সচলস্য গল্পঃ মডু নির্বাচন

রেনেট এর ছবি
লিখেছেন রেনেট (তারিখ: বিষ্যুদ, ০৪/০৯/২০০৮ - ২:৫২পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

এক

জনা পঞ্চাশেক সচল জমা হয়েছে বস্তিবাসী লীলেন ভাইয়ের বস্তিতে। লীলেন ভাইয়ের মধ্যে মেহমানদারি করার কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।আমরা যারা বাঙালি টাইম না মেনে ঠিক টাইমে চলে এসেছি, তারা সেই কোন সন্ধ্যা থেকে বারবার লীলেন ভাইয়ের রান্না ঘরের দিকে তাকাচ্ছি, ভাবছি, এই বুঝি কিছু একটা এল, তা, সে আশায় গুড়েবালি।

অবশেষে পরিবর্তনশীল আর না থাকতে পেরে লীলেনদার কাছে গিয়ে লজ্জার মাথা খেয়ে বলল, লীলেনদা, ঘরে চা নাস্তা কিছু নাই? রেনেট ভাইয়ের না ক্ষিধা লাগছে।

দেখলেন কান্ডটা? ক্ষুধা লাগল পরিবর্তনশীলের, জিগাইতে গেলও ও, আর গিয়া কিনা ঠাশ করে আমার নাম বলে বসল! সাধে কি আর এই ছোকড়ার নাম পরিবর্তনশীল? কখন কেম্নে কি পরিবর্তন করে ফেলে, কোন ঠিক নাই।

লীলেন ভাই জবাবে কিছু বললেন না। চোখ থেকে কালো চশমাটা একটু নামিয়ে বিরক্ত হয়ে আমার দিকে এমনভাবে তাকালেন, যেন ক্ষুধা লাগাটা কোন গুরুতর অপরাধ।

তা, আমি তো আগে থেকেই জানতাম, লীলেন ভাই রাত ১০ টার আগে কিছু খাওয়াবেন না। সেই জন্যই আমি লীলেন ভাইয়ের বাসায় আসার আগে আগে বুদ্ধি করে এক চোট খেয়ে এসেছিলাম। অবশ্য পরিবর্তনশীলের জন্য মায়া হচ্ছে। বেচারা ক্লাস শেষ করে সোজা চলে এসেছে, বিড়ি ছাড়া গত ৫ ঘন্টায় কিছু খায় নি। তা, আমার নামটা এভাবে না ফাসালে আমি হয়তো ওকে নীচে নিয়ে গিয়ে কিছু খাইয়ে নিয়ে আসতাম। নে, এবার লীলেন ভাইয়ের পিছনে পিছনে ঘুর।

দুই

জনগনের সময়জ্ঞান বলতে কিছুই নাই। মিটিংযের টাইম ছিল সন্ধ্যা ৬ টা, এখন প্রায় ৮ টা বাজে, এখনো অর্ধেক মানুষই আসে নাই। রায়হান ভাই সেই কখন থেকে রোলকলের খাতা নিয়া ঘুরাঘুরি করতেসে, এখনো নাম ডাকার সুযোগ পাইতেসে না।ভাগ্য ভালো আমি ল্যাপ্টপ নিয়ে আসছিলাম, এক কোণায় বসে আমি সিং ইজ কিং দেখা শুরু করলাম। অমিত ভাই আজকেই একটা পোস্ট দিল মুভিটা দেখার উপর গুরুত্ব আরোপ করে। আমি অবশ্য হিন্দি সিনেমা খুব একটা দেখি না, তারপরও, অমিত ভাই যেহেতু বলছে, সিনেমাটা নিশ্চয়ই ভালো হবে।

ক্যাটরিনা কাইফ এসে মাত্র একটু নাচা গানা শুরু করল, এমন সময় বলা নেই কওয়া নেই, ধূগো ভাই কোত্থেকে এসে যেন হাউকাউ শুরু করে দিল...আরে এগুলা কি দেখ? না, তোমরা আর মানুষ হইলা না। দেখতেই যদি হয়, বিদেশী মেয়ে দেখ ক্যান? আমাদের মিলা কি কম নাচা গানা পারে? লাগাও মিয়া মিলার গান।

অতঃপর আমার ল্যাপটপে পরবর্তী আধা ঘন্টা মিলার গান চলতে থাকল। হাজার দর্শক মন মজাইয়া...নাচে গো সুন্দরী কমলা...

ধূগো দা কে গানের ফাঁকে ফাঁকে তাল দিতে দেখা গেল।

কিন্তু একটু পরেই গিয়ানজাম শুরু হইল। কেউ বলে তিশমার গান দাও, কেউ বলে উহু...ফুয়াদ...ফুয়াদ। আবার কেউ বলে, বটে? এখন হবে রবীন্দ্র সঙ্গীত। এই গিয়ানজাম কোথায় গিয়ে থামত বলা মুশকিল, কিন্তু লীলেন ভাই সবাইকে থামালেন...এই...সবাই চুপ!আমাদের সব সচল এসে গেছে। এখন গানা বাজনা বন্ধ।মিটিং শুরু। রায়হান কোথায়? রোলকলের খাতাটা আনো...যারা সাড়ে আটটার পরে আসছে, তারা আজকে ভোট দিতে পারবে না...

এই যা, আমাদের একত্রিত হওয়ার কারণটাই তো বলা হয়নি। আজকে সচলের মডু নির্বাচন।

তিন

মিটিংযের প্রথমে বিদায়ী মডুরা এক এক করে বিগত এক বছরে তাদের সাফল্যের কথা সবাইকে স্মরণ করিয়ে দিতে লাগলেন, এবং আবারো মনোনীত হলে কি কি করবেন তার ফিরিস্তি দিতে লাগলেন।
ধূগোদাকে অনেকক্ষণ ধরে বেশ উসখুস করতে দেখা যাচ্ছিল। অবশেষে হিমু ভাই যখন ১২ মিনিট লেকচার দিয়ে ১৩ মিনিটে পা বাড়াচ্ছেন, তখন ধুগো ভাই আর থাকতে না পেরে চিতকার করে উঠলেন...চাপাবাজি থামা কইলাম এখনই...

আরো কিছু বের হতে যাচ্ছিল ধূগো ভাইয়ের মুখ থেকে, কিন্তু আশে পাশের বুদ্ধিমান সচলরা পরিস্থিতি আঁচ করতে পেরে ধূগোদার মুখ জাপটে ধরলেন।

বদ্দা বললেন, ধূগো, বাচ্চা পোলাপানদের মত কর ক্যান? সবারই বলার সুযোগ আসবে। সুযোগের জন্য অপেক্ষা করতে হবে, বুঝতে হবে, বুঝে ইজি থাকতে হবে।

ধূগো ভাই বলে উঠলেন, আরে রাখেন আপনার ইজি। অনেক সহ্য করছি মিয়াভাই হিমুর দিগদারী, আর না। এখন আমি কিছু কইতাম চাই। সুযোগ চাই, দেতে হবে।

পিছন থেকে স্বপ্নাহত, রায়হান আর পরিবর্তনশীল “ধূগোদা” "ধুগোদা” বলে মৃদু স্লোগান তুলল। ধূগোদা একটু প্রশংসার দৃষ্টিতে তাকালেন তার শিষ্যত্রয়ের দিকে, তারপর হাত নেড়ে সবাইকে থামতে বললেন, তারপর গলা খাকরি দিয়ে শুরু করলেন “ জাতি আজ ভয়াবহ সমস্যার সম্মুক্ষীণ...বাংলার আকাশে আজ দুর্যোগের ঘনঘটা...

দ্রোহী ভাই বলে উঠলেন, আরে এইসব প্যাচাল রাখো, আসল পয়েন্টে আসো। ধূগোদা একটু আহত হয়ে দ্রোহী ভাইয়ের দিকে তাকালেন, কিন্তু কিছু বলতে সাহস করলেন না, হাজার হোক, দ্রোহী ভাই ওনার হইলেও হইতে পারে ভায়রা ভাই। ওনাকে এখন না ঘাটালেই ভালো।

ধুগোদা আবার শুরু করলেন “হ্যা, যা বলছিলাম...এই মানষরূপী শয়তান হিমুকে যারা এখনো চিনতে পারেন নাই, তারা এখনো দুধের শিশু। বললে তো খালি বলবেন চাচায় কয়...কিন্ত আমি আপনাদের সবার ভালোর জন্যই হুশিয়ার করে দিচ্চি...খুব খিয়াল কইরা...
হিমুর পেটে কত জিলাপীর প্যাচ আপনারা তো জানেন না...

গত কয়েক মাসের সচল জরিপের দিকে নজর দেন...প্রথমে সবার কাছে ইন্টারভিউর নাম কইরা সবার ফুন নাম্বার নিল, তারপর বেশ কিছুদিন কোন সাড়া শব্দ করে নাই। তারপর এখন আবার জিগায় আপনারা কোন বয়স শ্রেনীর অন্তর্ভূক্ত? আপনারা না বুঝলে কি হইবো? আমি ঠিকই বুঝছি। এখন ওর কাছে সবার ফুন নাম্বার আছে, সাথে বয়স ও আছে। আপনারা বুঝতে না পারলেও আমি ঠিকই আন্দাজ করতে পারতেসি, নেক্সট জরিপ হইব, আপনার ওজন কত? মনে নাই, হিমু একটা পোস্ট দিসিল কত কেজি ওজনের কত বয়সের মেয়ে চায় এই বইলা?

আবার ধরেন, হিমু ২ দিন পর পরই গানের পোস্ট দেয়। ক্যান দেয়? পাত্র হিসাবে যে ও কতটা গুণবাণ, এটা দেখানোর জন্য। আর কাউরে দেখছেন রাইটার্স কমিউনিটিতে গান দিতে? আপনাদের ধারণাই নাই, হিমু ব্যাটা কত চালাক...”

হিমু ভাই বলে উঠলেন, “মাননীয় ধুগো, আপনার সময় শেষ হয়ে আসছে, যা বলার তাড়াতাড়ি বলুন, আপনার হাতে আর এক মিনিট সময় আছে”

ধুগো ভাই বলে উঠলেন, “তুই চুপ থাক! তোর তাড়া থাকলে তুই যা গা। আমি সারারাত লেকচার দিমু... সাথে সাথে তিন জোড়া হাতের হাততালি শোনা গেল। হিমু ভাই চুপ করে গেলেন।

ধুগো ভাই আবার শুরু করলেন, “এখানেই শেষ না জনগণ...হিমু এখন চুপি চুপি ফেয়ার এন্ড লাভলী কিনে...এত জীবন যে কোন ক্রীমই মাখল না, সে হঠাত ফেয়ার এন্ড লাভলী মাখে ক্যান? আমার তো ঘোরতর সন্দেহ হইতেসে, পরবর্তী সচল জরিপ হইব “রঙ ফর্সাকারী ক্রিম হিসাবে কোন ক্রিম বেশি কার্যকরী?”

এমতাবস্থায় হিমু ভাই আর চুপ করে বসে থাকতে পারলেন না। তবে রে শয়তানী বলে ধুগোদার দিকে তেড়ে আসতে লাগলেন।

লীলেন ভাই টেবিলে চাপড় মেরে অর্ডার অর্ডার বলতে লাগলেন।

আকতার ভাই পাশ থেকে আমাকে খোঁচা দিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, “অ রেনেট ভাই, লীলেন ভাই কি খাবারের অর্ডার দেয় নিকি?”

আমি ও পুরোপুরি নিশ্চিত না। লীলেন ভাইকে একটা মুমুয়িত প্রশ্ন করব কিনা চিন্তা করতেছি, তখন মুমু পাশ থেকে ঝারি লাগালো “খবরদার রেনেট!! কোন মুমুয়িত প্রশ্ন করতে পারবা না। সারাক্ষণ এত খাই খাই কর কেন? দেখ না, আমি সেই কোন সকালে একটা আপেল আর এক গ্লাস দুধ খেয়েছি আর রাতে শুধু আধা প্লেট সালাদ খাবো। আমি তো কিছু বলছি না? সময় থাকতে স্বাস্থ্য সচেতন হও, বুঝলা? ”

মুমুর ঝারি শুনে আমি আর খাওয়া নিয়ে কোন প্রশ্নই করতে সাহস পেলাম না। মুমুয়িত প্রশ্ন তো দূরের কথা।

চার

যা হোক, এখন বক্তৃতা করছেন একজন অতিথি লেখক। অতিথি লেখকরা কিরকম বঞ্চনার শিকার, অতিথি লেখক কেউ মডারেটর হলে কি কি সুবিধা হবে ইতাদি বলে চলেছেন।

আমার তখন ক্ষুধার চোটে মাথা দিয়ে আর কিছুই ঢুকছে না। দুনিয়ার যত খাবার দাবারের কথা একযোগে মনে পড়ে যাচ্ছে। আমি আকতার ভাই, মৃদুল ভাই, শিমুল আপা, সন্ন্যাসী ভাই সবাইকে নিয়ে বুদ্ধি করলাম, মডু যে ইচ্ছা সে হোক, আমাদের কিছু যায় আসে না। এখন আমাদের জরুরী ভিত্তিতে খাবার দরকার, নাহলে যেকোন মুহুর্তে মঙ্গা আন্দোলন শুরু হয়ে যাবে। আর মডু নির্বাচন শেষ না হওয়া পর্যন্ত খাওয়া দাওয়া হওয়ার কোন নাম গন্ধ দেখা যাচ্ছে না।

সন্ন্যাসী ভাই বললেন, এক কাজ করলে কেমন হয়? চলেন আমরা সবাই মিলে অতিথি লেখককে মডু বানিয়ে দেই। আমাদের যাদের ক্ষিধা লাগছে, তারা সবাই যদি ভোট দেই, তাহলে অতিথির মডু হওয়া কোন ব্যাপার না।

আমরা সবাই এক যোগে মাথা নাড়ালাম। সন্ন্যাসী ভাই একটু গলা খাকড়ি দিয়ে উঠলেন, বললেন, “আমি কিছু বলতে চাই।”

সবাই চুপ হয়ে গেল। সন্ন্যাসী ভাই আবার শুরু করলেন, “আমার মনে হয়, সচলায়তনে সবচেয়ে কমিটেড লেখক হচ্ছে অতিথি লেখক। নিয়মিত সচলরা মন চাইলে লিখেন, মন না চাইলে লিখেন না, কিন্তু অতিথি লেখকরা রাত দিন শুধু লিখেই যান। কি, ঠিক কিনা?”

সবাই মাথা নাড়ালো, হ্যাঁ, তা ঠিক।

সন্ন্যাসী ভাই আবার বললেন, “ আবার ধরেন, অতিথিদের সচল করার পরই অনেককে আর খুঁজে পাওয়া যায় না। তার মানে কি? অতিথি অবস্থাই একজন লেখকের স্বর্ণকাল। অতএব, একমাত্র অতিথি লেখকই পারবেন মডু দায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করতে। আর অতিথি লেখকদের মডু বানানো হলে ‘সচল হতে চাই’ আন্দোলনের ও অবসান ঘটবে, সচলায়তনে সৌহার্দ্যপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করবে।

কি বলেন?”

সবাইকে মোটামুটি কনভিন্সড মনে হল।

সন্ন্যাসী ভাই বলে চললেন, “ অতিথি লেখকের মডু হওয়ার পক্ষে কে কে আছেন হাত তুলেন”

আমরা তো হাত অর্ধেক তুলে বসেই ছিলাম। সন্ন্যাসী ভাই বলে শেষ করার আগেই আমাদের হাত উঠে গেল। এর মধ্যে মৃদুলদা আবার আরেক কাঠি সরেস। উনি সন্ন্যসী ভাইয়ের বক্তৃতার সময়ই মোট ভোটার, অতিথির পক্ষে সাম্ভাব্য ভোটার গুণে বসেছিলেন।

অতএব, আমরা হাত তুলতে না তুলতেই মৃদুলদা বলে উঠলেন, মোট ভোটার ৮০ জন, অতিথির পক্ষে ৫৩ জন, অতএব অতিথি জয়যুক্ত হয়েছে, জয়যুক্ত হয়েছে, জয়যুক্ত হয়েছে......লীলেন ভাই, খাওয়া লাগান।”

আমি হাবলার মত এতক্ষণ মৃদুল ভাইয়ের কথা শুনছিলাম। মৃদুল ভাইয়ের কথা শেষ হতে না হতেই ঘাড় ঘুড়িয়ে তাকিয়ে দেখি আমার পাশে আকতার ভাই, শিমুল আপা, রায়হান ভাই, স্বপ্নাহত, পরিবর্তনশীল এগুলা কেউ নাই...সবাই বাথরুমের সামনে হাত ধোওয়ার লাইনে দাঁড়িয়ে গেছে।


মন্তব্য

প্রকৃতিপ্রেমিক এর ছবি

ভাই আপনিতো আসলেই বেশ রসিক।

রেনেট এর ছবি

হেঃ হেঃ তাই নাকি? লইজ্জা লাগে
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

রায়হান আবীর এর ছবি

সেই রকম মজা হৈছে। তয় আমার এখন আসলেই খিদা লাগছে। এখন যাই, সেহেরি খাইয়া ঘুম পাড়ি। কালকে কমেন্টের বন্যা বহায় দিমু এই পোস্টে।

=============================
তু লাল পাহাড়ীর দেশে যা!
রাঙ্গা মাটির দেশে যা!
ইতাক তুরে মানাইছে না গ!
ইক্কেবারে মানাইসে না গ!

রেনেট এর ছবি

বন্যা না হইলে কইলাম খবরাছে!
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

লীলেন্দা তো সভায় ছিলো না... আমি,লিলেন্দা আর ফারুক ওয়াসিফ ছিলাম সাকুরায়... আমাদের অনুপস্থিতিতে এইসব?
মানি না মানবো না...
বিপ্লব স্পন্দিত বুকে মনে হয় আমিই মডু...
______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

রেনেট এর ছবি

অতিথি লেখকের নাম তো প্রকাশ করা হয় নাই। শালি টালি থাকলে বলেন...
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

কিংকর্তব্যবিমূঢ় এর ছবি

জটিল দেঁতো হাসি
................................................................................
objects in the rear view mirror may appear closer than they are ...

রেনেট এর ছবি

থ্যাঙ্কু কিঙ্কু দেঁতো হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

হিমু এর ছবি

এইভাবে আমার গোপন বাতেনি পিলান সব জাহেরি হলে কেম্নে হবে? রেনেটকে সচলের কালা কানুন নং ২১, ধারা ক এর ৩.১ উপধারা বলে আগামী তিন সপ্তাহের জন্য মডারেটর বানানোর জন্য স্বৈরাচারী ফ্যাসিস্ট সচল কর্তৃপক্ষের কাছে তীব্র দাবি জানাচ্ছি।

(ওজনের ব্যাপারটা ফাঁস হইয়া গেলো, নতুন কী জরিপ করা যায়, ভাবতেসি। কোমরের মাপ নেয়া কি ঠিক হবে?)


হাঁটুপানির জলদস্যু

রেনেট এর ছবি

সময় থাকতে তো আপনারে বলছিলাম, সমঝোতায় আসেন, আসলেন নাতো!!
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

হিমু এর ছবি

কূটনৈতিক তৎপরতা চালানো উচিত ছিলো তোমার। এখন তো আমছালা সবই গ্যালো মন খারাপ


হাঁটুপানির জলদস্যু

রেনেট এর ছবি

ঘন ঘন সচলায়তনে আসার সাথে আপনার পাত্রী খোঁজার সম্পর্ক কি? চিন্তিত
(তথ্যসূত্রঃ সাম্প্রতিক জরিপ)
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

হিমু এর ছবি

সাম্প্রতিক জরিপের সাথে আমার সম্পর্ক কী?
(তথ্যসূত্রঃ তোমার কমেন্ট)


হাঁটুপানির জলদস্যু

মুশফিকা মুমু এর ছবি

সচলের জরিপের সাথে হিমু ভাইয়ের সম্পর্ক আছে।
(তথ্যসূত্রঃ রেনেটের লেখা)
------------------------------
পুষ্পবনে পুষ্প নাহি আছে অন্তরে ‍‍

------------------------------
পুষ্পবনে পুষ্প নাহি আছে অন্তরে ‍‍

রেনেট এর ছবি

সাম্প্রতিক জরিপের সাথে হিমু ভাইয়ের নিবিড় সম্পর্ক আছে।
(তথ্যসূত্রঃ গল্পে ধূগোদার জবানবন্দী)
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

ধুসর গোধূলি এর ছবি
রাফি এর ছবি

রেনেট ভাই আমার মনে হয় সম্ভাব্য পাত্রী কত ঘন ঘন হিমু ভাইয়ের খোঁজে সচলে হানা দেয় তা জানতেই এই তথাকথিত ফ্রিকোয়েন্সীর জরিপ।
জনগণ কী বলে?

---------------------------------------
আমি সব দেবতারে ছেড়ে
আমার প্রাণের কাছে চলে আসি,
বলি আমি এই হৃদয়েরে;
সে কেন জলের মতন ঘুরে ঘুরে একা কথা কয়!

---------------------------------------
আমি সব দেবতারে ছেড়ে
আমার প্রাণের কাছে চলে আসি,
বলি আমি এই হৃদয়েরে;
সে কেন জলের মতন ঘুরে ঘুরে একা কথা কয়!

রেনেট এর ছবি

রাফি ভাইয়ের মাথায় তো বেসাংঘাতিক বুদ্ধি!!! চলুক
হিমু ভাই জবাব চাই শয়তানী হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

হিমু এর ছবি

আমি বুঝি না, এই জরিপের সুফল কি শুধু আমিই পাবো? রাফি আর রেনেটকে কি বখরা দেয়া হবে না? আসো, আমরা শান্তিচুক্তি করি। এইসব বাজে কথা ভুলে গিয়ে সামনের দিকে তাকাই। ভেদাভেদ দূরে রেখে অতীত ভুলে ভবিষ্যৎ গড়ায় মন দেই। (এই টাইপের আরো কী কী ডায়লোগ যেন ছিলো, মনে পড়তেসে না ... পড়লে এসে বলবো)


হাঁটুপানির জলদস্যু

সুমন চৌধুরী এর ছবি

পথের বাধা সরিয়ে দিন, মানুষকে এগুতে দিন।



অজ্ঞাতবাস

ধুসর গোধূলি এর ছবি
সাইফ তাহসিন এর ছবি

পুরা থ্রেডটা পড়ে পুরাই গড়াগড়ি দিয়া হাসি

=================================
বাংলাদেশই আমার ভূ-স্বর্গ, জননী জন্মভূমিশ্চ স্বর্গাদপি গরিয়সী

অনিকেত এর ছবি

হা হা হা---

দারুন হয়েছে বস

রেনেট এর ছবি

ধন্যবাদ অনিকেতদা! (আপনার পোস্ট পড়েই লেখাটা ত্বরান্বিত হল)
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

মুশফিকা মুমু এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি তারপর ওজন কত হাহাহাহা!!!
খুব মজার, দারুন লিখস গড়াগড়ি দিয়া হাসি চলুক *****
------------------------------
পুষ্পবনে পুষ্প নাহি আছে অন্তরে ‍‍

------------------------------
পুষ্পবনে পুষ্প নাহি আছে অন্তরে ‍‍

রেনেট এর ছবি

থ্যঙ্কু মুমু। তোমার উইকলি লেখা ডিউ কিন্তু এই উইকএন্ডে হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

এলোমেলো ভাবনা এর ছবি

ক্লাসে বসে পড়লাম। ঠিক করে হাসতে পারছি না।
তারপরও প্রফেসরের কাছে ধরা পড়ে গেছি মন খারাপ
বাসায় গিয়ে ভালো করে হেসে নিবো দেঁতো হাসি


হাত বাড়িয়ে ছুঁই না তোকে, মন বাড়িয়ে ছুঁই,

দুইকে আমি এক করি না এক কে করি দুই৷

রেনেট এর ছবি

ক্লাসে বসে অন্য কাজ করছেন কেন? মন দিয়ে পড়াশোনা করেন। পড়াশোনা ছাড়া গতি নাই গো।
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

পরিবর্তনশীল এর ছবি

জটিল হইছে। ধূগোদা আর হিমু ভাইয়ের বিতর্ক প্রতিযোগিতা পইড়া হাসতে হাসতে শ্যাষ।
তয় আমি আগেও পর্যবেক্ষণ করছি এই মডু নির্বাচনের প্রতি আপনার অপরিসীম আগ্রহ। একটা গোয়েন্দা নিয়োগ করা লাগবে বুঝছি। চোখ টিপি
---------------------------------
ছেঁড়া স্যান্ডেল

রেনেট এর ছবি

আপনার মত আর লিখতে পারলাম কই? গুরু গুরু
সচলস্য গল্পের পেটেন্ট তো আপনার...আমি বরং অনুমতি ছাড়াই গল্প লিখে ফেললুম হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

পরিবর্তনশীল এর ছবি

হইছে। আর ঢং করা লাগত না। দেঁতো হাসি
---------------------------------
ছেঁড়া স্যান্ডেল

ধুসর গোধূলি এর ছবি

- হ, লেখা সেইরম হইছে। হাসতে হাসতে কোন সময় জানি দাঁত বাইরাইয়া গেছেগা। ভালো কইরা তাকায়া দেখি আমার দিকে জনগণ (ললনা) ভেটকি দিয়া তাকায়া কিছু বুঝার চেষ্টা করতাছে। আমি ইট্টু চোখ নাচাইয়া দিছি।

কিন্তু ঘটনা হইলো সেইটা না। আমাগো দুই দোস্তের মাঝে এইরম আলপিনের খোঁচা দিয়া যে রেনটু মিয়া ছাইড়া দিলো, এখন তো হিমু আমারে হুমকী দিয়া বসছে। তাও একেবারে রিয়েল টাইমে। আমারে নাকি কোলনের সাতশ মিটার উঁচা ক্যাথেড্রালের একেবারে শিখরে ঘড়ি ধইড়া সাড়ে তের মিনিট বসায়া রাখবো! মন খারাপ

আমিও অবশ্য কইছি কোলনের কাছে একটা টানের দিয়া দ্রুতগামী আইসিই ট্রেন যায়। টানের ঐ মাথায় হিমুরে উপুর কইরা বসায়া রাখা হবে পাক্কা চৌদ্দ মিনিট যাতে টানেল থাইকা ট্রেন বাইর হইলেই হিমু বুঝতে পারে স্পীড কতো আছিলো! হাসি

___________
চাপা মারা চলিবে
কিন্তু চাপায় মারা বিপজ্জনক

কীর্তিনাশা এর ছবি

আমি খেলুম না। এই গল্পে আমার নাম নাই ক্যা ???

গল্পটা পইড়া ভিষন হাসি পাইছিল কিন্তু একই কারনে হাসলাম না। মন খারাপ
-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

-------------------------------
আকালের স্রোতে ভেসে চলি নিশাচর।

রেনেট এর ছবি

হায় হায়, আপনার নাম নাই?? আসলে লিখতে বসলে মাথার ঠিক থাকে না ইয়ে, মানে...
পরিবর্তনশীল ভাইয়ের কাছ থেকে ট্রেনিং নিতে হবে, তারপর দেখবেন কি সাংঘাতিক গল্প লিখি হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

অনিন্দিতা এর ছবি

দারুণ মজা পেলাম।

রেনেট এর ছবি

ধন্যবাদ অনিন্দিতা হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

মাহবুব লীলেন এর ছবি

রেনেটের প্লান ছিল ধূগো আর হিমুর মারামারির সুযোগে নিজে মডু সেজে বসা
কিন্তু খাইখাই স্বভাব আর তিন নাবালক রানিং মেটের জন্য কিছু করতে পারল না

এরকম পলিটিক্যাল রাজনৈতিক নির্বাচনে খালি হাতে এসে ৯৯%টাইম রান্নাঘরের দিকে তাকিয়ে তারা প্রথমেই ক্ষেপিয়ে দিলো সন্ন্যাসীকে
(সন্ন্যাসীরা খাবার বিরোধী হন)

০২

রেনেট গং জানেই না আমার বাসায় শুধু খাওয়া হয়
খাওয়ানো হয় না
তাদের ধারণা ছিল মেম্বার ইলেকশনের মতো কোনোমতে জিতে যেতে পারলেই তাকে লোকজন ধরে ধরে খাওয়াবে

এই সুযোগে নির্বাচিত অতিথি মডু ঝানু পলিটিশিয়ানের মতো আমাদের জন্য সাকুরায় আগাম বিল পরিশোধ করা (সন্ন্যাসীসহ)
আম জনতার জন্য বাইরে থেকে প্যাকেট ডিনার আনা
এবং কৌশলে হিমু-ধূগো- রেনেট গংদের ঝগড়ায় ব্যস্ত রেখে মৃদুলকে মার্কেটিংয়ের কাজে লাগিয়ে
যাকে বলে বাজিমাৎ

০৩

মুমু এসছিল রেনেটকে সাহাজ্য করতে
এসেই রেনেটকে জিজ্ঞেস করল - মডু কী?
কিন্তু উত্তেজনার চোটে রেনেট এই প্রশ্নের উত্তর না দেয়ায় মুমু রান্নাঘরে গিয়ে হাড়ি পাতিলের ঢাকনি তুলে অনেক্ষণ ধরে মডু খুজল
না পেয়ে গেলো বাথরুমে
সেখানেও না পেয়ে যখন ফিরে আসলো তখন রেনেটের কপাল অলরেডি পুড়ে ছাই...

কী আর করা
নেক্স টাইম...

মুশফিকা মুমু এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি
কি আর বলব লীলেন ভাই, হাসতে হাসতে চেয়ার থেকে পরে গেলাম গড়াগড়ি দিয়া হাসি আপনি যে কোথা থেকে এসব আইডিয়া পান গড়াগড়ি দিয়া হাসি
------------------------------
পুষ্পবনে পুষ্প নাহি আছে অন্তরে ‍‍

------------------------------
পুষ্পবনে পুষ্প নাহি আছে অন্তরে ‍‍

রেনেট এর ছবি

হাহা...লীলেন ভাই, আপনার কমেন্ট নিয়ে একটা কমেন্ট সংকলন বের করার ইচ্ছা আছে।
দেশে আসলে পদধূলি নিয়ে যাব।
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

অছ্যুৎ বলাই এর ছবি

উরে!!!!!!!!!!!! জটিল!!!!!!!!

---------
চাবি থাকনই শেষ কথা নয়; তালার হদিস রাখতে হইবো

রেনেট এর ছবি

ধন্যবাদ বলাইদা হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

জ্বিনের বাদশা এর ছবি

সুপার্ব!!! ,,, রেনেট একটা জিনিয়াস!
========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

========================
যার ঘড়ি সে তৈয়ার করে,ঘড়ির ভিতর লুকাইছে

রেনেট এর ছবি

হাহা..ধন্যবাদ....এরকম যদি সবাই ভাবতো!
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

স্বপ্নাহত এর ছবি

এত কিসু বুঝিনা। আমগো গুরু মডু না হইলে সচলের সব জানলা দরজার কাঁচ ভাইঙ্গলামু কইলাম রেগে টং

---------------------------------

বিষণ্ণতা, তোমার হাতটা একটু ধরি?

---------------------------------

বাঁইচ্যা আছি

ধুসর গোধূলি এর ছবি
রেনেট এর ছবি

আরে বোকা পোলাপান সব! (চুপে চুপে)সেই অতিথি লেখক তো সেইরকম দেখতে এক জম্মন তরুনী চোখ টিপি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

আরে !
স্বপ্নাহতরা কারে মডু বানাইতাছে !!
আহারে !!!
পোলাপাইন এখনো ভুল পথে যায়...

........................

সংশোধনহীন স্বপ্ন দেখার স্বপ্ন দেখি একদিন

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

তানবীরা এর ছবি

রেনেট, পাচ তারা দিলাম, আরো বেশী থাকলে আরো বেশী দিতাম। অফিসে বসে পড়লাম, শব্দ করে হাসলাম না, বাসায় যেয়ে আবার পড়বই পড়ব।

তানবীরা
---------------------------------------------------------
চাই না কিছুই কিন্তু পেলে ভালো লাগে

*******************************************
পদে পদে ভুলভ্রান্তি অথচ জীবন তারচেয়ে বড় ঢের ঢের বড়

রেনেট এর ছবি

ধন্যবাদ তানবীরা আপু হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

পলাশ দত্ত এর ছবি

মাত্রই অতিতি থেকে সচল হইছি। এখন কিছু বলা বিপদজনক!হাসি

==========================
পৃথিবীর তাবৎ গ্রাম আজ বসন্তের মতো ক্ষীণায়ু

রেনেট এর ছবি

ভয় পাবেন না পলাশ ভাই, যা বলতে ইচ্ছা করে চিতকার করে বলে ফেলুন!
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

ochol aani এর ছবি

হাহাপগে...... হাসতে হাসতে পরে গেলাম...
দারুন মজারু হইছে!!!!

রেনেট এর ছবি

ধন্যবাদ অচল আনি! আপনার ছড়া/কবিতা কই?
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

দ্রোহী এর ছবি

অসাধারণ গল্প........তবে একটা কথা!




বাঘের পোঁদে আঙুল দেয়ার মজা টের পাইবেন। হিমু আপ্নেরে খাইছে!


কী ব্লগার? ডরাইলা?

রেনেট এর ছবি

চিন্তারই কথা...ভাবনারই বিষয় চিন্তিত
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

হিমু এর ছবি
রেনেট এর ছবি

হিমু ভাই, সাইডে আসেন, সমঝোতা করি।
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

অমিত আহমেদ এর ছবি

আজকালকার পোলাপাইন। শুধু সাইড চিনে।


ওয়েবসাইট | ব্লগস্পট | ফেসবুক | ইমেইল

জাহিদ হোসেন এর ছবি

খুবই মজা পেলাম লেখাটি পড়ে। দুর্দান্ত!

_____________________________
যতদূর গেলে পলায়ন হয়, ততদূর কেউ আর পারেনা যেতে।

_____________________________
যতদূর গেলে পলায়ন হয়, ততদূর কেউ আর পারেনা যেতে।

রেনেট এর ছবি

ধন্যবাদ জাহিদ ভাই। অনুপ্রেরণা পেলাম হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

তারেক এর ছবি

তীব্র জা'ঝাময় গল্প। ঝঠিল্‌!
_________________________________
ভরসা থাকুক টেলিগ্রাফের তারে বসা ফিঙের ল্যাজে

_________________________________
ভরসা থাকুক টেলিগ্রাফের তারে বসা ফিঙের ল্যাজে

রেনেট এর ছবি

দইন্যভাধ হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

সংসারে এক সন্ন্যাসী এর ছবি

‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍আমার কথায় পাবলিক অতিথি লেখককে ভোট দিয়ে জিতিয়ে দিলো? আমার কথার এতো দাম? ঝানতাম না তো! হাসি

লেখা যথারীতি উপাদেয়।

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
পাকিস্তানিদের আমি অবিশ্বাস করি, যখন তারা গোলাপ নিয়ে আসে, তখনও। - হুমায়ুন আজাদ

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
টাকা দিয়ে যা কেনা যায় না, তার পেছনেই সবচেয়ে বেশি অর্থ ব্যয় করতে হয় কেনু, কেনু, কেনু? চিন্তিত

রেনেট এর ছবি

তা না হলে আর বলচি কি...সন্ন্যাসী বলে কতা।
উতসাহ দেয়ার জন্য বরাবরের মত ধন্যবাদ হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

অতন্দ্র প্রহরী এর ছবি

যথারীতি আরেকটি দুর্দান্ত রেনেটীয় রম্যরচনা! হাসতে হাসতে গড়াগড়ি হো হো হো
যাক, এই প্রথম আমাকে কোন সচল সভায় পাহারাদারি করতে হলো না, বাঁচায়া দেওয়ার জন্য আপনারে ধইন্যবাদ চোখ টিপি
_________________________________________
বিষন্নতা ছোঁয় আমায় মাঝে মাঝেই, কখনো কি ছোঁয় না তোমায়?

রেনেট এর ছবি

প্লিজ প্রহরী ভাই, আপনারে পাহারাদার না বানানোয় মাইন্ড খাইয়েন না। আগামী গল্পে আপনাকে অবশ্যই হেড পাহারাদার বানানো হইবেক চোখ টিপি
পড়া ও মন্তব্য করার জন্য ধন্যবাদ!
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

অমিত আহমেদ এর ছবি

সিরুম মজাক পাইলাম দেঁতো হাসি


ওয়েবসাইট | ব্লগস্পট | ফেসবুক | ইমেইল

রেনেট এর ছবি

সত্যি? দেঁতো হাসি
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

সুলতানা পারভীন শিমুল এর ছবি

হা হা হা
আপনার বুদ্ধিদীপ্ত সরস লেখার সবসময়ই আমি ভীষন ভক্ত, রেনেট। আরো একটু ঘন ঘন লিখলে হয় না?
লেখা জটিলস্য হয়েছে, দারুণ !

...........................

সংশোধনহীন স্বপ্ন দেখার স্বপ্ন দেখি একদিন

...........................

একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা

রেনেট এর ছবি

আপনি তো আমাকে লজ্জায় ফেলে দিলেন শিমুল আপা লইজ্জা লাগে
ছাই পাশ যাই লিখি, তা নিয়মিত পড়েন বলে অনেক ধন্যবাদ হাসি
খালি আমাকে অভিযুক্ত করে গেলেন, আপনার নতুন লেখা কই?
-----------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

ভূঁতের বাচ্চা এর ছবি

মজা পাইলাম।
এমন গপ্পো আরো চাই !

--------------------------------------------------------

রেনেট এর ছবি

দেশ থেকে বেড়িয়ে মন ভালো করে আসি আগে...এখন মন মেজাজ অত্যাধিক হট।
---------------------------------------------------------------------------
We cannot change the cards we are dealt, just how we play the hand.

---------------------------------------------------------------------------
একা একা লাগে

সাইফ তাহসিন এর ছবি

রেনেটদা, এইডা কি পড়লাম, ব্যাফক মজার নেহা, পইড়া নাক চোখ দিয়া পানি বাইর হইয়া গেল হাসতে হাসতে। পারোরে ভাই তুমি। রেনেট জিন্দাবাদ।

=================================
বাংলাদেশই আমার ভূ-স্বর্গ, জননী জন্মভূমিশ্চ স্বর্গাদপি গরিয়সী

বোহেমিয়ান এর ছবি

লেখা কমেণ্ট দুইটাই সেই রকম!!!
পুরোনো লেখা গুলো পড়ে সেই রকম মজা পাচ্ছি ।

আর একটা মজার ব্যাপার! এই খানে কোন অতিথির কমেন্ট নাই!
আমি ই প্রথম!
তাই আমাকে মডু বানানো হউক!! খাইছে খাইছে
__________________________
হৃদয় আমার সুকান্তময়
আচরণে নাজরুলিক !
নাম বলি বোহেমিয়ান
অদ্ভুতুড়ে ভাবগতিক !

_________________________________________
ওরে! কত কথা বলে রে!

জি.এম.তানিম এর ছবি

অসাধারণ রেনেট ভাই। কমেন্টগুলোও একেকটা বলিহারি...

একেকজন ভাণ্ড উপুড় করে রস ঢেলেছেন। ব্রাভো।
-----------------------------------------------------------------
কাচের জগে, বালতি-মগে, চায়ের কাপে ছাই,
অন্ধকারে ভূতের কোরাস, “মুন্ডু কেটে খাই” ।

-----------------------------------------------------------------
কাচের জগে, বালতি-মগে, চায়ের কাপে ছাই,
অন্ধকারে ভূতের কোরাস, “মুন্ডু কেটে খাই” ।

তিথীডোর এর ছবি

"আর একটা মজার ব্যাপার! এই খানে কোন অতিথির কমেন্ট নাই!
আমি ই প্রথম!
তাই আমাকে মডু বানানো হউক!! " দেঁতো হাসি দেঁতো হাসি

বেসাংঘাতিক মজারু পোস্ট!!!!!!!!!!!!!

--------------------------------------------------
"আষাঢ় সজলঘন আঁধারে, ভাবে বসি দুরাশার ধেয়ানে--
আমি কেন তিথিডোরে বাঁধা রে, ফাগুনেরে মোর পাশে কে আনে"

________________________________________
"আষাঢ় সজলঘন আঁধারে, ভাবে বসি দুরাশার ধেয়ানে--
আমি কেন তিথিডোরে বাঁধা রে, ফাগুনেরে মোর পাশে কে আনে"

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।