শক্তিশালী সব ছবি - ১

সাফি এর ছবি
লিখেছেন সাফি (তারিখ: রবি, ২৭/০৫/২০১২ - ২:৪১অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এমন অনেক ছবি আছে যা একবার দেখলে মনের মধ্যে তীব্র প্রভাব ফেলে। হতে পারে সেই ছবি আনন্দের, কষ্টের, ঘৃণার, আবেগের অথবা সহিংসতার। ছবি তোলার মুন্সীয়ানার চেয়ে ছবির বক্তব্যই এ ক্ষেত্রে মূখ্য। এমন ই কিছু ছবির তালিকা চাওয়া হয়েছিলো জনপ্রিয় ওয়েবসাইট রেডিটের ব্যবাহারকারীদের কাছে। আজকে সন্ধ্যায় সেই ছবিগুলোই দেখছিলাম (এই লেখার পরের পর্বে চেষ্টা করব সেখান থেকে কিছু ছবি সচলের পাঠকদের সাথে পরিচিত করতে)। ছবিগুলো দেখার পরে যেটা মনে হলো মানুষের মনে দাগ কেটেছে এমন ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে যুদ্ধের নৃশংসতা, প্রাকৃতিক দূর্যোগের ভয়াবহতা, এসবকিছুর বিপরীতে সাধারন মানুষের অসহায়ত্ব, মৃত্যুর বিভীষিকা এবং সেই সাথে মহাকাশের বিশালতা। মহাকাশের কিছু ছবিসহ অল্প কিছু ছবি বাদ দিয়ে, প্রায় প্রতিটা ছবিই প্রচন্ড মন খারাপ করে দেয়। হয়ত এমন অনুভূতিই আমাদের মনে দাগ কাটে বেশী। ছবি দেখতে দেখতে ভাবছিলাম বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে আমার দেখা এমন কিছু ছবির কথা। এরকম কিছু ছবি নিয়ে এই লেখা। ছবির কপিরাইট নিয়ে আপত্তি মন্তব্যের ঘরে জানালে সেই ছবি সরিয়ে দেওয়া হবে। পাঠকদের প্রতি অনুরোধ থাকবে, মন্তব্যের ঘরে এমন কিছু ছবি শেয়ার করার জন্য। সেই সাথে কেন ছবিটা আপনার মনে দাগ কেটেছে বা ছবির প্রেক্ষাপট উল্লেখ করলে আরো ভালো হয়।

অবধারিত ভাবেই এই ছবিগুলোর বেশীটা জুড়েই রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ছবি। মুক্তিযুদ্ধের অগণিত ছবির মাঝে, দুটি ছবির প্রতি আমি বিশেষভাবে আকৃষ্ট হই। সর্বকনিষ্ঠ বীরপ্রতীক ১২ বছর বয়সী (লালুর কথা ) আমরা সবাই জানলেও আমি তার চেয়েও বেশী তাড়িত হই নাম না জানা এই ছোট্ট শিশুটার ছবি দেখে, বল নিয়ে খেলার বদলে মিছিলে নেতৃত্ব দিচ্ছে-

ছবিতে স্বতঃস্ফূর্ত এই শিশুর মাঝে যে দৃঢ় প্রত্যয় আমি দেখি, তা ভাষায় প্রকাশের যোগ্যতা আমার নেই। এর পরই মনে হয় সেই বীর মুক্তিযোদ্ধার কথা, আহত সহযোদ্ধাকে কাঁধে করে বয়ে নিয়ে যাচ্ছেন ক্যাম্পে -

