা লিখেছেন এরকম কিছু একটা প্রমাণসহ লিখলে মনে হয় পত্রিকাগুলো ছাপতো কেননা পত্রিকাওয়ালাদেরতো আর উনার সাথে ব্যাক্তিগত শত্রুতা নেই।
আর আমাদের পত্রিকার প্রতিবেদন সম্পর্কে আসলে কিছু বলার নেই, কি খেয়ে যে এঁরা রিপোর্ট লিখে তা উঁনারাই জানেন।

পাগল মন

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

হ্যাঁ, আমারও ধারনা প্রতিবাদ করলেই তিনি ভালো করতেন।
কারণ, পরবর্তীতে দেখেছি লোকজন নির্দ্বিধায় একটা মিথ্যেকে মেনে নিচ্ছে।

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

সৈয়দ আখতারুজ্জামান এর ছবি

সত্য জানলাম। এ জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।
এবার খুব জানতে ইচ্ছে করছে, তাহলে একটা সংসার কেন এমন চুরমার হয়ে গেলো। আপনি কি জানেন কিছু? বাবু ভাই মুখ বুজে সব সইলেন কেন?

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

আমি আসলে উনাকে সরাসরি জিজ্ঞেস করিনি কেন উনি কিছু বলেননি। হয়তো তাঁদের ডিসিশন ছিলো এসব নিয়ে যত কথা বাড়াবেন, তত কাদাটা নিজের গায়ে লাগবে।
কিন্তু কিছুদিন আগে আবারও একই রকম রটনা দেখে ভাবলাম অন্তত ব্লগ পরিমন্ডলে সবাইকে জানিয়ে রাখা দরকার যে কত সহজে আমাদের দেশে সংবাদমাধ্যমগুলো মিথ্যেকে প্রতিষ্ঠা করতে পারে।
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

সৈয়দ আখতারুজ্জামান এর ছবি

ঠিকই বলেছেন। ধিক্কার জানাই হলুদ সাংবাদিকতাকে।

স্পর্শ এর ছবি

এই লেখাটা অবশ্যই জাতীয় পত্রিকায় ছাপানো উচিত।
আরো আগেই আপনি এবং অন্য যারা আছেন তাদের কারো না কারো সরব হওয়া উচিত ছিলো।

তখনও আমি বুয়েটের শেষ বর্ষের ছাত্র। একবার বুয়েটেই একটা সেমিনারে আছি। বক্তা দুইজন একজন জাপানি আরেকজন বাংলাদেশি। বাংলাদেশি বক্তাকে চেনা চেনা লাগছিলো খুব। কিন্তু মনে পড়ছিলো না। সেদিন তার কথা বলার ভঙ্গি। তার প্রোজেক্ট। এবং অপটিমিজম। সত্যিই খুব ভালো লেগেছিলো। ব্যক্তিগত কারণে এক ধরণের 'হতাশার স্পেল' এর মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলাম। কিছুদিন ধরেই মনে হচ্ছিলো এইসব হাই-টেক কম্পিউটার সাইন্স দিয়ে আমি আমার দেশের একদম পাঁড়া-গাঁয়ের হয়তো কোনো কাজেই লাগবো না। সেদিন ডঃ অশিরের ঐ সেমিনারে একদম কেটেগিয়েছিলো সেই হতাশা। তার প্রোজেক্টের কী অবস্থা জানি না। গ্রাম পর্যায়ে তথ্য পৌছে দেওয়া নিয়ে কাজ ছিলো ওটা। প্রতি গ্রামেই ইনফরমেশন সিস্টেম থাকবে। গ্রামের মানুষ তাদের দৈনন্দিন সব সমস্যারই সমাধানের জন্য সেখান থেকে তথ্য পেতে পারবে। ভয়েসের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহারের ব্যবস্থা করা হবে। এবং তার জন্য প্রয়োজনীয় রিসোর্স সংগ্রহের ব্যাপারেও অনেক অগ্রগতি হয়েছিলো শুনেছিলাম। অসাধারণ একজন মানুষ আপনার বাবু ভাই।

পরে মনে পড়েছিলো যে ইনিই হয়তো অপিকরিমের জামাই।

আর অনেক পরে যখন পত্রিকায় তার নামে ওসব কথা শুনে সত্যিই অঙ্ক মেলাতে পারছিলাম না। যে কর্মী এবং স্বপ্নবাজ মানুষটাকে আমি দেখেছি তার সাথে পত্রিকায় হলুদ সাংবাদিকদের আঁকা চিত্র মেলে না।

লেখাটার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

আপনি যেমন দেখেছেন আশির ভাই বাস্তবে সেরকমই। খুব উদ্যমী, এই লোকের সাথে ঘন্টাখানেক কথা বললেই বোঝা যায় উনার মাথায় নানান আইডিয়া গিজগিজ করে। উনার ওয়ান ভিলেজ ওয়ান পোর্টাল প্রজেক্টটা শুরু করেছিলেন গত বছর, এখন ঠিক কি স্ট্যাটাস বলতে পারবোনা।

আপনার মন্তব্যের শেষ অংশের ব্যাপারে,
ঠিক, এখন দু'বছর আগের দিকে তাকালে মনে হয় সেসময় প্রতিবাদ করাটাই ভালো ছিলো। কিন্তু আশির ভাইরাও সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন চুপ থাকার, আমরাও যারা জানতাম তারাও ভেবেছিলাম এসব গুজব বাতাসে উড়ে যাবে।
কিন্তু ক'দিন আগে কয়েকটি ব্লগে আবারও গুজবটা খবরের আকারে প্রকাশ হতে দেখলাম। তখন লোকজনের কমেন্ট থেকে দেখলাম সবাই মোটামুটি কনভিন্সড যে উনার নামে ছড়ানো রটনাটি সত্যি। প্যাথেটিক!
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

মাহবুব রানা এর ছবি

বাংলাদেশ এনভায়রনমেন্ট নেটওয়ার্ক এর জাপান চ্যাপ্টারের উদ্যোগে প্রতি মাসের প্রথম শনিবার পরিবেশ বিষয়ক একটি টেলিকনফারেন্স হয়, যেখানে জাপান প্রবাসী পরিবেশ বিষেশজ্ঞরা বিভিন্ন বিষয় আলোচনা করেন। সেই সূত্রে দেখা না হলেও আশির সাহেবের কথা শোনার সুযোগ হয়েছে। চমৎকার বাচনভঙ্গির অধিকারী এই ভদ্রলোকের এরকম ব্যক্তিগত সমস্যার কথা জানা ছিলোনা। আপনার এই লেখা তাঁর নিজের ও পরিবারের অস্বস্তি কিছুটা হলেও কমাতে সাহায্য করবে আশা করি।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

একটা খুব বাজে রটনা চারপাশে দেখেছি।
তবে যেহেতু আমি সরাসরি উনার সাথে এ নিয়ে কথা বলিনি, তাই আমি জানিনা ব্যাপারটা নিয়ে ব্যক্তিগতভাবে উনি কতটা ডিস্টার্বড।

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

দুষ্ট বালিকা এর ছবি

এই লেখাটা জাতীয় পত্রিকাগুলোতে ছাপানো দরকার। এই গুজবটা শোনা এবং বলতে লজ্জা হলেও বলি যেহেতু এই সম্পর্কে কিছু জানি না সেহেতু পত্রিকায় লেখা একটা কথা সত্যি বলেই ভেবেছিলাম... মন খারাপ

-----------------------------------------------------------------------------------
...সময়ের ধাওয়া করা ফেরারীর হাত থিকা যেহেতু রক্ষা পামুনা, তাইলে চলো ধাওয়া কইরা উল্টা তারেই দৌড়ের উপরে রাখি...

