একাত্তরের সেনাপতি

সুহান রিজওয়ান এর ছবি
লিখেছেন সুহান রিজওয়ান (তারিখ: বিষ্যুদ, ০৩/১১/২০১১ - ১২:২৯পূর্বাহ্ন)
ক্যাটেগরি:

সীমান্তের সন্ধ্যা

তারা দুইজন বসে আছেন মুখোমুখি, একটা প্রায় শুকনো খালের উপরের কালভার্টে।

চারপাশ ঘন সবুজ। অশ্বথ আর পিপুল গাছের উঁচু বেষ্টনী চারপাশে, পশ্চিমাকাশের সূর্যের আলো সেটা ভেদ করে ঢুঁকতেও পারছে না ঠিকমত। অসহ্য গরম। এই তপ্ত আবহাওয়ায় ঘন ছায়ার মাঝে বসে থাকলে অবসন্ন লাগাটা স্বাভাবিক। আমীর-উল ইসলামের সেটি লাগছেও।

জায়গাটা সীমান্তের নো ম্যানস ল্যান্ডের কাছে, জীবননগর, টঙ্গি খাল। সময়টা শেষ বিকাল। দিনটা ৩০ মার্চ, ১৯৭১।

তারা দুইজনে অপেক্ষা করছেন। অপেক্ষা করছেন মাহবুব উদ্দীন আর তৌফিক এলাহীর জন্যে। আমীর-উল ইসলাম মনে মনে আরেকবার নিজের সঙ্গীর সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেন। ভদ্রলোক প্রথমেই সীমান্তের ওপারে সশরীরে না গিয়ে বার্তা পাঠিয়েছেন মাহবুব আর তৌফিক সাহেবকে দিয়ে। বার্তাটি সংক্ষিপ্ত এবং স্পষ্ট।

স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অবিসংবাদিত রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষ থেকে স্বাধীন বাংলাদেশের দুইজন শীর্ষস্থানীয় নেতা এসেছেন প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতে। ভারত সরকার তাদের যথাযোগ্য সামরিক মর্যাদা দিয়ে বরণ করতে সম্মত রয়েছেন কি না।

আমীর-উল ইসলাম বয়েসে তরুণ বলেই যেন একটু বেশিই উত্তেজিত, অযথা চঞ্চল। তার থেকে থেকে মনে পড়ছে যে এখানে রচনা হচ্ছে একটি স্বাধীন জাতির ইতিহাস আর হাত দিয়ে ছুঁয়ে ছুঁয়ে তার প্রতিটা পাতা অনুভব করছেন তারা দুইজন। এ এক বিরল সৌভাগ্য। মাহবুব আর তৌফিকের জন্যে অপেক্ষা করতে করতে অভ্যাসবশত আমীর-উল ইসলাম নিজের দাঁড়িতে হাত বোলান। এবং চমকে ওঠেন। পরমুহুর্তেই তার মনে পড়ে যায়, শখের ফ্রেঞ্চকাট দাঁড়ি তিনি কেটে ফেলেছেন ঢাকা ত্যাগের সময়েই। নিজের কাছেই নিজে বোকা বনে যাওয়া আমীর-উল ইসলাম হেসে ফেলেন।

ঠিক সে সময় আমীর-উল ইসলাম লক্ষ্য করেন, তার সঙ্গীও হাসছেন। নিঃশব্দে।

হতচকিত আমীর-উল ইসলাম প্রশ্ন করেন, ‘ ভাই, আপনি...হাসছেন যে ??’

‘ভাবছি, ’ নিঃশব্দ হাসি মুখে ঝুলিয়েই বলেন তার সঙ্গী, ‘ভাবছি, যে আমি আজ হেরে গেলাম।’

আমীর-উল ইসলাম ঠিক বুঝতে পারেন না কথাটা। ‘ কিন্তু... আপনি এই মুহুর্তে এই কথাটা বলছেন কেন ভাই ?? আমরা তো বিজয়ের পথেই যাচ্ছি...’

তার সঙ্গী হেসে ফেলেন এবারও। বলেন, ‘ঠিক তা না। ... ১৯৪৭ সালে যখন পাকিস্তান তৈরী হলো- তখন থেকেই আমার ক্লাসের অমুসলিম বন্ধুরা আমায় বলতো, তোদের এই পাকিস্তান টিকবে না। কিন্তু, কী আশ্চর্য দেখেন- আমি না বুঝেই তাদের সাথে তর্ক করতাম তখন। ওদের যুক্তি দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করতাম যে কী কী কারণে পাকিস্তান রাষ্ট্রটা টিকে যেতে পারে...।
অথচ আজকে দেখেন, ওদের কথাটাই কিন্তু ঠিক প্রমাণ হয়ে গেলো। আমি তর্কে হেরে গেলাম শেষতক।... এজন্যেই বললাম, আমি আসলে আজকে যুক্তিতে হেরে যাওয়া একজন মানুষ।’

আমীর-উল ইসলাম কী বলবেন খুঁজে পান না। ২৫শে মার্চের রাতে ঢাকায় কী ঘটেছে, তা তো তারা নিজের চোখেই দেখেছেন। আমীর-উল ইসলামের মাথা আবার ক্রোধে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। তারুণ্যের আবেগে তাৎক্ষণিক প্রতিশোধের নেশায় টগবগ করতে থাকেন তিনি।

অসহনীয় গরমে বসে থাকতে না পেরে একসময় কালভার্টের উপর গা এলিয়ে দেন আমীর-উল ইসলাম। পিঠে যেন ছ্যাঁকা পড়ে যায় প্রথমে। সারাদিনের গরমে তেতে আছে জায়গাটা। তবুও অবসন্ন শরীর ওইটুকু সহ্য করে নিয়ে বিশ্রাম চায়।

আমীর-উল ইসলামের চোখে হালকা ঘুম নেমে আসে। তার সঙ্গী বসে থাকেন একাকী, গভীর চিন্তায় ডুবে থেকে ধ্যানমগ্ন।

সন্ধ্যার খানিক পরেই হঠাৎ বুটের শব্দ। পাশের ঝোপ থেকে মার্চ করে এগিয়ে আসে একদল জওয়ান। সবার পেছনে উঁকিঝুকি দিচ্ছে মাহবুব আর তৌফিকের পরিচিত মুখ।

সামরিক উর্দি পড়া একজনকে কথা বলতে এগিয়ে আসতে দেখা যায়। এগিয়ে এসে সামরিক উর্দি তাদের দু’জনকে বলে, ‘ স্যার, আমি ক্যাপটেন মহাপাত্র। ইউ আর ওয়েলকাম টু আওয়ার ক্যাম্প।’

পেছনের সৈনিকেরা তলোয়ার উঁচিয়ে ধরে, সশব্দ স্যালুট জানায়। পরিপূর্ণ সামরিক মর্যাদায় স্বাধীন বাংলাদেশের দুই প্রতিনিধি প্রবেশ করেন ভারতে।

অবিলম্বে এসে পৌঁছেন ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের আইজি, গোলোক মজুমদার। তিনি হতভম্ব হয়ে পড়েন আগত দুই ‘রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধি’দের দেখে। জীবনে এমনটা দেখেননি তিনি। এরা আবার কেমন ধারা ‘রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধি’ !! খোঁচা খোঁচা দাঁড়ি মুখে, পরণে ময়লা গেঞ্জি আর লুঙ্গি- যেমনটা কৃষকদের থাকে !!

গোলোক মজুমদার কাজের মানুষ। অনাবশ্যক কথা না বাড়িয়ে দ্রুততার সাথে জীপে তুলে নিলেন তাদের দুইজনকে। জীপ স্টার্ট নিলো। গন্তব্য সেই দমদম।

কৌতূহল দমাতে পারছিলেন না গোলোক মজুমদার। থাকতে না পেরে অবশেষে আরোহীদের দিকে ফিরে তাদের পরিচয় চেয়েই বসলেন তিনি।

-‘আমার নাম আমীর-উল ইসলাম।’, তরুণটি বলেন।

-‘আমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের একজন প্রতিনিধি মাত্র,’ তরুণের সাথের ছোটোখাটো মানুষটি একগাল হেসে বলেন। ‘ আমার নাম তাজউদ্দীন আহমদ।’

জীপ ছুটে চলেছে দমদমের রাস্তায়। ইতিহাস তখনো জানে না- ইতিহাস জানবে আগামী দুইশত বাষট্টি দিনে- এই ছোটোখাটো মানুষটি বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামের ভেতরের-বাইরের অগণিত শত্রুর সাথে লড়াই করে যাবেন প্রতিনিয়ত, বহুবার স্রোতের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে একক নির্ভুল সিদ্ধান্তে হতাশ করবেন স্বাধীনতার শত্রুদের। বঙ্গবন্ধুর প্রবল ব্যক্তিত্বের আড়ালে চিরকাল অনালোকিত থেকে যাওয়া এই মানুষটিই জাতির সবচেয়ে সংকটের সময়ে নেতৃত্ব দেবেন প্রচারের আড়ালে থেকে।

হয়ে উঠবেন, ৭১’ এর নিঃসঙ্গ সেনাপতি।

ভূট্টোর ভয়

শেষ পর্যন্ত তাজউদ্দীন ??

সাড়ে সাত কোটি বাঙ্গালির প্রাণের নেতা হিসেবে এতদিন তো শেখ মুজিবের নামই শুনে এসেছে সবাই, শুধুমাত্র তর্জনি উঁচিয়েই পূর্ব পাকিস্তান অচল করে দিয়ে শেখ মুজিবও প্রমাণ করে দিয়েছে তার প্রবাদতুল্য জনপ্রিয়তা। ক্র্যাকডাউনের প্রথম প্রহরেই মুজিবকে গ্রেপ্তার করবার পরেই তো মেরুদন্ডহীন, কালোরঙা বাঙ্গালির মনোবল ভেঙ্গে যাবার কথা। এই এখানেও, প্রতিবারের মতোই, ঝামেলা পাকাতে এসে উদয় হয়েছে এই তাজউদ্দীন ??

ফরমান আলী ভেবে পায় না, এই লোকটা আসলে কোন ধাতুতে তৈরী। অস্ত্র নেই-সেনাবাহিনী নেই- নিজের মাটি পর্যন্ত নেই। পূর্ব পাকিস্তানের বেহেনচোত বাঙ্গালিগুলোর এই অর্থহীন সংগ্রাম কতদিন টিকিয়ে রাখতে পারবে কোন নেতা ?? কতদিন ধরে বাঙালিদের স্বাধীনতার মিথ্যা স্বপ্ন দেখাতে পারবে এই নাছোড়বান্দা তাজউদ্দীন ??

রাও ফরমান আলীর মনে পড়ে যায়, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের কথা।...

গত মাসেই, মুজিব-ইয়াহিয়া আলোচনা চলছে। আলোচনা তো অজুহাত আসলে। তলে তলে আসলে সময় নিচ্ছিলেন ফরমান আলীরা, একত্রিত করছিলেন তাদের সৈন্যদের। লোক দেখানো আলোচনায় জুলফিকার আলী ভুট্টোও এসেছিলেন ঢাকায়। বিশেষ এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকে তাকে আর ইয়াহিয়াকে নিয়ে বসেছিলেন ভূট্টো। নিজের হোটেলে, ইন্টারকন্টিনেন্টালে।
ইয়াহিয়ার মুজিবকে বড় ভয়। বাঙালি জাতটা হুজুগে। এই ব্যাটার ভাষণে যে কোন সময় ক্ষেপে গিয়ে কিছু একটা করে বসতে পারে লোকে। মুজিবকে তাই গ্রেপ্তার করাই উচিৎ, মত রাখেন ইয়াহিয়া।

ঢকঢক করে গলায় প্রিয় পানীয় ব্ল্যাক ডগ ঢেলেছিলেন ভুট্টো। এরপরে, মনে পড়ে ফরমান আলীর, তাদের দুজনকে চমকে দিয়ে সজোরে চাপড় মেরেছিলেন টেবিলে। ‘আর এতেই সমস্ত সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে ?? তাই মনে হয় আপনাদের ??’

-‘লিসেন। আই ডোন্ট গিভ আ ড্যাম এবাউট শেখ মুজিব, ’ রক্তলাল চোখে চিবিয়ে চিবিয়ে বলেছিলেন ভূট্টো। ‘ ইমোশনাল এপ্রোচে তাকে দমিয়ে ফেলা যায়। বাট... দ্যাট লিটল ম্যান বিহাইন্ড হিম, দ্যাট লিটল নটোরিয়াস ম্যান, ফাইল হাতের ওই তাজউদ্দীন- তাকে আটকানো বড় শক্ত। ... দিস গাই ইজ ভেরী থরো। দিস তাজউদ্দীন, আই টেল ইউ, উইল বিকাম ইউর মেইন প্রবলেম !!’

হাতে ধরা বিশেষ বার্তাটি ফরমান আলী আরেকবার পড়ে। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে গতকাল মুক্ত মেহেরপুরের মাটিতে স্বাধীন বাংলাদেশের সরকার গঠনের অনুষ্ঠানটির কথা। তাজউদ্দীন অসাধ্য সাধন করেছে। ইন্দিরা গান্ধীর সাথে আলোচনা করেছে, সীমান্ত এলাকায় নিরন্তর ছোটাছুটিতে একত্রিত করেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের, গঠন করেছে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার।

রাও ফরমান আলীর মনে হয়, ভূট্টো সাহেব ঠিকই বলেছিলেন। তাজউদ্দীন, ইতিমধ্যেই তাদের প্রধাণতম সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ফরমান আলী ঠিক করলো, অচিরেই একটি প্রচারপত্র বিলি করতে হবে। সেখানে তাজউদ্দীনকে বলা হবে ভারতের দালাল। সেই সাথে আরো একটা ঘোষণা দেয়া দরকার। কূটনৈতিক স্টাফ ছাড়া অন্য সকল ঢাকাবাসীকে বলা হবে তাদের কাছে কোন অস্ত্র থাকলে তা নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনে জমা দিতে। অস্ত্র ছাড়া কতক্ষণ টিকে থাকবে এই হিন্দুয়ানি বাঙালিরা ??

জানতো না ফরমান আলী, সে সময় আরো একটি মারাত্বক অস্ত্র বহন করছিলো প্রতিটি মুক্তিকামী বাঙ্গালিরাই। ঢাকা থেকে জিঞ্জিরা পালানোর পথে এক অবিন্যাস্ত দাঁড়ির যুবক; যার নাম নির্মলেন্দু গুণ; সেই অদ্বিতীয় অস্ত্রটি নিয়ে একসময় লিখে ফেলবেন একটি কবিতা-

‘ পুলিশ স্টেশনে ভিড়, আগ্নেয়াস্ত্র জমা নিচ্ছে শহরের
সন্দিগ্ধ সৈনিক। ...
আমি শুধু সামরিক আদেশ অমান্য করে হয়ে গেছি
কোমল বিদ্রোহী, প্রকাশ্যে ফিরেছি ঘরে,
অথচ আমার সঙ্গে হৃদয়ের মতো মারাত্বক
একটি আগ্নেয়াস্ত্র,- আমি জমা দিইনি।’

...ফাইলের আড়ালে থাকা তাজউদ্দীনের এই অস্ত্রটিকেই ভূট্টো সবচেয়ে বেশি ভয় করতেন।

শিলিগুড়ির সভা

সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন কেবল নির্বাচনে জয়ী গণপ্রতিনিধিরা, স্থির ছিলো এটাই। অথচ প্রথম বক্তা শেখ আবদুল আজিজ সভাপতির আহবানে মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে দেখতে পেলেন এমন অনেক ছাত্রনেতার মুখ, যাদের এখানে আদৌ থাকবার কথা নয়।

গতকালও এমনটাই ঘটেছিলো। মূল অধিবেশনের পূর্বের প্রস্তুতিমূলক অধিবেশনেই উপস্থিত হয়েছিলেন এই ছাত্রনেতারা। এক পর্যায়ে মাইক দখল করে নিয়ে উচ্চারণের অযোগ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেছিলেন মুজিবনগর সরকারকে। বলাবাহুল্য, তাদের আক্রমণের মূল লক্ষ্য ছিলেন এই সরকারের ‘প্রধানমন্ত্রী’।

শিলিগুড়ির এই গহীন অরণ্যের সাথে খুব মানিয়ে গেছে আজকের কনফারেন্সের সভাপতির কালো আচকান আর মাথার কালো টুপি। খন্দকার মোশতাক ভেতরে তীব্র উল্লসিত এইসব অনাহূত ছাত্রনেতাদের দেখে।

‘স্বাধীনতা চাও, না বঙ্গবন্ধুকে চাও ??’ এই আবেগী প্রশ্নের মাধ্যমে গত কিছুদিন ধরেই শেখ মুজিবের কাছের ছাত্রনেতাদের উসকে দিয়ে আসছেন তিনি। শেখ মুজিবের অনুপস্থিতিতে দেশের মূল নেতৃত্ব তাদের কাছেই থাকবে, এটাই প্রত্যাশা ছিলো এই ছাত্রনেতাদের। প্রবাসী সরকারের প্রধাণমন্ত্রী তাজউদ্দীনের উপরে তাদের ক্ষোভ তাই খুব স্বাভাবিক। তদুপরি ধুরন্ধর মোশতাক তাদের কানে তুলেছেন বিষমন্ত্র- এখনো যদি যুদ্ধ বন্ধ করে পাকিস্তানের সাথে কনফেডারেশন সরকার ব্যবস্থায় ফিরে যাওয়া যায়, তবেই হয়তো বেঁচে যাবেন শেখ মুজিব। আর নইলে...

দাঁতে দাঁত চাপলেন খন্দকার মোশতাক। সিনিয়রিটির সুবাদে এখন দলের প্রধাণ তো তারই হবার কথা, কোত্থেকে উড়ে এলো এই তাজউদ্দীন ?? যাক, এর শোধ তিনি আদায় করে নেবেন ঠিক। এই আবদুল আজিজকেও উসকানি দেয়া হয়েছে। এই মুহুর্তে তার বক্তব্যে সে ধুয়ে দিচ্ছে প্রবাসী সরকারকে।

উপস্থিত শ’তিনেক এমপি আর এমএনও-রা অনুভব করতে থাকে, একটা ভয়ানক পরিস্থিতি জমাট বাঁধছে এই সভাকক্ষে। আবদুল আজিজের প্রবল আক্রমণের শিকার হচ্ছেন তাজউদ্দীন সরকার।

ঘটলো এক নাটকীয় ঘটনা। বিচক্ষণ পরিষদ সদস্য ময়েজউদ্দীন বুঝতে পারলেন আবদুল আজিজের উদ্দেশ্য- তিনি সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তুলতে চান উপস্থিত সকলকে। হঠাৎ মঞ্চে লাফিয়ে উঠে ময়েজউদ্দীন শার্টের কলার ধরে সরিয়ে দিলেন আবদুল আজিজকে।

বারুদে আগুণ পড়লো যেন। উপস্থিত ছাত্রনেতারা ক্রমাগত স্লোগান উড়াতে লাগলো, ‘ বঙ্গবন্ধুকে ফিরিয়ে আনো। ’ জোরগলায় তারা জানাচ্ছিলেন মুজিবনগর সরকারের প্রতি তাদের অনাস্থার কথা।

ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম হতভম্ব হয়ে পড়লেন। দাঁড়িয়ে মুখ খুলতে গিয়েও পারলেন না তিনি। ছাত্রনেতাদের অকথ্য, অশালীন আক্রমণে বসে পড়তে হলো তাকে। বঙ্গবীর জেনারেল ওসমানীরও একই দশা। মুখ খুলবার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলেন তিনিও। মাথাটা হেঁট হয়ে যাচ্ছে প্রবাসী সরকারের সদস্যদের। তাদের প্রতি এমন অবিশ্বাস প্রদর্শন করছেন নবীন, উত্তেজিত ছাত্রনেতারা- উন্মোচন করে দিচ্ছেন তাদের অন্তর্দ্বন্দ্ব- ভারত সরকারের কাছে এরপরেও তাদের বিশ্বাসযোগ্যতা আর রইবে কি এরপর ??

সকলের অলক্ষে হাসছেন খন্দকার মোশতাক। আর অন্যদিকে, সকলের চোখের সামনে উঠে দাঁড়ালেন তাজউদ্দীন। হাতে তুলে নিলেন মাইক্রোফোন। কোলাহল স্পর্শ করতে চাইলো ছাদ, কিন্তু তাজউদ্দীন স্পষ্ট করে উচ্চারণ করতে লাগলেন এক একটি বাক্য- আর থেমে যেতে লাগলো সমস্ত আক্রমণ।

“আমরা স্বাধীনতা চাই। স্বাধীনতা পেলেই বঙ্গবন্ধুকে আমাদের মাঝে পাবো। ...

আজ যদি বঙ্গবন্ধু মুজিবের জীবনের বিনিময়ে আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ পাই, তাহলে সেই স্বাধীন বাংলাদেশের মধ্যেই আমরা পাব বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে।...

বাংলাদেশ যদি আজ এত রক্তের বিনিময়েও স্বাধীন না হয়, তাহলে বাংলাদেশ চিরদিনের জন্য পাকিস্তানি দখলদারদের দাস ও গোলাম হয়ে থাকবে।

... আর এই অধিকৃ্ত পূর্ব পাকিস্তানে যদি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট হয়েও আসেন, তবু তিনি হবেন পাকিস্তানের গোলামীর জিঞ্জির পরান এক গোলাম মুজিব। বাংলাদেশের জনগন কোনদিন সেই গোলাম শেখ মুজিবকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বলে গ্রহন করবে না, মেনে নিবে না।

...স্বাধী্নতা ছাড়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের আর কোন অস্তিত্ব নেই, আর পরিচয় নেই। স্বাধীন বাংলাদেশ মানেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। পরাধীন বাংলায় বঙ্গবন্ধু ফিরে আসবেন না।

... মুজিব স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশেতে ফিরে আসবেন এবং তাকে আমরা জীবিত অবস্থায় ফিরিয়ে আনব ইনশাল্লাহ।”

তাজউদ্দীনের ভাষণ শেষ হওয়া মাত্র আবেগে দাঁড়িয়ে গেলো শিলিগুড়ির সভাকক্ষ। নির্দ্বিধায় তারা আস্থা রাখলেন তাজউদ্দীনের অধীনে প্রবাসী সরকারের ওপর। ‘জয় বাংলা !! জয় বঙ্গবন্ধু !!’ স্লোগানে কেঁপে কেঁপে উঠছিলো শিলিগুড়ি। ওদিকে পেছনের দরজা দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছিলেন ছাত্রনেতারা। বুঝে গেছেন, এই মুহুর্তে জনমত তাদের পক্ষে নেই।

ছোট্ট একটি পাথরখন্ডও কখনো কখনো পারে বিশালাকার কোন নদীর গতি বদলে দিতে। তেমনি, বক্তা হিসেবে দারুণ কোন সুখ্যাতি যার কখনোই ছিলো না, সেই তাজউদ্দীনই এই ক্ষুদ্র পরিসরের ভাষণের মধ্য দিয়ে দ্বিমুখী স্রোতে টলায়মান স্বাধীনতাযুদ্ধ নামের জাহাজটিকে আনলেন নিয়ন্ত্রণে। ইতিহাসের যাদুকরী নয়টি মিনিটে সেনাপতি দূর করলেন সকল অনাস্থা আর অবিশ্বাস, নিশ্চিত করলেন লাল-সবুজের একটি জাতির জন্ম।

তুমুল হাততালির সাথে সাথে নিজের চেয়ারে ফিরে গেলেন তাজউদ্দীন। পাশে বসা বঙ্গবীর ওসমানী মাথা ঝুঁকিয়ে মৃদুস্বরে তাকে বললেন, ‘ ভালো বলছো তাজউদ্দীন। আজকে লক্ষণ বেশি সুবিধার দেখতে ছিলাম না...’

এরপরে সভার কাজ চলে, একসময় শেষও হয়।

সম্মেলনের আগামীকাল চলবে নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে। ক্যামেরা এগিয়ে এসেছে তখন, সভার প্রথম দিনের শেষ মুহুর্তটিতে ধরে রাখতে। ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি তাই দাঁড়াতে অনুরোধ করলেন সকলকে। তাজউদ্দীনকে উদ্দেশ্য করে বললেন, ‘ তাজউদ্দীন ভাই, আসেন। ছবিটা তুলে নেন।’

অন্তর্মুখী তাজউদ্দীন মাথা নাড়লেন। ছবি তোলায় তার বড় অনীহা। নজরুল ইসলাম উত্তরটা জানতেন, তাই খুব বেশি অবাক হলেন না তিনি। বরং অন্যান্য সহকর্মীদের এগিয়ে আসতে বললেন।

ছবি তোলা হলো। স্বাধীনতা আনতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার ছবিতে হাস্যজ্জ্বল। কেবল একজন হাসছিলেন না। তিনি খন্দকার মোশতাক।

অথচ খন্দকার মোশতাক এরপরে হাসবেন আরো দুইবার।

প্রথমবার ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সকাল সাড়ে সাতটায়, যখন আগামসি লেনে তার বাড়ির সামনে ট্যাঙ্ক পাহারায় আনা সামরিক জীপের দরজা খুলে মেজর রশীদ তাকে স্যালুট করবে।

এবং দ্বিতীয়বার সে ঘটনার একাশি দিন পর, যখন তার আদেশ পেয়ে নিরুপায় ডিআইজি প্রিজন খুলে দেবেন কেন্দ্রীয় কারাগারের দরজা আর ক্যাপ্টেন রিসালদার মোসলেমউদ্দীন সশস্ত্র সেনাদল নিয়ে প্রবেশ করবে ভেতরে। নির্লজ্জ বুলেট বর্ষণে তারা হত্যা করবে ঊনসত্তরের গণঅভ্যুথানের দিনে সংগ্রাম চালিয়ে নেয়া সৈয়দ নজরুল ইসলামকে, এগার দফার সমর্থনে জাতীয় পরিষদের সদস্যপদ বর্জন করা কামরুজ্জামানকে, বহু সংগ্রামের অক্লান্ত যোদ্ধা ক্যাপ্টেন মনসুর আলীকে।

...আর অবশ্যই, এই তাজউদ্দীনকে।

একজন বিস্মৃত মানুষের খোঁজে

প্রতিদিন রাত নয়টা বাজবার ঠিক দশ মিনিট আগেই লাইব্রেরিয়ান মোজাফফর মিয়া বিশাল ঘরটার একপ্রান্ত হতে ফ্যানের সুইচ নিভিয়ে দেয়। আজকেও ব্যতিক্রম হয় না এর। সুইচ নেভানোর শব্দ শুনে সে হাত চালায়। সামনের বইগুলো থেকে দ্রুত হাতে খাতায় তুলে নিতে থাকে দরকারী সব। আরো মিনিট পাঁচেক পরে, ইতিহাসের এসাইনমেন্ট খাতাটা নিয়ে রিজওয়ান সুহান পাবলিক লাইব্রেরি থেকে বেরিয়ে আসে।

হাঁটাপথে টিএসসি যাবার সময় তার পাশ কাটিয়ে দ্রুত গতির একটা ছোটো মিছিল চলে যায় উলটো দিকে। নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছে এক স্থানীয় নেতা, বিশাল ব্যানারের মাঝে তার পাশে দেখা যাচ্ছে পরিচিত আরেকজনের ছবি। রিজওয়ানের খুব বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করে; মুক্তিকামী ওই নেতা সত্যিই বুকে ধারণ করেন তার পাশের মানুষটির আদর্শ, একদিন তিনি সত্যিই তার পাশের মানুষটির মতোই হবেন। কী অসাধারণ-ই না ছিলেন মানুষটি !!

পাঁচ ফুট এগার ইঞ্চির দেহ নিয়ে কাঁচাপাকা ব্যাকব্রাশ চুল আর সম্মোহনী কালো চোখজোড়ার শেখ মুজিব আজ মৃত্যুর এতো বছর পরেও তীক্ষ্ণ অন্তর্ভেদী দৃষ্টিতে মুগ্ধ করেন সবাইকে। তবুও কেনো যেন, রিজওয়ান সুহান ব্যানারে ঝোলানো অনন্যসাধারণ শেখ মুজিবের পেছনে আড়ালে থাকা একজন সাধারণ মানুষকে দেখতে পায়।

মানুষটি পরম মমতায় টেকনাফের নীল জল থেকে তেঁতুলিয়ার তপ্ত মাটি স্পর্শ করে গিয়েছিলেন প্রাণের দাবি ছয়দফাকে ফাইলবন্দী করে, একাত্তরের উত্তাল মার্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষণের প্রতিটি চরণের বাস্তব রুপ দিয়েছিলেন অভাবনীয় সাংগঠনিক দক্ষতায়, ছোট্ট একটি ডাকোটা বিমানে করে সীমান্ত আকাশে অক্লান্ত ওড়াওড়িতে তুলে এনেছিলেন স্বাধীনতা যুদ্ধের মহানায়কদের আর পুরাণের ভরতের মতই শেখ মুজিবের প্রত্যাবর্তনে হাসতে হাসতে তার হাতে তুলে দিয়েছিলেন সিংহাসন।

অথচ মানুষটির বুকে আক্ষেপ ছিলো। ছিলো একটি অকথিত, রোমাঞ্চকর গল্প। দুইশত ছেষট্টি দিনের যে গল্প তিনি বলে যেতে পারেন নি তার মুজিব ভাইকে। না-বলা সেই গল্প জমে থাকা বুকটিকে ছিদ্র করে বেরিয়ে গেছে ধাতব বুলেট আজ থেকে ঠিক তিনযুগ আগে। ১৯৭৫ এর ৩রা নভেম্বর।

হাঁটতে হাঁটতে রিজওয়ান সুহান নিজমনে তাজউদ্দীনের কাছে ক্ষমা চায়। আশা করে, লিটল নটোরিয়াস ম্যানের ওই না-বলা গল্পটা একদিন ঠিক ঠিক কেউ লিখে দিয়ে যাবে।

তথ্যসূত্রঃ
১। তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত তথ্যচিত্র- 'তাজউদ্দীন আহমদঃ নিঃসঙ্গ সারথী'
২। মূলধারা ' ৭১- মইদুল হাসান
৩। তাজউদ্দীন আহমদ, বাংলাদেশের অভ্যুদয় এবং তারপর- কামাল হোসেন
৪। ইতিহাসের রক্তপলাশ, পনেরই আগস্ট পঁচাত্তর- আবদুল গাফফার চৌধুরী
৫। বাংলাদেশ, লীগ্যাসি অফ ব্লাড- এনথনি মাসকারেনহাস
৬। আত্নকথা ১৯৭১- নির্মলেন্দু গুণ


মন্তব্য

তাসনীম এর ছবি

তাজউদ্দীনের ঋণ কোনোদিনও শোধ হবে না।

মহাপ্রয়াণ দিবসে আপনার জন্য শ্রদ্ধা।

এই অসাধারণ লেখাটার জন্য সুহানকে অনেক ধন্যবাদ।

________________________________________
অন্ধকার শেষ হ'লে যেই স্তর জেগে ওঠে আলোর আবেগে...

স্বপ্নহারা এর ছবি

পড়তে পড়তে গা শিউরে উঠল! অসাধারণ!! চোখে পানি চলে আসলো...

অনেক ধন্যবাদ সুহান!

চার নেতার মহাপ্রয়াণ দিবসে শ্রদ্ধা!

-------------------------------------------------------------
জীবন অর্থহীন, শোন হে অর্বাচীন...

সত্তুক এর ছবি

অসাধারণ, মন্তব্য না করে পারলাম না। খুব বেশী রকম ভাল লাগল। অনেক কষ্টও লাগল, ঐ মহান নেতার জন্য।
এমন সুন্দর এক পোস্ট এর জন্য আপনাকে সালাম।

অচেনা আগুন্তুক এর ছবি

আমরা জাতি হিসেবে কখনওই তাজউদ্দিন আহমদ-দের আত্মত্যাগ অনুভব করিনি, করলেও স্বীকার করিনি। কত জনই বা জানেন তাঁদের অবদানের কথা, সেটা নিয়েও প্রশ্ন আছে। নেপথ্যের এই সেনাপতির প্রতি রইল বিনম্র স্রদ্ধা।

লেখাটার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

তারেক অণু এর ছবি

অসাধারণ! নিঃসঙ্গ সারথি তাজউদ্দিনের স্বাধীন করা দেশের মাটিতে জন্ম নেওয়ায় প্রতি পলে গর্ব ও কৃতজ্ঞতা অনুভব করি।

মৃত্যুময় ঈষৎ এর ছবি

ইতিহাস বাঙময় হয়ে উঠে সুহানের লেখায়.........অসাধারণ!!! চলুক

শ্রদ্ধেয় জাতীয় চার নেতা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি। তাঁদের নিঃস্বার্থ আত্মত্যাগেই আমাদের স্বাধীনতা সুসংহত, জাগ্রত। তাঁরা অমর। তাঁদের আমরা ভুলবো না। শ্রদ্ধা


_____________________
Give Her Freedom!

প্রৌঢ় ভাবনা এর ছবি

শ্রদ্ধা

জাতিয় চার নেতার প্রয়াণ দিবসে ।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জনগণকে প্রস্তুত করেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আর মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তাজউদ্দীন। বাংলাদেশে তাজউদ্দিনকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করা হয়নি। ইতিহাস একদিন সত্য প্রকাশ করবেই।

সত্যকে তুলে ধরার এই প্রচেষ্টাকে জানাই সাধুবাদ।

শমশের এর ছবি

ধন্যবাদ, তাজউদ্দিনকে নিয়ে এই চমৎকার লেখাটির জন্য।
মুক্তিযুদ্ধে তাজউদ্দিনের অবদান পরবর্তী কোন সরকারই ঠিকমত মুল্যায়ন করেনি। এমনকি তাঁর নিজের দলও শুধু জেলহত্যা দিবসেই তাঁকে একটু লোকদেখানো স্মরণ করে। স্বাধীনতাযুদ্ধের সফল কান্ডারি, এই মহান নেতার শাহাদত দিবসে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে গেলাম। জেলহত্যার অন্যন্য শহীদদের জন্যও শ্রদ্ধা।

মাইনুর এর ছবি

অদ্ভুত এক অনুভূতি......ভালোলাগা, অপরাধবোধ......!
সুহান কে অনেক ধন্যবাদ............

তৌফিক জোয়ার্দার এর ছবি

লেখার জন্য ধন্যবাদ। কিন্তু শেষ অংশটুকু বাদে গোটা লেখাটা শাহাদুজ্জামানের 'ক্রাচের কর্নেল' থেকে তুলে দেয়া বলে মোটামুটি নিশ্চিতভাবেই মনে হচ্ছে। বইটা হাতের কাছে না থাকায় মিলিয়ে দেখতে পারলামনা। যদি তা-ই হয়ে থাকে তবে সেটা উল্লেখ করা প্রয়োজন ছিল। আর আমার ভুল হয়ে থাকলে দু:খিত (যদিও স্মৃতি এত বড় প্রতারণা আমার সাথে সচরাচর করেনা)।

রাজিব মোস্তাফিজ এর ছবি

@তৌফিক জোয়ার্দার,

সন্দেহ যাচাই করার জন্য একটা কাজ করতে পারিস ! সুহানের অন্য গল্পগুলোও পড়ে ফেলতে পারিস -- তাহলেই নিজে নিজে বুঝে যাওয়ার কথা !

রাজিব (কলেজে তোর গ্রুপমেট)

----------------------------------------------------------------------------
একশজন খাঁটি মানুষ দিয়ে একটা দেশ পাল্টে দেয়া যায়।তাই কখনো বিখ্যাত হওয়ার চেষ্টা করতে হয় না--চেষ্টা করতে হয় খাঁটি হওয়ার!!

তৌফিক জোয়ার্দার এর ছবি

পরিচয় দেয়া লাগবেনা বন্ধু; ভাল করেই চিনতে পেরেছি প্রথমেই।

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

তৌফিক জোয়ার্দার ভাই, আপনাকে আশ্বস্ত করতে পারি- কেবল শেষ অংশটুকুই নয়- লেখাটির পুরো অংশটুকুই আমার লেখা। কোন অংশটা আপনাকে ক্রাচের কর্ণেলের কথা মনে করিয়ে দিলো- বুঝলাম না। কোথাও কপি করেছি কি না, আপনি উল্লেখ করে দিলে আমিও নিশ্চিত হতাম। পড়বার জন্যে ধন্যবাদ। মন খারাপ

আর রাজিব ভাই, আপনাকেও ধন্যবাদ। হাসি

তৌফিক জোয়ার্দার এর ছবি

আহত করে থাকলে দু:খিত; তবে এ ধরণের সংশয় নিরসনে প্রশ্ন তোলাটা সবার নৈতিক দায়িত্ব বলে মনে করি। শাহাদুজ্জামানের লেখার স্টাইলের সাথে মিল থাকার জন্যও বিভ্রান্ত হয়ে থাকতে পারি। আপনি নিজেও বইটা পড়ে যাচাই করে নিতে পারেন ব্যাপারটা (যদি না পড়ে থাকেন)। প্রবাস থেকে বইটা সংগ্রহ করা দুরূহ বলে কোন অংশটায় মিল পাচ্ছি সেটা ধরিয়ে দেয়া সম্ভব না এই মুহূর্তে। সময়োপযোগী লেখার জন্য আবারো ধন্যবাদ।

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

ক্রাচের কর্ণেল পড়েছি তৌফিক ভাই। এবং উপরে বর্ণিত কোন ঘটনাই সেখান থেকে সংগ্রহ করা হয় নি- নিশ্চিত থাকতে পারেন আপনি।

প্রতিটা স্বতন্ত্র ঘটনাকে আলাদা নাম দিয়ে লিখে যাবার একটা রীতি অনেক পুরনো উপন্যাসে আছে, ক্রাচের কর্ণেলেও ছিলো। এই রীতি আমি এখানেও ব্যবহার করেছি। হয়তো তাই এই বিভ্রম।

ধ্রুবনীল এর ছবি

যে সৎ মেধাবী নেতার নয়মাসব্যাপী যোগ্য নেতৃত্বে আমরা স্বাধীন দেশ পেলাম, তাঁর যোগ্য মুল্যায়ন এখনও হয়নি বলেই মনে করি। মুক্তিযুদ্ধের সফল কান্ডারি এই মহান নেতার ঋণ কোনোদিনও শোধ হবে না। মৃত্যুদিবসে তাঁকে সহ সব নিহতদের জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা।

অসাধারণ এই লেখাটার জন্য লেখককে জানাই অনেক ধন্যবাদ।

সচল জাহিদ এর ছবি

শ্রদ্ধা


এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি, নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।
বিশ্ব পানি দিবসব্যক্তিগত ব্লগ। কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ অভ্র।

সজল এর ছবি

অনেক ধন্যবাদ সুহান এই চমৎকার লেখাটির জন্য। তাজউদ্দিনের কাছে আমাদের অনেক ঋণ, অথচ জাতি হিসাবে আমরা তার স্বীকৃতি দিচ্ছি না। অশেষ শ্রদ্ধা মানুষটির জন্য।

---
মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

হিমু এর ছবি

গুরু গুরু

তাজউদ্দীনকে আমরা নিজেদের মতো করে সম্মান করি, আসুন। সচলে যাঁরা লেখেন, তাঁরা প্রত্যেকেই একদিন না একদিন অন্তত একটা হলেও বই প্রকাশ করবেন। আসুন আমরা আমাদের মহত্তম সৃষ্টি তাজউদ্দীনের নামে উৎসর্গ করি। তাঁর পুত্রকন্যার বইয়ের শেলফ ভরে যাক বাংলাদেশের প্রতিটি লেখকের উৎসর্গ করা বই দিয়ে।

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

এই ভাবনাটা চমৎকার হিম্ভাই।

...তাজউদ্দীন সাহেবের কন্যা সিমিন হোসেন রিমি- যতদূর জানি- তার বাবার স্মৃতি আর অবদান ধরে রাখবার জন্যে নিয়মিত পাঠচক্রের আয়োজন করেন। একদিন নিশ্চয়ই ইতিহাসে তাজউদ্দীন সাহেব তার প্রাপ্য সম্মানটুকু পেয়ে যাবেন।

আশফাক আহমেদ এর ছবি

এই পাঠচক্রটার কথা আমি শুনি আমার বন্ধু ধ্রুব'র কাছ থেকে। যদি কখনো যাস, খোমাখাতায় একটু জানিয়ে যাস।
আর লেখা অসাধারণ হইসে। আশা করি, তুই যদি ভবিষ্যতে আরো বড় পরিসরে কোন বড়গল্প-উপন্যাস লিখিস, উনাকে নিয়ে কিছু লিখবি

-------------------------------------------------

ক্লাশভর্তি উজ্জ্বল সন্তান, ওরা জুড়ে দেবে ফুলস্কেফ সমস্ত কাগজ !
আমি বাজে ছেলে, আমি লাষ্ট বেঞ্চি, আমি পারবো না !
আমার হবে না, আমি বুঝে গেছি, আমি সত্যি মূর্খ, আকাঠ !

ধুসর গোধূলি এর ছবি

'মুজিব ভাই'- এ নামেই তো ডাকতেন তিনি বঙ্গবন্ধুকে। যুদ্ধের পুরো নয়টা মাস যিনি বঙ্গবন্ধুর একটা ছবিকে চেয়ারে রেখে নিজের কাজ করে গেছেন। স্বাধীনতা অর্জনের পর যিনি কাঁদতে কাঁদতে বলেছিলেন, 'আমি তো কেবল দাই-এর কাজটা করেছি। জনক তো এখনও পশ্চিম পাকিস্তানে বন্দী!"

এই অসাধারণ মানুষটির নাম সামনে এলেই শ্রদ্ধায় নতজানু হয়ে যাই। আর নভেম্বরের ৩ তারিখ এলেই ক্রোধে-দুঃখে চুপসে যাই। কী অকৃতজ্ঞ জাতি আমরা!

নীলকান্ত এর ছবি

কী অকৃতজ্ঞ জাতি আমরা!

আজকাল প্রতি মুহূর্তে কথাটা উপলব্ধি করি।

চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধা। আগের মতই সুহানের অসাধারণ লেখা।


অলস সময়

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

মন খারাপ

... খেয়াল করবেন ধুগোদা, পাঠ্যপুস্তকেও কিন্তু তাজউদ্দীন সাহেব সহ চারনেতার অবদানকে সেভাবে তুলে ধরা হয় না। নতুন প্রজন্মের পাঠকেরা জানতেই পারে না আমাদের ইতিহাসের এইধরণের পেছনের আত্মত্যাগী নেতাদের কথা।

কল্যাণF এর ছবি

অসাধারন লিখেছেন সুহান ভাই।

ইমন এর ছবি

অসাধারণ লেখা। পড়তে পড়তে চখে পানি চলে আসে।
একজন আত্মীয়ের কাছে শোনা কথা, যিনি তাজউদ্দিন এর খুব কাছের মানুষ ছিলেন। ১৯৭২ সালে যেদিন বঙ্গবন্ধু ঢাকায় ল্যান্ড করেন সেই দিন থেকেই খন্দকার মোশতাক বঙ্গবন্ধুর কান ভারী করতে থাকেন। বঙ্গবন্ধু তাজউদ্দিনকে মুক্তিযুদ্ধের পর হুমকি মনে করতেন। সেই থেকে এই দুই নেতার মদ্ধে দ্বন্দের শুরু। তাজউদ্দিন কখনই তার নেতার মতের বিরুদ্ধে যাননি। আমার সেই আত্মীয় অবস্থা বেগতিক দেখে পরে লন্ডন এ চলে যান, তাজউদ্দিনকেও উনি অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু তাজউদ্দিন কখনই দেশ ছেড়ে যেতে রাজী হননি। বুকের রক্তে তিনই দেশকে ভালোবাসার দাম পরিশোধ করেছেন।

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

হ্যাঁ, মোশতাক- তাজউদ্দীন বিরোধের এই বিষয়টা বেশ খোলামেলা ভাবেই উঠে এসেছে অনেক ইতিহাস সংশ্লিষ্ট বইতে। খন্দকার মোশতাকের ব্যক্তিগত রোষের জন্যে আমাদের ইতিহাসের চারজন নেতা অকারণে খুন হলেন। ...

নিভৃত_সহচর এর ছবি

সচলায়তনে আমার প্রিয় লেখকদের মধ্যে আপনি অন্যতম একজন। এই লেখাটা প্রিয়ত্বটা আরো বাড়িয়ে দিলো। হ্যাটস অফ!

শিশিরকণা এর ছবি

তাজ

~!~ আমি তাকদুম তাকদুম বাজাই বাংলাদেশের ঢোল ~!~

শিশিরকণা এর ছবি

তাজউদ্দীন যে ধাতুতে গড়া মানুষ, সে ধাতুর মানুষকে শত্রু-মিত্র সবাই ভয় পায়, মনে ময়লা আছে এমন কেউই এমন মানুষ্কে পাশে রাখতে চাইবে না, এজন্যই এদেরকে প্রথম সুযোগেই সরিয়ে দেয়া হয়।

আমাদের আগের প্রজন্মের প্রতি আমার ভীষন রাগ লাগে, তার কেন এই মানুষ গুলোকে বেঁচে থাকতে মূল্যায়ন করতে পারলেন না। বাংলাদেশটাকে এভাবে শকুনের হাতে তুলে দেয়ার দায় কি মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী প্রজন্ম এড়াতে পারেন??

অন্তত এ প্রজন্মে যে সত্যিকার সোনার মানুষ গুলোকে যথাযথ সম্মান শ্রদ্ধা জানাবার চেষ্টা করছে এটা একটা ভালো দিক। সুহানকে তাই অনেক ধন্যবাদ।

~!~ আমি তাকদুম তাকদুম বাজাই বাংলাদেশের ঢোল ~!~

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি

আসুন সবাই লেখাটা শেয়ার করি।

ব্যবসায়িক বা জাগতিক লাভ না থাকলে আমরা কাউকে সম্মান দিতে চাইনা। অসাধারণ লেখার জন্য স্যালুট।

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _
একজীবনের অপূর্ণ সাধ মেটাতে চাই
আরেক জীবন, চতুর্দিকের সর্বব্যাপী জীবন্ত সুখ
সবকিছুতে আমার একটা হিস্যা তো চাই

নীল এর ছবি

অসাধারন !

দ্রোহী এর ছবি

বাংলাদেশের ইতিহাসে র‌্যাম্বোদের ভিড়ে তাজউদ্দীন এক নিঃসঙ্গ সারথী।

চমৎকার এ লেখাটির জন্য সুহানকে অনেক ধন্যবাদ। ধন্যবাদ দিনটি মনে রাখার জন্য।

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

বাংলাদেশের ইতিহাসে র‌্যাম্বোদের ভিড়ে তাজউদ্দীন এক নিঃসঙ্গ সারথী।

গম্ভীর মুখেও এই মন্তব্যটা পড়ে হেসে ফেললাম। হ্যাঁ, অনেক র‍্যাম্বো চারপাশে ঘুরে বেড়ায়। কোথাকার কে এক তাজউদ্দীন, কে পুঁছে তাকে...

মণিকা রশিদ এর ছবি

তাজউদ্দিনের খুব ঘনিষ্ট এক পরিবারের থেকে কিছু অসাধারণ গল্প শোনার সৌভাগ্য হয়েছিল আমাদের এই সাধারণ বেশে অসাধারণ নির্মোহ মানুষটির। সুহানের এই লেখা অনেকটা ইমোশনাল করে দিল... খুব ভালো লাগলো।

----------------------------------------------
We all have reason
for moving
I move
to keep things whole.
-Mark Strand

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

একদিন সময় করে সে গল্পগুলো আমাদেরও বলে যাবেন মণিকাদি। খুব আগ্রহ নিয়েই শুনবো...

রিপন মজুমদার এর ছবি

প্রায় দু'বছর হতে চললো, আপনার মণিকাদি কি সে গল্পগুলো কোথাও বলেছেন?

অরিত্র অরিত্র এর ছবি

খুব ভাল বর্ণনা করেছেন।
জাতীয় চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধা..

ষষ্ঠ পাণ্ডব এর ছবি

তাজউদ্দিনকে আড়ালে রাখতে পারলে কারো কারো লাভ আছে। তখন কিছু ছোট মানুষকে তাদের সাইজ থেকে অনেক বড় করে দেখানো যায়। তাজউদ্দিনকে নিয়ে বেশি আলোচনা করলে তো বিপদ আছে। তখন অন্য অনেকের ক্রেডিটে যদি ঘাটতি পড়ে যায়! তাজউদ্দিনকে তাঁর প্রয়াণের সহযাত্রী বাকি তিন জাতীয় নেতার সাথে এক ব্রাকেটে উচ্চারণ করাই শ্রেয়, তাতে তাজউদ্দিন কী ছিলেন সেটাকে অনুচ্চারিত রাখা যায়। ....... নিজের গর্বের জায়গাটা চেনে না, নিজের বীরকে মর্যাদা দিতে পারে না, গোল্ডফিশের মেমোরি - এমন একজন মানুষ দেখতে চান? কেউ কেউ আয়নায় দেখে নিতে পারেন; কেউ কেউ নিজের পাশের জনের দিকে তাকাতে পারেন।

অটঃ সুহান, তোমার গল্প সংকলন বের করার সময় হয়ে গেছে।


তোমার সঞ্চয়
দিনান্তে নিশান্তে শুধু পথপ্রান্তে ফেলে যেতে হয়।

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

সেটাই পান্ডবদা। গত কয়েকমাস এই নিয়ে যা পড়লাম, সকল বর্ণনাতেই তাজউদ্দীন সাহেবের মতো নেপথ্যের নায়কদের আড়ালে রাখা হয়। হয়তো তাতেই সুবিধা। সূর্যাস্তের পরের সময়টা তো বৈদ্যুতিক বাতির...

অটঃ হাহা, না এখনো হয় নি। নিকট ভবিষ্যতেও হবে না।

তিথীডোর এর ছবি

গুরু গুরু

________________________________________
"আষাঢ় সজলঘন আঁধারে, ভাবে বসি দুরাশার ধেয়ানে--
আমি কেন তিথিডোরে বাঁধা রে, ফাগুনেরে মোর পাশে কে আনে"

রিয়েল ডেমোন এর ছবি

চোখে পানি চলে আসছে। আমরা ঋণী।

হিল্লোল এর ছবি

সুহান ভাই , আপনার ইতিহাস নিয়ে লেখা ছোটগল্পের সংকলন বই কেনার জন্য টাকা জমানো শুরু করলাম !

সাফি এর ছবি

অসাধারন লেখা সুহান।

তাজউদ্দিনের জন্য শ্রদ্ধা

পদ্মজা এর ছবি

বড় মাপের মানুষেরাও ভুল করেন। বঙ্গবন্ধু তার প্রমাণ। স্বাধীনতার পরে তাজউদ্দীন, শামসুল হক (্ততকালিন আওয়ামী লিগের সাধারন সম্পাদক, ততকালীন পাট এবং এল,জি,ই,ডি মন্ত্রী), চট্টগ্রামের মানিক চৌধুরী প্রমুখ নেতাদের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর দূরত্ব তৈরী করে স্বার্থান্বেষী মহল।
নিজের রক্তের বিনিময়ে এই দূরত্ব মুছে দিতে পারেননি তাঁরা।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এইসবের শুধু বিষাক্ততাটাই বহন করে চলেছেন। তিনি জানেন না পেছনের অনেক ইতিহাস, কারন ওই স্বার্থান্বেষী মহল চেহারা বদলে আজও ক্রীয়াশীল।

নতুন প্রজন্ম এই দেশের পূর্ণাংগ ইতিহাস জানুক, খন্ডিত নয়। অল্প বিদ্যা আর খন্ডিত ইতিহাস এই দু'ইয়ের কোনটাই মঙ্গলজনক নয়।

লেখা অসাধারন। শ্রদ্ধা

দিহান এর ছবি

চমৎকার লেখা সুহান। অনেক ধন্যবাদ দিনটা মনে করিয়ে দেবার জন্য।

ইদানীং পৃথিবী অনুভব করে, একটা সূর্যে চলছেনা আর
এতো পাপ, অন্ধকার
ডজনখানেক সূর্য দরকার।

ছাইপাঁশ  এর ছবি

অসাধারন এই লেখাটার জন্য লেখক কে অনেক ধন্যবাদ।

ডাঁশপোকা এর ছবি

বাংলাদেশের ইতিহাসের সব চেয়ে বড় ট্র্যাজেডির নায়ক এই তাজউদ্দীন। ৭১ এর সংকটময় সময় তিনি যেভাবে মোকাবেলা করছেন, পরে তার যথার্থ মূল্যায়ন তিনি পাননি। আর জাতি তার সম্পর্কে খুবই কম জানে। এই মহান নেতার জন্য আমাদের শ্রদ্ধা থাকবে সব সময়।

তাসকীন এর ছবি

প্রখর ব্যক্তিত্বের কাছে অন্তর্মুখীতার অদ্ভুত পরাজয়!!!
এই মানুষটাকে কেবল নামেই জানতাম,আজ চিনলাম,লিটল নটরিয়াস ম্যান
এর না বলা গল্প টা শুনতে মনে চায়,হয়তো ইতিহাস এর সত্য,দলীয় সংস্করন
ছাড়া কিছু জানা যেত,সালাম তাজঊদ্দিন!!

সুপ্রিয় দেব শান্ত এর ছবি

অসাধারন এই লেখাটার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আর সাথে সাথে পাণ্ডবদার করা কমেন্টের শেষ লাইনের সাথে সহমত প্রকাশ করছি।

চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধা।

আরিফ জেবতিক এর ছবি

তাজ উদ্দিন সম্পর্কে আমরা অনেকেই কম বেশি জানি। কিন্তু সুহান যেভাবে অসাধারণ মমতায় চিত্রকল্প একেছেন, সেটি হয়তো সবার পক্ষে সম্ভব হবে না।

আমার একটি প্রস্তাব আছে। সুহান কি তাজ উদ্দিনকে নিয়ে একটি উপন্যাস লিখে ফেলবেন?
আমাদের উচিত আমাদের এসব হিরোদেরকে আরো বেশি বেশি করে নতুন প্রজন্মের কাছে পরিচিত করে দেয়া।

ত্রিমাত্রিক কবি এর ছবি

ভাল প্রস্তাব জেবতিকদা। সুহান ভাই সিরিয়াসলি ভেবে দেখেন।

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _
একজীবনের অপূর্ণ সাধ মেটাতে চাই
আরেক জীবন, চতুর্দিকের সর্বব্যাপী জীবন্ত সুখ
সবকিছুতে আমার একটা হিস্যা তো চাই

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

সুলেখক জেবতিক ভাইয়ের মন্তব্যটা পড়ে খুব ভালো লাগছে হাসি

১৯৭১' আশ্রয় করে কিছু একটা লেখার চিন্তা খুব সুপ্তাবস্থায় মনের মাঝে ছিলো। কিন্তু কাজটা অনেক কঠিন। তাজউদ্দীন সাহেবের মতো বড়মাপের একজনকে সে ক্যানভাসে ধারণ করানোটা আরো অনেক বেশি পরিশ্রম ও অধ্যবসায় দাবি করে। ...

ইচ্ছেটা রইলো। হয়তো একদিন হবে।

মৃত্যুময় ঈষৎ(অফ্লাইন) এর ছবি

চলুক চলুক

মাহবুব ময়ূখ রিশাদ এর ছবি

মাস্টারপিস। এরচেয়ে ভালোভাবে লেখা কারো পক্ষেই সম্ভব না। আরিফ ভাই এর কথাটা ভেবে দেখতে পারো

------------
'আমার হবে না, আমি বুঝে গেছি, আমি সত্যি মূর্খ, আকাঠ !

রায়হান আবীর এর ছবি

চমৎকার। উপন্যাস লেখার কথা কিন্তু সিরিয়াসলি ভাবতে পারো ...

দ্যা রিডার এর ছবি

অসাধারণ লেখাটির জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সুহান ।

অরফিয়াস এর ছবি

চমৎকার লিখেছিস, সত্যিগুলো জানা খুব দরকার, শ্রদ্ধেয় তাজউদ্দিন আহমদ এর স্কুলের ছাত্র হিসেবে অসাধারণ গর্ব হয় আমার, ইতিহাসটা জানতাম, আবার নতুন করে আবেগ দিয়ে জানলাম, ধন্যবাদ ভাই ....

----------------------------------------------------------------------------------------------

"একদিন ভোর হবেই"

চরম উদাস এর ছবি

অসাধারণ লাগলো লেখাটা। আপনার গদ্য লেখার হাত দারুণ। আপনি ঐতিহাসিক চরিত্রগুলো নিয়ে একটা বড় পরিসরে উপন্যাস লেখার কথা সিরিয়াসলি ভাবুন।

frdayeen (দায়ীন) এর ছবি

মনের ভেতর কোথায় জানি খুব কস্ট হচ্ছে ,পুরোটুকু পড়তে পারলাম না। আপাতত একটু পড়ে রেখে দিচ্ছি। মন খারাপ

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

তাসনীম ভাই, স্বপ্নহারা ভাই, সত্তুক, অচেনা আগন্তুক, ঘণুদা, মৃত্যুময় ঈষৎ, প্রৌঢ় ভাবনা, শমসের, মাইনুর, ধ্রুবনীল, জাহিদ ভাই, সজল ভাই, কল্যাণ , নিভৃত_ সহচর, শিশিরকণা, ত্রিমাত্রিক কবি, অরিত্র অরিত্র, তিথীডোর, রিয়েল ডেমোন, হিল্লোল, সাফি ভাই, পদ্মজা, দিহান, ছাঁইপাশ, ডাঁশপোকা, তাসকীন, সুপ্রিয় দেব শান্ত, রিশাদ, হয়রান ভাই, দ্যা রিডার, অরফিয়াস, চরম উদাস-

পড়বার এবং মন্তব্য করবার জন্যে আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। হাসি

তাজউদ্দীন সাহেবের মতো আমাদের ইতিহাসের নেপথ্যে আরো অনেক নায়ক লোকচক্ষুর অন্তরালে রয়ে গেছেন। তাদের সবাইকে জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা।

ফাহিম হাসান এর ছবি

চমৎকার গল্প হয়েছে সুহান - বর্ণনা বেশ ঝরঝরে। আপনার গদ্যের হাত কি-বোর্ডে আরো ঝড় তুলুক।

নিবিড় এর ছবি

লেখা ভাল হইছে সুহান মিয়া। উপ্রে সবাই ভাল ভাল কথা বলে ফেলছে তাই আমি আর কিছু বললাম না হাসি

tanjil এর ছবি

সুহান, চমৎকার লেখা। এই লেখা পড়ে বেশ কিছু নতুন নির্মম সত্য জানলাম। লিখে যাও বন্ধু।

অনার্য সঙ্গীত এর ছবি

গুরু গুরু
কিছু বলার নাইরে ভাই। তোমাদের উপর সব ভরসা। তোমরা এইসব মানুষের কথা লিখে রাখবে। খানিকটা অকৃতজ্ঞতার দায় যদি তাতে ঘোচে এই জাতির!

______________________
নিজের ভেতর কোথায় সে তীব্র মানুষ!
অক্ষর যাপন

সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেলগীর এর ছবি

পড়তে পড়তেই ভাবছিলাম সুহানকে বলবো তাজউদ্দিনকে নিয়ে একটা উপন্যাস লিখতে। মনে হচ্ছিলো এই হাতেই সবচেয়ে সুন্দর এবং নির্ভরযোগ্য উপন্যাসটা পাবো
বলতে এসে দেখি জেবতিক ভাই বলে ফেলছেন...

লেখা নিয়ে আসলে কিছু বলার নাই... গুরু গুরু

______________________________________
পথই আমার পথের আড়াল

তাপস শর্মা এর ছবি

কি বলব। কিছুই বলার নেই। আমি এই ইতিহাসের কথা জানতাম না। জানলাম। আর শিহরণ.........

শ্রদ্ধা

রাতঃস্মরণীয় এর ছবি

অসাধারন লিখেছেন। শহীদ তাজউদ্দিনসহ তাদের সকলের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা। তার মতো মানুষেরা বিস্মৃতির অতলে তলিয়ে গেলে তা আমাদের জাতীগত ব্যার্থতা। কিন্তু সেই অপচেষ্টার প্রত্যক্ষ প্রমান হচ্ছে এই চার জাতীয় বীরের জীবন এবং অবদানগুলোকে ক্রমশ লো-প্রোফাইলভূক্ত করে ফেলা। অবশ্য বাংলাদেশ তার ইতিহাসকে ধুয়েমুছে ফেলে একটা ব্যার্থ রাষ্ট্রে পরিনত হলে অনেকেরই কিছু আসে যায় না। তারা কেবলমাত্র নিজস্বার্থসংশ্লিষ্ঠ বিষয়েই বিচলিত হয়।

সুহাননহ যারা এই বিষয়গুলো জানেন আশাকরছি তারা এই ভূলে যাওয়া বা ভূলতে যাওয়া বীরদের সম্পর্কে আরও লিখবেন। এতে করে যদি আমরা তাদের প্রতি আমাদের দায়ের কিছুটা হলেও স্বীকৃতি দিতে পারি।

------------------------------------------------
প্রেমিক তুমি হবা?
(আগে) চিনতে শেখো কোনটা গাঁদা, কোনটা রক্তজবা।
(আর) ঠিক করে নাও চুম্বন না দ্রোহের কথা কবা।
তুমি প্রেমিক তবেই হবা।

sanjida এর ছবি

অসাধারণ .. উত্তম জাঝা!

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

দায়ীন, ফাহিম ভাই, নিবিড় ভাই, তানজিল, মডু অনার্যদা, নজু ভাই, রাতঃস্মরনীয় ভাই, তাপস'দা, সানজিদা-

পড়বার, মন্তব্য করবার জন্যে আপনাদের সবাইকে বিশাল ধন্যবাদ। হাসি

মিলু এর ছবি

গুরু গুরু

তানভীর এর ছবি

সুহান, তাজউদ্দিনের মতো এ লেখাটাও অসাধারণ!

স্বাধীন এর ছবি

অসাধারণ, চমৎকার, মুগ্ধকর।

কৌস্তুভ এর ছবি

সুহান, লেখাটা চমৎকার হয়েছে।

সুহান রিজওয়ান এর ছবি

মিলু, তানভীর ভাই, স্বাধীন ভাই, কৌস্তুভদাকে অনেক ধন্যবাদ পড়বার জন্যে। হাসি

mahfuz এর ছবি

খুব ভাল লাগল লেখাটা পড়ে । লেখককে অসংখ্য ধন্যবাদ হাসি

সাজিদ এর ছবি

লেখাটা পড়ে খুব ভাল লাগলো ভাইয়া। আমি যতদূর শুনেছিলাম তাজউদ্দীন আহমেদ এর রাজনৈতিক দীক্ষা মার্ক্সবাদ এর হাত ধরে যা পরবর্তীতে তার নীতির সাথে আপসহীন মনোভাবের মূল চালিকাশক্তি ছিল। আপনার পরবর্তী লেখাগুলতে ওনার কাজের পাশাপাশি মনোজগতের কিছু হদিস পাওয়ার আশা রাখি!

সিরাজুল লিটন এর ছবি

চমতকার লিখেছেন। চলুক

সাজ্জাদ সাজিদ এর ছবি

এই অন্তর্মুখী ছোট্ট মানুষটি তার ভেতরে ধারণ করতেন কত বড় শক্তি আর দেশপ্রেম তা বোধহয় বর্ণনার অতীত।
লেখটা পড়ে ভালো লাগলো।

সাক্ষী সত্যানন্দ এর ছবি

শ্রদ্ধা

উপন্যাসের (অনেকগুলোই পেন্ডিং বোধহয়) অপেক্ষায় রইলাম, সুহান ভাই পপকর্ন লইয়া গ্যালারীতে বইলাম

তাজউদ্দীন কে নিয়ে এমন আরও লেখা হোক। তা নইলে যাদের লেখবার কথা নয়, তারা লিখে ভরিয়ে ফেলবে। সেগুলো প্রকাশিত হবার জন্য "প্রথমা" তো আছেই। আর, হিমু ভাইয়ের প্রস্তাবনার সাথে সহমত।

____________________________________
যাহারা তোমার বিষাইছে বায়ু, নিভাইছে তব আলো,
তুমি কি তাদের ক্ষমা করিয়াছ, তুমি কি বেসেছ ভালো?

নতুন মন্তব্য করুন

এই ঘরটির বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে এবং জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে না।