মুক্তিযুদ্ধের বাইরে চিন্তা করতে গেলে প্রথমেই মনে পড়ে বিডিআর(বর্তমান বিজিবি) বিদ্রোহের কথা। খুব কাছ থেকে দেখেছি আর সাম্প্রতিক বলেই হয়ত বিডিআর বিদ্রোহের সময়কালের অনেক কয়টা ছবির কথা মনে পড়ছে। এর মধ্যে সবার আগে পুলিশ চীফের এই ছবির কথা বলতে হয় -
Chief of Bangladesh Police পিলখানার ভেতরে আট্কা পড়েছেন তার মেয়ে, জামাই। আমি জানিনা তখন তিনি তার মেয়ে এবং জামাইয়ের ভাগ্যে কী ঘটেছে সে সম্পর্কে জানতেন কি না। কিন্তু এই ছবিতে একদিকে তার কর্তব্যের ইউনিফর্ম তাকে পুলিশ হিসেবে পরিচয় করায় আর আরেকদিকে চোখের দিগন্ত প্রসারিত অজানা হতবিহ্বল দৃষ্টি ভেতরের বাবাটিকে খুঁজে নিয়ে আসে। বিডিআর বিদ্রোহের দ্বিতীয় যে ছবিটির কথা বলব, সেটি জনৈক বিডিআর জওয়ানের। আত্মসমপর্নের পর যখন সব জওয়ানদের নিজ নিজ হেডকোয়ার্টারে রিপোর্ট করতে বলা হয়, সেই অনিশ্চয়তার মাঝে এই জওয়ানকে দেখা যায় শেষ মুহূর্তে তার ছোট্ট শিশুটিকে আদর করে দিতে (সূত্র) -
দুই বাবার এই দুই রকম ছবি আমাকে ভীষনরকমের আলোড়িত করে।

এর বাইরে ক্রিকেটে মাশরাফির এই ছবির কথা বলতে পারি -

কপালে পরিশ্রমের বিন্দু বিন্দু ঘামের সাথে মাশরাফির দৃঢ় প্রতিজ্ঞ দৃষ্টিতে লড়াইয়ের যে চিহ্ন দেখা যায় তা অতুলনীয়।

লেখাটি শেষ করব যেই ছবি দিয়ে তার বর্ণনা আমি দিবনা। ছবিতে থাকা মানুষটির অনেক কিছুই আমার অপছন্দের। কিন্তু এই ছবিটা দেখলে আমার মনে পড়ে এই মানুষটার জীবনটাও সম্পূর্ণ অন্য রকম হতে পারত। অনেকগুলো ঘটনার প্রেক্ষিতে বর্তমানে তিনি যেই অবস্থায় আছেন, আমার মনে হয় এই ছবিতে ফিরে যেতে বললে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে তাঁর এক মুহূর্তও দেরী হতনা। এই ছবিটা দেখার পর থেকে তাই মনে হয় আজ থেকে কয়েক যুগ পর, আমরা কে কি অবস্থায় থাকব সেটা আসলে আমরা কেউই জানিনা এবং বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই আমরা এর নিয়ন্তাও নই। এ কারণেই এই ছবিটার কথা আমি ভুলতে পারিনা -

তথ্য সংযুক্তি- রবিবার রাত ১০ঃ৪০ পাহাড়ি সময়।

১। প্রথম ছবিটি '৬৯ এর গণঅভ্যূথ্বানের। পোস্টে ভুল করে মুক্তিযুদ্ধের সময়ের বলা হয়েছে। ছবিটি তুলেছেন, প্রখ্যাত আলোকচিত্রশিল্পী প্রয়াত রশীদ তালুকদার। তাঁর আরো কিছু ছবি দেখা যাবে এই এলবামে

২। দ্বিতীয় ছবিটি তুলেছেন শিল্পী নাঈব উদ্দিন আহমেদ ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে ডিসেম্বর ৬, ১৯৭১ সালে।

৩। তৃতীয় ছবিটি সংগ্রহ করা হয়েছে নিয়াজ মোর্শেদ চৌধুরীর ফ্লিকার এলবাম থেকে। ছবিটি খুব সম্ভবত তাঁর নিজের তোলা।

৪। মাশরাফির ছবিটির আলোকচিত্রী পাভেল রহমান। ছবিটি সংগ্রহ করা হয়েছে এপি ফটোজ থেকে।

৫। শেষ ছবিটি আমি প্রথম দেখি ফেসবুকে, অনেক খুঁজেও এর আলোকচিত্রী সম্পর্কে আমি কোন তথ্য যোগাড় করতে পারিনি।