**************************************************
“মসজিদ ভাঙলে আল্লার কিছু যায় আসে না, মন্দির ভাঙলে ভগবানের কিছু যায়-আসে না; যায়-আসে শুধু ধর্মান্ধদের। ওরাই মসজিদ ভাঙে, মন্দির ভাঙে।

মসজিদ তোলা আর ভাঙার নাম রাজনীতি, মন্দির ভাঙা আর তোলার নাম রাজনীতি।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

সেইটাই। আপনার লজ্জিত হবার কিছু নেই আসলে। যিনি মানুষটাকে চিনেননা, তিনি তো বিশ্বাস করবেনই।
আমি এখনও ভেবে পাইনা, যে লোকটি রটনাটা ছড়ালো তার মোটিভ কি ছিলো। শুধুই রসালো খবর পরিবেশন?
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

অতিথি লেখক এর ছবি

কাদা যখন বাবু ভাইয়ের গায়ে লেগেই গেছে, তখন তার উচিৎ ছিলো একটা প্রেস কনফারেন্স করে ওই সাংবাদিককে চ্যালেঞ্জ করা আর ৫ কোটি টাকার একটা মানহানির মামলা ঠুকে দেওয়া। সব সাংবাদিকের রং হলুদ নয়। বাবু ভাই বেশ কিছু নীতিবান সাংবাদিকের সহায়তা পেতেন আর ওই হলুদ বান্দরগুলো শিক্ষা পেতো।

লজ্জা লাগে এদেশে কোন শ্রেণীর মানসিকতাসম্পন্ন লোক সাংবাদিকতা করে!

রাতঃস্মরণীয়

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

হ্যাঁ, প্রতিবাদ করলে ভালো করতেন। অধিকাংশ সাংবাদিকই এখনও হয়তো দায়িত্বশীল। তবে এটা এমন একটা পেশা যেখানে এর ছোট একটা অংশেও দায়িত্বহীন আর নীতিবিহীন লোক আসলে অনেক ঝামেলা পাকাতে পারে।
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

অতিথি লেখক এর ছবি

তবে এটা এমন একটা পেশা যেখানে এর ছোট একটা অংশেও দায়িত্বহীন আর নীতিবিহীন লোক আসলে অনেক ঝামেলা পাকাতে পারে।

আমার মনে হয় কিছু কিছু নির্দিষ্ট নীতিবিহীন লোকই বিভিন্ন সময়ে ঝামেলাগুলো পাকায়। নিজেকে জাহির করতে চায় একজন বিশাল মাপের অনুসন্ধানী সাংবাদিক হিসেবে যার জাল জাপান-জার্মানমূলুক পর্যন্ত বিস্তৃত। এদের 'বলিষ্ঠ' লেখনীর মাধ্যমে এরা ভার্জিনকে প্রেগনান্ট বা জীবিতকে আত্মহণনে মৃত বানিয়ে ফেলে। এর একটা অংশে থাকে ফাইনান্সিয়াল মোটিফ। এইসব গরম(!) খবর পরিবেশন করে পত্রিকার বিক্রি বাড়ানো যায় এবং এইসব হলুদ জার্নালিজমে সম্পাদক/প্রকাশকেরও ব্যাপক প্রশ্রয় থাকে।

আরেকটা বিষয় হচ্ছে সম্পূর্ণটাই রূচিবিকৃতি। ইভটিজার, রেপিষ্ট, এদের মতোই বিকৃতরূচির এই তথাকথিত সাংবাদিককূল। মানুষের জীবনে ক্রাইসিস সৃষ্টি করে এরা পৈশাচিক আনন্দ পায়। এদের খুশি রাখতে পারলে ব্যাপক এক্সপোজার পাওয়া যায়। আর এদের নাখোশ করলে কপালে আছে আনক্লীন বাম্বু।

শোনা কথা বলি (আংশিক সত্যি বলেই বিশ্বাস করি)- আমার শহরের একজন হাজার কোটিপতি ব্যবসায়ী-ডাক্তার এবং কন্ঠশিল্পী যিনি কি না আবার একজন পরিচিত দেহলোভিও বটে। কিছুদিন আগে তার সাথে বাংলাদেশের একজন চলচ্চিত্রের শীর্ষ নায়িকার প্রণয়ের খবর শোনা যায়। তার ঘনিষ্ঠজনের কাছ থেকে শোনা যে তিনি সংশ্লিষ্ঠ সাংবাদিককূলকে ডেকে নিয়ে খুশি করে দেন এবং যারা খুশি হতে চায়নি তাদের হাড্ডি-মাংস এক করে দেওয়ার অঙ্গীকার করেন! কোনও গুজবই কিন্তু আর প্রচারমাধ্যমে আসেনি।

এরা আসলে বাঁটে পড়েনা বলেই এইসব অপকর্ম করে বেড়ানোর সাহস পায়। আমি জানিনা বাবু ভাইয়ের দাম্পত্যজীবন এখন কেমন। তবে ব্যাক্তিগতভাবে আমি ছাড়াছাড়ির কোনও গুজব শুনিনি। আশাকরি বাবুভাই-অপি ভালো থাকবেন নিন্দুকের মুখে ছাই দিয়ে।

রাতঃস্মরণীয়

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

মানুষকে জাজ করা খুব কঠিন। কারো আচার-ব্যবহার দেখেই তার সম্পর্কে সব জানা যায় না। প্রত্যেকটা মানুষেরই কিছু সবল দিক থাকে, কিছু দুর্বল দিক থাকে। এজন্য পারসোনাল ব্যাপারগুলো নিয়ে মাথা না ঘামানোই ভালো, যদি না নিজের ওপর তার কোনো প্রভাব পড়ে।

পত্রিকাওয়ালারা নিজেদের কাটতির বাইরে তেমন কিছু চিন্তা করে না। এর জন্য কাউকে মঙ্গলগ্রহে পাঠানোর দরকার হলে তা-ই করে আর কাউকে ৩ বার বিয়ে দেয়ার দরকার হলে তা-ই করে। ব্লগ এদিক দিয়ে একটা ভালো জিনিস, নিজের কথা নিজে বলা যায়।

পত্রিকাওয়ালাদের কাছে ডঃ আশির গুরুত্বপূর্ণ না, গুরুত্বপূর্ণ হলো অপি করিমের স্বামী। তাদের সংসার না টেকার কারণে (না টেকাটা শোনা কথা, ঠিক জানি না) এরা মনে হয় গল্প বানানোর পুরো প্রতিভার অপব্যবহার করেছে।

পোস্টে পাঁচ তারা। আশির ভাই কি ডঃ ইউনুস সমর্থক গোষ্ঠী, জাপানের সভাপতি ছিলেন?

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

হুমম, অপি করিমের স্বামী বলেই তো উনার নামে রটনা। রসালো খবর হয়। আরো অনেক তারকাদের নিয়েই এসব হরহামেশা দেখেছি।
কিন্তু বাবু ভাইয়ের বাবা-মা ভাই-বোনদের সাথে অনেক দেখা হয়েছে। এতকাছ থেকে এরকম ঘটনা দেখে বাস্তব অনুভূতি হলো একটা রটনা কতটা মারাত্মক!

