ভুত সম্পর্কে যে দু'চার কথা জানলাম

দময়ন্তী এর ছবি
লিখেছেন দময়ন্তী (তারিখ: রবি, ৩০/০৮/২০০৯ - ৭:৪৭অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাঙালি ভুতের উত্পত্তি, গায়ের রং, ওজন ইত্যাদি কিছু তথ্য জানতে পেরে, জনস্বার্থে তথ্যগুলি সবাইকে জানানো দরকার মনে হল৷

তো, আসুন তাহলে ভুতের উত্পত্তি দিয়েই শুরু করি৷ মানুষ মরে ভুত হয়, সে তো আমরা সবাই জানি৷ত্রৈলোক্যনাথও বলেছেন "মানুষ মরে ভুত হয়৷ ভুত মরে মার্বেল হয়'৷ ভুতেদের অধিকাংশই মানুষ মরেই হয় বটে, তবে দু'চারটে ভুত কিন্তু অন্য উপায়েও হয়৷ কেমন করে? এই ধরুন "ভুতের বাপের শ্রাদ্ধ' বলে একটা কথা আছে৷ তা সে কথা কি অমনি অমনি আকাশ থেকে পড়ল? নিশ্চয়ই ভুতের ছেলে ভুত হয়, নাহলে আর বাপ মরলে শ্রাদ্ধ করবে কী করে? এরা হল গিয়ে দুইপুরুষে ভুত, ভুতেদের মধ্যে অভিজাত শ্রেণী৷ আবার এই যে একটা কথা আছে "আবাগের/আবাগীর বেটা ভুত' , তা এটা হল না মরে, সশরীরে ভুত হওয়ার উদাহরণ৷ যুধিষ্টির তাঁর পুণ্যির জোরে যদি না মরে স্বর্গে যেতে পারেন, তাহলে অগাধ পাপের ফলে অমন কয়েকজন না মরে ভুতও হতে পারেন বৈকী৷ তো, আমরা তাহলে দেখলাম যে তিনরকমভাবে ভুত উত্পন্ন হয়৷
১) মানুষ মরে ভুত
২) ভুতের বেটা ভুত
৩) আবাগীর বেটা ভুত (সশরীরে)

ভুতেদের তো আর "পঞ্চত্বপ্রাপ্তি' হতে পারে না, কারণ "পঞ্চভুত' থেকে তো এঁয়ারা সৃষ্ট হন না৷ কিন্তু তাই বলে ভুত যে লয়প্রাপ্ত হয় না, সেরকম ভাবাও ঠিক হবে না৷ আর ভুতেরাও মরে তো বটেই৷ নাহলে আর ভুতের ছেলে তার বাপের শ্রাদ্ধ করবে কেমন করে? এছাড়াও ধরুন ত্রৈলোক্যনাথ তো বলেই গেছেন "ভুত মরলে মার্বেল হয়' ৷ তবে হ্যাঁ ভুতেরা কিন্তু একেবারে পূর্ণবয়স্ক ভুত হয়৷ ভুতশিশু বলে কিছু হয়টয় না৷ কারণ পাপী মানুষ মরলে ভুত হয়, কিন্তু ৫ বছরের চেয়ে ছোট কোন বাচ্চার পাপ হয় না৷ মার্কন্ডেয় মুনি বলেছেন ৫ থেকে পূর্ণবয়স্ক (১৬ বছর) হওয়া পর্যন্ত মানুষ যে পাপ করে, যমরাজ সেই পাপের জন্য কানধরে ঘোড়দৌড় করিয়েই মাপ করে দেন৷ তো, দেখতেই পাচ্ছেন যে ভুত মানেই পুর্ণবয়স্ক৷ "আবাগীর ছেলে ভুত'ও পূর্ণবয়স্ক৷ রইল বাকী ভুতের বেটা ভুত৷ নিশ্চিতরূপে না জানলেও আমার অনুমান এরা অঙ্গজ জনন প্রক্রিয়ায় জন্মায়৷

বাঙালিদের মধ্যে ফর্সা লোকের অভাব নেই৷ কেউ ফুটফুটে ফর্সা, কেউ বা উজ্জ্বল গৌরবর্ণ, বেশীরভাগই উজ্জ্বল শ্যাম বা শ্যামবর্ণ, অল্প দু'চারজন একেবারে মিশমিশে কালো৷ ভুতেদের মধ্যে কিন্তু বর্ণবৈচিত্র্য খুব কম৷ অধিকাংশ ভুত, প্রায় পনেরো আনা তিন পাই ভুত হল গিয়ে ঘোর কালো৷ পেত্নীদের মধ্যে ১০৮ জনই মিশমিশে কালো৷ এক ব্রহ্মদৈত্যই যা ফর্সাপানা৷ "পেঁচো' হল ঘোর নীল বর্ণের৷ বাকী ভুতেরা সব আলকাতরার মত কালো, তামাক খাবার টিকের মত কালো৷ এইজন্যই বাংলায় বলে "ভুতের মত কালো'৷ উনুনের ধোঁয়ায় ধোঁয়ায় হাঁড়ির তলা যখন কুটকুটে কালো হয়ে যায়, আমরা বলি "কেলোভুত'৷ ভুত যে কালো, তা এমনকি নিরীশ্বরবাদী রবীন্দ্রনাথও স্বীকার করেছেন৷ মনে করুন "পুরাতন ভৃত্য' কবিতা৷ প্রথমেই বলছেন "ভুতের মতন চেহারা যেমন নির্বোধ অতি ঘোর' তারপরে একজায়গায় বলছেন "কৃষ্ণকান্ত অতি প্রশান্ত তামাক সাজিয়া আনে' ইত্যাদি৷ ভুতের চেহারাও বেশ খোলতাই ধরণের৷ চোখগুলো ভাঁটার মত, দাঁতগুলো মুলোর মত৷ বিশেষ করে মুখের দুইপাশ দিয়ে দুটো বড় বড় দাঁত সর্বদাই ঝুলে থাকে৷ কানগুলোও কুলোর মত৷ এদিকে পায়ের পাতা আবার উলোদিকে৷

তাহলে ভুত সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা তো দিয়েই দিলাম৷ এবার ভুতের সাইজ, ওজন, স্থিতি, বয়স, ধর্মবিশ্বাস ইত্যাদি সম্পর্কে বিশদে জানতে চাইলে পড়ে ফেলুন "যম দত্তের ডায়ারী' বইটি৷ পেশায় ইতিহাসবিদ, গণিতজ্ঞ ও পরিসংখ্যানবিদ যতীন্দ্রমোহন দত্ত ওরফে "যমদত্ত' একজন সার্থক রম্যরচনাকারও বটে৷ ভুত সম্পর্কে বিশদ আলোচনা ছাড়াও এই বইটিতে আছে "সেকালের কথা' "কচুপোড়া' খাওয়ার উপকারীতা, বিবাহসম্পর্কে তাঁর সরস চিন্তাভাবনা ইত্যাদি বেশ কিছু লেখা৷ সমস্ত লেখার মধ্যেই রসের একটা ধারা কুলকুল করে বয়ে যায়৷ একেবারে তরতর করে পড়ে ফেলা যায়, এমনই একটি বই এটি৷

যমদত্তের জীবত্কাল ১৮৯৪ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত৷ লেখার ধরণ সরস, তবে চিন্তাভাবনা বেশ কিছুক্ষেত্রেই একটু সেকেলে লাগে৷ "পলিটিকাল কারেক্টনেস' নামে যে বস্তুটার সাথে আজকাল আমাদের অহরহ ওঠাবসা, তা তখনকার যুগে তেমন সুলভ ছিল না৷ তার প্রমাণ এই বইটিতেও জায়গায় জায়গায় আছে৷ হঠাত্ হঠাত্ একেকটা বাক্য বর্তমানের অনভ্যস্ত চোখকানে খট্ করে লাগে৷ কিন্তু ঐটুকু উপেক্ষা করলে, আদ্যন্ত সরস রম্যরচনা৷ বইটির প্রকাশক "রীতা প্রকাশনী' খুবই ছোট প্রকাশনা সংস্থা৷ নতুনও বটে৷ কিন্তু বইটিতে আগাগোড়াই যত্নের ছাপ লক্ষ করা যায়৷ বানানভুল নেই, চমত্কার মুদ্রণ পারিপাট্য, আগাপাস্তলা উত্তম বাঁধাই৷

নাম: যম দত্তের ডায়ারী
লেখক: যতীন্দ্রমোহন দত্ত
প্রকাশক: রীতা প্রকাশনী
দাম: ১২০/- টাকা
পৃষ্ঠাসংখ্যা: ২২৯


মন্তব্য

স্পর্শ এর ছবি

ভুত নিয়ে এতোকিছু! মামদোভূত হামাভূত এইসব আছে তো এই বইএ?


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...


ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি...

দময়ন্তী এর ছবি

হ্যাঁ সব আছে৷ শুধু গবলিন নেই৷
-----------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

ভুতুম এর ছবি

ইন্টারেস্ট পাইলাম। হাতের কাছে পাইলে কিনে ফেলবো। ধন্যবাদ।

-----------------------------------------------------------------------------
সোনা কাঠির পাশে রুপো কাঠি
পকেটে নিয়ে আমি পথ হাঁটি

-----------------------------------------------------------------------------
সোনা কাঠির পাশে রুপো কাঠি
পকেটে নিয়ে আমি পথ হাঁটি

দময়ন্তী এর ছবি

আপনাকেও ধন্যবাদ৷ হাসি
---------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

গৌতম এর ছবি

ভূতদের মধ্যে সবচেয়ে ভালো লাগতো মেছোভূতকে, ওই যে, শ্যাওড়া গাছের নিচ দিয়ে যাওয়ার সময় যে বোয়াল মাছটা ধরে রেখে দিতো!

আহারে, ভূতময় সেই দিনগুলো কীভাবে যে হারিয়ে গেলো!

.............................................
আজকে ভোরের আলোয় উজ্জ্বল
এই জীবনের পদ্মপাতার জল - জীবনানন্দ দাশ

::: http://www.bdeduarticle.com
::: http://www.facebook.com/profile.php?id=614262553/

.............................................
আজকে ভোরের আলোয় উজ্জ্বল
এই জীবনের পদ্মপাতার জল - জীবনানন্দ দাশ

দময়ন্তী এর ছবি

"ভূতময়' দিন ছিল আপনার? ক্কি ক্কান্ড! চিন্তিত
আহা সে মেছোপেত্নী না?
--------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

মৃদুল আহমেদ এর ছবি

আহা! এইসব সরল শান্ত গ্রাম্য ভূতেরা বুঝি সেই শৈশবেই হারিয়ে গেল...
মজার লেখা। হাসি
--------------------------------------------------------
বুদ্ধিমানেরা তর্ক করে, প্রতিভাবানেরা এগিয়ে যায়...

--------------------------------------------------------------------------------------------
বললুম, 'আমার মনের সব কপাট খোলা ভোজরাজজী। আমি হাঁচি-টিকটিকি-ভূত-প্রেত-দত্যি-দানো-বেদবেদান্ত-আইনস্টাইন-ফাইনস্টাইন সব মানি!'

দময়ন্তী এর ছবি

ধন্যবাদ৷ হাসি
------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

মাহবুব লীলেন এর ছবি

"মানুষ মরে ভুত হয়৷ ভুত মরে মার্বেল হয়'৷

এটা পুরোনো থিওরি

আধুনিক বৈজ্ঞানিক থিওরি হলো- মানুষ মরে ভূত হয় আর ভূত মরে হয় গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণগ্রহীতা

দময়ন্তী এর ছবি

তারপর ব্যাঙ্কের তাড়া খেয়ে আবার মরে ভূত হয়?
গ্রামীণই হোক আর যাই হোক, সব ব্যাঙ্কই সমান৷ ঋণগ্রহীতাদের গলায় গামছা দিতে সবাই ওস্তাদ৷
----------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

অতিথি লেখক এর ছবি

দশের চক্রে ভগবান ভুত হয়..................
রেনেসাঁ

দময়ন্তী এর ছবি

হাসি কিন্তু যমদত্ত এই কেসটা ধরেন নি৷
-----------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

রণদীপম বসু এর ছবি

বুক রিভিউর স্টাইলটা আনকোড়া, বেশ মজা পেলাম...!

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

-------------------------------------------
‘চিন্তারাজিকে লুকিয়ে রাখার মধ্যে কোন মাহাত্ম্য নেই।’

দময়ন্তী এর ছবি

ধন্যবাদ ধন্যবাদ ৷
-------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

কোথায় পাওয়া যাবে বইটা?

দময়ন্তী এর ছবি

কলকাতায় পাওয়া যায়৷ কাউকে দিয়ে সংগ্রহ করানোর ব্যবস্থা করতে পারলে আমি সব ডিটেইলস দিয়ে দেব৷
--------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

দাম তো লিখে দিলেন ১২০ টাকা। ঢাকার বাজারে কিনতে গেলে ২৪০ টাকার নিচে ছাড়ন নাই...

ভূত পেত্নীর পিছে ২৪০ টাকা খরচা করবো? চিন্তিত
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

দময়ন্তী এর ছবি

আরে কলকাতা আসেন, আমি যোগাড় করে দেব৷
আর ওকী কথা! ভুতপেত্নী বলে কি মানুষ নয়? হাসি
--------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

কলকাতা যাওয়া-আসার খরচ তো ২৪০ টাকার চেয়েও বেশি হওয়ার কথা, না কি?! খাইছে
নজরুল ভাই, তবু মন পাল্টাইলে বইলেন দমুদি'রে। কিছু তো পেত্নীও আছে, খালি তো পুরুষ-ভূত না, চিন্তা কইরা দেখতে পারেন বস!
কতো টাকা কতো পয়সা কতোভাবে খরচ হইয়া যায়!
মানুষ হোক আর ভূত্নী হোক গো,
নারীর পিছে খরচ করলে আখের আগেই পাওয়া যায়!!চোখ টিপি
___________
স্বাক্ষর?!
মাঝেসাঝে বুঝতে পাই- আমি
নিরক্ষর!

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

দময়ন্তী এর ছবি

দেঁতো হাসি
-----------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

ইশতিয়াক রউফ এর ছবি

শব্দটা "ভূত" না? ভেজালে পড়ে গেলাম তো... ভূতের গল্প পোষায় না কোনোদিনই... তবুও পেলে পড়ার ইচ্ছা রইলো।

সৈয়দ আখতারুজ্জামান এর ছবি

ভূত। ঠিকাছে। দীর্ঘ উ কার হবে।

দময়ন্তী এর ছবি

এহেহে পরে ঠিক করে দিচ্ছি৷
আমার আবার সম্পাদনা করতে গেলে ব্লগ উড়ে যায় দেখি৷ ইতিমধ্যেই একটা ব্লগে ছবি জুড়তে গিয়ে মায়া হয়ে গেছে৷
-------------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

কীর্তিনাশা এর ছবি

দারুণ তো ! হাসি

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

দময়ন্তী এর ছবি

ধন্যবাদ হাসি
--------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

মুস্তাফিজ এর ছবি

বুঝতেই পারিনি বইয়ের কথা

...........................
Every Picture Tells a Story

দময়ন্তী এর ছবি

ট্যাগ ছিল তো৷
ধন্যবাদ হাসি
----------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

সৈয়দ আখতারুজ্জামান এর ছবি

যতটুক মনেপড়ে গ্রন্থালোচনা সচলে এই প্রথম পড়লাম। বেশ মজাক হইছে। ভূত নিয়ে ২২৯ পৃষ্ঠা লেখা যা তা কথা না।

দময়ন্তী এর ছবি

আরে না না গ্রন্থসমালোচনা প্রথম হবে কেন? আপনি অনেকদিন বাদে এলেন তাই৷ জাহেদ সরওয়ার নিয়মিত লেখেন৷ কনফু'ও মাঝেমাঝেই লেখে তো৷ আরিফ জেবতিকও লেখেন বেশ ব্যতিক্রমী ধরণের গ্রন্থালোচনা৷

বইটা পুরোটাই ভূত নিয়ে নয়৷ "সেকালের কথা' ও আরও কিছু টুকরোটাকরা লেখা আছে৷

আপনাকে ধন্যবাদ৷ হাসি
---------------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

শুরুতে আমিও ধরতে পারিনি যে এটা বুক রিভিউ। দারুণ লাগল পড়তে। খুব মজা করে লিখেছেন হাসি

দময়ন্তী এর ছবি

ধন্যবাদ৷ হাসি
বানান্ভুল ধরলেন না যে?
-----------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

দেঁতো হাসি

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

এক্সিলেন্ট বুক রিভিউ !!

তবে এই ভূতের পেছনে ব্যাগার কত খাটসি বাল্যকালে, ভাবলেই ভালা লাগে...
---------------------------------------------------------------------------
- আমি ভালোবাসি মেঘ। যে মেঘেরা উড়ে যায় এই ওখানে- ওই সেখানে।সত্যি, কী বিস্ময়কর ওই মেঘদল !!!

দময়ন্তী এর ছবি

থ্যাংকিউ থ্যাংকিউ হাসি
হাহাহা হো হো হো
----------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

এনকিদু এর ছবি

দাঁত কি আসলে ঝুলে থাকে ? বেরিয়ে থাকে বললে ঠিক হতনা ?


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...


অনেক দূরে যাব
যেখানে আকাশ লাল, মাটিটা ধূসর নীল ...

দময়ন্তী এর ছবি

হ্যাঁ "বেরিয়ে থাকে' বললেই ঠিক হত৷
-------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

মূলত পাঠক এর ছবি

চমৎকার লাগলো গ্রন্থ সমালোচনার এই ধরনটা। মন্তব্য করতে অনেক দেরি হলো, দুঃখিত।

দময়ন্তী এর ছবি

আহা আবার "দু:খিত' হবার কি হল? পড়েছেন ব্যাস৷

ধন্যবাদ৷
------------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

সমুদ্র এর ছবি

মজা পেলাম। কদিন আগে ভূমিকম্পে রাত্রি দ্বিপ্রহরে যখন খাট কেঁপে উঠলো, ঘুম ভেঙ্গে প্রথম যে কথাটা মাথায় এসেছিলো - "নিশ্চয়ই খাটের তলায় ভূত ঢুকছে!!"

হাতের কাছে বইটা থাকলে আরো মজা লাগতো মন খারাপ

"Life happens while we are busy planning it"

দময়ন্তী এর ছবি

দেঁতো হাসি
আমার এক বন্ধু বলে, এখনও নাকি আলো নিভিয়ে খাটে উঠতে ওর ভয় করে, যদি ভূতে পা টেনে ধরে খাটের তলা থেকে৷

ধন্যবাদ সমুদ্র৷ আপনার নিকটা ভারী সুন্দর৷
------------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

অতিথি লেখক এর ছবি

ভূত সমাচার ভাল লাগলো।
কিন্তু প্রশ্ন জাগে মনে
ভূতেরা এসব পড়ছে তো?
না পড়লে কোনো ক্ষতি আছে বলে মনে হয় না।
কিন্তু উল্টটা হলে ???

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন

দময়ন্তী এর ছবি

আহা ভূতেরা পড়লে তো ভালই বিশ্বজিতবাবু৷ ভুলচুক থাকলে ঠিক করে দিতে পারবে৷ তবে লেখক তো আর বেঁচে নেই, এই যা মুশকিল৷

ধন্যবাদ৷
-------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

মজা পেলুম দিদিভাই। হাসি
___________
স্বাক্ষর?!
মাঝেসাঝে বুঝতে পাই- আমি
নিরক্ষর!

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

দময়ন্তী এর ছবি

খুশী হলাম ভাইটি৷ হাসি

কিন্তু "পেলুম'?? এমন হালুম হুলুম ক্যানে?
------------------------------------------
"নিভন্ত এই চুল্লিতে মা
একটু আগুন দে
আরেকটু কাল বেঁচেই থাকি
বাঁচার আনন্দে৷'

-----------------------------------------------------
"চিলেকোঠার দরজা ভাঙা, পাল্লা উধাও
রোদ ঢুকেছে চোরের মত, গঞ্জনা দাও'

সাইফুল আকবর খান এর ছবি

এমনিই লিখলুম আরকি! চোখ টিপি
___________
স্বাক্ষর?!
মাঝেসাঝে বুঝতে পাই- আমি
নিরক্ষর!

___________
সবকিছু নিয়ে এখন সত্যিই বেশ ত্রিধা'য় আছি

সোনালী এর ছবি

অদ্ভুত !

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।