ভুল সংশোধন এবং তথ্য দিয়ে সহায়তা করার জন্য সচল রাগিব হাসান এবং সচল তানভীরের প্রতি এবং বানান সংশোধনীর জন্য সচল বুনোহাঁসের প্রতি কৃতজ্ঞতা।


মন্তব্য

তাপস শর্মা এর ছবি

দুর্দান্ত পোস্ট। ছবি নিয়ে অনুভূতির কথা শেয়ার করতে গেলে একটা কথাই বলব - ছবি যদি শুধুমাত্র একটা ইমেজ না থেকে স্পষ্টভাবে নিয়ত স্বপ্নজালের মতো ধরা দেয় তাহলেই তা হয়ে উঠে অদম্য।

ব্যাক্তিগতভাবে আমি খোলা আকাশের নীচে অফুরন্ত প্রকৃতির নানা রকম উচ্ছলতাকে ভালোবাসি। এর বাইরে কোন ছবি আমাকে বিশেষ টানেনা।

সাফি এর ছবি

সেরকম কিছু ছবি পোস্টান না দাদা।

তাপস শর্মা এর ছবি

একটু অবসর হয়ে নেই। বড্ড ঝামেলায় আছি গো দাদা। কথা দিলাম নিশ্চয়ই পোস্টাব। আর আপনার এই গুরুত্বপূর্ণ সিরিজটি তো চলবেই। হাসি

ব্যাঙের ছাতা এর ছবি

আপনার উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। অনেক অদেখা, অজানা কিছু জানতে পারব এই সিরিজ থেকে।
ধন্যবাদ আপনাকে এমন উদ্যোগের জন্য।

সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

ক্রেসিডা এর ছবি

একটা সুন্দর ছবি মানেই একটা কবিতা, একটা সুন্দর গল্প; কিছু বলা কথা, কিছু না বলা হাসি-কান্না-বেদনার সুর।

খুব সুন্দর আর জীবন্ত ছবিগুলো।

__________________________
বুক পকেটে খুচরো পয়সার মতো কিছু গোলাপের পাঁপড়ি;

সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

অমি_বন্যা এর ছবি

চোখে পানি জমিয়ে দিয়ে গেলেন। ঠেকাতে পারলাম না শেষ পর্যন্ত। মন খারাপ হয়ে গেলো। অনেক ভালো একটি পোস্ট।

সাফি এর ছবি

মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ, আর মন খারাপ করে দেওয়ার জন্যে দুঃখিত।

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

শুধু একটা ছবি দিয়ে বলে ফেলা যায় কতো কতো কথা!
খুবই চমৎকার একটা উদ্যোগ। চলুক

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

দুষ্ট বালিকা এর ছবি

সেটাই!

**************************************************
“মসজিদ ভাঙলে আল্লার কিছু যায় আসে না, মন্দির ভাঙলে ভগবানের কিছু যায়-আসে না; যায়-আসে শুধু ধর্মান্ধদের। ওরাই মসজিদ ভাঙে, মন্দির ভাঙে।

মসজিদ তোলা আর ভাঙার নাম রাজনীতি, মন্দির ভাঙা আর তোলার নাম রাজনীতি।

সাফি এর ছবি

চলুক

সাফি এর ছবি

ছবির ভাষা বুঝতে পারাটাও জরুরী। আজকাল ফেসবুকে অনেক প্রতিযোগীতার ছবি দেখি, কিন্তু নিচে মন্তব্যগুলো দেখলে হতাশ লাগে। মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

ধুসর জলছবি এর ছবি

পুরনো ছবি দেখা আমার খুব প্রিয় একটা কাজ। মন খারাপ হলেই আমি এ্যালবাম খুলে বসি। প্রতিটা ছবিই এক একটা গল্প।আর কে না জানে হারিয়ে যাওয়া গল্পগুলো সব সময়ই সুন্দর, মন খারাপ করা হলেও সুন্দর।
আপনার এই সিরিজটার অপেক্ষায় থাকব। আগের ছবিগুলো দেখা ছিল,বিডিআর বিদ্রোহের ছবিগুলো দেখলেই খুব বেশী অসহায় লাগে,তাই পারতপক্ষে দেখিনা এগুলো। একদম শেষের ছবিটা আগে দেখিনি, অদ্ভুত মিশ্র একটা অনুভূতি হল দেখে।
চলুক পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

