দেশবিদেশের উপকথা- সর্প রাজপুত্র (ফিরোজপুর)

তুলিরেখা এর ছবি
লিখেছেন তুলিরেখা (তারিখ: বুধ, ০৪/০৯/২০১৩ - ২:২৫পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এই উপকথা পাঞ্জাবের শতদ্রু নদের তীরবর্তী ফিরোজপুর অঞ্চলের।

এক দেশে ছিল এক গরীব বৃদ্ধা। তিনকুলে তার কেউ কোত্থাও ছিল না। এর বাড়ী ওর বাড়ী ধান ভেনে, মুড়ি ভেজে, ফসল তোলার মরশুমে জমিতে ঝরে পড়া শস্যমঞ্জরী কুড়িয়ে বা কারুর বাড়ীতে প্রয়োজন থাকলে ঠিকা কাজ করে দিয়ে কোনোক্রমে তার দিন গুজরান হতো। কোনোদিন দু'বেলা দু'মুঠো জুটতো, কোনোদিন বা একবেলা আধপেটা।

একদিন সকালে উঠে সে দেখলো ঘরে কোনো খাদ্যই নেই কয়েক মুঠো ছাতু ছাড়া। কী খেয়ে সে তাহলে বেরোয় কাজে? একেবারে উপোস থাকলে তো পারবে না কাজ করতে, আগের রাতেও বেচারির কিছু খাওয়া হয় নি। সে ভাবলো যাই পুকুর থেকে কলসী ভরে জল আনি, এই ছাতুটুকু জল দিয়ে মেখে কাঁচালঙ্কা দিয়ে খেয়ে কাজে বেরোই।

যা ভাবা সেই কাজ, সে কলসী নিয়ে পুকুরে গেল। কলসী ভরে জল তুলে পাড়ে তুলে রেখে সে ভাবলো পুকুরে যখন এসেইছি, স্নান করেই যাই। এই ভেবে সে পুকুরে নেমে ভালো করে ডুব দিয়ে স্নান করে নিল। তারপরে উঠে ভিজা কাপড় নিংড়ে, আঁচলে মাথা মুছে যেই না কলসী তুলতে গেছে, শোনে "ফোঁস ফোঁস ফোঁস"। কী সর্বনাশ! কলসীর ভিতরে ফোঁস করে কে?

ঢাকনা একটু তুলে সে দেখলো ভেতরে ইয়া বড়ো একটা সাপ কুন্ডলী করে আছে।

সে ভাবলো- কপালে এই ছিল? জল তুলে রাখলাম কলসী ভরে, সাপ হয়ে গেল? যাই হোক, সাপই বাড়ী নিয়ে যাই, আমাকে যদি কামড়ায় তবে আমার ভবজ্বালা একেবারেই ঘুচবে, বাঁচবো। দিনের পর দিন আধপেটা খেয়ে বা না খেয়ে এই উঞ্ছবৃত্তি আর ভালো লাগে না।

তাই হলো, কলসীতে সাপ নিয়ে সে ফিরে এলো কুটিরে। কুটিরের দাওয়াতে কলসী রেখে সে ভিজা কাপড় পাল্টে শুকনা কাপড় পরে ভিজা কাপড় বেড়ায় মেলে এলো। তারপরে কলসীর ঢাকনা খুললো।

খুলে দ্যাখে---এ কী কান্ড? সাপ তো না, ভিতরে যে এক সাতলহরী হার! সেই হারের শত শত রত্নমাণিক্যের ছটায় চোখ ধাঁধিয়ে গেল তার।

সে ভাবলো ঠাকুর তবে এই অভাগীর দিকে চোখ তুলে চাইলেন? এই বহুমূল্য রত্নহার রাজার কাছে নিয়ে যাই।

কালবিলম্ব না করে কলসীতে ঢাকনা চাপা দিয়ে সে সাতলহরী হার সমেত কলসী নিয়ে চললো রাজার কাছে। রাজা এই অপূর্ব হার বহু অর্থমূল্যে কিনে নিলেন বৃদ্ধার কাছ থেকে। বৃদ্ধার সব দুঃখ ঘুচে গেল।

রাজা হারখানি রানীকে নিয়ে দিলেন, বললেন, "দ্যাখো রানি, কিছুদিন পরেই পাশের রাজ্যে আমাদের নিমন্ত্রণ সেই রাজ্যের রাজার কন্যার অন্নপ্রাশনে। সেইদিন তুমি এই হারখানি পরে যদি আমার সঙ্গে চলো, তাহলে চমৎকার হবে। এমন হার কেউ কখনো দ্যাখে নি, এইসব রত্নমাণিক্যের বুঝি দুনিয়ায় জুড়ি নেই। "

রানী তো আনন্দে ডগোমগো। তাড়াতাড়ি হারখানি নিয়ে যত্ন করে গয়নার বাক্সে রাখলেন। কিন্তু এই হার পরে নেমন্তন্নে যাওয়া তাঁর আর হলো না।

পরদিন গয়নাপত্র গুছিয়ে রাখবেন বলে রাণী যেই না গয়নার বাক্স খুলেছেন, অ মা এ কী কান্ড! বাক্স থেকে হামা দিয়ে বেরিয়ে এলো ফুটফুটে এক বাচ্চা ছেলে। প্রায় বছরখানেক বয়সের। ফোকলা দাঁতে ফিক করে হাসলো রাণীর দিকে ঝিকিমিকি চোখ মেলে চেয়ে।

এই রাজা ও রাণীর বিবাহ হয়েছিল বেশ অনেক বছর, কিন্তু এঁদের কোনো সন্তান ছিল না। বহু ঠাকুরদেবতার থানে হত্যা দিয়ে, বহু পুণ্যস্থানে প্রার্থনা করে, পুণ্য বৃক্ষে সূত্রবন্ধন করে, সাধুসন্ন্যাসীর আশীর্বাদ নিয়েও কিছুতেই কিছু হয় নি। তাই এঁদের মনে ভারী দুঃখ ছিল এতকাল।

এখন অপ্রত্যাশিতভাবে এই ছেলেকে পেয়ে রাজা রাণী তাকে পুত্র হিসাবে মানুষ করতে লাগলেন। চারিদিকে প্রচার হয়ে গেল রাজপুত্রের আসন্ন অন্নপ্রাশনের খবর।

পাশের যেই রাজ্যের রাজকন্যার অন্নপ্রাশনে এঁদের নিমন্ত্রণ ছিল, সেখানে যাওয়া হলো না, উপরন্তু এঁরাই সে রাজ্যের রাজারাণীকে পরিজনসমেত নিমন্ত্রণ করে পাঠালেন এঁদের পুত্রের মুখেভাতে।

চারিদিকে রাজপুত্রের খবর ছড়িয়ে পড়লো বটে সঙ্গে সঙ্গে কানাঘুষো ও ছড়িয়ে পড়লো, কারণ ব্যাপার যে খুবই রহস্যময়! কবে জন্মালো রাজপুত্র? কবেই বা এতখানি বড় হয়ে গেল যে তার অন্নপ্রাশন কাছিয়ে এলো?

যাই হোক বিরাট অনুষ্ঠান করে রাজপুত্রের অন্নপ্রাশনের অনুষ্ঠান হলো। পাশের রাজ্যের রাজা, রাণী, ছোট্টো রাজকন্যা আর তাদের পরিজনেরা সবাই নিমন্ত্রণ খেতে এলেন।

ফুটফুটে সুন্দর রাজপুত্রটির সঙ্গে নিজের কন্যার বিবাহ দেবার জন্য পাশের রাজ্যের রাজারাণী সেখানেই আর্জি জানিয়ে রাখলেন। এই রাজপুত্রের পিতামাতাও আহ্লাদের সঙ্গে রাজি হলেন। এই পুত্রটি আর কন্যাটি বড় হলে এদের বিবাহবন্ধনের জন্য দুইজোড়া পিতামাতাই কড়ার করে রাখলেন।

তারপরে দিন যায়, দেখতে দেখতে পাশাপাশি রাজ্যে বড় হয়ে ওঠে ছেলেমেয়েদুটি। মাঝে মাঝে বেড়াতে গেলে দেখা-সাক্ষাৎ হয়, একসাথে খেলাধূলাও করে তারা। বড় হলে তাদের বিবাহ হবে, এও তারা জানে।

যৌবনপ্রাপ্তির পরেই তাদের বিবাহ হয়ে গেল মহাধূমধামে। পিতৃগৃহ ছেড়ে পতিগৃহে আসার আগে কন্যাকে তার মা বলে দিলেন, প্রথম সুযোগেই যেন সে স্বামীর কাছে জেনে নেয় স্বামীর জন্মের রহস্যটা ঠিক কী। সে কি সত্যি এই রাজারাণীর পুত্র নাকি দত্তকপুত্র নাকি অন্য কোনো রহস্য আছে তার পরিচয়ে?

(আগামী পর্বে বাকীটুকু)


মন্তব্য

সত্যপীর এর ছবি

সাপ টু সাতলহরী হার টু গ্যাদা বাচ্চা. পরের পর্বে কনভার্ট হয়া আলু না সিন্দুক কি হয় দেখার লিগা পপ্পন নিয়া জুইত হয়া বসলাম পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

..................................................................
#Banshibir.

তুলিরেখা এর ছবি

ঠিকই কইছেন। কেবল কনভার্ট হইয়া হইয়াই দিন গেল। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

কৌস্তুভ এর ছবি

আম্মো তো তাই বলি, কনভার্টের ইনফিনিট লুপে পড়ে গেছে দেখা যায়!

তুলিরেখা এর ছবি

তাও তো এতক্ষণ সব উইন-উইন কনভার্ট হওয়া চলছে, সাতলহরী হয়ে বুড়ীর দুরবস্থা ঘুচালো, কচি বাচ্চা সেজে সন্তানহীন রাজারাণীকে সন্তান পাইয়ে দিল- এর পরে শুরু হবে উল্টাপ্যাঁচ-----এইরে বলে ফেলেছিলাম আরকি। খাইছে

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

কৌস্তুভ এর ছবি

খাইছে

 মেঘলা মানুষ এর ছবি

আমিও রওনা দিলাম কলসি নিয়া পানি আনতে। হার কে কিনবেন? বা, কারো বাচ্চাকাচ্চা দরকার থাকলে আওয়াজ দেন। দেঁতো হাসি

তুলিরেখা এর ছবি

পুকুরে গিয়া কী পাইলেন ? হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

অতিথি লেখক এর ছবি

ওরে ব্বাস রে! এ যে বদলের ঘনঘটা! পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।
- একলহমা

তুলিরেখা এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-
পরের পর্বেও অনেক ঘটনা! হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

অতিথি লেখক এর ছবি

পরের পর্ব তাড়াতাড়ি দেন পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম , মেয়েকে আরেকটা নতুন গল্প শোনাতে হবে।
ইসরাত

তুলিরেখা এর ছবি

হ্যাঁ, পরের পর্ব আসিতেছে। হাসি
আগের গল্পগুলো শুনে আপনার মেয়ে কী বললো?

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

অতিথি লেখক এর ছবি

আমার মেয়ে আপনার গল্প খুব পছন্দ করে, আমার খাওয়াতে বেশ সুবিধা হয় দেঁতো হাসি
ইসরাত

তুলিরেখা এর ছবি

গল্প শোনাতে শোনাতে অন্যমনস্ক করে টপাটপ খাইয়ে দেন? হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

সুবোধ অবোধ  এর ছবি

সার্কেল নাকি??? রাজকন্যার গর্ভে আবার সাপ হবে নাকি????!!! খাইছে

তুলিরেখা এর ছবি

রহু ধৈর্যং হুঁ হুঁ রহু ধৈর্যং হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

অতিথি লেখক এর ছবি

ইন্টারেষ্টিং! কিন্তু আপু, আপনি যে প্রতিটি উপকথা দ্বিতীয় পর্বে শেষ করছেন এটা কি ঠিক, সাসপেনশনে রেখে আপনার লাভ কি? যদি হার্টের কিছু হয়------------আপনার কিন্তু খবর আছে বইলা রাখলাম শয়তানী হাসি

-নিয়াজ

তুলিরেখা এর ছবি

আহা, রিল্যাক্স। হাসি এর জন্যে এত হার্ট টার্ট উদ্বিঘ্ন করেন ক্যানো? আসলে কোনো গল্পই তো শেষ হয় না। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

অতিথি লেখক এর ছবি

ভাল লাগছে সাথে কৌতুহুল হচ্ছে বটে।
আগামী পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।

রঙধনু

তুলিরেখা এর ছবি

আগামী পর্ব শীঘ্রই আসিতেছে। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

বন্দনা এর ছবি

আহা গল্পের লেজ পরের পর্বে না গেলে চলতো না তুলিদি। বেশ তো হরহরিয়ে চলছিল।

তুলিরেখা এর ছবি

সেইজন্যেই তো এইখানে ব্রেক দিলাম। দেঁতো হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

প্রোফেসর হিজিবিজবিজ এর ছবি

যথারীতি ----
যেমন বলেছিলাম তেমনই - শেষে এসে দেখলাম আগামী পর্বে সমাপ্য, তাই পড়লাম না। দুই পর্ব একসাথে পড়বো।
অট: আপনার গত গল্পটা আমার ছেলে বেশ পছন্দ করেছে।

তুলিরেখা এর ছবি

আচ্ছা, পুরাটা একসাথে পইড়েন। হাসি
অট: আপনার ছেলেকে বলবেন আন্টি অনেক আদর জানিয়েছে। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

ধুর, সবাই খালি চা খাইতে যায় ওঁয়া ওঁয়া

পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

তুলিরেখা এর ছবি

আমি কিন্তু আজ চা খাচ্ছি না, খাস্তা কচুরি দিয়ে নাস্তা করছি। হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

প্রৌঢ় ভাবনা এর ছবি

পড়ছি। ভাল লাগছে। পরের পর্বের অপেক্ষায় পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

তুলিরেখা এর ছবি

আপনারে অসংখ্য -ধইন্যাপাতা-

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

নীড় সন্ধানী এর ছবি

এরকম জায়গায় এসে আগামীপর্বের জন্য রেখে দেয়াটা খুব অন্যায় মন খারাপ

এটা কি ফিরোজপুর নাকি আমাদের পিরোজপুর?

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

তুলিরেখা এর ছবি

এই গল্পটা পাঞ্জাবের ফিরোজপুরেরই বলছে বটে, কিন্তু পিরোজপুরের হলেও অবাক হতাম না। আমাদের এদিকের উপকথায় বা পাঁচালিতেও এই ধরনের গল্প বেশ অনেক পাওয়া যায়।

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

অতিথি লেখক এর ছবি

মনের লাগাম টেনে গত ৩ দিন পার করেছি। আজ যখন দেখলাম ২য় পর্ব এসেছে, তখন প্রথম শেষ হলো।
একবারেই জানাই দিদি যে কেমন লেগেছে।
ওকে?

-------------------------------
কামরুজ্জামান পলাশ

তুলিরেখা এর ছবি

৩ দিন লাগাম টেনে রইলেন? হাসি

-----------------------------------------------
কোন্‌ দূর নক্ষত্রের চোখের বিস্ময়
তাহার মানুষ-চোখে ছবি দেখে
একা জেগে রয় -

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।