রহস্যময় কুয়ান্টাম কাজের ছেলে

অতিথি লেখক এর ছবি
লিখেছেন অতিথি লেখক (তারিখ: মঙ্গল, ২৭/০৩/২০১৮ - ৮:১১অপরাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

মম গৃহে পালিত সে
রহস্যময় কুয়ান্টাম কাজের
ছেলে।

সারাদিন সে কি করে, কি খায়, বেড়ায় না ঘুমায়, আমি কুন খবর রাখি না।
শুধু জানি রাত্তির ঘনালে
টিভি-ফেসবুক সব বন্দো করে আমি ও আমার পত্নী প্রাণপ্রিয়া হোসনে আরা
যখন মশারি
চারখানি অসমান রশির নির্মম জট ফরমুলা ছাড়িয়ে টাঙ্গিয়ে পড়ি শুয়ে
কুয়ান্টাম কাজের ছেলে সব দ্বিধা দুর করে আচম্বিত ফুঁয়ে

দুদ্দাড় দউড়িয়ে সে অন করে মম লেপ্টপ
খুলে ফেলে সকল পাসওয়ার্ড
ঢুকে পড়ে আমার ফেসবুকে
আর ফর্সা ও কিঞ্চিৎ মাংসল রমনী আছেন যারা আমার ফ্রেন্ড
লিষ্টে
কেবল ফর্সা মুটা নন তারা, একই সাথে ভীশন বিদুষী
কুয়ান্টাম কাজের ছোকরা তাদের মেসেজ করে, চুনিয়া মুনিয়া তুমরা এইবার তবে মোরে দেহাউ তব পুশি।

জানি না কেন এ ছোড়া গ্রাম ফেলে এসেছে শহরে
গ্রামে কি বিলাই কিছু খুলা আকাশের তলে আজকাল ঘুরেঘারে না?
কেন সে কার্নিশে যত হুলুগুলু আছে তাগোরে কদাপি পুছে না
শুধু রাত্র সাড়ে বারোটায় তার বিলাইয়ের সন্ধানে ঢুকতে হয় মম ফেসবুকে
আর বান্ধবীরা শুধু ভুল বুঝে।

সকাল ঘনালে যবে জাগ্রত হোসনে আরা কাউকাউ করে
বলে মিনশে এইবার রুটিভাজি খেয়ে
তবে বেড়িয়ে পড় তব কাজে
তখন ফেসবুক খুলে হাই তুলে দেখি যত ফর্সা-মুটা বান্ধবীরা করে রাগারাগি
কেউ বলে খেলায়েত ভাই
চামড়া দিয়া চপ্পল বানাই
কেউ দেয় তার পোষ্য বিড়ালের শতেক ক্লোজাপ।
কেউ দেয় অভিশাপ।
কেউ কেউ কেন্দে বলে হোসনে আরা আপাকে সব কয়ে দেব অসভ্য ইতর ইবলিস হদ্দাফাক।
আমি হতবাক।

কিন্তু দুয়ে দুয়ে মিলে যায় চার
আতিপাতি করে খুজি কুথায় গেল সে কুয়ান্টাম কাজের ছেলে, সব দুষ যার
পাই না।
সে একই সাথে কনা ও তরঙ্গ
সকালে সে রনে দেয় ভঙ্গ
উবে যায় তার পুশিকৌতুহল সঙ্গে লয়ে, কে জানে কুথায়
কুয়ান্টাম কাজের ছেলেরা এ জগতে ভোর হলে যেখানে লীলায়
সেখানে গিয়েই হয়তো সে অন্য অন্য কুয়ান্টাম কাজের ছোকরার সাথে
বসে তার হিসাব মিলায়
কে রাখে সে খুঁজ?
নারী তুমি বড়ই অবুঝ।

------------------------------

নামঃ খেলায়েত
পেশাঃ কবি


মন্তব্য

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গড়াগড়ি দিয়া হাসি
গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু

মেলা যন্ত্রণার একটা দিনে অনেকক্ষণ হাসাইলেন। আমি জানি এই লেখাটা আমি ফিরে ফিরে এসে পড়ব!
ব্লগের সেই দিন নেই আর। তবু আপনি অনেক লিখবেন সেই আশা রইল।
সচলায়তনে স্বগতম।

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

হাসিব এর ছবি

পিষে ফেল খেলায়েত!

তাসনীম এর ছবি

হাসতে হাসতে দম বন্ধ হয়ে যাওয়ার মতো। পুরনো ব্লগ দিনের স্মৃতি মনে পড়ল।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

আমারো পুরনো ব্লগ দিনের কথা মনে পড়ল এই লেখাটা পড়ে!

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

চরম উদাস এর ছবি

আমারও।

অতিথি লেখক এর ছবি

চরম উদাস ভাই আপনি এখনো আছেন?

চরম উদাস এর ছবি

ছিলাম না। এই লেখার কারণে ফিরে আসলাম। এরকম লেখা আবার নতুন করে লেখালেখি শুরু করার অনুপ্রেরণা জাগায় হো হো হো

মেঘলা মানুষ এর ছবি

কবিতা মারাত্মক গুল্লি

অফটপিক: @ চরম উদাস, ফিরে আসেন।
কি কি করলে আপনে আসবেন,বলেন।

নাইলে একটা লেখা নামায়ে ফেলি:

How to: কিভাবে চরম উদাসের থেকে লেখা বাইর করবেন?

  • ফেবুতে প্রচুর নারী ফেক আইডি খুলে সেগুলোতে স্ট্যাটাস দেয়া।
    "উদাস ভাইয়া আর লেখে না, আমার কিচ্ছু ভালো লাগে না। মিসিং ইয়ু !"
  • চরম উদাসের মত লিখতে পারলে ১মিলিয়ন ডলার পুরষ্কার ঘোষণা করা। তখন পুরষ্কারের লোভে আসল উদাসও দুই একটা লেখা দিবেন। (টেকটুকা কে না চায় চাল্লু )
  • সাহিত্যে নোবেল প্রাইজ কমিটি নিয়মিত সচলে চোখ রাখেন এমন খবর চাউর করে দেয়া।
  • সবশেষে, শিশুসংক্ষিপ্তনিদ্রা (কিডন্যাপ) করে এনে ভয় ভীতি দেখিয়ে, চিপা দিয়া, মুর্গ-মুসাল্লামের আর লেগ রোস্টের লোভ দিখিয়ে লেখা বাইর করা।

আরও অনেক কিছু মাথায় আছে, কিন্তু এলিমেন্ট অভ সারপ্রাইজ-টা থাকুক।

শুভেচ্ছা হাসি

অতিথি লেখক এর ছবি

হা হা হা। ক্লাসের ব্রেকে পড়লাম। ফিরে এসে অর্থনীতির তত্ত্ব ছাপিয়ে কেবল কোয়ান্টাম তত্ত্বই ভর করছিলো মাথায়।আলোচ্য রচনার প্রধান চরিত্র আমার পছন্দের মানুষদের একজন। কিন্তু শ্রোয়েডিঙ্গারের বাক্স খোলার পর দেখতে পাচ্ছি বেড়াল মরে গিয়েছে অনেক আগেই।

----মোখলেস হোসেন

সত্যপীর এর ছবি

হাততালি গড়াগড়ি দিয়া হাসি

আগের লেখায় পাঁচে পাঁচ দিছি এইবার দশে দশ। পরের লেখায় একশতে একশ দিবার অপেক্ষায় লুঙ্গিতে গিঁট দিয়া বসলাম।

..................................................................
#Banshibir.

রিক্তা এর ছবি

আগের লেখার লিংক দেন। প্রতিটা লাইন কোট করার মতো। তবে নিচের দুই লাইনের তুলনা নাই:

কুয়ান্টাম কাজের ছেলেরা এ জগতে ভোর হলে যেখানে লীলায়
সেখানে গিয়েই হয়তো সে অন্য অন্য কুয়ান্টাম কাজের ছোকরার সাথে
বসে তার হিসাব মিলায়

--------------------------------
হে প্রগাঢ় পিতামহী, আজো চমৎকার?
আমিও তোমার মত বুড়ো হব – বুড়ি চাঁদটারে আমি করে দেব বেনোজলে পার
আমরা দুজনে মিলে শূন্য করে চলে যাব জীবনের প্রচুর ভাঁড়ার ।

রিক্তা এর ছবি

ওহ গুগুল করে পাইলাম। আহা!

--------------------------------
হে প্রগাঢ় পিতামহী, আজো চমৎকার?
আমিও তোমার মত বুড়ো হব – বুড়ি চাঁদটারে আমি করে দেব বেনোজলে পার
আমরা দুজনে মিলে শূন্য করে চলে যাব জীবনের প্রচুর ভাঁড়ার ।

মন মাঝি এর ছবি

ফাটাফাটি! চলুক গড়াগড়ি দিয়া হাসি

****************************************

হযবরল এর ছবি

"খেলা‌য়েতের কুয়ান্টাম ঘুড়া" এর পরের পর্বে।

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি

অনেক দিন পরে একটা লেখা পড়ে ঠাঠা করে হাসলাম। খেলায়েতের খেলা চলুক।

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _
একজীবনের অপূর্ণ সাধ মেটাতে চাই
আরেক জীবন, চতুর্দিকের সর্বব্যাপী জীবন্ত সুখ
সবকিছুতে আমার একটা হিস্যা তো চাই

ওডিন এর ছবি

সে একই সাথে কনা ও তরঙ্গ

গড়াগড়ি দিয়া হাসি

অতিথি লেখক এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি গুল্লি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গুল্লি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গুল্লি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গুল্লি গড়াগড়ি দিয়া হাসি গুল্লি

নাহ, খেলায়েত ভাইয়ের আসলে কোন জুড়ি নাই। কি এক লেখা দিলেন ভাইডি, একদম সচলের বাঘা বাঘা-দের কমেন্ট এসে লাইন ধরে দাঁড়িয়ে গেল।

জানি না কেন এ ছোড়া গ্রাম ফেলে এসেছে শহরে
গ্রামে কি বিলাই কিছু খুলা আকাশের তলে আজকাল ঘুরেঘারে না?
কেন সে কার্নিশে যত হুলুগুলু আছে তাগোরে কদাপি পুছে না
শুধু রাত্র সাড়ে বারোটায় তার বিলাইয়ের সন্ধানে ঢুকতে হয় মম ফেসবুকে
আর বান্ধবীরা শুধু ভুল বুঝে।

এই প্যারা-খানার তুলনা নাই। গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু গুরু ^:)^ গুরু গুরু

অন্তরা রহমান

সত্যপীর এর ছবি

হে কুয়ান্টাম মডু, হদ্দাফাকের ইমোটিকন এখন সুমায়ের দাবী।

(প্রচারেঃ কবি খেলায়েত সংগ্রাম পরিষদ)

..................................................................
#Banshibir.

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

কবিতা পড়তে পড়তে কখনো মনে পড়ে দলছুট অথবা সবুজ ইয়ের কথা। কী ভাষায়, কী বানানে, কী শব্দ চয়নে, কী উপমায়! এমন কবিতায় উত্তম জাঝা! লেখা -গুড়- হয়েছে ম্যাঁও আইসা পড়ো বেইবে... দিয়েও মন ভরে না!


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

তারেক অণু এর ছবি

গড়াগড়ি দিয়া হাসি লে ঘিরে লে!

নজমুল আলবাব এর ছবি

এইটা কিতা? মানিগুনি লুকদের নিয়া কিতা চলতেছে এইসব। পতিবাদ জানায়া গ্লাম

তাহসিন রেজা এর ছবি

হা হা হা দারুণ !!! গুল্লি

------------------------------------------------------------------------------------------------------------
“We sit in the mud, my friend, and reach for the stars.”

অলীক জানালা _________

Sandhan sharma এর ছবি

ভালো লাগলো

এক লহমা এর ছবি

চলুক
লাইক দিয়ে পাশে আছি। হাসি

--------------------------------------------------------

এক লহমা / আস্ত জীবন, / এক আঁচলে / ঢাকল ভুবন।
এক ফোঁটা জল / উথাল-পাতাল, / একটি চুমায় / অনন্ত কাল।।

এক লহমার... টুকিটাকি

আলমগীর এর ছবি

হাততালি হাততালি হাততালি হাততালি

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।
Image CAPTCHA