পাঁচ তারার জন্য ধন্যবাদ।
আশির ভাই গ্রামীন কমিউনিকেশনের ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করছেন।
ড. ইউনুস সমর্থকগোষ্ঠীর জাপান শাখা আছে কিনা আমার জানা নেই। মনে আছে, ড. ইউনুস নোবেল প্রাইজ পাবার পর তাঁকে নিয়ে এমন একটা উদ্যোগ হয়েছিলো যেটার উদ্বোধন হয় যখন উনি জাপানে এসেছিলেন তখন। তখন উনার নামে একটা হোমপেজ লঞ্চ করা হয়েছিলো যাতে আশির ভাইসহ আমরা অনেকেই সক্রিয়ভাবে নানান কন্টেন্ট যোগ করতে হেল্প করেছি। তবে বাঙালীর ঐ যে ইনিশিয়াল মোমেন্টাম বলে কথাটা আছে, এক দু'মাস পর উদ্যোগটা কই গেলো আর কিছু জানিনা। মন খারাপ
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

অতিথি লেখক এর ছবি

তবে বাঙালীর ঐ যে ইনিশিয়াল মোমেন্টাম বলে কথাটা আছে, এক দু'মাস পর উদ্যোগটা কই গেলো আর কিছু জানিনা।

অপ্রিয় সত্যকথা।

তারানা_শব্দ এর ছবি

ব্যক্তিগতভাবে চিনি না...তবে পরিচিত মানুষ উনি...
আমি অবশ্য উল্টো কারণে তাদের বিচ্ছেদের কথা শুনেছি।
সত্য মিথ্যা জানি না। :|

"মান্ধাতারই আমল থেকে চলে আসছে এমনি রকম-
তোমারি কি এমন ভাগ্য বাঁচিয়ে যাবে সকল জখম!
মনেরে আজ কহ যে,
ভালো মন্দ যাহাই আসুক-
সত্যেরে লও সহজে।"

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

উনাদের কি আসলেই বিচ্ছেদ ঘটেছে? এরকম কিছু হলে শুনতে পাবার কথা। এখনও শুনিনাই।
এটুকু বলে রাখতে পারি এসব রটনায় অপি করিম বা তাঁর পরিবারের বিভ্রান্ত হবার কথা না। কারণটা সিম্পল। জাপানে দুই বিয়ে নিষিদ্ধ। আশির ভাইর জাপানে স্ত্রী থাকলে অপি করিম উনার স্ত্রী হিসেবে এদেশে বেড়াতে আসতে পারতেননা। যাই হোক, এগুলো উনাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার।

আমি এখানে তুলে ধরতে চেয়েছি অন্য সমস্যাটা। যেটা হলো, এই অপবাদের ফলে লোকজনের মধ্যে উনার যে দুর্নামটা ছড়িয়ে পড়লো -- সেটা অবজেকশনাবল।
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

পত্রিকায় লেখাটা দিতে পারেন। তবে আমজনতার মাঝে গুজব যে হারে ছড়িয়েছে, তাতে এই সত্যকথা কতটা প্রলেপ দিতে পারে খোদা মালুম।

...আপনার লেখাটা সকালেই পড়েছিলাম, সময় হাতে না থাকাতে আর কিছু বলা হয় নাই। এরপর যখন সন্ধ্যার দিকে একটা আড্ডায় আপনার এই লেখার বেসিসে বাংলাদেশের সাংবাদিকেদের হাল বন্ধুদের বললাম- তাতেও অনেকেই এখনো সন্দিহান। আপনি প্রত্যক্ষদর্শী একথা বলার পরেও।

কাজেই মূল মিডিয়া [পড়ুন সংবাদপত্র] যদি এখন এ জাতীয় কন্টেন্টের লেখা সতর্ক হয়ে ছাড়ে আর কি...

_________________________________________

সেরিওজা

_________________________________________

সেরিওজার গল্প

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

এই জিনিসটাই, সুহান। আমি নিজে প্রত্যক্ষদর্শী হয়েও অনেককে সামনাসামনি বলেও বোঝাতে পারিনি। লোকের যেন এরকম রসালো গল্পে বিশ্বাসেই মজা বেশী।
পত্রিকায় হয়তো আমার লেখা ঠিক হবেনা। ঠিক হতো আশির ভাইয়ের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ পাঠালে।
আমি যাস্ট ব্লগ, যেখানে আমি অন্তত বেশ কয়েকজন পাঠককে জিনিসটা জানাতে পারবো সেটাকে বেছে নিলাম।
আপনার বন্ধুদের মাঝে বিষয়টা জানানোর জন্য ধন্যবাদ।
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

ওই সাংঘাতিক লোকটাকে চৌদ্দ শিকে দেয়ার ব্যবস্থা করা দরকার। মানহানিকর সংবাদের বিরুদ্ধে তো প্রকাশক ও প্রতিবেদকের বিরুদ্ধে মামলা করা যায়।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

আমিও মনে করি রটনাকারীর শাস্তি হওয়া দরকার। আসলেই মামলা করা উচিত ছিলো।

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

ধুসর গোধূলি এর ছবি

সেটাইরে ভাই। পেপার পত্রিকায় প্রকাশিত যেকোনো কিছুকেই আমাদের বেদবাক্য হিসেবে মেনে নেয়ার একটা টেন্ডেন্সি আছে। এইটা বিপজ্জনক। পত্রিকাওয়ালারা চায় কাটতি, যে ভাবেই হোক। আর এই ফাঁদেই বুঝে না বুঝে আমরা পা দিয়ে বসে থাকি।

আর খবর রটানো সাংবাদিকদের কথা কী বলবো। আপনি ঠিকই বলেছেন এদের ব্যাপারে। একেবারে হাড্ডাহাড্ডি সহমত।

অপি করিম শুনেছিলাম বার্লিনে এসেছেন। উনি কি এখনও আছেন নাকি শেষ করে চলে গেছেন!

ঘটনাক্রমে আপনার বিয়ের সময়ের কথা মনে পড়লো। ব্লগে বেশ মজা করেছিলাম আমরা তখন, মনে পড়ে। হাসি



বিএসএফ—
ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কর্মকাণ্ড । বিএসএফ ক্রনিক্যালস ব্লগ

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

আসলেই সাংবাদিকতার অবস্থা যাচ্ছেতাই করে ছাড়ছে কিছুলোক।
পত্রিকাকোম্পানীগুলোর প্রতিবেদক নিয়োগের সময় আরো সাবধানী হওয়া উচিত।

ঘটনাক্রমে আপনার বিয়ের সময়ের কথা মনে পড়লো। ব্লগে বেশ মজা করেছিলাম আমরা তখন, মনে পড়ে।

পুরান স্মৃতি মনে করায়া দিলেন চোখ টিপি
এবার আপনের পালা। আমরা আবার মজা করার একটা উপলক্ষ পাই।
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

নাশতারান এর ছবি

এই গুজব শুনে আমার বাবা-মা ভয়ে অস্থির। প্রবাসী পাত্রমাত্রেই আলবিদা! বোঝেন অবস্থা!

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

সর্বনাশ! চোখ টিপি
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

জানিনা এর ছবি

আমি একজন সাধারণ পাঠক। আপনার লেখা পড়ে ভালো লেগেছে। তাই মন্তব্য করছি। দোষ ত্রুটি হলে ক্ষমা করবেন। আমার কাছে যা মনে হয়েছে তা হলঃ

(১) আপনি যথেষ্ঠ খোজ-খবর না নিয়ে কেবল ব্যক্তিগত আবেগের তাড়নায় লেখাটা লিখেছেন। (২) আপনার লেখায় যথেষ্ঠ তথ্য নেই। যেমন আপনি ইচ্ছা করলে কোন পত্রিকা কিভাবে কতখানি লিখেছে তার কিছু রেফারেন্স ব্যবহার করতে পারতেন।
(৩) আপনি বিষয়টি নিয়ে কাদের সাথে কতখানি আলোচনা করেছেন তা স্পষ্ট নয়। আপনার লেখায় এটি পরিষ্কার যাদের নিয়ে এ ঘটনা তাদের কারও সাথেই আপনার এ বিষয়ে কোন আলাপ হয় নি।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

ধন্যবাদ আপনার মন্তব্যের জন্য।
আপনার তোলা তিনটি পয়েন্ট নিয়ে বলছি,
(১) কোন বিষয়ে যথেষ্ট খোঁজখবর নেইনি দয়া করে স্পেসিফাই করবেন?

(২) কোন কোন পত্রিকায় গুজবের কতটুকু এসেছে তা এখানে গুরুত্বপূর্ণ না। কারণ, আমি কোন এক বা একাধিক বিশেষ পত্রিকাকে উদ্দেশ্য করে লিখছিনা। লেখাটার সম্পূর্ন ফোকাস একটা জায়গাতেই, একটা ডাহা মিথ্যে কথাকে রটিয়ে দিলে কিভাবে সবার কাছে সেটা সত্য হয়ে যায় তার একটা উদাহরণ তুলে ধরা।

(৩) "বিষয়টা" বলতে আপনি কি বোঝাচ্ছেন? এখানে "যাদের" কথাটা আসছে কেন? এখানে তো সাবজেক্ট শুধুই বাবু ভাই। উনার নামে একটা মিথ্যে কথা রটেছে। আমি সেটা প্রকাশ করলাম।

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

জানিনা এর ছবি

ভাই আমি যা বলতে চাই তা হলঃ

(১) এই বিষয়টি নিয়ে আপনি বাবু ভাইয়ের অবস্থান সম্পর্কে তেমন কিছু লেখেননি। এ বিষয়টিকে তিনি কিভাবে দেখছেন তা আপনি বলেন নি বা জানেন না।

কিন্তু কেন তিনি চুপ করে থাকলেন, কেন প্রতিবাদ করলেন না - এর উত্তরে আপনি টেনেছেন যে আপনি কারও কাছে শুনেছেন বাবু ভাইরা মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে এই ব্যাপারে কাদা ছুড়োছুড়ি করবেন না। যার ফলশ্রুতিতে এ ধরণের একটা মিথ্যা কথা কিন্তু সাধারণ মানুষের মনে বদ্ধমূল হয়ে গেছে যে, এই লোক এ বিষয়ে কোন প্রতিবাদ করছে না তার মানে "ডাল মে কুছ কালা হ্যায়", আমার কথা হচ্ছে এ ধরণের একটি বিষয় আমাদের মত আমজনতার কাছে গ্রহণযোগ্যতা তখন ই পায় যখন কেউ কোন প্রতিবাদ না করে। সাধারণ মানুষ একটা মিথ্যা কথায় বিশ্বাস করেছে এর একটা বড় কারণ কিন্তু বাবু ভাইয়ের নিরবতা। অন্তত আমার কাছে তাই মনে হয়। আপনি সাংবাদিকদের একহাত নিয়েছেন কিন্তু আমি বলতে চাই বাবু ভাই কেন মুখ বুজে মেনে নিবেন? তিনি একজন শিক্ষিত ব্যক্তি অথচ তিনি প্রতিবাদ করেছেন এ রকম কোন খবর আমার জানা নেই। আপনি তার পরিবারের ভোগান্তির কথা টেনেছেন অথচ এ বিষয়ে তাদের অবস্থান টা আসলে কি আপনি জানেন না।
আপনি যথেষ্ঠ খোজখবর নেন নি কথাটা এই ধরণের কিছু তথ্যের অভাববোধ থেকে বলা। ভুল বললে ক্ষমা করবেন।

(২) মেনে নিলাম।

(৩) "যাদের" বলতে বুঝাতে চেয়েছি বাবু ভাই এবং যারা ওই সময় চুপ করে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

(১) এই বিষয়টি নিয়ে আপনি বাবু ভাইয়ের অবস্থান সম্পর্কে তেমন কিছু লেখেননি। এ বিষয়টিকে তিনি কিভাবে দেখছেন তা আপনি বলেন নি বা জানেন না

বাবু ভাই বিষয়টা নিয়ে কি ভাবছেন সেটা এই লেখার প্রতিপাদ্য না। এটা শুধুই আমার নিজের চোখে দেখা একটা বিস্ময়কর ঘটনার উপস্থাপন, যেখানে আমি একটা ডাহা মিথ্যেকে খুব সহজে ওয়েলকাম হতে দেখেছি।

কিন্তু কেন তিনি চুপ করে থাকলেন, কেন প্রতিবাদ করলেন না - এর উত্তরে আপনি টেনেছেন যে আপনি কারও কাছে শুনেছেন বাবু ভাইরা মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে এই ব্যাপারে কাদা ছুড়োছুড়ি করবেন না। যার ফলশ্রুতিতে এ ধরণের একটা মিথ্যা কথা কিন্তু সাধারণ মানুষের মনে বদ্ধমূল হয়ে গেছে যে, এই লোক এ বিষয়ে কোন প্রতিবাদ করছে না তার মানে "ডাল মে কুছ কালা হ্যায়", আমার কথা হচ্ছে এ ধরণের একটি বিষয় আমাদের মত আমজনতার কাছে গ্রহণযোগ্যতা তখন ই পায় যখন কেউ কোন প্রতিবাদ না করে। সাধারণ মানুষ একটা মিথ্যা কথায় বিশ্বাস করেছে এর একটা বড় কারণ কিন্তু বাবু ভাইয়ের নিরবতা। অন্তত আমার কাছে তাই মনে হয়।

হ্যাঁ আমিও একমত যে বাবু ভাই প্রতিবাদ করলে ভালো করতেন। তবে ঐ যে বললাম, আমরা যারা জানি যে রটনাটা ডাহা মিথ্যে তারা প্রায় সবাই ভেবেছিলাম এসব আজেবাজে কথা বাতাসে উড়ে যাবে।
মানুষের এরকম একটা টেন্ডেন্সী বোধ হয় আছে, খুব নিন্মমানের রটনার বিরুদ্ধে কিছু প্রতিবাদ না করে পাত্তা না দিয়ে থাকতে চায়। যেমন, আমার ধারনা খালেদা জিয়া সরাসরি "পর্ণো ম্যাগাজিন" ইস্যু নিয়ে কোনো প্রতিবাদ করবেননা।
বাবু ভাইয়ের এই ব্যাপারটা হয়তো আমাদের এই শিক্ষাটাও দিয়েছে যে সব ধরনের মিথ্যেরই প্রতিবাদ করা উচিত।

আপনি তার পরিবারের ভোগান্তির কথা টেনেছেন অথচ এ বিষয়ে তাদের অবস্থান টা আসলে কি আপনি জানেন না।
আপনি যথেষ্ঠ খোজখবর নেন নি কথাটা এই ধরণের কিছু তথ্যের অভাববোধ থেকে বলা। ভুল বললে ক্ষমা করবেন।

তাঁর পরিবারের ভোগান্তির বাস্তবচিত্র আমি এখানে তুলে ধরতে আসিনি। সেটা আমার উদ্দেশ্যও না। এখানে তাঁর আব্বা-আম্মার কথাটা এসেছে খুবই জেনারেল সেন্সে। এরকম কেইসে একজন বাবা বা মা কি ধরনের অস্বস্তিতে পড়তে পারে সেটা রটনাকারী সাংবাদিকের ভাবা উচিত ছিলো -- এটাই বলতে চেয়েছি।
সিম্পলি এভাবে ভাবুন, ধরুন আপনি একজন সাংবাদিক। একটা সম্ভ্রান্ত পরিবারের ছেলেটি এত ভালো একটা ক্যারিয়ার গড়লো, সবকিছু এত ভালো। হঠাৎ আপনার মজার বশে রটানো ফালতু একটা মিথ্যের কারণে ছেলেটির উপর একটা অপবাদ নেমে আসলো। এক্ষেত্রে তার বাবা-মা'র অনুভূতি কি হতে পারে সেসবের পূর্বাপর আপনার ভাবা উচিত ছিলো কিনা।

ওভারঅল বলি,
আমার মনে হয় আপনি আমার অবস্থানটা ঠিক বুঝতে পারছেননা। আমি বাবু ভাই বা তাঁর পরিবারের মনোভাব/প্রতিক্রিয়া নিয়ে কিছু লিখছিনা এখানে। একেবারেই থার্ড পারসন হিসেবে একটা অভিজ্ঞতার কথা লিখছি, কারণ, এটা আমার জন্য ভীষন বিস্ময়কর ছিলো। লেখাটায় আমি যে সিদ্ধান্ত টেনেছি তার জন্য আমার অবজারভেশনটুকুই যথেষ্ট বলে মনে করি।

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

জানিনা এর ছবি

ধন্যবাদ ভাই আপনার কথাগুলো ভালো লেগেছে।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

আপনাকেও ধন্যবাদ। আপনার প্রশ্নগুলোর কল্যাণে বেশ কিছু বিষয় স্পেসিফিকালি ক্লারিফাই করা গেছে।

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

আলমগীর এর ছবি

আমার দৃষ্টিতে মানুষ হিসেবটা ভিন্নভাবে দেখে।
- যারা মিডিয়াতে কাজ করেন তারা অনেকটা সার্কাসের প্রাণী। অপরকে বিনোদন দেয়াই যেন তাদের একমাত্র কাজ। পত্রিকাঅলারা তাদের ক্যারিয়ার তুলেন আবার নামান। ব্যক্তিগত জীবনে গুজবের সম্ভাব্য পরিণতি তারা হিসাবে ধরেন না। চিত্র নায়িকা পূর্ণিমার বিয়ে খেয়ে এসে মানবজমিনের রিপোর্টার রিপোর্ট করল; হেডলাইন: পূর্ণিমার দ্বিতীয় বিয়ে! বুঝুন ঠেলা।

- পাশ্চাত্যের অনুকরণ করলেও আমাদের মিডিয়া+দর্শক একটা বিষয়ে পুরো উল্টো আচরণ করে। স্ক্যান্ডাল পশ্চিমা মিডিয়ায় ক্যারিয়ারের জন্য অপরিহার্য, (প্যারিস হিল্টনের এখনও কী রমরমা অবস্থা), আর আমাদের দেশে?

- আরো একটা বিষয় লক্ষ্য করেছি তিশার বিয়ের সময়। আমার ধারণা ছিলো একজন কারো ফ্যান মানে, সে তাকে পছন্দ করে, তার গুণের জন্য, এবং হয়তবা তার অবয়বের জন্যও; কিন্তু তার সাথে কল্পিত/সম্ভাব্য শারীরিক সম্পর্কের কথা ভেবে অন্তত নয়। তিশার বেলায় আমাদের ব্লগার সমাজ যা দেখিয়েছে তা আগে কখনও দেখা যায়নি।

- অপি করিম একসময় আমার প্রিয় অভিনেত্রী ছিলেন হাসি আপনি যতই বলুন না কেন, যারা গুজব বিশ্বাস করে আমোদিত হয়, তাদের আমোদের অভাব হবে না। স্যাড বাট ট্রু।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

সেইটাই। স্যাড বাট ট্রু।
জিনিসটা চোখের সামনে দেখলাম বলেই সবার সাথে শেয়ার না করে পারলামনা।
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

বোকাসোকা এর ছবি

বাবু ভাই এবং অপি আপু দুজনকেই আমি চিনি। এবং দুজনই আমার খুব প্রিয় মানুষ। বাবু ভাই যখন ঢাকায় এসেছেন তখন উনি, অপি আপু সহ আমরা মাঝে মাঝে সময় কাটিয়েছি।
বাবু ভাই কে আমার নিপাট সাধাসিধে আর ভীষন মজার মানুষ বলে মনে হয়েছে সবসময়।
আমি উনাদের দুজনকে সবসময় হাসিখুশি দেখেছি।
আমি কারোর ব‍্যক্তিগত বিষয়ে একদম আগ্রহী না, তাই সেই লাইনে কথা বলতেও চাইনা। এটুকুই বলব উনারা দুজনেই ভালোমানুষ, দোয়া করি তাঁরা যে যেখােন আছে ভালো থাকুক, একত্রে অথবা দুরে।
জ্বিনের বাদশাকে লেখাটির জন‍্য ধন‍্যবাদ, তবে লেখাটির মধে‍্য তথে‍্যর চেয়ে ব‍্যক্তিগত আবেগ বেশি ছিলো। এবং আমার মনে হয় উনাদের অনুমতি ছাড়া এরকম যে কোন ধরনের লেখা ব্লগ অথবা ছাপানো কোন অবস্থাতেই প্রকাশিত হওয়া উচিত না।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

ধন্যবাদ আপনার তথ্য শেয়ার করার জন্য।

মন্তব্যের শেষ অংশে যে অভিযোগ করলেন, তার প্রেক্ষিতে বলি:

বাবু ভাই এবং অপি আপাকে নিয়ে এখানে আমি কিছু লিখিনি সেটা আবারও পরিস্কার করে বলছি।

এই লেখাটার ফোকাস পুরোপুরি একটা জায়গায়। তা হলো, মিডিয়ার খেলার ছলে একটা রটনা কিভাবে একটা ডাহা মিথ্যেকে সবার মাঝে সত্য হিসেবে ছড়িয়ে দিতে পারে সেটা তুলে দেখানো। সে হিসেবে "লেখায় তথ্যের চেয়ে ব্যক্তিগত আবেগের আধিক্যের" কথাটিও ঠিক মানটে পারছিনা। এই রিফিউটেশনে তো ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতাই আসবে। এর বেশী আর কি তথ্য এখানে আশা করছেন, বলবেন কি?

যেহেতু পত্রিকায় রটনাটা ছড়িয়ে গেছে, তাই এটার বিরোধিতা করার জন্য, এটা যে সত্য না তা দাবী করার জন্য বাবু ভাইয়ের অনুমতি নেয়ার প্রয়োজন আমি বোধ করিনা।

এভাবে মনে করুন, এখানে আমি পত্রিকার সেই দুঁদে সাংবাদিকের প্রতিপক্ষ।

আশা করি বোঝাতে পারলাম।
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

জানিনা এর ছবি

আরেকটা কথা বলা জরূরী মনে করছি। ডঃ আশিরের নীরব নীতি কে ধিক্কার।

দিগন্ত এর ছবি

ভাল লেখা, সাধুবাদ প্রাপ্য। এইভাবেই দেশে দেশে কন্সপিরেসী থিয়োরীগুলোর জন্ম হয়ে এসেছে। লোকে যা শুনতে চায় (পর্দার অভিনেতা-নেত্রী সম্পর্কে রসালো খবর) সেটা পরিবেশন করাই সাংবাদিকদের কাজ বলে মনে হয় একেকসময়।


পথের দেবতা প্রসন্ন হাসিয়া বলেন, মূর্খ বালক, পথ তো আমার শেষ হয়নি তোমাদের গ্রামের বাঁশের বনে । পথ আমার চলে গেছে সামনে, সামনে, শুধুই সামনে...।


পথের দেবতা প্রসন্ন হাসিয়া বলেন, মূর্খ বালক, পথ তো আমার শেষ হয়নি তোমাদের গ্রামের বাঁশের বনে । পথ আমার চলে গেছে সামনে, সামনে, শুধুই সামনে...।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

হয়তো কন্সপিরেসী থিওরীর জন্মের পেছনেও অডিয়েন্সের একই সাইকোলজী ব্যবহৃত হয়ে এসেছে। অবশ্য কোনটা যে থিওরী, আর কোনটা যে কন্সপিরেসী থিওরী -- সেইটা বোঝা আরেক হাঙ্গামা।
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

পড়াচোর এর ছবি

হায় হায় ! আমার আর বিয়ে হবেনাকো !

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

ইমিগ্রেশন অফিস থেকে আগে কখনও বিয়ে করেননাই এই মর্মে সার্টিফিকেট নিয়া রাখতে পারেন। চোখ টিপি
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

সাইফ তাহসিন এর ছবি

প্রশংসার যোগ্য পোস্ট এবং উদ্যোগ! যদিও আপনার উদ্দেশ্য তার একটাও না, আপনার পাশে এসে দাড়ালাম প্রতিবাদের গলার স্বর বাড়াতে!

=================================
বাংলাদেশই আমার ভূ-স্বর্গ, জননী জন্মভূমিশ্চ স্বর্গাদপি গরিয়সী

=================================
বাংলাদেশই আমার ভূ-স্বর্গ, জননী জন্মভূমিশ্চ স্বর্গাদপি গরিয়সী

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

ধন্যবাদ আপনাকে
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

ইসানুর এর ছবি

ব্যাপারটি ব্লগে তুলে ধরার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

ভ্রান্ত পথিক [অতিথি] এর ছবি

মনে হচছে রিপোর্টাররা এই কাজটা ইচ্ছাকরে করে। আমি এরকম কতকিছু সত্য বলে ধরে নিছি! মনে হয় এইরকম মিছা সংবাদ প্রকাশের জন্য পুলিশ প্রায়ই তাদের ধোলাই দেয়।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

গুজব রটানোর জন্য পুলিশ ধোলাই দেয় এমন কোন কথা এখনও শুনিনাই
তবে এগুলোর শাস্তি হওয়া দরকার
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

অতিথি লেখক এর ছবি

এদের জন্যে ধোলাই মোষ্ট এ্যাপ্রোপ্রিয়েট ট্রিটমেন্ট। গুহ্যদ্বারে লাঠি ঢোকানো বা নাসারন্ধ্রে পানি ঢালা এরা উপভোগ করবে।

রাতঃস্মরণীয়

আশফাক এর ছবি

বস্‌ ‌, সাংবাদিকদের দোষ দিয়ে লাভ নাই।
ওরা জানে, ছাগলকে পোলাও কোরমা খাইয়ে লাভ নাই! ছাগলকে কাঠাল পাতা খাওয়াতে হয়।
আগে আমাদের ছাগল গুলোকে মানুষ করতে হবে (নিজেদেরও ছাগল থেকে মানুষ হতে হবে।)!

আমার নিজের ছোট্ট অভিজ্ঞতা। একবার এক পত্রিকায় আমার প্রিয় খেলা কী সেটা বলতে হয়েছিলো।
আমি বহুবার 'ভলিবল' বলার পরেও পরের দিন পত্রিকায় দেখলাম ছাপা হয়েছে 'ক্রিকেট'!
পাড়ার সাংবাদিক, লোক ভালো। কিন্তু কী করা, ওই সময় বাংলাদেশে ক্রিকেট মাত্র জমে উঠছিলো। ওটাই ছিলো কাঠাল পাতা!

আশা করছি আপনার এই লেখা কিছু ছাগলকে মানুষ বানাতে পারবে।

btw: আমি বাবু ভাইয়ের জায়গায় হলেও মনে হয় একই কাজ করতাম।

আশফাক

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

কিন্তু বস্, সাধারন পাঠক কিভাবে জানবে কোনটা কাঠাল পাতা আর কোনটা পোলাও কোরমা? এখানেই মিডিয়ার কাছে তাদের হাত-পা বাঁধা।
যেমন, উপরেই আলমগীর ভাই উদাহরন দিলেন "পূর্ণিমার দ্বিতীয় বিয়ে" নিয়ে। এখন আমার আপনার পূর্ণিমার বিয়ের সংখ্যা নিয়ে আগ্রহ না থাকলেও, যাদের সংখ্যাটা নিয়ে আগ্রহ আছে (ধরেন উনার ডাইহার্ড ফ্যানদের কথা), তারা কিভাবে জানবে যে তাদেরকে কাঠাল পাতা খাওয়ানো হচ্ছে?

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

well wisher এর ছবি

Hello,

First of all my apology for writing in English. I don't know how to write in Bengali without keyboard. I will try my best to learn the keyboard layout in future,

now, let's come to the focal point of the post. I appreciate your endeavor to reveal the irresponsibility of the journalist. However, there is another side of the coin. The way you have written the post is biased - it means to be , cause you are a good friend of ashir bhai. then again, you have not referred directly the news report. give us the link- show us what was written. without reference - your reference is also like naive assumption. you have portrait ashir bhai close to a saint - why i am going to believe you ? this is not rational

then again, if your argument is to protest - do that properly. write in the mainstream media instead of blog (though it is a good platform too). the only reason i am telling you because a lot of people do not have access to blog.

and finally, your post is again making people curious about this incident. please take appropriate permission from the people you are talking about. just think- they are getting stupid questions, mob curiosity and definitely going to be embarrassed. you should have talked to the them. just don't defend yourself. take a break and think rationally.

just a well wisher

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

বাংলাতেই জবাব দিচ্ছি।

However, there is another side of the coin. The way you have written the post is biased - it means to be , cause you are a good friend of ashir bhai.

এই লেখার বিষয়বস্তুর ভিত্তিতে আপনার এই বক্তব্যটা স্ববিরোধী। কারণ, এধরনের রটনার ক্ষেত্রে রটনাটা যে মিথ্যে সেটা কেবল যারা তাঁর গুড ফ্রেন্ড, আরো পরিস্কারভাবে বললে যারা খুব কাছ থেকে তাঁকে লম্বা সময় ধরে দেখেছে, তারাই সাক্ষ্য দিতে পারবেন।
উদাহরণ দিচ্ছি। ধরুন, আপনারা চারজন কলিগ অফিসে একটা রুমে বসেন। এখন আপনার কোন এক "ওয়েল উইশার" আপনার উপরের দিকের বসকে গিয়ে মিথ্যে নালিশ করলো যে আপনি প্রায় অফিসের ডেস্কে বসে মদ টেনে টাল হয়ে ঝিমান। তখন আপনার নামে রটানো এই মিথ্যেটাকে নাকচ করে দিতে পারবেন কারা? বাকী যে তিনজন আপনার রুমে বসে, তারাই তো, নাকি? এখন যদি আরেকজন ওয়েল উইশার এসে বলে এরা সারাদিন একরুমে অফিস করে, এরা তো ওর বন্ধু, এরা বায়াসড -- কি বলবেন? চোখ টিপি

then again, you have not referred directly the news report. give us the link- show us what was written. without reference - your reference is also like naive assumption.

পত্রিকার রিফারেন্সের ব্যাপারে উপরেও এক প্রতিমন্তব্যে বলেছি, আবারও বলি, এ লেখাটি কোন এক বা একাধিক পত্রিকাকে উদ্দেশ্য করে নয়, এটা আশির ভাইয়ের নামে রটানো মিথ্যে কথাটাকে উদ্দেশ্য করে। আপনি বরং মন্তব্য-প্রতিমন্তব্যগুলো আবার পড়ুন, বিশেষ করে "জানিনা" আর "বোকাসোকা" নিকের দুজনের সাথে আমার প্রশ্নোত্তর -- তাহলে আপনার কিছু কৌতুহল মিটতে পারে।

you have portrait ashir bhai close to a saint - why i am going to believe you ? this is not rational

প্রথমত, ঠিক কি কারণে আপনার মনে হলো আশির ভাইকে আমি "সেইন্ট" হিসেবে দেখাচ্ছি?
আপনি আমাকে বিশ্বাস করবেন কি করবেননা সেটা আপনার ব্যাপার। যারা এই লেখাটিকে বিশ্বাস করবেন সেটাও তাঁদের ব্যাপার। আবারও পরিস্কারভাবে বলে রাখি, আমি শুধুই আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার কথা লিখেছি।

then again, if your argument is to protest - do that properly. write in the mainstream media instead of blog (though it is a good platform too). the only reason i am telling you because a lot of people do not have access to blog.

আপনি বরং উপরের মন্তব্য সবগুলো পড়ুন। অবশ্যই এই পোস্টটা ঐ সাংবাদিকের অপকর্মের বিরুদ্ধে একটা প্রতিবাদ, তবে আমার উদ্দেশ্য কোনভাবেই এই রটনার আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ না। আমি মনে করি, সেটা করতে হলে আশির ভাইদেরকেই করতে হবে। আমি শুধু ব্লগের পাঠকদের জানিয়ে রাখতে চাচ্ছি যে এমনসব রটনাও আমাদের পত্রিকাগুলোতে আসে যাতে বিন্দুমাত্র সত্য নেই।

and finally, your post is again making people curious about this incident.

খারাপ কি? অন্তত সত্যটা লোকের কাছে প্রকাশিত হতে তো দিন!

please take appropriate permission from the people you are talking about. just think- they are getting stupid questions, mob curiosity and definitely going to be embarrassed. you should have talked to the them.

আমি আবারও বলছি এখানে আপনার আনা them শব্দটা অপ্রাসঙ্গিক। এখানে সাবজেক্ট একজনই, আশির ভাই। আর "স্টুপিড কোয়েশ্চেন" যেটা বললেন, আমার ধারনা, সেটা তিনি বরং এতদিন অকারণে পেয়ে এসেছেন (যেমনটা শুধু তাঁর পরিচিত হওয়ার কারণে আমি পেয়েছি)। আমার এই পোস্টটা অন্তত কিছু মানুষকে স্টুপিড কোয়েশ্চেন করা থেকে বিরত রাখবে বলেই আমার বিশ্বাস।

আপনাকে যেটা বুঝতে হবে, এখানে আশির ভাইয়ের নামে রটানো একটা মিথ্যের খোলস খুলে দিয়েছি মাত্র। তাই এর দ্বারা তাঁর এমব্যারাসড হবার কোন সম্ভাবনা নেই। আমি তো তার নামে কোন মিথ্যে কথা বলছিনা!

আপনি বরং আপনার এই উপদেশটা ঐ মিথ্যে রটনাকারী সাংবাদিকদের/পত্রিকাদের দিন। সত্যের সেবা হবে।

take a break and think rationally.

বিচারবুদ্ধি নিয়ে চিন্তা করছি বলেই বারবার এই অবান্তর রটনাটা দেখে অবশেষে আর না পেরে লিখতে বাধ্য হয়েছি।

মশাই, আমি একটা সত্যকে প্রকাশ করছি এখানে। আপনার "take a break" উপদেশটি তাই আমার কাছে মূল্যহীন।

ভালো থাকবেন।

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

সাইফ শহীদ এর ছবি

জ্বিনের বাদশা,

বোঝা যাচ্ছে এ লেখাটা অনেকের আগ্রহের কারণ হয়েছে। আমি ডঃ আশিরকে চিনিনা। ফলে তাকে বা অপি করিমকে নিয়ে আমার বলার কিছু নেই [অবশ্য অপির অভিনয় আমার খুব ভাল লাগে]।

জীবনে মাত্র দুইবার জাপানে গিয়েছিলাম - এবং আমার ব্যক্তিগত ধারণা হচ্ছে জাপানী মেয়েরা পৃথিবীর সেরা 'ভাল বউ' হতে পারে।

আমি নিজেই হয়তো ঝুলে পরতাম যদি ততদিন আমি মুক্ত বিহঙ্গ থাকতাম।

তোমরা সবাই বরং ওখানেই ডঃ আশিরের জন্যে মেয়ে দেখতে আরম্ভ কর।

শুভেচ্ছা রইল সবাইকে।

সাইফ শহীদ

সাইফ শহীদ

হরেকৃ্ষ্ণ এর ছবি

জাঁহাপনা জ্বিনের বাদশা,

রাজা-বাদশা'র সবকিছুই ভাল লাগে, তার ওপর জ্বিনের বাদশা হলে তো কথাই নেই! তবে আজকের লেখাটি ভাল লাগলো অন্য দুটি কারণেঃ অপি করিমকে পছন্দ করি আর আমার নিজের পুরনো স্মৃতিকে জাগিয়ে দিয়েছেন। আপনার বাবু ভাইকে তার অজান্তেই বিয়ে করিয়ে দিয়েছেন বলে সাংবাদিক(রা) যে দুর্ণামের শিকার হচ্ছেন, এককভাবে তারা দায়ী না হতেও পারেন যদি আমার কাহিনী শোনেন।

আমি আপনার দাই-দাই-সেম্পাই তবে কিউসুতে নয়, তার অনেক উত্তরে, অবিবাহিত হয়েই গিয়েছিলাম ঢাকা থেকে। তিন বছর জাপানে থাকার পর এক জ্যোষ্ঠ, নিকটতম বন্ধু এলেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে। এয়ারপোর্ট থেকে সোজা আমার চার-রুমের 'ম্যানসন' বাসায় (তখনকার দিনে এরকম এপার্টমেন্টকে ম্যানসন বলা হোত) নিয়ে এলে প্রথমেই কায়দা করে সবগুলো ঘর, বাথরুম, রান্না-খাবার ঘর ঘুরে ঘুরে দেখে ভনিতা না করেই জিজ্ঞেস করলেন, তোমার বৌকেতো দেখছি না? বললাম বিয়ে করলেতো বৌকে দেখবেন। বললেন, বেশ আগেই শুনেছিলাম বিয়ে করেছো, কিন্তু এখানে আসার সময় প্লেনে আমাদের সহকর্মি 'জুলফত মিয়া' সবিস্তারে তোমার বিয়ে, স্ত্রী ও সংসারের যে বর্ণনা দিল, তোমার বাড়ির সবকিছু মিলে যাচ্ছে শুধু বিয়ে আর বৌএর ব্যাপারটি ছাড়া। কিছুক্ষণ পর আমার রুমমেট (বা হাউসমেট), এক ইউরোপিয়ান ছাত্র (ছাত্রী নয়) বাসায় ফিরলে বন্ধুটি বিশ্বাস করলেন যে সত্যিই আমি অবিবাহিত। বলা বাহুল্য আমি, বন্ধু ও সহকর্মিটি ঢাকায় একটি খান্দানি প্রতিষ্ঠানে গুরুগম্ভীর জাতীয় কাজে নিয়োজিত ছিলাম, আর সহকর্মিটি এশিয়ার আরেকটি দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি শেষ করে আমেরিকায় যাচ্ছিলেন; প্রায় চার বছর থেকে সেই সহকর্মিটির সাথে আমার কোন যোগাযোগই ছিল না। এর মাস ছয়েক পর সত্যিই যখন বিয়ে করতে ঢাকা গেলাম, খালা বললেন আমার কাছে লুকোসনে বাবা, দিব্যি করে বলতো যে তুই বিয়ে করিসনি। আমি পাবলিক ফিগার ছিলাম না বলে সেবার বৌ পেতে বেগ পেতে হয়নি, তবে জাপানী মেয়েকে বিয়ের রটনাটি কে বা কিভাবে ছড়িয়েছিল তা আজো বুঝে পাইনা। এমনকি আড়ালে-আবডালে বলার মতো কোন মেয়ে-বন্ধুও জুটাতে পারিনি তখন। রটনার কারণ যা হতে পারতো, আমি রিউ-গাক্সেই-কাইকান (ডর্মিটরী) এর ছোট্ট ঘরটি ছেড়ে 'বিশাল' এক ম্যানসনে গিয়ে উঠেছিলাম সুবিধাজনক স্থান ও ভাড়া পেয়েছিলাম বলে। বাকীটা বন্ধু-সহকর্মি-সুহৃদরা দিল-দরাজ হয়ে কল্পনার মাধুরী মিশিয়ে রচনা করেছিল। এতোদিন পর সেসব কথা মনে করে বেশ মজা পাচ্ছি।

গেঙ্কিদে নে (ভাল থাকবেন)...সাইয়োনারা (বিদায়)।
গুস্তাফি মাফ করবেন।

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ারের জন্য অনেক ধন্যবাদ, দাই-দাই-সেম্পাই।
ঠিক, আশপাশের "ওয়েলউইশার"রাও একজনের বারোটা বাজাতে পারে, ভীষনভাবে একমত।

তবে, শেষমেষ পত্রিকায় রটানার দায়টা সাংবাদিকের উপরই পড়বে। পত্রিকার সাংবাদিকরা যদি এরকম দুয়েকজন ওয়েলউইশারের কাছে শুনেই আর কিছু যাচাই না করে ব্রেন-টু-কলম ডাইরেক্ট লাইন করে দেন, তাহলে পত্রিকা আর পত্রিকা থাকবেনা, ঠাকুরমার ঝুলি হয়ে যাবে।

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

তানভীর শহীদ এর ছবি

কোনো বাংলা ব্লগে এটাই আমার প্রথম মন্তব্য, তাই যেকোনো ভুল ত্রুটির জন্য আমি আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।

প্রথমে আমি লেখককে(জ্বিনের বাদশা) সাধুবাদ জানাই এই রকম একটি সামাজিক সমস্যাজনিত বিষয়ের প্রতিবাদ করার জন্য। যার ফলে অন্তঃত আমার মত bachelor দের City/Immigration অফিস থেকে unmarried সার্টিফিকেট নেয়ার হাত থেকে রেহাই পাবো এবং ভবিষ্যত প্রজন্ম সত্য-মিথ্যা যাচাই করে ভ্রান্ত ধারনাকে পরিবর্তন করতে পারবে।

লেখকের প্রতিবাদ এবং মন্তব্যগুলো পড়ে আমার মনে হয়েছে যে, বাবু ভাই-অপি ভাবীর অথবা তাদের পরিবারের উচিত উপযুক্ত Reference সহ একটি প্রতিবাদলিপি প্রকাশিত সংবাদপত্রের সম্পাদকের বরাবর পাঠানো যে, প্রকাশিত সংবাদটি মিথ্যা অথবা উদ্দেশ্য প্রনোদিত। এতে করে so called সম্পাদকদের, সংশোধনের সুযোগ দেয়া যেতে পারে।

well wisher (যাচাই করা হয়নি) | বিষ্যুদ, ২০১০-১১-১৮ ০৪:২৭
give us the link- show us what was written
- আপনার জন্য বলছি,

যদিও অনেক সংবাদপত্রেই লেখাটি পড়েছি, তবে এই মুহূ্র্তে একটি recent ওয়েব লিঙ্ক আমার মনে পরে এখানে দেখুন

সবাইকে ধন্যবাদ।

azizul  এর ছবি

There is an old saying " If you throw a stone to a mountain, then the stone will be destroyed not the mountain."
I know personally Ashir Bhai...and he is one of the greatest assets for our Motherland , Bangladesh. He will be in the leading position to develop our country in future.
Thanks.
azizul

আশফাক এর ছবি

সাংবাদিক ব্যাটাদের উল্টাপাল্টা লিখার জন্য শাস্তি হওয়া দরকার, তাতে দ্বিমত নেই; তবে আবারো বলছি, আসল সমস্যা অন্য জায়গায়! আসলে খুব কম মানুষই সত্য মিথ্যার ধার ধারে, অধিকাংশ মানুষ সেটাই বিশ্বাস করে যা তারা বিশ্বাস করতে চায়। উদাহরণ বহু আছে, আমাদের দেশের ঐতিহাসিক দু-একটা ইস্যু ধরলেই বুঝার কথা। আপনি যাদের এই খবরের সত্য ঘটনা বলেও বিশ্বাস করাতে পারেননি, তাদের কথাই ধরুন।
তাই মিডিয়ার কথা যে বিশ্বাস করবে তারও দায় থাকবে। কোনটা কাঠাল পাতা আর কোনটা সত্য সেটা পাঠককেও যাচাই করতে হবে। গল্পের মানুষকে চিনিনা এই অজুহাত চলবে না; লিখার বিষয়বস্তু থেকে, লিখার ধরন থেকে, পত্রিকা বা লেখকের ইতিহাস থেকে ইত্যাদি বহুভাবে ধারণা পাওয়া সম্ভব। সব দোষ পত্রিকাওয়ালাদের ঘাড়ে দিয়ে পাঠকদের ফেরেশতা ভাবার চেষ্টা করে লাভ নেই! যারা এধরনের খবর পড়ে বিশ্বাস করে, পারলে আরো রটায়, তাদেরও দায় আছে। (সুস্থ শিক্ষা-সংস্কৃতির প্রসার আর আত্মশুদ্ধির অভ্যাস গড়া ছাড়া এই সমস্যা মিটবে বলে মনে হয় না।)
আরেকবার বলছি, আমি বাবু ভাইয়ের জায়গায় হলেও প্রতিবাদ-ট্রতিবাদের ঝামেলায় যেতাম না। আমার ধারণা, বাবু ভাইয়ের কাছের মানুষেরা খুব ভালোভাবেই উনাকে চিনে। তাই তাদের কাছে এই খবর পাগলের প্রলাপ মাত্র। আর দূরের মানুষ যারা কাঠাল পাতা খেয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তুলে, তারা কী ভাবলো, তাতে কারো কিছু যায় আসে না (নির্বাচনে দাড়ালে অবশ্য ভিন্ন কথা)।

আশফাক

নজরুল ইসলাম এর ছবি

লেখাটা অনেক দেরিতে পড়লাম। জানি না মন্তব্যটা আপনার চোখে পড়বে কী না। রটনাটা প্রথম কোন পত্রিকায় ছাপা হইছিলো? লিঙ্কটা দিতে পারবেন? নয়তো পত্রিকা আর সাংবাদিকের নাম? মেসেজে দিলেও চলবে।
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

ঠিক কোন পত্রিকায় প্রথম ছাপা হয়েছে সেটা আমি জানিনা। তবে নিজের মেইলবক্স ঘেঁটে বুঝলাম, যে মেইলের মাধ্যমে রটনাটার কথা প্রথম জানতে পারি তাতে "আমাদের সময়"র লিংক দেয়া।
মেইলে এই লিংকটা ছিলো, কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে ওটা কাজ করছেনা।

============================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

নিয়াজ মোর্শেদ চৌধুরী এর ছবি

এই লেখাটা পত্রিকায় প্রকাশ করা উচিত। আপনার বাবু ভাই নিতান্তই ভদ্রলোক বলে হয়তো আর ঘাটান নি বিষয়টা, কিন্তু আমাদের দেশের সাংবাদিক মাহশয়রা সব সময় ভদ্রলোক হন না; তাই এই বিষয়গুলো নিয়ে মনগড়া রসালো লেখা লিখে যেতে তাদের বাঁধে না।

ধিক্ জানাই এ ধরনের হলুদ সাংবাদিকতাকে। লেখাটা ফেইসবুকে শেয়ার দিচ্ছি। প্রকৃত সত্য সবার জানা উচিত।

হোম - টুইটার - ফেইসবুক - উইকিপিডিয়া - এ্যাকাডেমিয়া

মুকতাদা এর ছবি

অপি করিম যে আবার বিয়ে করল (আজকের পত্রিকার খবর), এতে কি এখানের কাহিনী ও লেখা কিছুটা হলেও ভুল প্রমানিত হয় না?

nam nai এর ছবি

না, হয় না। কারণ আপনি তো জানেন না ঠিক কি কারণে কি হয়েছে।

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

অপির জন্য শুভকামনা। আবার বিয়ের খবরের লিংক। কার দোষ, কার গুণ, তার চেয়ে বড়ো কথা আশির ভাইয়ের সাথে অপির ম্যাচিংটা হয় নাই।

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA