আইসিটি আইনের ৫৭ ধারা: ‘আইন কানুন সর্বনেশে!’

সাঈদ আহমেদ এর ছবি
লিখেছেন সাঈদ আহমেদ (তারিখ: সোম, ০৯/০৯/২০১৩ - ১২:৫৮অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

বাংলাদেশে মাতাল হয়ে অন্যের সম্পত্তিতে অনুপ্রবেশ করে কাউকে উত্যাক্ত করা কিংবা অন্যকোন ভাবে কারো মানহানি করা কিংবা মরণাস্ত্র হাতে সহিংস দাঙ্গায় যোগ দেয়ার অপরাধের চেয়ে এখন অনলাইনে লেখালেখি করা বহুগুন বেশি শাস্তিযোগ্য অপরাধে পরিণত হতে যাচ্ছে। শুধু তাই নয়, অনলাইনে লেখালেখি সংক্রান্ত অভিযোগসমূহকে ‘আমলযোগ্য’ ও ‘অ-জামিনযোগ্য’ করায় এ অপরাধে কাউকে গ্রেফতারের জন্য আদালতের কোন ওয়ারেন্টের প্রয়োজন হবেনা, নিরাপরাধ প্রমাণিত হওয়ার আগ পর্যন্ত কোন জামিনও মিলবে না, এবং লেখালেখি সংক্রান্ত অভিযোগ যত ক্ষুদ্রই হোক, প্রমাণিত হলে এর সর্বোনিম্ন শাস্তি হবে ৭ বছরের জেল এবং অনধিক এক কোটি টাকা জরিমানা!
আপনি যদি ওয়েব সাইটে বা অন্য কোন ইলেক্ট্রনিক বিন্যাসে’, অর্থাৎ ব্লগ, ফেসবুক বা ইউটিউবে কখোনও কিছু প্রকাশ বা সম্প্রচার করে থাকেন, তাহলে আপনিও পড়তে পারেন এই ‘একুশে আইনের’ ফাঁদে।

২০০৬ সনের অক্টোবরে তৎকালীন বিএনপি সরকার মেয়াদের শেষপ্রান্তে এসে ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬’ নামে একটি আইন করেছিল, যার হাস্যকর ৫৭ ধারাটি নিয়ে আগেও লেখা হয়েছে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার মেয়াদের ঠিক শেষ প্রান্তে এসে সেই হাস্যকর ধারাটিকেই সংশোধনের নামে আরো ভয়াবহ করে ফেললো।

এটা ঠিক যে ব্লগ, ফেসবুক বা অনলাইনপত্রিকার নামে যা কিছু একটা ছাপিয়ে কাউকে হেনস্তা করা বা দেশে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করা যাদের উদ্দেশ্য, তাদের প্রতিরোধ করার জন্য আইনি কাঠামো সংশোধন, তথ্যপ্রযুক্তির উপর প্রশিক্ষণ ও অবকাঠামোগত সামর্থ্যবৃদ্ধির প্রয়োজন অবশ্যই আছে। কিন্তু ‘তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬’ –এর ৫৭ ধারায় যে ভাবে অপরাধের ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে, তা এই অপরাধ দমনে ভুমিকা রাখবে না। উপরন্তু এই ধারায় আনীত অভিযোগকে সংশোধন করে একে আমলযোগ্য, অ-জামিনযোগ্য, এবং শাস্তির সর্বোনিম্ন সীমা ৭ বছর করে সাধারণের মধ্যে অনলাইনে মতপ্রকাশের বিষয়ে একটি গণভীতি সৃষ্টির চেষ্টা করা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

আইসিটি আইন ২০০৬-এর ৫৭ (১) ধারায় বলা আছে—

কোন ব্যক্তি যদি ইচ্ছাকৃতভাবে ওয়েব সাইটে বা অন্য কোন ইলেক্ট্রনিক বিন্যাসে এমন কিছু প্রকাশ বা সম্প্রচার করেন, যাহা মিথ্যা ও অশ্লীল বা সংশ্লিষ্ট অবস্থা বিবেচনায় কেহ পড়িলে, দেখিলে বা শুনিলে নীতিভ্রষ্ট বা অসৎ হইতে উদ্বুদ্ধ হইতে পারেন অথবা যাহার দ্বারা মানহানি ঘটে, আইন শৃঙ্খলার অবনতি ঘটে বা ঘটার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়, রাষ্ট্র ও ব্যক্তির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয় বা ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে বা করিতে পারে বা এ ধরনের তথ্যাদির মাধ্যমে কোন ব্যক্তি বা সংগঠনের বিরুদ্ধে উস্কানী প্রদান করা হয়, তাহা ইহলে তাহার এই কার্য হইবে একটি অপরাধ৷

এবার আসুন আইনটির সমস্যাগুলো একটু দেখে নিই—

অপরাধের সংজ্ঞা: কী লিখবো, কী লিখবো না?
বাংলাদেশের পেনাল কোডে অপরাধের সংজ্ঞা এমনভাবে দেয়া হয় যেন অপরাধ করার আগেই একজন মানুষ বুঝতে পারে কী কী করলে তা অপরাধ বলে গন্য করা হবে। উদাহরন স্বরূপ পেনাল কোডের ১৭৭ ধারার কথা বলা যেতে পারে, যেখানে ইচ্ছেকৃত ভাবে ভুল তথ্য দেয়া বলতে ঠিক কী বোঝানো হয়েছে, তা স্পষ্ট করে শুধু বলাই হয়নি, দুইটি উদাহরন দিয়ে তার স্বরুপও ব্যাখ্যা করা হয়েছে।
কিন্তু আইসিটি আইনের ৫৭ (১) অনুচ্ছেদে অপরাধের যে ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে তা একেবারেই স্পষ্ট নয় এবং অভিযুক্ত হবার পূর্ব পর্যন্ত কোন লেখকের পক্ষেই বোঝা সম্ভব নয় যে কী লিখলে তা অপরাধ বলে গণ্য হতে পারে।

উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে
এখানে বয়স নির্বিশেষে এমনকি প্রাপ্তবয়ষ্ক কোন উদো’র ‘নীতিভ্রষ্ট বা অসৎ হইতে উদ্বুদ্ধ’ হওয়ার দায়ও তথ্য প্রকাশকারী বুদো’র উপরে চাপানো হয়েছে। অথচ কী ধরনের তথ্য প্রকাশ কাউকে ‘নীতিভ্রষ্ট বা অসৎ হইতে উদ্বুদ্ধ’ করতে পারে, তা উল্লেখ করে দেয়া হয়নি।

একই ভাবে কোন ধরণের মন্তব্যকে ‘কোন ব্যক্তি বা সংগঠনের বিরুদ্ধে উস্কানী প্রদান’ বলে চিহ্নিত করা হবে, তারও কোন সীমারেখা টানা নেই।

আদৌ কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লাগলো কিনা, অথবা কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার আদৌ কোন উদ্দেশ্য লেখকের ছিল কিনা, তাও যাচাই করার সুযোগ রাখা হয়নি। ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে বা করিতে পারে’ শুধু এমন অভিযোগেই শাস্তি প্রদানের সুযোগ রাখা হয়েছে।
অর্থাৎ, অনলাইনে কোন লেখা বা মন্তব্যের মাধ্যমে কাউকে উস্কানী দেয়া বা কারো অনুভূতিতে আঘাত করা যদি আপনার উদ্দেশ্য নাও হয়ে থাকে, এবং কারো অনুভূতি যদি আঘাতপ্রাপ্ত নাও হয়ে থাকে, তথাপি পুলিশ যদি মনে করে যে আপনার অনলাইন মন্তব্য কারো ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করিতে পারে’, সেক্ষেত্রেও আপনাকে ওয়ারেন্ট ছাড়াই গ্রেফতার করে অ-জামিনযোগ্যভাবে আটক করে রাখা সম্ভব।
অথচ কথিত অপরাধকর্মের পেছনে অভিযুক্তের আসল উদ্দেশ্য বিচার করা একটি স্বত:সিদ্ধ আইনি চর্চা।

উদাহরন স্বরূপ— যদি প্রমাণিত হয় যে ‘ক’ কোন একটি লেখা সৎ উদ্দেশ্য নিয়ে লেখার পর ‘খ’ তার পত্রিকায় এটিকে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করে জনরোষ সৃষ্টির চেষ্টা করেছে, তাহলে উদ্দেশ্য বিচারে এখানে ‘ক’ কে নির্দোষ ও ‘খ’ কে দোষী সাব্যস্ত করার প্রচলন রয়েছে। কিন্তু আইসিটি আইনের ৫৭ ধারায় পুরো দায় ‘ক’ এর উপর চাপানো হয়েছে।

শুধু তাই নয়, অবস্থা দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে, আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন অনলাইন অপরাধ দমনে নিজেদের ব্যার্থতা ঢাকতে গণভীতি সৃষ্টির মাধ্যমে সমস্ত অনলাইন মতপ্রকাশের উপরই এক ধরনের স্বনিয়ন্ত্রন আরোপের চেষ্টা করছেন।
অপরাধের অস্পষ্ট সংজ্ঞায়নের কারণে সাধারণ মানুষ হয়তো মতপ্রকাশে নিরুৎসাহিত হবে, কিন্তু আইপি লুকিয়ে বেনামে মতপ্রকাশ উৎসাহিত হবে, এবং অনলাইন অপরাধ বৃদ্ধি পাবে।

প্রমাণের আগ পর্যন্ত অপরাধী!
সাধারণত: কোন ব্যক্তির অপরাধ প্রমাণ হবার আগ পর্যন্ত তাকে নির্দোষ বিবেচনা করার রীতি আছে এবং কাউকে অপরাধী প্রমাণের দায় সাধারণত: অভিযোগকারীর উপরেই বর্তায়। কিন্তু এক্ষেত্রে কোনো ব্যক্তির নামে যে কোন মিথ্যে তথ্য প্রকাশ করে তাকে হয়রানি করা সম্ভব। কিন্তু অস্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত ধারাগুলো আমলযোগ্য ও অজামিনযোগ্য করে দেওয়ায়, একজন ব্যক্তি দোষী সাব্যস্ত না হওয়া পর্যন্ত তাকে কার্যত: ‘দোষী’ হিসেবেই আটক থাকতে হবে। তথ্যপ্রকাশের কথিত অপরাধকে বিচারের আগেই অজামিনযোগ্য করে না দিয়ে তা বিজ্ঞ আদালতের সন্তুষ্টির ওপর ছেড়ে দেওয়া উচিত ছিল।

‘হাকিম হইয়া হুকুম করে, পুলিশ হইয়া ধরে’
কাউকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশকে সাধারনত: আদালতের কাছে অনুমতি নিতে হয়। কিন্তু খুন, খুনের প্রচেষ্টা, ধর্ষণ বা ধর্ষণ প্রচেষ্টার মতন গর্হিত অপরাধকে ‘আমলযোগ্য’ বিবেচনায় আদালতের অনুমতি ছাড়াই পুলিশ সন্দেহভাজন কাউকে গ্রেফতার ও তদন্ত করতে পারে। আইসিটি আইনে অনলাইনে মতপ্রকাশকে ‘আমলযোগ্য’ করা হয়েছে। ফলে একজন পুলিশ কর্মকর্তা নিছক সন্দেহের বশবর্তী হয়ে বা ইচ্ছাকৃতভাবে অনলাইনে মতপ্রকাশের কারণে যে কাউকে ওয়ারেন্ট ছাড়াই গ্রেফতার করে এবং নির্দোষ প্রমাণের আগ পর্যন্ত জামিনবিহীনভাবে আটক রেখে কার্যত: একাধারে ‘জাজ, জুরি ও এক্সিকিউশনারের’ ভূমিকা পালন করতে পারেন। এখানে কোন কবিতা, গল্প বা প্রবন্ধের অর্থ বিচার করে তা 'আমলযোগ্য' অপরাধ কিনা, তার এখতিয়ারও বিজ্ঞ আদালতের বদলে পুলিশের হাতে দেয়া হয়েছে।

লঘু পাপে গুরুদন্ড
ইলেক্ট্রনিক বিন্যাসে তথ্য প্রকাশের কারনে কারো কতটুকু মানহানি ঘটলো, বা আইন শৃঙ্খলার কতটুকু অবনতি ঘটার সম্ভাবনা সৃষ্টি হলো, তার মাত্রা পরিমাপের সুযোগ বিজ্ঞ আদালতকে না দিয়ে, এই আইনের ন্যূনতম সাজা সাত বৎসর রাখা হয়েছে। এক্ষেত্রে অতিস্বল্প মাত্রার অপরাধে কেউ দোষী হলে তাকে কমপক্ষে সাত বৎসর জেলে থাকতে হবে, যা লঘু পাপে প্রচন্ড রকমের গুরুদন্ডের সামিল।
কয়েকটা উদাহরন দিলে বিষয়টি স্পষ্ট হবে-

বাংলাদেশে আপনি যদি মদ খেয়ে মাতাল হয়ে কারো বাড়িতে প্রবেশ করে (trespass) কাউকে বিরক্ত বা উত্যক্ত করেন, তাহলে পেনালকোডের ৫১০ ধারা অনুযায়ী আপনার শাস্তি হবে সর্বোচ্চ ২৪ ঘন্টার জেল বা ১০ টাকা জরিমানা বা উভয় দন্ড (বিজ্ঞ আদালতের মতানুসারে সর্বনিম্ন শাস্তি আরো কম হতেই পারে)।
কিন্তু আপনি যদি অনলাইনে এমন কিছু প্রকাশ করেন, যা ‘মিথ্যা ও অশ্লীল বা সংশ্লিষ্ট অবস্থা বিবেচনায় [এমনকি প্রাপ্তবয়ষ্ক] কেহ পড়িলে, দেখিলে বা শুনিলে নীতিভ্রষ্ট বা অসৎ হইতে উদ্বুদ্ধ হইতে পারেন’, তাহলে সংশোধিত আইসিটি আইন অনুসারে আপনার শাস্তি হবে সর্বোনিম্ন ৭ বছর থেকে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের জেল এবং অনধিক এক কোটি টাকা জরিমানা!

আপনি যদি কোন দাঙ্গা বা রায়টে যোগ দিয়ে সরাসরি কোন সহিংসতায় অংশগ্রহণ করেন, তাহলে আমাদের পেনালকোডের ১৪৭ ধারা অনুসারে আপনার সর্বোচ্চ শাস্তি হবে ২ বছরের জেল। এই দাঙ্গায় আপনি যদি এমন কোন মরণাস্ত্র নিয়ে বের হন যা দ্বারা কাউকে হত্যা করা সম্ভব, তাহলে পেনালকোডের ১৪৮ ধারা অনুসারে আপনার সর্বোচ্চ শাস্তি হবে ৩ বছরের জেল (সর্বনিম্ন শাস্তি বিজ্ঞ আদালত নির্ধারণ করবেন)।
কিন্তু আপনি যদি ‘ওয়েব সাইটে বা অন্য কোন ইলেক্ট্রনিক বিন্যাসে’ এমন কিছু প্রকাশ করেন যা থেকে আইন শৃঙ্খলার অবনতি ঘটার ‘সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়’, তাহলে আইসিটি আইন অনুসারে আপনার শাস্তি হবে সর্বোনিম্ন ৭ বছর থেকে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের জেল এবং অনধিক এক কোটি টাকা জরিমানা!