সাফি এর ছবি

পুরোনো ছবি দেখার অভ্যেসটা আমাদের পরিবারে বেশ ভাল মতন আছে। প্রায়ই দেখা যেত রাতে খাবার পরে আব্বা একটা এলবাম বের করে সবাই মিলে সেটা দেখতাম। এরকম হতে হতে, ছবির সাথে রিলেট করে এক্দম গ্যাদাকালের অনেক গল্প এমন ভাবে স্মৃতিতে গেঁথে গেছে যে, মনে হয় আমি নিজের স্মৃতি থেকেই ঘটনাটা দেখতে পাচ্ছি। মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ আপনাকে।

রাগিব এর ছবি

প্রথম ছবিটা ৬৯ এর গণঅভ্যুথ্বানের সময়কার। এই ছবি তোলার কয়েক মিনিট পরে পুলিশের গুলিতে এই শিশুটি মারা যায় বলে নানা জায়গায় পড়েছি বলে মনে পড়ছে।

অঃ টঃ - এতো রাতে পোস্ট? ডিউটি চলছে নাকি শিশুপালনের?

----------------
গণক মিস্তিরি
জাদুনগর, আম্রিকা
ওয়েবসাইট | শিক্ষক.কম | যন্ত্রগণক.কম

রায়হান আবীর এর ছবি

দেঁতো হাসি :D

সাফি এর ছবি

কোল ভরে এলে এই ইমো কই দৌড়ায় আম্মোও দেখব।

সাফি এর ছবি

ধন্যবাদ রাগিব ভাই। সংশোধন করে দিচ্ছি পোস্ট।

আনুভা (আমাদের বাবুর নাম) প্রায় ১মাস বয়স থেকেই রাতের ঘুম ঠিক করে ফেলেছে। ১১-১২টার দিকে ঘুমিয়ে যায়, ভোরে ৫টার দিকে একবার খেতে ওঠে, তারপর আবার সকালে ৯-১০টার দিকে ওঠে। রাত জাগার যেসব ভীতিজাগানিয়া গল্প শুনেছিলাম সেই অভিজ্ঞতা এখনও তেমন হয়নি। কালকে অবশ্য অকাজে রাত জেগে ছিলাম হাসি

মরুদ্যান এর ছবি

দারুণ পোস্ট। চলুক

-----------------------------------------------------------------------------------------------------------------
যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে তবে একলা চল রে

সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা- দোস্ত

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

প্রতিটা ছবিই যেন একটা পরিপূর্ণ গল্প। দারুণ লাগল আপনার পোস্টটা। চলুক

সাফি এর ছবি

ধন্যবাদ প্রহরী ভাই।

তিথীডোর এর ছবি

উত্তম জাঝা!
সিরিজের সঙ্গে থাকব। হাসি

________________________________________
"আষাঢ় সজলঘন আঁধারে, ভাবে বসি দুরাশার ধেয়ানে--
আমি কেন তিথিডোরে বাঁধা রে, ফাগুনেরে মোর পাশে কে আনে"

সাফি এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

নীড় সন্ধানী এর ছবি

চমৎকার একটা সিরিজ হবে বলে আশা রাখছি। শেষ ছবিটা আগে কোথাও দেখিনি। দেখে মনে পড়লো সেই কবিতাটা- শিশুর পিতা ঘুমিয়ে আছে সব শিশুদের অন্তরে। কি হতে পারতো, কি হয়েছে!

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

সাফি এর ছবি

কী হতে পারতো আমরা আসলে জানিনা, আসলে অনেক কিছুই হতে পারত। শেষের ছবিটা আমিও মাত্র কিছুদিন আগেই দেখেছি, দেখে আমার ও মোটামুটি একই অনুভূতি। ধন্যবাদ নীড়দা।

অতিথি লেখক এর ছবি

দারুণ একটা পোস্ট ।
প্রথম ছবিটার কথা বলার যোগ্যতাও আমার নেই । শিশুটি পুলিশের গুলিতে মারা যায় এমন পড়েছিলাম পত্রিকায়-
রাগিব ভাই যেমন বলেছেন ।

কড়িকাঠুরে

সাফি এর ছবি

ঠিক করে দিবো তথ্যটা। আপনাকে ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য।

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

ছবিগুলো যাঁরা তুলেছেন নাম দিলে (বা দিতে পারলে) আরো ভালো হতো।

সাফি এর ছবি

ভাল বলেছেন। তান্ভীর ভাই দুইজন আলোকচিত্রীর নাম বলেছেন, পোস্ট হালনাগাদ করে দিচ্ছি। চলুক

মৃত্যুময় ঈষৎ(অফলাইন) এর ছবি

প্রথম ছবিটা শ্রেষ্ঠতম। এ ছবি দেখলে দুর্বার সাহস সঞ্চারিত হয়, যা কম ছবিই দিতে পারে।

সিরিজ চলবে অবশ্যই। চলুক

সাফি এর ছবি

চলুক

তানভীর এর ছবি

প্রথমটা রশীদ তালুকদারের তোলা বিখ্যাত ছবি '৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের।

দ্বিতীয়টা তুলেছেন নাঈব উদ্দিন আহমেদ ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে ডিসেম্বর ৬, ১৯৭১ সালে।

ছবির সাথে ফটোগ্রাফারের নাম দিলে ভালো হতো।

সাফি এর ছবি

ধন্যবাদ তানভীর ভাই। পোস্ট হালনাগাদ করে দিচ্ছি এখনই।

তারেক অণু এর ছবি

দারুণ, কি আশ্চর্য আমিও এইরকম একটা সিরিজ করব চিন্তা করছিলাম, সারা বিশ্বের ঘটনা নিয়ে ! খুব ভাল হল, আপনি চালিয়ে যান, ফাঁকে ফাঁকে আমিও লিখলাম। চলুক

সাফি এর ছবি

অণুভাই, আপনার দেখা ও জানার পরিধি আমার চেয়ে অনেক বিস্তৃত। আমার পাশাপাশি আপনিও পোস্ট দিলে খুবই ভাল হবে। এই সিরিজের নাম, ধারাবাহিকতা ব্যবহার করেই লিখতে পারেন।

ahsan ullah russel এর ছবি

ঘাতক তুমি সরে দাঁড়াও;
এবার আমি লাশ নেবনা।

জীবন থেকে সোনার মেডেল-
শিউলি ফোঁটা সকাল নেব;

সরিয়ে নাও ঘাতক কাঁটা
এবার আমি গোলাপ নেব।।

Zoom_Russel

সাফি এর ছবি

চলুক

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি

চলুক

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _
একজীবনের অপূর্ণ সাধ মেটাতে চাই
আরেক জীবন, চতুর্দিকের সর্বব্যাপী জীবন্ত সুখ
সবকিছুতে আমার একটা হিস্যা তো চাই

সাফি এর ছবি

হাসি

ধ্রুব বর্ণন এর ছবি

দ্বিতীয় ছবিটা খুব প্রিয়!

সাফি এর ছবি

হাসি

শাব্দিক এর ছবি

আমাদের ফটোগ্রাফি ক্লাবের স্লোগান ছিল, "আ সিঙ্গেল ফটোগ্রাফ টকস মোর দেন আ মিলিওয়ন পেইজেস"
ছবি গুলো সেই কথাটাই মনে করিয়ে দেয়।
অসাধারন পোস্ট। চলুক

চরম উদাস এর ছবি

চলুক

রায়হান আবীর এর ছবি

সাফি ভাই, চমৎকার এই সিরিজ শুরু করার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপিন হলো! বিডিয়ার বিদ্রোহের ঐ ছবিটি আজ পর্যন্ত যতোবার দেখেছি প্রত্যেকবারেই বুকে এসে বিধেঁছে!

নাশতারান এর ছবি

দারুণ!

_____________________

আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ
তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।

নিটোল এর ছবি

প্রথম ছবিটা সবসময়ই ভেতরটা কাঁপিয়ে দেয়।

_________________
[খোমাখাতা]

অতিথি লেখক এর ছবি

খুব সুন্দর আর জীবন্ত ছবিগুলো, ভাল লাগল।

পরের পোরবের অপেক্ষায় হাসি

সবজান্তা এর ছবি

খুবই ভালো লাগলো ছবিগুলি দেখে। চমৎকার একটা লেখা হাসি

মজার ব্যাপার হচ্ছে, ২০০৮ সালে আমি একই বিষয়ের উপর ব্যক্তিগত ব্লগে একটা লেখা দিয়েছিলাম... অনেকদিন পর সেই লেখাটার কথা মনে পড়ে গেলো আপনার এই ব্লগটা দেখে।

প্রান্তিক রহমান এর ছবি

শেখ হাসিনার এই ছবিটা দেখলে মাঝে মাঝে মেলাতে পারি না। আবার মনে হয় জীবনের উত্থান পতন একটা মেয়েকে কিভাবে বদলে দেয়।

উদ্ভ্রান্ত পথিক এর ছবি

চলুক

---------------------
আমার ফ্লিকার

রংধনুর কথা এর ছবি

চলুক হাততালি

বুনোফুল এর ছবি

উত্তম জাঝা! উত্তম জাঝা!

তানিম এহসান এর ছবি

ফেভারিট এ নিয়ে নিলাম, সাথে থাকবো। প্রথম ছবি’টা সংগ্রহে রাখা আছে, যখন দেশ নিয়ে খুব বেশি আশাহত হয়ে যাই তখন যে কয়টি ছবি দেখি তার মধ্যে এটি একটা। এরকম আরেকটা ছবি এখানে দিলাম, জানিনা আসবে কিনা।

নৈষাদ এর ছবি

মারাত্মক।

আব্দুল গাফফার রনি এর ছবি

হাজার পৃষ্ঠা লেখর পরেও যা অব্যক্ত থেকে যায়, মাত্র একমুহূর্তে ক্যামেরার একটা এক ক্লিকে তা প্রকাশ হয়ে যায়। ধন্যবাদ সাফি ভাই, চমৎকার একটা পোস্টের জন্য।

আরেকটা, কথা- আমি না এখনো লেখসহ ছবি অর্থাৎ ফটোফিচার কীভাবে পোস্ট করতে শিখিনি অনুগ্রহ করে একটু শেখালে কৃতজ্ঞ হই।

----------------------------------------------------------------
বন পাহাড় আর সমুদ্র আমাকে হাতছানি দেয়
নিস্তব্ধ-গভীর রাতে এতোদূর থেকেও শুনি ইছামতীর মায়াডাক
খুঁজে ফিরি জিপসি বেদুইন আর সাঁওতালদের যাযাবর জীবন...
www.facebook.com/abdulgaffar.rony

সচল জাহিদ এর ছবি

চলুক চলুক চলুক


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

বন্দনা এর ছবি

প্রথম ছবিটা আগে দেখেনি কখন ও, কেমন যেন লাগছে ঠিক বলতে পারবোনা, সেই অনুভূতির কথা।ছবির সাথে সাথে ছবির ইতিহাসের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়া এই পোস্ট অসাধারন হয়েছে সাফি।

জাবেদুল আকবর এর ছবি

চলুক

ধুসর গোধূলি এর ছবি
সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

চলুক

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

প্রদীপ্তময় সাহা এর ছবি

গুরু গুরু

এত ভাল লাগল আপনার এই পোষ্ট যে বুকমার্ক করে রাখলাম।
আপনার কাছে অনুরোধ এই সিরিজটি যেন অনেক অনেক পর্ব পেরোয়।

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

ফাহিম হাসান এর ছবি

পরের পর্ব তাড়াতাড়ি পোস্টান, প্লিজ

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।