আপনি যদি কোন ভাবে কাউকে চিঠি লিখে বা ফোন করে বা সরাসরি হত্যা করার বা ব্যপক ক্ষতিসাধন করার হুমকী প্রদান করেন, তাহলে পেনালকোডের ৫০৬ ধারা অনুসারে তার শাস্তি সর্বোচ্চ ২ বছর, আর যদি এই হুমকী বেনামে করে থাকেন, তাহলে পেনালকোডের ৫০৭ ধারা অনুসারে শাস্তি সর্বোচ্চ আরো ২ বছর। কিন্তু আপনার অনলাইন কোন লেখাকে কেউ যদি ‘উস্কানী’ হিসেবে নিয়ে থাকে, তাহলে আইসিটি আইন অনুসারে আপনার শাস্তি হবে সর্বোনিম্ন ৭ বছর থেকে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের জেল!

অথবা, আপনি যদি মুদ্রিত কোন মাধ্যমে কিছু প্রকাশ করে বা অন্য যে কোন উপায়ে কারো মানহানি করেন বা কুৎসা রটনা, তাহলে পেনালকোডের ৫০০ ধারা অনুসারে আপনার সর্বোচ্চ শাস্তি হবে ২ বছরের জেল (এবং সর্বনিম্ন শাস্তি বিজ্ঞ আদালত নির্ধারণ করবেন)।
কিন্তু অনলাইনে আপনার কোন লেখায় কেউ যদি প্রমাণ করে যে তার মানহানি ঘটেছে, তাহলে সংশোধিত আইসিটি আইন অনুসারে আপনার শাস্তি হবে সর্বোনিম্ন ৭ বছর থেকে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের জেল এবং অনধিক এক কোটি টাকা জরিমানা!

শুধু তাই নয়, সর্বোনিম্ন শাস্তি নির্ধারণে বিজ্ঞ আদালতের ক্ষমতা সীমিতও করা হয়েছে। এছাড়া, গ্রেফতারের অনুমতি ও জামিন দেয়ার ক্ষমতা রহিত করে আদালতের ক্ষমতা ব্যাপক ভাবে খর্ব করা হয়েছে বলে প্রতীয়মান হতে পারে।

তথ্য অধিকার ও গণতন্ত্র বিরোধী?
তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ বাক-স্বাধীনতাকে নাগরিকগণের অন্যতম মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বীকৃতি দেয় এবং জনগণের তথ্য অধিকারকে সরকারী ও বেসরকারী সংস্থার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধি ও দুর্নীতি হ্রাসের জন্য অপরিহার্য হিসেবে চিহ্নিত করে স্ব:প্রণোদিত তথ্যপ্রকাশ (proactive disclosure)-কে উৎসাহিত করে। কিন্তু তথ্য প্রযুক্তি আইনে তথ্য প্রকাশ সংক্রান্ত অপরাধের অস্পষ্ট সংজ্ঞায়ন, অভিযোগের জামিন অযোগ্যতা ও সর্বনিম্ন শাস্তির অস্বাভাবিক মাত্রা তথ্য অধিকারের মূল চেতনার পরিপন্থী, যা স্ব:প্রণোদিত তথ্যপ্রকাশকে নিরূৎসাহিত করবে এবং মতপ্রকাশে ভীতির সৃষ্টি হবে যা বাকস্বাধীনতা, উন্নয়ন ও গনতন্ত্রকে ব্যহত করবে। এটি একই সাথে বাংলাদেশের সংবিধান, তথ্য প্রযুক্তি নীতিমালা ও সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ রুপকল্পের মূল চেতনার পরিপন্থী।

মতপ্রকাশের বিকল্প মাধ্যম
আইনটি প্রণয়ন ও সংশোধনে দেশের যে দুইটি বড় রাজনৈতিক দলই যুক্ত ছিল, তাদের সংগঠন ও ক্ষমতায়নে তারুণ্যের প্রতিবাদের অবদান অপরিসীম। স্বৈরশাসন থেকে অনির্বাচিত সরকারের শাসনামল—সব সময়ই তরুণ সমাজ তাদের প্রতিবাদের ভাষা অব্যাহত রেখেছে, বর্তমানে যার অন্যতম মাধ্যম হলো অনলাইনের প্রকাশনা। বিভিন্ন প্রভাবশালী গোষ্ঠীর একচ্ছত্র আধিপত্যথেকে জনমতপ্রকাশের মাধ্যমকে মুক্ত করার ক্ষেত্রেও ব্লগ বা অন্যান্য বিকল্প অনলাইন মাধ্যম অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে। কিন্তু অন্যান্য নিবর্তনমূলক আইনের মতন এই আইনটিও আগামীতে রাজনৈতিক হয়রানির খড়গ হিসেবে নির্ভিক তরুণদের অ-জামিনযোগ্য ভাবে বন্দী রাখার উপায় হিসেবে ব্যবহৃত হবে বলে আমরা আশংকা করছি।

অসংসদীয় চর্চা

যেখানে সংখ্যাগরিষ্টতার কারণে আইন পাশে সরকারের কোন সমস্যা হয় না, সেখানে এমন একটি জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সংসদে আলোচনার মাধ্যমে আইনটির সংশোধন হবে, এমনটিই ছিল আমাদের প্রত্যাশা। কিন্তু অধিবেশন শুরুর মাত্র তিন সপ্তাহ আগে সংসদের পরিবর্তে অধ্যাদেশ জারির মাধ্যমে আইন সংশোধন হলো। কারণ হিসেবে ২০ শে আগস্ট জারিকৃত এই অধ্যাদেশে বলা হয়েছে—
“যেহেতু সংসদ অধিবেশনে নাই এবং রাষ্ট্রপতির নিকট ইহা সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইয়াছে যে, আশু ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রয়োজনীয় পরিস্থিতি বিদ্যমান রহিয়াছে”
কিন্তু, পত্রিকার খবর অনুযায়ী, এই অধ্যাদেশ জারীর দুই দিন আগেই, অর্থাৎ ১৮ই আগস্টেই রাষ্ট্রপতি সংসদের ১৯তম অধিবেশনের আহ্বান করেছেন। যেহেতু মাত্র তিন সপ্তাহ পরেই সংসদ অধিবেশন ছিল, তাহলে ঠিক কী জরুরী প্রয়োজনে তড়িঘড়ি করে অধ্যাদেশের মাধ্যমে আইনটি সংশোধন করা হলো তা বোধগম্য নয়।

শুধু তাই নয়, আইসিটি মন্ত্রণালয়ের ওয়েব সাইটে দিন-তারিখের উল্লেখ ছাড়া একটি নোটিশ খুঁজে পেলাম যেখানে ৩০শে এপ্রিল ২০১৩-র মধ্যে আইনটি সর্ম্পকে অনলাইনে মতামত চাওয়া হয়েছিল।

Archive.org বা গুগল ক্যাশে এই তারিখবিহীন নোটিশ ঠিক কবে দেয়া হয়েছিল, তা বোঝা যায়নি। তবে, প্রশ্ন হলো, এপ্রিলেই যদি খসড়াটি জনমতের জন্য প্রস্তুত হয়ে থাকে, তাহলে সংসদের বাজেট অধিবেশনে আইনটি উত্থাপিত হয়নি কেন?

আর, অনলাইনে মতামত দেয়ার বিরুদ্ধে গুরুদন্ড প্রস্তাব করে যে আইন, সেই আইন সম্পর্কেই অনলাইনে মতামত দেয়াটা কি ফাঁদে পা দেয়ার মতন হয়ে যাবে না? মতামত দেয়ার কারণে যদি আবার ৭ বছরের জেল দিয়ে দেয়?

আমাদের প্রত্যাশা সরকারের বোধদয় ঘটবে এবং আমাদের দাবী আসন্ন সংসদ অধিবেশনে আইসিটি আইনের ৫৭ ধারা ও আনীত সংশোধনী বাতিল করা হোক।



মন্তব্য

মাহবুব লীলেন এর ছবি

মতামত এখন টাইপরাইটার দিয়ে লিখে হ্যন্ডবিল আকারে বিলি করতে হবে

আলতাইর এর ছবি

কচুপাতার উপ্রে আলকাতরা আর বাঁশের কলম দিয়া হাতে লেইখা পাব্লিশ করতে পারলে পুরাই নিরাপদ!

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

প্রস্তরযুগে ফিরে যাই মন খারাপ

-----------
চর্যাপদ

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

ব্লগ ১: সকালে ঘুম থেকে উঠে আলুভর্তা দিয়ে ভাত খেলাম, ইয়ামি...
ব্লগ ২: বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর নদেয় এলো বান

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

নির্ঝর অলয়  এর ছবি

জল পড়ে পাতা নড়ে।

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

তাতেও সাবধান-- আলুভর্তাকে ইয়ামি বলায় আবার (১ম)আলুওয়ালাদের অনুভূতিতে না আঘাত লাগে মন খারাপ

-----------
চর্যাপদ

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

হু, জিভ ফসকাইয়া "ওয়ামি" কয়া ফালাইলে সাড়ে সব্বনাশ

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

স্যাম এর ছবি

চলুক চলুক

হিমু এর ছবি

৫৭ ধারা ও সংশোধনীর বিলোপ চাই।

অনলাইনে লেখালেখির কারণে বাংলাদেশে এ যাবৎ যতো না সমস্যা তৈরি হয়েছে, তারচেয়ে বহুগুণে হয়েছে অফলাইনে মাহমুদুর রহমানের মতো পিশাচদের কারণে। সরকার কি পারবে ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপে উস্কানি দেওয়ার জন্য প্রেস বা ইলেকট্রনিক মিডিয়াকে শাস্তি দেওয়ার আইন প্রণয়ন করতে? হাতি যেতে দেখে না আর মশা দেখলে মারতে আসে।

এই আইন কি মন্ত্রীসভার সদস্যরা পড়ে দেখেছেন? আমার তো মনে হয় আমলার পাল সংশোধনী ড্রাফট করে দিয়েছে।

নির্ঝর অলয়  এর ছবি

চলুক
আর কি বলব? লিখে পোস্ট করব এবার থেকে। মন খারাপ

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

"জাতীয়-নিরাপত্তা-ও-ভাবমূর্তি-বিষয়ক-আমলা"-দের পক্ষে মন্ত্রীসভাকে বোঝানো খুব কঠিন কিছু না--- মন খারাপ

-----------
চর্যাপদ

ব্রুনো  এর ছবি

এই কালো আইনের বিলোপ চাই।

অতিথি লেখক এর ছবি

এই আইনটি প্রনয়নের আগে বাংলাদেশ সফটঅয়ার এ্যাসোসিয়েশন, বাংরাদেশ কমপিউটার সমিতি, আইএসপি এসোসিয়েশন, এবং বেশ কিছু আই টি বিশেষজ্ঞের সাথে মন্ত্রণালয় অনেক আলোচনা করেছে। যদিও তারা হয়তো মূলতঃ টেকনিক্যাল বিষয়গুলোতেই দৃষ্টি নিবদ্ধ রাখতে পেরেছে, কিন্তু ৫৭ ধারাটির ব্যাপারেও তারা কেন মুখ বুজে থাকলেন বুঝতে পারছি না।

আব্দুল্লাহ এ এম

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

সবাই নিজস্ব স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়েই ভাবে। তারা হয়তো কেবল টেকনিক্যাল বিষয়েই মত দিয়েছেন। ৫৭ ধারা নিয়ে বলতে হবে লেখকদেরই-- তাদের তো আর ডাকা হয়না! মন খারাপ

-----------
চর্যাপদ

সাকিন উল আলম ইভান  এর ছবি

অনলাইনে আর লেখালেখিই করা যাবে না মনে হচ্ছে।

এই আইন ফাইজলামি ছাড়া আর কিছুই না ।

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

মন খারাপ

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

অতিথি লেখক এর ছবি

মনে অনেক কথা।
কিন্তু লিখতে ভয় পাইতেছি। শুধু একটা কথা বলি - নাহ্‌ বলবো না।

-------------------------------
কামরুজ্জামান পলাশ

প্রোফেসর হিজিবিজবিজ এর ছবি

ওঁয়া ওঁয়া

____________________________

চরম উদাস এর ছবি

চলুক

আলতাইর এর ছবি

তাইলে উপায় কি? সরিষার ভুত তাড়ানোর রাস্তা কি?

ইয়াসির আরাফাত এর ছবি

হুমায়ুন আজাদ সম্ভবতঃ জ্যোতিষবিদ্যা জানতেন

আমি জানি সব কিছু নষ্টদের অধিকারে যাবে।
নষ্টদের দানবমুঠোতে ধরা পড়বে মানবিক
সব সংঘ-পরিষদ; চলে যাবে, অত্যন্ত উল্লাসে
চ‘লে যাবে এই সমাজ-সভ্যতা-সমস্ত দলিল-
নষ্টদের অধিকারে ধুয়েমুছে, যে-রকম রাষ্ট্র
আর রাষ্ট্রযন্ত্র দিকে দিকে চলে গেছে নষ্টদের
অধিকারে।

ঈয়াসীন এর ছবি

সরকারী, বিরোধী, আমলা তথা সকল সুবিধাভোগীর চক্ষুশূল যে এখন ব্লগার আর অনলাইন একটিভিষ্ট, তা কিন্তু স্পষ্ট।

------------------------------------------------------------------
মাভৈ, রাতের আঁধার গভীর যত ভোর ততই সন্নিকটে জেনো।

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

রাতের আঁধার গভীর যত ভোর ততই সন্নিকটে

চলুক

-----------
চর্যাপদ

বন্দনা এর ছবি

তাহলে কি দাঁড়াল, ধর্ম নিয়ে ফেসবুকে লোকজনের সাথে তর্কে গেলে ও গ্রেফতার হওয়ার সুযোগ থাকছে ?

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

যেখানে লোকজন ফেসবুকে "লাইক" দিয়ে আর কমেন্ট করেই অভিযুক্ত হচ্ছে--- তর্ক তো প্রশ্নাতীত!

-----------
চর্যাপদ

ইশতিয়াক রউফ এর ছবি

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকা অবস্থাতেই এই আইনের অপপ্রয়োগ হচ্ছে হেফাজত-জামায়াতের ইচ্ছামাফিক ব্লগারদের হয়রানি করে।ক্ষমতার হাতবদল হলে কী হবে চিন্তা করলেই শিউরে উঠি।

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

সময় অনেক কম-- দ্রুত এর বিলোপ দরকার-- এই অধিবেশনেই।

-----------
চর্যাপদ

মৃত্যুময় ঈষৎ এর ছবি

ছাগু-জামাত-শিবির-হেফাজত-বাঁশেরকেল্লা-মেল্লার জ্বালায় অস্থির অবস্থা। এদের প্রপাগাণ্ডা-মিথ্যাচার-উস্কানী-দাঙ্গা-নৈরাজ্য বন্ধ করতে যথোপযুক্ত সুনির্দিষ্ট সুস্পষ্ট সুলিখিত অতি শীঘ্র আইসিটি আইন সংশোধন করে প্রয়োগ করা হোক। কীভাবে তা করা যায় সমালোচনার পাশাপাশি তার রূপরেখাও কেউ আলোচনা করেন।

আর কিছু নিয়া আমার টেনশন নাই।
জামাত-শিবির আইনের জালে আটকাইতে চাই।


_____________________
Give Her Freedom!

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

৫৭ ধারায় যেসব অপরাধ দমনের কথা বলা হয়েছে, তা আরো সুস্পষ্ট করে পেনালকোডে এমনিতেই আছে। যেটা দরকার তা হলো আইনপ্রয়োগকারীদের প্রশিক্ষণ। এটা নাই বলেই তারা অপরাধীকে ধরতে না পেরে গণভীতি সৃষ্টির চেষ্টা করে।

-----------
চর্যাপদ

মৃষৎ এর ছবি

যেটা দরকার তা হলো আইনপ্রয়োগকারীদের প্রশিক্ষণ। চলুক

অতিথি লেখক এর ছবি

এতো মুচড়া-মুচড়ি না কইরা সোসাল নেটওয়ার্কিং আর ব্লগিং নিষিদ্ধ ঘোষণা করলেই পারে।

-আরাফ করিম

system failure এর ছবি

তার চেয়ে বরং ইন্টারনট ই বন্ধ করে দিক। এত ঝামেলা করার দরকার কি

রিয়াজ এর ছবি

জনগণের মতামত চাইলে ওয়েবসাইটে দিন-তারিখবিহীন নোটিস রেখে দিলে তো হবে না।পত্রিকায়,অনলাইনে,রেডিওতে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে মতামত চাইতে হবে-জনগণ কী চায় শুনতে হবে।

সব এখন নন্দ ঘোষের উপর দিয়ে যাবে!!!!

সাঈদ আহমেদ এর ছবি

জনগন কী কী মত দিয়েছিল-- আর তার কোনটা কোনটা রাখা হয়েছে, তা জানতে চাই।

-----------
চর্যাপদ

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

চলুক

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

সুবোধ অবোধ  এর ছবি

আইন দেইখা পুরাই বেকুব বইনা গেছি!!!! কি কমু বুঝতাছি না!! এত ঝামেলা না কইরা ব্লগ, ফেসবুক, ইউ টিউব, নেট, মোবাইল সব বন্ধ কইরা দিয়া আদিম যুগে ফিরা গেলেই হয়। রেগে টং এই ইমো এর জন্য আবার কিছু কইবো না তো !!!

অতিথি লেখক এর ছবি

এই ফাটকাবাজির দেশে স্বপ্নের পাখিগুলো বেঁচে নেই...

রাসিক রেজা নাহিয়েন

কড়িকাঠুরে  এর ছবি

চলুক

তামান্না ঝুমু এর ছবি

আসুন আমরা সবাই অনলাইনে এসে কলেমা পড়ি।

এক লহমা এর ছবি

কী ভাবে এই আইন বানান হল? কোন কোন যুক্তির পরম্পরায়?

--------------------------------------------------------

এক লহমা / আস্ত জীবন, / এক আঁচলে / ঢাকল ভুবন।
এক ফোঁটা জল / উথাল-পাতাল, / একটি চুমায় / অনন্ত কাল।।

এক লহমার... টুকিটাকি

অতিথি লেখক এর ছবি

শিব ঠাকুরের আপন দেশে আইন কানুন সর্বনেশে

ইসরাত

অতিথি লেখক এর ছবি

শিব ঠাকুরের আপন দেশে আইন কানুন সর্বনেশে

ইসরাত

ধুসর গোধূলি এর ছবি

এই সংশোধিত আইনেই দেখলাম চার ব্লগারের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। এবং বিজ্ঞ আদালত তাদের মামলা থেকে অব্যহতির আবেদন নাকচ করে বিচার শুরু করার আদেশ দিয়েছেন। বিজ্ঞ আদালতের উপরে কোনো কথা নাই। কিন্তু কথা হলো যেই বিজ্ঞ আইনপ্রণেতা এবং অভিযোগ গঠনকারী/রা এই মামলার অভিযোগ গঠন করেছেন তার/তাদের 'বাঁশের কেল্লা' ইসলামী ছাত্রী সংস্থা', 'আমার দেশ' এবং 'মাহমুদুর রহমান' নিয়ে আদৌ কোনো অভিযোগ আছে কিনা!

ব্লগে লিখলে বুঝলাম সাত থেকে চৌদ্দ বছর পর্যন্ত চৌদ্দ শিকের ভাত খাইতে হবে সাথে কোটি টাকা জরিমানাও গুনতে হবে। কিন্তু, সাধারণ মানুষের আবেগকে পুঁজি করে উষ্কানী দিয়ে সারাদেশব্যাপী ধ্বংসজ্ঞ, রাস্ট্রের ও জনগণের জান-মালের ক্ষতি সাধন, ধর্মীয় উপাসনালয় ধ্বংস এবং অগ্নিসংযোগ করার শাস্তির বিধান এই আইণে কী বলে?

ব্লগ ও ব্লগারদের গলা চেপে ধরে রাস্ট্র ও জনগণের কল্যানের নামে নুনচুনআমেরকষ মেশানো একটা কিছু পাশ করিয়ে আপনারা বিজ্ঞ আইন প্রণেতা ভাবতেই পারেন নিজেকে। অনেক আর্থ্রোপডাই উড়ে কিন্তু তারা অ্যাভিস নয়। অ্যাভিস হতে হলে সেই গোত্রের হতে হয়। রাস্ট্র ও রাস্ট্রের নাগরিকদের বিরুদ্ধে অবস্থান করে যারা ক্ষতি সাধন করে যাচ্ছে তাদের ইয়েটাও না করতে পেরে নিরীহ ব্লগারদের চৌদ্দ বছরের জন্য চৌদ্দ শিকের ভেতরে পুরে রাখার ব্যবস্থা করতে যারা আইণ প্রণয়ন করে তাদেরকে ষাষ্টাঙ্গে স্যালুট!

মৃষৎ এর ছবি

চলুক

প্রৌঢ় ভাবনা এর ছবি

আরে, বুঝেননা ক্যান, সামনে ভোট, শাহবাগী নাস্তিকেরাতো ভোটটা তাদের বাক্সেই দিবে (রাজাকারদের বিচার চায় যে) তাই ইসলামী ভোট ধরবার কৌশল মনয়। কোন নীতিনির্ধারক বুঝাইছে হয়তো। সব বোগাস।

সোহান হাসনাত এর ছবি

এই আইনের অপপ্রয়োগের ফলে সবচে' বেশী ক্ষতি হবে অনলাইনের জঙ্গিবাদ বিরোধী লেখকদের!!
কারণ, কিছু লিখতে গেলেই হাঁটুতে বুদ্ধি রাখা ছাগুরা 'অনুভূতি' টেনে এনে অভিযোগ করবে আর ওই সব প্রগতিশীল লেখনীর খবরদারি করবে গাড়ল পুলিশ প্রশাসন!!

-সোহান হাসনাত

নীড় সন্ধানী এর ছবি

আইনটা আগামী সরকারের জন্য বর্তমান সরকারের এক বিশেষ উপহার। আগামীতে বিএনপি জামাত যদি ক্ষমতায় আসে তাহলে মাসখানেকের মধ্যে এই আইনের বলে ব্লগ-ফেসবুকে যারা যুদ্ধাপরাধীর বিচার নিয়ে যারা গলা শুকিয়ে ফেলেছে, মুক্তিযুদ্ধের পতাকাকে সর্বোচ্চ স্থানে রাখার জন্য হাতের আঙুলের গিট ব্যথা করে ফেলেছে, তাদের সবাইকে সাফা করে ফেলতে পারবে।

শুধু তাই না, ব্লগ, ফেসবুক, ইউটিউব, মায় তাবত ইন্টারনেটই নিষিদ্ধ হয়ে যেতে পারে। কারণ সবগুলোর মধ্যে অনুভুতিকে কাতকুতু দেবার ক্ষমতা আছে। কার মনে কোন কারণে ব্যথা লাগে তা তো বলা যায় না। ব্যথা লাগলেই পুলিশ কেস, সাত বছরের জেল।

যে কাজটা বিএনপি জামাত সরকার আসলে করতো, সেটা আগেই করে দিল আওয়ামী লীগ। যাতে বন্ধুরা ক্ষমতায় এসেই খপাখপ ধরপাক্রামি শুরু করতে পারে।

‍‌-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.--.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.-.
সকল লোকের মাঝে বসে, আমার নিজের মুদ্রাদোষে
আমি একা হতেছি আলাদা? আমার চোখেই শুধু ধাঁধা?

অর্ফিউস এর ছবি

কি চমতকার দেখা গেল!

guest_writer এর ছবি

বেশ তো ! হয়রানি আর রিখটার ¯ে‹লে মাপতে হবে না ।

নাসির এর ছবি

বউনি নাকি হয়ে গেছে ! হলই বা, আমার দলের লোক তো আর নয় ! আমরা মতপ্রকাশের স্বাধীনতায় আছি, থানা-পুলিশ আমাদের কাজ না !

নাজমুল আহমেদ এর ছবি

অহন থেইক্যা ভাসানী স্টাইল ধরন লাগবো, যা কওনের ব্যাক মোনাজাতে কওন লাগব। সরকার বাহাদুরের সবাইরে ধর্মানুরাগী বানানির লাইগ্যা একটা ধইন্যা গুরু গুরু

হে রাব্বুল আলামিন, যারা এই আইসিটি আইন বানাইছে তাগোর উপ্রে তুমি লানত বর্ষন কর, তাগোরে তুমি হাবিয়াহ দোযখে নিক্ষেপ কর, আর দুনিয়া থেইক্যা তুমি এই আইসিটি আইন উঠাইয়া নিয়া যাও।

আমিন!

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA